মসিক নির্বাচন: মেয়র পদে ৭ প্রার্থীর মনোনয়ন দাখিল



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ময়মনসিংহ
মসিক নির্বাচন: মেয়র পদে ৭ প্রার্থীর মনোনয়ন দাখিল

মসিক নির্বাচন: মেয়র পদে ৭ প্রার্থীর মনোনয়ন দাখিল

  • Font increase
  • Font Decrease

উৎসবমুখর পরিবেশে ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে (মসিক) মেয়র পদে ৭ প্রার্থী মনোনয়ন দাখিল করেছেন। এর মাঝে একজন জাতীয় পার্টির ও ৬ জন স্বতন্ত্র প্রার্থী। স্বতন্ত্র ৬ প্রার্থী জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ নেতা।

মঙ্গলবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) সকাল থেকে বিকাল পৌনে ৪টায় আঞ্চলিক নির্বাচন কার্যালয়ে প্রার্থীরা মনোনয়ন দাখিল করেন।

একই সাথে ৩৩ ওয়ার্ডে সাধারণ কাউন্সিলর পদে ১৬৪ জন এবং ১১ সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে মনোনয়ন দাখিল করেছেন ৬৯ জন।

ময়মনসিংহ আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং অফিসার মোহাম্মদ বেলায়েত হোসেন চৌধুরী বার্তা২৪.কমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, সকাল থেকে উৎসবমুখর পরিবেশে প্রার্থীরা মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। মেয়র পদে ৭ জন, সাধারণ কাউন্সিলর পদে ১৬৪ জন এবং সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ৬৯ জন মনোনয়ন জমা দিয়েছেন।

নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা যায়, মেয়র পদে মনোনয়ন দাখিল করা প্রার্থীরা হলেন, সদ্য সাবেক সিটি মেয়র ও মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. ইকরামুল হক টিটু, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এহতেশামুল আলম, শহর আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি সাদেকুল হক খান (টজু), মহানগরের সহ-সভাপতি অধ্যাপক গোলম ফেরদৌস জিলু, প্রয়াত পৌর মেয়র মাহমুদ আল নূর তারেকের ছেলে অ্যাড. ফারমার্জ আল নূর রাজীব, জাতীয় পার্টির প্রার্থী শহীদুল ইসলাম (স্বপন মন্ডল) এবং কেন্দ্রীয় কৃষক লীগের সাবেক সদস্য কৃষিবিদ ড. রেজাউল হক।

সাধারণ কাউন্সিলর পদে; নগরীর ১ নম্বরে ৫ জন, ২ নম্বরে ৪, ৩ নম্বরে ৩, ৪ নম্বরে ৬ জন, ৫ নম্বরে ৬ জন, ৬ নম্বরে ৬ জন, ৭ নম্বরে ৫ জন, ৮ নম্বরে ৪ জন, ৯ নম্বরে ৯ জন, ১০ নম্বরে ৪ জন, ১১ নম্বরে ২ জন, ১২ নম্বরে ৪ জন, ১৩ নম্বরে ৮ জন, ১৪ নম্বরে ৬ জন, ১৫ নম্বরে ৬ জন, ১৬ নম্বরে ২ জন, ১৭ নম্বরে ২ জন, ১৮ নম্বরে ৫ জন, ১৯ নম্বরে ৭ জন, ২০ নম্বরে ৩ জন, ২১ নম্বরে ৪ জন, ২২ নম্বরে ৭ জন, ২৩ নম্বরে ৪ জন, ২৪ নম্বরে ৯ জন, ২৫ নম্বরে ৫ জন, ২৬ নম্বরে ৩ জন, ২৭ নম্বরে ৩ জন, ২৮ নম্বরে ৫ জন, ২৯ নম্বরে ৮ জন, ৩০ নম্বরে ৫ জন, ৩১ নম্বরে ৪ জন, ৩২ নম্বরে ৬ জন, ৩৩ নম্বরে ৪ জনসহ মোট ১৬৪ জন।

সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ওয়ার্ড; ১ নম্বরে ১০ জন, ২ নম্বরে ৭ জন, ৩ নম্বরে ৪ জন, ৪ নম্বরে ৫ জন, ৫ নম্বরে ৫ জন, ৬ নম্বরে ৭ জন, ৭ নম্বরে ৪ জন, ৮ নম্বরে ৬ জন, ৯ নম্বরে ৭ জন, ১০ নম্বরে ৬ জন, ১১ নম্বরে ৮ জনসহ মোট ৬৯ জন।

সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ওয়ার্ড; ১ নম্বরে ১০ জন, ২ নম্বরে ৭ জন, ৩ নম্বরে ৪ জন, ৪ নম্বরে ৫ জন, ৫ নম্বরে ৫ জন, ৬ নম্বরে ৭ জন, ৭ নম্বরে ৪ জন, ৮ নম্বরে ৬ জন, ৯ নম্বরে ৭ জন, ১০ নম্বরে ৬ জন, ১১ নম্বরে ৮ জনসহ মোট ৬৯ জন।

দুপুরে জেলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের একাংশ নিয়ে মনোনয়নপত্র জমা দিয়ে সদ্য সাবেক মেয়র মো. ইকরামুল হক টিটু বলেন, বিগত পাঁচটি বছর জনগণের পাশে থেকে কাজ করেছি। চেষ্টা করেছি নগরীকে সুন্দরভাবে সাজানোর জন্য। কিন্তু কোভিড ও ইউক্রেন-রাশিয়ার যুদ্ধের কারণে প্রত্যাশিত উন্নয়ন করতে পারিনি। প্রত্যেকটি ওয়ার্ডে আমাদের উন্নয়ন কাজ চলমান রয়েছে। গত নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় মেয়র নির্বাচিত হয়েছিলাম। এবার অনেকেই প্রার্থী হয়েছেন। যার কারণে ভোট উৎসবমুখর হবে। আশা করি জনগণ আগামী ৯ মার্চ আমার কাজের মূল্যায়ন ভোটের মাধ্যমে করবেন।

মনোনয়নপত্র জমা দিয়ে মেয়র প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এহতেশামূল আলম বলেন, বিগত পাঁচ বছরে নগরীতে মানুষের আশা- আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলন ঘটেনি। যার কারণে মানুষ পরিবর্তন চাচ্ছে। সাধারণ মানুষের প্রত্যাশা পূরণ করতে আমি মেয়র প্রার্থী হয়েছি। মেয়র নির্বাচিত হলে নগরীতে দীর্ঘদিনের দুর্ভোগ যানজট, জলাবদ্ধতা এবং ধুলাবালুমুক্ত নগরী গড়ে তুলবো।

শহর আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি ও মেয়র প্রার্থী অ্যাড. সাদেক খান মিল্কি টজু বলেন, নির্দিষ্ট প্রতীক না থাকলেও আওয়ামী লীগের অধিকাংশ নেতাকর্মী আমার সঙ্গে রয়েছে। নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার আমার বড় শক্তি ইমেজ। শহরে আমার ভালো একটি ইমেজ রয়েছে। এবার পরিবর্তনের হাওয়া লেগেছে। আশা করি সাধারণ ভোটাররা আমাকে মূল্যায়ন করবে।

জেলা জাতীয় পার্টির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও মেয়র প্রার্থী শহীদুল ইসলাম স্বপন মন্ডল বলেন, ময়মনসিংহে জাতীয় পার্টির একটি ভোট ব্যাংক রয়েছে। যেহেতু এখানে আওয়ামী লীগের একাধিক প্রার্থী রয়েছে সেহেতু মানুষের জাতীয় পার্টিকেই বেছে নেবে। তবে যদি সুষ্ঠু নির্বাচন হয় তাহলে আমি জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী। জয়ী হলে অবহেলিত ময়মনসিংহ নগরীকে ঢেলে সাজাবো সাধারণ মানুষকে সঙ্গে নিয়ে।

১৫৭ বছরের পুরোনো ময়মনসিংহ পৌরসভা ২০১৮ সালের ১৪ অক্টোবর সিটি করপোরেশনে উন্নীত হলে ২০১৯ সালের ৫ মে প্রথম সিটির ভোট গ্রহণ হয়। তখন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ইকরামুল হক টিটু মেয়র নির্বাচিত হলে সাধারণ কাউন্সিলর এবং সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ভোট হয়েছিল।

সূত্রমতে, ৯১ দশমিক ৩১৫ বর্গকিলোমিটারের আয়তনের এই নগরীতে ৩৩টি সাধারণ ওয়ার্ড ও ১১টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে মোট ভোটার রয়েছে ৩ লাখ ৩৬ হাজার ৪৯০ জন। এর মধ্যে ১ লাখ ৬৩ হাজার ৮৭১ জন পুরুষ এবং ১ লাখ ৭২ হাজার ৬১০ জন নারী। এছাড়াও তৃতীয় লিঙ্গের ভোটার রয়েছে ৯ জন। এতে মোট ভোটে কেন্দ্র রয়েছে ১২৮টি। ভোট গ্রহণ হবে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম)।

   

উপজেলা নির্বাচন: কক্সবাজার থেকে মনোনয়নপত্র জমা দিলেন যারা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, কক্সবাজার
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

আগামী ৮ মে কক্সবাজার সদর, মহেশখালী ও কুতুবদিয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষদিন ছিল আজ।

সোমবার (১৫ এপ্রিল) বিকেল ৪টা পর্যন্ত ৩ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন ১৩ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ১১ জন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৮ জন মনোনয়ন পত্র জমা দিয়েছেন।

বিষয়টি বার্তা২৪.কম-কে নিশ্চিত করেছেন- কক্সবাজার জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিন। তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশনের ঘোষিত প্রথম ধাপের তফসিল অনুযায়ী, মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ সময় ১৫ এপ্রিল, মনোনয়নপত্র বাছাই ১৭ এপ্রিল, রিটার্নিং কর্মকর্তার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আপিল ১৮ থেকে ২০ এপ্রিল, আপিল নিষ্পত্তি ২১ এপ্রিল, প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ সময় ২২ এপ্রিল, প্রতীক বরাদ্দ ২৩ এপ্রিল। ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে ৮ মে।

কক্সবাজার সদর উপজেলা থেকে যারা মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন:

চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন- বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল আবছার, মুজিবুর রহমান, শহিদুল ইসলাম বাহাদুর, মোহাম্মদ নজিবুল ইসলাম, কাইসারুল হক জুয়েল।

ভাইস চেয়ারম্যান পদে মাত্র একজন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। তিনি হলেন বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান রশিদ মিয়া।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন- রুমানা আক্তার, চম্পা উদ্দিন, তাহমিনা নুসরাত জাহান লোনা।

মহেশখালী উপজেলা পরিষদ যারা মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন:

চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন- হাবিব উল্লাহ, গোলাম কুদ্দুস চৌধুরী, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান শরীফ বাদশা, জয়নাল আবেদীন ও আব্দুল্লাহ্ আল নিশান।

ভাইস চেয়ারম্যান (পুরুষ) পদে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন- বর্তমান উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মুহাম্মদ জহির উদ্দিন, মিফতাহুল করিম বাবু, শাহজাহান পারুল, জাহেদুল হুদা, মোহাম্মদ আবু ছালেহ্, সাইফুল কাদির, মঈন উদ্দিন তোফায়েল।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন- মিনুয়ারা মিনু, জাহানারা বেগম ও মনোয়ারা বেগম।

কুতুবদিয়া উপজেলা পরিষদ যারা মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন:

চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন- হানিফ বিন কাশেম, ফরিদুল ইসলাম চৌধুরী, আছহাব উদ্দিন।

ভাইস চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন- আকবর খন, জুনাইদুল হক, জহির উদ্দিন তালুকদার।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন- হাসিনা আক্তার, ছৈয়দা মেহেরুন্নেছা।

;

উপজেলা নির্বাচন: প্রথম ধাপে ১৮৯১ প্রার্থীর মনোনয়ন দাখিল



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

আসন্ন ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রথম ধাপের ভোটে চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান, ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মিলে এক হাজার ৮৯১ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন।

সোমবার (১৫ এপ্রিল) মনোনয়নপত্র দাখিলের সময় শেষে এমন তথ্য জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশনের (ইসি) অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার দেবনাথ।

ইসির এই অতিরিক্ত সচিব বলেন, এবার নির্বাচনে সম্পূর্ণ অনলাইনে মনোনয়নপত্র জমা নেওয়া হয়েছে। এতে চেয়ারম্যান পদে ৬৯৬ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৭২৪ জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪৭১ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন।

নির্বাচন কমিশন ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, প্রথম ধাপের মনোনয়নপত্র বাছাই ১৭ এপ্রিল। রিটার্নিং কর্মকর্তার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আপিল ১৮ থেকে ২০ এপ্রিল। আপিল নিষ্পত্তি ২১ এপ্রিল, প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ সময় ২২ এপ্রিল। প্রতীক বরাদ্দ ২৩ এপ্রিল আর ১৫০ উপজেলায় ভোটগ্রহণ হবে ৮ মে।

এই ধাপের নির্বাচনে রিটার্নিং কর্মকর্তা হিসেবে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা হিসেবে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তাদের নিয়োগ করা হয়েছে। রিটার্নিং কর্মকর্তার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে দায়ের করা আপিল আবেদন নিষ্পত্তি করবেন আপিল কর্তৃপক্ষ হিসেবে জেলা প্রশাসক।

দ্বিতীয় ধাপের তফসিল অনুযায়ী, মনোনয়নপত্র দাখিল ২১ এপ্রিল শেষ সময়, মনোনয়নপত্র বাছাই ২৩ এপ্রিল, আপিল গ্রহণ ২৪-২৬ এপ্রিল, আপিল নিষ্পত্তি ২৭ থেকে ২৯ এপ্রিল। প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ সময় ৩০ এপ্রিল, প্রতীক বরাদ্দ প্রতীক বরাদ্দ ২ মে আর ১৬১ উপজেলায় ভোটগ্রহণ হবে ২১ মে।

এই ধাপের নির্বাচনে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসকদের রিটার্নিং কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। ভোটারের সংখ্যা ৫ লাখের বেশি যেখানে সেখানে একাধিক সহকারী রিটার্নিং অফিসার নিয়োজিত থাকবেন।

চার ধাপের উপজেলা ভোটের পরবর্তী দুই ধাপের নির্বাচন ২৯ মে ও ৫ জুন অনুষ্ঠিত হতে পারে।

;

দুই ইউপি নির্বাচনের ভোট স্থগিত



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
দুই ইউপি নির্বাচনের ভোট স্থগিত

দুই ইউপি নির্বাচনের ভোট স্থগিত

  • Font increase
  • Font Decrease

ভোলা জেলার লালমোহন উপজেলাধীর ধলীগৌরনগর ও লর্ডহার্ডিঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের সাধারণ নির্বাচন স্থগিত করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। আগামী ২৮ এপ্রিল এই দুই ইউনিয়ন পরিষদের ভোট হওয়ার কথা ছিল।

 

সোমবার (০৮ এপ্রিল) নির্বাচন কমিশনের নির্বাচন পরিচালনা শাখার উপসচিব মো. আতিয়ার রহমান স্বাক্ষরিত চিঠিতে এ তথ্য জানায়।

ইসি জানায়, মাননীয় হাইকোর্ট বিভাগের রিট পিটিশন নং ৩৫৮৬/২০২৪ ও রিট পিটিশন নং ৩৫৮৭/২০২৪ এর গত ২০ মার্চর আদেশ প্রতিপালনার্থে আগামী ২৮ এপ্রিলে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া ভোলা জেলার লালমোহন উপজেলাধীন ধলীগৌরনগর ও লর্ডহার্ডিঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের সাধারণ নির্বাচন স্থগিত রাখার জন্য নির্বাচন কমিশন সিদ্ধান্ত দিয়েছে।

এই অবস্থায়, নির্বাচন কমিশনের সিদ্ধান্ত অনুসারে প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণের জন্য নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হলো।

;

উপজেলা নির্বাচন: প্রার্থীর মনোনয়নকারীর নাম জানাতে দলগুলোকে ইসির চিঠি 



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
প্রার্থীর মনোনয়নকারীর নাম জানাতে দলগুলোকে ইসির চিঠি 

প্রার্থীর মনোনয়নকারীর নাম জানাতে দলগুলোকে ইসির চিঠি 

  • Font increase
  • Font Decrease

আসন্ন ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপের ভোটগ্রহণ উপলক্ষে প্রার্থী মনোনয়নকারীর নাম জানাতে দলগুলোকে নির্দেশনা দিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। এক্ষেত্রে আগামী সাতদিনের মধ্যে নাম জানাতে হবে।

বুধবার (০৩ এপ্রিল) ইসির জনসংযোগ কর্মকর্তা শরিফুল আলম স্বাক্ষরিত এক নির্দেশনায় এই তথ্য জানানো হয়। 

জনসংযোগ শাখা জানায়, আগামী ২১ মে ১৬১টি উপজেলা পরিষদ সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

উপজেলা পরিষদ নির্বাচন বিধিমালা, ২০১৩ এর বিধি ১৫ এর উপবিধি (৩)(গ)(ইইই) অনুযায়ী চেয়ারম্যান/ভাইস চেয়ারম্যান/মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে অংশগ্রহণের জন্য নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলের সভাপতি বা সাধারণ সম্পাদক বা সমপর্যায়ের পদাধিকারী বা তাহাদের নিকট হতে ক্ষমতাপ্রাপ্ত ব্যক্তির স্বাক্ষরসহ তালিকা বর্ণিত বিধি অনুযায়ী তফসিল ঘোষণার ৭ (সাত) দিনের মধ্যে সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং অফিসারকে ও অনুলিপি নির্বাচন কমিশনে পাঠাতে হবে।

তফসিল অনুযায়ী, মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ সময় ২১ এপ্রিল, মনোনয়নপত্র বাছাই ২৩ এপ্রিল, আপিল গ্রহণ ২৪-২৬ এপ্রিল, আপিল নিষ্পত্তি ২৭ থেকে ২৯ এপ্রিল। প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ সময় ৩০ এপ্রিল, প্রতীক বরাদ্দ ০২ মে।

;