Barta24

শনিবার, ১৭ আগস্ট ২০১৯, ২ ভাদ্র ১৪২৬

English

আজ হজ: বিশ্ববাসীর দৃষ্টি আরাফাত ময়দানে

আজ হজ: বিশ্ববাসীর দৃষ্টি আরাফাত ময়দানে
সৌদি আরবের আরাফাতের ময়দান, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
মুফতি এনায়েতুল্লাহ
বিভাগীয় সম্পাদক
ইসলাম
বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

আরাফাতের ময়দান (সৌদি আরব) থেকে: সৌদি আরবে আজ জিলহজ মাসের ৯ তারিখ। জিলহজের ৯ তারিখে পবিত্র হজ অনুষ্ঠিত হয়। হজ উপলক্ষে মক্কার সব রাস্তা এখন আরাফাতমুখী। হজপালনের জন্য আরাফাতের ময়দানে লাখো মুসুল্লি উপস্থিত। বিশ্বের ধর্মপ্রাণ মুসল্লিদের চোখ এখন আরাফাত ময়দানের দিকে।

সৌদি আরবের হজ ও ওমরা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছর হজপালনের জন্য বিভিন্ন দেশ থেকে ১৮ লাখ ৩৮ হাজার ৩৩৯ জন হজযাত্রী এসেছেন।

অন্যদিকে সৌদি আরবের নাগরিক ও সৌদি আরবে প্রবাসীদের মধ্যে সাড়ে ৪ লাখ মানুষকে প্রথমে হজপালনের অনুমতি দেওয়া হয়। কিন্তু আবেদনকারীদের সংখ্যা বেশি হওয়ায় পরে আরও লক্ষাধিক মানুষকে হজের অনুমতি দেওয়া হয়। সে হিসেবে এ বছর প্রায় ২৫ লাখ মানুষ হজপালন করছেন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/10/1565412174700.jpg

 

হজের অন্যতম ফরজ হলো- আরাফাতের ময়দানে অবস্থান করা। হজপালনকারীদের যারা সৌদি আরবে এসে অসুস্থতার জন্য হাসপাতালে চিকিৎসাধীন, তাদেরকে স্বল্প সময়ের জন্য হলেও অ্যাম্বুলেন্সে করে আরাফাতের ময়দানে আনা হবে। মূলত ৯ জিলহজ আরাফাতের ময়দানে অবস্থান করাই হজ।

হজের আনুষ্ঠানিকতার অংশ হিসেবে সকালে হাজিরা মিনা থেকে রওনা হয়ে আরাফাতের ময়দানে পৌঁছাবেন। লাখো হাজিদের কণ্ঠে ‘লাব্বাইকা আল্লাহুম্মা লাব্বাইক, লাব্বাইকা লা শারিকা লাকা লাব্বাইক, ইন্নাল হামদা, ওয়াননিমাতা লাকা ওয়ালমুলক, লা শারিকা লাকা’ ধ্বনিতে মুখরিত থাকবে আরাফাতের ময়দান।

আরাফা অর্থ পরিচিত হওয়া। আরাফাতের ময়দানের পাশের পর্বতের নাম- জাবালে রহমত। আরাফাহ ও আরাফাত এই দু'টো শব্দই আরবিতে প্রচলিত। এই ময়দান দৈর্ঘ্যে দুই মাইল,  প্রস্থেও দুই মাইল। এই বিরাট সমতল ময়দানের নাম আরাফাত। ময়দানের তিন দিক পাহাড়বেষ্টিত। আরাফাতের ময়দানে হাজিরা জোহরে ও আসরের নামাজ আদায় করবেন। এছাড়া দোয়া-মোনাজাত, কোরআন তেলায়ত ও নফল নামাজ আদায় করে সময় কাটাবেন। আরাফাতের ময়দানের দোয়া করা সবচেয়ে বেশি ফজিলতের কাজ। আলেমরাও এই পরামর্শ দিয়ে থাকেন।

৯ জিলহজ সকাল থেকে পুরুষ হাজিরা উচ্চস্বরে তাকবির পাঠ করবেন, নারীরা তাকবির পাঠ করবেন নিম্ন আওয়াজে। তাকবির হলো- 'আল্লাহু আকবার আল্লাহু আকবার, লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু আল্লাহু আকবার আল্লাহু আকবার ওয়ালিল্লাহিল হামদ।' ১৩ জিলহজ আসরের নামাজের পর পর্যন্ত তাকবির বলা ওয়াজিব।

এই ময়দানে ৬৩১ খ্রিস্টাব্দে প্রিয় নবী হজরত মুহম্মাদ (সা.)-এর নিকট হজ বিধান নাজিল হলে তিনি ৬৩২ খ্রিস্টাব্দে এক লাখ চল্লিশ হাজার সাহাবিসহ হজ পালন করেন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/10/1565412193630.jpg

 

নবী করিম (সা.) ৯ জিলহজ আরাফাতের ময়দানে উটের পিঠে আরোহণ করে বিদায় হজের খুতবা দিয়েছিলেন। ওই খুতবা মানবতার ইতিহাসে এক অনন্য মাইলফলক হয়ে আছে।

ওই খুতবার অনুসরণে আরাফাত ময়দানে অবস্থিত মসজিদে নামিরা থেকে হজের খতিব উপস্থিত হাজিদের উদ্দেশে খুতবা প্রদান করবেন। স্থানীয় সময়ানুসারে সাধারণত খুতবা শুরু হয় দুপুর সাড়ে ১২টায়।

খুতবার পর সূর্যাস্ত পর্যন্ত তালবিয়া, তাহমিদ, দোয়া-দুরুদ, ইসতেগফার কোরআন তেলাওয়াত ও আল্লাহতায়ালার দরবারে কান্নাকাটি করে সময় পার করবেন।

হজপালনকারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সৌদি কর্তৃপক্ষ সব ধরনের প্রস্তুতি গ্রহণ করেছেন। হাজিদের বিনামূল্যে চিকিৎসাসেবা দিতে মিনা ও আরাফাতের পথে কিছু দূর পরপর রয়েছে হাসপাতাল। রয়েছে দমকল ও পুলিশ বাহিনীর সদস্যরা। আরাফাতের ময়দানে সৌদি সরকারের পক্ষ থেকে সব হাজিকে বিনামূল্যে খাবার, বিশুদ্ধ পানিসহ সব সুবিধা দেওয়ার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানও হাজিদের নানা উপহার দিচ্ছে।

আপনার মতামত লিখুন :

মদিনা যাওয়ার পথে সড়ক দুর্ঘটনায় বাংলাদেশি হাজির মৃত্যু

মদিনা যাওয়ার পথে সড়ক দুর্ঘটনায় বাংলাদেশি হাজির মৃত্যু
মদিনা হাইওয়ে, ছবি: সংগৃহীত

মক্কা (সৌদি আরব) থেকে: পবিত্র হজপালন শেষে হজরত রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের রওজা জিয়ারতের উদ্দেশ্যে মক্কা থেকে মদিনা যাওয়ার পথে বাংলাদেশি হাজি বহনকারী বাস দুর্ঘটনায় ১ জন হাজি ঘটনাস্থলে ইন্তেকাল ও ২২ জন আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে।

দুর্ঘটনায় মারা যাওয়া হাজির নাম নুরুল ইসলাম (৭০)। তার গ্রামের বাড়ি ফেনী সদরে।

শুক্রবার (১৬ আগস্ট) রাত সোয়া ১১টার দিকে মদিনা থেকে একশ' মাইল আগে ওয়াদি ফারা নামক স্থান বাসের চাকা বিস্ফোরণ হয়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনায় বাসটি উল্টে যায়। ওই বাসটিতে ৩৫ জন হাজি ছিলেন। আহতদের মধ্যে ৭ জনের অবস্থা গুরুতর। বাসের যাত্রীরা স্কাই ট্রাভেলসের মাধ্যমে সৌদি আরবে হজপালনের উদ্দেশ্যে আসেন।

আহতদের মদিনার বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহতদের মধ্যে একজন নারী ছাড়া বাকিদের অবস্থা উন্নতির দিকে। গুরুতর আহতদের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) রাখা হয়েছে।

আহতদের ৮ জন মদিনা কিং ফাহাদ হাসপাতালে, মিকাত হাসপাতালে ৪ জন, উহুদ হাসপাতালে ২ জন, সৌদি-জার্মান হাসপাতালে ২ জন ও ইয়াতামা হাসপাতালে ২ জন চিকিতসাধীন রয়েছেন।

এদিকে হজপালনে সৌদি আরবে এসে শনিবার (১৬ আগস্ট) রাত পর্যন্ত ৮১ জন হাজি ইন্তেকাল করেছেন। তাদের মধ্যে পুরুষ ৭১ জন, নারী ১০ জন। মারা যাওয়া হাজিদের ৭২ জন মক্কায়, ৮ জন মদিনায় ও ১ জন জেদ্দায় ইন্তেকাল করেছেন।

আগামীতে হজ কার্যক্রম আরও সহজ করা হবে: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

আগামীতে হজ কার্যক্রম আরও সহজ করা হবে: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী
সবার মাঝে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব এডভোকেট শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

মক্কা (সৌদি আরব) থেকে: এবারের হজের ভুল-ক্রটি সংশোধন করে আগামীতে হজ কার্যক্রম আরও সহজ করা হবে বলে জানিয়েছেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব এডভোকেট শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ।

শুক্রবার (১৬ আগস্ট) রাতে মক্কায় সৌদি সরকারের দক্ষিণ এশিয়া হজ সেবা সংস্থা মোয়াসসাসার সঙ্গে হজ এজেন্সিজ এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (হাব)-এর মতবিনিময় ও নৈশভোজে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা জানান।

ধর্ম প্রতিমন্ত্রী বলেন, 'আগামীতে হাজিদের আরও সুবিধা নিশ্চিতের জন্য বাংলাদেশের হজ ব্যবস্থাপনার সঙ্গে জড়িত হাবসহ সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে দেশে ফিরে আলোচনা অব্যাহত রাখা হবে। কোনো অবস্থাতেই হাজিদের কষ্ট হয় এমন কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে না বলেও জানান ধর্ম প্রতিমন্ত্রী।'

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন মোয়াসসাসা চেয়ারম্যান ড. রাফাত ইসমাইল বদর। তিনি বাংলাদেশি হাজিদের সুবিধায় সৌদি আরব সরকারের নানা উদ্যোগের কথা উল্লেখ করে বলেন, 'হাজিদের সুবিধা দেওয়ার ধারা অব্যাহত থাকবে। ভবিষ্যতে আরও সুবিধা নিশ্চিত করা হবে। হাজিদের আল্লাহর মেহমান উল্লেখ করে ড. রাফাত বলেন, ই-ভিসা সিস্টেম ও মক্কা রুট ইনিশিয়েটিভ প্রকল্পের মতো সুযোগ-সুবিধা আরও কীভাবে বাড়ানো যায়, এটা নিয়ে কাজ চলছে।'

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/17/1566052174957.jpg

হজ এজেন্সিজ এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (হাব)-এর সভাপতি এম শাহাদত হোসাইন তসলিমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় হজ এজেন্সিগুলোর মালিক, প্রতিনিধি ও ধর্মীয় পরামর্শক হিসেবে হজে আসা বাংলাদেশের বিশিষ্ট আলেম-উলামারা উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে মোয়াসসাসার ডিরেক্টর জেনারেল ওমর সিরাজ আকবর নিজেকে বাংলাদেশি বলে উল্লেখ করে বলেন, 'আমি গর্ববোধ করি বাংলাদেশি হাজিদের সেবা দিতে পেরে।'

সৌদি আরব ধর্ম মন্ত্রণালয়ের (দক্ষিণ এশিয়া) জনসংযোগ কর্মকর্তা আবদুল আজিজ ফাহাদ রাহমা, হাব মহাসচিব ফারুক আহমদ সরদারসহ হাব নেতৃবৃন্দ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে হাবের পক্ষ থেকে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ও মোয়াসসারার উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করা হয়।

উল্লেখ্য, সৌদি আরবে পৌঁছার পর বিমান বন্দর থেকে হোটেল, হোটেল থেকে হজের আনুষ্ঠানিকতার জায়গা মিনা, আরাফাত, মুজদালিফা ও কংকর নিক্ষেপের স্থান জামারার হাজিদের থাকা-খাওয়া ও যাতায়াতের ব্যবস্থা করে মোয়াসসাসা অফিস। মোয়াসসাসার অধীনে প্রায় শতাধিক মুয়াল্লিম রয়েছে। এই মুয়াল্লিমদের মাধ্যমে সৌদি আরবে হাজিদের বিভিন্ন সেবা দেওয়া হয়।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র