২০২৩ সালের এসএসসি এপ্রিলে, এইচএসসি জুনে



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
২০২৩ সালের এসএসসি এপ্রিলে, এইচএসসি জুনে

২০২৩ সালের এসএসসি এপ্রিলে, এইচএসসি জুনে

  • Font increase
  • Font Decrease

শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি বলেছেন, ২০২৩ সালের এসএসসি-এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষাও এ বছরের মতো সংক্ষিপ্ত সিলেবাসেই নেওয়া হবে। আগামী বছরের এসএসসি পরীক্ষা এপ্রিলে এবং উচ্চ মাধ্যমিক ও সমমানের পরীক্ষা জুনে অনুষ্ঠিত হবে।

মঙ্গলবার (১২ এপ্রিল) সচিবালয়ে এক প্রেস কনফারেন্সে শিক্ষামন্ত্রী এসব কথা জানান।

তিনি বলেন, নির্ধারিত পুনর্বিন্যাসকৃত (সংক্ষিপ্ত) সিলেবাসে আগামী বছরের এসএসসি-এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা হবে।

বর্তমানে দশম শ্রেণিতে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীরা ২০২৩ সালে এসএসসি, দাখিল ও সমমান পরীক্ষায় এবং একাদশ শ্রেণিতে অধ্যয়নরতরা এইচএসসি, আলিম ও সমমান পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করবে।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘২০২৩ সালের এসএসসি, দাখিল ও সমমান পরীক্ষার্থীরা নবম শ্রেণিতে ২০২১ সালের ১২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সরাসরি শ্রেণি কার্যক্রমে অংশগ্রহণের সুযোগ পায়নি। ১২ সেপ্টেম্বর থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুললে ওমিক্রনের প্রভাব শুরু হওয়ার আগে চলতি বছর ১৪ মার্চ পর্যন্ত সপ্তাহে দু'দিন করে সরাসরি ক্লাশ করার সুযোগ পেয়েছে তারা। এর মধ্যে ২০ জানুয়ারি থেকে ২১ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ওমিক্রনের সংক্রমণে আবারও প্রতিষ্ঠান সম্পূর্ণ বন্ধ ছিল।

তিনি জানান, গেল ১৫ মার্চ থেকে তারা সরাসরি শ্রেণি কার্যক্রমে সপ্তাহে ছয় দিন করে অংশগ্রহণের সুযোগ পাচ্ছে। আগামী ডিসেম্বর পর্যন্ত সরাসরি শ্রেণি কার্যক্রম অব্যাহত থাকলে এই নবম ও দশম শ্রেণিতে মিলে সর্বমোট ১৬২ কর্মদিবস শ্রেণি কার্যক্রমে অংশগ্রহণের সুযোগ পাবে। যেখানে স্বাভাবিক অবস্থায় তারা ৩১৬ কর্মদিবস ক্লাস করার কথা। তাছাড়াও এই শিক্ষার্থীরা ২০২০ সালে ৮ম শ্রেণিতে জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষাতেও অংশ নিতে পারেনি। এমনকি নবম শ্রেণির পরীক্ষাও দিতে পারেনি।

এসব দিক বিবেচনায় ২০২৩ সালের এসএসসি, দাখিল ও সমমান পরীক্ষা ২০২২ সালের পরীক্ষার জন্য ঘোষিত সিলেবাস অনুসারেই অনুষ্ঠিত হবে বলে জানান শিক্ষামন্ত্রী।

২০২৩ সালে এইচএসসির পরীক্ষার্থীদের বিষয়ে ডা. দীপু মনি বলেন, ‘এই শিক্ষার্থীরা ২০২১ সালের ১ জুলাই থেকে একাদশ শ্রেণিতে ক্লাস করার কথা ছিল। কিন্তু তারা ক্লাস শুরু করতে পেরেছে চলতি বছরের ২ মার্চ থেকে। অর্থাৎ তারা ৮ মাস ক্লাস করার সুযোগই পায়নি।

তিনি বলেন, ‘আগামী ডিসেম্বর পর্যন্ত তাদের স্বাভাবিক শ্রেণি কার্যক্রম অব্যাহত থাকলে তারা সর্বমোট ২০০ কর্মদিবস শ্রেণি কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করতে পারবে। স্বাভাবিক অবস্থায় ৩৩০ কর্মদিবস শ্রেণি কার্যক্রম হতো। এই পরীক্ষার্থীরা ২০২১ সালের এসএসসি, দাখিল ও সমমানের সংক্ষিপ্ত পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে উত্তীর্ণ হয়েছে। এ অবস্থায় ২০২৩ সালের এইচএসসি, আলিম ও সমমান পরীক্ষা ২০২২ সালের পরীক্ষার জন্য নির্ধারিত ১৮০ কর্মদিবসের পাঠ্যসূচি অনুসারে অনুষ্ঠিত হবে।’

বাংলাদেশ ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বন্ধুত্ব অকৃত্রিম: জিএম কাদের



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
বাংলাদেশ ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বন্ধুত্ব অকৃত্রিম: জিএম কাদের

বাংলাদেশ ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বন্ধুত্ব অকৃত্রিম: জিএম কাদের

  • Font increase
  • Font Decrease

জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান ও বিরোধীদলীয় উপনেতা জিএম কাদের এমপির সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের চিফ অব পলিটিক্যাল মিঃ স্কট ব্রান্ডন এবং পলিটিক্যাল অফিসার ম্যাথুইউ বে।

বুধবার (৮ ফেব্রুয়ারি ) বেলা ১২টায় জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান এর বনানীস্থ কার্যালয়ে মার্কিন দূতাবাসের কর্মকর্তাদ্বয় এলে তাদের স্বাগত জানান জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান।

এ সময় জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা ও বিশেষ দূত মাসরুর মওলা উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকে দুই দেশের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে আলোচনা করেন তারা।

জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান জিএম কাদের বলেন, বাংলাদেশ ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বন্ধুত্ব অকৃত্রিম। আগামী দিনেও অভিন্ন ইস্যুতে দুটি দেশ এক যোগে কাজ করবে।

;

পড়াশোনায় ছেলেদের আরও মনোযোগী হওয়া দরকার: প্রধানমন্ত্রী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘আমি দেখলাম পাসের হারে মেয়েদের সংখ্যা বেশি। তার মানে, ছেলেদের পড়াশোনায় আরও মনোযোগী হওয়া দরকার।’

বুধবার (৮ ফেব্রুয়ারি) বেলা ১১টার পর প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় চামেলী হলে এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ ও পরিসংখ্যান হস্তান্তর অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘২০২২ সালের উচ্চমাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) ও সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের অভিনন্দন জানাচ্ছি। এছাড়া যারা পাস করতে পারেনি, তারা যেন মন খারাপ না করে। সামনে ভালো করার জন্য নতুন করে যেন উদ্যোগ নেয়। আমাদের ছেলে-মেয়েরা কেন ফেল করবে?’

প্রধানমন্ত্রী এসময় বলেন, ‘দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ গড়তে চাই। আর এর জন্য প্রধান হাতিয়ার শিক্ষিত জনগোষ্ঠী। শিক্ষাকে আমরা সবসময় গুরুত্ব দিয়ে থাকি। আমাদের উদ্যোগের ফলে শিক্ষার হার বেড়েছে। বহুমুখী শিক্ষাব্যবস্থা করেছি। যুগোপযোগী শিক্ষা বা বিষয়ভিত্তিক শিক্ষার উদ্যোগ নিই। অনেকগুলো কৃষি ও বিজ্ঞান প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করি।’ তিনি বলেন, ’আমরা নিয়ম করেছিলাম, ফলাফল ৬০ দিনের মধ্যে দিতে হবে। এবার আপনারা ৬০ দিনের আগেই ফল দিতে পেরেছেন। এজন্য সবাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘জাতির জনক সোনার বাংলা গড়ার জন্য সোনার মানুষ চেয়েছেন। আজকের ছেলে-মেয়েরাই তো সোনার মানুষ।’ তিনি বলেন, ‘আমরা গবেষণায় গুরুত্ব দিচ্ছি। বিজ্ঞান, শিক্ষা ও স্বাস্থ্যে গবেষণা হচ্ছে। কৃষির গবেষণায় খুব ভালো হচ্ছে। গবেষণার মাধ্যমে নতুন নতুন উদ্ভাবন হয়। সব সেক্টরকে গবেষণায় এগিয়ে আসতে হবে। বিশেষ করে, তথ্যপ্রযুক্তিতে আরও বেশি উদ্যোগ নেওয়া উচিত।’

এ সময় প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘মাদরাসা শিক্ষাকে আরও বেশি গুরুত্ব দিচ্ছি। তাদের ভোকেশনাল ট্রেনিং নিতে আরও সুযোগ তৈরি করে দিতে হবে। তাতে তাদের কর্মসংস্থান তৈরি হবে।’

এসময় শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি, উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলসহ সচিব ও শিক্ষা বোর্ডগুলোর চেয়ারম্যান এবং পদস্থ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

;

এইচএসসি ও সমমানে পাসের হার ৮৫.৯৫



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

২০২২ সালের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হয়েছে। এতে মোট পাসের হার ৮৫ দশমিক ৯৫ শতাংশ।

বুধবার (৮ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে প্রকাশিত ফলে এই তথ্য জানা গেছে।

প্রকাশিত ফলে পাসের হারের দিক থেকে সাধারণ শিক্ষা বোর্ডের মধ্যে প্রথম স্থানে আছে কুমিল্লা বোর্ড। এই বোর্ডে পাসের হার ৯০.০৭ শতাংশ আর জিপিএ-৫ পেয়েছেন ১৪ হাজার ৯৯১ জন।

যশোর বোর্ডে পাসের হার ৮৩.৯৫ শতাংশ। এই বোর্ডে জিপিএ-৫ পেয়েছেন ১৮ হাজার ৭০৩ জন। ঢাকা বোর্ডে পাসের হার ৮৭.৮৩ শতাংশ। জিপিএ ৫ পেয়েছেন ৬২ হাজার ৪১৬ জন শিক্ষার্থী।

রাজশাহী বোর্ডে পাসের হার ৮১.৬০ শতাংশ। জিপিএ-৫ পেয়েছেন ২১ হাজার ৮৫৫ জন। ময়মনসিংহ বোর্ডে পাসের হার ৮০.৩২ শতাংশ। এই বোর্ডে ৫০২৮ জন জিপিএ-৫ পেয়েছেন।

বরিশাল বোর্ডে পাসের হার ৮৬.৯৫ শতাংশ। জিপিএ-৭ হাজার ৩৮৬ জন। চট্টগ্রাম বোর্ডে পাসের হার ৮০.৫০। জিপিএ-৫ পেয়েছেন ১২ হাজার ৬৭০ জন।

সিলেট বিভাগে পাসের হার ৮১.৪০ শতাংশ। জিপিএ-৫ পেয়েছেন ৪ হাজার ৮৭১। দিনাজপুর বোর্ডে পাসের হার ৭৯ দশমিক ০৮ শতাংশ, জিপিএ ৫ পেয়েছে ১১ হাজার ৮৩০ জন শিক্ষার্থী।

মাদরাসা বোর্ডে পাসের হার ৯২ দশমিক ৫৬ শতাংশ। জিপিএ ৫ পেয়েছেন ৯ হাজার ৪২৩ জন শিক্ষার্থী। কারিগরি বোর্ডে পাস করেছেন ৯৪ দশমিক ৪১ শতাংশ শিক্ষার্থী। এই বোর্ডে জিপিএ ৫ পেয়েছেন ৭ হাজার ১০৪ জন।

এর আগে বেলা সোয়া ১১টার দিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে ফলের সারসংক্ষেপ হস্তান্তর করেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

;

সার্ভিস লেনসহ ঢাকা-সিলেট ছয় লেন নির্মাণের চুক্তি স্বাক্ষর



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
সার্ভিস লেনসহ ঢাকা-সিলেট ছয় লেন নির্মাণের চুক্তি স্বাক্ষর

সার্ভিস লেনসহ ঢাকা-সিলেট ছয় লেন নির্মাণের চুক্তি স্বাক্ষর

  • Font increase
  • Font Decrease

সাসেক ঢাকা-সিলেট করিডোর সড়ক উন্নয়ন প্রকল্প ডিএস-৫ এর আওতায় সরাইল ইন্টারসেকশন হতে বুধন্তী বাস স্ট্যান্ড পর্যন্ত কাজের চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের অধীন সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর কর্তৃক ‘সাসেক ঢাকা-সিলেট করিডোর সড়ক উন্নয়ন’ এ প্রকল্পের উব্লিউপি-০৩ প্যাকেজের লট নং ডিএস-০৬ এর নির্মাণকাজ যৌথ উদ্যোগে চীন ও বাংলাদেশের তিনটি কোম্পানি বাস্তবায়ন করবে। এর মধ্যে চীনের কোম্পানি দুইটি হলো- চেসিইটিস ও এসএলজিসি এবং বাংলাদেশের পিডিএল। এতে খরচ ধরা হয়েছে এক হাজার ৮৫ কোটি ৩৪ লাখ ৭৬ হাজার ৮৩০ টাকা।

বুধবার (৮ ফেব্রুয়ারি) নগরীর সোনারগাঁও হোটেলে সাউথ এশিয়া সাবরিজিওনাল ইকোনমিক কো-অপারেশন (সাসেক) ঢাকা-সিলেট করিডোর সড়ক উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় ওয়ার্ক প্যাকেজ-৩ এর চুক্তিস্বাক্ষর অনুষ্ঠিত হয়েছে। প্রকল্পের পরিচালক এ কে মোহাম্মদ ফজলুল করিম, সওজ-এর অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী (কুমিল্লা জোন) আবু হেনা মোহাম্মদ তারেক ইকবাল, হিগো-মীর আকতারের পক্ষে লিউ শাওমিই (Liu Xiaomei) এবং চেসিইটিস –এসএলজিসি-পিডিএল-এর পক্ষে জাং লিয়াং(Zhang Liang) স্ব স্ব পক্ষে চুত্তিতে সই করেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী, সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য প্রিন্সিপাল রওশন আরা মান্নান এমপি, দেশের শীর্ষস্থানীয় শিল্পপ্রতিষ্ঠান প্রাণ-আরএফএল গ্রুপের চেয়ারম্যান এবং প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) আহসান খান চৌধুরী, সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব এবিএম আমিন উল্লাহ নূরী, বাংলাদেশে নিযুক্ত এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) কান্ট্রি ডিরেক্টর এডিমন জিনটিং, জনপথ অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলী মো. ইসহাক। চুক্তিস্বাক্ষর অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করেন অতিরিক্ত প্রকল্প পরিচালক মোঃ মাছুম সারওয়ার।

প্যাকেজ-৩ এর লট ৬ এর আওতায় বুধন্তি বাস স্ট্যান্ড হতে এস এম স্পিনিং মিল পর্যন্ত ১৯ দশমিক ১ ফ্রেক্সিবল পেভমেন্ট কাজ করা হবে। এর চুক্তি মূল্য ১ হাজার ৮৫ কোটি ৩৪ লাখ টাকা। কাজটি যৌথভাবে বাস্তবায়ন করবে পিডিএল ও চীনের দুটি প্রতিষ্ঠান। এই লটে ১৫৫ মিটারের ২৫টি কালভার্ট, ৩৪৭ দশমিক ৫৩ মিটার দৈর্ঘের সাতটি সেতু, ৩ দশমিক ৮৮৩ কিলোমিটার ড্রেন, ১ হাজার ১২০ বর্গ মিটারের বাস বে ও সার্ভিস লেরেনর রিজিড পেভমেন্ট নির্মাণ করা হবে। এছাড়া দুটি ফুটওভার ব্রিজ নির্মাণ করা হবে এই প্যাকেজর আওতায়।

লট নং ডিএস-৫ এর আওতায় সরাইল ইন্টারসেকশন হতে বুধন্তি বাস স্ট্যান্ড পর্যন্ত ১৫ দশমিক ৭ কি.মি. ফ্রেক্সিবল পেভমেন্ট নির্মাণ করা হবে। এর এর চুক্তি মূল্য ১ হাজার ২৩২ কোটি ৯৫ লাখ টাকা। ১১টি কালভার্ট, ১১টি সেতু, একটি ওভার পাস, বাস বে ও সার্ভিস লেনে রিজিড পেভমেন্ট ইত্যাদিত নির্মিত হবে। এছাড়া দুটি ফুট ওভারব্রীজও নির্মাণ করা

ঢাকা-সিলেট জাতীয় মহাসড়কটি রাজধানী ঢাকা, বন্দরনগরী চট্টগ্রাম ও দেশের অন্যান্য অংশের সঙ্গে বৃহত্তর সিলেট বিভাগের সড়ক যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম। সিলেট বিভাগে তেল, গ্যাস, খনিজ সম্পদ, বন, চা-বাগান, পাহাড়, হাওড় ইত্যাদি প্রাকৃতিক সম্পদে ভরপুর যা বৃহত্তর সিলেট বিভাগের ৪ টি জেলাকেই পর্যটন সমৃদ্ধ করে গড়ে তুলেছে যেখানে প্রতিবছর লক্ষ লক্ষ দেশি বিদেশি পর্যটক ভ্রমণ করেন।

অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড বৃদ্ধি পাওয়ায় এ মহাসড়ককে কেন্দ্র করে কয়েকটি অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠিত হতে যাচ্ছে যেখানে দেশি বিদেশি বিনিয়োগের ফলে দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিকে প্রভাবিত করবে। বর্তমানে দুই লেনের এ মহাসড়ক ক্রমবর্ধমান যানবাহনের চাপ সামাল দিতে পারছে না। এর ফলে একদিকে যেমন সড়ক দুর্ঘটনা বেড়ে যাওয়ায় জানমালের ক্ষয়ক্ষতি হচ্ছে অন্যদিকে বিভিন্ন লোকেশনে যানজটের কারণে ভ্রমণ সময় বেড়ে যাচ্ছে যা উন্নয়নের পথে অন্তরায় হিসেবে কাজ করছে।

ভৌগলিকভাবে স্ট্র্যাটেজিক লোকেশনের কারণে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কটি এশিয়ান হাইওয়ে (এএইচ-১ এবং এএইচ-২), বিমসটেক (বে অব বেঙ্গল ইনিশিয়েটিভ ফর মাল্টিসেক্টরাল, টেকনিকাল এন্ড ইকোনমিক কোঅপারেশন) করিডোর (করিডোর-৩) এবং সার্ক হাইওয়ে করিডোর (এসএইচসি-৫) এর একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ।

;