ক্ষীণ হয়ে আসছে সৌমিত্রের বেঁচে থাকার আশা



বিনোদন ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়

সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়

  • Font increase
  • Font Decrease

শারীরিক অবস্থার দ্রুত অবনতি ঘটছে সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের। আশা ক্রমেই ক্ষীণ হয়ে আসছে। চিকিৎসাতেও সাড়া দিচ্ছেন না তিনি। ডিফরেন্ট লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়েছে তাকে। শনিবার (১৪ নভেম্বর) বেলভিউ হাসপাতালের পক্ষ থেকে এমনটাই জানিয়েছেন চিকিৎসক অরিন্দম কর।

ডা. অরিন্দম কর জানান, তাদের মনে হচ্ছে প্রায় ৪০ দিনের লড়াই কোনও কাজে আসল না। চিকিৎসায় সাড়া দিচ্ছেন না বর্ষীয়ান এই অভিনেতা। একমাত্র অলৌকিক কিছু ঘটলেই এই অবস্থা থেকে তার ফিরে আসা সম্ভব বলে মনে করছেন ডা. কর।

ইতিমধ্যেই সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের পরিবারকে পুরো বিষয়টি বিস্তারিত জানানো হয়েছে। তারাও বিষয়টি মেনে নিচ্ছেন। তবে এখনও হাল ছাড়ছেন না চিকিৎসকরা। শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত তাঁরা লড়াই চালিয়ে যাবেন বলেই জানান।

বুধবার ৮৫ বছর বয়সী এই অভিনেতার ট্র্যাকিওস্টমি করা হয়েছিলো। সফলভাবেই তা সম্পন্ন হয়েছিলো। বৃহস্পতিবার তার প্রথম পর্যায়ের প্লাজমাফেরেসিস সম্পন্ন হয়। আশা করা হয়েছিলো প্লাজমাফেরেসিসের পর অভিনেতার আচ্ছন্নভাব ও অসংলগ্নতা অনেকটাই কেটে যাবে। কিন্তু শুক্রবার তার কিছুই হলো না। উল্টো পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে থাকে। যেখানে সৌমিত্রের চেতনাস্তর ৯ থেকে ১০-এর মধ্যে ছিল। তা পাঁচ পর্যন্ত নেমে গিয়েছিল। এই স্তর তিনে পৌঁছে গেলে ব্রেন ডেথ হিসেবে ধরে নেওয়া হয়।

গত ১ অক্টোবর থেকে বাড়িতে থাকাকালীন তার শরীরটা ভালো যাচ্ছিল না। শরীরে জ্বর ওঠে। তবে করোনার কোনো উপসর্গ দেখা যায়নি। এরপরই চিকিৎসকের পরামর্শে তার করোনার নমুনা পরীক্ষা করা হলে গত ৫ অক্টোবর তার করোনার পজিটিভ রিপোর্ট আসে। ৬ অক্টোবর তাকে ভর্তি করানো হয় বেলভিউ নার্সিংহোমে। নার্সিংহোমে সর্বশেষ গত ১৪ অক্টোবর তার করোনা নমুনা পরীক্ষায় নেগেটিভ রিপোর্ট আসে। এরপরই সৌমিত্র সুস্থ হতে থাকেন। যদিও তার করোনা ছাড়া অন্যান্য রোগ রয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে- প্রোস্টেট ক্যানসার, সিওপিডি, প্রেশার, সুগারের মতো রোগ। তার ওপর ছিল করোনা পজিটিভ। কিন্তু দুর্গা অষ্টমীর রাত থেকে তার স্বাস্থ্যের ক্রম অবনতি শুরু হয়।