ক্লিনটন হত্যাচেষ্টার যে ঘটনা গোপন করা হয়েছিল



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

১৯৯৬ সালের ২৩ নভেম্বর। যুক্তরাষ্ট্রের তৎকালীন রাষ্ট্রপতি বিল ক্লিনটন এবং ফার্স্ট লেডি হিলারি ক্লিনটন এয়ার ফোর্স ওয়ান এ চড়ে ম্যানিলায় যাচ্ছিলেন। তাদের ইউএস সিক্রেট সার্ভিস বিশদ উদ্বেগজনক বলে তথ্য পায় গোয়েন্দা সংস্থা। জানতে পারে, ফিলিপাইনের মোটরকেডের রুটে একটি বিস্ফোরক ডিভাইস লাগানো হয়েছে। বিকল্প পথ ধরে এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের বার্ষিক অর্থনৈতিক সহযোগিতা সম্মেলনে পৌঁছান বিল ক্লিনটন। অন্যদিকে ফিলিপিনো নিরাপত্তা কর্মকর্তারা মোটরশেডটি ক্রল করার সাথে সাথে ব্রিজের উপর একটি শক্তিশালী বোমা উদ্ধার করে। বোমার সাথে ছিল একটি এসইউভি ও একে-৪৭ অ্যাসল্ট রাইফেল।

সে যাত্রায় বিল ক্লিনটন প্রাণে বেঁচে গেলেও আল কায়দার সন্দেহভাজন এই হামলার তথ্য প্রকাশিত হয়নি কোনো গণমাধ্যমে। রয়টার্সকে সেসব অজানা তথ্য জানিয়েছেন চারজন অবসরপ্রাপ্ত এজেন্ট। রয়টার্সকে সাক্ষাৎকার দেওয়া এসব সিক্রেট সার্ভিস এজেন্টরা ম্যানিলা ঘটনার অনেক প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন যা অনেক বছর ধরেই ছিল অজানা।

প্রেসিডেন্টকে হত্যার প্রচেষ্টা সেসময় ব্যর্থ করে এজেন্টরা ক্লিনটনকে হোটেলে একটি ব্যাক-আপ রুটে স্যুইচ করে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে হামলার প্রচেষ্টা হিসেবে গুপ্তহত্যার পথই বেছে নিত আল কায়েদা। ২০১০ এবং ২০১৯ সালে প্রকাশিত বইগুলোতেও সংক্ষিপ্তভাবে এসব কথা উল্লেখ করা হয়েছিল। 

রয়টার্সকে সেই ব্যর্থ হত্যা চক্রান্তের বিস্তারিত বিবরণ দিয়েছেন আটজন অবসরপ্রাপ্ত সিক্রেট সার্ভিস এজেন্ট- যাদের মধ্যে সাতজন সেসময় ম্যানিলায় ছিলেন। তবে ক্লিনটনের হত্যা চেষ্টার বিষয়ে মার্কিন সরকারের তদন্তের কোনো প্রমাণ পায়নি রয়টার্স। গোয়েন্দা সংস্থাগুলো শ্রেণীবদ্ধ তদন্ত পরিচালনা করেছে কিনা তাও বার্তাসংস্থা স্বাধীনভাবে নির্ধারণ করতে পারেনি।

ম্যানিলার লিড সিক্রেট সার্ভিস ইন্টেলিজেন্স এজেন্ট এবং প্রথমবারের মতো এ বিষয়ে কথা বলা সাতজন এজেন্টের একজন গ্রেগরি গ্লোড। তিনি বলেছেন, ‘আমি সবসময় ভাবতাম আমাকে কেন কোনো তদন্তের জন্য ম্যানিলায় ফিরিয়ে নেওয়া হয়নি। এর পরিবর্তে ক্লিনটন চলে যাওয়ার পরের দিন তারা আমাকে তাড়িয়ে দিয়েছে।’

তখন এমন একটি ঘটনা ঘটেছিল বলে স্বীকার করেন সিক্রেট সার্ভিসের মুখপাত্র অ্যান্টনি গুগলিয়েলমি। তবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র প্রতিক্রিয়া হিসেবে কি ব্যবস্থা নিয়েছিল বা ব্যবস্থা নিয়েছিল কিনা সে সম্পর্কে বলতে তিনি অস্বীকৃতি জানান। ক্লিনটন তার মুখপাত্র এবং ক্লিনটন ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে তার কাছে পৌঁছানোর একাধিক প্রচেষ্টায় সাড়া দেননি।

সাবেক সিআইএ ডিরেক্টর লিওন প্যানেটা, যিনি সেই সময়ে ক্লিনটনের চিফ অফ স্টাফ ছিলেন। তিনি বলেন, তিনি এই ঘটনা সম্পর্কে অবগত নন। তবে একজন রাষ্ট্রপতিকে হত্যার চেষ্টার তদন্ত হওয়া উচিত।

তিনি বলেন, ‘একজন সাবেক চিফ অফ স্টাফ হিসেবে, কেউ এই তথ্যটি অপ্রকাশ্য রেখেছিল কিনা এবং এমন ঘটনায় যাদের সচেতন হওয়া উচিত ছিল তাদের নজরে আনেনি কেন তা খুঁজে বের করতে আমি খুব আগ্রহী হব।’

ম্যানিলায় তৎকালীন রাষ্ট্রদূত থমাস হাবার্ডসহ চার প্রাক্তন মার্কিন কর্মকর্তা রয়টার্সকে হামলা ব্যর্থ হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তবে তারা মার্কিন তদন্ত বা ফলোআপ পদক্ষেপ সম্পর্কেও অবগত ছিলেন না বলে জানিয়েছেন।

গ্রেগরি গ্লোড বলেন, একটি মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থার মূল্যায়নে দেখা যায়, বিন লাদেনের নির্দেশে আল-কায়েদা অপারেটর এবং আবু সায়াফ গ্রুপ, ফিলিপিনো ইসলামপন্থীরা ব্যাপকভাবে একটি প্লট তৈরি করেছিল। তবে সিআইএ সংস্থার পরিচয় দিতে বা এই বিষয়ে মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানায়।

২০২২ সালের ইন্টারন্যাশনাল ক্রাইসিস গ্রুপের রিপোর্ট অনুসারে, গ্রুপটি বিশৃঙ্খল অবস্থায় রয়েছে, এর মাত্র কয়েকজন নেতা এখনও বেঁচে আছেন। ফিলিপাইনের রাষ্ট্রপতির কার্যালয়, পররাষ্ট্র দপ্তর এবং জাতীয় পুলিশ এ বিষয়ে কোনো সাড়া দেয়নি।

১৯৮৬ সালের একটি আইনে বলা হয়, কোনো বিদেশী চরমপন্থী সংগঠনের পক্ষে মার্কিন নাগরিককে হত্যার চেষ্টা করা অপরাধ। প্রসিকিউশনের জন্য অ্যাটর্নি জেনারেলের কাছ থেকে অনুমোদনের প্রয়োজন হবে বলে ১৯৯৬ সালে প্রয়াত জ্যানেট রেনো একটি এফবিআই তদন্ত শুরু করে। তবে ম্যানিলা হত্যা প্রচেষ্টার বিষয়ে মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানায় এফবিআই।

রয়টার্সের সাথে কথা বলা সিক্রেট সার্ভিস এজেন্টদের চারজন উল্লেখ করেন, সেদিন ম্যানিলায় উপস্থিত ছিলেন ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারে বোমা হামলার প্রধান বোমা হামলাকারী রামজি ইউসুফ। ১৯৯৩ সালের সেই ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টার হামলার উপদেশদাতা ও বিনিয়োগকারী এবং ১১ সেপ্টেম্বরের হামলার পরিকল্পনাকারী খালিদ শেখ মোহাম্মদের ভাতিজা রামজি ইউসুফ। ১৯৯৪ সাল থেকে  ক্লিনটনের সফরের কয়েকদিন আগ পর্যন্ত তিনি আবু সায়াফ জঙ্গিদের প্রশিক্ষণ দিয়েছিলেন। ইউসুফ কলোরাডোর একটি ফেডারেল সুপারম্যাক্স কারাগারে বর্তমানে যাবজ্জীবন সাজা (২৪০ বছর সাজা) ভোগ করছেন।

১৯৯৫ সালে গ্রেফতার হওয়ার পর ইউসুফের প্রথম সাক্ষাৎকার এফবিআই স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয়েছে। ম্যানিলার সাইটগুলো জরিপ করে দেখা যায়, মোটরকেডের রুট বরাবর একটি স্থানে একটি ইম্প্রোভাইজড বিস্ফোরক ডিভাইস রাখার কথা ভাবে ইউসুফ। খুব বেশি নিরাপত্তা এবং আক্রমণের পর্যাপ্ত সময় না থাকার কারণে ওই হামলা ব্যর্থ হয়।

তিনজন সিক্রেট সার্ভিস এজেন্ট বলেন, ১৯৯৬ সালের হামলার জন্য ইউসুফ প্রস্তুতি নিচ্ছিল বলে তারা বিশ্বাস করেন।

ইউসুফের আইনজীবী বার্নার্ড ক্লেইনম্যান রয়টার্সকে বলেন, ক্লিনটনের বিরুদ্ধে ১৯৯৬ সালের ষড়যন্ত্র ব্যর্থ করার জন্য ইউসুফ ১৯৯৪ সালে ম্যানিলায় ছিলেন। 

তিন এজেন্ট স্মরণ করেন, সিক্রেট সার্ভিসের নিরাপত্তা দলের অস্থিরতার একটি কারণ হতে পারে আল কায়েদা এবং ইউসুফের দ্বারা সৃষ্ট হুমকি। সে সময় তারা ফিলিপাইন কমিউনিস্ট এবং ইসলামপন্থী বিদ্রোহের সাথে লড়াই করছিল বলে এই হুমকি বাড়তে থাকে বলে মনে করেন তারা। 

কি ঘটেছিল সেদিন?

ক্লিনটনের আসার বেশ কয়েক দিন আগে ম্যানিলা বিমানবন্দরে একটি বোমা এবং সুবিক বে-র শীর্ষ সম্মেলন কেন্দ্রে আরেকটি বোমা আবিষ্কার করে পুলিশ। তাই ম্যানিলায় যাওয়ার আগের দিন মার্কিন কূটনীতিকদের বিরুদ্ধে হুমকির বিষয়ে সতর্ক করেছিল মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর।

টপ-সিক্রেট প্রেসিডেন্টের বিব্রতিতে সেদিন সফরের আগেই ক্লিনটনের জন্য সম্ভাব্য বিপদগুলো হাইলাইট করা হয়েছিল। একজন সামরিক সহযোগীর মতে, অবসরপ্রাপ্ত মার্কিন বিমান বাহিনীর লেফটেন্যান্ট কর্নেল রবার্ট প্যাটারসন ক্লিনটনের সফরে সঙ্গী ছিলেন।

ক্লিনটন যখন ম্যানিলায় আসেন তখন সন্ধ্যা। এয়ার ফোর্স ওয়ান নেমে আসার সাথে সাথে, সিক্রেট সার্ভিস এজেন্ট ড্যানিয়েল লুইস ম্যানিলা হোটেলের প্রধান রুটে একটি ব্রিজের উপর একটি ডিভাইস সম্পর্কে বিমানবন্দরের সিক্রেট সার্ভিস টিমের কাছে গোয়েন্দা তথ্য আসে।

ক্লিনটনের প্রতিরক্ষামূলক বিবরণের নেতৃত্ব দেওয়ার পর সিক্রেট সার্ভিসের পরিচালক হয়েছিলেন লুইস মেরলেটি। তিনি বলেন, তিনি মার্কিন গোয়েন্দা কর্মকর্তার কলের পরে একই সতর্কবার্তা প্রকাশ করছিলেন নাম না জানা অচেনা একজন। ‘সেতু জুড়ে বিবাহ’ উল্লেখ করে তিনি যাতায়াতে বাধা দেন।

তিনি বলেন, তখন তিনি বেশ কয়েক বছর আগের একটি গোয়েন্দা প্রতিবেদনের কথা স্মরণ করেন যারা বিবাহকে ‘হত্যার জন্য সন্ত্রাসী কোড’ হিসেবে চিহ্নিত করে। পরিকল্পিত মোটরশেডের রুটটি ক্লিনটনের হোটেলের প্রধান রুটে তিনটি সেতু দেখায়। এরপরেই আমরা রুট পরিবর্তন করেছি।

মের্লেটি, লুইস এবং গ্লোড বলেন, ক্লিনটনের উদ্দেশ্যে রাখা বোমাটি মূল রুট বরাবর একটি সেতুর একটি বৈদ্যুতিক বাক্সের উপরে পাওয়া গিয়েছিল। 

রয়টার্সের ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, ক্লিনটনের আগমনের সময় বোমা নিষ্ক্রিয়করণ বিশেষজ্ঞরা একটি ব্রিজের ওপর একটি বৈদ্যুতিক বাক্সের পাশে একটি বিস্ফোরক বিস্ফোরণ ঘটাচ্ছেন এবং বাক্সের উপরে কোন বোমা দেখা যাচ্ছে না।

ফিলিপিনো নিরাপত্তা কর্মীরা সেতুর শেষ প্রান্তে পরিত্যক্ত একটি লাল মিতসুবিশি পাজেরোও উদ্ধার করেছে বলে জানিয়েছেন এজেন্টরা। তারা বলেছেন, ভিতরে পাওয়া একে-৪৭ অ্যাসল্ট রাইফেলগুলো থেকে বোঝা যায়, হামলাকারীরা গাড়ির সাথে স্প্যানটি আটকে দেওয়ার এবং মোটরকেডে আগুন দেওয়ার পরিকল্পনা করেছিল।

পরের দিন সকালে, গ্লোড এবং মেরলেটি বলেন, মার্কিন দূতাবাসের একজন মার্কিন গোয়েন্দা কর্মকর্তা তাদের প্লট সম্পর্কে ব্রিফ করেছিলেন এবং ডিভাইসের ছবি দেখিয়েছিলেন। এটি একটি বর্ম-ছিদ্রকারী রাইফেল-চালিত গ্রেনেড ছিল। একটি বাক্সের উপরে টিএনটি যুক্ত নকিয়া ফোনে একটি ডেটোনেটর হিসাবে স্থাপন করা হয়েছিল এটি। ম্যানিলা গ্রাউন্ড টিমের দায়িত্বে থাকা এজেন্ট লুইস এবং ক্রেগ উলমার বলেছেন, তারাও পরে ছবিগুলো দেখেছেন।

স্টেট ডিপার্টমেন্টের অবসরপ্রাপ্ত সন্ত্রাসবাদ বিশ্লেষক ডেনিস প্লুচিনস্কি ২০২০ সালের মার্কিন-বিরোধী ইতিহাসের গবেষণা করার সময় এ চক্রান্ত সম্পর্কে জানতে পেরেছিলেন। 

১৯৯৫ সালে ক্লিনটন প্রেসিডেন্সিয়াল ডিসিশন ডাইরেক্টিভ ৩৯ জারি করে আমেরিকানদের বিরুদ্ধে সকল সন্ত্রাসী হামলা প্রতিরোধ করার এবং দায়ী ব্যক্তিদের ‘গ্রেফতার ও বিচার’ জোরালোভাবে করার প্রতিশ্রুতি দেন।

১৯৯৮ সালের আগস্টে কেনিয়া এবং তানজানিয়ায় মার্কিন দূতাবাসগুলোতে আল কায়েদার বোমা হামলায় ২২০ জন মারা যাওয়ার পরেও ক্লিনটন ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র হামলার প্রতিক্রিয়া জানিয়েছিলেন। কিন্তু তারা হামলার পরিকল্পনা করা থেকে লাদেনকে থামাতে ব্যর্থ হয়েছেন।

ওসামা বিন লাদেনের মৃত্যুর ১৩ বছর পরের বর্তমান আল কায়েদা অনেকটাই কম শক্তিধর সংগঠন। কিন্তু ৭ অক্টোবর হামাসের ইসরায়েল হামলার ঘটনা নতুন অনুসারীদের দলে ভিড়ানোর প্রচেষ্টাকে বাড়াতে পারে বলে উদ্বেগ প্রকাশ করে প্রতিবেদনটিতে।

সূত্র: রয়টার্স, অনুবাদক: আসমা ইসলাম

   

সব হিন্দু শরণার্থী নাগরিকত্ব পাবে: নির্বাচনী প্রচারণায় অমিত শাহ



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ভারতের লোকসভা নির্বাচনের প্রথম দফার ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। এবার সবার নজরে দ্বিতীয় দফার ভোট। আর তাই মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) প্রচার প্রচারণার জন্য ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও বিজেপি নেতা অমিত শাহ এসেছিলেন পশ্চিম বঙ্গে।

এ সময় ভাষণে অমিত শাহ বলেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বাংলাদেশ থেকে আসা শরণার্থীদের আশ্রয় দিতে চাইছেন না। হিন্দু, বৌদ্ধ, শিখ, জৈন শরণার্থীদের নাগরিকত্ব দিতে চাইছেন না। আমি কথা দিচ্ছি সব হিন্দু শরণার্থী নাগরিকত্ব পাবে।

এ বিষয়ে তৃণমূল কংগ্রেস নেতা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কড়া সমালোচনা করে তিনি বলেন, এবার আমরা এই বাংলা থেকে কাটমানির কালচার বন্ধ করে দুর্নীতিমুক্ত বাংলা গড়বো। সিএএ কার্যকর হবে। সিএএ ও এনআরসি বন্ধ করতে পারবে না মমতাদি।’

রাজ্যের মানুষ কেন কেন্দ্রীয় প্রকল্পের সুবিধা ভোগ করতে পারছে না, তা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন তিনি। বলেন, মোদিজি গরিব মানুষের জন্য কাজ করেছেন। ১২ কোটির বেশি শৌচালয় বানানো হয়েছে। ৪ কোটির বেশি মানুষ নিজের বাড়ি পেয়েছেন। কিন্তু মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কেন্দ্রীয় প্রকল্প এখানে আসতে দেন না।

এছাড়াও তিনি আরও বলেন, তৃণমূলের এক মন্ত্রীর বাড়ি থেকে ৫১ কোটি টাকা পাওয়া গেছে। তৃণমূলের যে নেতারা দশ বছর আগে ঝুপড়ি থাকত, সাইকেলে ঘুরত, তাদের এখন চারতলা বাড়ি।

এ সময় ভোটের টার্গেটের কথাও শোনান তিনি। পশ্চিম বঙ্গে বিজেপির লক্ষ্যমাত্রা ৪২টি সিটের মধ্যে তিরিশটির বেশি আসন জয়। শেষে বাংলার মানুষের কাছে চান ভোটের প্রতিশ্রুতি।

 

;

চলমান যুদ্ধের মধ্যেই রাশিয়ার উপ-প্রতিরক্ষামন্ত্রী আটক



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ঘুষ নেয়ার অভিযোগে রাশিয়ার উপ-প্রতিরক্ষামন্ত্রী তৈমুর ইভানভ কে আটক করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য প্রকাশিত হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, রাশিয়ার একজন উপ-প্রতিরক্ষামন্ত্রীকে ঘুষ নেওয়ার সন্দেহে আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছে দেশটির শীর্ষ তদন্তকারী সংস্থা। তদন্ত কমিটি মঙ্গলবার বলেছে, তৈমুর ইভানভকে আটক করা হচ্ছে এবং তার বিরুদ্ধে তদন্ত করা হচ্ছে।

ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ, রুশ সংবাদ সংস্থার বরাত দিয়ে বলেছেন, ইভানভকে আটকের বিষয়ে একটি প্রতিবেদন রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিনের কাছে উপস্থাপন করা হয়েছে। এছাড়া তাকে আটকের বিষয়ে প্রতিরক্ষা মন্ত্রীকে আগেই জানানো হয়েছে।

দেশটির সংবাদ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, অভিযোগ প্রমাণিত হলে ৪৮ বছর বয়সী ইভানভের ১৫ বছর পর্যন্ত জেল হতে পারে।

বিবিসি বলছে, ২০১৬ সালে রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ে নিযুক্ত হওয়া ৪৭ বছর বয়সী তৈমুর ইভানভ দেশটির সামরিক অবকাঠামো প্রকল্পের দায়িত্বে ছিলেন। মূলত অ্যাক্টিভিস্টরা দীর্ঘদিন ধরে রাশিয়ায় কথিত ব্যাপক মাত্রার দুর্নীতির সমালোচনা করে আসছেন।

তৈমুর ইভানভ পূর্বে মস্কো অঞ্চলের উপ-প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। আর এখানেই বর্তমান প্রতিরক্ষামন্ত্রী সের্গেই শোইগু সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্য গভর্নর হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন। তিনি শোইগুর ঘনিষ্ঠ সহযোগী ছিলেন বলে জানা যায়।

উল্লেখ্য, ইভানভের ওপর যুক্তরাষ্ট্র এবং যুক্তরাজ্যের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন তার বিরুদ্ধে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা আরাপের পাশাপাশি তার সম্পদও জব্দ করেছে।

;

জিবুতিতে নৌকাডুবি, ৩৫ অভিবাসীর মৃত্যু



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: বিবিসি

ছবি: বিবিসি

  • Font increase
  • Font Decrease

লোহিত সাগরের জিবুতি উপকূলে অভিবাসী বহনকারী একটি নৌকা ডুবে অন্তত ৩৫ অভিবাসনপ্রত্যাশীর মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। মৃত এসব অভিবাসীর মধ্যে শিশুও রয়েছে।

মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) বিবিসির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য প্রকাশিত হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, উত্তর আফ্রিকার দেশ তিউনিশিয়ায় ১৯ অভিসানপ্রত্যাশীর মৃত্যু হয়েছে। অন্যদিকে জিবুতি উপকূলে একটি নৌকাডুবে ১৬ জনের মৃত্যু হয়েছে এবং নিখোঁজ রয়েছেন আরও ২৮ জন।

তিউনিসিয়ার কোস্টগার্ড জানিয়েছে, এরই মধ্যে ১৯ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। তারা ইউরোপের দেশ ইতালি যাওয়ার চেষ্টা করছিলেন।

উদ্ধারের পর জিবুতির উপকূলে গডোরিয়া শহরে নিয়ে আসা জীবিতদের চেহারায় বিপর্যয় এবং ভয় স্পষ্ট ছিল। পরে সেখানে চিকিৎসার জন্য তাদের হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে জাতিসংঘের অভিবাসন বিষয়ক সংস্থা আইওএম তাদের ইথিওপিয়ায় প্রত্যাবাসন করে।

জিবুতি কোস্টগার্ডের সিনিয়র কর্মকর্তা ইস ইইয়াহ বলেছেন, যারা ডুবে যাওয়া নৌকায় ছিলেন তারা ইয়েমেন ছেড়ে চলে যেতে চেয়েছিলেন। কারণ তাদের নিজের দেশের তুলনায় সেখানে জীবন আরও বেশি সংগ্রামের ছিল।

এ ঘটনায় জিবুতিতে নিযুক্ত ইথিওপিয়ার রাষ্ট্রদূত বারহানু সেগায়ে সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম এক্সে অভিবাসীদের মৃত্যুর জন্য শোক প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেছেন, ‘জিবুতি থেকে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে অবৈধপন্থায় ভ্রমণ অত্যন্ত বিপজ্জনক এবং এতে করে ক্রমাগত আমাদের নাগরিকরা তাদের জীবন হারাচ্ছেন।’

প্রসঙ্গত, যুদ্ধ, প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও উন্নত জীবনের আশায় প্রতি বছর হাজার হাজার আফ্রিকান অভিবাসনপ্রাত্যাশী লোহিত সাগরের ওপারে সৌদি আরবে যাওয়ার চেষ্টা করেন। নৌকাডুবে মারা যান অনেকে।

;

ফের বৃষ্টির শঙ্কা দুবাইয়ে



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সংযুক্ত আরব আমিরাতের আমিরশাহির আবহাওয়া অফিস ‘দ্য ন্যাশনাল সেন্টার অব মেটেরিয়োলজি’ (এনসিএম) দুবাইয়ে ফের বৃষ্টির সতর্কবার্তা দিয়েছে।

তবে সংস্থাটি জানিয়েছে, ফের বৃষ্টি হলেও তা গত সপ্তাহের মতো ভয়াবহ অবস্থা হবে না। বুধবার (২৪ এপ্রিল) নাগাদ পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে। তবে তাপমাত্রা ৫-৭ ডিগ্রি কমতে পারে।

গত সপ্তাহে এক দিনে ৭৫ বছরের মধ্যে রেকর্ড পরিমাণ বৃষ্টি হয়েছে দেশটিতে। রেকর্ড গড়া বৃষ্টিতে চার দিন ধরে পানিতে ডুবে ছিল দুবাই বিমানবন্দর। আবু ধাবি, শারজার অবস্থাও শোচনীয় হয়েছিল।

এনসিএম-এর জলবায়ু বিশেষজ্ঞ আহমেদ হাবিব বলেন, ‘‘চিন্তার কিছু নেই। বর্তমান পরিস্থিতিতে আর যাই হোক, ভারী বৃষ্টি হবে না। গত সপ্তাহের সঙ্গে তুলনার প্রশ্নই নেই। মাঝারি বৃষ্টি হবে। মেঘ পশ্চিম উপকূল থেকে সংযুক্ত আরব আমিরশাহিতে ঢুকছে।’’

জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব প্রায় গোটা পৃথিবী জুড়েই স্পষ্ট। মরুভূমির দেশের বৃষ্টি হচ্ছে, মেরু অঞ্চলে হিমবাহ গলছে। সম্প্রতি ওমানে প্রবল ঝড় হয়। ২০ জনের মৃত্যু হয় সে দেশে। তার পরে সেই ঝড়-বৃষ্টি ধেয়ে যায় সংযুক্ত আরব আমিরশাহিতে।

;