প্রক্সি জালিয়াতি মামলায় রাবি ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক গ্রেফতার



রাবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রাজশাহী
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০২২-২৩ শিক্ষাবর্ষে স্নাতক প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষায় প্রক্সি জালিয়াতির মামলায় শাখা ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের ইতিহাস বিভাগের শিক্ষার্থী হাসিবুল ইসলাম শান্তকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার তাকে রাজশাহীর কাটাখালি এলাকা থেকে আটকের পর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের মামলায় গ্রেফতার দেখিয়েছে মতিহার থানা পুলিশ।

বুধবার (৩১ মে) দুপুর পৌনে ১২টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ তাজউদ্দিন আহমদ সিনেট ভবনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এই তথ্যটি জানিয়েছেন রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার বিজয় বসাক।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় গ্রেফতারকৃত আসামিদের তথ্যমতে হাসিবুল ইসলাম শান্তকে গতকাল রাজশাহীর কাটাখালি এলাকা থেকে আটক করা হয়। পরবর্তীতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখানোর পর তার মোবাইল থেকে জাহাঙ্গীরনগর, চট্টগ্রাম, রাবি ও জগন্নাথ (গুচ্ছ) বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষারসহ বিভিন্ন চাকরির পরীক্ষার বিপুলসংখ্যক প্রবেশপত্র পাওয়া গেছে। তার বিষয়ে আইনগত পদক্ষেপ নিতে প্রয়োজনী ব্যবস্থাগ্রহণ করা হচ্ছে।

এর আগে, গতকাল মঙ্গলবার ‘এ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় গ্রেফতারকৃত আসামিদের তথ্যমতে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার অধ্যাপক আবদুস সালাম বাদি হয়ে হাসিবুল ইসলাম শান্তের বিরুদ্ধে নগরীর মতিহার থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলার এজাহারে আসামিদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাগ্রহণের অনুরোধ জানান তিনি।

রাবি ছাত্রলীগের হামলা, চার নেতা আহত



রাবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বাম ছাত্র সংগঠনের নেতাকর্মীদের ওপর রাবি ছাত্রলীগের হামলা

ছবি: বাম ছাত্র সংগঠনের নেতাকর্মীদের ওপর রাবি ছাত্রলীগের হামলা

  • Font increase
  • Font Decrease

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে বাম ছাত্রসংগঠনের চার নেতাকর্মীদের ওপর হামলার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় আরও কয়েকজন আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে।

সোমবার (১৫ জুলাই) বিকেল ৬টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের মমতাজ উদ্দিন কলাভবনের দিকে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীরা হলেন, বিশ্ববিদ্যালয় সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের আহ্বায়ক ফুয়াদ রাতুল, ছাত্র ইউনিয়নের যুগ্ম আহ্বায়ক রাকিব হোসেন, বিপ্লবী ছাত্র মৈত্রীর নেতা আল আশরাফ রাফি এবং বিপ্লবী ছাত্র যুব আন্দোলনের আহ্বায়ক তারেক আশরাফ।

অপরদিকে অভিযুক্ত শিক্ষার্থীরা হলেন শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি মনু মেহন বাপ্পা এবং ছাত্রলীগ কর্মী প্রিন্স হোসেন রাঈলসহ আরও অনেকে।

ভুক্তভোগী ফুয়াদ রাতুল বলেন, আমরা বাম সংগঠনের কয়েকজন নেতাকর্মী মমতাজ উদ্দিন কলাভবনের সামনে গল্প করছিলাম। ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা বাইকের মহড়া দিচ্ছিল। হঠাৎ তারা আমাদের ওপর হামলা চালায়।

উক্ত ঘটনার অন্য ভুক্তভুগী রাকিব হোসেন বলেন, হঠাৎ ছাত্রলীগ নেতা মনোমহন বাপ্পার নেতৃত্বে অতর্কিত হামলা করে। আমার কানে সার্জারি করা ছিল সেখানে আঘাত পেয়েছি। হামলায় সবাই ছত্রভঙ্গ হয়ে গেছে। তখন আমি দৌড়ে প্রশাসন ভবনে এসে আশ্রয় নেই। আমাদের কোন দলীয় কর্মসূচি ছিল না।

জানা গেছে, ছাত্রলীগের অতর্কিত হামলায় বিশ্ববিদ্যালয় বিপ্লবী ছাত্রমৈত্রীর সভাপতি শাকিল হোসেনসহ প্রায় ১০ জন শিক্ষার্থীর উপর এ হামলা চালায় ছাত্রলীগ।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদুল্লা-হিল-গালিব বলেন, বিষয়টি জানার পর প্রক্টর অফিসে আমরা বসেছি। অভিযোগ জেনেছি। অভিযোগের প্রমাণ পেলে ব্যবস্থা নেবো।

এর আগে, বিকাল ৫টার দিকে কোটা আন্দোলনের নামে রাজাকারদের মতাদর্শ প্রচারের বিরোধী বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে শাখা ছাত্রলীগ। এতে নেতাকর্মীদের ক্যাম্পাসে সর্বাত্মক প্রস্তুত থাকার নির্দেশ দেন নেতারা। এ ঘোষণার পর বাইক নিয়ে ক্যাম্পাসে মহড়া শুরু করে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

এতে দেখা যায়, ক্যাম্পাসের শহীদ জোহা চত্বর, টুকিটাকি চত্বরসহ বিভিন্ন স্থানে জনসমাগম দেখলেই তাদের হটিয়ে দিচ্ছে ছাত্রলীগ। স্বেচ্ছাসেবী একদল শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, সংগঠনিক কাজ শেষে ফিরছিলাম। পথিমধ্যে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা তাদের বাইক দিয়ে আমাদের মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টির মাধ্যমে ছত্রভঙ্গ এবং গালিগালাজ করেন।

এ ব্যাপারে প্রক্টর অধ্যাপক আসাবুল হক বলেন, ক্যাম্পাসে কিছু বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটেছে। তবে বিশৃঙ্খলা রোধে আমরা সতর্ক অবস্থানে আছি। কোন অভিযোগ পেলে প্রমাণ সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেবো।

;

পাবিপ্রবিতে শিক্ষার্থীকে মারধর, ছাত্রলীগ নেতাকে হল ছাড়ার নির্দেশ



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট বার্তা২৪.কম, পাবনা
রাসেল হোসেন রিয়াদ /ছবি: সংগৃহীত

রাসেল হোসেন রিয়াদ /ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (পাবিপ্রবি) এক শিক্ষার্থীকে মারধরের ঘটনায় অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতাকে হল ছাড়ার নির্দেশ দিয়েছে হল প্রশাসন।

সোমবার (১৫ জুলাই) বিকেলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. আমিরুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে বিষয়টি জানানো হয়।

অভিযুক্ত রাসেল হোসেন রিয়াদ বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাবেক উপ-স্কুল ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয় হয়, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলে অবস্থানরত বাংলা বিভাগের ২০১৫-১৬ শিক্ষা বর্ষের শিক্ষার্থী রাসেল হোসেন রিয়াদ দীর্ঘদিন ধরে ৪০৭ নাম্বার রুমে অবৈধভাবে থেকে আসছেন। গতরাত আনুমানিক ৩টার দিকে সমাজকর্ম বিভাগের শিক্ষার্থী গোলাম কিবরিয়ার ওপর অনাকাঙ্খিত হামলার ঘটনায় রাসেল হোসেন রিয়াদ জড়িত থাকায় তাকে আজকেই (১৫ জুলাই) হল ত্যাগের নির্দেশ দেওয়া হল।

এর আগে দুপুর ১২টার দিকে ওই শিক্ষার্থী মারধরের ঘটনা সমাধানে জরুরি মিটিংয়ে বসেন হল এবং প্রক্টরিয়াল কমিটি। সেখানে রাসেল হোসেন রিয়াদকে হল থেকে বহিষ্কার করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

প্রসঙ্গত, সোমবার (১৫ জুলাই) রাত তিনটায় হলের রিডিং রুম থেকে পড়াশোনা করে সমাজকর্ম বিভাগের স্নাতকোত্তরের শিক্ষার্থী গোলাম কিবরিয়া তার রুমে আসেন। এরপর রুমের বাইরে গিয়ে পাঁচ মিনিট পরে রুমে আসলে দেখেন রুমের দরজা বন্ধ। এরপর দরজা খোলার জন্য দরজায় আঘাত করতে থাকলে এক পর্যায়ে রুমের দরজা খুলে রাসেল হোসেন রিয়াদ তার দিকে তেড়ে আসেন। তখন রুমের সামনে থাকা জুতা তুলে নিয়ে কিবরিয়াকে হাত এবং জুতা দিয়ে এলোপাতাড়ি মারতে শুরু করেন। এক পর্যায়ে কিবরিয়ার নাক ফেটে রক্ত বের হলে তিনি দৌড়ে ৩০৪ নাম্বার রুমে চলে আসেন। এ সময় রাসেল তার ফোনও ভেঙে ফেলেন। পরবর্তীতে অসুস্থ কিবরিয়াকে তার সহপাঠীরা চিকিৎসার জন্য পাবনা সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন।

;

ঢাবিতে লাঠিসোঁটা হাতে ছাত্রলীগের শোডাউন



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ঢাবিতে ছাত্রলীগের শোডাউন

ঢাবিতে ছাত্রলীগের শোডাউন

  • Font increase
  • Font Decrease

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজয় একাত্তর হলে হামলার প্রতিবাদে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ ছাত্রলীগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ ও ইডেন কলেজ ছাত্রলীগসহ বিভিন্ন ইউনিটের নেতাকর্মীরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে জড়ো হচ্ছেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় হতে বার্তা২৪.কমের রিপোর্টার জাহিদুল ইসলাম জানান, বিজয় একাত্তর হলে হামলার প্রতিবাদে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ ছাত্রলীগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ ও ইডেন কলেজ ছাত্রলীগসহ বিভিন্ন ইউনিটের নেতাকর্মীরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে জড়ো হচ্ছেন। জড়ো হওয়া নেতাকর্মীদের হাতে দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র ও লাঠিসোঁটা নিয়ে ক্যাম্পাসে শোডাউন দিতে দেখা যায়।

ঢাবি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক তানভীর হাসান সৈকত দাবি করেন, হলে হলে ঢুকে ছাত্রলীগের ওপর হামলা চালিয়েছে শিবির-ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা। হামলায় ছাত্রলীগের অন্তত ২৫ নেতাকর্মী আহত হয়েছে।

বার্তা২৪.কমের রিপোর্টার আল আমিন রাজু জানান, লাঠিসোঁটা হাতে ছাত্রলীগের সাথে শোডাউনে বহিরাগতদের যোগদানের অভিযোগ পাওয়া গেছে। তিনি আরও জানান, বৈষম্য বিরোধী ছাত্র আন্দোলনের কয়েকজন ছাত্র আহত হয়েছে খবর পাওয়া গিয়েছে।

;

মুখে কালো কাপড় বেঁধে জাবি শিক্ষকদের অবস্থান কর্মসূচির ঘোষণা



জাবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়

  • Font increase
  • Font Decrease

সাম্প্রতিক সময়ে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া এক বক্তব্যের প্রতিবাদে মুখে কালো কাপড় বেঁধে অবস্থান কর্মসূচি পালনের পাশাপাশি 'প্রত্যয়' স্কিম প্রত্যাহারের দাবিতে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) শিক্ষকরা।

সোমবার (১৫ জুলাই) জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির জরুরি সাধারণ সভা শেষে এসব কর্মসূচি ঘোষণা করার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক শাহেদ রানা৷

শিক্ষকদের ঘোষিত কর্মসূচিগুলোর মধ্যে প্রথম কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে 'দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত শিক্ষকদের চলমান সর্বাত্মক কর্মবিরতি চলমান থাকবে৷' দ্বিতীয় কর্মসূচির মধ্যে বলা হয়েছে 'প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের প্রেক্ষিতে আগামীকাল মুখে কালো কাপড় বেঁধে অবস্থান কর্মসূচি পালন করা হবে৷' এবং তৃতীয় কর্মসূচির মধ্যে বলা হয়েছে 'রোববার রাতে স্লোগান দেয়াকে কেন্দ্র করে জাবিতে কোটা আন্দোলনকারীদের সাথে ছাত্রলীগের সংঘর্ষের ঘটনায় তদন্ত কমিটি করে সুষ্ঠু বিচার নিশ্চিত করা৷'

এ ব্যাপারে শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক শাহেদ রানা বলেন, সরকারের পক্ষ থেকে আমাদের দাবি মানা হচ্ছে না পাশাপাশি আমাদের শিক্ষকদের কটাক্ষ করা হয়েছে৷ এরই প্রতিবাদে আগামীকাল সকাল সাড়ে ১১টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত সমাজবিজ্ঞান অনুষদের প্রাঙ্গণে আমরা শিক্ষকরা মুখে কালো কাপড় বেঁধে এবং বুকে কালো ব্যাজ ধারণ করে অবস্থান কর্মসূচি পালন করব৷ এছাড়া দাবি আদায় না হওয়া অবধি আমাদের যথারীতি কার্যক্রম চলমান থাকবে৷

এর আগে, রোববার (১৪ জুলাই) সংবাদ সম্মেলনে পেনশন নিয়ে আন্দোলনরত শিক্ষকদের নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘পেনশন নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের দাবি-দাওয়ায় কিছু ভ্রান্ত ধারণা আছে৷ পেনশন ফান্ড বলে কিছু নেই৷ সর্বজনীন পেনশন স্কিম করেছি সবার জন্য৷ আন্দোলন চালাতে-চালাতে তারা টায়ার্ড হোক, তারপর বসব৷’

;