‘তুফান’-এর ভাইরাল সংলাপ তৈরীর গল্প বললেন চঞ্চল



মাসিদ রণ, সিনিয়র নিউজরুম এডিটর, বার্তা২৪.কম
চঞ্চল চৌধুরী / ছবি : ফেসবুক

চঞ্চল চৌধুরী / ছবি : ফেসবুক

  • Font increase
  • Font Decrease

‘তুফান, খুব ভয় পাইছি রে’- ঈদের আলোচিত সিনেমা ‘তুফান’-এর ভাইরাল সংলাপ এটি। ছবির টিজারে জাদরেল অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরীর মুখে এই সংলাপ প্রকাশের পর থেকেই তা নেটিজেনদের মন জয় করেছে। এবার সেই জনপ্রিয় সংলাপ তৈরীর নেপথ্যের গল্প শোনালেন চঞ্চল চৌধুরী নিজেই।

সম্প্রতি উপস্থাপক চঞ্চলকে প্রশ্ন করেন, আপনার সিনেমার একাধিক সংলাপ মানুষের মুখে মুখে। এখন যেমন ‘তুফান, খুব ভয় পাইছি রে’ সংলাপটি জনপ্রিয়তার তুঙ্গে। সংলাপগুলো শুটিং করার সময়েই কি পরিকল্পনা করে কাজ করেন যে এটি মানুষের মুখে মুখে রটাতে হবে?

‘তুফান’ সিনেমায় শাকিব খান ও চঞ্চল চৌধুরী

উত্তরে চঞ্চল বলেন, ‘না, এটা পরিকল্পনা করে হয় না। তুফানের সংলাপটির কথাই বলি- এটি যখন শুট হচ্ছিল তখনই পরিচালক রাফী আমাকে বলেছিলেন, চঞ্চল ভাই আপনি যে ডেলিভারিটা দিলেন, এই ডায়লগ ভাইরাল হবে!’

তিনি যোগ করে বলেন, ‘এটা শুধুমাত্র অভিনেতার ডেলিভারির জন্য হয় না। সংলাপটি ঠিক জায়গায় ব্যবহার করা হচ্ছে কিনা সেটিও খুব গুরুত্বপূর্ণ। একই সংলাপ হয়তো বিভিন্ন অভিনেতা বিভিন্ন প্রোডাকশনে দিতে পারে, হয়তো অনেকেরটা অনেক ভালো ডেলিভারিই হচ্ছে, কিন্তু সঠিক জায়গায় হয়তো সংলাপটি ব্যবহার করা হচ্ছে না। এটা হলো একটা ম্যাজিকের মতো। ম্যাজিকটা ঠিকঠাকভাবে যে তৈরী করতে পারে সে সাকসেসফুল! দর্শকের মনোভাব একজন নির্মাতা এবং অভিনেতা-অভিনেত্রীদের বুঝতে হয়। তাহলেই ম্যাজিকটা তৈরী হয়।’

পুত্র ও স্ত্রীকে নিয়ে চঞ্চল

এই সংলাপে চঞ্চল তার ধারাবাহিক সফলতাকে কিভাবে হ্যান্ডেল করেন সে বিষয়েও কথা বলেছেন। তার ভাষ্য, ‘আমি প্রতিদিন যতোবারই আয়নায় নিজেকে দেখি ততোবারই চঞ্চল চৌধুরী হিসেবেই দেখি। অভিনেতা হিসেবে একটি চরিত্র পেলে সেটির মতো হওয়া আমার কাজ, যা আমি ক্যামেরার সামনে করি। এতে সফলতা ব্যর্থতা আসবে। কিন্তু মনের দিক থেকে আমি সেই পুরনো চঞ্চল চৌধুরী। আমি শেকড়কে আকড়ে ধরে বাঁচার চেষ্টা করি। এ কারণে পরিবার, বন্ধু বান্ধব, পুরনো স্মৃতি সবই আমার কাছে ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ।’

দীর্ঘ অভিনয় ক্যারিয়ারে চঞ্চলের ঝুলিতে অনেক সাফল্য। তিনি এ দেশের অন্যতম শক্তিমান অভিনেতা। যখন নতুন নির্মাতাদের সঙ্গে কাজ করেন তখন কি তারা আপনাকে অভিনয়ের ব্যাপারে কোন নির্দেশনা দিতে পারেন? নাকি সবটাই আপনার ওপর ছেড়ে দেন?

সৃজিত মুখার্জির ‘পদাতিক’ সিনেমায় প্রখ্যাত পরিচালক মৃনাল সেনের চরিত্রে চঞ্চল

জানতে চাইলে চঞ্চল বলেন, ‘কোন নির্মাতা যদি বলেন আপনি আপনার মতো করেন, তাহলে আমি খুব মাইন্ড করি! আমি তখন তাদের সোজাসাপ্টা বলে দিই যে, আমি আমার মতো করলে সেটা আমার মতোই হবে, আমি তো আমার মতো করার জন্য তোমার এখানে আসিনি। তুমি কি চাও সেটা আমাকে বলো, আমি সেভাবেই কাজ করব। আসলে পরিচালক যেভাবে চান সেভাবেই কাজ করি আমি। কোথাও যদি মতের পার্থক্য হয় সেটি আমি নির্মাতার সঙ্গে শেয়ার করি। রাফীর সঙ্গেও তাই করেছি। এর আগে যাদের সঙ্গে সিনেমা করেছি সেটি মেজবাউর রহমান সুমন হোক কিংবা গীয়াস উদ্দিন সেলিম, মোস্তফা সরয়ার ফারুকী, অমিতাভ রেজা সবার সঙ্গেই একইভাবে কাজ করেছি। এমনকি এতো নাটক করেছি, সেখানেও এভাবে কাজ করেছি। গতকালই সালাহউদ্দিন লাভলুর নাটকে কাজ করলাম, সেখানেও একটি সংলাপে আমার মনে হলো উনি যেভাবে চাচ্ছেন সেভাবে ডেলিভারি করাটা ঠিক হবে না। তিনি আমাকে ১৫-২০ বছর আগে থেকে তার নাটকে নিচ্ছেন, আমাকে দিয়ে একভাবে ডায়লগ ডেলিভারি করিয়েছেন। কিন্তু ওই সময়ে আমার যে বয়স, যে ইমেজ তাতে যেভাবে দিয়েছি এখন এই বয়সে এসে সেভাবে দেয়াটা ঠিক হবে না। আমি তাকে বিষয়টি বললাম, তিনিও বিষয়টি বুঝতে পারলেন। এটা আসলে সময়ে দাবী। কোন সময়ে কোন স্পেসে কাজটি করিছি সেটা বোঝা খুব জরুরী।’

চঞ্চল চৌধুরী

ইন্তেখাব দিনার এবার বড়পর্দার খলনায়ক



মাসিদ রণ, সিনিয়র নিউজরুম এডিটর, বার্তা২৪.কম
ইন্তেখাব দিনার

ইন্তেখাব দিনার

  • Font increase
  • Font Decrease

মঞ্চ থেকে টেলিভিশন। তারপর নাম লেখান বড়পর্দায়। তবে ওটিটি আসার পর নিজের জাত আলাদাভাবেই চিনিয়েছেন অভিনেতা ইন্তেখাব দিনার। জটিল ও বৈচিত্র্যময় চরিত্রগুলোতে সাবলিল অভিনয়ের জন্য এখন নির্মাতাদের অন্যরকম আস্থার জায়গায় রয়েছেন এই অভিনেতা।

তাইতো সম্প্রতি আরেকটি চ্যালেঞ্জ হাতে নিলেন দিনার। মেধাবী নির্মাতা ফাখরুল আরেফীন খানের নতুন সিনেমা ‘নীল জোছনা’য় চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন তিনি। এর আগে ‘ভূবন মাঝি’, ‘গণ্ডি’, ‘জেকে ১৯৭১’ ছবিগুলো নির্মাণ করেছেন ফারখরুল। আর এবার সরকারী অনুদানের ‘নীল জোছনা’ সিনেমাটি নির্মাণ করতে যাচ্ছেন মোশতাক আহমেদের প্যারাসাইকোলজি বিষয়ক উপন্যাস ‘নীল জোছনার জীবন’ অবলম্বনে।

ইন্তেখাব দিনার

জানা গেছে, এই সিনেমায় দিনারকে দেখা যাবে সেন্টু নামের চরিত্রে। এটি এই সিনেমার নেতিবাচক চরিত্র। ইন্তেখাব দিনার বলেন, ‘বহু বছর ধরে এমন একটি চরিত্রের অপেক্ষায় ছিলাম। সিনেমাটির গল্প খুবই ভালো লেগেছে। আর নির্মাতার সঙ্গে এটা আমার প্রথম কাজ। আশা করছি, এটি দারুণ একটি চলচ্চিত্র হবে।’ তিনি আরও বলেন, ‘অভিনয়ে নিজের ইমেজ ভেঙে এই ছবিতে ভিন্ন একটি চরিত্রে কাজ করছি। কতটুকু করতে পারছি জানি না, তবে সর্বোচ্চ চেষ্টা দিয়ে এই সিনেমার নেতিবাচক চরিত্রে নিজেকে আবিষ্কার করেছি। আমার ভক্ত আর দর্শকদের কাছে অনুরোধ থাকবে, ছবিটি দেখতে সিনেমা হলে যাবেন সবাই।’

দিনার প্রসঙ্গে নির্মাতা আরেফীন বলেন, ‘এর আগ টেলিভিশন, ওটিটি কিংবা সিনেমায় ইন্তেখাব দিনারকে এমন চরিত্রে দেখা যাইনি। সে জায়গা থেকে বলতে গেলে তিনি দারুণ করেছেন। আশা করছি সিনেমাটির কাজ ঠিকঠাক মতো শেষ করতে পারব।’

পাওলি দাম, পার্থ বড়ুয়া ও মেহের আফরোজ শাওন

‘নীল জোছনা’ সিনেমায় আরও অভিনয় করেছেন পশ্চিমবাংলার নন্দিত অভিনেত্রী পাওলি দাম, বাংলাদেশের জনপ্রিয় তারকা মেহের আফরোজ শাওন, নামকরা সংগীতশিল্পী ও অভিনেতা পার্থ বড়ুয়াসহ অনেকে।

;

কাকে ‘কোকিল নামযুক্ত কূটনী বুড়ি’ বললেন ন্যানসি?



মাসিদ রণ, সিনিয়র নিউজরুম এডিটর, বার্তা২৪.কম
নাজমুন মুনিরা ন্যানসি / ছবি : নূর

নাজমুন মুনিরা ন্যানসি / ছবি : নূর

  • Font increase
  • Font Decrease

জনপ্রিয় সঙ্গীতশিল্পী নাজমুন মুনিরা ন্যানসি এখন গানে বেশ অনিয়মিত। নিজের মতো করে অল্প বিস্তর মিউজিকের কাজ করছেন। তবে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সরব থাকতে দেখা যায় এই শিল্পীকে।

তেমনি আজ নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে এক স্ট্যাটাসের মাধ্যমে খোলা চিঠি লিখেছেন এই শিল্পী। যা তা পড়ে যে কারও চোখ কপালে উঠবে! কেননা তিনি আমাদের সঙ্গীতাঙ্গনেরই কোন এক নারীকে ‘কূটনী বুড়ি’ আর ‘শেয়াল রাণী’সহ আরও নানা রকম গালমন্দ করেছেন! কিন্তু কাকে নিয়ে এমন কটাক্ষপূর্ণ কথাগুলো লিখেছেন তা স্পষ্ট করেননি। ন্যানসি তার সেই ফেসবুক স্ট্যাটাসে একটি শেয়ালের ছবি পোস্ট করে লিখেছেন,

‘বরাবর,

কোকিল নামযুক্ত কূটনী বুড়ি শেয়াল রাণী

পরের চুল কাটা নিয়ে না ভেবে নিজের লেজ কোথায়, কাদের কাছে, কিভাবে এবং কতবার কেটে এসেছো সেটা নিয়ে ভাবো। মেকাপ ছাড়া দেখতে তুমি যেমন বিশ্রী, তোমার কর্মকান্ডও ঠিক তেমন বিশ্রী। মানের ভয় তোমার নেই জানি কিন্ত প্রাণের ভয় তো আছে! তাই যত দ্রুত পারো জঙ্গলে চলে যাও, নইলে যে কোনো সময় রাম প্যাদানি খাবে।

সতর্ক বার্তা প্রচারে....

সুস্থ শিল্প সমাজ’

ন্যানসি

ন্যানসির এই পোস্টের নিচে মো. শামীম ভূইয়া নামের ব্লু টিকধারী ফেসবুক ব্যবহারকারী লিখেছেন, ‘অর্থগুলি বুজতে খুব কষ্ট হয়ে গেলো।’ সেই মন্তব্যের জবাবে ন্যানসি লিখেছেন, ‘আমাদের গানের জগতে বিগত কয়েক বছর ধরে একটাই আবর্জনা। আপনি না বুঝলেও গসিপ মাতা ঠিকই বুঝবে কি বলতে চেয়েছি।’

তানভীর মাহমুদ ন্যানসিকে প্রশ্ন করেছেন, ‘কাকে বললে প্রিয় গায়িকা?’ এই প্রশ্নে ন্যানসি উত্তর দিয়েছেন, ‘লেজ কাটা বুড়ি শেয়াল রাণীকে বলেছি’।

ন্যানসি বিষয়টি পরিষ্কার না করলেও অনেকেই ধরে নিয়েছেন তিনি যেহেতু মিউজিক ইন্ডাস্ট্রির কাউকে উদ্দেশ্য করে কথাগুলো লিখেছেন, তাহলে সেটি হতে পারে আরেক জনপ্রিয় গায়িকা দিলশাদ নাহার কনা। কেননা ন্যানসি তার স্ট্যাটাসের শুরুতেই লিখেছেন ‘কোকিল নামযুক্ত কূটনী বুড়ি’। আর সবাই জানেন যে, সম্প্রতি কনার গাওয়া ‘দুষ্টু কোকিল’ গানটি দারুণ জনপ্রিয় হয়েছে।

ফলে শরিফ খান নামের এক নেটিজেন মন্তব্যের ঘরে লিখেছেন, ‘কনা কনা’।

কনা

বিষয়টিতে অনেকেই সস্তা বিনোদন পেলেও তানিয়া ইমরুজ নামে ন্যানসির এক ভক্ত মন্তব্য করেছেন, ‘ছোটবেলা থেকে আপনার গান শুনি। প্রচন্ড পছন্দের একজন শিল্পী আপনি। কিন্তু কি বিশ্রীভাবে মানুষকে নিয়ে লিখেন আপনি! সেই লেখায় কোনাল (আরেক জনপ্রিয় গায়িকা) আবার হা হা রিয়েক্ট দিচ্ছে। কনার পিছনে দুজন লেগেছেন। আপনাদের কি পেছনে লাগা ছাড়া আর কোন বিজনেস নেই? পা তো চাটে কোনাল, ও আর ওর হাসব্যান্ড শাকিব খানের পা চেটে প্রত্যেকটা মুভিতে গান করে যেই এবার গাইতে পারলো না তাতেই তেলে বেগুনে জ্বলে উঠে আপনার পোস্টে হা হা রিয়েক্ট দিয়ে মনের দুঃখ কমাচ্ছে।’

কোনাল

এদিকে, ন্যানসির এই পোস্টের স্ক্রিনশট শেয়ার করে কোনাল লিখেছেন, ‘বহুরূপী, মিত্থুক, hypocrite, manipulators রা আসলে বুঝে না, অসভ্য আচরণ, বর্বরতা, মিথ্যা প্রোপাগান্ডা ছড়াতে ছড়াতে মানুষ টায়ার্ড হয়ে গেলেও আল্লাহ টায়ার্ড হন না। রাম প্যাদানির সময় আসার আগে তার নিজের বেঁচে থাকা সম্মানটুকু নিয়ে সতর্ক হয়ে যাওয়া উচিত। অনেক হয়েছে! মানুষের সহ্যের সীমা থাকে। সীমা অতিক্রম করাটা আল্লাহও পছন্দ করেননা! ধন্যবাদ ন্যানসি আপু অনেকের মতো চুপ না থেকে বরাবরই সত্যটা বলার জন্য।’

;

আম্বানিদের বিয়েতে এবার ঘোমটা দিয়ে হাজির কিম!



মাসিদ রণ, সিনিয়র নিউজরুম এডিটর, বার্তা২৪.কম
কিম কার্দাশিয়ানের এই নতুন লুক ভাইরাল হয়েছে

কিম কার্দাশিয়ানের এই নতুন লুক ভাইরাল হয়েছে

  • Font increase
  • Font Decrease

হলিউডের অন্যতম বোল্ড তারকা কিম কার্দাশিয়ান। প্রতিনিয়ত আবেদনময় পোশাকে হাজির হন সোশ্যাল মিডিয়ায়| তবে সেই তারকা এবার অনন্ত আম্বানির বিয়েতে ঘোমটা মাথায় হাজির!


না একেবারে ভারতীয় নারীদের মতো ঘোমটা তিনি দেননি। লাল টুকটুকে বৈচিত্র্যময় কাটিংয়ের গাউনের সঙ্গে ফ্যাশনের ছোঁয়া দিতে এই ঘোমটা ব্যবহার করেছেন ডিজাইনার


শুধু ঘোমটা নয়, গাঢ় সবুজ পাথরের টিকলিও পরেছেন কিম। তবে পোশাকটি ছিলো বরাবরের মতোই বেশ খোলামেলা। আজ অনন্ত-রাধিকার রিসেপশন পার্টিকে কিমের সাজ এটি


এরইমধ্যে কিমের এই ভিন্নধর্মী লুক সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়েছে
;

উঠতি গায়কের সঙ্গে জনপ্রিয় অভিনেত্রী সোহিনীর বিয়ে কাল



মাসিদ রণ, সিনিয়র নিউজরুম এডিটর, বার্তা২৪.কম
শোভন গাঙ্গুলি ও সোহিনী সরকার

শোভন গাঙ্গুলি ও সোহিনী সরকার

  • Font increase
  • Font Decrease

অনেকদিন থেকেই কলকাতার জনপ্রিয় অভিনেত্রী সোহিনী সরকারের সঙ্গে সেখানকার উঠতি গায়ক শোভন গাঙ্গুলির বিয়ের গুঞ্জন চলছে। গত বছর অভিনেতা যীশু সেনগুপ্ত আয়োজিত একটি অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়ার সময় ঘনিষ্ঠতা বাড়ে তাদের। অবশেষে বিয়ের গুঞ্জন সত্যি হতে চলেছে।

হিন্দুস্তান টাইমস ওটিটি প্লে’র প্রতিবেদনে জানা গেছে, ১৫ জুলাই অর্থাৎ আগামীকাল কলকাতার বাইরে একটি ফার্মহাউসে গাঁটছড়া বাঁধবেন সোহিনী-শোভন।

সোহিনী সরকার

এদিন সকাল বেলা গায়ে হলুদের পর রেজিস্ট্রি বিয়ে করবেন তারা। আপাতত বিয়ের অন্যসব নিয়ম বাদ রেখে শুধুমাত্র পরিবারের সদস্য এবং ঘনিষ্ঠ বন্ধুদের নিয়ে ছোটখাটো একটি অনুষ্ঠান হবে। এ বছরের শীতকালে ইন্ডাস্ট্রির বন্ধুদের জন্য একটা বড় পার্টি দেবেন সোহিনী-শোভন।

বিয়ের দিন লাল শেডের বেনারসি পরবেন সোহিনী। আর শোভন পরবেন ধুতি-কুর্তা। তবে সোহিনীর বিয়েতে কোনও বিরিয়ানি থাকছে না। মাটন ও মাছের সঙ্গে বাঙালি খাবার পরিবেশন করা হবে অতিথিদের।

শোভন গাঙ্গুলি

মাসখানেক আগে এই জুটি একসঙ্গে বিদেশ ভ্রমণে গিয়ে আংটি বদল সেরেছেন। তেমন বড় তারকা কিংবা অনেক ধনী না হলেও সোহিনীর আগে শোবিজ তারকাদের মধ্যেই একাধিক প্রেমিকা ছিলো সারেগামাপা বাংলা’র চ্যাম্পিয়ন হওয়া শোভনের। সেই তালিকায় রয়েছেন তুমুল জনপ্রিয় গায়িকা ইমন চক্রবর্তী ও অভিনেত্রী স্বস্তিকা দত্ত। সোহিনীও শোভনের আগে কলকাতার হ্যান্ডসাম হাঙ্ক অভিনেতা রণজয়ের সঙ্গে দারুণ রোমান্টিক সম্পর্কে ছিলেন।

স্বস্তিকা দত্ত, রণজয় ও ইমন চক্রবর্তী
;