শবে কদর: শেষ নবীর উম্মতের জন্য বিশেষ উপহার

নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

দিবস- রজনী, মাস-বছর সবই আল্লাহ তায়ালার সৃষ্টি। তারপরও এসবের মধ্যে কিছু কিছু পার্থক্য বিদ্যমান। যেমন ঈদের রাত, লাইলাতুল কদর, জুমাবার, ঈদের দিন, রমজান মাস বিশেষ মর্যাদা ও তাৎপর্যপূর্ণ। বিশেষ করে লাইলাতুল কদর অনন্য ও অনুপম মর্যাদার অধিকারী।

এ রাতকে লাইলাতুল কদর হিসেবে নামকরণের অনেক কারণ রয়েছে। ইমাম জুহুরি (রহ.) বলেন, এ রাতকে লাইলাতুল কদর বলার অর্থ হলো- এ রাত অতীব মূল্যবান, অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ও উচ্চ মর্যাদা সম্পন্ন। কদরের আরেক অর্থ তাকদীর বা ভাগ্য নির্ধারণ। এ রাতে আল্লাহ তায়ালা পরবর্তী এক বছরের অবধারিত বিধিলিপি ব্যবস্থাপক ও প্রয়োগকারী ফেরেশতাদের নিকট হস্তান্তর করেন, যাতে সব মানুষের জন্ম, মৃত্যু, রিজিক, বৃষ্টি ইত্যাদির তারিখ ও পরিমাণ নির্দিষ্ট থাকে। এমনকি এ বছর কে কে হজ করবে তাও লিখে দেওয়া হয়। হজরত ইবনে আব্বাস (রা.)- এর মতে যে চারজন ফেরেশতাকে এ সব দায়িত্ব বুঝিয়ে দেওয়া হয় তারা হলেন- হজরত জিবরাঈল (আ.), হজরত মিকাঈল (আ.), হজরত ইসরাফিল (আ.) ও হজরত আজরাইল (আ.)। -কুরতুবি

লাইলাতুল কদর এক অনুপম ও তুলনাহীন রাত। এ রাতের বিশেষ বৈশিষ্ট্য হলো- সর্বশেষ আসমানি গ্রন্থ পবিত্র কোরআন সর্ব প্রথম এ রাতে নাজিল হয়। ফলে এ রাতের ইবাদত হাজার মাসের (৮৩ বছর ৪ মাসের) ইবাদত অপেক্ষা উত্তম। এ রাতে ফেরেশতাদের সর্দার হজরত জিবরাঈল (আ.) ফেরেশতাদের এক বিরাট জামাত নিয়ে পৃথিবীতে আগমন করেন এবং বিশ্ববাসীর মধ্যে কল্যাণ ও প্রাচুর্য বিতরণ করেন।

হজরত আবদুল কাদের জিলানী (রহ.) তার বিখ্যাত গ্রন্থ গুনিয়াতুত তালেবিনে হজরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত হাদিসে উল্লেখ করেছেন আল্লাহ তায়ালা লাইলাতুল কদরে হজরত জিবরাঈল (আ.) কে সিদরাতুল মুনতাহার সত্তর হাজার ফেরেশতা নিয়ে পৃথিবীতে আগমন করার নির্দেশ দেন। হজরত জিবরাঈল (আ.) আল্লাহর নির্দেশ অনুযায়ী ফেরেশতাদের দল নিয়ে নূরের পতাকাসহ পৃথিবীতে আগমন করেন। তারা পৃথিবীর চার জায়গায় পতাকা উত্তোলন করেন।

১. কাবা শরিফে, ২. বায়তুল মোকাদ্দাসে, ৩. মসজিদে নববীতে ও ৪. তুরে সিনা মসজিদে। তারপর ফেরেশতাগণ সমগ্র পৃথিবীতে ছড়িয়ে পড়েন। তারা ইবাদতকারী প্রত্যেক মুমিন নর-নারীর ঘরে প্রবেশ করেন এবং তাদের জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করেন। তবে যে সব ঘরে কুকুর, শুকর, প্রাণীর ছবি থাকে সেসব ঘরে এবং মদ্যপায়ী, ব্যভিচারী ও সুদখোর প্রমুখের ঘরে প্রবেশ করেন না।

লাইলাতুল কদর কখন?

হজরত উবাদা ইবন সামিত (রা.) থেকে বর্ণিত। তিনি বর্ণনা করেন, একদা নবী করিম (সা.) তার কক্ষ থেকে বের হয়ে আমাদেরকে লাইলাতুল কদর সম্পর্কে বর্ণনা দেওয়ার উদ্দেশ্যে বের হন, তখন দু’জন সাহাবি একটি বিষয় নিয়ে ঝগড়া করছিল। তিনি পৌঁছেই বলেন, আমি তোমাদেরকে লাইলাতুল কদর সম্পর্কে অবহিত করার উদ্দেশ্যে বের হয়েছিলাম। কিন্তু অমুক-অমুক ঝগড়া করার কারণে নির্দিষ্ট তারিখ আমাকে ভুলিয়ে দেওয়া হয়েছে। এখন তোমরা রমজানের শেষ দশকের নবম, সপ্তম, পঞ্চম রাতে তা খোঁজ করো।’ –সহিহ বোখারি

সহিহ মুসলিম শরিফে আছে, হজরত উবাই ইবনে কাব (রা.) থেকে বর্ণিত, লাইলাতুল কদর হচ্ছে- ২৭ রমজানের রাত। ইমাম আবু হানিফা (রহ.) ও অন্যান্য ইমামগন লাইলাতুল কদর ২৭ রমজানের রাতকে প্রাধান্য দিয়েছেন। হজরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.), ইবন উমর (রা.) এবং হজরত মুয়াবিয়া (রা.) প্রিয় নবী (স) থেকে বর্ণনা করেছেন যে, লাইলাতুল কদর হলো- ২৭ রমজান।

লাইলাতুল কদর শেষ নবীর উম্মতের জন্য উপহার

লাইলাতুল কদর শেষ নবীর উম্মতের জন্য শ্রেষ্ঠ উপহার এবং মহান নেয়ামত। ইমাম মালেক (রহ.) মুয়াত্তায় বর্ণনা করেছেন যে, নবী করিম (সা.) জানতে পারলেন যে, পূর্বেকার উম্মতের বয়স অনেক দীর্ঘ হতো, সে তুলনায় নিজের উম্মতের বয়স অনেক কম। সুতরাং আমার উম্মতের আমলের পরিমাণ এ হায়াতের ব্যবধানে পূর্বেকার উম্মতের আমলের পরিমাণের সমান হবে না। বিষয়টি সম্পর্কে অবগত হয়ে প্রিয় নবী (সা.) মর্মাহত হন। অতঃপর আল্লাহ তায়ালা তার উম্মতকে লাইলাতুল কদর প্রদান করেন, যাতে এ ব্যবধান দূরীভূত হয়। হজরত আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা.) বর্ণনা করেন, একদা রাসূলুল্লাহ (সা.) সাহাবায়ে কেরামের সামনে বনী ইসরাঈলের এক আবেদ ব্যক্তির কথা বর্ণনা করেন, যে ব্যক্তি আল্লাহর রাস্তায় বিরামহীনভাবে এক হাজার মাস জিহাদ করেছেন। নবী করিম (সা.)-এর এ বর্ণনা শুনে সাহাবায়ে কিরাম সে লোকটির প্রতি ঈর্ষান্বিত হয়ে পড়েন। তখন আল্লাহ তায়ালা এ দীর্ঘ সময়ের বিকল্প হিসেব উম্মতে মুহাম্মদীকে লাইলাতুল কদর প্রদান করেন। কোনো কোনো বর্ণনায় রয়েছে পূর্বেকার উম্মতের মধ্যে কেউ আবেদ বলে গণ্য হতো না যে পর্যন্ত সে বিরামহীনভাবে এ হাজার মাস ইবাদতে মশগুল থাকতেন। আল্লাহ তায়ালা শেষ নবীর উম্মতের এ রাত প্রদান করে ঘোষণা করেন যে, এ রাত এক হাজার মাসের চেয়ে উত্তম।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণে এবার ঘরে থেকেই রাত জেগে নফল ইবাদত, কোরআন তিলাওয়াত ও জিকির-আসকারের মধ্য দিয়ে পবিত্র শবে কদর পালন করবেন ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা।

আপনার মতামত লিখুন :