গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা: জবি শিক্ষক সমিতির ১০ প্রস্তাব



জবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় অংশগ্রহণের শর্তে ১০টি প্রস্তাব দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি। গত ১৮ এপ্রিল জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাধারণ সভায় গুচ্ছ পদ্ধতির ভর্তি পরীক্ষা সংক্রান্ত বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়। সভায় উপস্থিত সকল সদস্যই গুচ্ছ পদ্ধতি থেকে বের হয়ে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় পরীক্ষা নেওয়ার পক্ষে মতামত তুলে ধরেন।

তবে শর্তপূরণ সাপেক্ষে এবারের মতো গুচ্ছ পদ্ধতির পরীক্ষায় অংশগ্রহণের পক্ষে সিদ্ধান্ত প্রদান করেন। যদি পরীক্ষার পূর্বে আগামী মে মাসের মধ্যে নির্দিষ্ট শর্তসমূহ পূরণের নিশ্চয়তা না পাওয়া যায় তবে অতিদ্রুত আরও একটি সাধারণ সভা করে পরবর্তী করণীয় নির্ধারণ করবে বলে জানানো হয়।

শর্তসমূহ হলো- বিশ্ববিদ্যালয়সমূহের সংশ্লিষ্ট ডিনবৃন্দকে নিয়ে গঠিত হবে ‘ইউনিট সমন্বয় কমিটি’ যারা ভর্তি পরীক্ষার যাবতীয় কার্যাদি সম্পাদন করবেন। এছাড়া সকল উপাচার্য এবং ইউনিট সমন্বয় কমিটির প্রধানদের নিয়ে গঠিত হবে ‘কেন্দ্রীয় সমন্বয় কমিটি’- যারা সার্বিক বিষয় তদারকি করবেন; ২০২২ সালের ভর্তি পরীক্ষা অবশ্যই জুলাই মাসের ৩০ তারিখের মধ্যে শেষ করে দ্রুততম সময়ের মধ্যে শিক্ষার্থী ভর্তির ব্যবস্থা করতে হবে; ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল ওয়েবসাইটে প্রকাশ করতে হবে যাতে যে কেউ ফলাফল দেখতে পারে। পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী সকল শিক্ষার্থীর প্রাপ্ত স্কোর ও মেধাস্থান অবশ্যই প্রকাশ করতে হবে; ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশের এক সপ্তাহের মধ্যে শিক্ষার্থীরা অনলাইনে বিশ্ববিদ্যালয় এবং ভর্তিচ্ছু বিভাগ নির্বাচন করবে এবং ভর্তির পুরো প্রক্রিয়া অনলাইনে সম্পন্ন করতে হবে; সকল আবেদনকারীকে পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ প্রদান করতে হবে; পরীক্ষার কেন্দ্র নির্বাচনে শিক্ষার্থীদের শুধু একটি পছন্দ থাকবে এবং সেই কেন্দ্রেই পরীক্ষা গ্রহণ করতে হবে; পরীক্ষার আবেদন ফি ব্যতীত শিক্ষার্থীরা ভর্তিকৃত বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্দিষ্ট বিভাগে ভর্তির জন্য শুধুমাত্র একবার অর্থ প্রদান করবে। মাইগ্রেশন, ভর্তি বাতিল বা অন্য যে কোন কারনে সার্ভিস চার্জ বাবদ সর্বোচ্চ একশত টাকার বেশি কোন বিশ্ববিদ্যালয় আদায় করতে পারবেনা। ভর্তি বাতিল করে অন্য বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হলে একশত টাকা কর্তন করে জমাকৃত সমুদয় অর্থ ফেরত বা সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রেরণের পন্থা উদ্ভাবন করতে হবে। আবেদন ফি থেকে প্রাপ্ত অর্থ ব্যয়ের জন্য সুনির্দিষ্ট নীতিমালা প্রণয়ন করতে হবে। এই অর্থ থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজস্ব তহবিলে কোন অর্থ প্রদান করা যাবে না। নীতিমালা অনুযায়ী অর্থ ব্যয়ে ঘাটতি দেখা দিলে ইউজিসিকে সে পরিমাণ অর্থ ভর্তুকি হিসেবে প্রদান করতে হবে; বিভিন্ন কোটায় আবেদনপত্র জমাসহ ভর্তি প্রক্রিয়ার যাবতীয় কার্যাদি সংশ্লিষ্ট ইউনিটের ডিন এবং চেয়ারম্যানসহ অন্যান্য শিক্ষকবৃন্দের প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে সম্পন্ন করতে হবে; এছাড়াও ভর্তি পরীক্ষার বিভিন্ন কাজে সকল শিক্ষকের অন্তর্ভুক্তি নিশ্চিত করতে হবে; আগামী বছরে ঢাকা, জাহাঙ্গীরনগর, চট্টগ্রাম ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় এবং বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অফ প্রফেশনাল সহ সকল পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়কে গুচ্ছের আওতায় আনতে হবে। অন্যথায় আগামী বছর গুচ্ছ পদ্ধতি থেকে বের হয়ে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় তার নিজস্ব ব্যবস্থায় অর্থাৎ এককভাবে ভর্তি পরীক্ষা নিবে।

চবিতে ভর্তি আবেদনের সময় বাড়ল ৫ দিন



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, চট্টগ্রাম
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশে বন্যা কবলিত এলাকায় বসবাসরত শিক্ষার্থীদের দুর্ভোগ বিবেচনায় চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষে স্নাতক প্রথম বর্ষের ভর্তি আবেদনের সময়সীমা আরও পাঁচদিন বাড়ানো হয়েছে।

রোববার (৩ জুলাই) ভর্তি পরীক্ষার কোর কমিটির সচিব ও ডেপুটি রেজিস্ট্রার (একাডেমিক) এস এম আকবর হোছাইন স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানা গেছে।

পূর্বের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী রোববার (৩ জুলাই) রাতেই আবেদনের সময় শেষ হওয়ার কথা ছিল। পাঁচদিন বৃদ্ধি করায় আগামী ৮ জুলাই রাত ১১টা ৫৯মিনিট পর্যন্ত আবেদন করতে পারবে ভর্তিচ্ছুক শিক্ষার্থীরা।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষে ১ম বর্ষ স্নাতক (সম্মান) শ্রেণিতে ভর্তি কার্যক্রম পরিচালনা কমিটির ৫ম সভার ১নং সিদ্ধান্তক্রমে বন্যা কবলিত এলাকায় বসবাসরত শিক্ষার্থীদের দুর্ভোগের বিষয় বিবেচনা করে ভর্তি পরীক্ষার অনলাইনে আবেদনের সময়সীমা নিম্নরূপে পুনঃনির্ধারণ করা হলো-

ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য অনলাইনে আবেদন ৮ জুলাই (শুক্রবার) রাত ১১টা ৫৯ মিনিট পর্যন্ত করা যাবে এবং ১৫ জুলাই (শুক্রবার) রাত ১১টা ৫৯ মিনিট পর্যন্ত ইউনিট/উপ-ইউনিট প্রতি নির্ধারিত আবেদন ফি জমা দেওয়া যাবে। আবেদনের অন্যান্য শর্তাবলী অপরিবর্তিত থাকবে।

;

ঢাবির আরবি বিভাগের উন্নয়ন ফি মওকুফ



ঢাবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) আরবি বিভাগের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের স্নাতকোত্তরের চলতি শিক্ষাবর্ষের উন্নয়ন ফি সম্পূর্ণ মওকুফ করা হয়েছে।

রবিবার (৩ জুলাই) শিক্ষার্থীদের দাবি ও শতবর্ষের উপহার হিসেবে মিটিংয়ে মাধ্যমে এ সিদ্ধান্ত আসে বলে বিষয়টি গণমাধ্যমে নিশ্চিত করেছেন আরবি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আব্দুল কাদির।

অধ্যাপক আব্দুল কাদির বলেন, শতবর্ষের উপহার হিসেবে আরবি বিভাগের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের স্নাতকোত্তরের চলতি শিক্ষাবর্ষের উন্নয়ন ফি সম্পূর্ণ মওকুফ করা হয়েছে। আমাদের বিভাগের ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষের জন্য উন্নয়ন ফি ছিল চার হাজার, ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের জন্য ছিল পাঁচ হাজার, আবার ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের জন্য ছিল চার হাজার।

তিনি আরও বলেন, গতবছর করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের জন্য ১ হাজার কমিয়ে নিয়ে আসছিলাম। আমরা এবছর আগে পুনরায় পাঁচ হাজার টাকা উন্নয়ন ফি ধার্য করেছিলাম। শিক্ষার্থীদের দাবিতে শুরুতে চার হাজার করেছিল। পরবর্তীতে শিক্ষার্থীরা আবার দাবি করলে, মিটিংয়ে আলোচনা করে শতবর্ষী বিভাগ হিসেবে ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শতবর্ষ উপলক্ষে শিক্ষার্থীদের চলতি বছরের পুরো উন্নয়ন ফি মওকুফ করার সিদ্ধান্ত আসে।

প্রসঙ্গত, ফি মওকুফের আগে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবি বিভাগের উন্নয়ন ফি কমানোর দাবি করায় মাস্টার্সের প্রথম সেমিস্টার ফাইনাল পরীক্ষা দুদফা স্থগিত করে বিভাগটির একাডেমিক কমিটি। সেই সঙ্গে ফি কমানোর দাবি করায় কয়েকজন শিক্ষার্থীকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কারের হুমকি দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ উঠে বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবদুল কাদিরের বিরুদ্ধে। তবে সেই সময়ে চেয়ারম্যান দাবি করে, শিক্ষার্থীরা ভর্তি না হওয়ায় পরীক্ষা সাময়িকভাবে পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে।

তারই কিছুদিন পর আজ রোববার (৩ জুলাই) বিভাগটির ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের স্নাতকোত্তরের চলতি শিক্ষাবর্ষের উন্নয়ন ফি সম্পূর্ণ মওকুফ করার সিদ্ধান্ত আসে।

;

ঢাবির ‘ক’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার ফল সোমবার



ঢাবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষে বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ‘ক’ ইউনিটের অধীনে প্রথম বর্ষে (স্নাতক সম্মান) ভর্তি পরীক্ষার ফল আগামীকাল সোমবার (৪ জুলাই) প্রকাশ করা হবে।

দুপুর সাড়ে ১২টায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে প্রশাসনিক ভবনস্থ অধ্যাপক আব্দুল মতিন চৌধুরী ভার্চুয়াল ক্লাসরুমে আনুষ্ঠানিকভাবে এই ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশ করবেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান।

রোববার (৩ জুলাই) দুপুরে ‘গ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা ফল প্রকাশ শেষে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান নিজেই বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে, গত ১১ জুন বেলা ১১টা থেকে দুপুর ১২টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত ঢাকা ও ঢাকার বাইরে সাতটি বিভাগীয় শহরে ‘ক’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছিল। বিজ্ঞান অনুষদের জন্য নির্ধারিত এই ইউনিটে মোট আসন রয়েছে ১৮৫১টি। এর বিপরীতে ১ লাখ ১৫ হাজার ৭০৮ জন শিক্ষার্থী এ পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিল।

;

ঢাবির ‘গ’ ইউনিটে ভর্তি পরীক্ষায় সেরাদের সেরা তিন



ঢাবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ঢাবির ‘গ’ ইউনিটে ভর্তি পরীক্ষায় সেরাদের সেরা তিন

ঢাবির ‘গ’ ইউনিটে ভর্তি পরীক্ষায় সেরাদের সেরা তিন

  • Font increase
  • Font Decrease

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষে ব্যবসা শিক্ষা অনুষদভুক্ত ‘গ’ ইউনিটের অধীনে ১ম বর্ষ স্নাতক (সম্মান) শ্রেণিতে ভর্তি পরীক্ষায় ৯৩০টি আসনের বিপরীতে ৪ হাজার ২৮৯ জন উত্তীর্ণ হয়েছে।

রোববার (৩ জুলাই) দুপুর সাড়ে ১২টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনস্থ অধ্যাপক আব্দুল মতিন চৌধুরী ভার্চুয়াল ক্লাসরুমে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে এ ফলাফল প্রকাশ করেন।

এবার ‘গ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার ফলে প্রথম হয়েছেন নটর ডেম কলেজের শিক্ষার্থী সারোয়ার হোসাইন খান। তার প্রাপ্ত নম্বর ৯৬ দশমিক ৭৫। মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার জিপিএর ভিত্তিতে প্রাপ্ত নম্বরসহ মোট প্রাপ্ত নম্বর ১১৬ দশমিক ৭৫। তিনি ভর্তি পরীক্ষায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রে পরীক্ষা দিয়েছেন।

দ্বিতীয় হয়েছেন আনিমা পারভেজ ইলমা। তিনি দাউদ পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে উচ্চমাধ্যমিক পাস করেছেন। তার প্রাপ্ত নম্বর ৯০ দশমিক ০০। মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার জিপিএর ভিত্তিতে প্রাপ্ত নম্বরসহ মোট প্রাপ্ত নম্বর ১১০ দশমিক ১০। তিনি ভর্তি পরীক্ষায় খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রে পরীক্ষা দিয়েছেন।

তৃতীয় হয়েছেন সরকারি রাজেন্দ্র কলেজের মো. আব্দুল্লাহ খান। তার প্রাপ্ত নম্বর ৮৭ দশমিক ৭৫। মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার জিপিএর ভিত্তিতে প্রাপ্ত নম্বরসহ মোট প্রাপ্ত নম্বর ১০৭ দশমিক ৭৫। তিনি ভর্তি পরীক্ষায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রে পরীক্ষা দিয়েছেন।

উল্লেখ্য, উত্তীর্ণ সকল শিক্ষার্থীকে মেধাক্রম ১ থেকে ১১০০ স্থান অর্জনকারীদের আগামী ৬ জুলাই বিকাল ৩টা থেকে ২১ জুলাই বিকাল ৫টা পর্যন্ত ভর্তি পরীক্ষার ওয়েবসাইটে বিস্তারিত ফরম ও বিষয়ের পছন্দক্রম ফরম পূরণ করতে হবে।

ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ বিভিন্ন কোটায় আবেদনকারীদের ৬ জুলাই থেকে ২১ জুলাইয়ের মধ্যে সংশ্লিষ্ট কোটার ফরম কলা অনুষদের ডিন অফিস থেকে সংগ্রহ করতে হবে এবং যথাযথভাবে পূরণ করে উক্ত সময়ের মধ্যে ডিন অফিসে জমা দিতে হবে।

ফলাফল নিরীক্ষণের জন্য নির্ধারিত ফি প্রদান সাপেক্ষে আগামী ৬ জুলাই থেকে ২১ জুলাই পর্যন্ত বিজনেস অনুষদের ডিন অফিসে আবেদন করা যাবে।

;