প্রতিটি মানুষের দোরগোড়ায় স্মার্ট ডাক সেবা পৌঁছে দেয়া হবে: পলক



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
জুনাইদ আহমেদ পলক

জুনাইদ আহমেদ পলক

  • Font increase
  • Font Decrease

ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, ডাকঘরের বিস্তীর্ণ নেটওয়ার্ক, বিশাল অবকাঠামো ও জনবল ব্যবহার করে প্রত্যন্ত এলাকাসহ দেশের প্রতিটি মানুষের দোরগোড়ায় স্মার্ট ডাক সেবা পৌঁছে দিতে সরকার বদ্ধপরিকর।

তিনি বলেন, সময়ের চাহিদা মেটাতে ডাকঘরকে মেইল সার্ভিসিং থেকে ডেলিভারি সার্ভিসিংয়ে রূপান্তরের পাশাপাশি অন্যদের সাথে অবকাঠামো শেয়ারিংয়ের মাধ্যমে অংশিদারিত্বের ভিত্তিতে উন্নত ডাকসেবা প্রদানের সুযোগ রয়েছে। সে সুযোগ কাজে লাগাতে তিনি সংশ্লিষ্টদের পথনকশা তৈরির নির্দেশ প্রদান করেন।

সোমবার (৪ মার্চ) ঢাকায় ডাকভবনে স্মার্ট ডাকঘর নির্মাণে ডাক অধিদপ্তর, এটুআই এবং ইক্যাব এর সাথে এক পরামর্শক সভায় এ নির্দেশনা প্রদান করেন।

জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, ডিজিটাইজেশনের প্রভাবে ব্যক্তিগত পর্যায়ে চিঠি আদান-প্রদানের যুগ শেষ হয়ে গেলেও পণ্য পরিবহনে ডাকঘর হবে সবচেয়ে নির্ভর যোগ্য সেবা প্রতিষ্ঠান। ২০০৮ সালের ১২ ডিসেম্বর ঘোষিত ডিজিটাল বাংলাদেশের ঠিকানা আমরা ২০২১ সালে অতিক্রম করেছি। স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণের আরেকটি স্বপ্নের ঠিকানায় ২০৪১ সালের মধ্যে পৌঁছানোর অভিযাত্রা শুরু হয়েছে।

তিনি বলেন, প্রান্তিক পর্যায়ের মানুষ কম খরচে ঘরে বসেই ডিজিটাল শপ থেকে কেনা পণ্য যাতে হাতে পান সেই লক্ষ্যে স্মার্ট ডাক বিতরণের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। স্মার্ট ডাক ব্যবস্থায় দেশের ১০ হাজার পোস্ট অফিসকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন হাবের মাধ্যমে পণ্য সরবরাহ করা সম্ভব হবে।

তিনি আরো বলেন, স্বয়ংক্রিয় ট্র্যাকিং পদ্ধতিতে ক্রেতার পণ্য কোথায় আছে তাও সহজেই শনাক্ত করা সম্ভব হবে। প্রতিটি ডাক ঘরে ই-কমার্সের জন্য একটি আলাদা কর্নার থাকবে যেখান থেকে পণ্য শর্টিং, ট্র্যাকিং এবং দ্রুততম সময়ে ক্রেতার কাছে পণ্য পৌঁছে দেওয়া হবে।

স্মার্ট ডাকঘর প্রতিষ্ঠায় স্বল্প মেয়াদি, মধ্য মেয়াদি ও দীর্ঘ মেয়াদি পরিকল্পনা গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করতে পারলে ডাক সেবায় ডাকঘরের সমকক্ষ কোন প্রতিষ্ঠান খুঁজে পাওয়া দুরূহ হবে উল্লেখ করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ২০৪১ সালে স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণের ডাক অধিদপ্তর পিছিয়ে থাকতে পারে না।

ডাক অধিদপ্তরের মহাপরিচালক তরুণ কান্তি সিকদার, এটু আই এর প্রকল্প পরিচালক মামুনুর রশিদ, পলিসি এডভাইজার আব্দুল বারী, ইক্যাবের সভাপতি শমী কায়সার এবং সাধারণ সম্পাদক আবদুল ওয়াহেদ তমাল প্রমুখ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

পরে মন্ত্রী ঢাকার গুলশানে টেলিটক সদর দপ্তর পরিদর্শন করেন এবং কর্মকর্তাদের সাথে টেলিটকের গ্রাহক সেবার মানোন্নয়নে গৃহীত পরিকল্পনা ও বাস্তবায়নের অগ্রগতি নিয়ে মতবিনিময় করেন। প্রতিমন্ত্রী অন্যান্য মোবাইল অপারেটরদের সাথে টাওয়ার শেয়ারিংয়ের মাধ্যমে টেলিটক নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণের অগ্রগতি এবং টেলিটকের বিদ্যমান ৫ হাজার ৬শত টাওয়ারের কর্মক্ষমতা বিশেষ করে ব্যাটারি ব্যাকআপ বাড়ানোর লক্ষ্যে গৃহীত পদক্ষেপ সম্পর্কে জানতে চান। টেলিটকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. হাবিবুর রহমান এসময় পাওয়ার প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরেন।

প্রতিমন্ত্রী আগামী ৭ মার্চ উপলক্ষ্যে টেলিটক মোবাইল ইন্টারনেটের একটি বিশেষ সাশ্রয়ী প্যাকেজ তৈরি এবং ৭ মার্চ থেকে তা চালু করার জন্য নির্দেশনা প্রদান করেন।

   

প্লাটিনাম জয়ন্তীতে প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের মিলনমেলা



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট,বার্তা২৪.কম, লক্ষ্মীপুর
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার ৭৫তম বার্ষিকী উপলক্ষে প্লাটিনাম জয়ন্তী উদযাপন করেছে লক্ষ্মীপুরের ভবানীগঞ্জ বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা।

বর্ণাঢ্য আয়োজনে বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে শনিবার (১৩ এপ্রিল) সকাল থেকে দিনব্যাপী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। শুরুতে জাতীয় সংগীত, পতাকা উত্তোলন ও বেলুন উড়িয়ে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির উদ্যোগে আয়োজিত অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করা হয়।

পরে আলোচনা সভা, স্মৃতিচারণ, সংবর্ধনা অনুষ্ঠান, মধাহ্নভোজ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানসহ সহ নানা আয়োজন ছিল বিদ্যালয় মাঠে। প্রবীণ ও নবীন শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয় মাঠে এসে আবেগে আপ্লুত হয়ে পড়েন।

অনুষ্ঠানের ফাঁকে কেউ কেউ দলবদ্ধ হয়ে ছবি তুলেছেন, কেউ আবার আড্ডায় গল্পে মেতেছেন। কারো বয়স আশির ঊর্ধ্বে। আবার কারো বয়স ষাট-সত্তরের মধ্যে। বিদ্যালয়ের পুনর্মিলনীতে সবাই একসঙ্গে হয়েছেন বিদ্যালয় মাঠে। একে অপরের সঙ্গে পুরনো দিনের স্মৃতিচারণ করেন।


বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি নাছির উদ্দিন রাজুর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বাধীনতা যুদ্ধের কিংবদন্তী নেতা ও সাবেক এমএলএ বীর মুক্তিযোদ্ধা খালেদ মোহাম্মদ আলী। উদ্বোধক ছিলেন বিদ্যালয়ের সাবেক ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক কামাল উদ্দিন।

বক্তব্য রাখেন- লক্ষ্মীপুর সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ অধ্যাপক মাইন উদ্দিন পাঠান, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফুর রহমানসহ বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা।

আয়োজকরা জানিয়েছেন, বিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের মধ্যে বীর মুক্তিযোদ্ধা, অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক ও কৃতি শিক্ষার্থীদেরকে সম্মাননা প্রদান করা হবে।

১৯৪৭ সালে ভবানীগঞ্জ বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয়। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে ২০২৪ সাল পর্যন্ত প্রায় ১৫০০ শিক্ষার্থী বিদ্যালয়ের প্লাটিনাম জয়ন্তী ও পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছেন বলে আয়োজকরা জানায়।

;

কেন ইসরায়েল থেকে ঢাকায় ফ্লাইট অবতরণ? ব্যাখা দিল বেবিচক



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সম্প্রতি ইসরায়েল থেকে দুটি ফ্লাইট সরাসরি ঢাকায় অবতরণ করার বিষয়ে ব্যাখ্যা দিয়েছে বাংলাদেশের বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক)।

শনিবার বেবিচকের উপ-পরিচালক (জনসংযোগ) মোহাম্মদ সোহেল কামরুজ্জামানের স্বাক্ষর করা এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ‘ইসরাইল থেকে বিমান এলো ঢাকায়’ শিরোনামে বিভিন্ন পত্রপত্রিকার অনলাইন সংস্করণে ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদের প্রতি বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের (বেবিচক) দৃষ্টি আকৃষ্ট হয়েছে। বাংলাদেশের তৈরি পোশাক মধ্যপ্রাচ্য ও ইউরোপে নিয়ে যাওয়ার উদ্দেশ্যে গত ৭ এপ্রিল একটি বিমান তেল আবিব থেকে উড্ডয়ন করে সন্ধ্যা ৭টা ২২ মিনিটে ঢাকায় অবতরণ করে ও কার্গো নিয়ে রাত ১১টা ৫৫ ঘটিকায় ঢাকা থেকে উড্ডয়ন করে এবং অপরটি গত ১১ এপ্রিল তারিখ রাতে ঢাকায় অবতরণ ও মধ্যরাত সাড়ে ১২ টায় কার্গো নিয়ে ঢাকা থেকে উড্ডয়ন করে। দুটি বিমানই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নিবন্ধিত এবং ওই দেশের বিমান সংস্থা ন্যাশনাল এয়ারলাইন্সের।’

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, ‌‘বাংলাদেশ ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক বিমান চলাচল চুক্তি রয়েছে। বিমান চলাচল চুক্তি অনুযায়ী কার্গো ফ্লাইট দুটি ঢাকা এসেছিল। ঢাকা থেকে তৈরি পোশাক নিয়ে ফ্লাইট দুটি সংযুক্ত আরব আমিরাতের শারজাহ এবং ইউরোপের একটি গন্তব্যে গিয়েছে। বাংলাদেশ ও ইসরাইলের মধ্যে কোনো বিমান চলাচল চুক্তি নেই এবং ইসরাইলের কোনো বিমান বাংলাদেশে অবতরণের কোনো ঘটনা ঘটেনি।’

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়েছে, ‘ইসরাইল থেকে বিমান এলো ঢাকায়’ শিরোনামে বিভিন্ন অনলাইন পত্রিকা ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিষয়টি ভিন্নভাবে প্রকাশের ফলে জনমনে বিভ্রান্তি সৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। তাছাড়া, এ ধরনের বিভ্রান্তিকর সংবাদ পরিবেশনা অনাকাঙ্ক্ষিত ও উদ্দেশ্য প্রণোদিত হিসাবে বিবেচ্য। এরূপ সংবাদ পরিবেশন হতে বিরত থাকার জন্য সংশ্লিষ্ট সকলকে অনুরোধ করা হলো। 

;

পিরোজপুরে আন্ত:জেলা চোর চক্রের মাস্টারমাইন্ড গ্রেফতার



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, পিরোজপুর
পিরোজপুরে আন্ত:জেলা চোর চক্রের মাস্টারমাইন্ড গ্রেফতার

পিরোজপুরে আন্ত:জেলা চোর চক্রের মাস্টারমাইন্ড গ্রেফতার

  • Font increase
  • Font Decrease

পিরোজপুরে আন্ত:জেলা মোটরসাইকেল চোরচক্রের মাস্টারমাইন্ড সেলিম খানকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এ সময় তার কাছ থেকে চোরাই একটি মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয়েছে।

শনিবার (১৩ এপ্রিল) দুপুরে পিরোজপুরে পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অর্থ) শেখ মোস্তাফিজুর রহমান সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

গ্রেফতার সেলিম খান (৪৪) নারায়নগঞ্জ জেলার রুপগঞ্জ থানার শাহাপুর এখারার গফফার খানের পুত্র।

পিরোজপুরে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অর্থ) শেখ মোস্তাফিজুর রহমান জানান, গত ১৯ মার্চ পিরোজপুরে শহরের পাড়েরহাট সড়ক থেকে একটি মোটরসাইকেল চুরি হয়। পরে মোটরসাইকেলের মালিক মাইনুর ইসলাম বাদি হয়ে পিরোজপুর সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করে। পরে পুলিশ সিসি টিভি ফুটেজ এবং তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে দুই জন চোরকে সনাক্ত করে। এ সময় ডিবি পুলিশ অভিযান চালিয়ে গত ২৮ মার্চ ঢাকা জেলার সাভার থানা এলাকা থেকে মোটরসাইকেল চুরির সাথে জড়িত বাদশা ফরাজিকে গ্রেফতার করে। বাদশা ফরাজিকে গ্রেফতারের পরে তাকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদের পরে তার দেয়া তথ্য অনুযায়ী ডিবি পুলিশ অভিযান চালিয়ে শুক্রবার (১২ এপ্রিল) নারায়নগঞ্জের রুপগঞ্জ এলাকা থেকে আন্ত:জেলা মোটরসাইকেল চোরচক্রের অন্যতম হোতা ও মাস্টারমাইন্ড সেলিম খানকে গ্রেফতার করে পুলিশ। সেলিম খানের দেয়া তথ্য অনুযায়ী টাঙ্গাইল জেরার রাবনা বাইপাসস এলাকা থেকে চুরি যাওয়া মোটরসাইকেলটিও উদ্ধার করা হয়।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অর্থ) শেখ মোস্তাফিজুর রহমান আরো জানান, আন্ত:জেলা মোটরসাইকেল চোরচক্রের অন্যতম হোতা ও মাস্টারমাইন্ড সেলিম খানের নামে ঢাকা, মানিকগঞ্জ, সিরাজগঞ্জ, নারায়নগঞ্জ, মাগুরা, বাগেরহাট সহ দেশের বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলা রয়েছে। এছাড়া সেলিম খান এ চোরাই মোটরসাইকেল দিয়ে মাদক পাচার সহ বিভিন্ন অপরাধ কার্যক্রম করে আসছিলো।

;

চুয়াডাঙ্গায় আবারও মাঝারি তাপদাহ শুরু, জনজীবনে অস্বস্তি



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, চুয়াডাঙ্গা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

চুয়াডাঙ্গায় আবারও শুরু হয়েছে মাঝারি ধরনের তাপদাহ।

শনিবার (১৩ এপ্রিল) বেলা ৩টায় এ জেলার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ৩৮ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এসময় বাতাসের আর্দ্রতা ছিল ২৯ শতাংশ। এদিকে, বাইরে তীব্র রোদ আর ভ্যাপসা গরমে জনজীবনে অস্বস্তি শুরু হয়েছে।

চুয়াডাঙ্গা প্রথম শ্রেণির আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগার সূত্রে জানা গেছে, ঈদের পরদিন শুক্রবার (১২ এপ্রিল) এ জেলার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ৩৬ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা মৃদু তাপপ্রবাহ। একদিনের ব্যবধানে তাপমাত্রা ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস বেড়েছে। শনিবার দুপুর ১২টায় জেলার তাপমাত্রা ছিল ৩৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। বেলা ৩টায় এ জেলার তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ৩৮ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এর আগে গত ৬ এপ্রিল চুয়াডাঙ্গায় সর্বোচ্চ ৪০ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়। যা ছিল চলতি মৌসুমে দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা।

চুয়াডাঙ্গা আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের ইনচার্জ জামিনুর রহমান জানান, আগামী ১০ দিন আবহাওয়া পরিস্থিতি একই রকম থাকবে। এসময় তাপমাত্রা আরও বাড়বে। আপাতত স্বাভাবিক বৃষ্টিপাতের কোনো সম্ভাবনা নেই। তবে কালবৈশাখী ঝড় হলে তার সাথে বৃষ্টি হতে পারে। এটা আগে থেকে বলা সম্ভব নয়।

এদিকে, তীব্র গরমে জনজীবনে নেমে এসেছে ভোগান্তি। ঈদের ছুটিতে অনেকে এখন গ্রামে অবস্থান করছেন। কিন্তু গরমের কারণে কেউ বাইরে বের হতে পারছেন না। এক প্রকার ঘরবন্দি সময় পার করছেন তারা।

;