অর্থনীতিকে ভারসাম্যপূর্ণ করতে যা চান ব্যবসায়ীরা, জানালেন আমিন হেলালী



আশরাফুল ইসলাম, পরিকল্পনা সম্পাদক, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশ ব্যাংক গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদারের সঙ্গে গত বৃহস্পতিবার (১৬ মে, ২০২৪) পৌনে ৩ ঘণ্টার বৈঠক করেছেন ১৫ সদস্যের ব্যবসায়ী নেতারা। ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই’র শীর্ষ নেতাদের নেতৃত্বে এই বৈঠকে কেন্দ্রীয় ব্যাংক গভর্নর ডলারের মূল্যবৃদ্ধিতে অর্থনীতির অস্থিরতা-সহ নানা প্রসঙ্গে গৃহীত পদক্ষেপসমূহের কথা জানিয়েছেন। ব্যবসায়ী নেতারা বাংলাদেশের উদীয়মান অর্থনীতির অস্থিরতা কাটিয়ে একে ভারসাম্যপূর্ণ করতে তাদের পর্যবেক্ষণ ও দাবি তুলে ধরেছেন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কাছে। দীর্ঘ সময় ধরে ডেপুটি গভর্নর ও নির্বাহী পরিচালকদের নিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক গভর্নর ব্যবসায়ী নেতাদের কথা শুনেছেন এবং সেইসব বিষয়ে তাদের আশ্বস্ত করেছেন।

বৈঠকের সামগ্রিক বিষয়াবলী নিয়ে বার্তা২৪.কমের সঙ্গে বিস্তৃত আলাপচারিতায় এফবিসিসিআই’র সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট ও দশদিশা গ্রুপের চেয়ারম্যান আমিন হেলালী জানিয়েছেন, চলমান অস্থিরতায় অর্থনীতিকে ভারসাম্যপূর্ণ করতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কাছে তুলে ধরা প্রত্যাশার কথা। কথা বলেছেন পরিকল্পনা সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম।

আমিন হেলালী: দেশের ব্যবসায়ীদের প্রত্যেকটা সেক্টরের এসোসিয়েশন লিডারদের নিয়ে ১৫ সদস্যের টিম গত ১৬ মে (২০২৪) বাংলাদেশ ব্যাংক গভর্নরের সঙ্গে আমরা এফবিসিসিআই এর পক্ষ থেকে দেখা করেছি। সেখানে আলোচনায় যে বিষয়গুলো ছিল..সবচাইতে বড় কথা হল, তিনি সকল ডেপুটি গভর্নর ও নির্বাহী পরিচালকদের নিয়ে আমাদের সঙ্গে বসেছেন। সেখানে তিনি আমাদের পৌনে ৩ ঘণ্টা সময় দিয়েছেন। আমাদের প্রত্যেকটি কথা তিনি শুনেছেন। প্রথমতঃ, এটি হচ্ছে একটি ইতিবাচক দিক। প্রতিটি সমস্যাই তিনি এড্রেস করেছেন। সমস্যাগুলো নিয়ে তিনি পদক্ষেপ নিচ্ছেন, নেবেন-বলে আমাদের আশ্বস্ত করেছেন।

বার্তা২৪.কম: আলোচনায় কোন বিষয়গুলো প্রধান্য পেয়েছিল...

আমিন হেলালী: যেমন ধরুন-সুদের হার নিয়ে আমরা উনাকে বলেছি, অর্থনৈতিক এই অবস্থার মধ্যে যে আপনারা (বাংলাদেশ ব্যাংক) স্মার্ট ফর্মুলা বাতিল করে সুদের হারকে বাজারভিত্তিক করে দিলেন, এখন কি অবস্থা হবে? আমরা তো ব্যবসায়িক প্ল্যান করতে পারব না। লাগামহীন হয়ে যাবে। গভর্নর বললেন যে, ‘না, তা হবে না। আমাদের ব্যাংকিং ব্যবস্থাপনা বাবদ ৭-৯ পার্সেন্ট খরচ আছে।’

গভর্নর ধারণা করছেন সুদের এই কম্পিটিশনের মাধ্যমে ১২ পার্সেন্টের বেশি বাড়বে না। যদিও বাড়ে বা কেউ যদি বাড়াতে চায় মার্কেটে তাহলেও ১৪ পার্সেন্টের বেশি কেউ বাড়াতে পারবে না। এটা উনি আশ্বাস দিয়েছেন। কিন্তু কেউ এটাকে ১২ পার্সেন্টও করতে পারবে, ৯ পার্সেন্টও করতে পারবে- যার যার কস্টিং অনুসারে তারা সুদ হার নির্ধারণ করতে পারবেন। বাংলাদেশ ব্যাংক এখানে আশ্বস্ত করেছে এটাই যে, যতই বাড়ুক ১৪ এর ওপরে যাবে না। অন্যদিকে ডলার রেট ১১৭ টাকা নিয়ে স্পষ্ট বলে দিয়েছেন, ইফ দেয়ার ইজ এনি আন্ডারহ্যান্ড ডিলিংস...সঙ্গে সঙ্গে উনাকে (গভর্নর) কমপ্লেইন করতে বলেছেন, তিনি সরাসরি অ্যাকশনে যাবেন।

বার্তা২৪.কম: এসএমই’র ১% সার্ভিস চার্জ রহিতকরণ ও একক গ্রাহক ঋণসীমা নিয়ে কি আলোচনা হয়েছে...

আমিন হেলালী: এসএমই’র ক্ষেত্রে সব ব্যাংকগুলো ১% সার্ভিস চার্জ কেটে নিয়ে যাচ্ছিল প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে-এনিয়ে অনেক দিন ধরে আমরাও কথা বলে আসছিলাম, অস্পষ্টতা কাটছিল না। তবে এই মিটিংয়ে তিনি আমাদের স্পষ্ট করলেন, এমএমই’তে ১ পার্সেন্ট যে সার্ভিস চার্জ কেটে নেয় এখন থেকে আর কাটতে পারবে না। এটা অলরেডি রহিত করেছে। একক গ্রাহক ঋণসীমা যেটি ১৫% ছিল, আমাদের দাবি ছিল ৩০% করে দেওয়ার জন্য। সেই জায়গায় তিনি বলেছেন, ‘৩০ পার্সেন্ট না, ২৫ পার্সেন্ট করতে পারব। এর বেশি করা যাবে না, কারণ তাহলে আন্তর্জাতিক আইনের লঙ্ঘন হয়ে যাবে।’ কমপ্লায়েন্সে থাকতে হলে ২৫% ম্যাক্সিমাম, সেটা তিনি শিগগিরই প্রজ্ঞাপন দিয়ে দেবেন।

আরেকটি বিষয় হচ্ছে ডলার ডিভ্যেলুর কারণে যেসব বিনিয়োগকারীদের ক্ষতি হয়েছে, সেখানে রেগুলেশনের মাধ্যমে যার যত ক্ষতি হয়েছে-কারও হয়ত ১০ কোটি টাকা হল, কারও ৫ লাখ টাকা বা কারও ৫০০ কোটি টাকা হল..ডলার যখন ৮৫ টাকা ছিল সেটা ১১০ টাকা করার পরও যখন লস হওয়া শুরু হল, তখন পেমেন্ট দিতে হয়েছে বেশি-ক্যালকুলেশনের মাধ্যমে যা লস হয়েছে তা আলাদা ভাবে দীর্ঘমেয়াদী পেমেন্টের ব্যবস্থা করে পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন বলে গভর্নর আশ্বস্ত করেছেন। কিস্তির ক্ষেত্রে ৬ মাসের যে বিষয়টি ছিল তা ৩ মাস করেছে, আমরা সেটিকে আবারও ৬ মাস মেয়াদী করতে বলেছি। গভর্নর বলেছেন, আন্তর্জাতিক যে কমপ্লায়েন্স আছে তাতে স্ট্যান্ডার্ড ৩ মাসের বেশি করা যায় না। আমরা জানিয়েছি, এতে আমাদের সমস্যা হয়ে যাবে, ঋণখেলাপি বেড়ে যাবে। তিনি এ বিষয়ে বলেছে, নতুন কি কৌশল করে এই অসুবিধা নিরসন করা যায় তা তিনি দেখবেন।

বার্তা২৪.কম: এসএমই’তে কমপ্লায়েন্স সুবিধা নিয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংক কী বলছে?

আমিন হেলালী: বর্তমানে সবার জন্য ব্যাংকিং যে পলিসি এসএমই’র জন্যও তাই। কিন্তু এসএমই’র স্টেকহোল্ডার যাঁরা তারা তো কর্পোরেটদের মত কমপ্লায়েন্স এর সুবিধা নিতে পারছে না। তাদের দিকে কেউ তাকাচ্ছে না। বিষয়টিও তিনি (গভর্নর) সিরায়াসলি দেখবেন বলেছেন, কিভাবে এসএমই-দের জন্য আলাদা ব্যাংকিং সুবিধা বা কমপ্লায়েন্সের টার্মস অ্যান্ড কন্ডিশন তৈরি করা যায়। তিনি জানালেন, এসএমই’র জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকে ২৫ হাজার কোটি টাকা আছে। কিন্তু আমরা বলেছি, এই ২৫ হাজার কোটি টাকা থাকলে কি হবে-২৫ টাকাও তো এসএমই ভোগ করতে পারবে না-যে টার্মস অ্যান্ড কন্ডিশন আছে তার কারণে প্রকৃত স্টেকহোল্ডারা তা পারবে না। বড়রাই এসএমই সেজে একাই এগুলো ভোগ করে ফেলবে। গভর্নর আমাদের কথা বিবেচনায় নিয়েছেন এবং বলেছেন, উনি বিষয়টি দেখবেন, কি কৌশল নিয়ে এসএমই-কে বিকশিত করা যায় স্মল এবং স্টার্টআপ-দেরকে নিয়ে।

বার্তা২৪.কম: গভর্নর ও কেন্দ্রীয় ব্যাংকের শীর্ষ কর্মকর্তাদের সঙ্গে এই দীর্ঘ আলোচনায় আপনারা কতটা আশ্বস্ত হতে পেরেছেন?

আমিন হেলালী: প্রতিটি বিষয়ে তিনি (গভর্নর) আমাদের কথা শুনেছেন এবং কথা বলেছেন, আমি মনে করি এটি পজেটিভ দিক। উনি আরও একটি কথা মেনশন করেছেন, ‘দেখুন, বেসরকারি খাত যদি না টিকে থাকে, তাহলে আমাদের কাজটা কি? আপনাদের যদি সঠিক গ্রোথ হয়-তাহলে সরকারের ট্যাক্স বাড়বে। ট্যাক্স বাড়লে উন্নয়ন বাড়বে, আমরা যারা চাকুরি করি আমাদের বেতন বাড়বে। এগুলো মাথায় রেখেই আমরা চেষ্টা করছি’-এগুলো বলেছেন।

আমরা মনে করি, সরকারি লোক যারা আছেন তারাই কিন্তু পলিসি ড্রাফট করেন। বেসরকারি খাতের সঙ্গে কথা বলে যদি পলিসি হয়; তাহলে তা ওয়ার্কেবল হয়। আমি মনে করি এগুলো পজেটিভ দিক। আমরা আমাদের সমস্যা নিয়ে বার বারই মিটিং করতে পারব। সমাধান উভয় পক্ষ মিলে কিভাবে করা যায় সেই রাস্তাও বের করা যাবে।

বার্তা২৪.কম: আইএমএফ’র পরামর্শেই বাংলাদেশ ব্যাংক ডলারের মূল্য একলাফে ৭ টাকা বাড়াতে বাধ্য হয়েছে শেষ মুহূর্তে এসে, এই দাবি করছেন অর্থনীতিবিদরা। প্রশ্ন হচ্ছে, ডলারের মূল্যবৃদ্ধির ফলে আমদানি-রফতানিতে প্রভাব কতখানি পড়ছে?

আমিন হেলালী: কথাটা ফেলে দেওয়ার মত নয়। আমরা যেহেতু নিম্ন আয় থেকে উত্তীর্ণ হয়ে এখন মধ্যম আয়ে গ্রেজুয়েশন নেব; একারণে আমাদের ওপর অনেক কমপ্লায়েন্স ভর করছে। এটা ভয় পেলে হবে না। নিয়মের মধ্যে চললে কিন্তু সব সময় লাভবান হওয়া যায়। যদি নিয়মকে প্রতিষ্ঠিত করা সম্ভব হয়। বাংলাদেশের প্রধান সম্পদই হচ্ছে মানবসম্পদ। আমরা নিয়ম যদি পালন করতে পারি, আমাদেরকে কেউ পিছে ফেলতে পারবে না। আমাদের কাছে আসতেই হবে। পৃথিবীর সর্বত্রই মানবসম্পদের সংকট, তাদের কাজের লোক নেই। আমাদের কাজের লোক আছে। নিয়ম আমাদের পালন করতেই হবে, আমি নিজেও তা এডমিট করি।

বার্তা২৪.কম: অর্থনীতিকে ভারসাম্যপূর্ণ করতে বড় সংকটটি কোন জায়গাতে বলে মনে করেন?

আমিন হেলালী: আমরা এফবিসিসিআই এর পক্ষ থেকে সর্বাত্মক চেষ্টা করে যাচ্ছি, আমাদের এসোসিয়েশন-চেম্বারকে কমপ্লায়েন্স করতে। হ-য-ব-র-ল ভাবে অর্থনীতি এই জায়গায় আসছে। অর্থনীতির আকার বড় হয়েছে। আমাদের যে রেভিনিউ, এনবিআর এর যে রেভিনিউ কালেকশন-তাদের টার্গেটই ৭ %। বাস্তবায়ন কতটুকু হবে কে জানে? আমরা এতবড় একটা অর্থনীতির দেশ। স্ট্যান্ডার্ড হল মিনিমাম ২২-২৩%। নেপালের মত দেশে ১৪-১৫%। এটা কার ব্যর্থতা? আমি মনে করি সরকারের সংশ্লিষ্ট সংস্থা, এনবিআর এর ব্যর্থতা এটা। ২০০৯ সালে ৯০ বিলিয়নের অর্থনীতি ছিল, তখন তাদের যে পরিকল্পনা ছিল, তারা (এনবিআর) এখনও সেখানেই আছে। বর্তমানে অর্থনীতির আকার হয়েছে ৪৭০ বিলিয়ন। এনবিআর সেই জায়গায় তাদের জাল বিস্তার করতে পারেনি। সেই জায়গাগুলো আয়ত্বে আনতে পারেনি কারণ হয়ত তারা রেভিনিউ কালেকশনের চাপে থাকে। যারা রেভিনিউ দেয় তারা খোঁজে খোঁজে তাদের কাছেই যায়। বর্তমানে আয়কর সাবমিট করেছে মাত্র ৩৭ লাখ। এর মধ্যে ২১ লক্ষ সরকারকে কর দিয়েছে।

বার্তা২৪.কম: এনবিআর’র বিরুদ্ধে ব্যবসায়ীদের হয়রানির অভিযোগ আবারও প্রকাশ্যে এল। সম্প্রতি বস্ত্র ও পাটমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে ব্যবসায়ী নেতারা এর প্রতিকারও দাবি করেছেন। গভর্নরের সঙ্গে বৈঠকে বিষয়টি এসেছে কী?

আমিন হেলালী: গভর্নর এবিষয়ে বলেছেন, আপনারা যারা কাঁচামাল আমদানিকারকদের জন্য ডলারের কোনো কমতি পড়বে না। আমরা গভর্নরকে সুনির্দিষ্টভাবে বলেছি, যারা প্রতারণা করে টাকা নিয়ে গেছেন ব্যাংক থেকে এবং বিদেশে টাকা পাচার করেছেন, আপনি তাদের চিহ্নিত করুন। আমরা আপনাকে সহযোগিতা করব। আপনার কোনো অসুবিধা হবে না। আমরা আপনার সঙ্গে আছি।

তিনি বলেছেন, ‘আমার কাছে স্পষ্ট নির্দেশনা আছে সরকার প্রধানের। আমি কারও চোখ রাঙানি দেখতে পারব না। কারোর যদি এ সংক্রান্ত কিছু ধরা পড়ে, ছাড় দিব না। তিনি বলেছেন, টুকটাক এদিক-সেদিক হবেই, মেজর যে ঘাপলা ছিল তা পুরোপুরি স্টপ আছে। মানি লন্ডারিংয়ের যে কয়েকটি ঘটনা, ওভার ইনভেস্টমেন্ট...যে জিনিসের দাম ১০০ ডলার, তার অনুকূলে ৩০০ ডলার এলসি করে; ২০০ ডলার পাচার ঘটনাও অনেক হয়েছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংক তাদের চিহ্নিত করেছে বলে জানানো হয়েছে। ওই জায়গাগুলো যেন আর ভবিষ্যতে পুনরাবৃত্তি না হয়, অতীতে যা হয়েছে তা আছে নথিভূক্ত কিন্তু ভবিষ্যতে আর হবে না, একথা বলেছেন গভর্নর।। আমাকে উনাকে বলেছি, এগুলো লিস্ট করেন এবং আমাদেরকেও দেন। আমি রাষ্ট্রীয় বিভিন্ন স্তরেও এসব কথাগুলি বলি, কারণ আমাদের অধিকার আছে, কেননা আমরা সঠিকভাবে ব্যবসা করতে চাই। দোষ নিতে চাই না।

বার্তা২৪.কম: এনবিআর’র হয়রানিতে রফতানিখাত বাধাগ্রস্ত হয় এই অভিযোগ রয়েছে...

আমিন হেলালী: পূর্বেও উল্লেখ করেছি, ৯০ বিলিয়ন ডলার অর্থনীতির যে কাঠামামো ছিল, যে প্ল্যান ছিল- তা দিয়ে ৪৭০ বিলিয়নের অর্থনীতিকে কন্ট্রোল করতে চাইলে হবে? আপনার সক্ষমতা আছে ১০০ টাকা ডিল করার, কিন্তু যদি আপনার হাতে হাজার টাকা আসে তা কিভাবে আপনি ডিল করবেন? সেটা ব্যবস্থাপনা করতে আপনাকে নিশ্চয়ই সিস্টেম করতে হবে। আমি মনে করি বাংলাদেশের অর্থনীতির আকার ৪৭০ বিলিয়ন ডলার নয়; যেহেতু আমি ফেডারেশনে সব ব্যবসায়ীদের সঙ্গে ওঠাবসা করি তারই প্রেক্ষিতে বলছি, আমাদের ইনফর্মাল যে অর্থনীতি যা রাষ্ট্রীয় হিসাব নিকাশের মধ্যে আসছে না। ঘুষ-দুর্নীতি বা অন্যান্য ইস্যু, রোজার সময় আমরা যে জাকাত দিই-এসব কোনো রাষ্ট্রীয় হিসাবে অন্তর্ভূক্ত হচ্ছে না। আমি মনে করি, আমাদের অর্থনীতির যে বহুবিধ মাত্রা আছে, অর্থনীতিবিদদের থিওরি সেখানে কাজে লাগছে না। তারা এসব বিষয় বিবেচনায় আনছেন না। এগুলোকে যদি মেইনস্ট্রিম করতে পারি, তাহলে আমাদের বাজেট আট লক্ষ কোটি কেন হবে; আমি মনে করি ১৬ লক্ষ কোটি হবে। রেভিনিউ ইনকাম যদি ৩ লক্ষ কোটি থেকে বাড়িয়ে আট লক্ষ কোটি হয়-তাহলে অনায়াসেই ১৫ লক্ষ কোটি টাকার বাজেট করতেই পারি। এনবিআর কঠোর হচ্ছে শুধু যারা দৃশ্যমান ব্যবসার মধ্যে আছে তাদেরকে প্রতি। নতুন যারা আসছে তারা আর মাথা তুলে দাঁড়াতে পারছে না। কেউ নতুন একটা ব্যবসা খুলবে, নতুন কোন স্টার্টআপ আসবে-তখন তারা (এনবিআর) যেসব নিয়ম-কানুনের ফর্দ লাগিয়ে দিচ্ছেন-সেই ভয়ে এখন আর কেউ বিনিয়োগে যাচ্ছে না। এনবিআর’কে সৃজনশীল চিন্তা ভাবনায় আসতে হবে। যেটা হয়ে গেছে তাকে কিভাবে সারফেইসে আনবে সেটা চেষ্টা করুক, ডিস্টার্ব না করুক। সবাই ইনকাম ট্যাক্সটা দিতে চায়। কেউ হয়ত ৭ বছর ধরে কাজ করে, সেও চাইবে ট্যাক্স দিয়ে স্বচ্ছ হয়ে যেতে। কিন্তু যখনই কেউ দিতে যাবে, তখন হয়ত সংশ্লিষ্ট কেউ বলবে-‘আপনার বিগত দিনের সবকিছু অডিট হবে। সব ফেরত দিতে হবে। তারচেয়ে আসেন দেওয়ার দরকার নেই। একলা একলা ডিল করে ফেলি।’-আপনি যা ইনকাম করে খরচ করে ফেলেছেন তার ওপর যদি করারোপ করে তাহলে কেউ কর দিতে আসবে না। তাই এনবিআরকে করদাতাবান্ধব হতেই হবে।

   

বিশ্বব্যাংক টাকা দেয়, তাদের কথা শুনতে হবে: অর্থমন্ত্রী



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: বার্তা২৪

ছবি: বার্তা২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

২০২৪-২৫ অর্থবছরের বাজেট ঘোষণার পর বিশ্বব্যাংক বলেছে, ‘বাংলাদেশ ভালো আছে'! বিশ্বব্যাংক যা বলবে, তা আমাদের শুনতে হবে। কারণ, তারা আমাদের টাকা দেয়। আমাদের টাকা লাগবে বলে মন্তব্য করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী।

বৃহস্পতিবার (২০ জুন) রাজধানীর ফার্মগেটের বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিল মিলনায়তনে বাংলাদেশ কৃষি অর্থনীতিবিদ সমিতি আয়োজিত 'বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশের অর্থনীতি: প্রবৃদ্ধি, মুদ্রাস্ফীতি, খাদ্য ও পুষ্টি নিরাপত্তায় জাতীয় বাজেট ২০২৪-২৫' শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে অর্থমন্ত্রী এ মন্তব্য করেন।

অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী বলেন, বাজেট ঘোষণার পরপরই বিরোধীদল বলে ওঠে, গেল, গেল! এ সরকার টিকবে না! কই, সরকার তো পড়ে না! দেশ তো দেউলিয়া হলো না! বিশ্বব্যাংক কিছু বোঝে না! আপনি সবকিছু বোঝেন!

অর্থমন্ত্রী বলেন, বাজেট ঘোষণার পর বিশ্বব্যাংক বলেছে, বাংলাদেশ ভালো আছে। বিশ্বব্যাংক যা বলবে, তা আমাদের শুনতে হবে। কারণ, তারা আমাদের টাকা দেয়। আমাদের টাকা লাগবে।

প্রস্তাবিত বাজেটকে ‘জনবান্ধব’ উল্লেখ করে অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান বলেন, এটা প্রস্তাবিত বাজেট। এ বাজেট ‘জনবান্ধব’! কোনো কিছু পুনর্বিবেচনার সুযোগ থাকলে পুনর্বিবেচনা করা হবে। বাজেট এখনো পাস হয়নি।

সেমিনারে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটু। সম্মানীয় অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষিসংস্থার বাংলাদেশ প্রতিনিধি ড. জিয়াওকুন শি।

সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি সাজ্জাদুল হাসান। এতে মূলপ্রবন্ধ উপস্থাপন করেন- বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি গবেষণা ও বিপণন বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম।

;

এবারের বাজেট 'পরিণত সাহসী' বাজেট



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: বার্তা২৪

ছবি: বার্তা২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

২০২৪-২৫ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটকে 'পরিণত সাহসী' বাজেট বলে মন্তব্য করেছেন সাবেক পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক ড. শামসুল আলম।

বৃহস্পতিবার (২০ জুন) রাজধানীর ফার্মগেটের বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিল মিলনায়তনে বাংলাদেশ কৃষি অর্থনীতিবিদ সমিতি আয়োজিত 'বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশের অর্থনীতি: প্রবৃদ্ধি, মুদ্রাস্ফীতি, খাদ্য ও পুষ্টি নিরাপত্তায় জাতীয় বাজেট ২০২৪-২৫' শীর্ষক সেমিনারে মুখ্য আলোচকের বক্তব্যে সাবেক পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এ মন্তব্য করেন।

ড. শামসুল আলম বলেন, মুদ্রাস্ফীতির কারণে এবারের বাজেট হওয়ার কথা ছিল ৯ লাখ ৯২ হাজার কোটি টাকা। সেখানে এবার বাজেট সংকুচিত করে ৭ লাখ ৯৭ হাজার কোটি টাকার বাজেট প্রস্তাব করা হয়েছে অর্থাৎ প্রায় ২ লাখ কোটি টাকার বাজেট সংকুচিত করা হয়েছে। টাকার সরবরাহ কমলে মূল্যস্ফীতি কমবে। এবারের বাজেটে কৃপণতা দেখানো হয়েছে।

সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী। বিশেষ অতিথি হিসেবে বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটু। সম্মানীয় অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার বাংলাদেশ প্রতিনিধি ড. জিয়াওকুন শি।

সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি সাজ্জাদুল হাসান। এতে মূলপ্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি গবেষণা ও বিপণন বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম।

;

১৪ দিনে রেমিট্যান্স এলো ১৬৪ কোটি ডলার



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ঈদকে কেন্দ্র করে দেশে বেড়েছে রেমিট্যান্স প্রবাহ। চলতি মাসের প্রথম ১৪ দিনে দেশে রেমিট্যান্স এসেছে ১৬৪ কোটি ৬৭ লাখ মার্কিন ডলার। এই হিসাবে প্রতিদিন গড়ে দেশে রেমিট্যান্স এসেছে ১১ কোটি ৭৬ লাখ ডলার।

বুধবার (১৯ জুন) বাংলাদেশ ব্যাংকের হালনাগাদ প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

এতে বলা হয়, চলতি জুন মাসের প্রথম ১৪ দিনে দেশে রেমিট্যান্স এসেছে ১৬৪ কোটি ৬৭ লাখ ৪০ হাজার মার্কিন ডলার। আর গত জানুয়ারির প্রথম ১৪ দিনে দেশে রেমিট্যান্স এসেছিল ১০০ কোটি ৫২ লাখ মার্কিন ডলার, ফেব্রুয়ারি মাসে এসেছে ১০০ কোটি ৬৬ লাখ ডলার, মার্চ মাসে এসেছে ৯৫ কোটি ৬ লাখ ডলার, এপ্রিলে এসেছে ৯৪ কোটি ৩৬ লাখ, মে মাসে এসেছে ১১১ কোটি ৮৬ লাখ ডলার। সে হিসাবে চলতি মাসে অনেক বেড়েছে রেমিট্যান্স প্রবাহ।

ধর্মীয় উৎসবগুলোকে সামনে রেখে দেশের অভিবাসী কর্মীরা সাধারণত বেশি অর্থ পাঠান। তাই কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে রেমিট্যান্স প্রবাহ বেড়েছে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

এদিকে জুনের ১৪ দিনে রাষ্ট্র মালিকানাধীন ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে এসেছে ৩৯ কোটি ৪০ লাখ ৫০ হাজার মার্কিন ডলার। এছাড়া বিশেষায়িত ব্যাংকের মাধ্যমে ৪ কোটি ৩ লাখ ডলার, বেসরকারি ব্যাংকের মাধ্যমে ১২০ কোটি ৮১ লাখ ৯০ হাজার ডলার ও বিদেশি খাতের ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে এসেছে ৪২ লাখ ডলার রেমিট্যান্স।

এর আগে গত মে মাসে দেশে এসেছে চলতি অর্থবছরের সর্বোচ্চ ২২৫ কোটি ৩৮ লাখ ৮০ হাজার মার্কিন ডলার রেমিট্যান্স। আর এপ্রিল, মার্চ, ফেব্রুয়ারি ও জানুয়ারিতে দেশে যথাক্রমে রেমিট্যান্স এসেছিল ২০৪ কোটি ৩০ লাখ ৬০ হাজার, ১৯৯ কোটি ৬৮ লাখ ৫০ হাজার, ২১৬ কোটি ৬০ লাখ ও ২১০ কোটি ৯ লাখ ৫০ হাজার ডলার রেমিট্যান্স।

;

পোস্তায় চামড়া সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ, নেই ব্যস্ততা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
পোস্তায় চামড়া সংগ্রহের লক্ষমাত্রা পূরণ, নেই ব্যস্ততা

পোস্তায় চামড়া সংগ্রহের লক্ষমাত্রা পূরণ, নেই ব্যস্ততা

  • Font increase
  • Font Decrease

কোরবানি ঈদের প্রথম দিনেই চামড়া সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা প্রায় পূরণ করে ফেলেছেন লালবাগের পোস্তায় কাঁচা চামড়ার ব্যবসায়ীরা। গতকাল রাতের মধ্যেই লক্ষ্যমাত্রার ৮০ ভাগ চামড়া কিনে লবণ লাগিয়েছেন। ফলে ঈদের দ্বিতীয় দিনে আড়তের শ্রমিকদের কোনো ব্যস্ততা নেই।

মঙ্গলবার (১৮ জুন) সকালে চামড়া সংগ্রহের লক্ষমাত্রা পূরণের বিষয়টি বার্তা২৪.কমকে নিশ্চিত করেছেন কাঁচা চামড়া কেনা ও লবণ লাগানো ব্যবসায়ীদের সংগঠন বাংলাদেশ হাউড এন্ড স্কিন মার্চেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের (বিএএইচএসএমএ)’র চেয়ারম্যান আফতাব খান।

তিনি বলেন, আমাদের পোস্তার ব্যবসায়ীদের এবারের লক্ষ্যমাত্রা ছিলো এক লাখের কাছাকাছি চামড়া সংগ্রহ করা। আমরা সেই অনুযায়ী লবণ কিনে প্রস্তুতি নিয়েছিলাম। আমাদের পোস্তার আড়ৎদার, ব্যবসায়ী ও খুচরা বিক্রেতারা মিলে ঈদের প্রথম দিনেই আমাদের লক্ষ্যমাত্রার প্রায় ৮০ ভাগ চামড়া সংগ্রহ করা হয়েছে। রাত ৯টার মধ্যেই চামড়া কেনা শেষ হয়। এমন কি গতকাল রাতের মধ্যেই লবণ লাগানো হয়েছে। আজ দ্বিতীয় দিনে ১৫ ভাগ ও আগামীকাল বুধবার ঈদের তৃতীয় দিনে ৫ ভাগ সংগ্রহ করা হবে।


আফতাব খান আরও বলেন, ঢাকার বেশিরভাগ চামড়া আমাদের কাছে এসেছে। কিছু চামড়া হেমায়েতপুরেও লবণজাত করা হয়েছে। তবে সবচেয়ে বেশি চামড়া লবণজাত করেছেন ট্যানারি মালিকরা। ফলে ঢাকায় চামড়া নষ্ট হয়নি। গতকাল চামড়ার যে দাম ছিলো তার তুলনায় আজও ভালো দাম পাচ্ছেন খুচরা ব্যবসায়ীরা।

সংগঠনটির সভাপতির দেওয়া তথ্যের সূত্র ধরে পোস্তার বিভিন্ন আড়ত ঘুরে দেখা যায়, কোনো আড়তেই চামড়ায় লবণ লাগানোর ব্যস্ততা নেই। প্রায় প্রতিটি আড়তেই লোকজন শূন্য। কোনো কোনো আড়তে চামড়ার পাশেই শ্রমিকদের ঘুমাতে দেখা গেছে।

অতীতে ঈদের দ্বিতীয় দিনেও চামড়া কেনাবেচার ব্যস্ততা দেখা গেলেও এবার একাবারে বিপরীত চিত্র। চামড়া ঘিরে কোনো ব্যস্ততা নেই। দু একটি ট্রাক আসলেও চামড়া দিয়ে চলে যাচ্ছে।

ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, প্রথম দিনের তুলনায় দ্বিতীয় দিনে ভালো দামে চামড়া বিক্রি হচ্ছে। গতকাল যে চামড়া ৫০০ থেকে ৭০০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। আজ সেই চামড়ায় ৫০ থেকে ১০০ টাকা বেশিতে বিক্রি হচ্ছে। আবার চামড়ার মান থাকলে আরও ভালো দাম দিয়ে কিনছেন ব্যবসায়ীরা।


ঈদের দ্বিতীয় দিনে পোস্তায় ব্যস্ততা না থাকার বিষয়ে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রাজধানীর হাজারীবাগেও এবার চামড়া লবণজাত কারার সুযোগ পাচ্ছেন ব্যবসায়ীরা। পোস্তায় জায়গার সংকটের কারণে ব্যবসায়ীদের আবেদনের প্রেক্ষিতে হাজারীবাগে পুরনো ট্যানারির কারখানাগুলোতে চামড়ায় লবণজাত করার সুযোগ দেওয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে কাঁচা চামড়া ব্যবসাীদের এই নেতা বলেন, পোস্তায় আগের মতো ব্যবসায়ীরা নেই। নানা সংকটের কারণে অনেক ব্যবসায়ী  এই খাত থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন। এমন কি পোস্তা এলাকা যে গোডাউনগুলো ছিলো সেগুলো এখন আগের মতো নেই।  কারণ একজন চামড়া ব্যবসায়ী যে গোডাউনের ভাড়া দিতেন ৪০ হাজার টাকা এখন সেই একই গোডাউন কয়েকগুণ বেশিতে ভাড়া নিয়েছেন প্লাস্টিক ব্যবসায়ীরা। ফলে বাধ্য হয়ে অনেক ব্যবসায়ী এখন চামড়া কিনতে পারেন না। ফলে আমরা সরকারের কাছে আবেদন করেছিলাম হাজারীবাগে পুরনো ট্যানারির কারখানাগুলোতে চামড়ায় লবণজাত করার সুযোগ দিতে। আবেদনের প্রেক্ষিতে শিল্প মন্ত্রণালয়ের বিসিক আমাদের সেই অনুমতি দেয়। ফলে অনেক ব্যবসায়ী এখন হাজারীবাগেও চাড়মায় লবণজাত করেছেন। সল্প সময়ের জন্য অনুমতি পাওয়ায় অনেক ব্যবসায়ী চাহিদা মতো চামড়া সংগ্রহ করতে পারায় সহজেই লক্ষ্যমাত্রা অর্জন হয়েছে বলে মনে করেন এই ব্যবসায়ী।

পোস্তার ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, তাদের সংগ্রহ করা চামড়া লবণজাত করার পরে কয়েকদিন তারা গুদামজাত করবেন। ঈদের পঞ্চম দিন থেকে তারা লবণজাত করা এই চামড়া ট্যানারি মালিকদের কাছে বিক্রি শুরু করবেন।

;