ওমরা ও হজের পার্থক্যসমূহ

ইসলাম ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
মক্কা শরিফ, সৌদি আরব, ছবি: সংগৃহীত

মক্কা শরিফ, সৌদি আরব, ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ইসলামি শরিয়তের পরিভাষায় নিয়ত করে ইহরামসহ কাবা শরিফের চারপাশ সাতবার তাওয়াফ, সাফা-মারওয়া পাহাড়দ্বয়ের মাঝে সাতবার সাঈ করা এবং মাথা মুণ্ডানোকে ওমরা বলে।

আফাকি তথা দূরবর্তী ওমরা সম্পাদনকারীর জন্য মদিনা মুনাওয়ারায় হজরত রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের রওজা শরিফ জিয়ারত করা সুন্নত।

ওমরা পালন গুরুত্বপূর্ণ সুন্নত আমল। ওমরা পুরুষ ও নারী সবার জন্য প্রযোজ্য। ওমরা পালন করলে হজ ফরজ হয়ে যায়, এমন কোনো বিধান নেই।

ওমরা পালনের বিশেষ কোনো সময় নেই। তবে হজের নির্ধারিত বিশেষ সময়ে (৮ জিলহজ থেকে ১২ জিলহজ পর্যন্ত পাঁচ দিন) ওমরা পালন করা বিধেয় নয়। এই পাঁচ দিন ছাড়া বছরের যেকোনো দিন যেকোনো সময় ওমরা পালন করা যায়। হজের সফরেও ওমরা করা যায়। একই সফরে একাধিক ওমরা করতে কোনো বাধা নেই। হজের আগেও (হজ না করেও) ওমরা করা যায় এবং হজের পরও বারবার ওমরা করা যায়। তবে রমজান মাসে ওমরা পালনে হজের সমান সওয়াব মিলে। আর শাওয়াল মাস ওমরা করার উত্তম সময়।

মক্কা-মদিনার প্রতি আকর্ষণ ও হৃদয়ের টান ঈমানের পরিচায়ক। তাই অনেকে প্রেমের টানে বারবার হজ ও ওমরা করে থাকেন। এরই ধারাবাহিকতায় অনেকে জীবনে অনেকবার ওমরা পালন করে থাকেন।

ওমরা প্রসঙ্গে কোরআনে কারিমে ইরশাদ হয়েছে, ‘নিশ্চয় সাফা ও মারওয়া আল্লাহর নিদর্শনাবলির অন্যতম, তাই যারা হজ করবে বা ওমরা করবে; তারা এতদুভয়ের প্রদক্ষিণ (সাঈ) করবে।’ –সূরা বাকারা: ১৫৮

ওমরা ও হজের পার্থক্য
হজ ও ওমরার মধ্যে অনেক ধরনের পার্থক্য বিদ্যমান। হজ ফরজ থাকা অবস্থায় তা আদায়ের সুযোগ থাকা সত্ত্বেও হজ সম্পন্ন না করে বারবার ওমরা করা অযৌক্তিক। কারণ, শত-সহস্র ওমরা হজের সমকক্ষ নয়। অনুরূপভাবে ওমরা আদায় করলে হজ ফরজ হয়ে যায়, এমনটিও সঠিক নয়। হজ যেমন জীবনে একবার করা ফরজ, তেমনি ওমরা জীবনে অন্তত একবার করা সুন্নত।

হজ ইসলামের পাঁচটি স্তম্ভের একটি। হজ সম্পর্কে হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি হজের জন্য আল্লাহতায়ালার ইচ্ছার প্রতিদান করে এবং তার স্ত্রীর সঙ্গে যৌনমিলন করে না এবং মন্দ ও পাপ করে না, তখন তিনি আবার ফিরে আসবেন, যেন তিনি নতুন করে জন্মগ্রহণ করেন। -সহিহ বোখারি: ৫৬৯

আর ওমরা সম্পর্কে হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘এক ওমরা থেকে অন্য ওমরা, এ দু’য়ের মাঝে কৃত পাপের কাফ্‌ফারাস্বরূপ।’ –সহিহ বোখারি

প্রধান পার্থক্যসমূহ
১. উভয়ই আল্লাহতায়ালার সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে করা কিন্তু পার্থক্য রয়েছে গুরুত্ব এবং পদ্ধতির মধ্যে।

২. প্রত্যেক মুসলমানের জন্য তাদের জীবনকালে এটি পালন করা বাধ্যতামূলক যদি তারা শারীরিকভাবে উপযুক্ত এবং আর্থিকভাবে এটি করতে সক্ষম হয়।

৩. হজ এক নির্দিষ্ট সময়ে করতে হয় কিন্তু ওমরা বছরের যেকোনো সময়ই করা যায়।

৪. ওমরার মধ্যে আরাফার ময়দান ও মুজদালিফায় অবস্থান, দুই ওয়াক্ত নামাজ একসঙ্গে আদায় করা ও খুতবার কোনো বিধান নেই। তাওয়াফে কুদূম এবং তাওয়াফে বিদাও নেই। কিন্তু ওই সব কাজ হজের মধ্যে রয়েছে।

৫. ওমরার মধ্যে তাওয়াফ আরম্ভ করার সময় তালবিয়া পড়া মওকুফ করা হয়। আর হজের মধ্যে জামরাতুল আকাবাতে কংকর নিক্ষেপ করার সময় মওকুফ করা হয়।

৬. ওমরা নষ্ট হলে বা জানাবত (ওই নাপাকী যা দ্বারা গোসল ফরজ হয়) অবস্থায় তওয়াফ করলে (দম হিসেবে) একটা ছাগল বা মেষ জবেহ করা যথেষ্ট, কিন্তু হজে তা যথেষ্ট নয় বরং পরবর্তী বছর পুনরায় হজ সম্পন্ন করতে হয়।

আপনার মতামত লিখুন :