বুয়েটে ছাত্রলীগের প্রোগ্রাম, ছয় দফা দাবিতে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন



ঢাবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) গত ২৮ মার্চ ক্যাম্পাসের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত শিক্ষার্থীরা ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের সঙ্গে একটি প্রোগ্রাম করেছে। এর প্রতিবাদে ক্যাম্পাসে রাজনীতি সংশ্লিষ্ট শিক্ষার্থীদের বহিষ্কারসহ ছয় দফা দাবি নিয়ে আগামী ৩০ ও ৩১ মার্চ সকল প্রকার ক্লাস-পরীক্ষা বর্জনের ঘোষণা দিয়েছে বুয়েটের শিক্ষার্থীরা। 

শুক্রবার (২৯ মার্চ) বিকেলে বুয়েট শহীদ মিনারে এক সংবাদ সম্মেলনে সাধারণ শিক্ষার্থীদের ব্যানারে আয়োজিত প্রতিবাদ সমাবেশে এ দাবিসমূহ উত্থাপন করেন তারা।

এ সময় আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা জানান, উত্থাপিত দাবি সমূহ বাস্তবায়ন না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলমান থাকবে।

তাদের দাবিসমূহ হলো:

১। ২৮ মার্চ মধ্যরাতে ক্যাম্পাসে এমন অনুপ্রবেশ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংগঠনিক রাজনীতি নিষিদ্ধের নীতিমালার গুরুতর লঙ্ঘন এবং ক্যাম্পাসের অভ্যন্তরে একটি সুস্পষ্ট রাজনৈতিক চর্চা। এমন নীতিমালা বহির্ভূত রাজনৈতিক চর্চায় সেসময় সক্রিয়ভাবে যুক্ত ছিল বিশ্ববিদ্যালয়ের ২১ ব্যাচের পুরোকৌশল বিভাগের শিক্ষার্থী ইমতিয়াজ রাব্বী। যে ঐ বিশেষ রাজনৈতিক সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটির একজন সদস্য। শিক্ষার্থীদের প্রতিবাদের মুখে পূর্বে ক্যাম্পাসের অরাজনৈতিক পরিবেশ অক্ষুণ্ণ রাখতে তার পদ থেকে অব্যাহতি নিবে বলে জানায়, কিন্তু পরবর্তীতে এবং বর্তমানে সে প্রকাশ্যে তার রাজনৈতিক চর্চা চলমান রেখেছে। এমনকি ওই রাতে বহিরাগতদের সাথে নিরঙ্কুশ যোগাযোগ, তাদের ক্যাম্পাসে প্রবেশ করানো, গার্ডদের সাথে কথা বলা, রাজনৈতিক নেতাকর্মীদের সাথে সাক্ষাত, তাদের গাড়ি বের করানো কিংবা প্রবেশ করানো এই সকল সক্রিয় ভূমিকায় তাকে দেখা যায়। দ্রুত ইমতিয়াজ রাব্বীর বহিষ্কার চাই।

২। বিশ্ববিদ্যালয়ের সুস্পষ্ট বিধিমালা লঙ্ঘনের দায়ে বুয়েটের সকল ব্যাচের শিক্ষার্থীরা ২৮ মার্চের মধ্যরাতে রাজনৈতিক সমাগমের মূল সংগঠক ইমতিয়াজ রাব্বি এর বুয়েট থেকে স্থায়ী বহিষ্কার এবং হল বাতিল করতে হবে। সেই সঙ্গে যারা এ ঘটনায় জড়িত ছিল তাদের বিভিন্ন মেয়াদে হল এবং টার্ম পরীক্ষা থেকে বহিষ্কার করতে হবে।

৩। বহিরাগত রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ যারা ক্যাম্পাসে প্রবেশ করলো তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে কিনা, তারা কেন কিভাবে প্রবেশ করার অনুমতি পেল এই ব্যাপারে সুস্পষ্ট সদুত্তর এবং জবাবদিহিতা বুয়েট প্রশাসন কর্তৃক আসতে হবে।

৪। উপরোক্ত ১নং এবং ২নং দাবি আগামীকাল সকাল ৯টার মধ্যে বাস্তবায়ন করা না হলে আমরা সকল ব্যাচের শিক্ষার্থীরা ডিএসডাবলু এর পদত্যাগ চাই।

৫। ক্যাম্পাসে মধ্যরাতে বহিরাগতদের প্রবেশের কারণে আমরা নিজেদের নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কিত। এর প্রতিবাদ হিসেবে আগামী ৩০ ও ৩১ মার্চের টার্ম ফাইনালসহ সকল একাডেমিক কার্যক্রম বর্জন করছি।

৬। আন্দোলনরত বুয়েটের সাধারণ শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে কোন রকম হয়রানিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া যাবে না- এই মর্মে লিখিত প্রতিশ্রুতি দিতে হবে।

উল্লেখ্য, সমাবেশে শিক্ষার্থীরা লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন।

লিখিত বক্তব্য শিক্ষার্থীরা বলেন, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় দেশের সবচেয়ে সমাদৃত এবং শীর্ষস্থানীয় একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। ২০১৯ সালের ৭ অক্টোবর এ আবরার ফাহাদ ভাই এর নৃশংস মৃত্যুর মাধ্যমে বুয়েট বাংলাদেশ এর সবচেয়ে নিরাপদ ক্যাম্পাসে রুপ নেয়। বুয়েটে সর্বশেষ ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধ হওয়ার পর থেকে যে নিরাপদ এবং সুন্দর একটি ক্যাম্পাস আমরা উপহার হিসেবে পেয়েছি, তা দেশব্যাপী সকলের কাছে প্রশংসিত এবং অনুকরণীয়। দেশের সকল মানুষ, নানা প্রান্তের নানা প্রতিষ্ঠানের সকল শিক্ষার্থী দেখেছে একটি রাজনীতিবিহীন ক্যাম্পাসের রোল মডেল, তার সুফল, তার সৌন্দর্য, তার উৎকর্ষের যত সম্ভাবনা। তবে যে কলুষিত হাতগুলোর কারণেই ঝরে গিয়েছিল আমাদেরই নিষ্পাপ মেধাবী প্রাণ, সে কলুষিত হাতগুলো পরবর্তীতে বারে বারে ভিন্ন ভিন্নভাবে পুনরায় অপরাজনীতির অনুপ্রবেশের অপচেষ্টা চালিয়েছে ক্যাম্পাসে।

তারা এই সুন্দরতম পরিবেশকে পুনরায় ধ্বংস করে দিতে চেয়েছে বলে দাবি করে বলেন, তবে ২০১৯ এর সেই সময়টির পর থেকে বুয়েটের সাধারণ শিক্ষার্থীরা যে উদ্যম, সৎ সাহস আর প্রেরণা পেয়েছিল সেটিই প্রতিটি ভিন্ন ভিন্ন সময়ে ছাত্ররাজনীতি অনুপ্রবেশ এর সকল অপচেষ্টাকে রুখে দিতে শিক্ষার্থীদের মধ্যে সুনির্দিষ্ট ঐক্য গড়ে তুলতে ভূমিকা রেখেছিল। তবে এখনো বারে বারে পড়াশোনা কিংবা একাডেমিকস এর চূড়ান্ত চাপ থাকার পরেও আমাদের এই নিরাপদ ক্যাম্পাসটিকে রক্ষা করতে আমাদের সর্বদা সজাগ থাকতে হয়, করতে হয় নিরন্তর নিয়মিত সংগ্রাম। শিক্ষার্থীদের যেন সেই কলুষিত হাতদের বিরুদ্ধে ন্যায়ের লড়াই, সত্যের লড়াই চালিয়ে যাওয়া যেন শিক্ষাজীবনের একটি গুরুত্বপূর্ণ এবং নিত্য অংশ হয়ে গিয়েছে।

তারা আরো জানান, এমনই একটি ন্যাক্কারজনক ঘটনা আমাদেরই এই প্রাণের বুয়েট ক্যাম্পাসে ঘটে গত ২৮ মার্চ মধ্যরাতে। রাত ১টার দিকে আমরা সাধারণ শিক্ষার্থীরা জানতে পারি, বুয়েটে একটি বিশেষ রাজনৈতিক ছাত্র সংগঠনের বেশ ক'জন শীর্ষস্থানীয় নেতৃবৃন্দ এসেছেন এবং তারা ক্যাম্পাসের মেইন গেইট দিয়েই প্রবেশ করে ভেতরে ঢুকেছেন। রাত সাড়ে ১০টার পরে যেখানে নিরাপত্তাজনিত কারণে আমাদের সাধারণ শিক্ষার্থীদেরই ক্যাম্পাসে ঢোকার অনুমতি নেই সেখানে রাজনৈতিকভাবে সংশ্লিষ্ট বহিরাগত ব্যক্তিদের মধ্যরাতেই আমাদের প্রাণের ক্যাম্পাসে অনুপ্রবেশ ঘটে। ঘটনার তীব্রতা বাড়তে থাকে রাত বাড়ার সাথে সাথে, একের পর এক বহিরাগত রাজনৈতিক নেতাকর্মীদের মোটরসাইকেল, প্রাইভেটকার ক্যাম্পাসের মেইন গেইটের সামনে আসতে থাকে।

লিখিত বক্তব্যে তারা আরো জানান, বিপুল সংখ্যক বহিরাগত ক্যাম্পাসে অনায়াসে প্রবেশ করতে থাকে এবং এক পর্যায়ে সেখানে উপস্থিত সাধারণ শিক্ষার্থীরা দেখতে পায়, মিছিল এর মতন করে বিশাল একটি জনবহর হাতে ফুলের তোড়া নিয়ে আমাদের ক্যাম্পাসে রাত ২টার পর প্রবেশ করতে থাকে। দুঃখজনকভাবে, এই বিশাল জনবহরের সকলেই বহিরাগত ছিল এবং তাদের রাজনৈতিক সংশ্লিষ্টতা ছিল। সাধারণ শিক্ষার্থীরা ভেতরে প্রবেশ করে মধ্যরাতের সেই সময়টাই বিশেষ ঐ ছাত্র সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটির শীর্ষস্থানীয় নেতৃবৃন্দদের চিনতে পারে যা সুস্পষ্ট জানান দেয় এত বিপুল জনসমাগম রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ছিল।

বিশ্ববিদ্যালয়ের নীতিমালা অনুযায়ী সাংগঠনিক রাজনীতি নিষিদ্ধ এমন একটি ক্যাম্পাসে রাতের আঁধারে ঘটে যাওয়া এত বড় একটি রাজনৈতিক সমাগম এবং বহিরাগতদের আগমন ক্যাম্পাসের মর্যাদার প্রতি তীব্র অপমানজনক। একই সাথে এটি একটি নিরাপদ ক্যাম্পাস এবং শিক্ষার্থীদের সুষ্ঠ স্বাভাবিক শিক্ষা পরিবেশের নিরাপত্তার ব্যাপারকে গুরুতরভাবে প্রশ্নবিদ্ধ করে। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন এবং ছাত্রকল্যাণ পরিদপ্তর কোনোরুপেই উক্ত ন্যাক্কারজনক ঘটনা ক্যাম্পাসে ঘটে যাওয়ার দায় এড়িয়ে যেতে পারে না।

মধ্যরাতে বহিরাগত রাজনৈতিক সংশ্লিষ্টদের এমন দাপটসহ প্রবেশ কর্তৃপক্ষ এবং ডিএসডাবলু এর দৃষ্টি অগোচরে হওয়া অসম্ভব বলে দাবি করে তারা বলেন, ঘটনা ঘটে যাওয়ার দেড় দিন পার হয়ে গেলেও ডিএসডাবলু থেকে উক্ত ঘটনার সাথে সম্পর্কিত কোনো প্রকার সদুত্তর এবং জবাবদিহিতা এখন পর্যন্ত সাধারণ শিক্ষার্থীদের কাছে আসেনি। ক্যাম্পাসে মধ্যরাতে তারা প্রবেশের অনুমতি কিভাবে কর্তৃপক্ষ থেকে পেয়েছিল এই সম্পূর্ণ ব্যাপারটি এখনো ধোঁয়াশাপূর্ণ এবং সন্দেহের সঞ্চার করে যে কিভাবে এবং কোন মদদে তারা প্রবেশ করতে পারলো। এর সমস্তই সাধারণ শিক্ষার্থীদের ক্যাম্পাসে নিরাপত্তাকে বিঘ্নিত করে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে বুয়েটে বর্তমানে চলমান পাঁচটি ব্যাচের শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিপুল সমালোচনার ঝড় ওঠে, তারা তাদের নিন্দা এবং ক্ষোভ প্রকাশ করেন এবং প্রতিটি আলাদা আলাদা ব্যাচ নিজেদের মধ্যে দীর্ঘ সময়ব্যাপী আলোচনা করে, তা অন্য ব্যাচদের সামনে তুলে ধরে এবং পরিশেষে সকল ব্যাচ কিছু সম্মিলিত সিদ্ধান্ত এবং দাবি দাওয়ায় উপনীত হয়।

নিরাপদ ক্যাম্পাস এর নিশ্চয়তা, রাজনীতিবিহীন পরিবেশ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের বিধিমালা বজায় রাখা সম্পূর্ণরুপে বিঘ্নিত হয়েছে ২৮ মার্চ মধ্যরাতের প্রবেশের অনুমতি পাওয়ার মাধ্যমে। সাধারণ শিক্ষার্থীরা এমন ন্যাক্কারজনক ঘটনার সর্বদা বিরোধী।

   

মঙ্গল শোভাযাত্রার মাধ্যমে নতুন বছরকে বরণ করলো কুবি



কুবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

'ঐ নূতনের কেতন ওড়ে কাল বৈশাখীর ঝড়। তোরা সব জয়ধ্বনি কর' প্রতিপাদ্যকে ধারণ করে বাংলা নববর্ষ-১৪৩১ উদযাপন উপলক্ষে মঙ্গল শোভাযাত্রা করেছে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় (কুবি) পরিবার।

রোববার (১৪ এপ্রিল) সকাল সাড়ে ১০টায় প্রশাসনিক ভবনের সামনে থেকে এ শোভাযাত্রা শুরু করে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে মূল ফটকের সামনে গিয়ে শেষ হয়। শোভাযাত্রা শেষে নববর্ষের শুভেচ্ছা বিনিময় করা হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়টির উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. হুমায়ুন কবির, রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) মো. আমিরুল হক চৌধুরী, প্রক্টর কাজী ওমর সিদ্দিকী, আইকিউএসির পরিচালক অধ্যাপক ড. রাশিদুল ইসলাম শেখ, ছাত্র পরামর্শক ও নির্দেশনা দপ্তরের আহবায়ক অধ্যাপক ড. মোহা. হাবিবুর রহমান, লোক প্রশাসন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক জান্নাতুল ফেরদৌস লতাসহ শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও বিভিন্ন কর্মকর্তা কর্মচারীবৃন্দ।

এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. হুমায়ুন কবির বলেন, 'সবাইকে শুভেচ্ছা জানাই। বাঙালির যে ঐতিহ্য, আমাদের যে অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ার প্রচেষ্টা, সেই প্রচেষ্টার লক্ষ্যেই আমরা পহেলা বৈশাখ পালন করি। বাঙালির ঐতিহ্য ফিরে আসুক, অসাম্প্রদায়িকতা ফিরে আসুক। শান্তির বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা হোক এই আশাবাদ ব্যক্ত করে আমরা পহেলা বৈশাখ পালন করি এবং কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারী আজকে যারা র‍্যালিতে অংশগ্রহণ করেছে তাদের শুভেচ্ছা জানাই।'

;

মধ্যরাতে ঢাবির জহুরুল হক হলে আগুন, শিক্ষার্থীদের চেষ্টায় নিয়ন্ত্রণে



ঢাবি করেস্পন্ডেন্ট বার্তা২৪.কম ঢাকা
ছবি : সংগৃহীত

ছবি : সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক হলের মূল ভবনের (মেইন বিল্ডিং) দ্বিতীয় তলায় ২৫০ নাম্বার রুমে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। তবে, আগুন লাগার ১৫-২০ মিনিটের মধ্যে হলে থাকা শিক্ষার্থীদের চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে।

সোমবার (৮ এপ্রিল) দিবাগত রাত সোয়া দুইটা নাগাদ এ ঘটনার সূত্রপাত ঘটে বলে জানা যায়। ইলেকট্রিক শর্ট সার্কিট থেকেই এই আগুনের ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছে হল প্রশাসন।

প্রত্যক্ষদর্শী ও হল প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, ঈদের ছুটিতে ২৫০ নাম্বার রুমটির সব শিক্ষার্থী বাড়ি চলে যাওয়ায় কেউই ছিলো না রুমে। তবে আগুনে পুড়ে গেছে শিক্ষার্থীদের সার্টিফিকেট,বই, তিনটি ট্রাঙ্ক, টেবিল চেয়ারসহ গুরুত্বপূর্ণ জিনিসপত্র।

এ বিষয়ে নিকটস্থ রুমে থাকা হলটির প্রত্যক্ষদর্শী এক শিক্ষার্থী ছাব্বিরুল ইসলাম বলেন, ‘রাত সোয়া দুইটার দিকে ২৫০ নাম্বার রুমটিতে আগুন লাগে। এ সময় রুমটি তালাবদ্ধ ছিল। রুমের সবাই ঈদের ছুটিতে বাড়িতে গেছে। আগুন লাগার সাথে সাথেই রুমটির তালা ভেঙ্গে ভেতরে পানি আর অগ্নিনির্বাপক যন্ত্রের সাহায্যে নিয়ন্ত্রণে আনি। এর মধ্যেই তিনটি ট্রাঙ্কসহ গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্র, বই, খাতা, কাপড় পুড়ে যায়।’

তিনি আরো বলেন, রুমটিতে চারজন থাকতো। এর মধ্যে দুইজনের সার্টিফিকেটসহ গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্র পুড়ে গেছে।

এ রুমটির আবাসিক শিক্ষার্থী ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের ম্যানেজমেন্ট বিভাগ আইয়ুব মোড়ল এর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘রুমের সবাই বাড়িতে ছিলাম। জেনেছি আগুন লেগে রুমের বেশ ক্ষতি হয়েছে। আমাদের লাগেজ, ট্রাঙ্ক, বিছানা সব নষ্ট হয়েছে।’

এ বিষয়ে শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মো. আবদুর রহিম বলেন, ‘আগুন লাগার খবর পেয়ে আমি তৎক্ষণাৎ সেখানে গিয়েছি। ফায়ার সার্ভিসকেও বলা হয়েছিল এবং তারা এসেছিল। তবে তার আগেই শিক্ষার্থীরা আগুন নিভিয়ে ফেলেছিল।’

আগুন লাগার কারণ হিসেবে তিনি বলেন, ‘এটি একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা। ইলেকট্রনিক লাইনে দুর্বলতা থাকলে হল অফিসে রিপোর্ট করতে হয়, হলে ইলেকট্রিশিয়ান আছে। তারা ঠিক করে দেবে। এছাড়াও ছুটিতে বাড়িতে যাওয়ার আগে রুমের কোথায় কী আছে সেসব গুছিয়ে যাওয়াও তো শিক্ষার্থীদের দায়িত্ব। এখন তাদের যে ক্ষতি হয়েছে সেটা তো পুষিয়ে উঠা বেশ কষ্টের। অনেকের তো সার্টিফিকেটও পুড়ে গেছে। বিষয়টা আসলেই কষ্টের।’

ছুটিতে বা রুম থেকে বাড়িতে যাওয়ার আগে শিক্ষার্থীদেরকে রুমের লাইট, ফ্যান ও ইলেকট্রনিক জিনিসপত্র ঠিক আছে কিনা তা যাচাই করা ও সার্বিক সচেতনতা বাড়ানো উচিৎ বলে তিনি মনে করেন।

;

পয়লা বৈশাখে ঢাবি ক্যাম্পাসে মুখোশ পরা নিষেধ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

পয়লা বৈশাখের বর্ষবরণের দিনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) ক্যাম্পাসে মুখোশ পরা ও ব্যাগ বহন করা যাবে না। তবে চারুকলা অনুষদের প্রস্তুত করা মুখোশ হাতে নিয়ে প্রদর্শন করা যাবে।

এছাড়া, ক্যাম্পাসের ভেতর কোনো যানবাহন চালানো যাবে না এবং মোটরসাইকেল সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ।

বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দফতর থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এমন নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

‘আমরা তো তিমিরবিনাশী’ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে এ বছর পয়লা বৈশাখে মঙ্গল শোভাযাত্রা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের সামনে থেকে রোববার (১৪ এপ্রিল) সকাল ৯টায় বের করা হবে। শোভাযাত্রাটি শাহবাগ মোড় হয়ে শিশুপার্কের সামনে থেকে ঘুরে আবার শাহবাগ হয়ে ছাত্র–শিক্ষক কেন্দ্রে (টিএসসি) গিয়ে শেষ হবে।

নির্দেশনায় বলা হয়েছে, পয়লা বৈশাখে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে কোনো ধরনের মুখোশ পরা এবং ব্যাগ বহন করা যাবে না। তবে চারুকলা অনুষদ কর্তৃক প্রস্তুতকৃত মুখোশ হাতে নিয়ে প্রদর্শন করা যাবে। বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ভুভুজেলা বাঁশি বাজানো ও বিক্রি করা থেকে বিরত থাকতে বলা হয়েছে। এ ছাড়া ক্যাম্পাসে নববর্ষের দিন সব ধরনের অনুষ্ঠান বিকেল ৫টার মধ্যে শেষ করতে হবে। নববর্ষের দিন ক্যাম্পাসে বিকেল ৫টা পর্যন্ত প্রবেশ করা যাবে। ৫টার পর কোনোভাবেই প্রবেশ করা যাবে না, শুধু বের হওয়া যাবে।

আরও উল্লেখ করা হয়েছে, নববর্ষের আগের দিন ১৩ এপ্রিল সন্ধ্যা ৭টার পর বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টিকারযুক্ত গাড়ি ছাড়া অন্য কোনো গাড়ি ক্যাম্পাসে প্রবেশ করতে পারবে না। নববর্ষের দিন ক্যাম্পাসে কোনো ধরনের যানবাহন চালানো যাবে না এবং মোটরসাইকেল চালানো সম্পূর্ণ নিষেধ। বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে বসবাসরত কোনো ব্যক্তি নিজস্ব গাড়ি নিয়ে যাতায়াতের জন্য শুধু নীলক্ষেত মোড় সংলগ্ন গেট ও পলাশী মোড় সংলগ্ন গেট ব্যবহার করতে পারবেন। নববর্ষের দিন টিএসসির সামনের রাজু ভাস্কর্যের পেছনে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের গেট বন্ধ থাকবে।

বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে আসা ব্যক্তিরা সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে প্রবেশের জন্য চারুকলা অনুষদের সামনে ছবির হাটের গেট, বাংলা একাডেমির সামনের সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের গেট ও ইঞ্জিনিয়ারিং ইনস্টিটিউট সংলগ্ন গেট ব্যবহার করতে পারবেন। সোহরাওয়ার্দী উদ্যান থেকে বের হওয়ার পথ হিসেবে ইঞ্জিনিয়ারিং ইনস্টিটিউট সংলগ্ন গেট, রমনা কালী মন্দির সংলগ্ন গেট ও বাংলা একাডেমির সামনের সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের গেট ব্যবহার করা যাবে।

টিএসসির সামনে বিশ্ববিদ্যালয়ের হেল্প ডেস্ক, কন্ট্রোল রুম এবং অস্থায়ী মেডিকেল ক্যাম্প থাকবে।

হাজী মুহম্মদ মুহসীন হল মাঠ সংলগ্ন এলাকা, টিএসসি সংলগ্ন এলাকা, দোয়েল চত্বরের আশপাশের এলাকা ও কার্জন হল এলাকায় মোবাইল পাবলিক টয়লেট স্থাপন করা হবে। সভায় নববর্ষের দিন নিরাপত্তার স্বার্থে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে পর্যাপ্ত সিসি ক্যামেরা ও আর্চওয়ে স্থাপন করে তা মনিটরিং করার জন্য পুলিশ কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ জানানো হয়েছে।

;

ঈদে পরিবারের সঙ্গে আনন্দ ভাগাভাগি করতে ঘরমুখো ঢাবি শিক্ষার্থীরা



ঢাবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ঈদে পরিবারের সঙ্গে আনন্দ ভাগাভাগি করতে ঘরমুখো ঢাবি শিক্ষার্থীরা

ঈদে পরিবারের সঙ্গে আনন্দ ভাগাভাগি করতে ঘরমুখো ঢাবি শিক্ষার্থীরা

  • Font increase
  • Font Decrease

ঈদের আর মাত্র কয়েকদিন বাকি। ঈদ উপলক্ষে ছুটি পেয়ে পরিবারের সঙ্গে আনন্দ ভাগাভাগি করতে ঘরমুখো হচ্ছেন সারাদেশ থেকে আগত ঢাবির শিক্ষার্থীরা। 

এবার ঈদের ছুটির সঙ্গে যোগ হচ্ছে বাংলা নববর্ষের ছুটি এবং এর সঙ্গে সাপ্তাহিক বন্ধ মিলিয়ে লম্বা ছুটি পাচ্ছেন মানুষ ৷ তাই অন্যবারের তুলনায় এবার বেশি মানুষ ঢাকা ছাড়ছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।  তবে নানারকম অনিবার্য কারণে এমন ছুটিতেও পরিবারের সঙ্গে ঈদ উদযাপন করতে বাড়ি ফিরতে পারছেন না বেশ কিছু শিক্ষার্থী।

ঈদ উপলক্ষে ৪ এপ্রিল থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সব একাডেমিক কার্যক্রম বন্ধ হয়েছে। শিক্ষার্থীরা আগামী ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত দীর্ঘ ছুটি পেয়েছেন। কেউ কেউ ছুটি শুরুর আগেই পাড়ি জমিয়েছে আপন ঠিকানায়। এছাড়াও বাকি শিক্ষার্থীরা ছুটি শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ধীরে ধীরে হল থেকে নিজ এলাকায় যাচ্ছেন। এদিকে হল ক্যান্টিন,দোকানপাট ধীরে ধীরে বন্ধ হয়ে গেলেও চাকরির পরীক্ষার প্রস্তুতি, যাতায়াত সমস্যাসহ নানারকম কারণে ঈদের ছুটিতে নিজ নিজ হলেই থেকে যাচ্ছেন বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী।

বিশ্ববিদ্যালয়ের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী সাদেকুল ইসলাম বার্তা২৪.কমকে জানান, প্রতিবছরই মা-বাবা পরিবার পরিজন নিয়ে ঈদ করতাম। এবার বিসিএস পরীক্ষাসহ বেশ কিছু পরীক্ষার প্রস্তুতির যেন বিঘ্ন না হয় সেজন্য হলেই থেকে যাচ্ছি। এক সপ্তাহের মতো পড়াশোনায় গ্যাপ হলে সেটা ফিরিয়ে আনতে অনেক সমস্যা হয়। তাই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

কবি সুফিয়া কামাল হলের চতুর্থ বর্ষের এক নারী শিক্ষার্থীও একই কারণে এবার হলেই ঈদ পালন করছেন। তিনি জানান, প্রতিবার বাড়িতে ঈদ করলেও এবার নিয়মিত পড়াশোনা চালিয়ে যেতে পরিবারকে খুব কষ্টে বুঝিয়েছি এবার হলেই ঈদ করব। পরেরবার ঈদটা আরো আনন্দময় করতেই এই ঈদটা একটু কষ্ট করে এখানে করছি।

বাড়ি না ফেরা শিক্ষার্থীদের মধ্যে একটি বড় অংশ বিদেশি শিক্ষার্থীরা।

জানা যায়, হলে থাকা ১৪ জন বিদেশি শিক্ষার্থীদের মধ্যে বাড়ি ফিরেছেন মাত্র ৩ জন। বাকিরা সবাই পিজে হার্টগ আন্তর্জাতিক হলেই ঈদ পালন করবেন। তাদের মাঝে একজন ঢাবির ডিজাস্টার সায়েন্স অ্যান্ড ক্লাইমেট রেজিলিয়েন্স বিভাগের নাইজেরিয়ান শিক্ষার্থী ইব্রাহিম।

তিনি জানান, অনেকদিন দূরে থাকায় পরিবারকে ছেড়ে ঈদ পালন করতে একটু খারাপ তো লাগছেই। তবে ঈদে ঢাবিতে আমাদের জন্য খাবারের ব্যবস্থা করা হয়। এখানে যে বন্ধুরা আছে, সবার সঙ্গে ঈদ করব। ফ্লাইটের অনেক খরচের কারণে দেশে যেতে অসুবিধা হয় বলে জানান তিনি।

তবে অন্যদিকে ঢাবির অধিকাংশ শিক্ষার্থীই দীর্ঘদিন পর ঢাকার যান্ত্রিক কোলাহল থেকে কিছুদিনের জন্যে নিজ আবাসে ফিরে যাচ্ছেন অত্যন্ত আনন্দ উদ্দীপনার সঙ্গে। প্রতি নিয়তই দেখা যাচ্ছে ব্যাগপত্র নিয়ে কেউ দল বেঁধে কেউ কেউ একাই হল থেকে বের হচ্ছেন বাড়ির উদ্দেশে। তাদের মধ্যেই একজন ঢাবির তৃতীয় বর্ষের ও কবি সুফিয়া কামাল হলের শিক্ষার্থী মাইশা মালিহা।

তিনি বার্তা২৪.কমকে বলেন, আসলে বাড়ি ফেরার টিকিট কাটার পরই আমার ঈদের আনন্দ শুরু হয়ে যায়। দিন গুণতে থাকি কবে বাড়ি ফিরব। বাড়িতে গিয়ে ঈদের কেনাকাটা, চাঁদরাতে মেহেদি পরা, ঈদের দিনে মায়ের হাতের রান্না খাওয়া, এসবেই আমার ঈদ।

;