কথা বলছেন সৌমিত্র, মিউজিক থেরাপিতে ভালো সাড়া

বিনোদন ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়

সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়

  • Font increase
  • Font Decrease

সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের করোনা টেস্টের রিপোর্ট নেগেটিভ আসার পর থেকে তার শারীরিক অবস্থা ধীরে ধীরে উন্নতির দিকে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। তবে এখনও তাকে কোভিড-আইসিইউ ইউনিটে রাখা হয়েছে।

বেলভিউ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে- ৮৫ বছর বয়সী এই তারকাকে বর্তমানে মিউজিক থেরাপি দেওয়া হচ্ছে। যেখানে তিনি তার নিজের অভিনীত ছবির পছন্দের গানগুলো শুনছেন। আবার কখনও কখনও শুনছেন রবীন্দ্র সংগীতও।

সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের জন্য গঠিত মেডিক্যাল বোর্ডের সদস্য চিকিৎসক অরিন্দম কর বলেন, ‘কোভিড রিপোর্ট নেগেটিভ আসার পর এখন ভালোই সাড়া দিচ্ছেন সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়। তার তন্দ্রাচ্ছন্ন অনেকটাই কেটে গেছে। মিউজিক থেরাপির পাশাপাশি তার জন্য ভালো হয় এমন আরও কিছু থেরাপি দেওয়া হচ্ছে তাকে।”

অরিন্দম কর আরও বলেন, ‘কোভিড টেস্টের রিপোর্ট নেগেটিভ আসার পর তার জ্বর আসেনি। তার অক্সিজেনের মাত্রাও ঠিক রয়েছে।’

১৯৩৫ সালের ১৯ জানুয়ারি কলকাতার মির্জাপুরে জন্মগ্রহণ করেন সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের আমহার্স্ট স্ট্রিট সিটি কলেজে সাহিত্য নিয়ে পড়াশোনা করেছেন।

১৯৫৯ খ্রিস্টাব্দে অস্কারজয়ী পরিচালক সত্যজিৎ রায়ের ‘অপুর সংসার’-এর মধ্য দিয়ে অভিনয় জগতে পা রাখেন সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়। এরপর তিনি সত্যজিৎ রায়ের ৩৪টি সিনেমার ভিতর ১৪টিতে অভিনয় করেছেন। পরবর্তীতে তিনি মৃণাল সেন, তপন সিংহ, অজয় করের মত জনপ্রিয় পরিচালকদের সঙ্গে কাজ করেছেন।

সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের অভিনীত সিনেমাগুলোর মধ্যে ‘ক্ষুধিত পাষাণ’, ‘দেবী’, ‘স্বরলিপি’, ‘সমাপ্তি তিনকন্যা’, ‘আগুন’, ‘বেনারসি’, ‘অভিযান’, ‘শেষ প্রহর’, ‘চারুলতা’, ‘বাক্স বদল’, ‘কাপুরুষ’, ‘কাচ কাটা হীরে’, ‘বেলাশেষে’, ‘প্রাক্তন’ উল্লেখযোগ্য।

শুধু সিনেমা নয়, অসংখ্য নাটক, যাত্রা এবং টিভি ধারাবাহিকে অভিনয় করেছেন। অভিনয় ছাড়া তিনি নাটক ও কবিতা লিখেছেন। করেছেন পরিচালনার কাজটিও।

ভারত সরকার কর্তৃক সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় ২০০৪ সালে ‘পদ্ম ভূষণ’ ও ২০১২ সালে ‘দাদাসাহেব ফালকে পুরস্কার’ লাভ করেন। এছাড়া ২০১৭ সালে তিনি ফ্রান্স সরকার কর্তৃক ‘লিজিওন অফ অনার’ লাভ করেন। একই বছর পশ্চিমবঙ্গ সরকার কর্তৃক ‘বঙ্গবিভূষণ’ পুরস্কার অর্জন করেন। যদিও ২০১৩ সালে তিনি একই পুরস্কার প্রত্যাখ্যান করেছিলেন।