আগামী নির্বাচনে প্রার্থিতায় ব্যাপক পরিবর্তন আনছে সু চি’র দল

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

মিয়ানমারে ২০২০ সালের নির্বাচনে প্রার্থিতায় অর্ধেকেরও বেশি নতুন মুখ আনবে অং সান সূ চি’র দল ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসি (এনএলডি)।

এনএলডি মুখপাত্র মনওয়া অং শিন স্থানীয় গণমাধ্যমে এসব জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘বর্তমান প্রার্থীদের দুর্বলতা রয়েছে। সুতরাং, আমাদের সেগুলো প্রতিস্থাপনের পরিকল্পনা রয়েছে।’

অং শিন আরও বলেন, ‘বর্তমানে বেশিরভাগ প্রার্থীরই দলের প্রয়োজনীয় যোগ্যতা নেই, তাই এনএলডি সঠিক পদে সঠিক লোকদের নির্বাচন করবে।’

তিনি স্বীকার করেন, ২০১৫ সালে দলীয় নীতি নির্ধারণে দুর্বলতার কারণে আগামী বছরের নির্বাচনের প্রার্থী বাছাইয়ে অসুবিধা হচ্ছে।

২০২০ সালে বিজয় নিশ্চিত করতে এনএলডি এই বছরের শেষের দিকে তৃণমূল প্রার্থীদের মনোনয়নের দিকে মনোনিবেশ করে টাউনশিপ, জেলা এবং রাজ্য বা অঞ্চল অনুযায়ী কৌশল তৈরি করবে।

২০১৫ সালে, দলটি ‘ব্যক্তি নয়, নীতিকে দেখুন’ এ কৌশল অবলম্বনে প্রচারণা চালিয়ে দুর্দান্ত বিজয় অর্জন করে।

অং শিন যোগ করেন, যে প্রার্থীর প্রয়োজনীয় যোগ্যতা নেই, যাকে কেউ নির্ভর করতে পারে না তাদের টিকিট দেবে না এনএলডি। ২০২০ সালের নির্বাচনের সময় দলের প্রতি আনুগত্য, যুবসমাজ, জাতি এবং শিক্ষার ভিত্তিতে প্রার্থী নির্বাচন করবে।

এনএলডির আরেক মুখপাত্র ইউ মায়ো নিন্ট বলেন, ‘এনএলডির কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটি (সিইসি) এবং সংসদীয় প্রতিনিধিদের মধ্যে সম্পর্ক দুর্বল। নতুন নীতিমালার ভিত্তিতে, কোনো সদস্য যদি দলের নিয়ম লঙ্ঘন করে তবে প্রথম অপরাধের জন্য সতর্কতা জারি করা হবে, দ্বিতীয় অপরাধের জন্য একটি সতর্কতা পত্র এবং জরিমানা জারি করা হবে এবং তৃতীয় অপরাধের জন্য দল থেকে বরখাস্ত করা হবে।

দলটি সিইসি সদস্যসহ বিভিন্ন সদস্যদের বিরুদ্ধে প্রায় ৫০টি অভিযোগ পেয়েছে। চারজন সংসদীয় প্রতিনিধি দল থেকে পদত্যাগ করেছেন। কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশন ঘোষণা করেছে, ২০২০ সালে ৯৫টি রাজনৈতিক দল প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে। এতে এনএলডি নির্বাচনে প্রভাব ফেলবে বলে মনে করা হচ্ছে।

আপনার মতামত লিখুন :