বাংলাদেশের নুসাইবা দুবাই কোরআন প্রতিযোগিতায় সপ্তম



ইসলাম ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
দুবাই কোরআন প্রতিযোগিতায় তেলাওয়াত করছেন বাংলাদেশের কিশোরী হাফেজ নুসাইবা হক ফাইজা

দুবাই কোরআন প্রতিযোগিতায় তেলাওয়াত করছেন বাংলাদেশের কিশোরী হাফেজ নুসাইবা হক ফাইজা

  • Font increase
  • Font Decrease

দুবাইয়ে সপ্তমবারের মতো নারী হাফেজদের অংশগ্রহণে শাইখা ফাতেমা বিনতে মোবারক আন্তর্জাতিক কোরআন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়েছে। প্রতিযোগিতায় সপ্তম স্থান অর্জন করেছেন বাংলাদেশের কিশোরী হাফেজ নুসাইবা হক ফাইজা।

গত শুক্রবার দুবাইয়ের আল-মামজার এলাকার কালচারাল থিয়েটার হলে অনুষ্ঠিত বর্ণাঢ্য আয়োজনে প্রতিযোগীদের পুরস্কার ও সম্মাননা সনদ তুলে দেওয়া হয়।

প্রতিযোগীদের মধ্যে শাইখা ফাতেমা বিনতে মোবারকের পক্ষ থেকে পুরস্কার বিতরণ করেন শাইখা হিসাহ বিনতে মাকতুম বিন জামআহ আলে-মাকতুম, আল-নাহদা উইমেনস অ্যাসোসিয়েশনের প্রধান শাইখা আমিনা বিনতে হুমাইদ আল-তায়েরসহ গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা।

আমিরাতের বার্তা সংস্থা ওয়াম সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।

গত ১৬ সেপ্টেম্বর দুবাইয়ে শাইখা ফাতিমা বিনতে মোবারক আন্তর্জাতিক কোরআন প্রতিযোগিতার সপ্তম পর্ব শুরু হয়। প্রতিযোগিতায় বিশ্বের ৫০টি দেশের নির্বাচিত প্রতিনিধিরা অংশ নেন। চূড়ান্ত প্রতিযোগিতায় প্রথম স্থান অধিকার করেন জর্দানের সুনদুস সায়িদ, দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেন বাহরাইনের আমাতুর রহমান, তৃতীয় স্থান অধিকার করেন আলজেরিয়ার ইয়াসমিন ওয়ালাদ দালি, ইন্দোনেশিয়ার মাসলাহা জামালুদ্দিন ও ইয়েমেনের আসমা আবদুর রহমান।

ষষ্ঠ স্থান অধিকার করেন সেনেগালের আনদি বুসু। সপ্তম স্থান অধিকার করেন বাংলাদেশের নুসাইবা হক ফাইজা ও ক্যামেরুনের আয়েশা হুমাইদ। নবম স্থান অধিকার করেন তানজানিয়ার সুমাইয়া আলি এবং দশম স্থান অধিকার করেন যথাক্রমে ফিনল্যান্ডের সামিরা নুর ও উগান্ডার নাবিলা।

নুসাইবা হক ফাইজা রাজধানীর ওয়ারীর সাউদা বিনতে জামআহ (রা.) বালক-বালিকা হিফজ মাদরাসার শিক্ষার্থী। তারা বাবা জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের ইমাম মাওলানা এহসানুল হক জিলানী।

হাফেজ নুসাইবার গ্রামের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ থানার সোহাগপুর। সে গত ২ আগস্ট ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ কর্তৃক নির্বাচনী পরীক্ষায় বাংলাদেশের প্রতিনিধি হিসেবে নির্বাচিত হয়।

এর আগে হাফেজ রাফিয়া হাসান জিনাত ২০১৬ সালে এই প্রতিযোগিতায় ৮৩টি দেশের মধ্যে নবম স্থান অর্জন করেন। ২০১৭ সালে ৭০টি দেশের প্রতিযোগীকে পেছনে ফেলে ৪র্থ স্থান অধিকার করেন হাফেজ খাদিজা বিনতে আহসান মোহাম্মদ আহসান উল্লাহ এবং ২০১৯ সালে হাফেজ ওয়াহিদা হাফসা ১০তম স্থান অধিকার করেন।

   

হজযাত্রী নিবন্ধনের সময় বাড়ল ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত



ইসলাম ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

হজযাত্রীদের কাছ থেকে কাঙ্ক্ষিত সাড়া না পাওয়ায় হজযাত্রী নিবন্ধনের সময় বাড়িয়েছে সরকার।

রোববার (১০ ডিসেম্বর) ধর্ম মন্ত্রণালয় এক বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে, আগামী ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত হজযাত্রীদের নিবন্ধনের সময় বৃদ্ধি করা হয়েছে।

চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আগামী বছরের ১৬ জুন (১৪৪৫ হিজরি সনের ৯ জিলহজ) পবিত্র হজ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা। চলতি বছরের মতো আগামী বছরও (২০২৪ সাল) বাংলাদেশ থেকে এক লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জন হজ করতে পারবেন। এর মধ্যে সরকারি মাধ্যমে কোটা ১০ হাজার ১৯৮ জন ও বেসরকারি এজেন্সির কোটা এক লাখ ১৭ হাজার জন হজ পালন করতে পারবেন বলে ধর্ম মন্ত্রণালয় থেকে জানানো হয়।

এ পর্যন্ত হজ পালনে ইচ্ছুক ৪ হাজার ৫৯৬ জন নিবন্ধন করেছেন। এর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় ১ হাজার ১২৯ জন ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ৩ হাজার ৪৬৭ জন নিবন্ধন করেছেন। ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের হজ ব্যবস্থাপনা পোর্টাল থেকে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

নিবন্ধনের জন্য হজযাত্রীদের পাসপোর্টের মেয়াদ আগামী বছরের ৩০ ডিসেম্বর পর্যন্ত থাকতে হবে। সরকারিভাবে হজে যেতে সাধারণ প্যাকেজে ৫ লাখ ৭৮ হাজার ৮৪০ টাকা খরচ হবে। বিশেষ হজ প্যাকেজের ৯ লাখ ৩৬ হাজার ৩২০ টাকা খরচ হবে।

আর বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় দুটি হজ প্যাকেজ ঘোষণা করেছে হজ এজেন্সিজ অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (হাব)। প্রথম প্যাকেজের (সাধারণ) খরচ ধরা হয়েছে ৫ লাখ ৮৯ হাজার ৮০০ টাকা। দ্বিতীয় প্যাকেজের খরচ ধরা হয়েছে ৮ লাখ ২৮ হাজার ৮১৮ টাকা।

আরও পড়ুন- হজ পালনে বিধিনিষেধ কমছে, বাড়ছে নিবন্ধনের সময়

;

নুরানি বোর্ডের সমাপনী পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ, পাসের হার ৮৭.৭৯%



ইসলাম ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
নুরানি বোর্ডের সমাপনী পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ

নুরানি বোর্ডের সমাপনী পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশব্যাপী একসঙ্গে শুরু হওয়া নুরানি তালীমুল কুরআন বোর্ড বাংলাদেশ (এন,টি,কিউ,বি) পরিচালিত ৩য় শ্রেণির ১৭তম সমাপনী পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে।

রোববার (১০ ডিসেম্বর) সকালে মোহাম্মদপুরস্থ নুরানি বোর্ডের নিজস্ব কার্যালয়ে ‘শায়খুল কুরআন অডিটোরিয়ামে’ ফলাফল ঘোষণা করা হয়।

নুরানি তালীমুল কুরআন বোর্ডের ম্যানেজার মো. হাসানুজ্জামানেরর পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব কথা জানানো হয়।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, এবার ৪৯ হাজার ৪৯৬ জন পরিক্ষার্থী অংশ নিয়ে পাস করেছে ৪৩ হাজার ৪৫২ জন। পাসের হার ৮৭.৭৯%।

মেধা তালিকায় স্থান পেয়ে সেরা শিক্ষার্থী নির্বাচিত হয়েছে ১২ জন। মেধা তালিকায় প্রথম হয়েছে- ঢাকার রওজাতুল কুরআন মাদ্রাসার মিম আক্তার। দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেছে খুলনার পশ্চিম বানিয়াখামার দারুল কুরআন বহুমুখী মাদরাসার হাবিবা ইরহা। তৃতীয় স্থান অধিকার করেছে ১০ জন। ফেনীর জামিয়া রশীদিয়া দক্ষিণ শাখার সাইফুল ইসলাম, নোয়াখালীর হজরত ওমর ফারুক রা. মাদ্রাসার হাবিবুর রহমান, ঢাকার জামিয়া কুরআনিয়া নূরানী বালক-বালিকা মাদ্রাসার সুলতানা পারভীন, ফেনী আলীয়া (অনার্স) কামিল মাদ্রাসা নূরানী বিভাগের মো. শাবাজ, ফেনীর দারুল উলুম হস্তিমৃতা মাদ্রাসার মো.আরাফাত হোসেন মজুমদার, চট্টগ্রামের নিজামপুর মারকাযুল কুরআন মাদ্রাসার তাহসিন আহমেদ, ঢাকার মাদ্রাসা উলুমুল কুরআন আল মাদানীয়ার আহনাফ আহসান রাফাত, ফেনীর মুন্সিরহাট মদিনাতুল উলুম মাদ্রাসার মো. ইমরান হোসেন, খুলনার পশ্চিম বানিয়াখামার দারুল কুরআন বহুমুখী মাদ্রাসার ফারিহা জাবিন ইরা ও ঢাকার রওজাতুল কুরআন মাদ্রাসার মো. নাছিম মিয়া।

সারাদেশের মোট ৭৫২টি কেন্দ্রে এই সমাপনী পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

পরীক্ষা বাস্তবায়ন কমিটির চেয়ারম্যান মাওলানা কালিমুল্লাহ জামিল হুসাইন ফলাফল প্রকাশ অনুষ্ঠানে বলেন, দেশব্যাপী তরুণ আলেমদের কাছে অনুরোধ করছি- একটি নীরব সাধনায় নিজেদের আত্মনিয়োগ করতে হবে। তা হচ্ছে-প্রতিটি গ্রামে, পাড়া-মহল্লায় নুরানি মাদ্রাসা, নুরানি স্কুল, নুরানি মক্তব ও ইসলামিক স্কুল প্রতিষ্ঠা করা। আমাদের প্রতিটি সন্তানের কাছে দ্বীন শেখাকে সহজ থেকে সহজতর করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, তরুণ আলেমরা এগিয়ে এলে শায়খুল কুরআন আল্লামা কারী বেলায়েত হুসাইন (রহ.) প্রতিষ্ঠিত নুরানি তালিমুল কুরআন বোর্ড সব রকমের সহযোগিতা করবে। আগামীর শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিশুবান্ধব হোক এই প্রতাশাও করেন তিনি।

পরীক্ষা বাস্তবায়ন কমিটির মহাসচিব মাওলানা ইসমাঈল বেলায়েত হুসাইন বলেন, শিশুরা কাঁচামাটির মতো। তাদের যেভাবে গড়ে তুলবেন তারা সেভাবেই গড়ে ওঠবে। আমরা দ্বীন ধর্ম ও মাতৃভূমির ভালোবাসায় সন্তানদের গড়ে তুলি। সুনাগরিক ও দেশপ্রেমিক প্রজন্ম গড়ে তুলতে কাজ করে নুরানি বোর্ড।

তিনি আরো বলেন, দেশব্যাপী নুরানি মাদ্রাসা ও ইসলামিক স্কুল পরিচালনার মাধ্যমে জাতিকে সুসন্তান উপহার দেওয়ার কাজটি নুরানি বোর্ড করে যাচ্ছে। আগামী দিনেও আমাদের এই ধারা চালু থাকবে- ইনশাআল্লাহ।

পরীক্ষা যথাযথভাবে অনুষ্ঠিত হওয়ার ক্ষেত্রে যারা যেভাবে সহযোগিতা করেছেন সবার প্রতি আন্তরিক কৃতজ্ঞতাও প্রকাশ করেন তিনি।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মাওলানা আবু বকর সিদ্দিক, যুগ্ম-মহাসচিব নুর আহমদ আল ফারুক ও আওয়ার ইসলাম সম্পাদক মুফতি হুমায়ুন আইয়ুব।

;

ইসরায়েল গুঁড়িয়ে দিয়েছে প্রাচীন ওমরি মসজিদ



ইসলাম ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
গাজার ওমরি মসজিদ গুঁড়িয়ে দিয়েছে ইসরাইল, ছবি : সংগৃহীত

গাজার ওমরি মসজিদ গুঁড়িয়ে দিয়েছে ইসরাইল, ছবি : সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

গাজার প্রাচীনতম ওমরি মসজিদ গুঁড়িয়ে দিয়েছে দখলদার ইসরায়েল। ইসরায়েলি বোমা হামলার পর ওমরি মসজিদটির কেবল মিনার দাঁড়িয়ে থাকে। আর বাকি সবকিছু ধ্বংস হয়ে যায়। পঞ্চম শতক থেকে স্থানটি খ্রিস্টান বা মুসলিম পবিত্র স্থান হিসেবে বিবেচিত হয়ে আসছিল। ইসলামের দ্বিতীয় খলিফা হজরত ওমর (রা.)-এর নামে মসজিদটির নামকরণ করা হয়েছিল।

শুক্রবার (৮ ডিসেম্বর) ইসরায়েলি বাহিনী প্রাচীন এই ঐতিহ্যকে শেষ করে দেয়। গাজা সিটির ওল্ড টাউনে অবস্থিত মসজিদটি ইতোপূর্বে কয়েকটি সংঘাতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল। একবার ভূমিকম্পেও ক্ষতির মুখে পড়েছিল। তবে প্রতিবারই একে নতুন করে নির্মাণ করা হয়।

১৪০০ বছরেরও আগে প্রতিষ্ঠিত হয় গাজায় অবস্থিত ওমরি মসজিদ। এটি আল-আকসা ও আহমেদ পাশা আল-জাজার মসজিদের পর ফিলিস্তিনের তৃতীয় বৃহত্তম ও প্রাচীন মসজিদ হিসেবে বিবেচিত। ওমর মুখতার স্ট্রিটের পূর্বে, ফিলিস্তিন স্কয়ারের দক্ষিণ-পূর্ব পাশে, গাজার প্রাচীন শহরের কেন্দ্রস্থলে দারাজ কোয়ার্টারে এর অবস্থান। কেউ কেউ মসজিদে আকসার সঙ্গে সাদৃশ্য থাকার কারণে এটিকে ‘ছোট আল-আকসা মসজিদ’ বলে ডাকে।

খলিফা হজরত ওমর বিন খাত্তাবের শাসনামলে ৬৩৬ খ্রিস্টাব্দে ফিলিস্তিন বিজিত হয়। ফিলিস্তিন বিজয়কালে খলিফা ওমর ইবনে খাত্তাবের সম্মানে মসজিদের নাম দেওয়া হয় ‘আল-ওমরি।’ আর এটি গাজার অন্যতম বৃহত্তম মসজিদ হওয়ায় ‘বড় মসজিদ’ হিসেবে পরিচিত। ১৩৫৫ সালে মুসলিম ভূগোলবিদ ইবনে বতুতা মসজিদটিকে তৎকালীন সময়ের ‘এক উত্তম জামে মসজিদ’ হিসেবে উল্লেখ করেন।

চার হাজার ১০০ বর্গমিটারের একটি এলাকায় (৪৪ হাজার বর্গফুট) মসজিদটি অবস্থিত। এর প্রাঙ্গণের আয়তন এক হাজার ১৯০ বর্গমিটার। মসজিদের পাঁচটি দরজা রয়েছে। সাধারণত বেশির ভাগ কাঠামো স্থানীয়ভাবে পরিচিত সামুদ্রিক বেলেপাথর কুরকার থেকে নির্মিত হয়।

মামলুক ও পরবর্তী সময়ে অটোমানরা ভবনের দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব দিকে সম্প্রসারিত করেছে। মসজিদ প্রাঙ্গণে মামলুক ও উসমানীয় যুগে কোরআন ও ধর্মীয় জ্ঞানদানের জন্য ব্যবহৃত চারটি কক্ষ ছিল।

উসমানীয় শাসনামলে মসজিদটি সম্প্রসারিত এবং বিভিন্ন স্থাপত্য সংযোজন করা হয়। এ মসজিদ মিনারের জন্য বিখ্যাত।

গাজায় চলমান ইসরায়েলি হামলায় শতাধিক ‘শান্তির ঐতিহ্য’ ধ্বংস হয়েছে। এসবের মধ্যে রয়েছে ২ হাজার বছরের পুরনো সেন্ট পরফিরাস চার্চ। এছাড়া বিশ্বের তৃতীয় প্রাচীন রোমান কবরস্থান ও জাদুঘরেও আঘাত হানে ইসরায়েল। হামাস কর্মকর্তারা ইসরায়েলের এ কাজকে ‘জঘন্য, বর্বর অপরাধ’ হিসেবে অভিহিত করেছে।

;

হজ পালনে বিধিনিষেধ কমছে, বাড়ছে নিবন্ধনের সময়



ইসলাম ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
পবিত্র কাবা, ছবি : সংগৃহীত

পবিত্র কাবা, ছবি : সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণে গত তিন বছর হজযাত্রীর সংখ্যা সীমিত থাকলেও আসন্ন হজে তা সীমিত রাখবে না বলে জানিয়েছে সৌদি সরকার। থাকবে না কোনো বয়সসীমাও, উঠিয়ে নেওয়া হয়েছে করোনা টিকার সনদের শর্ত। সহজ করা হচ্ছে ভিসা প্রক্রিয়া।

দেশটির হজ ও ওমরাবিষয়ক মন্ত্রী তৌফিক আল-রাবিয়া এসব কথা জানান। রাজধানী রিয়াদে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ‘হজযাত্রীর সংখ্যা করোনা মহামারির আগের সময়ের মতো করা হবে। এতে কোনো বয়সসীমা থাকবে না। আমরা স্বাভাবিক পরিস্থিতির হজ ব্যবস্থাপায় ফিরছি- ইনশাআল্লাহ।’

ইসলামে পাঁচটি ফরজের মধ্যে হজ একটি। সামর্থ্যবান মুসলিমদের জন্য জীবনে অন্তত একবার হজ করা ফরজ। চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আগামী বছরের ১৬ জুন পবিত্র হজ অনুষ্ঠিত হতে পারে।

করোনার আগে ২০১৯ সালের হজে ২৫ লাখ মুসলমান অংশ নেন। পরের দুই বছর মহামারীর কারণে হজযাত্রীর সংখ্যা কমানো হয়। সর্বশেষ ২০২৩ সালে ১৮ লাখ ৪৫ হাজার ৪৫ জন পুরুষ ও নারী হজ পালন করেছেন। সে সময় হজযাত্রীদের বয়সসীমা ৬৫ বছরের নিচে সীমিত রাখা হয়। বাধ্যতামূলক করা হয় করোনার টিকা ও নেগেটিভ সনদ।

ইতিমধ্যে বিভিন্ন দেশ পবিত্র হজের কার্যক্রম শুরু করেছে। সৌদি আরব হজের সেবাদানকারী কোম্পানীর নিবন্ধনে আবেদনপত্র আহ্বান করেছে।

বাংলাদেশে ১৫ নভেম্বর থেকে ২০২৪ সালের হজের নিবন্ধন শুরু হয়েছে। এরমধ্যে সরকারি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় হজ নিবন্ধন শুরু করেছেন হজ পালনে ইচ্ছুক ব্যক্তিরা। নিবন্ধন প্রক্রিয়া রোববার (১০ ডিসেম্বর) শেষ হওয়ার কথা থাকলেও আশানুরূপ নিবন্ধন না হওয়ায় সময় বাড়ানো হবে।

এ পর্যন্ত হজ পালনে ইচ্ছুক ৪ হাজার ৫৯৬ জন নিবন্ধন করেছেন। এর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় ১ হাজার ১২৯ জন ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ৩ হাজার ৪৬৭ জন নিবন্ধন করেছেন। ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের হজ ব্যবস্থাপনা পোর্টাল থেকে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

ধর্ম মন্ত্রণালয় জানায়, বাংলাদেশ থেকে আগামী বছর ১ লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জন হজ করতে পারবেন। এর মধ্যে সরকারি মাধ্যমের কোটায় ১০ হাজার ১৯৮ জন ও বেসরকারি কোটায় ১ লাখ ১৭ হাজার জন হজ পালন করতে পারবেন।

নিবন্ধনের জন্য হজযাত্রীদের পাসপোর্টের মেয়াদ আগামী বছরের ৩০ ডিসেম্বর পর্যন্ত থাকতে হবে। সরকারিভাবে হজে যেতে সাধারণ প্যাকেজে ৫ লাখ ৭৮ হাজার ৮৪০ টাকা খরচ হবে। বিশেষ হজ প্যাকেজের ৯ লাখ ৩৬ হাজার ৩২০ টাকা খরচ হবে।

আর বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় দুটি হজ প্যাকেজ ঘোষণা করেছে হজ এজেন্সিজ অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (হাব)। প্রথম প্যাকেজের (সাধারণ) খরচ ধরা হয়েছে ৫ লাখ ৮৯ হাজার ৮০০ টাকা। দ্বিতীয় প্যাকেজের খরচ ধরা হয়েছে ৮ লাখ ২৮ হাজার ৮১৮ টাকা।

;