‘ইন্ডিয়া’ জিতবে, বিজেপি হারবে : রাহুল গান্ধী



আন্তর্জাতিক ডেস্ক বার্তা২৪.কম
কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী। ছবি : সংগৃহীত

কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী। ছবি : সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ভারতের বিরোধী জোট ‘ইন্ডিয়া’র মধ্যমণি হলেন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী। তবে রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, অত্যন্ত সতর্কভাবে তিনি সবাইকে সমান গুরুত্ব দেওয়ার চেষ্টা করছেন।

রাহুল গান্ধী শুক্রবার (১ সেপ্টেম্বর) তার বক্তব্যে বলেন, ‘দুটো বড় পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। এই মঞ্চ ভারতের মোট জনসংখ্যার ৬০ শতাংশ ভোটারের প্রতিনিধিত্ব করছে। যদি সমস্ত পার্টি একজোট হয়, তবে বিজেপির পক্ষে ভোটে জেতা অসম্ভব। আমাদের মূল কাজ হল ঐক্যবদ্ধ থাকা।’

রাহুল আরও বলেন, ‘দুটো বড় পদক্ষেপের একটি হলো কো-অর্ডিনেশন কমিটি তৈরি করা। তারা একে অপরের সঙ্গে সমন্বয় রক্ষা করবে। আর দ্বিতীয়টি হলো, আমরা আসন সমঝোতার বিষয়গুলো নিয়ে একটি সিদ্ধান্তে পৌঁছাব। এই দুটি বিষয় বাস্তবায়িত হলেই আমাদের জোট জিতবে, বিজেপি হারবে। ভোটের বিষয়টি খুব পরিষ্কার।’

রাহুল বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী আর একজন ব্যবসায়ীর মধ্যে সমঝোতা হয়েছে বলে আমি গতকালের সাংবাদিক সম্মেলনে জানিয়েছিলাম। আদানি সম্পর্কে কী হয়েছে, এটা নিয়ে তদন্ত নিশ্চিত করা দরকার প্রধানমন্ত্রীর। প্রধানমন্ত্রী আর বিজেপি একটি দুর্নীতির চক্রের মধ্যে রয়েছেন। ইন্ডিয়া জোট সেটাই প্রকাশ্যে আনবে। আমি বলতে চাই, এই জোটে এমন নেতারা রয়েছেন, যারা আমার চেয়ে সিনিয়র। কিন্তু, সকলের মধ্যে সম্পর্ক রক্ষা করাটাই বড় ব্যাপার।’

সংবাদ সংস্থা এএনআই জানিয়েছে রাহুল বলেন, ‘আমি বলতে পারি, এই দুটি সভা নেতাদের মধ্যে সম্পর্ক তৈরির জন্য যথেষ্ট। আমি দেখতে পাচ্ছি নেতাদের মধ্যে অনেক নমনীয়তা এসেছে। মতামতের ভিন্নতা থাকতে পারে। কিন্তু, কীভাবে একমত হওয়া যায়, তা নিয়েও কথাবার্তা হচ্ছে।’

   

লটারির নম্বর ‘ভুল’ দাবি করে পুরস্কার দেওয়ায় কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে মামলা



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
জন চিকস পুরস্কার দাবী করতে গিয়ে শোনেন, তার লটারির নাম্বার ভুলে প্রকাশ করা হয়েছিল

জন চিকস পুরস্কার দাবী করতে গিয়ে শোনেন, তার লটারির নাম্বার ভুলে প্রকাশ করা হয়েছিল

  • Font increase
  • Font Decrease

পাওয়ার বলের লটারি কিনেছেন এক ব্যক্তি। এক বছর পর, লটারির বিজয়ীর নাম্বার প্রকাশ করা হয়েছে। নাম্বার মিলিয়ে দেখলেন সৌভাগ্য সঙ্গ দিয়েছে। তার লটারির নাম্বারটিই স্ক্রিনে ভাসছে! খুশির আনন্দে তিনিও যেন বাতাসে ভাসতে শুরু করলেন। কিন্তু তা দীর্ঘস্থায়ী হলো না। পুরস্কার গ্রহণ করতে গিয়ে যেন আকাশ থেকে সোজা মাটিতেই মুখ থুবড়ে পড়লেন। ঘটনাটি ঘটেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে।    

জনপ্রিয় কোম্পানি পাওয়ার বলের নামে মামলা করেছে জন চিকস নামের মার্কিন নাগরিক। ৩৪০ মিলিয়ন ইউএস ডলারের জন্য একটি লটারির টিকিট কেটেছিলেন জন। বিজয়ীর টিকিট নাম্বার প্রকাশ হওয়ার পর তিনি দেখতে পান হুবহু তার টিকিটের নাম্বারটি স্ক্রিনে রয়েছে। সাথে তার পারিবারিক সকল তথ্যও উল্লেখ করা ছিল সেখানে।

চিকস তখন চিৎকার বা লাফলাফি করেননি।  সরাসরি তার পুরানো এক কাছের বন্ধুকে কল করেন জন। তার বন্ধু সাথে পরামর্শ দেয় স্ক্রিনের নাম্বারটির ছবি তুলে রাখার। বন্ধুর কথা মতো তাই করেন তিনি।

এরপর টিকিট নিয়ে পুরস্কারের টাকা তুলতে ওয়াসিংটন ডিসিতে যান জন। তবে তখন পাওয়ার বল কর্তৃপক্ষ পুরস্কারের টাকা দিতে অস্বীকার করে।

তাদের দাবী, ডিসি অফিস থেকে ভুলক্রমে জন চিকসের নাম্বারটি প্রকাশ করা হয়েছে। টেলিভিশনে প্রদর্শিত নাম্বার এবং অনলাইনে জন চিকসের দেখা নাম্বার ভিন্ন। অনলাইনে ভুলে প্রকাশ করা নাম্বারটি পরিবর্তন করা হয়নি। ৩ দিন অবধি ওয়েবসাইটে সেই নাম্বারটিই প্রকাশ করা ছিল।

তাছাড়া লটারির নাম্বার প্রকাশ করার একদিন আগে ওয়েবসাইটে নাম্বারটি প্রকাশ করা হয়েছিল। তাই নিঃসন্দেহে সেটি ভুল নাম্বার। তাছাড়া, লটারি টিকিটের গায়ে স্পষ্ট লেখা রয়েছে, ওয়েবসাইটের প্রকাশ করা সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত নয়।  

তবে, এই ঘটনাকে প্রতারণা হিসেবে দেখছেন জন চিকস। আইনি সাহায্য নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে আইনজীবী রিচার্ড ইভানসের কাছে যান তিনি। রিচার্ড বলেন, শুধু লটারির টিকিটের নাম্বার ভুল হওয়ার ব্যাপার নয়, এটি পাওয়ার বল কোম্পানির প্রতি বিশ্বস্ততার প্রশ্ন তোলে। এই কোম্পানির নির্ভরশীলতা প্রশ্ন তোলা হয়েছে। কারণ টিকিটের নাম্বারে ভুল হওয়া এই প্রথম বার নয়। আগে বড় কোম্পানিগুলো ভুল নাম্বার প্রকাশ করার পর ক্ষতিপূরণ দিয়েছে।

চিকসের দাবী তার ক্ষতিপূরণ চাই। সে একজন গ্রাহক এবং অন্য সবার মতো নিজের পকেটের টাকা খরচ করে টিকিট কিনেছে। ভুল করে হলেও সে তো জিতেছে! সেই হিসেবে পুরস্কার তো তার প্রাপ্য।       

তথ্যসূত্র: এনপিআর নিউজ

;

নির্বাচনে কারচুপি, আইএমএফের সহায়তা বন্ধে চিঠি দেবেন ইমরান



আন্তর্জাতিক ডেস্ক বার্তা২৪.কম
ছবি : সংগৃহীত

ছবি : সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফের (পিটিআই) প্রতিষ্ঠাতা ইমরান খান আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) কাছে একটি চিঠি লিখেছেন, যে চিঠিতে তিনি নির্বাচনে কারচুপির কারণে পাকিস্তানের প্রতি তাদের সমর্থন বন্ধ করার দাবি জানিয়েছেন।

পিটিআই নেতা আলী জাফর জিও নিউজকে বৃহস্পতিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) ওই চিঠির বিষয়ে নিশ্চিত করেছেন।

আলী জাফর রাওয়ালপিন্ডির আদিয়ালা কারাগারে খানের সাথে দেখা করার পর সাংবাদিকদের বলেন, ‘ইমরান খান আজ (বৃহস্পতিবার) আইএমএফকে চিঠি দেবেন। কারণ, আইএমএফ, ইইউ এবং অন্যান্য সংস্থার চার্টারে বলা হয়েছে যে, সুশাসন থাকলেই তারা একটি দেশে কাজ করতে বা ঋণ প্রদান করতে পারে।’

জাফর বলেন, ‘তাদের সনদের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ধারা হলো একটি দেশকে গণতান্ত্রিক হতে হবে। যদি গণতন্ত্র না থাকে, তাহলে এই প্রতিষ্ঠানগুলো সেদেশে কাজ করতে পারে না, তাদের কাজ করা উচিতও না।’

তিনি আরও বলেন, ‘গণতন্ত্রের মূল স্তম্ভ হল একটি অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন। পুরো বিশ্ব দেখেছে কীভাবে জাতির ম্যান্ডেট চুরি করা হয়েছে। নির্বাচন পরবর্তী কারচুপিতে পিটিআইয়ের বিজয়ী প্রার্থীদের কাছ থেকে জয় ছিনিয়ে নেওয়া হয়েছে।’

সিনেটর জাফর বলেন, ‘রাতের আঁধারে জনগণের ভোট চুরি হয়েছে। নির্বাচনের ফলাফলের অডিট না করে বেলআউট প্যাকেজের জন্য আইএমএফের কাছে যাওয়া দেশের জন্য ক্ষতিকর হবে।’

তিনি দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, ‘ইমরানের স্ত্রী বুশরা বিবির সঙ্গে দেখা করার অনুমতি দেওয়া হয়নি, যিনি সাব-জেল হিসাবে ঘোষিত বানি গালার বাসভবনে বন্দী রয়েছেন।’

উল্লেখ্য, পাকিস্তান গত বছর আইএমএফ থেকে একটি স্বল্পমেয়াদী ৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের প্রোগ্রাম সুরক্ষিত করেছিল, যা দেশটিকে ঋণ খেলাপি এড়াতে সাহায্য করেছিল।

;

সিক্রেট সার্ভিস এজেন্টদের ২৪বার কামড়েছে বাইডেনের কুকুর



ziaulziaa
ছবি : সংগৃহীত

ছবি : সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ইউএস সিক্রেট সার্ভিস এজেন্টদের ২৪বার কামড়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের পারিবারিক কুকুর।

সিএনএনের একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, হোয়াইট হাউস এবং অন্যান্য স্থানে ওই কামড়ের শিকার হন সিক্রেট সার্ভিস এজেন্ট।

প্রেসিডেন্টের দেহরক্ষীদের জন্য জার্মান শেফার্ডের ওই বিশৃঙ্খলার ঘটনা ইউএস সিক্রেট সার্ভিস আর্কাইভে নথিভুক্ত করা হয়েছে বলে জানিয়েছে রয়টার্স।

ইউএস সিক্রেট সার্ভিস প্রেসিডেন্সিয়াল প্রোটেক্টিভ ডিভিশনের দায়িত্বে থাকা একজন বিশেষ এজেন্ট তাদের দলকে ২০২৩ সালের জুন মাসে লিখে জানিয়েছিলেন, ‘সাম্প্রতিক কুকুরের কামড় আমাদের কমান্ডার উপস্থিত থাকাকালীন আমাদের অপারেশনাল কৌশলগুলো সামঞ্জস্য করার ক্ষেত্রে চ্যালেঞ্জ সৃষ্টি করেছে। দয়া করে কুকুরটি থেকে দূরে থাকুন।’

তিনি সতর্ক করে বলেছিলেন, ‘এজেন্টদের নিজের ব্যক্তিগত নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সৃজনশীল হতে হবে।’

একাধিক কামড়ের ঘটনা প্রত্যক্ষ করার পর হোয়াইট হাউস থেকে শেষ পর্যন্ত কুকুরটিকে সরিয়ে নেওয়ার হয় বলে জানিয়েছে এনডিটিভি।

তথ্যের স্বাধীনতা আইনের অনুরোধের মাধ্যমে প্রাপ্ত নতুন রেকর্ডে দেখা যাচ্ছে যে, ২০২২ সালের অক্টোবর মাস থেকে ২০২৩ সালের জুলাই মাসের মধ্যে সিক্রেট সার্ভিস এজেন্টদের কব্জি, বাহু, কনুই, কাঁধ, কোমর, বুক, উরুতে কামড়ানোর কমপক্ষে ২৪টি ঘটনা ঘটেছে।

সিএনএন অনুসারে, ২০২২ সালের অক্টোবরে একজন সিক্রেট সার্ভিস টেকনিশিয়ান বলেছিলেন, তারা বাইডেনের পারিবারিকভাবে পোষা প্রাণীটির আচরণে চিন্তিত এবং অন্যদের সঙ্গে হয়তো আরও খারাপ কিছু ঘটতে চলেছে।’

কুকুরটি ২০২৩ সালের জুনে একজন এজেন্টের বাহুতে গভীরভাবে কামড়ে ধরেছিল এবং শেষ পর্যন্ত তার ক্ষত স্থানে সেলাই করাতে হয়েছিল।

একই বছরের জুলাইয়ে আরেক এজেন্টকে কামড়ানোর পর তার হাতে ছয়টি সেলাই দিতে হয়েছিল।

;

অস্ট্রেলিয়ায় ভয়াবহ দাবানল, দুই হাজার মানুষকে সরে যাওয়ার নির্দেশ



আন্তর্জাতিক ডেস্ক বার্তা২৪.কম
ছবি : সংগৃহীত

ছবি : সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ভয়াবহ দাবানলের কারণে অস্ট্রেলিয়ার ভিক্টোরিয়া রাজ্যের পশ্চিমাঞ্চলের দুটি শহর থেকে দুই হাজারেরও বেশি মানুষকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

অস্ট্রেলিয়ার জাতীয় জরুরি পরিষেবা সংস্থা রাগলান এবং বিউফোর্ট শহরের বাসিন্দাদের প্রায় দুই হাজার লোক এবং আশেপাশের এলাকার বাসিন্দাদের শহর ছেড়ে যাওয়ার জন্য অনুরোধ করেছে বলে জানিয়েছে রয়টার্স।

ভয়াবহ ওই দাবানলে ব্যালারাতের উত্তর-পশ্চিমে প্রায় ৫০ বর্গ কিলোমিটার এলাকা জ্বলছে বলে জানা গেছে। পশ্চিমের আরও একটি এলাকার দাবানল নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে বলে জানিয়েছে এনডিটিভি।

অস্ট্রেলিয়ার ভিক্টোরিয়া রাজ্যের কান্ট্রি ফায়ার অথরিটির প্রধান কর্মকর্তা জেসন হেফারম্যান এবিসি নিউজকে বলেন, ‘আগামী দুই ঘণ্টার মধ্যে আগুনের আকার বৃদ্ধি পাবে বলে ধারণা করছি। তাই শহর দুটির বাসিন্দাদের এখনই বাঁচার পরিকল্পনা করা দরকার। তাদের সরে যাওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’

এ ছাড়াও ভিক্টোরিয়া রাজ্যের বড় অংশগুলোতে দাবানলের কারণে উচ্চ সতর্কতা জারি করা হয়েছে।

অস্ট্রেলিয়ার আবহাওয়া ব্যুরো বৃহস্পতিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) গরম, শুষ্ক বাতাস এবং বজ্রপাতের সম্ভাবনার কারণে বেশ কয়েকটি জেলায় বিপদ সতর্কতাও জারি করেছে।

;