মিটার রিডিং না নেওয়ায় বিদ্যুৎ বিলে তারতম্য

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
সংগৃহীত ছবি

সংগৃহীত ছবি

  • Font increase
  • Font Decrease

করোনার কারণে বাসায় গিয়ে মিটার রিডিং নেওয়া সম্ভব হয়নি, গত বছরের একই মাসের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে বিল করা হয়েছে।

বিল নিয়ে কারো আপত্তি থাকলে সংশোধন করে দেওয়া হবে বলে মন্তব্য করেছেন পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান মঈন উদ্দিন।

বৃহস্পতিবার (২১ মে) এক ভিডিও বার্তায় এমন মন্তব্য করেন দেশের সর্ববৃহৎ বিদ্যুৎ বিতরণ সংস্থার এই চেয়ারম্যান।

ভিডিও বার্তায় তিনি বলেন, কিছু কিছু গ্রাহকের বিলের বিষয়ে অভিযোগ জানতে পেরেছি। আপনারা জানেন করোনার কারণে বাসায় বাসায় গিয়ে মিটার রিডিং নেওয়া ঝুঁকিপূর্ণ। সে কারণে গত বছরের একই মাসের সঙ্গে মিলিয়ে বিল করা হয়েছে। এতে করে অনেকের বিলে তারতম্য রয়ে গেছে। কোনো গ্রাহক সমস্যা মনে করলে ঠিক করে দেওয়া হবে। আমরা চাই গ্রাহকের সন্তুষ্টি নিশ্চিত করতে।

অনেক গ্রাহক অভিযোগ করেছেন মার্চের চেয়ে দ্বিগুণ তিন গুণ বেশি বিদ্যুৎ বিল পাঠানো হয়েছে। এমন অনেক গ্রাহক রয়েছেন যাদের বাসা করোনার কারণে পুরোপুরি বন্ধ তবুও অনেক বেশি বিদ্যুৎ বিল করা হয়েছে।

বিতরণ সংস্থাগুলোর সূত্রে জানা গেছে, এখন বাড়তি বিল জমা দিলেও করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে তখন মিটার দেখে সমন্বয় করা হবে। কেউ বেশি বিল দিলে পরের মাসে তার বিল কম আসবে।

বিদ্যুৎ বিল নিয়ে গ্রাহকদের আপত্তি প্রসঙ্গে বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী বলেন, গ্রাহককে বিষয়টি আগেই অবগত করা উচিত ছিল।

বিদ্যুৎ বিল নিয়ে বিতরণ কোম্পানিগুলোর কর্মকাণ্ডে উষ্মা প্রকাশ করেন প্রতিমন্ত্রী। তার পরেই বাধ্য হয়ে ভিডিও বার্তায় দায় স্বীকার করে নেন আরইবি চেয়ারম্যান।

আপনার মতামত লিখুন :