নির্ধারিত সময়ে উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ শেষ করতে হবে: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী



ইসলাম ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিভূক্ত প্রকল্পসমূহের বাস্তবায়ন অগ্রগতি পর্যালোচনা সভা, ছবি: সংগৃহীত

বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিভূক্ত প্রকল্পসমূহের বাস্তবায়ন অগ্রগতি পর্যালোচনা সভা, ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বর্তমান সরকার সকল ধর্মীয় সম্প্রদায়ের উন্নয়নে পর্যাপ্ত উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহণ করেছে। উন্নয়ন প্রকল্পসমূহ যথাযথভাবে বাস্তবায়ন করা গেলে ধর্মীয় ও সামাজিক ক্ষেত্রে বাংলাদেশে উল্লেখযোগ্য উন্নতি সাধিত হবে। তাই সবাইকে প্রকল্পে প্রদত্ত নির্দেশনা অনুসরণ করে সঠিক সময়ে প্রকল্পের কাজ সম্পন্ন করতে হবে।

রোববার (২৯ ডিসেম্বর) সচিবালয়ের কার্যালয়ে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব এডভোকেট শেখ মো. আবদুল্লাহ ২০১৯-২০২০ অর্থবছরের বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিভূক্ত প্রকল্পসমূহের নভেম্বর মাসের বাস্তবায়ন অগ্রগতি পর্যালোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

ধর্ম প্রতিমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রীর অগ্রাধিকারমূলক প্রকল্প হলো দেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলায় একটি করে মোট ৫৬০টি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্প। ইতোমধ্যে এ প্রকল্পের অধীনে যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন করে ৫০৯টি মসজিদ নির্মাণ কাজের দরপত্র আহবান করা হয়েছে। এগুলোর মধ্যে বেশ কয়েকটি মসজিদের নির্মাণ কাজ প্রায় সম্পন্ন হয়েছে। ৪৮৭টি মসজিদ নির্মাণের কার্যাদেশ দেওয়া হয়েছে এবং ৩৫৫টি মসজিদের নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছে। এসব মসজিদের নির্মাণ কাজ দ্রুতসময়ে সম্পন্ন করার জন্য ধর্ম প্রতিমন্ত্রী প্রকল্প পরিচালকসহ সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা প্রদান করেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, জনগণের অর্থের টাকা জনগণের কল্যাণে ব্যয় করতে সরকার মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে প্রকল্প গ্রহণ করা হয়। এসব বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর অনুশাসন অনুসরণ করে উন্নয়ন কাজের বাস্তবায়ন করা গেলে জনগণ ব্যাপক সুবিধা ভোগ করবে।

উল্লেখ্য, ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে চলতি অর্থবছরে অনুমোদিত প্রকল্পের সংখ্যা ১০টি। তন্মধ্যে উল্লেখযোগ্য প্রকল্প হলো- প্রতিটি জেলা ও উপজেলায় ১টি করে ৫৬০টি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র স্থাপন প্রকল্প, মসজিদভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা প্রকল্প, মন্দিরভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা প্রকল্প, প্যাগোডাভিত্তিক প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা প্রকল্প ইত্যাদি।

বৈঠকে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় মসজিদ, মন্দির ও প্যাগোডাভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা প্রকল্পসমূহের মাধ্যমে প্রাক-প্রাথমিক ও নৈতিক শিক্ষা প্রদান করে উন্নত জাতি গঠনে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে। গত অর্থবছরে সরকারের প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা কর্মসূচিতে মোট ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা ছিলো ৩২ লাখ। এর মধ্যে ১২ লাখ ৪৬ হাজার শিশু ধর্ম মন্ত্রণালয়ের অধীন তিনটি প্রকল্পের মাধ্যমে শিক্ষাগ্রহণ করছে।

বৈঠকে জানােনা হয়, সরকার ২২৮ কোটি ব্যয়ে সারাদেশের ১ হাজার ৮১২টি মন্দির সংস্কারের প্রকল্প গ্রহণ করেছে। এছাড়া ২৩ কোটি ব্যয়ে ৩টি কর্মসূচির মাধ্যমে ঢাকেশ্বরী জাতীয় মন্দিরসহ ১৯৯টি মন্দিরের সংস্কার কাজ প্রায় সম্পন্ন হয়েছে।

চলতি ২০১৯-২০২০ অর্থ বছরে ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় ও এর আওতাধীন দপ্তর-সংস্থার মাধ্যমে মোট ১০টি প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে। যার মোট বরাদ্দের পরিমাণ ৯৯৫ কোটি ৩৫ লাখ টাকা।

সভায় ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. আনিছুর রহমান, অতিরিক্ত সচিব কাজী হাসান আহমেদ, ড. মোয়াজ্জেম হোসেন, ওয়াকফ প্রশাসক মো. শহিদুল ইসলামসহ বিভিন্ন প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক ও সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন।