অঙ্কনের মৃত্যু রহস্য উদঘাটনের দাবিতে মোমবাতি প্রজ্জ্বলন



জবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: বার্তা ২৪.কম

ছবি: বার্তা ২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের ২০১৬-২০১৭ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী অঙ্কন বিশ্বাসের মৃত্যুর ঘটনা উদঘাটনের দাবি জানিয়ে মোমবাতি প্রজ্জ্বলন করেছে ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থীরা। বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে অঙ্কনের ছবি সামনে রেখে মোমবাতি প্রজ্জ্বলন প্রাক্কালে এ দাবি জানান তারা। এসময় ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থীরাসহ অঙ্কনের অন্যান্য বন্ধুরাও উপস্থিত ছিলেন।

মোমবাতি প্রজ্জ্বলন কর্মসূচীতে অংকনের সহপাঠী আবু রায়হান বলেন, এইরকম প্রচন্ড মেধাবী একজন শিক্ষার্থী হুট করে সবার মাঝ থেকে হারিয়ে যেতে পারেনা। আমরা চাই অঙ্কনের মৃত্যু-রহস্যের আইনি তদন্ত হোক। আমরা কারও বিরুদ্ধে অন্যায় হোক সেটা চাই না, অঙ্কনের ক্ষেত্রে তো একেবারেই না। আমরা এটাই চাই আমাদের সবার সামনে এত সম্ভাবনাময় একটা মানুষের মৃত্যু রহস্যের জালে চাপা না পড়ুক।

এ সময় তিনি আরও বলেন, এই দাবীগুলোর ভিত্তিতে আমরা ইংরেজি বিভাগের পরবর্তী কর্মসূচি হিসেবে আগামীকাল বৃহস্পতিবার সকাল ১১ টায় বিশ্ববিদ্যালয়ে মানববন্ধন করবো। যে করেই হোক এই বিষয়ে তদন্ত করে সত্য উদঘাটন করতেই হবে। আমরা আশা করবো প্রশাসনসহ বিশ্ববিদ্যালয় এ বিষয়টি নিয়ে এগিয়ে আসবেন।

অংকনের আরেক সহপাঠী নাহিদ হাসান রবিন বলেন, অংকনকে আর ফিরে পাবো না কখনোই। তবে দোষীদের শাস্তি নিশ্চিত করার জন্য অবশ্যই সুষ্ঠু তদন্ত হতেই হবে। নইলে ভবিষ্যতে আমরা আরও এমন অনেক অংকনকে হারাবো৷

প্রসঙ্গত, ১৪ দিন হাসপাতালে থাকার পর গত ৮ মে মৃত্যুবরন করেন অংকন। মৃত্যুর পর জানা যায় ধর্মান্তরিত করে এই শিক্ষার্থীকে বিয়ে করেন একই বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের শিক্ষার্থী শাকিল আহমেদ। তার বাসায় অংকন অজ্ঞান হয়ে পড়েন পরে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তবে হাসপাতাল সূত্রে জানা যায় বিষক্রিয়ায় এই শিক্ষার্থীর মৃত্যু হয়েছে।

১০৮ কোটি ৭৫ লাখ টাকা বাজেট পেল হাবিপ্রবি



হাবিপ্রবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
হাবিপ্রবি

হাবিপ্রবি

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশের ৫১টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় ও বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের আগামী ২০২২-২৩ অর্থবছরের ব্যয় নির্বাহের জন্য ১০ হাজার ৫১৫ কোটি ৭১ লক্ষ টাকার বাজেট অনুমোদন করেছে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) । বাজেটে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর জন্য বরাদ্দ দেয়া হয়েছে ১০ হাজার ৪৪৪ কোটি ০৪ লক্ষ টাকা এবং ইউজিসি’র জন্য ৭১ কোটি ৬৭ লক্ষ টাকা। এর মধ্যে দিনাজপুরের হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (হাবিপ্রবি) জন্য বরাদ্দ রয়েছে ১০৮ কোটি ৭৫ লক্ষ টাকা। যা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় গুলোর মধ্যে ২য় অবস্থানে হাবিপ্রবি।

সোমবার (১৬ মে) ইউজিসি চেয়ারম্যান (অতিরিক্ত দায়িত্ব) অধ্যাপক ড. দিল আফরোজা বেগমের সভাপতিত্বে ১৬২তম পূর্ণ কমিশন সভায় এ বাজেট অনুমোদিত হয়। পরে সভার কার্যপত্র তুলে ধরেন ইউজিসি সচিব ড. ফেরদৌস জামান।

সূত্র হতে জানা যায়, পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল বাজেটে ৬ হাজার ২৩ কোটি ৬০ লক্ষ টাকার রাজস্ব বাজেট ও ৪০টি প্রকল্পের অনুকূলে ৪ হাজার ৪২০ কোটি ৪৪ লক্ষ টাকার উন্নয়ন বাজেট রয়েছে।

চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরে ৫০টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুকূলে সংশোধিত বাজেটে বরাদ্দের পরিমাণ ছিল ০৯ হাজার ৫৭৭ কোটি ৯১ লক্ষ টাকা। সে হিসাবে, পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য ২০২২-২৩ অর্থবছরে বরাদ্দ বেড়েছে ৯৩৭ কোটি ৮০ লক্ষ টাকা। ২০২২-২৩ অর্থবছরে সবচেয়ে বেশি রাজস্ব বাজেট পেয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ৮৬৪ কোটি ৯৪ লক্ষ টাকা এবং সবচেয়ে কম বাজেট পেয়েছে শেখ হাসিনা মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়, খুলনা ৩ কোটি ৮৩ লক্ষ টাকা।

উচ্চশিক্ষায় ইউজিসি ও পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণার জন্য ২০২২-২৩ অর্থবছরে মূল বাজেটে ১৫০ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। চলতি অর্থবছরের তুলনায় বাজেটে এ খাতে বরাদ্দ ৩২ কোটি টাকা বৃদ্ধি করা হয়েছে। গত ২০২১-২২ অর্থবছরে মূল বাজেটে গবেষণা খাতে ১১৮ কোটি টাকা বরাদ্দ ধরা হয়েছিল। উল্লেখ্য, আগামী অর্থবছরে ইউজিসি’র জন্য বাজেটে বরাদ্দকৃত ৭১ কোটি ৬৭ লক্ষ টাকার মধ্যে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণার জন্য ২০ কোটি টাকা বাজেট বরাদ্দ ধরা হয়েছে, যা চলতি অর্থবছরের চেয়ে ২ কোটি টাকা বেশি।

;

‘ইতিহাসে শিক্ষাখাতে বাজেটের সর্বোচ্চ বরাদ্দ ছিল বঙ্গবন্ধুর আমলে’



ঢাবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রাক বাজেট সংলাপ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রাক বাজেট সংলাপ

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশের ইতিহাসে শিক্ষা খাতে বাজেটের সর্বোচ্চ বরাদ্দ ছিল বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আমলে, ১৯৭৩ সালে। আমরা এখনও সেখানে পৌঁছাতে পারিনি। আমাদের একচুয়াল বাজেট এবং মূল বাজেটের মধ্যে ২৫% এর মত একটি গ্যাপ থেকে যায়। যার মৌলিক কারণ হলো গুড গভর্নেন্সের অভাব।

মঙ্গলবার (১৭ মে) দুপুরে অধ্যাপক মুজাফফ্ফর আহমেদ চৌধুরী মিলনায়তনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সেন্টার অন বাজেট অ্যান্ড পলিসির উদ্যোগে ‘বাজেট ২০২২-২৩: অতিমারি থেকে সমৃদ্ধির পথে অগ্রযাত্রা’ শীর্ষক প্রাক বাজেট সংলাপে প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) উপাচার্য অধ্যাপক ড. আখতারুজ্জামান।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ ও সেন্টার অন বাজেট অ্যান্ড পলিসির চেয়ারম্যান অধ্যাপক মমতাজ উদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে প্রাক বাজেট সংলাপে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন।

সেন্টারের পরিচালক অধ্যাপক ড. এম আবু ইউসুফ এবং ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের অধ্যাপক ড. কাজী মারুফুল ইসলাম মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. রাশেদ আল মাহমুদ তিতুমীর এবং অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান সানেমের নির্বাহী পরিচালক ড. সেলিম রায়হান প্রবন্ধের ওপর আলোচনায় অংশ নেন।

;

ঢাবি সিনেট নির্বাচন: ৩ শিক্ষককে অযোগ্য ঘোষণা করতে আইনি নোটিশ



ঢাবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

যৌন হয়রানি ও অর্থ আত্মসাতে অভিযুক্ত তিন শিক্ষককে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) সিনেটের আসন্ন শিক্ষক প্রতিনিধি নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে অযোগ্য ঘোষণা করতে আইনি নোটিশ দিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যালামনাই ও দেশের একজন সচেতন নাগরিক হিসেবে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী আর আই চৌধুরী।

গত সোমবার (১৬ মে) সিনেটের নির্বাচন কমিশনার ও কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক মমতাজ উদ্দিন আহমেদ ডাকযোগে এ নোটিশ পেয়েছেন বলে জানা যায়।

অভিযুক্ত ওই তিন শিক্ষকের মধ্যে ম্যানেজমেন্ট ইনফরমেশন সিস্টেম বিভাগের চেয়ারপারসন অধ্যাপক আকরাম হোসেনের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ তোলেন তারই বিভাগের এক ছাত্রী, যা বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়ের যৌন নিপীড়নবিরোধী সেলে তদন্তাধীন।

এছাড়া গত বছরের ২২ নভেম্বর লেদার ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলজি ইনস্টিটিউটের পরিচালক অধ্যাপক মোহাম্মদ মিজানুর রহমানের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়ম ও যৌন হয়রানি নিয়ে ঢাবির প্রযুক্তি ইউনিটের অন্তর্ভুক্ত জাতীয় বস্ত্র প্রকৌশল ও গবেষণা ইন্সটিটিউটের (নিটার) ৩৭ জন শিক্ষক উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামানের কাছে লিখিত অভিযোগ দেন।

অন্যদিকে, ডিন থাকাকালীন ফার্মেসি অনুষদের তহবিল থেকে অর্থ আত্মসাৎ করেছেন মর্মে ক্লিনিক্যাল ফার্মেসি ও ফার্মাকোলজি বিভাগের চেয়ারপারসন অধ্যাপক এস এম আব্দুর রহমানের বিরদ্ধে দুদকে একটি মামলা চলমান রয়েছে।

এ বিষয়ে কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক মমতাজ উদ্দিন আহমেদ বলেন, মঙ্গলবার সকালে (১৭ মে) এটি (আইনি নোটিশ) আমার অফিসে দিয়ে যাওয়া হয়েছে। আমি নিয়মমাফিক রেজিস্ট্রার বরাবর পাঠিয়ে দিয়েছি। তিনিই বিশ্ববিদ্যালয়ের লিগ্যাল অ্যাডভাইজারের সঙ্গে কথা বলে পরবর্তী করণীয় ঠিক করবেন।

আইনি নোটিশে বলা হয়, অত্যন্ত লজ্জা ও পরিতাপের বিষয় হলেও সত্য যে, বাংলাদেশের ইতিহাস-ঐতিহ্যের ধারক ও বাহক ঢাবির মতো একটি পবিত্র বিদ্যাপীঠের অতীব গুরত্বপূর্ণ ও শক্তিশালী বডি (কমিটি) সিনেটে শিক্ষক প্রতিনিধি নির্বাচনে নীল দলের প্যানেলে মনোনয়ন পেয়েছেন যৌন হয়রানির অভিযোগে অভিযুক্ত দুজন ও অর্থ আত্মসাতের মামলায় দুদকে অভিযুক্ত একজন শিক্ষক, যা বিভিন্ন জাতীয় গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বহুলভাবে প্রচারিত হয়েছে।

নোটিশে আরও বলা হয়, মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে নেতৃত্বদানকারী ও টানা ৩য় মেয়াদে সরকারে থাকা রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগ পন্থী শিক্ষকদের সংগঠন নীল দলের শিক্ষক প্যানেলের ৩৫ সদস্যের মধ্যে উল্লেখিত তিন শিক্ষক থাকায় অত্র বিশ্ববিদ্যালয়ের শুধু একজন অ্যালামনাই হিসেবেই নয়, দেশের একজন সচেতন নাগরিক ও স্বাধীনতার স্বপক্ষের সমর্থক হিসেবে আমি অত্যন্ত মর্মাহত, ব্যথিত ও লজ্জিত।

তিন শিক্ষককে সিনেট নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে অযোগ্য ঘোষণার দাবি জানিয়ে নোটিশে বলা হয়, দেশের মিনি পার্লামেন্ট খ্যাত সকল আন্দোলন-সংগ্রামের সূতিকাগার পবিত্র এ বিদ্যাপীঠের সিনেটে ৩৫ জন শিক্ষক প্রতিনিধি নির্বাচনে অভিযুক্তদের প্রার্থী হিসেবে অযোগ্য ঘোষণা করার জন্য আপনাকে বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। অন্যথায় আপনার বিরুদ্ধে মহামান্য হাইকোর্ট বিভাগে রিট পিটিশন দায়েরের মাধ্যমে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

গত ১২ মে নির্বাচনের প্যানেল মনোনয়ন জমা দেওয়ার শেষ দিনে নীল দল ও সাদা দল (বিএনপি-জামায়াত সমর্থক শিক্ষকদের সংগঠন) তাদের ৩৫ সদস্যের মনোনীত প্যানেল রেজিস্ট্রার কার্যালয়ের নির্বাচন শাখায় জমা দেয়। তবে অভিযুক্তদের কেউই মনোনয়ন প্রত্যাহার করেনি বলে জানিয়েছেন নীল দলের আহ্বায়ক অধ্যাপক মো. আবদুস সামাদ।

অধ্যাপক সামাদ বলেন, আমাদের কোনো প্রার্থী মনোনয়ন প্রত্যাহার করেননি। যাদের নাম জমা দেওয়া হয়েছে তারাই চূড়ান্ত।

উল্লেখ্য, আগামী ২৪ মে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) সিনেটে ৩৫ জন শিক্ষক প্রতিনিধির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। প্রায় ২ হাজার শিক্ষক ভোটার হিসেবে ভোট দেবেন এ নির্বাচনে। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের প্রতিনিধি হিসেবে নির্বাচন কমিশনার হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মমতাজ উদ্দিন আহমেদ।

সিনেটে সর্বশেষ শিক্ষক প্রতিনিধি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ২০১৭ সালের ২২ মে। সে সময় আওয়ামীপন্থী নীল দলের ৩৩ জন ও বিএনপিপন্থী সাদা দলের দুই জন শিক্ষক প্রতিনিধি নির্বাচিত হয়।

;

নতুন কমিটির দায়িত্বের পর ঢাবিতে উপস্থিতি বাড়ছে ছাত্রদলের



ঢাবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
নতুন কমিটির দায়িত্বের পর ঢাবিতে উপস্থিতি বাড়ছে ছাত্রদলের

নতুন কমিটির দায়িত্বের পর ঢাবিতে উপস্থিতি বাড়ছে ছাত্রদলের

  • Font increase
  • Font Decrease

নতুন কমিটি দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) ক্যাম্পাসে উপস্থিতি বাড়ছে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের। বিশ্ববিদ্যালয়টির বিজয় একাত্তর হলের আবাসিক শিক্ষার্থী সিয়ামসহ হলে হলে গেস্টরুম সংস্কৃতির নামে সাধারণ শিক্ষার্থীদের ওপর ছাত্রলীগের নির্যাতনের প্রতিবাদে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদল।

সোমবার (১৬ মে) বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিন থেকে বিক্ষোভ মিছিলটি শুরু হয়ে ক্যাম্পাসের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে রাজু ভাস্কর্যের সামনে সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়। এতে ছাত্রদলের কয়েকশ নেতাকর্মী অংশ নেন।

বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তারা অবিলম্বে শিক্ষার্থীদের ওপর নির্যাতনকারী ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানান। একইসঙ্গে ক্যাম্পাসে সব ছাত্র সংগঠনের সহবস্থান নিশ্চিতের দাবি করেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের আহ্বায়ক আকতার হোসেনের সভাপতিত্বে এবং সদস্য সচিব মো. আমানউল্লাহ আমানের সঞ্চালনায় সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের সভাপতি কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবণ, সাধারণ সম্পাদক সাইফ মাহমুদ জুয়েল, সিনিয়র সহ-সভাপতি রাশেদ ইকবাল খান, সিনিয়র যুগ্ম-সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিব, সাংগঠনিক সম্পাদক আবু আফসান মোহাম্মদ ইয়াহিয়াসহ কেন্দ্রীয়, ঢাবি ও ঢাকার বিভিন্ন ইউনিটের প্রায় পাঁচ শতাধিক নেতাকর্মী।

উল্লেখ্য, গত ১৭ এপ্রিল বিএনপির ছাত্রসংগঠন ছাত্রদলের পাঁচ সদস্যের নতুন কেন্দ্রীয় কমিটি ঘোষণা করা হয়। নতুন কমিটিতে কাজী রওনকুল ইসলামকে সভাপতি ও সাইফ মাহমুদকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে। ছাত্রদলের আংশিক কমিটির অন্যান্য পদে এসেছেন জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি রাশেদ ইকবাল খান, জ্যেষ্ঠ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. রাকিবুল ইসলাম ও সাংগঠনিক সম্পাদক আবু আফসার মোহাম্মদ ইয়াহিয়া।

;