‘সোনার হরিণ’ ধরতে বন্দিজীবনে



মাজেদুল হক মানিক, ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, মেহেরপুর
বন্দিজীবন

বন্দিজীবন

  • Font increase
  • Font Decrease

‘সোনার হরিণ’ ধরতে বিদেশ যেতে দালাল চক্রের হাতে প্রতারিত হচ্ছেন মেহেরপুরের হাজারো মানুষ। বিদেশে গিয়ে কাজ পাচ্ছেন না, উপরন্তু ঘরে বন্দি অবস্থায় মানবেতর দিনযাপন করতে হচ্ছে অনেকের। ঘটনার দায় এড়াতে আত্মগোপনে রয়েছেন স্থানীয় দালালরাও। এদিকে, প্রবাসে স্বজনদের মানবেতর জীবন সত্ত্বেও স্থানীয় দালালদের সঙ্গে কোনোরূপ চুক্তি না থাকায় ভুক্তভোগী পরিবারগুলোও নিতে পারছে না আইনের আশ্রয়।

জানা গেছে, সম্প্রতি মালয়েশিয়া গিয়ে ঘরে বন্দি অবস্থায় দিন কাটাচ্ছেন জেলার বিভিন্ন গ্রামের অন্তত ২৩৮ জন। মোছা. কলিম এন্টারপ্রাইজের নামের একটি রিক্রুটিং এজেন্সি তাদেরকে একটি কোম্পানিতে শ্রমিক হিসেবে কাজ দেওয়া কথা বলে নিয়ে যায়। মালয়েশিয়ার বাগান, তেরাশ ও সালাক সালাকা শহরে তাদেরকে রাখা হয়। প্রায় চার মাস পেরিয়ে গেলেও তারা কাঙ্ক্ষিত কোন কোম্পানিতে কাজ না পেয়ে মানবেতর দিন কাটাচ্ছেন। পাসপোর্ট ভিসা ইমিগ্রেশনে আটকে থাকায় বাইরেও বের হতে পারছেন না তারা।

মালয়েশিয়ায় আটকে থাকা ২৩৮ জনের মধ্যে গাংনীর কাজিপুর গ্রামের বাপ্পি রানা, জুলহাসুর রহমান, তরিকুল ইসলাম মিলন ও রজন জানান, মূল কোম্পানির নামে কাগজপত্র তৈরি করা হলেও তাদেরকে কোন কাজ দেওয়া হয়নি। মালয়েশিয়ায় চার মাস ধরে একটি ঘরে বন্দি অবস্থায় দিন কাটাচ্ছেন তারা। বিদেশ যেতে জনপ্রতি খরচ হয়েছে ৫ লাখ টাকারও বেশি। কোম্পানিতে কাজ হবে এমন আশ্বাসে আদম বেপারীরা তাদেরকে দিনের পর দিন আটকে রেখেছে।

দেশে থাকা ভুক্তভোগী পরিবারগুলোর সদস্যরা জানান, ভিটেমাটি বিক্রি এবং ধার-দেনা করে তাদেরকে বিদেশ পাঠানো হয়। পরিবারের লোকজনের পক্ষে এখন টাকা খরচ করে তাদেরকে ফিরিয়ে আনা সম্ভব নয়।

এরআগে, আবুল নামের এক দালালের খপ্পরে পড়ে সৌদি আরব গিয়ে এমনই বন্দিদশায় থাকতে হয়েছে গাংনীর আরও কয়েকজনের।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, স্থানীয় কিছু দালাল অধিকাংশ ক্ষেত্রে ভ্রমণ ভিসায় মালয়েশিয়া, সৌদি আরবসহ বিভিন্ন দেশে লোক পাঠায়। সেখানে পৌঁছার পর তিন মাসের মধ্যে অনেকে শ্রমিক হিসেবে কাজের অনুমোদন পায়। কাজের অনুমোদন প্রক্রিয়ার মধ্যে তিন মাস পেরিয়ে যাওয়ার পর অনেকেই অবৈধ অবস্থানের বিধিনিষেধে পড়ে যায়। ফলে বৈধভাবে বাড়ি ফেরার সুযোগ থাকে না। জীবন চালাতে অনেকে গোপনে কাজ খোঁজার চেষ্টা করে আবার কেউ কেউ গ্রেফতার হয়ে কারাবাসের পর বাড়ি ফেরে নিঃস্ব হয়ে। শ্রমিক হিসেবে বিদেশ যাওয়ার কোন বৈধ চুক্তিপত্র না থাকায় পরিবারের পক্ষ থেকে মানবপাচার আইনে মামলা করার সুযোগও থাকে না।

আটকেপড়াদের ফিরিয়ে আনার বিষয়ে সরকারিভাবে চেষ্টার কথা জানিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) প্রিতম সাহা। তবে যথাযথ আইনগত সহায়তা পেতে আইন মেনে বিদেশগামী চুক্তি সম্পাদনের পরামর্শ দেন তিনি।

   

শবে বরাতের মাহত্মে উদ্বুদ্ধ হয়ে দেশ গড়ায় আত্মনিয়োগের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পবিত্র শবে বরাতের মাহত্মে উদ্বুদ্ধ হয়ে মানবকল্যাণ ও দেশ গড়ার কাজে আত্মনিয়োগ করার জন্য সকলের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, ‘আসুন, সকল প্রকার অন্যায়, অনাচার, হানাহানি ও কুসংস্কার পরিহার করে আমরা শান্তির ধর্ম ইসলামের চেতনাকে ব্যক্তি, সমাজ ও জাতীয় জীবনের সকল স্তরে প্রতিষ্ঠা করি।’

শনিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) পবিত্র শবে বরাত উপলক্ষ্যে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বাণীতে প্রধানমন্ত্রী এ আহ্বান জানান।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পবিত্র শবে বরাত উপলক্ষ্যে বাংলাদেশসহ বিশ্বের সকল মুসলমানকে আন্তরিক মোবারকবাদ জানিয়ে বলেন, মানবজাতির জন্য সৌভাগ্যের এই রজনী বয়ে আনে মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের অশেষ রহমত ও বরকত। এ রাতে আল্লাহপাক ক্ষমা প্রদর্শন এবং প্রার্থনা পূরণের অনুপম মহিমা প্রদর্শন করেন।

এই রাতে আল্লাহর অশেষ রহমত ও নিয়ামত বর্ষিত হয়। পবিত্র এই রাতে ইবাদত-বন্দেগী’র মাধ্যমে আমরা মহান আল্লাহর নৈকট্য লাভ করতে পারি। অর্জন করতে পারি তাঁর অসীম রহমত, নাজাত, বরকত ও মাগফেরাত।

প্রধানমন্ত্রী পবিত্র এই রজনীতে মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের কাছে প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশ ও মুসলিম জাহানের উত্তরোত্তর উন্নতি, শান্তি, সমৃদ্ধি ও কল্যাণ কামনা করেছেন। তিনি বলেন, ‘মহান আল্লাহতায়ালা আমাদের সকলকে হেফাজত করুন, আমিন।’

;

মিয়ানমারে খাদ্যপণ্য পাচারকালে আটক ৩



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, কক্সবাজার
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সমুদ্রপথে মিয়ানমারে তেল, আটা, চিনি ও রসুনসহ বেশ কিছু খাদ্যপণ্য পাচারকালে ৩ পাচারকারীকে আটক করেছে র‍্যাব। এসময় জব্দ করা হয় ২ হাজার ১২০ লিটার সয়াবিন তেল, ৮৫০ কেজি আটা, ৭৫০ কেজি চিনি ও ৪৮০ কেজি রসুন। উদ্ধার করা খাদ্যপণ্যের আনুমানিক মূল্য ৬ লাখ টাকার বেশি।

শনিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানান র‌্যাব-১৫ কক্সবাজার ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল এইচ এম সাজ্জাদ হোসেন। এর আগে শুক্রবার মধ্যরাতে কক্সবাজার শহরের মাঝেরঘাট এলাকায় খুরুশকূল ব্রিজের পাশে পাচারের উদ্দেশ্যে খাদ্যপণ্য মজুদের খবর পেয়ে র‌্যাবের একটি দল অভিযান চালিয়ে ৩ জনকে আটক করা হয় এবং খাদ্যপণ্যগুলো জব্দ করা হয়। 

আটককৃতরা হলেন, কক্সবাজারের মহেশখালী উপজেলার কুতুবজোম এলাকার আবু তাহের (৫০) এবং টেকনাফ উপজেলার সদর ইউনিয়নের মো. তৈয়ব (২৪) ও চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার কাহারঘোনা এলাকার কবির আহমদ (৫৩)।

লে. কর্নেল সাজ্জাদ হোসেন বলেন, শুক্রবার মধ্যরাতে কক্সবাজার শহরের মাঝেরঘাট এলাকায় খুরুশকূল ব্রিজের পাশে পাচারের উদ্দেশ্যে খাদ্যপণ্য মজুদের খবর পেয়ে র‌্যাবের একটি দল অভিযান চালিয়ে ৩ জনকে আটক করা হয়।

র‌্যাবের জিজ্ঞাসাবাদে তারা জানান, মিয়ানমারে পাচারের জন্য বেশ কিছু পরিমাণ খাদ্যপণ্য মজুদ করেছে। পরে তাদের দেওয়া তথ্যে, স্থানীয় একটি বাসা থেকে ২ হাজার ১২০ লিটার সয়াবিন তেল, ৮৫০ কেজি আটা, ৭৫০ কেজি চিনি, ৪৮০ কেজি রসুন উদ্ধার করা হয়েছে। উদ্ধার করা খাদ্যপণ্যের আনুমানিক মূল্য ৬ লাখ টাকার বেশি।

আটকদের দেওয়া তথ্যের বরাতে র‌্যাবের এ কর্মকর্তা বলেন, মিয়ানমারে সরকারি বাহিনী ও আরাকান আর্মির মধ্যে চলমান সংঘাতের কারণে দেশটির রাখাইন রাজ্যের বেশ কিছু এলাকা যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। এতে পণ্য সরবরাহ বন্ধ থাকায় সেখানে দেখা দিয়েছে খাদ্য সংকট। তাতেই সক্রিয় হয়ে উঠেছে পাচারকারী চক্র। চক্রটির সদস্যরা কক্সবাজার উপকূলের বিভিন্ন পয়েন্ট দিয়ে খাদ্যপণ্য পাচার করে আসছিল। আটকদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট আইনে কক্সবাজার সদর থানায় মামলা করা হয়েছে বলে জানান তিনি।



;

রাজবাড়ীতে বাসের ধাক্কায় গৃহবধূ ও শ্বশুরের মৃত্যু



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রাজবাড়ী
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

রাজবাড়ী-কুষ্টিয়া আঞ্চলিক মহাসড়কের বাগমারা ছোট মোড় এলাকায় রাবেয়া পরিবহনের ধাক্কায় অটোতে থাকা গৃহবধূ ও তার শ্বশুরের মৃত্যু হয়েছে।

শনিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন, খালেদা আক্তার (৩৫) ও তার শ্বশুর জবেদ আলী মিয়া (৬৫)। নিহত খালেদা আক্তার কালুখালী উপজেলার রতনদিয়া ইউনিয়নের রস্করদিয়া গ্রামের প্রবাসী চাঁন মিয়ার স্ত্রী।  

নিহতদের এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, শ্বশুরকে ডাক্তার দেখাতে অটোযোগে নিয়ে যাচ্ছিলেন খালেদা আক্তার। এসময় রাবেয়া পরিবহনের একটি বাস অটোটিকে সজোড়ে ধাক্কা দিয়ে পালিয়ে যায়। এসময় ঘটনাস্থলেই খালেদা আক্তারের মৃত্যু হলেও তার শ্বশুর জবেদ আলী মিয়া চিকিৎসাধীন অবস্থা মৃত্যুবরণ করেন।

ঘটনাস্থল থেকে স্থানীয়রা জবেদ আলী মিয়াকে উদ্ধার করে প্রথমে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে এবং পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায় পরে সেখানে তার চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয়।

পাংশা হাইওয়ে থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) উৎপল কুমার জানান, বাসের ধাক্কায় অটো রিকশার দুই যাত্রীর মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। পুলিশ ঘাতক বাসটি আটক করতে অভিযান পরিচালনা করছে। মরদেহের ব্যপারে আইনগত প্রক্রিয়াধীন।

;

স্বাস্থ্য খাতের অনিয়ম নিয়ে সংবাদ প্রকাশ করায় সাংবাদিককে হুমকি



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

স্বাস্থ্য খাতের অনিয়ম নিয়ে ধারাবাহিক সংবাদ প্রকাশ করায় আরটিভির স্টাফ রিপোর্টার দীপ্ত চন্দ্র পালকে মোবাইল ফোনে মামলাসহ নানাবিধ হুমকির অভিযোগ উঠেছে যাত্রাবাড়ী লাইফ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে।

শনিবার (২৪ফেব্রুয়ারি) রাতে রাজধানীর যাত্রাবাড়ী থানায় হুমকির অভিযোগ জানিয়ে একটি সাধারণ ডায়েরি করেন প্রতিবেদক দীপ্ত চন্দ্র পাল।

দীপ্ত চন্দ্র পাল বলেন, বেসরকারি ক্লিনিক ডায়াগনস্টিক সেন্টারের অনিয়ম নিয়ে সংবাদ প্রকাশ করি। পরে গতকাল শুক্রবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) রাতে লাইফ হাসপাতালের স্বত্ত্বাধিকারী মো. সাকিবুল হাসান নিলয় আমার হোয়াটস অ্যাপে কল করে অকথ্য ভাষায় গালাগালি করে ও ভয়ভীতি দেখায়। প্রাণনাশের হুমকিও দেয়। তাই নিজের জীবনের নিরাপত্তার কথা ভেবে আমি আজ যাত্রাবাড়ী থানা একটি সাধারণ ডায়েরি করেছি।

এদিকে, ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানিয়েছে যাত্রাবাড়ী থানা পুলিশ।

প্রসঙ্গত, এর আগে গত ২৩ ফেব্রুয়ারি বেসরকারি ক্লিনিক ডায়াগনস্টিক সেন্টারের অনিয়ম নিয়ে সংবাদ প্রকাশ করে আরটিভি।

ফ্রি স্টাইলে চলছে দেশের বেশীরভাগ বেসরকারি ক্লিনিক ডায়াগনস্টিক সেন্টার। অনেক প্রতিষ্ঠানের নেই অনুমোদন। যাদের আছে মেয়াদ শেষে তারাও নবায়ন করেন না। মানা হয় না শর্ত।

এমন তথ্য সম্বলিত প্রতিবেদনে বিভিন্ন হাসপাতালের পাশাপাশি রাজধানীর শনির আখরার লাইফ হাসপাতালের নামও উঠে আসে। অনুমোদন ছাড়াই চলছে এর ডায়গনস্টিক সেন্টার।

এ বিষয় জানতে চাইলে সে সময় প্রতিবেদকের ওপর ক্ষুব্ধ হন প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক। পরবর্তীতে সংবাদ প্রকাশ করার পর এই হুমকি দেওয়া হয়।

;