করোনায় ২০ হাজার পরিবারের পাশে মেয়র আতিক

শাহজাহান মোল্লা, সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
খাবার প্যাকেজিং দেখভাল করছেন মেয়র আতিক/ছবি: বার্তা২৪.কম

খাবার প্যাকেজিং দেখভাল করছেন মেয়র আতিক/ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

করোনা আতঙ্কে বিপর্যস্ত সারা বিশ্ব। বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশ করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে কোথাও কোথাও লকডাউন আবার কোথাও চলাফেরায় বিধিনিষেধ আরোপ করেছে। তাছাড়া বৃহস্পতিবার (২৬ মার্চ) থেকে সকল সরকারি-বেসরকারি অফিস বন্ধ রাখার ঘোষণা দিয়েছে সরকার।

মানুষের সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে ঘরে বাইরে যেতে নিষেধ করা হচ্ছে। ফলে কার্যত পুরো দেশ এখন লকডাউনের ভেতর দিয়ে যাচ্ছে। আর তাতেই বিপদে পড়েছেন খেটে খাওয়া মানুষ-গুলো, যাদের রাস্তায় বের না হলে পেটে খাবার জোটে না, যাদের রিকসার চাকা না ঘুরলে ভাগ্যের চাকা ঘুরে না।

বিডি ক্লিনের কর্মীদের সহায়তায় প্যাকেট করার কাজ চলছে

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে রাজধানী ঢাকায় বিপুল সংখ্যক দরিদ্র মানুষ কঠিন বাস্তবতার মুখোমুখি। তারা ঘর থেকে বেরও হতে পারছেন না, টাকাও রোজগার হচ্ছে না। আবার ঘরে থেকেও খাবার সংকটে। তাদের এখন ঘরে থাকলেও বিপদ বাইরে গেলে মহাবিপদ।

তাই করোনা সংকটকালে মানবতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের নবনির্বাচিত মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম। নিজ উদ্যোগে প্রায় ২০ হাজার পরিবারের কাছে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য তুলে দিচ্ছেন তিনি।

প্যাকেট করা হয়েছে চাল-ডাল

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন এলাকার বস্তিবাসীদের কাছে এই সামগ্রী তুলে দিতে মেয়রকে সহযোগিতা করছে বিডি ক্লিন নামক একটি স্বেচ্ছাসেবক সংস্থা।

মেয়রের বনানী অফিসে পণ্য সামগ্রী দিয়ে প্যাকেট করা হচ্ছে। প্রতি প্যাকেটে থাকছে ৫ কেজি করে চাল, ১ কেজি ডাল, ১টি সাবান, ১ লিটার তেল, ১ কেজি আলু ও ৩টি মাস্ক। মেয়র নিজের ফ্যাক্টরি থেকে এসব মাস্ক তৈরি করিয়ে এনেছেন।

মাস্ক তৈরি করে এনেছেন নিজের ফ্যাক্টরি থেকে

মেয়র আতিকুল ইসলাম বার্তা২৪.কম-কে বলেন, আমি প্রান্তিক মানুষের কথা চিন্তা করে এই উদ্যোগ নিয়েছি। আমি শুরু করেছি, আমি আহ্বান করবো নগরের অনেক বিত্তবান আছেন, যারা চাইলে নিজেরাও দিতে পারেন, আবার কেউ যদি মনে করেন এই প্ল্যাটফর্মে এসে দিয়ে যাবেন। আমরা তাদের সেই সহযোগিতা প্রান্তিক মানুষের মাঝে ছড়িয়ে দেবো।

বিতরণের জন্য রাখা হয়েছে তেল ও সাবান

তিনি বলেন, এই সংকট তো এক দিনের না, আমরা জানি না কত দিন থাকবে। তাই সবাই এগিয়ে এলে আমাদের রিকশাচালক, হকার, ভ্যানচালক, দিনমজুর ভাই বোনেরা বেঁচে যাবেন।

আতিকুল ইসলামের বনানীর ‘ডি’ ব্লকের ১৩ নম্বর সড়কের ৯৭ নম্বর বাড়ির অফিসে বিডি ক্লিনের কর্মীদের সহায়তায় প্যাকেট করার কাজ চলছে। বিকেল সাড়ে ৫ টা পর্যন্ত ৬ হাজার প্যাকেট প্রস্তুত করা হয়। লক্ষ্যমাত্রা ২০ হাজার পরিবারের নিকট এই সামগ্রী তুলে দেওয়া। যে কেউ চাইলে এই অফিসে তার সাহায্য সামগ্রী পৌঁছে দিতে পারবেন।

আপনার মতামত লিখুন :