গত শতকের সবচেয়ে নৃশংসতম গণ-আত্মহত্যার কাহিনী



ওসমান জাফর, কন্ট্রিবিউটিং করেসপন্ডেন্ট
জিম জোনসের অনুসারীদের একাংশ

জিম জোনসের অনুসারীদের একাংশ

  • Font increase
  • Font Decrease

ধর্ম মানুষের কল্যাণের জন্য। কিন্তু বহুকাল ধরে কিছু ব্যক্তি ধর্মকে পুঁজি করে চালিয়েছে জঘন্য নৃশংস কর্মকাণ্ড। এমনকি গত শতকের গণআত্মহত্যা-খুনের ঘটনাটিও ঘটেছে জিম জোনস্ নামে এক ধর্মগুরুর প্ররোচনায় ও নির্দেশে, গায়ানায়।

স্বঘোষিত ধর্মগুরু জিম জোনস্

১৮ নভেম্বর, ১৯৭৮। গায়নার জঙ্গল বেষ্টিত এক প্রত্যন্ত এলাকা। নাম জোনস্ টাউন। আশেপাশে কোনো জনপদ নাই। একটা স্টেজের সামনে বসে আছেন কালো চশমা পরিহিত একজন ধর্মগুরু নাম জিম জোনস্। গায়ে কোর্ট টাই, প্যান্ট। একটা পাটাতনের ওপর সিরিয়াল ধরে আসছে ছোট্ট ছোট্ট শিশুরা, তাদের চোখ মুখে আতঙ্ক। প্রাপ্তবয়স্ক নারী-পুরুষরাও আসছে। তাদের চোখ-মুখে আতঙ্ক, বিষণ্নতার ছাপ। এদেরকে জোর করে স্টেজের মঞ্চের সামনের দিকে আসতে বাধ্য করা হচ্ছে। চারদিক ঘিরে রেখেছে ধর্মগুরুর একদল পোষা বাহিনী। তাদের হাতে রাইফেল, তাক করা। মঞ্চের সামনে দু-তিনটা বালতিতে ফ্লেভারমিশ্রিত বেভারেজের সাথে সায়ানাইড মিশ্রণ করা হচ্ছে। একটার পর একটা ইনজেকশনের প্যাকেট ছিঁড়ে সেগুলোতে ভরা হচ্ছে ফ্লেভারমিশ্রিত বেভারেজের সাথে সায়ানাইড। শিশুরা কাঁদো কাঁদো মুখে এগিয়ে যাচ্ছে আর তাদের শরীরে পুশ করা হচ্ছে সায়ানাইড। একজনের পর একজন কাতরাতে কাতরাতে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ছে।

গণ-আত্মহত্যায় ব্যবহৃত সায়ানাইড মিশ্রণ ও ইনজেকশন

নারী আর শিশুরাই বেশি। শিশুরা শেষ হওয়ার পর প্রাপ্তবয়স্ক নারী, পুরুষ, বুড়া-বুড়ি সকলের গায়ে ইনজেকশন পুশ করা হচ্ছে। মাইকে উত্তেজিত অবস্থায় জোরে জোরে মটিভেশনাল স্পেরেচুয়াল আত্নহত্যামূলক বক্তৃতা দিচ্ছেন ধর্মগুরু জিম জোনস্। ওদিকে জোনস্ টাউন থেকে কয়েক কিলো দূরে একটা হেলিকাপ্টারের পাশে পড়ে আছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসম্যান লিও রায়ানের লাশ। তার সাথে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আরো কয়েকজন সাংবাদিক, ফটোগ্রাফার, মানবাধিকার কর্মী, জোনস্ টাউন থেকে নিজের মেয়েকে নিয়ে যেতে আসা বাবার লাশ পড়ে আছে। তাদেরকে গুলি করেছে জিম জোনসের অনুসারী একদল পোষা বাহিনী। আস্তে আস্তে জোনস্ টাউন একটা বিশাল লাশের স্তূপে পরিণত হচ্ছে। অবশেষে ধর্মগুরু জিম জোনস্ সায়ানাইডের মরার দৃশ্য দেখে নিজেও আতঙ্কিত। যে ডাক্তার এতক্ষণ অন্যদের শরীরে ইনজেকশন পুশ করেছে সে এবার নিজের গায়ে পুশ করে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ল। অতঃপর জিম জোনস্ নিজের মাথায় গুলি করে আত্নহত্যা করেন। এদিকে গায়নার রাজধানী জর্জটাউনে পিপল’স টেপলের শাখায় জিম জোনসের অডিও টেপের মাধ্যমে প্রেরিত নির্দেশে সুইসাইড করেছে তার অনুসারীরা। মোট লাশের সংখ্যা দাঁড়াল ৯১৮ জন। ৭০ জন ধর্মগুরু জিম জোনসের নির্দেশে স্বেচ্ছায় আত্নহত্যা করেন।

মোট লাশের সংখ্যা দাঁড়ায় ৯১৮

পেছনের ইতিহাস
জিম জোনস্ ১৯৩১ সালের ১৩ মে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইন্ডিয়ানায় জন্মগ্রহণ করেন। কৈশোর বয়সে কার্ল মাক্স, স্টেলিন, মাও, গান্ধী ও হিটলার সম্পর্কে গভীরভাবে পড়াশোনা করেন। তাদের দুর্বল ও সবল দিক সম্পর্কে অবগত হন। জিম জোনসের জন্ম হয়েছিল আমেরিকার ইন্ডিয়ানা অঙ্গরাজ্যের একটি দরিদ্র পরিবারে। ছোটবেলা থেকেই তিনি ছিলেন বেশ বুদ্ধিমান এবং কিছুটা অদ্ভুত স্বভাবের। কিশোর বয়স থেকেই ধর্মের প্রতি তার টান ছিল প্রবল। সংস্কারবাদী খ্রিস্টান ধর্মীয় মতবাদগুলোর প্রতি ছিল তার বিশেষ আকর্ষণ। তরুণ বয়স থেকেই তিনি রাস্তায় রাস্তায় ধর্ম প্রচার শুরু করেন। বর্ণবাদ প্রথার বিরুদ্ধে তখন থেকেই তার ছিল বলিষ্ঠ আন্দোলন।

একসময় খ্রিস্টান ধর্মের সাথে কম্যুনিজম এবং সোশ্যালিজম জুড়ে দিয়ে তিনি এক নতুন ধরনের ধর্ম প্রচার শুরু করেন। জিম জোনসের স্বকীয় ধর্ম প্রচার কৌশল, বর্ণবাদের বিরুদ্ধে তার সোচ্চার কণ্ঠ, সামাজিক নিরাপত্তা নিশ্চিতের দাবি এবং সর্বোপরি তার তারুণ্যের উদ্যম খুব দ্রুতই তাকে জনপ্রিয় করে তোলে। বেশ কিছু ভক্ত জুটে যায় তার। তিনি তার নতুন প্রচারিত মতবাদের নাম দেন পিপল’স টেম্পল।

পিপল’স টেম্পল-এর লোগো

১৯৬৫ সালে জিম জোন্স তার অনুসারীদের ইন্ডিয়ানা থেকে ক্যালিফোর্নিয়াতে গিয়ে বসবাস করার নির্দেশ দেন। সেসময় তার বয়স ছিল ৩৫ বছরের কাছাকাছি। তিনি ধীরে ধীরে সনাতন খ্রিস্টান বিশ্বাস থেকে দূরে সরে যেতে থাকেন এবং নিজেকে একজন মসিহা বা নবী বলে দাবি করা শুরু করেন। তিনি নিজেকে গৌতম বুদ্ধ ও যিশু খ্রিস্টের মতো মহাপুরুষ হিসেবে জোর প্রচারণা চালাতে থাকেন। ইতোমধ্যে জোনস্ ও তার অনুসারীরা ক্যালিফোর্নিয়াতে পিপল’স টেম্পলের একটি চার্চ প্রতিষ্ঠা করে ফেলে। জিম জোনস্ তার অনুসারীদেরকে নিপীড়িত মানুষের পাশে গিয়ে দাঁড়াতে আহ্বান জানান। অভাবগ্রস্ত মানুষদেরকে সাহায্য করার প্রতি গুরুত্বারোপ করেন তিনি। কিভাবে সমাজের বঞ্চিত গোষ্ঠীদেরকে মূল ধারায় ফিরিয়ে আনা যায় এবং সমাজের সার্বিক উন্নয়নে তাদের কাজে লাগানো যায়, তা নিয়ে কাজ করা শুরু করেন এই টেম্পলের অনুসারীরা। অবশ্য আরো বেশি সংখ্যক মানুষকে নিজের দর্শনের প্রতি আকর্ষিত করাও এসব জনহিতৈষী কর্মকাণ্ডের আরেকটি বড় কারণ হিসেবে কাজ করেছিল।

পিপল’স টেম্পলের একটি চার্চ

ক্যালিফোর্নিয়ায় থাকা সময়েই জোনস্ একবার দাবি করে বসেন, তিনি নাকি বিভিন্ন ধরনের মোজেজা দেখাতে পারেন। তার মধ্যে একটি ছিল ক্যান্সার আক্রান্ত রোগীকে সারিয়ে তোলা। যদিও আদতেই তিনি কাউকে কখনো সারিয়ে তুলতে পেরেছিলেন কিনা, তার প্রমাণ মেলেনি। তবে তার ভক্তকূল এই প্রচারণাটি বেশ আনন্দের সাথেই গ্রহণ করেছিল।

১৯৭০ সালের দিকে এসে পিপল’স টেম্পল রাজনৈতিক দলগুলোর সহানুভূতি অর্জনে সক্ষম হয়। এসময় জোনসের সাথে বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের সখ্য গড়ে ওঠে। নির্যাতিত জনগোষ্ঠীর পক্ষে সবসময় সোচ্চার থাকার কারণে জিম জোনস্ ও তার পিপল’স টেম্পল অ্যাঞ্জেলা ডেভিস এবং হার্ভি মিল্ক-এর মতো বামপন্থী নেতার এবং ব্ল্যাক প্যান্থারের মতো বিপ্লবী কৃষ্ণাঙ্গ গেরিলা সংগঠনের সুদৃষ্টি লাভ করে। ব্ল্যাক প্যান্থারের সুদৃষ্টি থাকায় বিপুল সংখ্যক আমেরিকান কৃষ্ণাঙ্গ নাগরিক পিপল’স টেম্পলের প্রতি আগ্রহী হয়ে ওঠে।

গণ-আত্মহত্যার পরে উদ্ধারকৃত মৃতদের পাসপোর্ট

জীবনের বেশিরভাগ সময় আমেরিকায় কাটানো জিম জোনস্ কোনো এক কারণে আমেরিকার নিরাপত্তা নিয়ে সব সময় শঙ্কিত থাকতেন। তার ধারণা ছিল, খুব শীঘ্রই আমেরিকার ওপর নিউক্লিয়ার হামলা হবে। কিন্তু কেন হবে বা কারা তা করবে, সে সম্পর্কে তিনি কখনোই সুস্পষ্ট করে কিছু বলেননি। বরং এই নিউক্লিয়ার হামলার ধারণা তিনি তার অনুসারীদের মধ্যে সজোরে প্রচার করতে থাকেন। নিজের মতাদর্শ এবং অনুসারীদের রক্ষা করার জন্য তিনি সবাইকে নিয়ে আমেরিকা ত্যাগ করার পরিকল্পনা করেন। এই লক্ষ্যে বিভিন্ন দেশে সবার থাকার মতো ভূখণ্ডের খোঁজ চলতে থাকে।

অবশেষে গায়ানার এক গহীন জঙ্গলের পরিত্যক্ত বিশাল একটি এলাকা পছন্দ হয় জোনসের। ১৯৭৭ সালে তিনি ও তার অনুসারীরা ক্যালিফোর্নিয়া থেকে দল বেঁধে রওনা হন গায়ানার উদ্দেশে। সেখানে তারা পিপল’স টেম্পলের নতুন চার্চ স্থপন করেন।

গায়ানার ওই জঙ্গলে এক নতুন শ্রেণিহীন সমাজব্যবস্থা গড়ে তোলার উদ্যোগ নেন জোনস্। তবে সরকার এবং গণমাধ্যমবিহীন ওই সমাজের প্রধান সমস্যা ছিল বিরূপ প্রাকৃতিক পরিবেশ। অবশ্য সময়ের সাথে সাথে জোনসের অনুসারীরা সব বাধা-বিপত্তি অতিক্রম করতে সক্ষম হয়। তারা আশেপাশের বনজঙ্গল কেটে সেগুলোকে কৃষি জমিতে রূপান্তরিত করেন। শুরু হয় কৃষিভিত্তিক এক সমাজ ব্যবস্থা গড়ে তোলার প্রচেষ্টা, যা পরবর্তীতে জোনস্ টাউন নামে খ্যাতি লাভ করে।

জোনস্ টাউনে পিপল’স টেম্বলের চার্চ

জোনস্ টাউনের সদস্যদের দিনের বেলায় বাধ্যতামূলক ১০ ঘণ্টা কাজ করতে হতো। সন্ধ্যার পর থাকত জিম জোনসের বক্তৃতা শোনার পর্ব। সপ্তাহের কিছু কিছু রাতে চলচ্চিত্র প্রদর্শনের ব্যবস্থা করা হতো। অবশ্য চলচ্চিত্রের পরিবর্তে বাইরের পৃথিবী সম্পর্কে ভীতিমূলক বিভিন্ন তথ্যচিত্রই বেশি প্রদর্শিত হতো। বাইরের সমাজের সাথে যোগাযোগ না থাকায় জোনস্ টাউনে খাদ্যের অভাব ছিল প্রবল। তার ওপর যে কোনো ভুল কাজের জন্য শাস্তির ব্যবস্থা তো ছিলই।

জোনস্ টাউনে থাকা অস্থায় জোনসের স্বাস্থ্যের অবনতি হতে থাকে। তিনি ধীরে ধীরে বাস্তব জগত এবং কাল্পনিক জগতের মধ্যে পার্থক্য হারিয়ে ফেলতে শুরু করেন। অবশ্য এসবের পেছনে উচ্চমাত্রার ড্রাগ গ্রহণ ছিল অন্যতম কারণ। একসময় তিনি তার অনুসারীদেরকে বাইরের শত্রুর আক্রমণের ভয় দেখাতে শুরু করেন।

জোনস্ টাউন গণহত্যা থেকে বেঁচে ফেরা একজন বলেন, জিম জোনস্ বাহিরের পৃথিবী সম্পর্কে তাদের ভূয়া ও মিথ্যা তথ্য দিতেন। যেমন : নিগ্রোদের আমেরিকাতে ক্যাম্পে রেখে অত্যাচার করা হচ্ছে।

জোনস্ টাউনে আমেরিকানদের এই কাল্পনিক আক্রমণের একটি সমাধানও বের করে ফেলেন জোনস্। আর তা হলো গণ-আত্মহত্যা! অবশ্য জোনস্ এর নামকরণ করেছিলেন ‘বিপ্লবী মৃত্যু’। তিনি তার অনুসারীদের বলেন, যদি কখনো শত্রুপক্ষ জোনস্ টাউন আক্রমণ করে, তবে সবাই যেন এই বিপ্লবী মৃত্যু স্বেচ্ছায় বরণ করে নেয়।

ভীতিমূলক বিভিন্ন তথ্যচিত্রের রিল

১৯৭৮ সালের দিকে যখন বর্ণবাদ এবং দারিদ্র্যমুক্ত জোনস্ টাউনের কথা চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে, তখন একজন আমেরিকান কংগ্রেসম্যান-লিও রায়ান, জোনস্ টাউন প্রকল্প পরিদর্শনের সিদ্ধান্ত নেন। তিনি ১৮ জন সদস্যের একটি পরিদর্শক দল নিয়ে গায়ানার উদ্দেশে রওনা হন এবং ১৭ নভেম্বর, ১৯৭৮ তারিখে জোনস্ টাউনে জিম জোনস্ এবং তার অনুসারীদের সাথে সাক্ষাত করেন।

জোনস্ টাউনের পরিস্থিতি কংগ্রেসম্যান রায়ানের কাছে বেশ স্বাভাবিকই মনে হয়েছিল। জোনসের অনুসারীরা যে স্বেচ্ছায় নিজেদের ঘরবাড়ি ত্যাগ করে গায়ানায় এসেছেন, তা-ও তিনি বুঝতে পেরেছিলেন। ফলে গায়ানা ত্যাগের আগে জোনসের কাছে নিজের সন্তুষ্টির কথা অকপটে প্রকাশ করেন তিনি।

কিন্তু এরপরও কংগ্রেসম্যানের এই সফর নিয়ে জোনসের উৎকণ্ঠা কাটল না। তার ভয় হচ্ছিল, যদি রায়ান আমেরিকায় গিয়ে জোনস্ টাউনের নামে কোনো বৈরি মন্তব্য করেন, তাহলে সরকার হয়তো তার গোটা জোনস্ টাউন প্রজেক্টই বন্ধ করে দিতে পারে।

কংগ্রেসম্যান-লিও রায়ান

তা যাতে না হয়, সেজন্য জোনস্ তার সিকিউরিটি ফোর্সকে পরিদর্শক দলের ওপর হামলা করার জন্য পাঠান। পরিদর্শক দল যখন গায়ানার বিমানবন্দরে পৌঁছে, তখন তাদের ওপর হামলে পড়ে জোনসের বাহিনী। তাদের হামলায় চারজন পরিদর্শক নিহত হন। নিহতদের মধ্যে কংগ্রেসম্যান লিও রায়ানও ছিলেন। তিনি মোট ২০টি গুলিবিদ্ধ হয়েছিলেন।

আমেরিকান কংগ্রেসম্যান নিহত হয়েছেন। এখন তো জোনস্ ও তার পিপল’স টেম্পলের বাঁচার কোনো রাস্তা নেই। আমেরিকান সরকার অবশ্যই তাদেরকে গ্রেফতারের জন্য সেনাবাহিনী পাঠাবে। তাই এই গ্রেফতার এবং গ্রেফতার-পরবর্তী নির্যাতন এড়াতে জোনস্ তার অনুসারীদেরকে গণ-আত্মহত্যার নির্দেশ দেন।

তবে একজন নারী অনুসারী এর আংশিক বিরোধিতা করে বলেন, “মৃত্যুকে আমি ভয় পাই না। মরতে আমি রাজি আছি। কিন্তু আমাদের বাচ্চাদেরকে বাঁচার সুযোগ দেওয়া হোক।” উত্তরে জোনস্ বলেন, “বাচ্চাদের শান্তি প্রয়োজন। আমেরিকান বাহিনী আমাদের সাথে যা করতে যাচ্ছে, তা দেখার চেয়ে তাদের মৃত্যুবরণ করাটাই শ্রেয়।”

বিমানবন্দরে জোনসের অনুসারীদের হামলার পর

জোনসের নির্দেশে সায়ানাইড মিশ্রিত একধরনের পানীয়ভর্তি ড্রাম নিয়ে আসা হয় চার্চ প্রাঙ্গণে। একে একে সবাই সেই পানীয় পান করে এবং ইনজেকশনে শরীরে প্রবেশ করিয়ে মৃত্যুর মুখে ঢলে পড়ে। শিশুরাও বাদ যায়নি। তাদের শরীরেও ইনজেকট্ করা হয় সায়ানাইড। এসময় জোনস্ সবাইকে দ্রুত এই আত্মহত্যা কার্যক্রম শেষ করার তাগাদা দিয়ে যাচ্ছিলেন।

অবশ্য জোনস্ নিজে সায়ানাইডের মাধ্যমে আত্মহত্যা করেননি। সায়ানাইড গ্রহণের পর তার অনুসারীদের যে প্রচণ্ড যন্ত্রণার মাধ্যমে মৃত্যু হচ্ছিল, তা দেখে তিনি ওই রাস্তা বাদ দেন। তার বদলে তিনি মাথায় গুলি করে আত্মহত্যার পথ বেছে নেন।

পরবর্তীতে গায়ানার সেনাবাহিনী যখন কংগ্রেসম্যানের হত্যাকারীদের ধরতে জোনস্ টাউনে যান, তারা ভেবেছিলেন হয়তো জিম জোনসের অনুসারীরা তাদের ওপর আক্রমণ করে বসবে। কিন্তু কিসের কী! জোনস্ টাউনে পৌঁছার পর তাদের সবার চোখ কোটর থেকে বের হয়ে যাবার অবস্থা হয়। যত দূর চোখ যায়, শুধু লাশ আর লাশ। একজন আরেকজনের ওপর হুমড়ি খেয়ে পড়ে আছে। যুবক, বৃদ্ধ, নারী, শিশু—কেউ বাদ যায়নি।

যত দূর চোখ যায়, শুধু লাশ আর লাশ

সেদিনের সেই লাশের মিছিলের মধ্যে শিশু ছিল ৩০০ জন, যাদেরকে তাদের পিতামাতা হত্যা করেছিল। বৃদ্ধ নাগরিকের সংখ্যাও ছিল ৩০০ জনের মতো। জোনস্ টাউনের নিরাপত্তা বাহিনীর সহায়তায় তাদের শরীরে সায়ানাইড প্রবেশ করানো হয়। বাকিরা স্বেচ্ছায় বরণ করে নিয়েছিল মৃত্যুকে।

জোনস্ টাউনের ঘটনাকে গণহত্যা বা গণ-আত্মহত্যা যাই বলা হোক না কেন তা আমেরিকার ইতিহাসের এক করুণ অধ্যায় এটি। ওইদিন যারা মৃত্যুবরণ করেছিল, এমন নয় যে তারা সবাই নিরক্ষর বা চলমান নাগরিক জীবনযাত্রা সম্পর্কে অজ্ঞ। বরং জিম জোনসের অনেক অনুসারীই ছিলেন উচ্চশিক্ষিত এবং সমাজে প্রতিষ্ঠিত। তাহলে কেনইবা এত বিপুল সংখ্যক মানুষ শুধুমাত্র একজনের কথায় স্বেচ্ছায় মৃত্যুর পথে পা বাড়িয়ে নিজেকে ধ্বংস করে দিলেন, তা আজও রহস্যময়।

ফুলমাথা-টিয়া এখন সংকটাপন্ন



বিভোর বিশ্বাস, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, সিলেট
ডালের শেষ মাথায় বসে আছে ফুলমাথা-টিয়া। ছবি: আবু বকর সিদ্দিক

ডালের শেষ মাথায় বসে আছে ফুলমাথা-টিয়া। ছবি: আবু বকর সিদ্দিক

  • Font increase
  • Font Decrease

লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের প্রবেশমুখে একঝাঁক টিয়ার ডাক। নির্জনতা ভেঙে ডেকে ওঠে একত্রে। কমে আসা আলোয় নীড়ে ফিরতে ব্যস্ত ওরা। অন্যান্য সঙ্গীদের অনুসারি হতে চাচ্ছে তাদের কেউ কেউ। তাই তাদের এমন সম্মিলিত শব্দধ্বনি!

পাখিটির নাম ‘ফুলমাথা-টিয়া’। তবে আরও একটি বাংলা নাম হলো হীরামন পাখি। এর ইংরেজি নাম Blossom-headed Parakeet এবং বৈজ্ঞানিক নাম Psittacula roseata। ছবিতে প্রকাশিত পাখিটি পুরুষ ফুলমাথা-টিয়া। একই প্রজাতির পাঁচ-দশটি পাখির ছোট দলে এদের দেখা যায়।

বাংলাদেশ বার্ড ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা এবং প্রখ্যাত পাখি বিশেষজ্ঞ ইনাম আল হক বলেন, ফুলমাথা-টিয়া চা বাগান সংলগ্ন বন আর পাহাড়ি পরিবেশের বিরল পাখি। একে আপনি অন্য কোথাও পাবেন না। এরা বৃক্ষবহুল এলাকার পাখি। শুধু সিলেট বিভাগের চিরসবুজ ও চা বাগানেই এদের পাওয়া যায়। কৃষ্ণচূঁড়া, শিমুল প্রভৃতির মোটা মোটা ফুলের রসালো পাপড়ি, বিভিন্ন ফল, কিছু পাতা, কুঁড়ি, ফুলের মিষ্টি রস, শস্যদানা এদের খাদ্য তালিকায় রয়েছে।

বিকেলের পড়ন্ত আলোয় রাঙা ফুলমাথা-টিয়া। ছবি: আবু বকর সিদ্দিক

এদের দৈহিক বর্ণনা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, পাখিটির দৈর্ঘ্য প্রায় ৩৬ সেন্টিমিটার। পুরুষ পাখিটির মাথা গোপালি; দেহের প্রায় পুরোটাই ঘাস-সবুজ। মাথার চাঁদির সামনের অংশ ঘাড় গোলাপি-লাল। ঠোঁটের উপরটা ফিকে-কমলা এবং ঠোঁটের নিচ বাদামী। চোখ হলদে। থুতনি ও গলায় কালো লাইন। আর স্ত্রী পাখিটি ফিকে-ধূসর নীল মাথা ও থুতনি ছাড়া পুরু দেহই সবুজ। তবে গলার পিছনটা হলদে-সবুজ ও ঠোঁট ফ্যাকাসে।

পূর্ব থেকে উত্তর-পূর্ব ভারত হয়ে দক্ষিণ-পশ্চিম চীন, মিয়ানমার, থাইল্যান্ড, লাওস, ভিয়েতনামসহ দক্ষিণ-পূর্ব অঞ্চলে ফুলমাথা-টিয়ার বৈশ্বিক বিস্তৃতি রয়েছে বলে জানান ইনাম আল হক।

পরিবেশ ধ্বংস সম্পর্কে তিনি বলেন, আমাদের দেশে বনের সংখ্যা এমনিতেই কম। এক্কেবারে হাতে গোনা। তারপরও যেটুকু রয়েছে তাও নানাভাবে ক্রমশ উজার ও ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। তাই এই ফুলমাথা-টিয়াসহ নানা জাতের পাখি ও বন্যপ্রাণীর অস্তিত্ব রক্ষা করতে প্রাকৃতিক বনগুলো যে কোনো মূল্যে বাঁচিয়ে রাখতে হবে।

সৃজিত বাগান নয়; আমরা বারবার প্রাকৃতিক বনের কথা বলেছি এবং মানুষকে সচেতন করার চেষ্টা করছি। অর্থাৎ বছরের পর বছর ধরে শতসহস্র ভিন্ন প্রজাতির উদ্ভিদ-লতাগুল্মের মিলিত প্রচেষ্টায় গড়ে উঠে যে প্রাকৃতিক বন। প্রাকৃতিক বন কখনই মানুষ সৃষ্টি করতে পারে না। মানুষ শুধু পারে এই প্রাকৃতিক বনগুলোকে রক্ষা ও সম্প্রসারণ করতে। মানুষের তৈরি বন হলো সৃজিত বাগান। এই প্রাকৃতিক বনই দেশের শ্রেষ্ঠ সম্পদ। বন থাকলে এই ফুলমাথা-টিয়া পাখিগুলোও থেকে যাবে বলে জানান পাখি বিশেষজ্ঞ ইনাম আল হক।

;

জাবি ক্যাম্পাস জুড়ে আগুন রঙা কৃষ্ণচূড়ার সৌন্দর্য



আব্দুল্লাহ আল নোমান, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, সাভার (ঢাকা)
ছবি: বার্তা ২৪.কম

ছবি: বার্তা ২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক দিয়ে ঢুকতেই কেন্দ্রীয় খেলার মাঠের পাশে সারি সারি কৃষ্ণচূড়া গাছ। বসন্তের শেষে গ্রীষ্মের শুরুতে আকাশকে আবির রঙা করে ফোটে কৃষ্ণচূড়া, আর বাতাসে ভাসে তার পাপড়ি। ঢাকার অদূরে সাভারের জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের পুরো ক্যাম্পাস জুড়েই আগুন রঙা সেই কৃষ্ণচূড়ার সৌন্দর্য আলো ছড়াচ্ছে। গাছে গাছে নয়ানভিরাম রাঙা ফুলের মায়া। দূর থেকে দেখলে মনে হবে গাছগুলোতে আগুন লেগেছে, কাছে গেলে চোখ আটকে থাকে রক্তিম আভার ফুলের সমাহারে। গাছের নিচে অজস্র ঝড়াপাপড়ি যেন বিছিয়ে রাখে লাল গালিচা।

দূর থেকে দেখলে মনে হবে গাছগুলোতে আগুন লেগেছে

সবুজ জাবি চত্বরে গাঢ় লালের বিস্তার যেন বাংলাদেশের সবুজ প্রান্তরে রক্তিম সূর্যের প্রতীক আর বাংলাদেশের জাতীয় পতাকারই প্রতিনিধিত্ব করছে। অনিন্দ্য সুন্দর বাংলাদেশের মধ্যে এ চত্বর যেন এক টুকরো বাংলাদেশেরই প্রতিচ্ছবি। কৃষ্ণচূড়া যেন সূর্যের সবটুকু উত্তাপকে শুষে নিয়ে সৌন্দর্যের এক অভিনব উত্তাপ ছড়াচ্ছে পুরো ক্যাম্পাসজুড়ে। সে উত্তাপেই পুড়ে যাচ্ছে সৌন্দর্য বিলাসীসহ সকল ক্যাম্পাসবাসী।

বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন কলাভবন থেকে শুরু করে বিশমাইল গেট পর্যন্ত রাস্তার অসংখ্য গাছ এ ফুলের রক্তিম আভায় ছেয়ে গেছে। আঁকাবাঁকা পথে ঝাঁক বাঁধা লাল কৃষ্ণচূড়ার মিতালি দেখে মনে হয় যেন গাছের পাতাগুলোতে আগুন লেগেছে। গন্ধহীন এ ফুলে পাপড়ি থাকে পাঁচটি। নমনীয় কোমল, মাঝে লম্বা পরাগ। ফুটন্ত কৃষ্ণচূড়া ফুলের মনোরম দৃশ্য দেখে যে কেউ অপলক দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকবেই!



ক্যাম্পাসের শহীদ মিনার, বটতলা, পরিবহন চত্বর, মুন্নী সরণী, কয়েকটি অনুষদসহ বিভিন্ন হলের সামনের খোলা জায়গা, কোথায় নেই এই কৃষ্ণচূড়া! দেখে মনে হতেই পারে এ যেন কৃষ্ণচূড়ার ক্যাম্পাস। তবে রাধাচূড়া, সোনালু আর জারুল ফুলও আছে ছড়িয়ে ছিটিয়ে।

সাংবাদিকতা ও গণমাধ্যমের শিক্ষার্থী তানজিনা আমান তানজুম বলেন, ক্যাম্পাসে যেদিকে তাকাই মনে হয় কৃষ্ণচূড়া গাছগুলোতে আগুন লেগেছে। কিছুদূর পরপরই একেকটা গাছ আর তাতে উজ্জ্বল লাল টুকটুকে ফুল। মনে হয় প্রকৃতিতে আধিপত্য বিস্তার তারাই করছে। কৃষ্ণচূড়ার নজরকাড়া এসব ছবি ঘুরছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ফেইসবুকের বিভিন্ন গ্রুপেও। ঈদের ছুটিতে অনেক শিক্ষার্থী এখন বাড়ি আছেন। তাদের মধ্যে একজন নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগের ঐন্দ্রিলা মজুমদার অর্ণা।

আবির রঙা করে ফোটে কৃষ্ণচূড়া, আর বাতাসে ভাসে তার পাপড়ি।

অর্ণা বলেন, ঈদের ছুটিতে এখনও বাড়িতে আছি। ফেসবুকের বিভিন্ন গ্রুপে ক্যাম্পাসের কৃষ্ণচূড়া ফুলের ছবি দেখে মন খুবই অস্থির হয়েছে। কবে ছুটি শেষ হবে, আর ক্যাম্পাসে যাব, এই অপেক্ষায় আছি। আগুনের মতো লাল দেখে হয়তো এই ফুলের নাম ইংরেজিতে 'ফ্লেম ট্রি' রাখা হয়েছে বলে অনেকে মনে করেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদবিদ্যা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মাহবুবুল কবীর হিমেল বলেন, কৃষ্ণচূড়ার আদি নিবাস পূর্ব আফ্রিকার মাদাগাস্কার। ভিনদেশী এই ফুল আমাদের দেশে নতুন নামে পরিচিত হয়ে উঠেছে। এর উচ্চতা খুব বেশি হয় না। সর্বোচ্চ ১১-১২ মিটার পর্যন্ত লম্বা হয়। তবে এর শাখা-প্রশাখা অনেক দূর পর্যন্ত ছড়ানো থাকে। বছরের অন্য সময়ে এ ফুলের দেখা পাওয়া না গেলেও বাংলাদেশে এপ্রিল-জুন মাসে দৃষ্টিনন্দন ফুলটির দেখা মেলে। সাধারণত বসন্তকালে এই ফুলটি ফুটলেও তা জুন-জুলাই পর্যন্ত স্থায়ী হয়।

কৃষ্ণচূড়ার নজরকাড়া এসব ছবি ঘুরছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ফেইসবুকের বিভিন্ন গ্রুপেও।

কৃষ্ণচূড়ার বৈজ্ঞানিক নাম ডেলোনিখ রেজিয়া। এটি ফাবাসিয়ি পরিবারের অন্তর্গত যা গুলমোহর নামেও পরিচিত। কৃষ্ণচূড়ার ফুলগুলো সাধারণত বড় চারটি পাপড়ি যুক্ত হয়। পাপড়িগুলো প্রায় ৮ সেন্টিমিটার পর্যন্ত লম্বা হতে পারে। শীতকালে পাতা ও ফুল ঝড়ে যায়, বসন্তে নতুন পাতা ও কুশিতে নতুন সাজে সেজে ওঠে গাছ।

;

৬০০০ বছরেও অটুট কাঠের সেতু!



কনক জ্যোতি, কন্ট্রিবিউটিং করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
৬০০০ বছরেও অটুট কাঠের সেতু!

৬০০০ বছরেও অটুট কাঠের সেতু!

  • Font increase
  • Font Decrease

কতকিছু চোখের সামনে নষ্ট হয়ে যায়। বিনষ্ট হয় স্থাপনা, ঐতিহ্য ও কীর্তি। অথচ আশ্চর্যজনক এক কাঠের সেতু ৬০০০ বছরেও রয়েছে অটুট!

একদিকে পাহাড়। আরেকদিকে ছোট্ট একটি দ্বীপ। মাঝে অগভীর জলাভূমি। আর সেই বিস্তীর্ণ জলাভূমির মাঝ বরাবর চলে গেছে একটি কাঠের সেতু।

অবশ্য এই সেতু আকারে-আকৃতিতে সাধারণভাবে পরিচিত ব্রিজের থেকে অনেকটাই আলাদা। তাকে কাঠের পথ (Wooden Walkway) বলাই শ্রেয়। কারণ, তার প্রস্থ মাত্র এক ফুট। একের পর এক কাঠের পাটাতন পেতেই তৈরি হয়েছে এই পথ। নেই কোনো হাতলও।

ইংল্যান্ডের সমারসেটের (Somerset) শ্যাপউইক হিথ ন্যাশনাল নেচার রিজার্ভে গেলেই দেখা মিলবে এই কাঠের তৈরি সেতুটির। যার বয়স প্রায় ৬ হাজার বছর! ইংল্যান্ডের অন্যতম প্রাচীন ঐতিহাসিক নিদর্শনগুলোর মধ্যে অন্যতম এই সেতু।

তবে বয়সের কারণেই ক্রমশ সংকটময় হয়ে উঠেছিল এই সেতুর অস্তিত্ব। সেতুটির নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছিল ইংল্যান্ডের ‘হেরিটেজ অ্যাট রিস্ক রেজিস্টার’-এর খাতায়। এবার সেখান থেকেই দুরন্ত প্রত্যাবর্তন করল এই প্রাগৈতিহাসিক পথ। দীর্ঘ কয়েক বছরের চেষ্টায় সেতুটির সংরক্ষণ কাজ সফলভাবে শেষ করলেন ব্রিটিশ প্রত্নতাত্ত্বিকরা।

কার্বন ডেটিং অনুযায়ী, খ্রিস্টপূর্ব ৩৮০৬ অব্দে তৈরি হয়েছিল এই কাঠের সেতু। নিওলিথিক যুগে। অর্থাৎ, কিংবদন্তি স্টোনহেঞ্জের থেকেও বয়স বেশি কাঠের নির্মিত এই সেতুর। কোনও প্রকৌশলী নন, সেসময় ইংল্যান্ডের কৃষক সম্প্রদায়ের মানুষরা এই সেতু নির্মাণ করেন। সমারসেট জলাভূমির মধ্যে অবস্থিত দ্বীপের মাটি তুলনামূলকভাবে অনেকটাই উর্বর। সেই কারণেই পার্বত্য অঞ্চল ছেড়ে এই দ্বীপে কৃষিকাজ শুরু করেছিল তৎকালীন কৃষক সম্প্রদায়ের মানুষরা। যদিও তাঁদের বাসস্থান ছিল পার্বত্য উপত্যকা। দৈনন্দিন যাতায়াতের সুবিধার জন্যই তাই কাঠ পেতে তৈরি করা হয়েছিল ২ কিলোমিটার দীর্ঘ এই পথ।

সাধারণত কাঠ পচনশীল হওয়ায়, কাঠের তৈরি যেকোনো স্থাপত্যই অত্যন্ত দ্রুত ক্ষয়ীভূত হয়। তবে সমারসেটের এই সেতুটির ক্ষেত্রে ঘটনাটা ঠিক বিপরীত। ১৯৭০-এর দশকের শুরুর দিকে প্রথম আবিষ্কৃত হয় ‘সুইট ট্র্যাক’-খ্যাত এই সেতু। তবে তার অবস্থা দেখে তখনও পর্যন্ত আন্দাজ করা যায়নি যে সেটির বয়স ৬০০০ বছর। এর নেপথ্যে রয়েছে জলাভূমির জলে পিট মস এবং প্ল্যাংটনের উচ্চ উপস্থিতি। যার কারণে জলে অক্সিজেনের মাত্রা কমে যায় অনেকটাই। ফলে হ্রাস পায় ক্ষয়ীভবনের হারও।

সেতুটি সংরক্ষণের পর, সংশ্লিষ্ট জলাভূমিতে এই ধরনের মসের পরিমাণ বৃদ্ধির চেষ্টা করা হবে বলেই জানাচ্ছেন সংরক্ষণ কার্যের পরিচালক তথা ‘ন্যাচরাল ইংল্যান্ড’-এর সিনিয়র রিজার্ভ ম্যানেজার জুলি মেরেট৷ পরবর্তীতে এই প্রকল্প সংশ্লিষ্ট অঞ্চলের বাস্তুতন্ত্রকেও সারিয়ে তুলবে বলে অভিমত তাঁর।

;

সড়ক জুড়ে জারুলের হাতছানি



আছিয়া খাতুন, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

নবীণ বৃক্ষরাজি পুষ্পভারে আচ্ছাদিত রাস্তার দুইধার। গাঢ় বেগুনি রঙের বন্যা বয়ে যাচ্ছে সর্বত্র। গ্রীষ্মের প্রখর উত্তাপের মাঝেও চারদিকে প্রশান্তি ছড়িয়ে দিচ্ছে মায়াবী কুহক। হালকা নিলুয়া বাতাসে সবুজ পাতার ফাঁক গলিয়ে মাথা তুলেছে বেগুনি পাপড়ি। যার দৃষ্টিনন্দন বর্ণচ্ছটা রঙে মায়াবী চোখে হাতছানি দিয়ে ডাকছে। বলছিলাম রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের জারুল স্ট্রিটের কথা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্যারিস রোড থেকে পশ্চিমপাড়া যাওয়ার রাস্তাকে অনেকেই বলেন জারুল স্ট্রিট। এই রাস্তার দুইধারে রয়েছে সারি সারি জারুল গাছ। গ্রীষ্মের শুরুতেই এসব গাছে মোহময়তা নিয়ে মুগ্ধতা ছড়িয়ে দিচ্ছে জারুল ফুল। যার বেগুনি রঙের আভা পথিকের চোখে এনে দিচ্ছে শিল্পর দ্যোতনা। বিশ্ববিদ্যালয়কে সাজিয়ে তুলেছে নতুন সাজে।

ক্যাম্পাস ঘুরে দেখা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের বেগম খালেদা জিয়া হলের দক্ষিণ দিকের রাস্তার ধারে সবুজ পাতার ক্যানভাসে বেগুনি জারুল ফুটিয়ে তুলেছে হাস্যোজ্জ্বল প্রকৃতি। রং আর রূপের বাহার ছড়ানো অপরূপ বর্ণিল সাজের এই ফুল সাজিয়েছে সৌন্দর্যের ডালি। কাজী নজরুল ইসলাম মিলতায়তনের সামনে, বিজ্ঞান ভবনের সামনে, টিএসসিসির পাশে, চারুকলা অনুষদের রেললাইনের পাশের রাস্তা, বোটানিক্যাল গার্ডেন, বাসস্ট্যান্ড, বিভিন্ন আবাসিক হলের সামনে, বধ্যভূমিসহ ক্যাম্পাস সজ্জিত হয়েছে জারুলের ঝুমকোতে। ফুলে ফুলে সৃষ্টি করেছে অপরূপ নান্দনিকতার। যোগ করেছে নতুন সৌন্দর্যের মাত্রা।

জারুলকে বলা হয় বাংলার চেরি। গ্রীষ্মে অপূর্ব হয়ে ফোটে এই ফুল। চোখ ভরে যায় তার রূপ দেখে। প্রয়াত সঙ্গীত শিল্পী এন্ড্রু কিশোর তার গানে বলেছেন ‘ওগো বিদেশিনী, তোমার চেরি ফুল দাও, আমার শিউলি নাও, এসো দুজনে প্রেমে হই ঋণী।’ সেই গান শুনে হয়তো কোন এক কাল্পনিক বিদেশিনীকে শিউলি ফুল দেওয়ার জন্য কত খুঁজেছে, কিন্তু পায়নি। যেমনটি পায়নি চেরি ফুলের দেখাও। সে আকাঙক্ষা পূরণ করতে পারে বাংলার চেরি জারুল ফুল। জারুল নিয়ে রূপসী বাংলার কবি জীবনানন্দ দাশ লিখেছেন, ‘ভিজে হয়ে আসে মেঘ এক দুপুর চিল একা নদীটির পাশে। জারুল গাছের ডালে বসে চেয়ে থাকে উপরের দিকে।’

উদ্ভীদ বিজ্ঞানীরা বলছেন, জারুলের আদি নিবাস শ্রীলঙ্কায় হলেও এটি ভারতীয় উপমহাদেশের নিজস্ব বৃক্ষ। বাংলাদেশ, ভারত ছাড়াও চীন, মালয়েশিয়া প্রভৃতি অঞ্চলে জারুলগাছের দেখা মেলে। জারুল ফুলের বৈজ্ঞানিক নাম (Lagerstroemia speciosa) লেজারস্ট্রমিয়া স্পেসিওসা এবং ইংরেজি নাম (Giant Crape-myrtle) জায়ান্ত ক্রেপ মার্টেল। জারুলগাছ সাধারণত ১০ থেকে ১৫ মিটার উঁচু হয়ে থাকে। গ্রীষ্মের শুরুতেই এর ফুল ফোটে এবং শরৎ পর্যন্ত দেখা যায়। ফুল শেষে গাছে বীজ হয়। বীজ দেখতে গোলাকার। জারুল বীজের মাধ্যমে বংশবিস্তার করে। বাংলাদেশে সাধারণত নীলাভ ও গোলাপি এই দুই রঙের জারুল ফুল দেখা যায়। জারুলগাছের বীজ, ছাল ও পাতা ডায়াবেটিস রোগের ওষুধ হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে থাকে। এ ছাড়া জ্বর, অনিদ্রা, কাশি ও অজীর্ণতার চিকিৎসায়ও জারুল যথার্থ উপকারী।

জারুল ফুলের এমন মনকাড়া সৌন্দর্যে মুগ্ধ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। কেউ মুগ্ধ হয়ে স্থিরচিত্র ধারণ করে তা শেয়ার করছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। ঝড়ো বাতাসে ক্ষণে ক্ষণেই ঝরে পড়ছে জারুল ফুল। আর সেগুলো রাস্তার উপর সৃষ্টি করেছে বেগুনি গালিচার। দেখলে মনে হয় কোনো অতিথিকে বরণের জন্য সাজানো হয়েছে। ক্যাম্পাসে এখন কৃষ্ণচূড়ার লাল রঙের সঙ্গে একক রাজত্ব করছে বেগুনি জারুল।

জারুলের বেগুনি রঙে বিমোহিত বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের শিক্ষার্থী হাচনাইন মোস্তফা। তিনি বলেন, আমাদের ক্যাম্পাসে সব ঋতুতেই কোনো না কোনো ফুল ফোটে। এসব ফুলের রঙ, গন্ধ আলাদা। তবে গ্রীষ্মের ফুলের মধ্যে জারুল অন্যতম। এর নজরকাড়া বেগুনি রঙ বিমোহিত করে।

;