বাড়ল ডিজেল-কেরোসিন -অকটেন-পেট্রোলের দাম



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ডিপোর ৪০ কিলোমিটারের মধ্যে ডিজেল ও কেরোসিন ১১৪ টাকা লিটার, অকটেন ১৩৫ টাকা, পেট্টোল ১৩০ টাকা লিটার নির্ধারণ করা হয়েছে। পুনঃনির্ধারণ মূল্য আজ শুক্রবার (৫ আগস্ট) রাত ১২টার পর থেকে কার্যকর হবে।

শুক্রবার (০৫ আগস্ট) বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। লিটার প্রতি ডিজেল কেরোসিনে ৩৪ টাকা, অকেটেন ৪৬ টাকা ও পেট্রোল বাড়ল ৪৪ টাকা হারে।

এতে বলা হয়েছে, বর্তমান বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের মূল্য বাংলাদেশের তুলনায় অনেক বেশি হওয়ার কারণে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশন (বিপিসি), ইস্টার্ন রিফাইনারি লিমিটেড (ই আর এল) পরিশোধিত এবং আমদানিকৃত ডিজেল, কেরোসিন, অকটেন ও পেট্টোলের মূল্য সমন্বয় করা হয়েছে।

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, জনবান্ধব আওয়ামী লীগ সরকার সব সময় আমজনতার স্বস্তি ও স্বাচ্ছন্দ্য বিবেচনা করে সিদ্ধান্ত নেয়।  যতদিন সম্ভব ছিল ততদিন সরকার জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধির চিন্তা করে নাই। অবস্থার প্রেক্ষিতে অনেকটা নিরূপায় হয়েই কিছুটা এডজাস্টমেন্টে যেতে হচ্ছে। ২০১৬ সালের এপ্রিল মাসে সরকার জ্বালানি তেলের মূল্য কমিয়ে দিয়েছিল। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে সে অনুযায়ী জ্বালানি তেলের মূল্য পুনঃবিবেচনা করা হবে।

বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের ঊর্ধ্বগতির কারণে পার্শ্ববর্তী দেশসহ বিভিন্ন দেশে নিয়মিত তেলের মূল্য সমন্বয় করে থাকে। চলতি বছরের ২২ মে ভারতের কলকাতায় ডিজেলের মূল্য প্রতি লিটার ৯২.৭৬ রুপি এবং পেট্রোল লিটার প্রতি ১০৬.০৩ রুপি নির্ধারণ করেছে যা অদ্যাবধি বিদ্যমান রয়েছে। এই মূল্য বাংলাদেশি টাকায় যথাক্রমে ১১৪.০৯ টাকা এবং ১৩০.৪২ টাকা (১ রুপি= গড় ১.২৩ টাকা)। অর্থাৎ বাংলাদেশে কলকাতার তুলনায় ডিজেলের মূল্য লিটার প্রতি ৩৪.০৯ এবং পেট্টোল লিটার প্রতি ৪৪.৪২ টাকা কমে বিক্রয় হচ্ছিল। মূল্য কম থাকায় তেল পাচার হওয়ার আশঙ্কা থেকেও জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধি পাওয়া সময়ের দাবি।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ পেট্টোলিয়াম করপোরেশন বিগত ছয় মাসে (ফেব্রুয়ারি ২২ থেকে জুলাই ২০২২ পর্যন্ত) জ্বালানি তেল বিক্রয়ে (সকল পণ্য) ৮০১৪.৫১ কোটি টাকা লোকসান দিয়েছে। বর্তমানে, আন্তর্জাতিক তেলের বাজার পরিস্থিতির কারণে বিপিসির আমদানি কার্যক্রম স্বাভাবিক রাখাতে যৌক্তিক মূল্য সমন্বয় অপরিহার্য হয়ে পড়েছে।

মজুরি ১২০ থেকে বাড়িয়ে ৩০০ টাকার দাবিতে চা শ্রমিকদের কর্মবিরতি



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, সিলেট
চা শ্রমিকদের কর্মবিরতি

চা শ্রমিকদের কর্মবিরতি

  • Font increase
  • Font Decrease

দৈনিক মজুরি ১২০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৩০০ টাকা করার দাবিতে সারা দেশের চা বাগানগুলোতে চলছে শ্রমিকদের কর্মবিরতি। এর ফলে মারাত্মক হুমকির মুখে পড়েছে চা শিল্প।

সূত্র জানায়, বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের উদ্যোগে সারা দেশের চা বাগানগুলোতে গত মঙ্গলবার (৯ আগস্ট) অনুষ্ঠিত এই কর্মবিরতি শুরুতে দৈনিক সকাল ৯টা থেকে ১১টা পর্যন্ত ২ ঘণ্টা করে ছিল। শনিবার (১৩ আগস্ট) থেকে তা পূর্ণদিবস করা হয়েছে। কিন্তু তাতেও চা বাগানের মালিক পক্ষের কার্যকর পদক্ষেপ না নেওয়ায় শনিবার (১৩ আগস্ট) থেকে সারা দেশের ২৩২টি চা বাগানের শ্রমিকরা দিনব্যাপী পালন করেন।

মঙ্গলবার (১৬ আগস্ট) দেশের প্রতিটি চা বাগানে এই কর্মবিরতি চলে। এসব কর্মসূচির মধ্যে ছিল মানববন্ধন, বিক্ষোভ সমাবেশ, মিছিল, অনতিদূরে স্লোগান সহকারে মিছিল, নিজ হাতে লিখিত নানান আকৃতির ফেস্টুনে দাবি তুলে ধরে প্রদর্শন ইত্যাদি।

গত বৃহস্পতিবার (১১ আগস্ট) গভীর রাত পর্যন্ত শ্রীমঙ্গলে অবস্থিত বিভাগীয় শ্রম অধিদফতরে চা শ্রমিক ১০ নেতার সঙ্গে শ্রম দফতরের আলোচনা ব্যর্থ হলে শ্রমিক ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক নৃপেন পাল এ কর্মবিরতির ঘোষণা দেন।

বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় কমিটির কোষাধ্যক্ষ এবং শ্রমিকনেতা পরেশ কালেন্দি বলেন, মঙ্গলবার (১৬ আগস্ট) কর্মবিরতির ৫ম দিন। রোববার এবং সোমবার দুদিন এই কর্মবিরতি বন্ধ থাকার পর আজ থেকে তা সিলেট-চট্টগ্রামসহ দেশের ২৩২টি চা বাগানে একযোগে পালিত হয়েছে। কোথাও কোথাও মানববন্ধন, বিক্ষোভ মিছিল, সমাবেশ করাসহ বিভিন্ন জায়গায় রাস্তাঘাটে অবস্থান নেন চা শ্রমিকরা। আমাদের কিছুই করার নেই, আমাদের পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে। আমাদের এক দাবি – দৈনিক মজুরি ১২০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৩০০ টাকায় উন্নিত করতে হবে।

আমরা বিভিন্ন চা বাগানে গিয়ে শ্রমিকদের সাথে কথা বলেছি। প্রতিটি চা বাগানের শ্রমিকরা তাদের নায্য অধিকার আদায়ে ফুঁসে উঠেছে। এই দাসত্ব জীবনে তাদের অনেক কষ্ট মালিক পক্ষের থেকে আমরা মজুরি বৃদ্ধির ব্যাপারে কোন আশ্বাস পাইনি বলে তিনি জানান।

পরেশ আরও বলেন, চা শ্রমিকদের দৈনিক মজুরি ৩০০ টাকা দেওয়ার জন্য আমরা দুই বছর আগ থেকে দাবি জানিয়ে আসছি। কিন্তু ১৯ মাস গত হয়ে গেলেও দ্বিপাক্ষিক চুক্তি অনুযায়ী না গিয়ে মালিকপক্ষ মজুরি বৃদ্ধির ব্যাপারে গড়িমসি করছে। তারা মাত্র ১৪ টাকা বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছে। এই দ্রব্যমূল্যের ক্রমাগত ঊর্ধ্বগতি বাজারে মাত্র ১৪ টাকা দিয়ে চা শ্রমিকদের আন্দোলন বন্ধ করা যাবে না।

বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক নৃপেন পাল বলেন, শ্রম অধিদফতর আলোচনার নামে সময়ক্ষেপণ করেছে। তারা আগামী ২৯ আগস্ট ত্রিপক্ষীয় আলোচনার সময় চেয়েছে। কিন্তু আমরা তাতে রাজি হইনি। প্রয়োজনে আমরা আরও কঠোর কর্মসূচিতে যেতে বাধ্য হবো। দাবিপূরণ না হওয়া পর্যন্ত সব বাগানে কাজ বন্ধ থাকবে। কাছাকাছি বাগানগুলো একত্রিত হয়ে আন্দোলনে নামবে। প্রয়োজনে সড়ক অবরোধ করা হবে। মালিক পক্ষের টালবাহানা আর আমরা মানবো না। এখন শ্রমিকদের আন্দোলন কেউ ঠেকাতে পারবেনা।

মালিকপক্ষের সংগঠন বাংলাদেশীয় চা সংসদের আহ্বায়ক তাহসিন আহমেদ বলেন, তাদের অযৌক্তিক আন্দোলনে এই চায়ের ভরা মৌসুমে চা উৎপাদন বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। চা-শ্রমিকদের সঙ্গে বাগান কর্তৃপক্ষের কোন ধরনের ঝামেলা নেই, অথচ তারা অযৌক্তিকভাবে আন্দোলন করছেন। তাদের দাবি নিয়ে আলোচনা চলমান থাকাকালীন সময়ে তারা হঠাৎ করে এ কর্মবিরতির ঘোষণা দিয়েছে, যা শ্রম আইনের পরিপন্থী বলে জানান তিনি।

;

ঝুঁকিতে দেশীয় চা শিল্পের প্রবৃদ্ধি: টি অ্যাসোসিয়েশন



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ঝুঁকিতে দেশীয় চা শিল্পের প্রবৃদ্ধি

ঝুঁকিতে দেশীয় চা শিল্পের প্রবৃদ্ধি

  • Font increase
  • Font Decrease

শ্রমিক কল্যাণমুখী বাংলাদেশের চা শিল্প যখন বিশ্ববাজারে প্রভাব বিস্তার করছে তখন আন্দোলনের নামে ৩ হাজার ৫০০ কোটি টাকার বাজারকে ঝুঁকিতে ফেলছে বলে আশঙ্কা করছেন উদ্যোক্তারা।

চা বাগানে শ্রমের দৈনিক ৩০০ টাকা মজুরির দাবি করা হলেও একজন শ্রমিক দৈনিক প্রায় ৪০০ টাকা সমপরিমাণ সুবিধা পেয়ে থাকেন বলে জানিয়ে বাংলাদেশ টি অ্যাসোসিয়েশন।

প্রত্যক্ষ সুবিধার মধ্যে দৈনিক নগদ মজুরি ছাড়াও ওভারটাইম, বার্ষিক ছুটি ভাতা, উৎসব ছুটি ভাতা, অসুস্থজনিত ছুটি ভাতা, ভবিষ্যৎ তহবিল ভাতা, কাজে উপস্থিতি ভাতা, ভবিষ্যৎ তহবিলের ওপর প্রশাসনিক ভাতার মাধ্যমে সর্বমোট গড়ে দৈনিক মজুরির প্রায় দ্বিগুণ নগদ অর্থ প্রদান করা হয় বলে মঙ্গলবার (১৬ আগস্ট) এক বিবৃতি দেয় বাংলাদেশ টি অ্যাসোসিয়েশন।

উদ্যোক্তারা বলছেন, শ্রমিকদের সামাজিক উন্নয়ন ও নাগরিক সুবিধা নিশ্চিত করার জন্য দৈনিক ১৭৫ টাকার বিভিন্ন রকম সুবিধা প্রদান করা হচ্ছে।বাংলাদেশে বর্তমানে ১৬৮টি বাণিজ্যিক চা উৎপাদনের বাগান কাজ করছে, যেখানে ১.৫ লাখেরও বেশি লোকের কর্মসংস্থান রয়েছে। উপরন্তু, বাংলাদেশ বিশ্বের ৩ শতাংশ চা উৎপাদন করে। ২০২১ সালের তথ্য অনুযায়ী বাংলাদেশি চায়ের বাজারের মূল্য প্রায় ৩ হাজার ৫০০ কোটি টাকা জিডিপিতে এই শিল্পের অবদান প্রায় ১ শতাংশ।

আন্দোলনের কারণে সিলেট ও চট্টগ্রামের ১৬৮ চা বাগানে থেকে দৈনিক ২০ কোটি টাকারও বেশি মূল্যমানের চা পাতা নষ্ট হচ্ছে বলে দাবি বাগান মালিকদের।খাদ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ভর্তুকির মাধ্যমে ২ টাকা কেজি দরে মাস প্রতি শ্রমিককে প্রতি মাসে প্রতি ৪২.৪৬ কেজি চাল অথবা গম রেশন প্রদান করা হয়। তাছাড়া শ্রমিকদের খাদ্য নিরাপত্তা আরও সুদৃঢ় করার লক্ষ্যে প্রায় ৯৪ হাজার ২০০ বিঘা জমি চাষাবাদের জন্য বন্টন করা হয়েছে।

১৯০ বছরের পুরোনো শিল্প হিসেবে বাংলাদেশের অন্যান্য যেকোনো শিল্পের তুলনায় অনেক আগে থেকেই শ্রমিক আইন অনুসরণ করা হচ্ছে প্রতিটি চা বাগানে। শ্রমিকদের মাতৃত্বকালীন স্বাস্থ্য নিশ্চিতে ১৬ সপ্তাহের মজুরিসহ মাতৃত্বকালীন ছুটির পাচ্ছে নারী শ্রমিকরা।

একজন শ্রমিকের বসত বাড়ির জন্য পরিবার প্রতি ১ হাজার ৫৫১ স্কয়ার ফিট করে বাড়িসহ সর্বমোট ৫,৮০০ বিঘা জায়গা প্রদান করা হয়েছে। শ্রমিকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ২টি বড় গ্রুপের ও ৮৪টি বাগানের হাসপাতালে ৭২১ শয্যার ব্যবস্থা, ১৫৫টি ডিসপেনসার সহ সর্বমোট ৮৯১ জন মেডিকেল স্টাফ নিয়োজিত আছেন।

শ্রমিকদের সন্তানদের সুশিক্ষা নিশ্চিতকরণে প্রাথমিক, জুনিয়র ও উচ্চ বিদ্যালয় মাইল সর্বমোট ৭৬৮টি বিদ্যালয় স্থাপন করা হয়েছে যেখানে ১ হাজার ২৩২ শিক্ষক দ্বারা বর্তমানে ৪৪ হাজার ১৭১ জন শিক্ষার্থী বিনামূল্যে পড়ালেখার সুযোগ পাচ্ছে।

এছাড়াও অবসরপ্রাপ্ত শ্রমিকের ভাতা, বিভিন্ন রকম শ্রমিক কল্যাণ সূচি যেমন বিশুদ্ধ খাবার পানি, ম্যালেরিয়া প্রতিষেধক, স্বাস্থ্যসম্মত টয়লেট, পূজা, বিনোদন প্রভৃতি কর্মকাণ্ডে সামগ্রিক আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়ে থাকে। তাছাড়াও, চা শ্রমিকের অবসরের পর তার পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা চাকরিতে নিয়োগ পেয়ে থাকে, যা একজন চা শ্রমিকের চুক্তিপত্রে উল্লেখ থাকে।

উল্লেখ্য যে বিগত ২০১২ সাল থেকে ১০ বছরে চায়ের নিলাম মূল্যের প্রবৃদ্ধি যথাক্রমে শূন্য দশমিক ১৬ হারে বৃদ্ধি পেলেও চা শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধি করা হয় ৯৪.২০ শতাংশ ।

;

গ্যাস চুরি ঠেকাতে জোনভিত্তিক মিটার স্থাপন সম্পন্ন



সেরাজুল ইসলাম সিরাজ, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

অবশেষে গ্যাস চুরি ঠেকাতে প্রত্যেকটি জোনে মিটার বসানোর কাজ শেষ হয়েছে। চলতি সপ্তাহ থেকেই এগুলো চালু করা হবে বলে বার্তা২৪.কম-কে নিশ্চিত করেছেন পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান নাজমুল আহসান।

মিটার চালু হলে কোন জোনে সিস্টেম লস কত তা সহজেই নিশ্চিত হওয়া যাবে। এতে করে সংশ্লিষ্ট জোনগুলোর ওপর নজরদারি বাড়ানো এবং সিস্টেমলস কমিয়ে আনা সম্ভব হবে বলে মনে করছে সংশ্লিষ্টরা।

আন্তর্জাতিকভাবে সিস্টেম লস ২ শতাংশের নিচে থাকলে তাকে আদর্শ বিবেচনা করা হয়। কিন্তু বাংলাদেশে গ্যাস খাতে সিস্টেম লস ১০ শতাংশের উপরে। যদিও কাগজে কলমে গত জুলাই-ডিসেম্বর সিস্টেম লস দেখানো হয়েছে মাত্র সাড়ে ৮ শতাংশ। এই হিসেবের মধ্যে বিশাল ফাঁকি রয়েছে। আবাসিক ও শিল্পে ২৪ ঘণ্টার পরিবর্তে কম সময়ে গ্যাস দিয়েও ২৪ ঘণ্টার বিল আদায়সহ নানাভাবে গরমিল করার অভিযোগ রয়েছে।

বাংলাদেশ বর্তমানে দৈনিক কমবেশি ৩ হাজার মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস সরবরাহ করা হচ্ছে। (জুলাই-ডিসেম্বর) হিসেবেও সিস্টেম লসের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ২৫৫ মিলিয়ন ঘনফুট। প্রকৃত সিস্টেম লস বাদ দিলে দৈনিক চুরি যাওয়া গ্যাসের পরিমাণ হচ্ছে ১৮০ থেকে ২০০ মিলিয়ন ঘনফুট। মাসে প্রায় ৬ হাজার মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস চুরি হচ্ছে যার স্পর্ট মার্কেটের এলএনজির মূল্যের (ঘনমিটার ৫০ টাকা আমদানি শুল্কসহ) সঙ্গে তুলনা করলে ৬ শতাংশ গ্যাসের মূল্য দাঁড়ায় ৩৪৫ কোটিতে। যা বছরে ১ লাখ ৩ হাজার ৫’শ কোটি টাকার মতো।

বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের চেয়ারম্যান আব্দুল জলিল গণশুনানিতে বলেছেন, গ্যাসের আদর্শ সিস্টেম লস হচ্ছে ২ শতাংশের নিচে। বিশ্বের কোথাও ২ শতাংশের উপরে সিস্টেম লস নেই। সাড়ে ৮ শতাংশ সিস্টেম লস গ্রহণযোগ্য নয়। এই মাত্রা গ্রহণযোগ্য পর্যায়ে নামিয়ে আনতে হবে।

এই চুরির পরিমাণটি সরল অংকের হিসেবে। আরেকটি অংক রয়েছে, আবাসিকের মিটারবিহীন ৩৪ লাখ গ্রাহক। মিটার বিহীন গ্রাহকরা মাসে ৪০ ঘনমিটারের নিচে ব্যবহার করলেও প্রতিমাসে একচুলা ও দুই চুলা যথাক্রমে ৫৫ ও ৬০ ঘনমিটারের বিল দিয়ে আসছে।

বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ ২০১৬ সালে জাতীয় সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে বলেছিলেন, প্রি-পেইড মিটার স্থাপনের পাইলট প্রকল্পের রেজাল্ট খুব ভালো। দুই চুলায় অনেক গ্যাস সাশ্রয় হচ্ছে।

জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের তথ্য মতে দেশে বৈধ আবাসিক গ্রাহকের সংখ্যা প্রায় ৩৮ লাখ গ্রাহকের মধ্যে ৩ লাখ ৬৮ হাজার প্রিপেইড মিটার ব্যবহার করছে। অর্থাৎ প্রতিমাসে সাড়ে ৩৪ লাখ গ্রাহকের পকেট কাটা হচ্ছে।

এই চুরির প্রায় পুরোটাই বিতরণ সংস্থা তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি অধিভুক্ত এলাকায়। কোম্পানিটি চাপের মুখে জোনগুলোকে পৃথক করার উদ্যোগ নিতে বাধ্য হয়। সেই কাজ চলছিল ঢিমেতালে। পেট্রোবাংলার বর্তমান চেয়ারম্যান নাজমুল আহসান যোগদানের পর বিষয়টিতে গতি পায়। এখন চোর ধরা সহজ হবে বলে মনে করছে সংশ্লিষ্টরা। এতে এক ধরনের প্রতিযোগিতাও তৈরি হবে, নিজের সিস্টেম লস কমিয়ে আনার।

পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান নাজমুল আহসান বার্তা২৪.কম-কে বলেন, মিটারগুলো বসানোর কাজ শেষ হয়েছে। এখন আমরা বুঝতে পারবো কোন অঞ্চলে লোকসান বেশি সেভাবে কর্মসূচি নেওয়া যাবে। সিস্টেম লসের মধ্যে বড় একটি অংক রয়েছে চুরি। আমরা সেই চুরি ঠেকানোর জন্য ব্যাপক কাজ করে যাচ্ছি। গত অর্থবছরে অবৈধ লাইন ও সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার জন্য যে লক্ষ্যমাত্রা ছিল। আমরা মোবাইল কোট পরিচালনা করেছি ৫০০ শতাংশ। অতএব বুঝতেই পারছেন আমরা কিভাবে কাজ করছি।

কবে নাগাদ জোনের মিটারগুলো চালু করা হবে এমন প্রশ্নের জবাবে পেট্রোবাংলা চেয়ারম্যান বলেন, আমি নির্দিষ্ট করে তারিখ বলতে চাচ্ছি না, তবে শিগগিরই। আমরা প্রয়োজনের চেয়ে একদিন বেশি সময়ক্ষেপণ করতে চাই না।

সম্প্রতি গ্যাসের দাম বেড়েছে। গ্যাসের দাম বৃদ্ধির যুক্তি হিসেবে পেট্রোবাংলা বলেছিল আন্তর্জাতিক বাজারে এলএনজির দাম বেড়ে গেছে। স্পর্ট মার্কেট থেকে চড়া দরে এলএনজি আমদানি করতে হচ্ছে। তাদের তথ্যে দেখা গেছে গত অর্থবছরে গড়ে দৈনিক ৯৯ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস আমদানি করা হয়েছে। সে হিসেবে স্পর্ট মার্কেট থেকে আমদানি করা গ্যাসের পরিমাণ মাত্র ৩ শতাংশ। এ জন্য ১১৭ শতাংশ দাম বৃদ্ধির প্রস্তাব করা হয়।

ক্যাবের জ্বালানি বিষয়ক উপদেষ্টা অধ্যাপক শামসুল আলম বার্তা২৪.কম-কে বলেছেন, আমরা মনে করে চুরি ঠেকানো গেলে স্পর্ট মার্কেট থেকে গ্য্যাস আমদানির প্রয়োজন পড়ে না। তখন গ্যাসের দাম বাড়ানোর বদলে কমানো যায়। আমরা হিসেব করে দেখিয়ে দিয়েছি গ্যাসের দাম ১৬ পয়সা কমানো যায়।

গ্যাস বিতরণের সবচেয়ে বড় রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি। কোম্পানিটির এমন সব দুর্নীতি সামনে এসেছে যা পুরোপুরি অভিনব। বৈধ সংযোগ বন্ধ, তখন সংযোগ দেওয়া হয়েছে, সেসব গ্রাহকের আস্থা সৃষ্টি করার জন্য কাগজপত্র তুলে দেওয়া হয় তাদের হাতে। যথারীতি গ্রাহকরা বিলও জমা করেন। ২০১২ সালে এ রকম পে-স্লিপের মাধ্যমে ব্যাংকে ১০০ কোটি টাকা জমা পড়ে। তিতাসের আবাসিক গ্রাহকেরা যেসব ব্যাংকে প্রতি মাসে গ্যাসের বিল জমা দেন, সেই ব্যাংকগুলো থেকে ওই বাড়তি টাকার হিসাব কোম্পানির কেন্দ্রীয় হিসাব বিভাগে আসে। কিন্তু এই টাকা তিতাসের হিসাবে জমা হচ্ছিল না (পোস্টিং না হওয়া) তাই বেকায়দায় পড়ে তিতাস। আর তখনেই বিষয়টি সামনে চলে এলে তখন বিষয়টি বেশ চাঞ্চল্য সৃষ্টি করেছিল।

এরপর আরেকটি অভিনব ঘটনা ঘটে, গভীর রাতে সার্ভারে ঢুকে অবৈধ গ্রাহককে বৈধ করার। রাতের আধারে কোম্পানির সার্ভারে এন্ট্রি দিয়ে বৈধ করার অভিযোগে ৮ কর্মকর্তা-কর্মচারীর নামে মামলা করে তিতাস। প্রাথমিকভাবে এক রাতেই ১ হাজার ২৪৭টি সংযোগ বৈধ করে দেওয়ার অভিযোগে রাজধানীর ভাটারা থানায় মামলাটি (৭ সেপ্টেম্বর ২০২০) দায়ের করা হয়।

দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) তিতাসে ব্যাপক দুর্নীতির প্রমাণ পেয়েছে। ‍দুদক গ্যাস-সংযোগে নির্দিষ্ট নীতিমালা অনুসরণ না করা, অবৈধ সংযোগ দেওয়া, মিটার টেম্পারিং করা, কম গ্যাস সরবরাহ করেও সিস্টেম লস দেখানো।

;

বিকাশ-বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের বইপড়া কর্মসূচির সম্প্রসারণ



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
বিকাশ-বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের বইপড়া কর্মসূচির সম্প্রসারণ

বিকাশ-বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের বইপড়া কর্মসূচির সম্প্রসারণ

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশের অন্যান্য এলাকার মতো রাজশাহী, নেত্রকোনা ও মোংলায় শিক্ষার্থীদের বই পড়ার অভ্যস্ততা তৈরি করতে বিকাশ ও বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের যৌথ উদ্যোগে বইপড়া কর্মসূচির সম্প্রসারণ করা হয়েছে।

আলোকিত মানুষ গড়ার লক্ষ্যে রাজশাহীর প্রমথনাথ সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, লক্ষ্মীপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও আল হিকমাহ মুসলিম একাডেমি, নেত্রকোনার নিশ্চিন্তপুর উচ্চ বিদ্যালয়, প্রেমনগর ছালিপুরা উচ্চ বিদ্যালয়, চল্লিশ কাহনিয়া হাফিজ উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়, বারহাট্টা সি কে পি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় ও বারহাট্টা পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, মোংলার নৌবাহিনী স্কুল ও কলেজ, হলদিবুনিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও মোংলা বন্দর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে পৃথক পৃথক অনুষ্ঠানে দেশের সবচেয়ে বড় মোবাইল আর্থিক সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান বিকাশ ও আলোকিত মানুষ গড়ার প্রতিষ্ঠান বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের যৌথ উদ্যোগে শিক্ষার্থীদের হাতে বই তুলে দেওয়া হয়।

রাজশাহীতে শিক্ষার্থীদের মাঝে বই তুলে দেন বিভাগীয় কমিশনার জি এস এম জাফরউল্লাহ, অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার এ.এন.এম মঈনুল ইসলাম, রাজশাহীর জেলা প্রশাসক আব্দুল জলিল, বিকাশের চিফ এক্সটার্নাল এন্ড করপোরেট অ্যাফেয়ার্স অফিসার মেজর জেনারেল শেখ মো. মনিরুল ইসলাম (অব.) ও বিশ্ব সাহিত্য কেন্দ্রের পরিচালক শামীম আল মামুন।

মোংলায় বই তুলে দেন সোশ্যাল ডেভেলপমেন্ট ফাউণ্ডেশনের (এসডিএফ) চেয়ারম্যান, নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের অবসরপ্রাপ্ত সিনিয়র সচিব ও বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি মো. আবদুস সামাদ, বিকাশের হেড অব রেগুলেটরি এন্ড কর্পোরেট অ্যাফেয়ার্স হুমায়ুন কবির ও অধিনায়ক, বানৌজা মোংলা, ক্যাপ্টেন এম আলী আকবার সিরাজী।

নেত্রকোনায় শিক্ষার্থীদের হাতে বই তুলে দেন বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব খায়রুল আলম সবুজ, বিকাশের রেগুলেটরি এন্ড করপোরেট অ্যাফেয়ার্স বিভাগের জেনারেল ম্যানেজার সায়মা আহসান ও বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের যুগ্ম-পরিচালক মেসবাহ উদ্দিন আহমেদ সুমন।

সারাদেশের শিক্ষার্থীদের মাঝে বই পড়ার অভ্যাস গড়ে তুলতে দেশের দায়িত্বশীল করপোরেট প্রতিষ্ঠান বিকাশ ২০১৪ সাল থেকে বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের এই বইপড়া কর্মসূচির সাথে যুক্ত আছে। বিকাশ এ পর্যন্ত এ বছরের ৪০ হাজার সহ আড়াই লাখের বেশি বই দিয়েছে এই কার্যক্রমে। সারাদেশের ৪০০টি স্কুলে বইগুলো বিতরণ কর্মসূচি চলমান রয়েছে।

দেশে আলোকিত মানুষ গড়ার স্বপ্ন নিয়ে বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র গত ৪৪ বছর ধরে সারাদেশে স্কুল ও কলেজের শিক্ষার্থীদের জন্য নানাবিধ উৎকর্ষ কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। দেশভিত্তিক উৎকর্ষ কার্যক্রম এর মধ্যে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য কর্মসূচি। বর্তমানে সারাদেশে এই কর্মসূচির আওতায় সারাদেশে প্রায় ১৫০০ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ২ লাখ শিক্ষার্থী রয়েছে।

;