ওই জিনিসটাই নেই- সেটা নৈতিক মূল্যবোধ!



প্রফেসর ড. মো: ফখরুল ইসলাম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

সেদিন একটি বিতর্ক অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছিলাম। পক্ষে-বিপক্ষে বক্তাদের বিতর্ক শুনে সবাই অনেকটা বিমোহিত। আমিও কিছুটা অবাক হয়েছি উভয় দলের তার্কিকদের ভাষা ও বচনভঙ্গি শুনে। বিতর্ক শেষে নির্বাচিত আলোচকবৃন্দ বিভিন্ন দৃষ্টিকোণ থেকে বিষয়টির উপর বক্তব্য দিলেন। দশ-বারটি সুপারিশ উঠে এলো। কিন্তু একজন ক্ষুদে বক্তা কিছু সময়য়ের জন্য তাকে বিতর্কের বাইরে আরো কিছু বলার সুযোগ দিতে অনুরোধ করলো। সেটা শুনে উপস্থিত সবার চোখেমুখে ভিন্নকিছুর আভাস ফুটে উঠলো।

তার্কিক বললো, সবার কথায় যুক্তি আছে। কিন্তু সবারটা মানতে চেয়েও পারছি না। কারণ, সবাই একটি কথা বলতে গিয়েও অস্পষ্টভাবে বলছেন কেন তা বোধগম্য নয়। এই অস্পষ্টতার আড়ালে যেটা চাপা পড়ে যাচ্ছে তা হলোওই জিনিসটা। আর ওই জিনিসটার বড় আকাল লেগেছে। শুনতে চান আপনারা- ওই জিনিসটা কি? আমাদের মধ্যে ওই জিনিসটাই নেই- সেটা ওপেন সিক্রেট, সবার জানা গোপন কথা। তা হলো সততা-নৈতিকতা! ওর সুস্পষ্ট কথায় বলিষ্ঠ সুর শুনে সবাই ভিমড়ি খাবার যোগাড়।

এবার তার বক্তব্য আরো বেগবান হলে সে গড় গড় করে বলতে লাগলো- আমরা ছোট মানুষ। আমাদেরকে গণমাধ্যমে কেন বিতর্কের নামে বড়দের ঝগড়া, খারাপ কথা শুনতে হয়? বর্তমানে দেশে আগামী নির্বাচন নিয়ে যে বাকযুদ্ধ ও শক্তিপ্রয়োগের মহড়া শুরু হয়েছে তার মূল কারণ হলো- ‘নিশীথের ভোট’যেটা বহুবার বহু জায়গায় বলা হয়েছে, লেখা হয়েছে, ছাপা হয়েছে। এমনকি এজন্য দেশ ছাপিয়ে বিদেশের মাটিতেও তোলপাড় হয়েছে। মামলা-হামলা হয়েছে, কারাবরণ হয়েছে এবং সেগুলো চলছে। কিন্তু সেই কারণগুলোর তদন্ত হয়নি, নিষ্পত্তি হয়নি। এখন ভাবনা হচ্ছে, ‘আমি আছি থাকবো, যেভাবেই হোক নির্বাচন হবে।’এজন্য ‘নিজের পরীক্ষায় নিজে নিয়ন্ত্রক হবার অপবাদ ও  গ্লানিটুকুও কাউকে স্পর্শ করে না। ফলত: সেগুলোর পৌণ:পুনিক আশঙ্কা থেকেই আগামী নির্বাচন অনুষ্ঠানে আয়োজনের সুষ্ঠুতা ও গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে নানা জটিলতা তৈরী হয়েছে।’

সেদিন একটি বৃহৎ মহাসমাবেশ ভন্ডুল করার উদাহরণ দিয়ে সে বলতে চেষ্টা করলো- ‘এতবড় জনসমাবেশকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে গিয়ে আয়োজনের ঘাটতি ছিল না। মহাসমাবেশ শেষ না হতে মাঝপথে হঠাৎ বিকট সাউন্ড গ্রেনেডের শব্দ এবং টিয়ার গ্যাসের শেল ছুঁড়ে কেন আতঙ্ক তৈরী করা হয়েছিল? সমস্যা সেখান থেকেই নতুন করে উজ্জীবিত হয়েছে বলে মনে হয়। সেই শব্দ ও গ্যাস ছোঁড়া না হয়ে জনসভাটি শান্তিপূর্ণভাবে শেষ হবার সুযোগ পেত এবং সেখানে কোনরুপ গোলযোগ হতো না। একজন নিরীহ পুলিশ সদস্যকে নির্মমভাবে মৃত্যুবরণ করতে হতো না। হাজারো গ্রেনেড, গুলি, গ্যাস শেল ছুঁড়ে পরিস্থিতি ঘোলাটে করার কি দরকার ছিল?’

‘সেদিন নিযুক্ত হাজার হাজার নিরাপত্তাকর্মীর মধ্যে রহস্যজনকভাবে একজন সদস্যকে রেখে অন্য নিরাপত্তা সদস্যরা সবাই কেন দৌড়ে পালিয়ে গেলেন তাও বোধগম্য নয়। টিভিতে দেখা গেছে মোটামুটি ফাঁকা রাস্তার ফুটপাতে কতিপয় উচ্ছৃংখল জনতা তাকে পেটাচ্ছিল। নিরাপত্তাকর্মীদের হাতে আধুনিক আগ্নেয়াস্ত্র থাকা সত্বেও কেন তারা মাত্র একজন সহকর্মীকে ফেলে রেখে সবাই উধাও হয়ে গেলেন- সেসব প্রশ্নের উত্তর কে দেবে? এমনকি সেই সদস্যের আহত হয়ে দীর্ঘক্ষণ রাজপথে পড়ে থাকতে দেখা গেছে। তড়িৎ কোন এম্বুলেন্সও আসেনি তাঁকে উদ্ধার করতে। এরপরের ঘটনা তো আপনারা সবাই বেশ কদিন ধরে পর্যবেক্ষণ করেই যাচ্ছেন। সেগুলো নিয়ে আমি কিছু বলতে চাই না।’

তার দলের আরেক সদস্য তাকে সাপ্লিমেন্ট করার সুযোগ চেয়ে বলতে লাগলো- তবে এসব দেখে মনে হয় দেশের অর্থনীতির বড় ধরণের ক্ষতি করার জন্য এই হীন পরিকল্পনা অত্যন্ত সুকৌশলে সাজানো হয়েছে। যার প্রতিক্রিয়ায় সেদিনের ঘটনার ১২ দিন পর জানানো হচ্ছে- প্রতিদিন অবরোধে দেশের ৬.২ বিলিয়ন ডলার পরিমাণ অর্থনৈতিক ক্ষতি সাধিত হচ্ছে। এর মূল কারণ রাষ্ট্রীয় শক্তি প্রয়োগের মাধ্যমে একটি মহাসমাবেশে আতঙ্ক তৈরী করে ‘মব’বা উচ্ছৃংখলতা সৃষ্টি করা। দেশে একটি ভয়াবহ রাজনৈতিক সংকট চলছে। রাজনৈতিক সমস্যার পুলিশি সমাধান কখনই শান্তি প্রতিষ্ঠা করতে পারে না।’

গেল অক্টোবরে ঢাকার কাওলায় এবং ১১ নভেম্বর ২০২৩ মাতারবাড়ির জনসভায় শোনা গেছে- ‘যেভাবেই হোক নির্বাচন এদেশে হবে।’গণমাধ্যমের কল্যাণে ‘যেভাবেই হোক নির্বাচন’নিয়ে উৎসাহ বেড়েছে। দ্য গার্ডিয়ান (১০.১১.২০২৩) এটাকে ‘প্রি ইলেকশান ব্রুটাল রিপ্রেশন... দেয়ার আর নো মোর রুম লেফ্ট ইন দা প্রিজনস’বলেছে। দেশ-বিদেশ ভেদে একটি সুষ্ঠু নির্বাচন সবার চাওয়া। মূল কথা হলো- জনগণ নির্বাচন চায়, কিন্তু যেনতেন নির্বাচন চায় না।’

‘এই অতিরিক্ত শক্তি প্রয়োগ করে জনাতঙ্ক ও ভয়ংকর ভীতি সৃষ্টির দায়টা রাষ্ট্রীয় দায়িত্বশীল সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানকেই নিতে হবে। এর সুষ্ঠু তদন্ত করে দায়ীদেরকে বিচারের মুখোমুখি করতে হবে। কিন্তু এ ধরণের জনভোগান্তিমূলক অন্যায় কাজের জন্য রাষ্ট্র সবসময় তাদেরকে পুরস্কৃত করে থাকে।

অপরদিকে আগামী নির্বাচনের এখনও তপসিল ঘোষিত হয়নি অথচ রাষ্ট্রীয় কাজের জন্য আয়োজিত নানা জনসভায় ক্ষমতাসীন দল একাই সাড়ম্বরে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করে দিয়েছে। রাষ্ট্রীয় যানবাহন ব্যবহার করে অফিসিয়াল কাজের জন্য নির্মিত মঞ্চে দাঁড়িয়ে তপসিল ঘোষণার আগে নির্বাচনের জন্য নিজের মার্কায় জোরগলায় ভোট চাওয়া নিশ্চয়ই ক্ষমতার অপব্যবহার ও নির্বাচনী আইনের লঙ্ঘন। নতজানু পরাধীন নির্বাচন কমিশন এখানে কিছুই বলার ক্ষমতা রাখেন না। এখানে কারুরই ওই জিনিসটা নেই। তাহলো- নৈতিকতা।’এথেকে আমরা ভবিষ্যৎ প্রজন্ম যা বুঝি তা স্বাথর্পরতা শেখাচ্ছে।

এভাবে দ্বিতীয় তার্কিকের বক্তব্য শুনতে শুনতে উপস্থিত সবাই খানিকটা চুপ হয়ে গেল। সেদিন কেউ তাকে পাল্টা প্রশ্ন করলো না।

বিষয়টা হলো একটি সুষ্ঠু গণতন্ত্র চর্চ্চার পথে যেসব কন্টক ওঁৎপেতে থেকে জনগণের কন্ঠকে রোধ করতে সহায়তা করছে তার মধ্যে আমাদের রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানের দায়িত্বশীল বিভিন্ন শাখা বহুলাংশে দায়ী। সেসব দায়িত্বশীল রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানের হীন ভূমিকা আজকাল বড় প্রতিবন্ধকতা হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে। তারা নিজস্ব পেশাদারিত্বের বাইরে গিয়ে দলীয় রাজনীতির তল্পিবাহক হয়ে নিজেদের লাভের অঙ্ক বাড়াতে গিয়ে জনদুর্ভোগ সৃষ্টি শুরু করে দিয়েছে। এদের অনেকের মধ্যে দেশপ্রেমের ছিঁটেফোটাও নেই। এদের অনেকের ছাত্রজীবনের ইতিহাস থেকে জানা যায়- তারা বিশ্ববিদ্যালয়ে হীন ছাত্ররাজনীতি করতো এবং হলের ডাইনিংরুমে ‘ফাও’খাওয়া দলের সদস্য ছিল। অনেকে ‘কালো বিড়াল’পদ্ধতিতে চাকুরী জুটিয়ে নেবার পর দুর্নীতির মামলা মাথায় নিয়ে দেশে-বিদেশে পালিয়ে বেড়াতো। এসব ‘বানরের গলে মুকুতার হার’জোটায় তারা দেশের কল্যাণের কথা মোটেও চিন্তা করে না। তারা অনেকই পরিবার দেশের বাইরে রাখা দ্বৈত নাগরিক। অথবা দেশের আপামর মানুষের কল্যাণের কথা চিন্তা করার অর্ন্তর্নিহিত শক্তি তাদের মধ্যে নেই।

তাইতো আমাদের দেশের অদূরদর্শী, ব্যবসায়ী, লোভী রাজনৈতিক নেতৃত্ব তাদের ফাঁদে জড়িয়ে সাধারণ মানুষের দুর্ভোগকে আরো দীর্ঘায়িত করে তুলেছে। এউ উভয়বিধ শক্তি একসংগে মিলিত হয়ে দেশের অগ্রযাত্রাকে রুখে দেবার নীলনক্সা তৈরী করেছে। এই নীলনক্সার ফাঁদে এখন বাংলাদেশের অসম উন্নয়ন পরিকল্পনাগুলোও চরমভাবে বাঁধাগ্রস্থ হয়ে পড়ছে। যার ফলশ্রুতিতে সাধারণ শ্রমিকদের কর্মহীনতা ও কর্মঅসন্তোয় শুরু হয়েছে। কারণ, শুধু কাড়ি কাড়ি টাকা দিয়ে গাড়ি কিনলেই উন্নতি হয় না। সেই গাড়িতে চড়ার মতো ও গাড়ি মেইনটেইন করার মতো ও উপযুক্ত মানুষ তৈরী করতে হয়। যার ইতিবাচক প্রচেষ্টা নেই আমাদের দেশে। অগণতান্ত্রিক কূটকৌশলে দেশের ৭৫-৮০ ভাগ মানুষকে সেই সুবিধার বাইরে রেখে চলার চেষ্টার ফলে যে সামাজিক ভাঙ্গন শুরু হয়েছে তা রুখে দেবার মত সামাজিক শক্তি রাষ্ট্রের হাতে কোন দেশে কস্মিন কালেও ছিল না। বরং ইতিহাসে সেসব দেশে গণবিপ্লব ত্বরান্বিত হয়ে ভয়ংকর নাজুক পরিস্থিতিতে গণেশ উল্টে যেতে দেখা গেছে।

তাদের হীন পরিকল্পনার জন্য জনগণ শুধু বিব্রতই নয়- বড় নাজেহাল হয়ে দিনাতিপাত করতে বাধ্য হচ্ছে। এসব হীনতা, দীনতা, নিচতা শুধু বইয়ের কথা নয়। এগুলোর সংগে চরম বাস্তবতা জড়িত। এই বাস্তবতাকে যারা দু’একবার অস্বীকার করে এবং সঠিক পথে ফিরে আসে তারা রক্ষা পায়। আর যারা ক্রমাগত এসব বাস্তবতাকে উপেক্ষা করে আরো এগিয়ে বেপরোয়া গতিতে চলতে চায় তারা চরমভাবে হোঁচট খায় ও ইতিহাসের আঁস্তাকুড়ে নিক্ষিপ্ত হয়। যুগে যুগে এটাই সঠিক হিসেবে প্রতীয়মান হয়েছে।

আলোচ্য বিতর্ক অনুষ্ঠানের কিশোর তার্কিকদের মুখ থেকে উচ্চারিত বক্তব্য সেদিন উপস্থিত সদস্যরা এবং গণমাধ্যমের কল্যাণে যারা পরবর্তীতেও শুনেছেন তাদের কপালের মধ্যে নিশ্চয়ই একটা চিন্তার বলিরেখা ভেসে উঠেছে। আমাদের দেশে চারদিকে অনৈতকতার চর্চ্চা এবং এর প্রভাবে যেসব অনাচার, দুর্নীতি, অসততা ও জনভোগান্তির ক্ষেত্র তৈরী হয়েছে তা থেকে মুক্তি পাওয়া অতি সহজ ব্যাপার নয়।

তাই সেই কিশোর তার্কিকদের মতো মনে রাখতে হবে, আপনি যাই বলুন না কেন- যাই করুন না কেন সেখানে সবার আগে অপরের অধিকার ক্ষুন্ন হচ্ছে কি-না সবাইকে সেটি মনে রাখা। কারণ, আমরা এমন একটি সমাজের মধ্যে বাস করছি সেখানে মুখের কথায় সবার সবকিছু আছে বলে ফুলঝুরি তোলা হলেও অনেক দায়িত্বশীল মহারথীদেরও শুধু ‘ওই জিনিসটাই থাকে না, তা হলো-  নৈতিক মূল্যবোধ।’

*লেখক রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজকর্ম বিভাগের প্রফেসর ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের সাবেক ডীন।

E-mail: [email protected]

   

৩ মার্চ বিশ্ববিদ্যালয় দিবস: শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয়ের এগিয়ে চলা



এনামুল হক
ছবি: বার্তা২৪

ছবি: বার্তা২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

শিক্ষা- একটা জাতির উন্নতির চাবিকাঠি। দারিদ্র্য বিমোচনের লক্ষ্য পূরণে শিক্ষাই হচ্ছে প্রধান অবলম্বন। মেধা ও মননে আধুনিক এবং চিন্তা-চেতনায় প্রাগ্রসর একটি সুশিক্ষিত জাতিই একটি দেশকে উন্নতির শিখরে পৌঁছে দিতে পারে। তাই, শিক্ষাই জাতির মেরুদণ্ড! ন্যায়ভিত্তিক আধুনিক সমাজ বিনির্মাণের প্রতিজ্ঞায় ৪৮ থেকে ৭০ সাল পর্যন্ত যে জাতীয় মুক্তি আন্দোলন, তারই ফলে আজকের এই বাংলাদেশ। বাঙালি ছাত্রসহ আপামর জনসাধারণ রাজপথে যে সংগ্রাম করেছে সেই আন্দোলন-সংগ্রামেই বোনা হয়ে গিয়েছিল মুক্তিযুদ্ধোত্তর বাংলাদেশের ভিত, যা একটি আধুনিক রাষ্ট্রগঠনের দার্শনিক মন্ত্র।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান একটি সুখী, সমৃদ্ধ বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার স্বপ্ন দেখেছিলেন। তার সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার আগামী প্রজন্মকে নৈতিক মূল্যবোধ, জাতীয় ঐতিহ্য ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ করে জ্ঞান ও প্রযুক্তিতে দক্ষ মানবসম্পদ হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে একটি যুগোপযোগী শিক্ষানীতি প্রণয়ন করেছে। শিক্ষাকে উন্নয়নের হাতিয়ার হিসেবে বেছে নিয়েছিলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানও। গঠন করেন ড. কুদরত-ই-খুদা শিক্ষা কমিশন। এই কমিশন মুক্তিযুদ্ধের শিক্ষাদর্শনই প্রতিফলিত।

নেত্রকোনায় প্রতিষ্ঠিত শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয়

উচ্চশিক্ষাকে সবার দ্বারে সহজলভ্য করার লক্ষ্যে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে নতুন নতুন বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করা হচ্ছে। জোর দেওয়া হচ্ছে, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির ওপর। এরই আলোকে ২০১৮ সালে অবহেলিত বাংলাদেশের ‘ভাটি অঞ্চল’ বলে খ্যাত নেত্রকোনায় প্রতিষ্ঠিত হয় ‘শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয়’। এর আগে ২০১৭ সালের ৩০ জানুয়ারি মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে ‘শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয় আইনে’র নীতিগত অনুমোদন হয়। ২০১৮ সালের ১২ ফেব্রুয়ারি গেজেট আকারে আইনটি (২০১৮ সালের ৯নং আইন) পাস হয়।

এরপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের স্বনামধন্য অধ্যাপক ড. রফিকুল্লাহ খানকে প্রথম ভিসি হিসেবে নিয়োগদানের মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয়ের আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হয়। ২০১৯ সালের ৩ মার্চ বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক পাঠদান তথা শিক্ষা-কার্যক্রম শুরু হয়। তাই প্রতিবছর ৩ মার্চকে ‘শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয় দিবস’ হিসেবে উদযাপন করে আসছে কর্তৃপক্ষ।

বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার একজন দূরদর্শী নেতৃত্ব। তাঁর নেতৃত্বেই বিশ্বমঞ্চে দুর্বার গতিতে এগিয়ে চলছে লাল-সবুজের বাংলাদেশ। মানবতার নেত্রীর নামে প্রতিষ্ঠিত এ বিশ্ববিদ্যালয় তাঁর স্বপ্নের সমান উচ্চতায় পৌঁছাতে চায়। আর সে লক্ষ্যেই নানামুখী পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে বর্তমান বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। শিক্ষাপ্রশাসনে দীর্ঘ অভিজ্ঞতালব্ধ দক্ষতায় দেশের প্রখ্যাত উদ্ভিদবিজ্ঞানী উপাচার্য অধ্যাপক ড. গোলাম কবির বিশ্ববিদ্যালয়টিকে উচ্চশিক্ষার ‘সেন্টার অব এক্সিলেন্স’ হিসেবে গড়ে তোলার ব্রত নিয়ে এগিয়ে চলেছেন।

তিনি স্বপ্ন দেখেন, শিক্ষা ও গবেষণায় শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয় নতুন উৎকর্ষ সাধনের মাধ্যমে নতুন ধারণা ও উদ্ভাবনে এক অনন্য মাইলফলক অর্জন করবে। সেই সঙ্গে প্রাগ্রসরমান বিশ্বে নিত্যনতুন চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সক্ষম, আলোকিত ও দক্ষ পেশাদার জনশক্তি তৈরি করবে; যারা দেশ ও বিশ্ব সম্প্রদায়ের কল্যাণে সর্বদা নিয়োজিত থাকবে।

তাই তো অনেক সম্ভাবনা, অনেক প্রতিশ্রুতি আর আশ্বাসের ডালি নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়টির অবকাঠামো নির্মাণের কাজও এগিয়ে চলছে। ইতোমধ্যে দুয়েকটি ভবনের কার্যক্রম দৃশ্যমানও হয়েছে। আমরা বিশ্বাস করি, শিক্ষার অভিজাত বলয়ে প্রবেশের সর্বজনীন যে আকাঙ্ক্ষা, তা অতি অল্প সময়ে উচ্চশিক্ষা, গবেষণা কিংবা ব্যবস্থাপনায় শুধু দেশে নয়, উন্নত বিশ্বেরও নজর কাড়বে ‘শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয়’।

বিশ্ববিদ্যালয়টির ক্যাম্পাস স্থাপনে ইতোমধ্যে সমতল প্রায় ৫০০ একর ভূমির উন্নয়ন কার্যক্রম সম্পন্ন হয়েছে। বর্তমানে ১০ তলাবিশিষ্ট একাডেমিক ভবন-৩ এবং ৪ তলাবিশিষ্ট প্রশাসনিক ভবনের কাজ চলমান। নির্মাণের প্রক্রিয়াধীন রয়েছে- টিএসসি, ক্যাফেটেরিয়া, ছাত্রহল, ছাত্রীহল, লাইব্রেরি, মেডিকেল সেন্টার, ডে-কেয়ার ও ইয়োগা সেন্টার।

পূর্ণাঙ্গ ক্যাম্পাস নির্মাণের কাজ সম্পন্ন হলে সর্বাধুনিক প্রযুক্তিনির্ভর শ্রেণিকক্ষ, আন্তর্জাতিকমানের ল্যাবরেটরি, সমৃদ্ধ লাইব্রেরি, খেলার মাঠ, সুস্থ বিনোদনকেন্দ্র, সুচিকিৎসার জন্য উন্নত যন্ত্রপাতিসম্পন্ন মেডিকেল সেন্টার, ক্যাফেটেরিয়া, শারীরিক শিক্ষাকেন্দ্র, মেডিটেশন হলসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরে গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে সুপেয় পানির সুব্যবস্থা থাকবে অর্থাৎ একটি বৈশ্বিকমানের একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে যা থাকা প্রয়োজন, সবই থাকবে এই ক্যাম্পাসে।

শুরুতে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে স্থাপনের উদ্যোগ থাকলেও সাধারণ পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে অনুমোদন লাভ করে। সাধারণ বিশ্ববিদ্যালয় হলেও শুরু থেকেই প্রতিষ্ঠানটি তার গন্তব্য ঠিক করে নিয়েছে।

পাঠ্যক্রমে অর্থনীতি, ইতিহাস, সভ্যতা, ভাষা, সাহিত্য যেমন রয়েছে, তেমনই আসন্ন চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের চ্যালেঞ্জ মোকিবেলায় বিজ্ঞান, প্রকৌশল ও প্রযুক্তিবিদ্যার বিষয়গুলোকেও প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে।

বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়ে ৩টি অনুষদের অধীনে ৪টি বিভাগ আছে। এগুলো হচ্ছে- কলা অনুষদে বাংলা বিভাগ ও ইংরেজি বিভাগ, সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদে অর্থনীতি বিভাগ, প্রকৌশল ও প্রযুক্তি অনুষদে কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগ।

শিক্ষার্থী সংখ্যা ৫৫১ জন, শিক্ষক ১৫ জন এবং কর্মকর্তা রয়েছেন ২৩ জন। কর্মচারী নিয়োজিত আছেন ৫৬ জন। গুণগত শিক্ষা কার্যক্রম বজায় রাখার লক্ষ্যে মেধাবী ও জ্ঞান অনুসন্ধিৎসু শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। প্রশাসনকে গতিশীল রাখতে দক্ষ ও মেধাবী কর্মকতা-কর্মচারী নিয়োগ দেওয়া হয়েছে; যারা বিশ্ববিদ্যালয়টিকে সুচারুভাবে এগিয়ে নিতে সর্বদা সচেষ্ট।



মাস্টারপ্ল্যান অনুযায়ী, বিশ্ববিদ্যালয়ে ইনস্টিটিউট অব বঙ্গবন্ধু অ্যান্ড লিবারেশন ওয়ার, ইনস্টিটিউট অব এডুকেশন অ্যান্ড রিসার্চ, ইনস্টিটিউট অব সাউথ এশিয়ান এসই স্টাডি, ইনস্টিটিউট অব স্ট্যাটিসটিক্যাল রিসার্চ অ্যান্ড ট্রেনিং, ইনস্টিটিউট অব নিউট্রিশন অ্যান্ড ফুড সায়েন্স, ইনস্টিটিউট অব বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন, ইনস্টিটিউট অব ওয়েলফেয়ার অ্যান্ড রিসার্চ, ইনস্টিটিউট অব মডার্ন ল্যাঙ্গুয়েজ, ইনস্টিটিউট অব হেলথ ইকোনমিকস, ইনস্টিটিউট অব ইনফরমেশন টেকনোলজি, ইনস্টিটিউট অব এনার্জি, ইনস্টিটিউট অব ডিজেস্টার ম্যানেজমেন্ট অ্যান্ড ভালনারাবেল স্টাডিজ, ইনস্টিটিউট অব লেদার ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলজি, কনফুসিয়াস ইনস্টিটিউট স্থাপন করা হবে।

নেত্রকোনার জীব-বৈচিত্র্য নিয়ে গবেষণা কর্ম পরিচালনার জন্য রিভার অ্যান্ড শিক্ষা নিয়ে গবেষণার জন্য থাকবে শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউট। বিদেশি ছাত্রদের উচ্চশিক্ষায় শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয়ে থাকবে পর্যাপ্ত ব্যবস্থা। তাদের জন্য নির্মাণ করা হবে আন্তর্জাতিক হোস্টেল।

অভীষ্ট ও ভাবনার বৈচিত্র্যে এ বিশ্ববিদ্যালয় হবে অনন্য। সুন্দরবন ও উপকূল নিয়ে বিশ্বে প্রথম এখানেই স্থাপিত হয় ইনস্টিটিউট ফর ইন্টিগ্রেটেড স্টাডিজ অন দ্য সুন্দরবনস।

অ্যাকাডেমিক এক্সেলেন্সের জন্য ইনস্টিটিউশনাল কোয়ালিটি অ্যাসুরেন্স সেল স্থাপন করা হবে। প্রতিটি বিভাগেই আউটকাম বেইজড কারিকুলাম প্রণয়ন করা হয়েছে। আমাদের লক্ষ্য প্রথাবদ্ধ ছক থেকে বেরিয়ে প্রয়োজনমুখী শিক্ষাদান। বিশ্বজনীন শিখন প্রক্রিয়ার সঙ্গে অভিযোজন। গবেষণাগারে আধুনিক মানের গবেষণা সহায়ক নানা যন্ত্রপাতি স্থাপন করা হবে। বিভিন্ন বিভাগ ও ইনস্টিটিউটে থাকবে স্মার্ট ক্লাসরুম। কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারে ওয়াইফাই কর্নার, পর্যাপ্ত ই-বুক আর লাইব্রেরিকে অটোমেশন করে আরো সমৃদ্ধ ও আকর্ষণীয় করে তোলা হবে।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার দর্শনেই নিহিত ছিল পিছিয়েপড়া মানুষকে এগিয়ে নেওয়ার সংকল্প আর মুক্তিযুদ্ধের চেতনাই সামাজিক সমতার এই আকাঙ্ক্ষা জাগ্রত করেছিল। সেই মহান ঐতিহ্য থেকে শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয় এতটুকু বিচ্যুত হয়নি। ভবিষ্যতেও হবে না। পূর্ণাঙ্গ ক্যাম্পাসে জাতির পিতার সৌম্যদর্শন মুখচ্ছবি, শহিদ মিনার, স্বাধীনতা স্তম্ভ নির্মাণ করা হবে।

নেত্রকোনার বারহাট্টার কাশবনে জন্ম নেওয়া দেশের অন্যতম আধুনিক কবি নির্মলেন্দু গুণ প্রতিষ্ঠিত ‘কবিতাকুঞ্জ’কে বিশ্ববিদ্যালয়ে আত্তীকরণ করা হয়েছে। আমরা মনে করি, মূল্যবোধের গভীরে থাকা এসব অভিজাত অনুভবই শিক্ষার্থীদের দেশের প্রতি সম্মানবোধ বাড়িয়ে দেবে।

শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয় একটি নতুন বিশ্ববিদ্যালয়। অবকাঠামোসহ নানা চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করেই এগিয়ে চলছে। শহরের রাজুর বাজারে অবস্থিত টিটিসি-এর একটি ভবনে অস্থায়ী ক্যাম্পাস স্থাপন করে বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রম চলছে। ফলে, শিক্ষার্থীদের আবাসিক সংকটসহ নানান সমস্যার মুখোমুখি হতে হচ্ছে। নানান সমস্যার মুখেও শিক্ষার্থীরা যে ‘নতুনের সৃষ্টি’র জন্য পাহাড়সম বিসর্জন কিংবা ত্যাগ স্বীকার করছেন, এটা সত্যিই আমাদের মুগ্ধ করে।

এসব চ্যালেঞ্জ স্বত্ত্বেও উপাচার্য অধ্যাপক ড. গোলাম কবিরের সার্বিক তত্ত্বাবধানে আন্তর্জাতিকমানের দুটি কম্পিউটার ল্যাব, একটি হার্ডওয়্যার ল্যাব, ভার্চুয়াল ক্লাসরুম পরিচালিত হচ্ছে। আছে স্মার্টবোর্ড ব্যবহারের সুবিধাও। শিক্ষার্থীদের মধ্যে বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা জাগ্রত করার লক্ষ্যে ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও মুক্তিযুদ্ধ কর্নার’ স্থাপন করা হয়েছে। শিক্ষার্থীদের যোগযোগব্যবস্থা সহজীকরণের জন্য দুটি মিনিবাস ও তিনটি মাইক্রোবাস রয়েছে। এছাড়া শিক্ষার্থীদের তাৎক্ষণিক চিকিৎসাব্যবস্থা নিশ্চিতকরণে নিজস্ব অ্যাম্বুলেন্স-সুবিধা রয়েছে।

শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন ধরনের সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকেন। প্রতিটি বিভাগের নিজস্ব ক্লাব বিশ্ববিদ্যালয়কে করেছে আরো সমৃদ্ধ। ক্লাবগুলোতে শিক্ষার্থীরা বিষয়ভিত্তিক বিতর্ক, আলোচনা, সেমিনার ও গ্রুপ স্টাডিতে ব্যস্ত থাকেন।

শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনে নেত্রকোনা-৪ আসনের সংসদ সদস্য ও প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের সাবেক সিনিয়র সচিব সাজ্জাদুল হাসান, নেত্রকোনা-২ আসনের সংসদ সদস্য মো. আশরাফ আলী খান খসরুসহ বিভিন্ন পর্যায়ের ব্যক্তিবর্গের অবদান অনস্বীকার্য। স্থানীয় জনসাধারণও সার্বিক সহযোগিতা প্রদান করে চলেছেন।

৩ মার্চ শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয় দিবস। এদিন ক্যাম্পাসে বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করা হয়েছে। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর এই ক্ষণে প্রত্যাশা জাগে, বিশ্ববিদ্যালয়টি যেন জ্ঞান সৃজন ও মুক্তবুদ্ধির চারণভূমিতে পরিণত হয়। যে শিক্ষা মানুষকে ক্ষুদ্র হতে বৃহৎ করে, মনকে মুক্ত করে, সে শিক্ষার পরিচর্যা কেন্দ্র হোক আমাদের প্রিয় শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয়। দক্ষতা ও জ্ঞান সৃষ্টির কারিগর হয়ে উঠুক মগড়া তীরের এ বিদ্যাপীঠ। শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয় দিবসে সবাইকে জানাই আন্তরিক শুভাশিস!

লেখক: পিএস টু ভিসি, শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয়, নেত্রকোনা

;

ইউরোপে বাংলাদেশি সমকামীদের আশ্রয় আবেদন, বাস্তবতা কি?



অ্যাডভোকেট শাহানূর ইসলাম সৈকত
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সমকামী সম্প্রদায়ের সদস্য হওয়ায় পরিবার, প্রতিবেশী, সমাজের মাতব্বরসহ রাষ্ট্রীয় বৈষম্য, নিপীড়ন ও নির্যাতন থেকে বাঁচতে দেশ থেকে পালিয়ে ফ্রান্স সহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশে বাংলাদেশি নাগরিকদের আশ্রয় আবেদনের সংখ্যা উদ্বেগজনক ভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে বলে বিভিন্ন অসমর্থিত সূত্রে জানা যাচ্ছে।

সমকামী দাবি করা আশ্রয় আবেদনকারী বাংলাদেশিদের মধ্যে অনেকে তাদের যৌন অভিমুখিতার কারণে বাংলাদেশে নিপীড়নের শিকার হয়ে থাকলেও আবেদনকারীদের মধ্যে বস্তুত সমকামী নয় কিন্তু সমকামী দাবি করে আশ্রয় আবেদন করেছে এমন প্রতারণামূলক আবেদনের সংখ্যাও নেহাত কম নয় বলে ধারণা করা হচ্ছে।

আশ্রয় প্রাপ্তি নিশ্চিত করার জন্য নিজেদের প্রতারণামূলকভাবে সমকামী বলে দাবি করে যদিও অনেকেই আশ্রয় পেয়ে থাকে, কিন্তু উক্ত প্রতারণামূলক ঘটনাগুলি আশ্রয় ব্যবস্থায় প্রকৃত সমকামী আশ্রয় প্রার্থীদের বিশ্বাসযোগ্যতাকে ক্ষুণ্ন করেছে। ফলে অনেক সময় প্রকৃত নিপীড়নের শিকার সমকামী ব্যক্তিরাও আশ্রয় প্রাপ্তি থেকে বঞ্চিত হোন। 

তবে একথা অনস্বীকার্য যে, বাংলাদেশে সমকামী ব্যক্তিদের শুধুমাত্র যৌন অভিমুখীতা বা লিঙ্গ পরিচয়ের কারণে প্রতিকূল পরিবেশে ব্যাপক বৈষম্য, সহিংসতা, নিপীড়ন, সামাজিক বর্জন, হয়রানি, এমনকি কারাবাস বা মৃত্যুর হুমকির সম্মুখীন হতে হয় এবং আশ্রয় পাওয়া তাদের জন্য নব জীবন পাওয়ার তুল্য।

সাম্প্রতিক সময়ে সুনির্দিষ্ট ভয় এবং ঝুঁকির সম্মুখীন হওয়া সত্ত্বেও ফ্রান্স সহ ইউরোপিয় ইউনিয়নভূক্ত দেশ সমূহে অনেক বাংলাদেশি সমকামী আশ্রয় প্রার্থীদের আবেদন যথাযথ গুরুত্ব সহকারে যাচাই না করে প্রত্যাখ্যান করা হয়েছে বলে তথ্য পাওয়া যাচ্ছে। যা বাংলাদেশি সমকামী সম্প্রদারের সমস্যাগুলির যথাযথ উপলব্ধির অভাব এবং তাদের দাবির যথাযথ মূল্যায়নের জন্য পর্যাপ্ত সময় ও গুরুত্ব প্রদান না করার মত আশ্রয় প্রক্রিয়ার পদ্ধতিগত ত্রুটির জন্য হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

যদিও সমকামী দাবি করা প্রতারণামূলক আশ্রয় আবেদনের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, কিন্তু উক্ত ব্যবস্থা নিপীড়নের শিকার প্রকৃত সমকামী আশ্রয় প্রার্থীদের আশ্রয় প্রাপ্তিতে যেন কোনভাবে নেতিবাচক প্রভাব না ফেলে সে বিষয়ে সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে। তাই ফ্রান্স সহ ইউরোপীয় ইউনিয়নভূক্ত দেশ সমূহকে অবশ্যই আশ্রয় ব্যবস্থার যথার্থতা রক্ষা এবং প্রকৃত নিপীড়িতদের সুরক্ষার জন্য মানবিক দায়বদ্ধতার মধ্যে ভারসাম্য বজায় রাখতে হবে।

সেজন্য আশ্রয় আবেদন পররালোচন্যাকারী কর্মকর্তা ও বিচারকদের সমকমামিতা, সাংস্কৃতিক সংবেদনশীলতা, যৌন অভিমুখিতা ও অভিযোজন এবং লিঙ্গ পরিচয়ের সূক্ষ্মতা সম্পর্কে ব্যপক প্রশিক্ষণের  ব্যবস্থা করতে হবে। পাশাপাশি, সমকামী আশ্রয় প্রার্থীরা যাতে সহজে  আইনি প্রতিনিধিত্ব, ভাষাগত সহায়তা, মনস্তাত্ত্বিক পরামর্শ সহ সমকামি ব্যক্তিদের নিয়ে কাজ করে এমন সংস্থার সাথে সহজে যোগাযোগ ও সেবা পেতে পারে সে ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে।

উপরন্তু, সমকামী আশ্রয় আবেদন সংক্রান্ত মামলাগুলির বিষয়ে প্রদত্ত সিদ্ধান্তগুলি যেন সঠিক এবং আপ-টু-ডেট তথ্যের ভিত্তিতে হয় সেজন্য সমকামী অধিকার নিয়ে কাজ করে এমন আন্তর্জাতিক, আঞ্চলিক, জাতীয় ও স্থানীয় সংস্থা ও মানবাধিকার গোষ্ঠীগুলির সাথে সমন্বয় এবং তথ্য-আদান-প্রদান উন্নয়নে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

পরিশেষে, আশ্রয় ব্যবস্থার অপব্যবহার এবং জালিয়াতির ঘটনাগুলিকে মোকাবিলা করা একদিকে যেমন অপরিহার্য, ঠিক তেমনি নিপীড়নের শিকার প্রকৃত সমকামী আশ্রয় প্রার্থীদের অধিকার ও মর্যাদা রক্ষা করাও সমানভাবে গুরুত্বপূর্ণ।

যৌন অভিমুখিতা ও যৌণ অভিযোজন এবং লিঙ্গ পরিচয়ের উপর ভিত্তি করে আশ্রয়ের আবেদনগুলি অত্যন্ত যত্ন ও সহানুভূতির সাথে বিবেচনা করার মাধ্যমে ফ্রান্সসহ ইউরোপীয় ইউনিয়নভূক্ত দেশ সমূহকে অবশ্যই ন্যায্যতা, অখণ্ডতা এবং মানবাধিকারের প্রতি তাদের অঙ্গীকার বজায় রাখতে হবে।

শুধুমাত্র অঙ্গীকারের ভিত্তিতে ফ্রান্স সহ ইউরোপিয় ইউনিয়নভূক্ত দেশ সমূহ নৈতিক ও আইনগত বাধ্যবাধকতা পূরণ করতে নিপীড়ণের হাত থেকে পালিয়ে আসা বাংলাদেশি সমকামী নাগরিকদের আশ্রয় প্রদান করে মানবাধিকার চ্যাম্পিয়ন হিসাবে তাদের মর্যাদা সমুন্নত রাখতে পারে।

লেখক: প্যারিস, ফ্রান্স বসবাসরত বাংলাদেশি আইনজীবী; আন্তর্জাতিক শরণার্থী আইনে উচ্চতর প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত; প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, জাস্টিসমেকার্স বাংলাদেশ ইন ফ্রান্স (জেএমবিএফ); মোবাইল: +৩৩০৭৮৩৯৫২৩১৫; ইমেইল: [email protected]; ব্লগ: www.shahanur.blogspot.com

;

আগুনের কী দোষ!



কবির য়াহমদ, অ্যাসিস্ট্যান্ট এডিটর, বার্তা২৪.কম
আগুনের কী দোষ!

আগুনের কী দোষ!

  • Font increase
  • Font Decrease

রাজধানীর ব্যস্ততম এলাকা বেইলি রোডের গ্রিন কোজি কটেজে অগ্নিকাণ্ডে প্রাণ হারিয়েছেন ৪৬ জন। সারাদেশে ওঠেছিল শোকের মাতম। শোক হয়েছিল সর্বজনীন। কিন্তু সেই শোক স্তিমিত হয়ে এটা এখন সর্বজনীন থেকে হয়ে পড়েছে ব্যক্তিগত। প্রাণ হারানো স্বজনদের স্বজনেরাও এখন কেবল শোকাহত। বাকি সবাই ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন স্বাভাবিক জীবনযাপনে। এটাই বোধহয় স্বাভাবিক!

গ্রিন কোজি কটেজের অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় মামলা হয়েছে। ঘটনার পরের দিনই পুলিশ বাদী হয়ে মামলা করেছে। আসামি অজ্ঞাতপরিচয়। এরইমধ্যে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী কয়েকজনকে আটক করেছে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তারা সিদ্ধান্ত নেবে, এদের মামলার আসামি করা হবে কি না! ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) রমনা জোনের সহকারী কমিশনার মোহাম্মদ সালমান ফার্সি মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে সংবাদমাধ্যমকে বলেছেন, 'বেইলি রোডের আগুনের ঘটনায় কয়েকজনকে আটক করা হয়েছে। যাচাই-বাছাই শেষে আগুনের ঘটনায় জড়িত ব্যক্তিদের মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে পাঠানো হবে।' পুলিশ এরই মধ্যে যাদের আটক করেছে, তাদের মধ্যে আছেন ওই ভবনে ‘চুমুক’ নামের একটি খাবার দোকানের দুই অংশীদার আনোয়ারুল হক ও শফিকুর রহমান এবং ‘কাচ্চি ভাই’ নামে খাবারের দোকানের ম্যানেজার জয়নুদ্দিন জিসান।

আটকদের মধ্যে এখন পর্যন্ত যারা, তাদের পরিচিতি দেখে তাৎক্ষণিক মনে হচ্ছে, প্রথম দুজন ছোট একটা খাবারের দোকানের দুই অংশীদার। অন্যজন ‘কাচ্চি ভাই’ নামের বড় একটা খাবারের চেইনশপের মোটে ম্যানেজার। এখন পর্যন্ত বড় দোকানের মালিকপক্ষ এবং বহুতল ভবনের মালিকপক্ষ পর্যন্ত পৌঁছার চেষ্টা করেনি পুলিশ।

প্রাপ্ত খবরে জানা যাচ্ছে, বহুতল এই বাণিজ্যিক ভবনে অনুমোদিত নকশা মেনে চলা হয়নি। ভবনের স্থপতি মুস্তাফা খালিদ পলাশ সংবাদমাধ্যমকে বলেছেন, 'মূলত অফিস হবে জেনে সেই কাঠামোতে ওই ভবনটি তৈরি করা হয়েছিল। অথচ ভবনটি ব্যবহার করা হয়েছে, রেস্তোরাঁ হিসেবে। রাজউক থেকে এ বিষয়ে কোনো অনুমোদন ছিল না। সে কারণে রেস্তোরাঁ হিসেবে ব্যবহারের সুযোগ-সুবিধা ছিল না ভবনটিতে।' তিনি নিজের দায় এড়াতে এখন কথাগুলো বলছেন কি না জানি না, তবে নির্মিত ভবনে যে ত্রুটি ছিল সেটা তার বক্তব্যে পরিস্কার।

ফায়ার সার্ভিসের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. মাইন উদ্দিন বলেছেন, 'ভবনটিতে কোনো অগ্নি-নিরাপত্তা ব্যবস্থা ছিল না। ঝুঁকিপূর্ণ জানিয়ে ভবন কর্তৃপক্ষকে তিনবার চিঠি দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।' রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (রাজউক) নগর পরিকল্পনাবিদ ও বিশদ অঞ্চল পরিকল্পনার (ড্যাপ) প্রকল্প পরিচালক আশরাফুল ইসলাম বলেছেন, 'বেইলি রোডের যে ভবনে আগুন লেগেছে, ওই ভবনের কেবল আটতলায় আবাসিকের অনুমোদন নেওয়া হয়েছে। বাকি এক থেকে সাততলা পর্যন্ত বাণিজ্যিক অনুমোদন নেওয়া হলেও সেখানে কেবল অফিস কক্ষ ব্যবহারের জন্য অনুমোদন ছিল। কিন্তু রেস্টুরেন্ট শোরুম বা অন্য কিছু করার জন্য অনুমোদন নেওয়া হয়নি।'

বেইলি রোডে গ্রিন কোজি কটেজ নামের ভবনে অগ্নিকাণ্ডে প্রাণহানির ঘটনার পর গণপূর্ত মন্ত্রণালয় ও রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (রাজউক) আরও বেশি সজাগ হওয়া উচিত ছিল বলে মন্তব্য করেছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বেইলি রোডের ভবনে অগ্নিনির্গমন পথ না থাকায় ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেছেন, ‘আমরা অগ্নিনির্বাপণ যন্ত্রের ব্যবস্থা করেছি। তবুও মানুষ এতটা সচেতন নয়। একটি বহুতল ভবনে আগুন দেখেছেন, যার কোনো অগ্নিনির্গমন পথ ব্যবস্থা নেই।’

৪৬ প্রাণহানি আর আরো অনেকের প্রাণ সংকটে থাকার এই সময়ে এসে এখন শোনা যাচ্ছে, ‘নাই-নাই’ ধ্বনি, ‘নিয়ম না মানার’ অভিযোগ! এই অভিযোগগুলো কোথায় ছিল আগে! কেন সময়মতো ব্যবস্থা নেয়নি কোনো কর্তৃপক্ষ! এখন তাদের অভিযোগগুলো স্রেফ দায় এড়ানোর অজুহাত নয় কি! ফায়ার সার্ভিস, রাজউক, সিটি করপোরেশন, গণপূর্ত মন্ত্রণালয়সহ যত বিভাগ/দপ্তর/ মন্ত্রণালয়/ প্রতিষ্ঠান বিবিধ অনুমোদন প্রক্রিয়ায় জড়িত থাকে, তারা কীভাবে দায়িত্ব এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে!

ফায়ার সার্ভিসের তথ্যের বরাত দিয়ে গণমাধ্যম জানাচ্ছে, গ্রিন কোজি কটেজের নিচতলায় স্যামসাং ও গেজেট অ্যান্ড গিয়ার নামে দুটি মুঠোফোন ও ইলেকট্রনিক সরঞ্জাম বিক্রির দোকান এবং শেখলিক নামের একটি ফলের রস বিক্রির দোকান ও চুমুক নামের একটি চা-কফি বিক্রির দোকান; দ্বিতীয়তলায় 'কাচ্চি ভাই' নামের রেস্তোরাঁ; তৃতীয়তলায় ইলিয়ন নামের পোশাকের ব্র্যান্ডের দোকান; চতুর্থতলায় খানাস ও ফুকো নামের দুটি রেস্তোরাঁ; পঞ্চমতলায় পিৎজা ইন নামের রেস্তোরাঁ; ষষ্ঠতলায় জেসটি ও স্ট্রিট ওভেন নামের দুটি রেস্তোরাঁ; ছাদের একাংশে অ্যামব্রোসিয়া নামের রেস্তোরাঁ এবং সপ্তমতলায় হাক্কাঢাকা নামের একটি রেস্তোরাঁ ছিল। ভবনে লাইনের গ্যাস সংযোগ ছিল না, বলে সবাই গ্যাসের সিলিন্ডার ব্যবহার করতো এবং সংশ্লিষ্ট সূত্র বলছে, কেবল দোতলা বাদে প্রতি তলার সিঁড়িসহ সবখানে গ্যাসের সিলিন্ডার রাখা ছিল।

চিকিৎসা সংশ্লিষ্টরা জানাচ্ছেন, আগুনে নয়, বেশির ভাগেরই মৃত্যু হয়েছে ধোঁয়ায় শ্বাসনালী পুড়ে গিয়ে। তাদের বক্তব্যে জানা যাচ্ছে, আগুনের ধোঁয়া বেরোনোর পথ ছিল না কাচঘেরা এই ভবনে। ফলে যারা ছাদে উঠতে পারেননি তাদের বেশির ভাগই মারা গেছেন অক্সিজেনের অভাবে। রাজধানীসহ বড় বড় শহরের বহুতল ভবনগুলোর বর্তমান যে অবস্থা, তার বেশির ভাগই কাচঘেরা। গ্রিন কোজি কটেজ ট্র্যাজেডি বলছে, অন্য কোথাও এমন অপ্রত্যাশিত কিছু ঘটলে একই পরিণতি অপেক্ষা করছে আমাদের জন্য।

বৃহস্পতিবার রাতের আগুনের এই ঘটনা নজিরবিহীন নয়। আগেও রাজধানীসহ দেশের নানা জায়গায় বারবার আগুন লেগেছে, অগণন লোকের প্রাণ গেছে। বারবার লাশ ঠেলেছে দেশ! বারবার শোকে কাতর হয়েছে মানুষ! নিমতলীর রাসায়নিক বোঝাই গুদামঘর, তাজরীন গার্মেন্টস, সেজান জুস কারখানা, বিএম ডিপো থেকে সীমা অক্সিজেন কিংবা বেইলি রোডের গ্রিন কোজি কটেজ; এর আগে-পরে-মধ্যে আরো অনেক ঘটনায় সংশ্লিষ্ট মানুষ ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের বেপরোয়া অবহেলায় অনেকের প্রাণ গেছে। তাদের কিছুই হয়নি। প্রতি ঘটনা শেষে তদন্ত কমিটি হয়েছে। তদন্ত কমিটি প্রতিবেদন দিয়েছে। প্রতিবেদনে কিছু সুপারিশ দিয়েছে। কিন্তু কোনো সুপারিশ প্রতিপালন হয়েছে বলে জানা নেই। লক্ষণীয় বিষয় হলো, যারা সুপারিশ দিয়ে থাকে, তারা আবার কোনো না কোনোভাবে কোনো কর্তৃপক্ষের। তারাও দায়িত্বশীল। প্রতিবেদনের পর আর কোথাও সেই সুপারিশ নিয়ে তাদের কথা বলতে দেখিনি আমরা।

আগুনের ধর্ম পোড়ানো। আগুনে মানুষ মরেছে, মরছে অগণন। কিন্তু এসব ঘটনাকে কেবল 'আগুনে মৃত্যু' বলে দায় এড়িয়ে যাওয়ার সুযোগ সামান্যই। পুরান ঢাকায় কেমিক্যাল, নয়া ঢাকায় গ্যাস সিলিন্ডার আর বায়ুরোধী কাচঘেরা ভবনগুলো প্রাণঘাতী হয়ে উঠেছে। এই অবস্থা সৃষ্টি করেছে মানুষ। এই অবস্থার পথ দেখাচ্ছে, মানুষের নেতৃত্বে থাকা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান/ বিভাগ/ দপ্তর। বেইলি রোডের আগুনে-ধোঁয়ায় মানুষ মারা গেছে, বলছে সবাই। কিন্তু সত্যি কি তাই! এমন মৃত্যুর জন্য দায়ী মূলত আগুন আর ধোঁয়া নয়, মানুষই! মানুষ পুড়িয়ে মেরেছে মানুষকে! আর মানুষ-হত্যার অবাধ সুযোগ দিয়ে গেছে অপরাপর মানুষই!

;

জেগে ঘুমিয়ে থাকা আর কতদিন?



বিশেষ সম্পাদকীয়
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

রাজধানীর পুরান ঢাকায় নিমতলীতে মর্মান্তিক অগ্নিকাণ্ডে বহু মানুষের হতাহতের পর এক পরিবারের বেঁচে যাওয়া দুই কন্যাকে তৎকালীন ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কন্যাসম স্নেহে আগলে নিয়ে তাদের বিয়ে পর্যন্ত দিয়েছিলেন। অগ্নিকাণ্ড রোধে সেই সময়ে কড়া পদক্ষেপের কথা শুনেছি আমরা। পুরান ঢাকা থেকে সকল রাসায়নিক গুদাম-কারখানা ঢাকার বাইরে সরিয়ে নিতে সরকারি নির্দেশনার বাস্তবায়ন না হওয়ার মাঝেই চুরিহাট্টায় ফের আগুনে বহু মানুষের প্রাণপ্রদীপ নিভে যাওয়া দেখতে হয়েছে আমাদের। অসংখ্য অগ্নিকাণ্ডে বিপুল মৃত্যুর শোক কাটিয়ে উঠতে না উঠতে এরই মাঝে বেইলে রোডের গ্রিন কোজি কটেজে আগুনে বিপুল সংখ্যক মানুষের মৃত্যুতে ফের চিরচেনা দৃশ্যপটই আমরা দেখতে পাচ্ছি। একদিকে বহু পরিবারের স্বজনদের বুক ফাটা আর্তনাদ, অন্যদিকে অগ্নিকাণ্ড প্রতিরোধে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষগুলোর একে অপরের ওপর দায় চাপানোর প্রতিযোগিতা! পুড়ে যাওয়া মানুষগুলোর লাশের উপর দাঁড়িয়েই আমরা দেখব তদন্ত কমিটি গঠন ও ভবিষ্যতের জন্য আরও কিছু আশ্বাস বাণী।

সহকর্মী কবির য়াহমদের ‘তোমার মৃত্যু নিছক সংখ্যা সকলে নিয়েছি মেনে’ শীর্ষক মর্মস্পর্শী লেখাটি পড়ে সত্যিই মনে হচ্ছে এসব মৃত্যুর মিছিল কেবলই একটি ‘সংখ্যা’ মাত্র। নইলে বেইলি রোডে দুর্ঘটনা কবলিত ভবনটির সিড়ি ব্লক করে সেখানে সিলিন্ডার রাখার মতো মৃত্যুফাঁদ দেখার মতো কি কেউ ছিল না? প্রতিটি দুর্ঘটনার পর যেসব কারণ আমরা জানতে পারি, দূর্ঘটনার পূর্বে সেসবের প্রতিকার করার কি কোন কর্তৃপক্ষ নেই? এ সংক্রান্ত আইনের প্রয়োগ করার জন্য সংশ্লিষ্টরা সব সময়েই কি ঘুমিয়ে থাকেন? তাদের সেই ‘জেগে ঘুমিয়ে থাকা’ ঘুম কবে ভাঙবে, তা আমরা জানি না। কিন্তু প্রতিটি ঘটনার মত গতকালের মর্মান্তিক এই অগ্নিকাণ্ডের পর আবারও প্রবলভাবে একটি কথা ভেতর থেকে উচ্চারিত হচ্ছে-এই ভাবে আর চলতে পারে না, চলতে দেওয়া উচিত নয়।

সাম্প্রতিক দশকে অসংখ্য দুর্ঘটনার বেদনা আমরা সঞ্চয় করেছি। গাজীপুর চৌরাস্তায় গরিব অ্যান্ড গরিব কারখানা, সাভারের নিশ্চিন্তপুরে তাজরীন গার্মেন্টস, পুরান ঢাকার নিমতলী, চুরিহাট্টা, চট্টগ্রামের কন্টেনেইনার ডিপোর অগ্নিকাণ্ডে বিপুল সংখ্যক মানুষের মৃত্যুর পরিসংখ্যান দেওয়া যাবে। ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অধিদফতরের তথ্য অনুযায়ী, ২০০৯ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত ১০ বছরে সারাদেশে দেড় লাখ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় একহাজার ৪৯০ জনের মৃত্যু এবং ৬ হাজার ৯৪১ জন দগ্ধ হয়েছে। ২০১৯ সালের জানুয়ারি থেকে নভেম্বর পর্যন্ত সারাদেশে ২২ হাজার ২৮৩টি অগ্নিকাণ্ডে ২ হাজার ১৩৮ জনের মৃত্যুর তথ্য জানা যাচ্ছে। গেল ৫ বছরের অগ্নি দুর্ঘটনায় মৃত্যুর সংখ্যাও কম নয়।

এই অগ্নি দুর্ঘটনা প্রতিরোধে সংশ্লিষ্ট দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়, ফায়ার সার্ভিস সিভিল ডিফেন্স, সিটি করপোরেশন, রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানগুলো বছরজুড়ে কি পদক্ষেপ গ্রহণ করে তা আমরা জানি না। কিন্তু কোন দুর্ঘটনা সংঘটিত হলেই প্রত্যেককে আমরা সরব হতে দেখি। তারা পরস্পর পরস্পরকে দায় চাপাতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন। বছরজুড়ে তদারকি ও আইন অমান্যে দায়ীদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়ার তৎপরতা দেখা যায় না। উল্টো কত রকমের ফন্দিফিকির করে ঘুষ দিয়ে ফায়ার সার্ভিসের ছাড়পত্র নিতে হয়, সেই খবরই বেশি মাত্রায় সামনে আসে।

সংশ্লিষ্টদের কাছে মানুষের প্রাণের মূল্য কতটা কম, যে অগ্নি সুরক্ষার মতো গুরুতর বিষয়েও কর্মকর্তাদের ‘ম্যানেজ’ করা যায়! এটি যে কিছু সংখ্যক মানুষ, কিছু সময় ধরে এটি করে আসছেন তা নয়। গণমাধ্যমের অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে, নিয়ম-নীতির শৈথিল্য দেখানোর এই চক্রে বড় সিন্ডিকেট রয়েছে। যাঁরা আইনকানুন মেনে চলতে চান, তাদের জন্যও এই সিন্ডিকেট বিরাট বাধা হয়ে দাঁড়ায়। এবং সকলেই একপর্যায়ে অনিয়মকেই নিয়ম হিসেবে তা মেনে নেন। অগ্নিকাণ্ড প্রতিরোধে মাঝেমধ্যে কিছু মহড়ার আইওয়াশ আমরা দেখি যা নিতান্তই লোক দেখানো। বিপুল সংখ্যক ভবন অগ্নিকাণ্ডের ঝুঁকির মধ্যে রেখে এই আইওয়াশে আমরা যে তিমিরে ছিলাম সেই তিমিরেই রয়ে যাই। তাই সংশ্লিষ্টদের ‘জেগে ঘুমিয়ে থাকা’র এই প্রবণতা যদি সমূলে উৎপাটন করা না যায় তবে আমরা আগামীতে আরও বড় অগ্নিকাণ্ড হয়ত দেখব। গণমাধ্যমকর্মী আর উদ্ধারকারীরা ব্যস্ত থাকবেন নিহতের সংখ্যা মেলাতে। এই অসহায়ত্ব কি ভাষায় বর্ণনা করা যায়, তা আমাদের জানা নেই। রাষ্ট্র কি সেই সদুত্তর দেবে? 

;