অবশেষে কেজিডিসিএল এমডিকে অপসারণ করা হয়েছে



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
কেজিডিসিএল এমডিকে

কেজিডিসিএল এমডিকে

  • Font increase
  • Font Decrease

অবশেষে কেজিডিসিএল’র (কর্ণফুলী গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড) দুর্নীতিবাজ ব্যবস্থাপনা পরিচালক এমএ মাজেদকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। রাষ্ট্রীয় ওই কোম্পানিটির ব্যবস্থাপনা পরিচালকের চলতি দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে প্রকৌশলী রফিকুল ইসলামকে।

পেট্রোবাংলা ১৯ নভেম্বর এক অফিস আদেশের মাধ্যমে তাকে সরিয়ে দেন। চলতি দায়িত্ব পাওয়া রফিকুল ইসলাম রূপান্তরিত প্রাকৃতিক গ্যাস কোম্পানির জেনারেল ম্যানেজার (কারিগরি ক্যাডার) হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

পেট্রোবাংলার আদেশে বলা হয়েছে, রফিকুল ইসলামকে চলতি দায়িত্ব হিসেবে ব্যবস্থাপনা পরিচালকের দায়িত্ব প্রদান করা হলো। উক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক পদে কোন কর্মকর্তা, নিয়োগ, বদলি, পদোন্নতি পদায়ন করা হলে রফিকুল ইসলাম পুর্বের পদে ফিরে যাবেন।

এমএ মাজেদকে ওএসডি করে পেট্রোবাংলায় আনা হয়েছে। ঘুষ, দুর্নীতি ও অনিয়মের কারণে তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলার প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে। শিগগিরই বড় ধরণের শাস্তির মুখোমুখি হতে যাচ্ছেন বলে সংশ্লিষ্ট সুত্রগুলো জানিয়েছে।বন্দরনগরী চট্টগ্রাম অঞ্চলে গ্যাস বিতরণের দায়িত্বে থাকা কেজিডিসিএল’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক পদে নিয়োগ পাওয়ার পর ঘুষ দুর্নীতিতে আকণ্ঠ নিমজ্জিত হয়ে পড়েন এমএ মাজেদ। আইনকানুনের কোন বালাই ছিল না তার কাছে। টাকা ঢাললেই সবকিছু মেলে, রাতকে দিন আর দিনকে রাত বানাতে সিদ্ধহস্ত। কোন কোম্পানির আবেদন কয়েক বছর ধরে ঝুলে রয়েছে। কেউ কেউ কর্ণফুলীতে ঘুরতে ঘুরতে জুতার তলা ক্ষয় করে ফেলেছেন তবুও সংযোগ পাননি। আবার ঘুষ ঢালায় একদিনেই সংযোগ পাওয়ার নজীর তৈরি করেছেন।

আরও পড়ুন: কেজিডিসিএল এমডি এমএ মাজেদ শিগগিরই শাস্তির মুখোমুখি হচ্ছেন!

মেসার্স মোস্তফা পেপার কমপ্লেক্স লিমিটেড (গ্রাহক সংকেত শিল্প-৫১৫১) আবেদন করেছেন ২০২১ সালের ১৯ ডিসেম্বর। পর দিনেই (২০ ডিসেম্বর) তাকে সংযোগ প্রদান করা হয়। সব ধরনের আইন অমান্য করে মাত্র সেই সংযোগটিও প্রদান করা হয়েছে কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রিত ক্যাপটিভ পাওয়ারে। মেসার্স মোস্তফা পেপার কমপ্লেক্স লিমিটেড ৯০০কিলোওয়ার্ট ক্ষমতার ক্যাপটিভের আবেদনটি বোর্ডে তোলার বাধ্যবাধকতা ছিল। কিন্তু সেই বিধি নিষেধ না মেনে ব্যবস্থাপনা পরিচালক এমএ মাজেদ মোটা অংকের বিনিময়ে নিজেই অনুমোদন দিয়েছেন।

পেট্রোবাংলা গঠিত উচ্চ পর‌্যায়ের কমিটি তাদের রিপোর্টে উল্লেখ করেছে, কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক বোর্ড সভার অনুমোদন না নিয়ে নিজেই অনুমোদন করেছেন। একই প্রতিষ্ঠানের বিষয়ে আরও একটি জালিয়াতির তথ্য প্রমান পাওয়া গেছে। তাতে দেখা গেছে কোম্পানিটি মিটার টেম্পারিং করে বিপুল পরিমাণ গ্যাস চুরির ঘটনা ঘটলেও ধামাচাপা দিয়েছেন এমএ মাজেদ সিন্ডিকেট। কোম্পানিটিতে পরীক্ষণ ও মান নিয়ন্ত্রণ বিষয়ক বিভাগ থাকা সত্ত্বেও শুধুমাত্র মার্কেটিং বিভাগকে দিয়ে ত্রুটিপুর্ণ মিটার পর‌্যবেক্ষণ কমিটি গঠনও রহস্যজনক। ব্যবস্থাপনা পরিচালক তার আস্থাভাজনদের রেখেছেন ওই কমিটিতে। যাতে সুবিধামতো রিপোর্ট দিয়ে টুপাইস হাতানো যায়।

৫ কোটি ৫ লাখ ৫৬ হাজার টাকা বকেয়ার কারণে মোস্তফা পেপার কমপ্লেক্সের একটি সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়। নিয়ম রয়েছে ৫০ শতাংশ বকেয়া পরিশোধ এবং অবশিষ্ট টাকা কিস্তিতে আদায়ের শর্তে পুনঃসংযোগ দিতে পারে ব্যবস্থাপনা পরিচালক। কিন্তু কোন টাকা আদায় না করেই পুনঃসংযোগ প্রদান করেন।

আরও পড়ুন: কর্ণফূলী গ্যাসে বড়চোরকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে ছোট চোরের বিচারের

মেসার্স ডায়মন্ড সিমেন্ট লিমিটেড (গ্রাহক সংকেত ৮০৬৫) নামের একটি প্রতিষ্ঠানে সংযোগ প্রদানে অভিনব জালিয়াতির ঘটনা ধরা পড়েছে। প্রতিষ্ঠানটি সংযোগের জন্য আবেদন জমা দিলে ২০২০ সালের ২২ নভেম্বর বোর্ডে তুলেছিলেন তৎকালীন ব্যবস্থাপনা পরিচালক। সেই বোর্ড সংযোগটি অনুমোদন করেন নি। এমন একটি স্পর্শকাতর বিষয় জানার পরও বোর্ডের অনুমোদন ছাড়াই গত বছরের ৫ ডিসেম্বর ডায়মন্ড সিমেন্টকে সংযোগ প্রদান করেছেন এমএ মাজেদ। এতে জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের পরিপত্র অমান্য করা হয়েছে বলে তদন্ত কমিটি উল্লেখ করেছে।

বোর্ডের সিদ্ধান্ত জালিয়াতির প্রমান পেয়েছে কমিটি। দেখা গেছে বোর্ডে আলোচনা ও সিদ্ধান্ত হয়েছে এক রকম, আর কার‌্যপত্রে লেখা হয়েছে ভিন্নভাবে। ২০২১ সালের ২৮ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত ১৭৫তম বোর্ড সভায় ওঠে মেসার্স সায়মা সামিরা টেক্সটাইল মিলস লিমিটেড (সাদ মুছা গ্রুপ) নতুন সংযোগের আবেদন। পর্ষদের সভার পুর্বেই ওই গ্রাহকের অনুকূলে চাহিদাপত্র ইস্যু করার তথ্য প্রমান পাওয়া গেছে।

কেজিডিসিএল এর ব্যবস্থাপনা পরিচালকের দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকে দুর্নীতির রামরাজত্ব তৈরি করেছেন। সামান্য কিছু উদাহরণ সামনে এলেও আরও পুকুর চুরির ঘটনা থেকে গেছে অন্তরালে। শুধু সংযোগ প্রদানের ক্ষেত্রে জালিয়াতি করে থেমে থাকেনি এম এ মাজেদ। কোম্পানির সিনিয়র সিলেকশন কমিটির (২০২১ সালের ২১ ও ২২ ডিসেম্বর) সভায় ১৭ পদের বিপরীতে ১৩ জনকে সহকারী ব্যবস্থাপক থেকে উপব্যবস্থাপক পদে পদোন্নতির সুপারিশ দেয়। তারপর সেই পদোন্নতি আটকে রাখেন এম এ মাজেদ। এতে কর্মকর্তাদের মধ্যে হতাশা ছড়িয়ে পড়ে।

আরও পড়ুন: দুর্নীতির বরপুত্র খ্যাত কর্ণফুলী গ্যাসের এমডিকে শোকজ করেছে পেট্রোবাংলা

   

বিদ্যুতের গ্রাহকদের ১৮০ সংখ্যার যন্ত্রণা থেকে ‍মুক্তি দেওয়ার আহ্বান



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, চট্টগ্রাম ব্যুরো
বিদ্যুতের গ্রাহকদের ১৮০ সংখ্যার যন্ত্রণা থেকে ‍মুক্তি দেওয়ার আহ্বান

বিদ্যুতের গ্রাহকদের ১৮০ সংখ্যার যন্ত্রণা থেকে ‍মুক্তি দেওয়ার আহ্বান

  • Font increase
  • Font Decrease

কিছুদিন পর পর বিদ্যুতের প্রিপেইড মিটারের টাকা রিচার্জ করতে গিয়ে গ্রাহকেরা ভোগান্তিতে পড়ছেন। কেননা বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড থেকে রিচার্জ করার সময় ১৮০ সংখ্যা সরবরাহ করা হচ্ছে। ফলে রিচার্জ করতে গিয়ে প্রায় সময়েই গ্রাহকেরা ভুল করেছেন। আবার বার বার সঠিক সংখ্যা রিচার্জ করতে গিয়ে মিটার লক হয়ে পড়ছে।

তাই মিটার রিচার্জের ভোগান্তি থেকে গ্রাহকদের মুক্তি দিতে অনুরোধ জানিয়েছেন নাগরিক উদ্যোগের প্রধান উপদেষ্টা ও চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের সাবেক প্রশাসক খোরশেদ আলম সুজন।

বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড, চট্টগ্রামের প্রধান প্রকৌশলী রেজাউল করিমের সঙ্গে মতবিনিময় করতে গিয়ে এই অনুরোধ জানান সুজন।

মতবিনিময় সভায় রমজানে বিদ্যুৎ ব্যবস্থা স্বাভাবিক রাখতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধও জানান। এ সময় সুজন বলেন, চট্টগ্রাম হচ্ছে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক হৃদপিণ্ড। এখানে চট্টগ্রাম বন্দর, কাস্টমস হাউস, ইপিজেড, জ্বালানি তেল পরিশোধন, সার কারখানা, শিপ ব্রেকিং, স্টিল ও আয়রন শিল্প, জাহাজ নির্মাণ, পোশাক শিল্পসহ ভারী, মাঝারি ও ছোট শিল্পকারখানা অবস্থিত। এসব শিল্পে প্রতিদিন বিপুল পরিমাণ বিদ্যুতের ব্যবহার হয়। তাই জাতীয় গ্রিড থেকে বিদ্যুৎ প্রাপ্তিতে চট্টগ্রামকে অগ্রাধিকার দেওয়ার অনুরোধ জানান তিনি।

সুজন বলেন, দ্রব্যমূল্যসহ নানাবিধ বিষয় নিয়ে ভোক্তারা বর্তমানে এমনিতে অনেকটা চাপে আছেন। তাই এখনই বিদ্যুতের দাম সমন্বয় না করে ঈদের পরে দাম সমন্বয় করার জন্য বিউবো প্রধান প্রকৌশলীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন তিনি।

বিউবোর প্রধান প্রকৌশলী রেজাউল করিম নাগরিক উদ্যোগের নেতাদের তার দফতরে স্বাগত জানান। তিনি বলেন, রমজান নিয়ে আমাদের পূর্ণ প্রস্তুতি রয়েছে। বর্তমানে বিদ্যুতের তেমন কোনো ঘাটতি নেই বিধায় রমজানে বিদ্যুৎ ব্যবস্থা স্বাভাবিক থাকবে। রমজান আসলেই বিভিন্ন মার্কেট কিংবা শপিং মলে অতিরিক্ত আলোকসজ্জ্বা করা হয়, এতে বিদ্যুৎ বিভাগ চাপে পড়ে। তাই এ ব্যাপারে বিদ্যুৎ বিভাগ সতর্ক থাকবে।

এসময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন নাগরিক উদ্যোগের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান হাজী মো. ইলিয়াছ, আব্দুর রহমান বদি, সদস্যসচিব হাজী মো. হোসেন, মো. শাহজাহান, মো. সেলিম, মো. বাবলু, সমীর মহাজন লিটন প্রমুখ।

;

পাইকারি বিদ্যুতের দাম বাড়ল



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

নির্বাহী আদেশে পাইকারি বিদ্যুতের দাম, গড় দর ৬.৭০ টাকা থেকে ৫ শতাংশ বাড়িয়ে ৭.০৪ টাকা করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) এ সংক্রান্ত গেজেট প্রকাশ করা হয়েছে।

নতুন দর বিলিং মাস ফেব্রুয়ারি থেকেই কার্যকর হবে। গেজেটে বলা হয়েছে, পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড তাদের সমিতি ভেদে ভিন্ন ধরে নির্ধারণ করতে পারবে। তবে ভারিত গড় সরকার নির্ধারিত দরের বেশি হতে পারবে না।

লোকসানী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি (পবিস) সমূহকে এগিয়ে নিতে এক সময় ক্রসসাবসিডি দেওয়া হতো। মুনাফায় থাকা সমিতির পাইকারি বিদ্যুতের দাম তুলনামূলক বেশি আদায় করে সমন্বয় করার রেওয়াজ বিদ্যমান।

গেজেট

গেজেটে ২৩০ এবং ১৩২ কেভিতে ৬টি বিতরণ কোম্পানির অভিন্ন দর যথাক্রমে ৮.৪৪৪০ টাকা এবং ৮.৪৭৩৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। তবে ৩৩ কেভিতে ভিন্ন ভিন্ন দর নির্ধারণ করা হয়েছে। পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের দর সবচেয়ে কম ৬.২৩২৫ টাকা করা হয়েছে। ৩৩ কেভিতে সবচেয়ে বেশি ধরা হয়েছে ঢাকা ইলেকট্রিক সাপ্লাই কোম্পানির (ডেসকো) দর। কোম্পানিটির ইউনিট প্রতি দর ধরা হয়েছে ৮.৫৮৮০ টাকা।

পাইকারি দর ৬.৭০ টাকা থেকে ৫ শতাংশ বাড়িয়ে ৭.০৪ টাকা করা হয়েছে। এতে ভর্তুকির পরিমাণ ৩ হাজার কোটি টাকা হ্রাস পাবে। দাম বৃদ্ধির পরও প্রায় ৩৬ হাজার ৩৬৩ কোটি টাকা ভর্তুকি দিতে হবে বলে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (বিপিডিবি) ধারণা করছে।

দুপুরে সচিবালয়ে বিদ্যুৎ জ্বালানি খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, সবচেয়ে বেশি সমস্যা হয়েছে ডলারের দর বেড়ে যাওয়ায়। তেল-গ্যাস ও কয়লার আন্তর্জাতিক বাজারদর ক্ষেত্র বিশেষে একই থাকলেও আগের চেয়ে ডলার প্রতি ৪০ টাকার বেশি খরচ হচ্ছে। এখানেই বিশাল গ্যাপ তৈরি হয়েছে। ডলারের সঙ্গে সমন্বয় করার কাজ করছি। এখন বিদ্যুতের গড় উৎপাদন খরচ পড়ছে ১২ টাকার মতো, আর ৭ টাকায় বিক্রি করা হচ্ছে। আমরা হিসেবে করে দেখেছি চলতি বছর বিদ্যুতে ৪৩ হাজার কোটি টাকা ভর্তুকি দিতে হবে। ধীরে ধীরে কয়েকবছর ধরে সমন্বয় করা হবে। কম ব্যবহারকারি গ্রাহকের বিদ্যুতের দাম কম বাড়বে আর উপরের দিকে বেশি বাড়বে।

এ ছাড়া গ্রাহক পর্যায়েও দাম বাড়ানো প্রক্রিয়া চুড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে বলে জানো গেছে। প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, আমরা দাম বাড়াচ্ছি না সমন্বয় করছি। প্রফিট করলে দাম বাড়ানোর কথা বলতে পারতেন। লোকসান কিছুটা কমানোর জন্য সমন্বয় করা হচ্ছে। গ্রাহক পর্যায়ে বিদ্যুতের দাম ৩৪ পয়সা থেকে সর্বোচ্চ ৭০ পয়সা হারে বাড়বে।

;

ইসলামী ব্যাংকের ময়মনসিংহ জোনের এজেন্ট ব্যাংকিং সম্মেলন অনুষ্ঠিত



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ পিএলসির ময়মনসিংহ জোনের এজেন্ট ব্যাংকিং ব্যবসায় উন্নয়ন সম্মেলন এবং মানি লন্ডারিং ও সন্ত্রাসে অর্থায়ন প্রতিরোধ বিষয়ক কর্মশালা সম্প্রতি জামালপুরের একটি রিসোর্টে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

ব্যাংকের ম্যানেজিং ডিরেক্টর ও সিইও মুহাম্মদ মুনিরুল মওলা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে ভার্চুয়াল প্লাটফর্মে বক্তব্য দেন। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন ডেপুটি ম্যানেজিং ডিরেক্টর আবুল ফায়েজ মুহাম্মদ কামালউদ্দিন।

সিনিয়র এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট মোঃ মাকসুদুর রহমানের সভাপতিত্বে বিভিন্ন সেশনে বক্তব্য দেন ময়মনসিংহ জোনপ্রধান মোঃ আনিসুল হক, এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট এ কে এম মাহবুব মোরশেদ, সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট মোঃ আবদুল জলিল ও অ্যাসিস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট কাজী মোহাম্মদ ইসমাঈল। সম্মেলনে জোনের অধীন শাখাসমূহের প্রধান ও এজেন্ট ব্যাংকিং আউটলেটের স্বত্বাধিকারীগণ অংশগ্রহণ করেন।

;

৪৩৯ কোটি টাকার সার কিনছে সরকার



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

  • Font increase
  • Font Decrease

রাষ্ট্রীয় চুক্তির মাধ্যমে স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক বাজার থেকে ৪৩৮ কোটি ৯১ লাখ টাকার ইউরিয়া, ডিএপি সার ও ফসফরিক এসিড কেনার সিদ্ধান্ত হয়েছে। এরমধ্যে ২৫৩ কোটি ৪৪ লাখ টাকার ডিএপি সার, ১২২ কোটি ৫৫ লাখ টাকার ইউরিয়া সার এবং ৬২ কোটি ৯২ লাখ টাকার ফসফরিক এসিড রয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীর সভাপতিত্বে কমিটির সভায় এসব প্রস্তাবের অনুমোদন দেওয়া হয়। সভা শেষে সভার সিদ্ধান্ত জানান মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব সাঈদ মাহবুব খান।

এ প্রসঙ্গে অতিরিক্ত সচিব জানান, রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে চুক্তির আওতায় জি টু জি পদ্ধতিতে সৌদি আরবের মা আদেন থেকে ৪০ হাজার টন ডিএপি সার আমদানি ব্যয় হবে ২৫৩ কোটি ৪৪ লাখ টাকা। প্রতি মেট্রিক টনের দাম পড়বে ৫৭৬ মার্কিন ডলার। যা আগে ছিল ৫৮৯ মার্কিন ডলার।

এছাড়া কর্ণফুলী ফার্টিলাইজার কোম্পানি লিমিটেডের (কাফকো) কাছ থেকে ৩০ হাজার টন ব্যাগড গ্র্যানুলার ইউরিয়া সার কেনা হবে। এতে মোট ব্যয় হবে ১২২ কোটি ৫৫ লাখ টাকা। প্রতি টনের দাম পড়বে ৩৭১ দশমিক ৩৭ ডলার। যা আগে ছিল ৩১৬ দশমিক ৬২৫ মার্কিন ডলার। এছাড়াও আন্তর্জাতিক উন্মুক্ত দরপত্রের মাধ্যমে ১০ হাজার টন ফসফরিক এসিড কেনার অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এতে মোট ব্যয় হবে ৬২ কোটি ৯২ লাখ টাকা। প্রতি টনের দাম পড়বে ৫৭২ ডলার। যা আগে ছিল ৫৮২ ডলার। এ ফসফরিক এসিড সরবরাহ করবে চায়নার জুনজুয়াই ইকো টেকনোলজি কোম্পানি। এদের ঢাকার প্রতিনিধি হিসেবে রয়েছে মেসার্স বেস্ট ইস্টার্ন।

;