Barta24

শনিবার, ২৪ আগস্ট ২০১৯, ৯ ভাদ্র ১৪২৬

English

প্রথম খ্রিস্টান হিসেবে সংরক্ষিত এমপি হচ্ছেন ঝর্ণা

প্রথম খ্রিস্টান হিসেবে সংরক্ষিত এমপি হচ্ছেন ঝর্ণা
অ্যাডভোকেট গ্লোরিয়া ঝর্ণা সরকার, ছবি: বার্তা২৪
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
খুলনা
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

দেশে প্রথমবারের মতো সংরক্ষিত নারী সংসদ সদস্য খ্রিস্টান কোনো নারী। তিনি হচ্ছেন খুলনার দাকোপ উপজেলার লাউডোব গ্রামের মেয়ে অ্যাডভোকেট গ্লোরিয়া ঝর্ণা সরকার। একুশে আগস্টের গ্রেনেড হামলায় আহত হয়েছিলেন তিনি।

ঝর্ণা সরকার আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক উপকমিটির সদস্য। তিনি খুলনার রাজনীতিতে নবাগত। তাই তাকে ঘিরে খুলনা-বাগেরহাটবাসীর কৌতূহলের যেন শেষ নেই।

সোমবার (১১ ফেব্রুয়ারি) নির্বাচন কমিশনে জমা দেওয়া আওয়ামী লীগের তালিকায় র্ঝণা সরকারের নাম ছিল ৩০ নম্বরে। তিনি খুলনা-বাগেরহাট ১১নং সংরক্ষিত মহিলা সংসদ সদস্য হিসেবে দলের মনোনয়ন পেয়েছেন।

১৯৭৯ সালে দাকোপের লাউডোব গ্রামের বাসিন্দা সুশান্ত সরকার ওরফে শানু শিকারী ও সুপ্রিয়া রেনু শিকারীর খ্রিস্টান পরিবারে জম্মগ্রহণ করেন ঝর্ণা। স্কুল জীবন থেকেই তিনি রাজনীতিতে নাম লেখান। তার ঠাকুর মা নিলিমা শিকারী মুক্তিযুদ্ধের সময় দাকোপ উপজেলার লাউডোব ও বানিশান্তা ইউনিয়নে নিজস্ব ক্যাম্পে মুক্তিযোদ্ধাদের সহায়তা করেছেন।

১৯৯৫ সালে সেন্ট পলস উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাস করেন তিনি। মাধ্যমিক শিক্ষা জীবনে মা-বাবার সঙ্গে একটি হত্যা মামলায় আসামি হয়ে কাঠগড়ায় দাঁড়িয়েছিলেন; সেই থেকে তার স্বপ্ন ছিল আইনজ্ঞ হওয়ার।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Feb/11/1549904312057.jpg

১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ সরকারের সময় যশোরের সরকারি মহিলা কলেজ ছাত্রলীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদিকার দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৯৭ সালে যশোরে এইচএসসি পাস করেন। ২০০০ সালে তেজগাঁও সরকারি কলেজ থেকে ডিগ্রি পাস করেন। এরপর ২০০৩ সালে আইন বিভাগে উত্তীর্ণ হন।

পড়ালেখার পাশাপাশি রাজনীতি করতেন। ২০০৪ সালে আইন বিভাগে উত্তীর্ণ হয়ে ঢাকা আইনজীবী পরিষদে শিক্ষানবিশ ছিলেন। তখন আওয়ামী লীগ আইনজীবী পরিষদের সদস্য অ্যাডভোকেট শাহানাজ পারভীনের সাথে একুশে আগস্টের সেই সমাবেশে যোগদান করেন। সেই গ্রেনেড হামলায় মারাত্মক আহত হন।

তারপর কৃষকলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য হন গ্লোরিয়া ঝর্ণা সরকার। রাজনীতি ছাড়াও তিনি বাংলাদেশ মহিলা ঐক্য পরিষদের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি, বাংলাদেশ খ্রিস্টান যুব উন্নয়ন পরিষদের সভাপতি, বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির মহিলা বিষয়ক সহ-সম্পাদকের দায়িত্বে আছেন।

বার্ত২৪.কমকে অ্যাডভোকেট গ্লোরিয়া ঝর্ণা সরকার বলেন, খুলনা-বাগেরহাটের সাধারণ মানুষের জন্য কাজ করতে চাই। যুব প্রজন্মের জন্য প্রধানমন্ত্রীর প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করব। তাছাড়া নেত্রী যে দায়িত্ব দেবেন জীবনের বিনিময়ে হলেও তা পালন করব। এখনো ২১ আগস্টের ক্ষত বহন করে চলেছি। দু’পা, দু’কান ও মাথায় এখনো সমস্যা রয়ে গেছে।আমি নেত্রীর হয়ে সাধারণ মানুষের পাশে যেতে চাই। তাদের দুখে-দুঃখে পাশে থাকতে চাই।

আপনার মতামত লিখুন :

স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিবের মায়ের মৃত্যু, মন্ত্রীর শোক

স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিবের মায়ের মৃত্যু, মন্ত্রীর শোক
স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ ও তার মা মোসলেমা খাতুন

স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব হেলালুদ্দীন আহমদের মা মোসলেমা খাতুন (৮২) বিএসএমএমইউ'র আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না-লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।
শুক্রবার (২৩ আগস্ট) রাত ৯টা ৪৫ মিনিটে তিনি মত্যুবরণ করেন।

মোসলেমা খাতুনের মৃত্যুতে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন। তিনি মরহুমার রুহের মাগফেরাত কামনা করেন ও শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন।

এক শোকবার্তায় মন্ত্রী জানান, সাত সন্তানের জননী মোসলেমা খাতুনের অসামান্য অবদানের কারণে তার সন্তানরা বিভিন্ন ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠিত ও বরণীয়। একজন সফল মা হিসেবে তিনি আমাদের নিকট অনুসরণীয় হয়ে থাকবেন।

শনিবার (২৪ আগস্ট) সকাল ৮টা ৪৫ মিনিটে ধানমন্ডি ঈদগাহ মাঠে (৭/এ) প্রথম নামাজে জানাজা এবং বাদ আসর কক্সবাজার রুমালিয়ারছড়া হাসেমীয়া মাদ্রাসা মাঠে মরহুমার নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে।

রোহিঙ্গাদের ফেরত না যাওয়ার উস্কানি দিচ্ছে এনজিও: তথ্যমন্ত্রী

রোহিঙ্গাদের ফেরত না যাওয়ার উস্কানি দিচ্ছে এনজিও: তথ্যমন্ত্রী
চট্টগ্রামে জন্মাষ্টমীর অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ/ ছবি: সংগৃহীত

কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বিভিন্ন কর্মসূচি পরিচালনারত কয়েকটি বেসরকারি সংস্থা (এনজিও) রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফেরত না যাওয়ার উস্কানি দিচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

তিনি বলেছেন, 'দেশি-বিদেশি কিছু এনজিও ও তাদের কর্মকর্তারা রোহিঙ্গারা যাতে তাদের দেশে ফেরত না যায়, সেজন্য উস্কানি দিচ্ছেন এবং প্ররোচিত করছেন। কারণ রোহিঙ্গারা এখানে থাকলে তাদের ফান্ড আসে। সেই ফান্ড পেয়ে এনজিওগুলো হৃষ্টপুষ্ট হয়।'

শুক্রবার (২৩ আগস্ট) রাত ৮টায় চট্টগ্রাম নগরীর আন্দরকিল্লাস্থ জেএমসেন হলে শ্রী কৃষ্ণের জন্মাষ্টমী উপলক্ষে আয়োজিত ধর্ম মহাসম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্য শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

হাছান মাহমুদ বলেন, '২২ আগস্ট রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন স্থগিত ঘোষণার কিছু আগে এনজিওদের একটি অ্যালায়েন্স বিবৃতি দিয়েছে, মিয়ানমারে নাকি সেই পরিবেশ নেই। তারা এক্ষেত্রে আগেও রোহিঙ্গাদের প্ররোচনা দিয়েছে, এখনও দিচ্ছে। রোহিঙ্গাদের মধ্যে আস্থার সংকট আছে, এটা সঠিক। কিন্তু আমরা দেখতে পাচ্ছি রোহিঙ্গাদের অনেকে উস্কানি দিচ্ছেন, যাতে তারা ফেরত না যান।'

তথ্যমন্ত্রী বলেন, 'বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা মানবিক কারণে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়েছিলেন। ১১ লাখ রোহিঙ্গা তখন বাংলাদেশে আসলেও এখন তা বেড়ে ১২ লাখ ছাড়িয়ে গেছে। সেখানকার পরিবেশ মারাত্মকভাবে ধ্বংস হয়েছে। উখিয়া টেকনাফের স্থানীয় জনগণ এখন সংখ্যালঘু।’

‘স্থানীয়রা প্রথমে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেওয়ার ক্ষেত্রে নানাভাবে সহায়তা করেছিল। কিন্তু এখন রোহিঙ্গারা নানা অপরাধের সাথে যুক্ত হয়েছে। ইয়াবাসহ নানা ধরণের পাচারের সাথে যুক্ত হয়েছে। সেখানকার সামাজিক পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে। এজন্য স্থানীয় বাসিন্দারাও নানাভাবে বিরক্ত।'

চীন ও ভারতকে ধন্যবাদ জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, 'তারা রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের ক্ষেত্রে সহায়তা করছে। তাদের সহায়তা ও উদ্যোগে বাংলাদেশ সরকারের নিরন্তর প্রচেষ্টার কারণেই কিন্তু রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের দিনক্ষণ ঠিক করা হয়েছিল। কিছু এনজিও তাদের উস্কানি দিচ্ছে, যাতে তারা ফিরে না যায়।'

সহসাই আবার রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু হবে- এমন আশাবাদ ব্যক্ত করে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, 'রোহিঙ্গারা যাতে ফিরে যায়, সরকারের পক্ষ থেকে কুটনৈতিক তৎপরতা সহ নানা উদ্যোগ চলমান আছে। একই সাথে যারা উস্কানি দিচ্ছেন তাদের চিহ্নিত করতে সরকার কাজ করছে।'

জাতীয় জন্মাষ্টমী উদযাপন পরিষদের সহ-সভাপতি বাবুন ঘোষ বাবুলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন রাউজান পৌরসভার মেয়র শ্রী দেবাশীষ পালিত, জন্মাষ্টমী পরিষদের সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. চন্দন তালুকদার প্রমুখ।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র