ঠাকুরগাঁওয়ে বোরো ধানের বাম্পার ফলন ও দামে খুশি কৃষকরা



রবিউল এহ্সান রিপন, ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঠাকুরগাঁও
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

ঠাকুরগাঁওয়ে শুরু হয়েছে মাঠ থেকে বোরো ধান সংগ্রহের কাজ। জেলার দিগন্তজোরা মাঠগুলো কাঁচা ও পাকা ধানের সবুজ ও সোনালী রঙে ভরে উঠেছে। গত বছরের তুলনায় এবার আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় ফলনও হয়েছে ভালো এবং গত মৌসুমের তুলনায় এই মৌসুমে বেশি দামে ধান বিক্রি করতে পেরে খুশি কৃষকরা। এছাড়াও আধুনিক যন্ত্রাংশের ফলে দিন দিন কৃষিতে অগ্রগতি হচ্ছে।

জেলার বিভিন্ন এলাকায় দেখা যায়, দক্ষিণা বাতাসে বিস্তৃর্ণ মাঠগুলোর কাঁচা ও পাকা ধানের শীষ দোল খাচ্ছে। আর কৃষাণ কৃষাণীরা পরিপক্ক ধান সনাতন পদ্ধতি কাস্তি কাচি ও হারভেস্টার দিয়ে কাটতে ও মাড়াই এবং খরকুটা শুকাতে ব্যস্ত সময় পার করছেন। আগে যেখানে সমস্ত কৃষক হাত দিয়ে ধান কাটা মাড়াই করত এখন অধিকাংশ কৃষকই আধুনিক কৃষি যন্ত্রাংশের মাধ্যমে ধান কাটা মাড়াই করছেন। এতে তাদের শ্রম ও সময় দুটোই সাশ্রয় হচ্ছে।

কৃষকরা বলছেন, তেমন বড় কোন ঝড় বৃষ্টি ও দুর্যোগ না হওয়ায় ধানের ফলনের গতবছরের তুলনায় এবার একর প্রতি ৫-১০ মন করে ফলন বেশি হয়েছে। কারও কারও বিঘায় ৬০-৬৫ মণ পর্যন্ত ফলন হয়েছে। আর বর্তমানে ৮০ কেজির এক বস্তা কাঁচা ধান ১৮’শ থেকে প্রায় ২ হাজার টাকা পর্যন্ত বিক্রয় করছেন। এতে এক বিঘা জমিতে ধান করতে তাদের খরচ হয়েছে ২০-২২ হাজার টাকা আর বিক্রয় করছেন ৪৫ থেকে প্রায় ৫০ হাজার টাকা। তাই এবার তারা ফলন ও দামে সন্তুষ্ট।

মাঠেই ধান মাড়াই করে আবার মাঠেই ধান বিক্রয় করছিলেন সদর উপজেলার রহিমানপুর দাসপাড়া গ্রামের ধান চাষি জহিরুল ইসলাম। এসময় তিনি বলেন, ‘এবার আমাদের ৫০ শতকের এক বিঘা জমিতে ধান হয়েছে ৫০ মণ করে। আর প্রতি মণ ধান বিক্রয় করলাম ৯২৫ টাকা করে। তাতে এক বিঘা জমির ধানের মূল্য পেয়েছি ৪৬ হাজার টাকার উপরে। ধান চাষ করতে এক বিঘা জমিতে সর্বমোট খরচ হয়েছে প্রায় ২০-২২ হাজার টাকা। এতে লাভ থাকতেছে প্রায় ২৪-২৫ হাজার টাকা।,

ধান চাষি রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘এবার আবহাওয়া ভালো থাকায় ধানের দাম ও ফলন দু’টোই ভালো পেয়েছি। গত বারে ধান বিক্রয় করেছিলাম ১৬’শ টাকা বস্তা। এবার প্রমথ দিকে ২১’শ-২২’শ টাকা ধানের বস্তার দাম ছিলো এখন একটু কমে গেছে। ২৯ জাতের ধান আমার একবিঘা জমিতে ৪৮ মণ করে ফলন হয়েছে। তাই ফলনে ও দামে আমরা খুশি ও সন্তুষ্ট।,

মাঠে ধানের খড় শুকানোর কাজ করছিলেন কৃষক খায়রুল ইসলাম। তিনি বলেন, ‘আমি সরিষা কেটে সবার পরে ধান লাগিয়েছিলাম আবার সবার আগে ধান কেটে বিক্রয় করেছি। আল্লাহর রহমতে এবার ধানের ফলন ও দাম ভালো পেয়েছি। আগামীতে আবার দেড় একর জমিতে সরিষা করে বোরো ধান চাষ করবো।,

বর্তমানে কৃষি খাতে আধুনিক যন্ত্রপাতি ব্যবহারের ফলে তারা দ্রুত ফসল রোপণ ও কর্তন করতে পারছেন। এতে তাদের কষ্টও কম হচ্ছে বলে জানান কৃষকরা।

চাষি মকবুল হোসেন বলেন, ‘আগে আমরা ধান রোপণ করেছিলাম হাত দিয়ে ও কাটতাম করিচা-কাস্তে দিয়ে। কেটে আবার ধানগুলো মাথায় করে নিয়ে যেতে হতো। আর এখন ধান রোপণসহ কাটা মাড়াই করছি আধুনিক প্রযুক্তির মেশিন দিয়ে। এই যে আজকে আমি হারভেস্টার দিয়ে ধান কাটা ও মাড়াই করলাম। এতে করে একসাথে ধান কাটা মাড়াই ও বস্তা হয়ে যাচ্ছে। তাতে এখন আগের থেকে আমাদের কাজ করতে পরিশ্রম ও কষ্ট কমে গেছে।’

সিলেটের হবিগঞ্জ থেকে এসেছেন হারভেস্টার চালক হৃদয় ইসলাম। তিনি বলেন, ‘এখনো মাঠে সব কৃষকের ধান না পাকাই দিনে ১০-১৫ বিঘা জমির ধান হারভেস্টার দিয়ে মাড়াই করছি। সব ধান পেকে গেলে দিনে হয়তো ২৫-৩০ বিঘা জমির ধান মাড়াই করতে পারবো। আমরা বর্তমানে দূরত্ব ও স্থান ভেদে এক বিঘা জমির ধান মাড়াই করতে ৪-৫ হাজার টাকা নিচ্ছি ও কৃষকদের ধান গুলো রাস্তায় নিয়ে গিয়ে আমরা বস্তা করে দেই।,

জেলা কৃষি কর্মকর্তার মতে, জেলায় এবার বোরো মৌসুমে ৬০ হাজার ১৫০ হেক্টর জমিতে ২ লাখ ৬৭ হাজার ৯৪০ মেট্রিকটন ধান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নিধারণ করা হলেও এর বিপরীতে ৬১ হাজার ৬৫০ হেক্টর জমিতে ধান আবাদ হয়েছে। এর মধ্যে প্রায় ৪৫% জমির ধান কর্তন করা হয়েছে। কর্তনকৃত পার হেক্টর জমিতে প্রায় সাড়ে ৬ টন করে ফলন হয়েছে। গতবছরের চেয়ে এবার প্রায় ১ হাজার ৬০০ হেক্টর বেশি জমিতে বোরো আবাদ হয়েছে।

২ লাখ ৬৭ হাজার ৯৪০ মেট্রিকটন ধান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হলে বর্তমান বাজার মাত্র ৯’শ টাকা মণ দর অনুযায়ী এ জেলা থেকে এবার ৬০২ কোটি ৮৬ লাখ ৫০ হাজার (৬’০২৮’৬৫০’০০০) টাকার ধান উৎপাদন হবে শুধু বোরো মৌসুমেই।

ব্যবসায়ী আক্তারুল ইসলাম বলেন, ‘গতবারের তুলনায় এবার ধানের বস্তা প্রতি ২’শ-৪’শ টাকা বৃদ্ধি পেয়েছে। বর্তমানে কাঁচা ধানের বস্তা ১৮’শ থেকে ২ হাজার টাকা দরে ক্রয় করছি। তবে এর থেকে দাম আরও বৃদ্ধি পেতে পারে।’

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ পরিচালক মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন, সরকারি প্রণোদনার আওতায় জেলার কৃষকদের বীজ ও সার বিতরণ করা হয়েছে। এবার বোরো মৌসুমে হাইব্রীড ধানে ১৫ হাজার কৃষককে ও উপশী জাতের ধানে ১০ হাজার কৃষককে প্রণোদনা দেওয়া হয়েছে। এর পাশাপাশি ধান চাষে সকল কৃষকদের পরামর্শ প্রদান করে যাচ্ছি। এছাড়াও কৃষি যান্ত্রিকীকরণে ভর্তুকিমূল্যে কম্বাইন্ড হারভেস্টার বিতরণ করা হয়েছে। এর ফলে কৃষকরা দ্রুত সময়ে ফসল রোপণ ও কর্তন করতে পারছেন এবং খরচের দিক থেকেও তারা লাভবান হচ্ছে। যত বেশি কৃষি যান্ত্রিকীকরণ বৃদ্ধি হবে তত বেশি কৃষক লাভবান হবেন। তাই কৃষি যান্ত্রিকীকরণ অব্যাহত রেখেছে সরকার।

তিনি আরও বলেন, এবার কর্তনকৃত বোরো ধান পার হেক্টর জমিতে প্রায় সাড়ে ৬ টন করে ফলন হয়েছে। তাই আশা করছি ধান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রাও অর্জিত হবে।

   

ইরানের দূতাবাসে গিয়ে মির্জা ফখরুলের শোক প্রকাশ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ইরানের দূতাবাসে গিয়ে মির্জা ফখরুলের শোক প্রকাশ

ইরানের দূতাবাসে গিয়ে মির্জা ফখরুলের শোক প্রকাশ

  • Font increase
  • Font Decrease

হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় ইরানের রাষ্ট্রপতি ইব্রাহিম রাইসির মৃত্যুতে শোক জানানোর পাশাপাশি ঢাকায় অবস্থিত দেশটির দূতাবাসে গিয়ে শোক প্রকাশ করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

বৃহস্পতিবার (২৩ মে) গুলশানে ইরানের দূতাবাসে গিয়ে শোক প্রকাশ করেন মির্জা ফখরুল। এসময় দূতাবাসের শোক বইতে লিখে শোক প্রকাশ করেন তিনি।

মির্জা ফখরুল বলেন, ইরানের জনপ্রিয় রাষ্ট্রপতি ইব্রাহিম রাইসিসহ উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের মৃত্যুতে আমরা গভীরভাবে শোকাহত। আমি বিএনপির ও দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার পক্ষ থেকে ইরানের রাষ্ট্রদূতের অফিসে গিয়ে শোক প্রকাশ করেছি।

তিনি বলেন, এই মুহূর্তে বিশ্বে যখন অভিজ্ঞ রাজনীতিবিদের প্রয়োজন, তখন রাইসির মৃত্যু বিশ্বে শান্তির জন্য, সৌহার্দের জন্য দুঃখের বার্তা।

রাইসির মৃত্যুতে আল্লাহ যেন ইরানের জনগণ, সরকার, ইরানের রাষ্ট্রপতির পরিবারকে শোক সইবার শক্তি দেন, বিএনপির পক্ষ থেকে সেই দোয়া করি।

;

ঈদ আসলেই অসাধু ব্যবসায়ীরা সক্রিয় হয়ে ওঠে: বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

ঈদ আসলেই অসাধু ব্যবসায়ীরা সক্রিয় হয়ে ওঠে বলে মন্তব্য করেছেন বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটু।  

বৃহস্পতিবার (২৩ মে) রাজধানীর একটি হোটেলে যৌথ মূলধন কোম্পানি ও ফার্মসমূহের পরিদফতরের (আরজেএসসি) নতুন অনলাইন অ্যাপ ‘স্মার্ট আরজেএসসি’ শীর্ষক ওয়ার্কশপ শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ মন্তব্য করেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আগামী সপ্তাহে আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠক করব। ঈদের আগে নিত্য পণ্যের দাম ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে রাখতে উদ্যোগ নিচ্ছি। এছাড়াও নিত্যপণ্যের দাম সহনীয় রাখতে বাজার মনিটরিং অব্যাহত আছে।  

তিনি বলেন,  বিভিন্ন রাজনৈতিক কারণেও বাজার পরিস্থিতি হেরফের হয়। বর্তমানে উপজেলা নির্বাচন চলছে। টাকার প্রবাহ বাজারে আছে। যেটা বাজারে প্রভাব ফেলছে।

তিনি আরও বলেন, পণ্যের সরবরাহ ও দাম সহনীয় রাখতে আগামী বাজেটে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের ট্যারিফ যেন যৌক্তিক থাকে। এজন্য এনবিআরের সঙ্গে এ বিষয়ে আলোচনা করা হবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

মন্ত্রী বলেন, যেকোনো উপলক্ষ্য এলেই একটি গোষ্ঠী দাম বাড়াতে তৎপর হয়। এখন উপজেলা নির্বাচন হচ্ছে। তাতে চাহিদা বাড়ছে৷ এতেও কিছু কিছু পণ্যের দাম বেড়ে যাচ্ছে। আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠকে এ নিয়ে আলোচনা হবে।

এছাড়া আগামী বাজেটে নিত্যপণ্যের বাজার ঠিক রাখতে বাজেটে যৌক্তিক ট্যারিফ রাখার প্রস্তাব থাকবে। এ বিষয়ে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সঙ্গে আমরা আলোচনা করব। যাতে কর আরোপে মূল্যস্ফীতির বিষয়টিও মাথায় রাখা হয়।

;

‘বীর মুক্তিযোদ্ধা’ খচিত স্মার্টকার্ড বিতরণ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪, ঢাকা
ছবি: বার্তা২৪

ছবি: বার্তা২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

মুক্তিযোদ্ধাদের হাতে 'বীর মুক্তিযোদ্ধা' খচিত জাতীয় পরিচয়পত্রের (এনআইডি) স্মার্টকার্ড বিতরণ করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)

বৃহস্পতিবার (২৩ মে) সকালে আগারগাঁও নির্বাচন ভবনে 'বীর মুক্তিযোদ্ধা' খচিত স্মার্টকার্ড ১১ জন মুক্তিযোদ্ধার হাতে তুলে দেওয়া হয়।

এ সময় প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, মুক্তিযুদ্ধের তাৎপর্য অসীম। সংগ্রামের মাধ্যমেই একটি দেশ স্বাধীনতা অর্জন করে। আমাদের মুক্তিযুদ্ধে যে পরিমাণ ত্যাগ বাঙালি জাতিকে করতে হয়েছে, তা বিশ্বের ইতিহাসে বিরল।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেন, নির্বাচনের মাধ্যমে আর্থিক উন্নয়নে বিশ্বের দরবারে যাতে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পারি, সে জন্য মুক্তিযুদ্ধের ঝান্ডা প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম সঞ্চারিত করতে হবে।

তিনি বলেন, এই স্মার্টকার্ড হারাবেন না। এটা বীরত্বের একটি স্মারক! হয়ত আপনি থাকবেন না; আপনার কার্ডটা থেকে যাবে!

মুক্তিযোদ্ধাদের হাতে স্মার্টকার্ড তুলে দেওয়ার আগে তাদের ত্যাগের কথা স্বীকার করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী হাবিবুল আউয়াল

নির্বাচন কমিশনার আহসান হাবিব খান বলেন, আমার ভাষা আসছে না! আমি আসলে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সামনে কথা বলতে পারছি, এটা আমার জন্য গৌরবের! আপনারা জাতির সূর্য সন্তান! আপনারা বিশ্বের মানচিত্রে বাংলাদেশ নামক একটি দেশের অবস্থান করে দিয়েছেন।

নির্বাচন কমিশনার মো. আলমগীর বলেন, বক্তব্য দেবো না। অনুভূতিটুকু শুধু বলবো! আনিছ সাহেবের মতন আমার বয়স তখন ১০। মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিতে পারিনি, এই দুঃখ আজীবন থাকবে। আপনাদের যে সম্মান দিতে পেরেছি, তা আপনাদের সম্মানের তুলনায় অনেক কম।

নির্বাচন কমিশনার আনিছুর রহমান বলেন, একটু বিলম্ব হলেও অনুষ্ঠানটা চলছে। মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে নির্বাচন কমিশনের মতদ্বৈততার কারণে বিলম্ব হলেও তার জন্য আমরা আনন্দিত, পরিতৃপ্ত।

তিনি বলেন, আপনাদের একটাই লক্ষ্য- দেশের স্বাধীনতা। আমি মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তান। আমার দুঃখ, আমার বয়স তখন ১০। আমি মুক্তিযুদ্ধে যেতে পারিনি, এই দুঃখ থাকবে আজীবন! আপনারা শতায়ু হন!

মানবাধিকার কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান কাজী রিয়াজুল হক বলেন, বীর মুক্তিযোদ্ধাদের ধরে রাখার জন্য বর্তমান সরকার মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য অনেক কাজ করছে। এই সরকারের অধীনেই নির্বাচন কমিশন মুক্তিযোদ্ধাদের এই কার্ড দিয়েছে। তারা শুধু সম্মানটুকু পেতে চায়। এইটাই তাদের (মুক্তিযোদ্ধাদের) দাবি, বেশি না।

সাবেক নির্বাচন কমিশনার ও অবসরপ্রাপ্ত বিগ্রেডিয়ার জেনারেল জাবেদ আলী বলেন, তারা মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানিত করেছেন। মুক্তিযোদ্ধাকে সম্মানিত করার মাধ্যনে কমিশনও সম্মানিত হয়েছে।

অনুষ্ঠানে ১১ জন মুক্তিযোদ্ধাকে স্মার্টকার্ড বিতরণ করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনারসহ অন্যান্য অতিথিরা।

অনুষ্ঠানে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব ইশরাত চৌধুরী বলেন, বর্তমান সরকার আসার পর মুক্তিযোদ্ধাদের হারানো গৌরব ফিরে পেতে শুরু করেছে। সেই ধারাবাহিকতায় এনআইডিতে ‘বীর মুক্তিযোদ্ধা’ লেখা অনেক বড় উদ্যোগ।

এখানে অনেকে মুক্তিযোদ্ধাদের ভাতা বাড়ানোর কথা বলেছেন, এই বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন। শিগগিরই এই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের সচিব জাহাংগীর আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার সিইসি কাজী হাবিবুল আউয়াল। বিশেষ অতিথি ছিলেন বিগ্রে. জেনা. মো. আহসান হাবীব খান (অব.), নির্বাচন কমিশনার রাশেদা সুলতানা, নির্বাচন কমিশনার মো. আনিসুর রহমান ও মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব ইসরাত চৌধুরী।

;

চট্টগ্রামে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে আটক ৪



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, চট্টগ্রাম
চট্টগ্রামে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে আটক ৪

চট্টগ্রামে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে আটক ৪

  • Font increase
  • Font Decrease

চট্টগ্রাম নগরীর কোতোয়ালি থানা এলাকা থেকে ডাকাতির প্রস্ততি নেওয়ার সময় চারজনকে টিপছোরাসহ আটক করেছে পুলিশ।

বুধবার (২২ মে) রাতে নগরীর কোতোয়ালি থানাধীন মেরিনার্স রোডস্থ এস আলম বাস ডিপোর বিপরীতে কর্ণফুলী নদীর তীরে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়।

আটককৃতরা হলেন- সোহেল ওরফে ঢাকাইয়া সোহেল (৩০), বেলাল হোসেন ওরফে মাইকেল (৩৭), মো. তুষার (১৯) ও মো. রুবেল (২২)। এ সময় তাদের কাছ থেকে ৪টি টিপছোরা উদ্ধার করা হয়।

কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস এম ওবায়েদুল হক বলেন, ডাকাতির প্রস্তুতির সময় চার জনকে ছোরাসহ আটক করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে কোতোয়ালি থানায় একটি নিয়মিত মামলা করা হয়েছে। চারজনের বিরুদ্ধে কোতোয়ালি থানাসহ নগরীর বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলা রয়েছে।

;