বিষমুক্ত সবজির গ্রাম পোটকরা

আবদুর রহমান, ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, কুমিল্লা
নিরাপদ সবজির গ্রাম পোটকরা/ছবি: বার্তা২৪.কম

নিরাপদ সবজির গ্রাম পোটকরা/ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার শুভপুর ইউনিয়নের গ্রাম পোটকরা। গোটা উপজেলাব্যাপী গ্রামটির আছে একটি ভিন্ন পরিচিতি। সকলের কাছেই পোটকরা এখন বিষমুক্ত নিরাপদ সবজির গ্রাম হিসেবে পরিচিত।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, পোটকরা এখন নিরাপদ সবজি উৎপাদনের জন্য একটি আদর্শ গ্রামে রূপ নিয়েছে। পরিবেশ বান্ধব কৌশল এবং জৈব কৃষি ও বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে পোকা দমন করছেন কৃষকরা। কীটনাশক ব্যবহার না করেই সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক উপায়ে সবজি উৎপাদন করে বাজারজাত করছেন।


কৃষকেরা জানান, পোকা দমনের জন্য ফেরোমন ফাঁদ ব্যবহার করা হচ্ছে। এতে কীটনাশকের থেকে কম খরচ পড়ছে। এ পদ্ধতিতে তারা ফুলকপি, বাঁধাকপি, শিম, বরবটি, বেগুন, করলা, মিষ্টি কুমড়া, চালকুমড়া (ঝালি), লাউসহ বিভিন্ন সবজি উৎপাদন করছেন।

বিষমুক্ত সবজি

ফলন ভালো হওয়ায় হাসি ফুটেছে কৃষকদের মুখে। এছাড়া বাজারেও বিষমুক্ত সবজির ব্যাপক চাহিদা থাকায় অন্যান্য এলাকার কৃষকরাও এই পদ্ধতি ব্যাবহারে আগ্রহ প্রকাশ করছেন।

কৃষকরা বলেন, এই পদ্ধতিতে একটি পাত্রে পুরুষ পোকার শুক্রাণু দিয়ে একটি ফাঁদ পাতা হলে স্ত্রী পোকারা ওই ফাঁদে পড়ে মরে যায়। এতে পরিবেশেরও কোন ক্ষতি হয়না। এছাড়া কৃষকদের খরচও অনেকটাই কম হয়।

পোটকরা পূর্বপাড়া গ্রামে আইপিএম কৃষক মাঠ স্কুলে স্থানীয় কৃষি কর্মকর্তারা সপ্তাহের প্রতি বুধবার এসে কৃষকদেরকে প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকেন। এতে করে খুব সহজেই কৃষকরা নিরাপদ সবজি উৎপাদন করতে পারছেন।

ফলল ভালো হওয়ায় লাভবান হচ্ছেন কৃষক

গ্রামের কৃষক মো.আব্দুস ছাত্তার বলেন, আমাদের গ্রাম হলো নিরাপদ সবজির গ্রাম। আমরা সারা বছরই এখানে নিরাপদ সবজি উৎপাদন করছি। চলতি মৌসুমে এখন বেগুন, বরবটি, করলা, চালকুমড়া, মিষ্টি কুমড়াসহ বিভিন্ন সবজি উৎপাদন হচ্ছে। এই পদ্ধতিতে সবজি চাষ কৃষিতে নতুন মাত্রা যোগ করেছে। ভবিষ্যতেও এ প্রক্রিয়ায় আরো ব্যাপকভাবে সবজি চাষ করব আমরা।

ওই গ্রামের আরেক কৃষক মোহাম্মদ মোজাম্মেল জানান, আমরা কৃষি অফিসারদের পরামর্শে সহজেই বিষমুক্ত নিরাপদ সবজি উৎপাদন করছি। আমি দুই শতক জমিতে বেগুন লাগিয়েছি। এতে আমার খরচ হয়েছে প্রায় দুই হাজার টাকা। আমি এ পর্যন্ত ১০ হাজার টাকার বেগুন বিক্রি করেছি। আশা করছি আরো ২০ হাজার টাকার বেগুন বিক্রি করতে পারবো।

একই গ্রামের কৃষক দেলোয়ার হোসেন জানান, সম্প্রতি ৩০ শতক জমির ফুলকপি বিক্রি করেছি ১ লাখ ৭ হাজার টাকায়। এতে আমি অনেক লাভবান হয়েছি। এখন ১২ শতক জমিতে বরবটি লাগিয়েছি। আশাকরি এখান থেকেও ব্যাপক লাভবান হব।

বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে পোকা দমন

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো.আবদুল্লাহ আল মামুন বার্তা২৪.কমকে জানান, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সারাদেশে নিরাপদ সবজি উৎপাদনের জন্য কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করে যাচ্ছে। এরই অংশ হিসেবে চৌদ্দগ্রামের পোটকরা গ্রামের কৃষকরা আমাদের পরামর্শে নিরাপদ সবজি উৎপাদন করে যাচ্ছে।

তিনি জানান, এই গ্রামের প্রায় সকল কৃষকই বারো মাস নিরাপদ সবজি উৎপাদন করছেন। পুরো গ্রামের অন্তত ১৫ একর জমিতে কৃষকরা ফেরোমন ফাঁদ এবং জৈব সার ব্যবহার করে খুব সহজেই বিষমুক্ত নিরাপদ সবজি উৎপাদন করতে পারছেন। আমাদের কৃষি বিভাগ থেকে প্রতিনিয়ত কৃষি কর্মকর্তারা গিয়ে তাদেরকে পরামর্শ দিচ্ছেন এবং খোঁজ-খবর রাখছেন

আপনার মতামত লিখুন :