হটলাইনে কল করলেই ঘরে যাবে খাবার



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ময়মনসিংহ
ময়মনসিংহ জেলা প্রশাসন

ময়মনসিংহ জেলা প্রশাসন

  • Font increase
  • Font Decrease

করোনাভাইরাস বা কোভিড-১৯ সংক্রমণ ঠেকাতে চলছে সাধারণ ছুটি। সব নাগরিককে ঘরে থাকার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এতে স্বল্প আয়ের মানুষজন কর্মহীন হয়ে পড়েছে। অনেকের বন্ধ হয়ে গেছে আয়ের পথ।

বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি সংস্থা খাদ্য সহায়তা দিলেও অনেকে লোকলজ্জার ভয়ে তা নিতে পারছেন না। এমন পরিস্থিতিতে তাদের জন্য একটি হটলাইন চালু করেছে ময়মনসিংহ জেলা প্রশাসন। যে নম্বরে কল করলেই ঘরে পৌঁছে যাবে খাবার।

বুধবার (৮ এপ্রিল) সকালে জেলা প্রশাসক মো. মিজানুর রহমানের ফেসবুক আইডির টাইমলাইনে প্রকাশ করা হয় এ হটলাইন।

এতে বলা হয়েছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে আমরা খাবার পৌঁছে দিচ্ছি আপনার ঘরে। ০১৪০৪৪০৯২০৬ নম্বরে কল করে নাম, বাবা বা স্বামীর নাম, ঠিকানা দিতে বলা হয়েছে। এরপরই তথ্য গোপন রেখে ওই ব্যক্তির ঘরে পৌঁছে যাবে খাবার।

ময়মনসিংহ ডিসির ফেসবুক পোস্ট

এদিকে, দরিদ্র পরিবারের পাশে দাঁড়ানো বিভিন্ন বেসরকারি প্রতিষ্ঠান, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ও ব্যক্তিদের মানবিক সহায়তা কর্মসূচিকে সুশৃঙ্খল ও সমন্বয় করতে গণবিজ্ঞপ্তি জারি করেছে ময়মনসিংহ জেলা প্রশাসন।

গণবিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, দেশব্যাপী করোনাভাইরাস সংক্রমণের ফলে সাময়িকভাবে কর্মহীন হয়ে পড়া মানুষদের সহায়তার জন্য সমন্বিতভাবে মানবিক সহায়তা কার্যক্রম পরিচালনার সরকারি নির্দেশনা রয়েছে। উক্ত নির্দেশনার আলোকে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে রেজিস্ট্রেশন ফরম গ্রহণপূর্বক পূরণ করে অথবা জেলা প্রশাসকের ওয়েবসাইটে নিবন্ধন ফরম পূরণ করে অনুমতি সাপেক্ষে সহায়তা কার্যক্রম পরিচালনা করা যাবে।
এ আদেশ লঙ্ঘনকারীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও জানানো হয় বিজ্ঞপ্তিতে।

‘প্রধানমন্ত্রীর পদক্ষেপের ফলে দেশে আজ ব্যাপক উন্নতি হচ্ছে’



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
পুলিশের মহাপরিদর্শক ড. বেনজীর আহমেদ

পুলিশের মহাপরিদর্শক ড. বেনজীর আহমেদ

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রধানমন্ত্রীর রাষ্ট্রনায়কোচিত পদক্ষেপের ফলে আজ বাংলাদেশের ব্যাপক উন্নতি হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ।

বৃহস্পতিবার (২৭ জানুয়ারি) রাজারবাগ পুলিশ অডিটোরিয়ামে আয়োজিত পুলিশ সপ্তাহ-২০২২ এর ৫ম ও শেষ দিনের প্রথম অধিবেশনে তিনি এ মন্তব্য করেন।

পুলিশের মহাপরিদর্শক বলেন, এই উন্নয়নের মূলে রয়েছে পুলিশ। কারণ পুলিশ সামাজিক শৃঙ্খলা, সামাজিক স্থিতিশীলতা, সামাজিক নিরাপত্তা বজায় রাখতে সক্ষম হয়েছে। ফলে দেশের অভ্যন্তরীণ বিনিয়োগ বাড়ছে, পাশাপাশি বিদেশিরাও আমাদের দেশে বিনিয়োগ করছে। ফলে দেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতি সাধিত হচ্ছে।

নিরাপত্তাকে উন্নয়নের অক্সিজেন হিসেবে আখ্যায়িত করে আইজিপি বলেন, দেশ যে গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে সে একই গতিতে পুলিশের অগ্রগতিও প্রয়োজন। সে লক্ষ্যে পুলিশের ন্যায্য বিষয়গুলো বিবেচনার অনুরোধ জানান তিনি।

সভায় জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন, গৃহায়ণ ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী শরীফ আহমেদ, গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. শহীদ উল্লাহ খন্দকার, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সংগঠন ও ব্যবস্থাপনা (ওঅ্যান্ডএম) অনুবিভাগের অতিরিক্ত সচিব খোরশেদা ইয়াসমীন, বাংলাদেশ পুলিশের অতিরিক্ত আইজিগণ, সকল মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার, রেঞ্জ ডিআইজি ও জেলার পুলিশ সুপারগণ উপস্থিত ছিলেন।

;

‘পুলিশ জনগণের আস্থা অর্জনে সক্ষম হয়েছে’



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেছেন, বাংলাদেশ পুলিশ প্রতিনিয়ত বিভিন্ন চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় যেভাবে সাফল্য দেখিয়েছে তা প্রশংসাযোগ্য। দেশের জনগণের কল্যাণে পুলিশ দক্ষতার সঙ্গে আন্তরিকভাবে দায়িত্ব পালন করছে। পুলিশ জনগণের আস্থা অর্জন করতে পেরেছে।

বৃহস্পতিবার (২৭ জানুয়ারি) পুলিশ সপ্তাহ-২০২২ এর শেষ দিনের প্রথম অধিবেশনে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন। রাজারবাগ পুলিশ অডিটোরিয়ামে আয়োজিত এই অধিবেশনে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন, গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী শরীফ আহমেদের সঙ্গে ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তাদের মতবিনিময় হয়।

পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ সভায় সভাপতিত্ব করেন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন রেলওয়ে রেঞ্জের অতিরিক্ত আইজি মো. দিদার আহম্মদ।

ফরহাদ হোসেন বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে বর্তমান সরকারের উদ্যোগে দেশের ঈর্ষণীয় উন্নতি হচ্ছে। দেশের আইন-শৃঙ্খলা উন্নত হওয়ায়, শান্তি বজায় থাকায় বিভিন্ন মেগা প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে, দেশের অগ্রগতি হচ্ছে। আর এর পেছনে আছে পুলিশ।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, পুলিশের আধুনিকায়ন ও অগ্রগতিতে সরকার খুবই আন্তরিক। পুলিশের জনবল কাঠামোতে বিভিন্ন পদ সৃজন সরকারের সুবিবেচনায় রয়েছে। তিনি প্রস্তাবিত নতুন থানার জনবল বাড়ানো, বরিশাল ও মৌলভীবাজার জেলায় দুটি পুলিশ ট্রেনিং সেন্টারের (পিটিসি) জনবল অনুমোদনের প্রস্তাব সুবিবেচনার আশ্বাস প্রদান করেন।

তিনি সরকারি দায়িত্ব ও কর্তব্য যথাযথভাবে পালন করে দেশকে বঙ্গবন্ধুর 'সোনার বাংলা' হিসেবে গড়ে তোলার জন্য সকলের প্রতি আহ্বান জানান।

সভায় এপিবিএন এর তিনটি নতুন ব্যাটালিয়নের জনবল অনুমোদন, প্রস্তাবিত নতুন থানার জনবল বাড়ানো, বরিশাল ও মৌলভীবাজারে দুটি পুলিশ ট্রেনিং সেন্টারের জনবল অনুমোদনের প্রস্তাব করা হয়।

গৃহায়ন ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী শরীফ আহমেদ বলেন, তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহারের মাধ্যমে পুলিশ জনগণকে সেবা দিয়ে যাচ্ছে। আগামীতেও তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার অব্যাহত রাখতে হবে।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে দেশের অভূতপূর্ব উন্নতি হয়েছে। বিভিন্ন সামাজিক সূচকেও দেশ এগিয়ে রয়েছে। উন্নয়নের এ ধারা অব্যাহত রাখতে পুলিশের কার্যকর ভূমিকা অনস্বীকার্য।

সভায় উপস্থিত কর্মকর্তারা পুলিশের সিনিয়র লিডারদের জন্য নির্ধারিত বাসভবন বরাদ্দ দিতে প্রতিমন্ত্রীর নিকট প্রস্তাব করেন। গৃহায়ন ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী প্রস্তাবিত বাসভবন বরাদ্দের উদ্যোগ গ্রহণের আশ্বাস প্রদান করেন।

সভায় গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. শহীদ উল্লাহ খন্দকার, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সংগঠন ও ব্যবস্থাপনা (ওঅ্যান্ডএম) অনুবিভাগের অতিরিক্ত সচিব খোরশেদা ইয়াসমীন, বাংলাদেশ পুলিশের অতিরিক্ত আইজিগণ, সকল মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার, রেঞ্জ ডিআইজি ও জেলার পুলিশ সুপারগণ উপস্থিত ছিলেন।

;

ধামরাইয়ে ৯ ইটভাটাকে ৫৮ লক্ষ টাকা জরিমানা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, সাভার (ঢাকা)
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

পরিবেশ অধিদফতরের ছাড়পত্র না থাকায় অবৈধভাবে ব্যবসা পরিচালনার দায়ে ঢাকার ধামরাইয়ে অভিযান চালিয়ে ৯টি ইটভাটাকে ৫৮ লক্ষ টাকা আর্থিক জরিমানা করেছে পরিবেশ অধিদফতরের ভ্রাম্যমান আদালত।

বৃহস্পতিবার (২৭ জানুয়ারি) সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত উপজেলার জলসিন, কান্দাপাড়া, কালামপুর, ধাইরা ও ডাউটিয়া এলাকায় এই ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন পরিবেশ অধিদফতরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কাজী তামজীদ আহমেদ।

এ সময় আর্থিক জরিমানাসহ ইটভাটা ভেঙ্গে ও পানি দিয়ে ভাটার চুলা নিভিয়ে দেয়া হয়। মোট ৮টি ইটভাটাকে ৫৮ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। হালিমা ব্রিকস এর মালিক পলাতক থাকায় ইট ভাটাটি সম্পূর্ণ ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেওয়া হয়।

অভিযানে মা ব্রিকসকে ছয় লক্ষ টাকা, পিওর ব্রিকসকে বিশ লক্ষ টাকা, মা স্টার ব্রিকস ছয় লক্ষ টাকা, জয় বাংলা ব্রিকস ছয় লক্ষ টাকা, এসবিএন ব্রিকস-১ দুই লক্ষ টাকা, এসবিএন ব্রিকস-২ ছয় লক্ষ টাকা, বিবিসি ব্রিকস ছয় লক্ষ টাকা, সান ব্রিকস ছয় লক্ষ টাকা জরিমানা করা হয়।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কাজী তামজীদ আহমেদ জানান, পরিবেশ দূষণকারী ও অবৈধ ইটভাটা বন্ধে ধারাবাহিক অভিযানের অংশ হিসেবে ধামরাইয়ে ইটভাটায় অভিযান চালানো হয়। ৮টি ভাটা কর্তৃপক্ষ প্রয়োজনীয় কাগজ পত্র দেখাতে ব্যর্থ হলে তাদের আর্থিক জরিমানা করা হয়। একটি ইট ভাটার মালিক পলাতক থাকায় ভাটাটি সম্পূর্ণ ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেওয়া হয়। অনুমতি বিহীন ইট ভাটার বিরুদ্ধে তাদের অভিযান অব্যাহত থাকবে বলেও জানান তিনি।

অভিযানকালে এ সময়ে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা জেলা পরিবেশ অধিদফতরের উপ-পরিচালক জহিরুল ইসলাম তালুকদার, সহকারী পরিচালক মোসাব্বের হোসেন রাজীব, অনিতা ঘোষ, পরিদর্শক ফাতেমাতুজ জহুরা, ক্যাশিয়ার উজ্জল বরুয়াসহ বিপুল সংখ্যক পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা।

;

সিরাজগঞ্জে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ১



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, সিরাজগঞ্জ
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

সিরাজগঞ্জ পৌর এলাকার মিরপুর মহল্লায় দুই গ্রুপের সংঘর্ষে মুলকাত আলী (৬০) নামের একজন নিহত হয়েছেন। এঘটনায় আহত হয়েছেন অন্তত ১০ জন।

বৃহস্পতিবার (২৭ জানুয়ারি) সন্ধ্যা ৬টার দিকে মিরপুর মহল্লার ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশনের পাশে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

নিহত মুলকাত আলী মিরপুর মহল্লার মৃত আব্দুল আজিজের ছেলে।

স্থানীয়রা জানান, মুলকাত আলী গংদের সাথে কাদের চেয়ারম্যানের (সাবেক) গংদের দীর্ঘদিন ধরে জমিজমা নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার দিকে জমি নিয়ে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে মুলকাত মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। তাকে উদ্ধার করে শহরের আভিসিনা হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করে। এঘটনায় উভয় পক্ষে মধ্যে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

সিরাজগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নজরুল ইসলাম জানান, দীর্ঘদিন যাবত তাদের মধ্যে জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে দু’পক্ষের সংঘর্ষ বাধে। এঘটনায় মুলকাত আলী নামের এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। লাশ উদ্ধার করে সিরাজগঞ্জ বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেলে মৃত্যু সঠিক কারণ জানা যাবে। এঘটনায় এখনো লিখিত অভিযোগ পায়নি।

;