১০ হাজার শিক্ষককে বিনামূল্যে অনলাইন ক্লাসের প্রশিক্ষণ দেবে কোডার্সট্রাস্ট



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
১০ হাজার শিক্ষককে বিনামূল্যে অনলাইন ক্লাসের প্রশিক্ষণ দেবে কোডার্সট্রাস্ট

১০ হাজার শিক্ষককে বিনামূল্যে অনলাইন ক্লাসের প্রশিক্ষণ দেবে কোডার্সট্রাস্ট

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশের প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পর্যায়ের অন্তত ১০ হাজার শিক্ষককে বিনামূল্যে অনলাইনে ক্লাস নেওয়ার পদ্ধতিগত ও প্রযুক্তিগত প্রশিক্ষণ দেওয়ার কার্যক্রম হাতে নিয়েছে কোডার্স ট্রাস্ট। প্রযুক্তি প্রশিক্ষণ ও জ্ঞান বিতরণে আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানটি তাদের ঢাকাস্থ সদর দফতর ও অন্যান্য প্রশিক্ষণ কেন্দ্র থেকে এই প্রশিক্ষণ কার্যক্রম পরিচালনা করবে। প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে সম্পূর্ণ অনলাইনে। প্রশিক্ষণার্থী ১০ হাজার শিক্ষক এরই মধ্যে তাদের নিবন্ধন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেছেন। 

এরই উদ্বোধনী হয়ে গেলো শনিবার (২০ জুন)। এক ওয়েবিনারের মাধ্যমে আয়োজিত এই কর্মসূচির উদ্বোধন করেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর সাবেক মুখ্যসচিব আবদুল করিম, সাবেক শিক্ষাসচিব নজরুল ইসলাম খান, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. ফসিউল্লাহ। যুক্তরাষ্ট্র থেকে যোগ দেন কোডার্সট্রাস্টের কো-ফাউন্ডার ও ইউটিসি অ্যাসোসিয়েটসের প্রতিষ্ঠাতা আজিজ আহমদ। এছাড়াও ছিলেন, কোডার্সট্রাস্ট বাংলাদেশ’র উপদেষ্টা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব) আবদুল হালিম, শিক্ষাডটকম এর সম্পাদক সিদ্দিকুর রহমান খান এবং কোডার্সট্রাস্ট বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর আতাউল গনি ওসমানি।

শিক্ষাডটকম এই প্রশিক্ষণ কর্মসূচি বাস্তবায়নে সহায়ক প্রতিষ্ঠান হিসেবে কাজ করছে। উদ্বোধনীর পরপরই শুরু হয় দিনের প্রশিক্ষণ কার্যক্রম।

উদ্বোধনী বক্তৃতায় শিক্ষামন্ত্রী বলেন, বৈশ্বিক সঙ্কটে আমাদের সকল ক্ষেত্রেই স্বাভাবিক কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে। আপদকালীন অবস্থায় আমরা কি করে শিক্ষাব্যবস্থাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারি, যাতে আমাদের শিক্ষার্থীরা পিছিয়ে না পড়ে সরকার সে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

সকল সঙ্কট শুধুমাত্র সঙ্কট নয়, তার মধ্য দিয়েই কিছু সম্ভাবনার দিকও উন্মোচিত হয়, এমন মত দিয়ে শিক্ষমন্ত্রী বলেন, তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহারের মাধ্যমে শিক্ষা ব্যবস্থাকে এগিয়ে নেওয়ার সুযোগ তৈরি হয়েছে। এটাকে আমাদের কাজে লাগাতে হবে। আর তেমনই একটি উদ্যোগ এই প্রশিক্ষণ কর্মসূচি। এ জন্য আমি কোডার্সট্রাস্ট ও শিক্ষাডটকমকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, অনলাইন শিক্ষা ব্যবস্থায় আমাদের একসময় যেতেই হবে সে ভাবনা আমাদের ছিলো এবং সে লক্ষ্যে প্রস্তুতিও চলছিলো। বিশ্ব যতই চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে ততই আমাদের এসব বিশেষ দক্ষতা অর্জন জরুরি হয়ে পড়েছে। তবে হঠাৎ করে করোনা পরিস্থিতির কারণে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ রাখতে হচ্ছে ফলে আগামী কয়েক বছরের মধ্যে যা আমরা করতে চেয়েছিলাম তা এখনি শুরু করতে হচ্ছে।

শিক্ষকরা যারা নিজেরা এমন প্রশিক্ষণের প্রয়োজন বোধ করে তা গ্রহণে আগ্রহ দেখিয়েছেন এজন্য তাদের অভিনন্দন জানিয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আমি আশা করি এই প্রশিক্ষণের মাধ্যমে শিক্ষকরা অনলাইনে আরও ভালো করে পাঠদান করতে পারবে।

স্বাগত বক্তব্যে মানব সম্পদ বা মানব পূঁজি গঠনে দেশের শিক্ষা ব্যবস্থাকে সমৃদ্ধ করে তোলার কথা বলেন আজিজ আহমদ। তিনি বলেন, আমার বাবাও ছিলেন একজন স্কুল শিক্ষক। শিক্ষার উন্নয়নে যেখানে যতটুকু সুযোগ পাই করার চেষ্টা করে আসছি। কোভিড-১৯ এর বিদ্যমান পরিস্থিতিতে আমরা থেমে থাকতে পারিনা, এর মধ্যেই কিভাবে শিক্ষা কার্যক্রমকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া যায় সেটাই আমাদের এই কর্মসূচির লক্ষ্য। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যোগে যে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার প্রক্রিয়া চলছে, তারই অংশ হিসাবে আমরা দেশে অনলাইনে প্রশিক্ষণ দেওয়ার পদ্ধতি নিয়ে আসতে পেরেছি। শিক্ষকরা তাদের অনলাইনে ক্লাস নেওয়ার মৌলিক জ্ঞান ও প্রশিক্ষণ এর মাধ্যমে পাবেন।

মো. ফসিউল্লাহ বলেন, অনলাইনের মাধ্যমে শিক্ষকদের জন্য এই প্রশিক্ষণের উদ্যোগ এ মুহূর্তে আমাদের জন্য খুব দরকারি ও খুবই ভালো উদ্যোগ। বিনামূল্যে এই প্রশিক্ষণ দিতে এগিয়ে আসার জন্য কোডার্সট্রাস্টকে ধন্যবাদ।

প্রাথমিক পর্যায়ে দেশে চার লাখ শিক্ষক রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, অনলাইনের মাধ্যমে তাদের সকলকে প্রশিক্ষণ দেয়া সম্ভব হলে তা অবশ্যই কাজে লাগবে এবং সে দিকেই আমরা যাচ্ছি। এই প্রশিক্ষণ আমাদের সে প্রচেষ্টায় বড় অবদান রাখবে।

আবদুল করিম বলেন, এক সঙ্গে দশ হাজার শিক্ষককে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা একটি কঠিন কাজ। তবে প্রযুক্তির ব্যবহারে দেশের অগ্রগতির কারণেই এখন তা সম্ভব হচ্ছে। শিক্ষকদের আইটিভিত্তিক প্রশিক্ষণ দেয়া অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ উল্লেখ করে তিনি বলেন, আশা করি কোডার্সট্রাস্টের এই প্রশিক্ষণ নিয়ে তারা এ বিষয়ে সে দক্ষতা অর্জন করবেন। এর মাধ্যমে কোভিড-১৯ এর কারণে সৃষ্ট ক্ষতি পুষিয়ে নেওয়া সম্ভব হবে বলেও আশাবাদ ব্যক্ত করেন আবদুল করিম।  

নজরুল ইসলাম খান বলেন, প্রযুক্তির নতুন নতুন সুবিধা এত রয়েছে যে শিক্ষকরা চাইলেই তার ব্যবহার করে তাদের অনলাইন ক্লাসকে অনেক বেশি লাইভলি ও কার্যকর করে তুলতে পারবেন। যেগুলো খুব সহজ পদ্ধতি। তবে নিশ্চিতভাবেই ধারণা করছি, অনেক শিক্ষকের এখন সেটা জানা নেই। আমি মনে করছি, কোডার্সট্রাস্ট তার প্রশিক্ষণের মাধ্যমে শিক্ষকদের সেটা বুঝিয়ে দিতে ও শিখিয়ে দিতে সক্ষম হবে। আর তাতেই সার্বিকভাবে আমাদের অনলাইন শিক্ষণ ব্যবস্থা জোরদার হবে। শিক্ষকরা যারা এই প্রশিক্ষণ নেবেন, তাদের কাছ থেকে ফিডব্যাক নিয়ে ভবিষ্যতে কোন ধরনের প্রশিক্ষণ দেওয়া প্রয়োজন তা জেনে সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে কোডার্সট্রাস্টের প্রতি আহবান জানান তিনি।

কোডার্সট্রাস্ট বাংলাদেশ’র উপদেষ্টা অবসরপ্রাপ্ত ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আবদুল হালিম বলেন, করোনা দুর্যোগ কোনো কোনো ক্ষেত্রে আমাদের সুযোগও তৈরি করে দিয়েছে। এ কারণেই আমরা অপেক্ষাকৃত দ্রুত শিক্ষাক্ষেত্রে ডিজিটাল পদ্ধতির প্রয়োগে যেতে পারছি।

কোডার্সট্রাস্টের এই প্রশিক্ষণের মাধ্যমে শিক্ষকরা বিভিন্ন টুলস সম্পর্কে জ্ঞান ও ধারণা নিতে পারবেন। যার মাধ্যমে তারা নিজেদের ক্লাস পরিচালনা করবেন। আবদুল হালিম বলেন, এই দশ হাজার শিক্ষক যখন প্রশিক্ষণ সম্পন্ন করবেন, তখন স্কুল যদি খুলে দেওয়া না যায় আমাদের শিক্ষা কার্যক্রম থেমে থাকবে না। 

সিদ্দিকুর রহমান প্রশিক্ষণের মূল লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য তুলে ধরে বলেন, কোভিড-১৯ শুরু হওয়ার পর সরকার যখন টেলিভিশনের মাধ্যমে, অনলাইনে ক্লাস নেওয়ার নির্দেশনা দিলো তখন একটি বিষয় স্পষ্ট হলো দেশের প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরের অধিকাংশ শিক্ষকের এ বিষয়ক প্রযুক্তিগত ধারণা নেই। আর সেটা সমাধানেই এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। কোডার্সট্রাস্টকে ধন্যবাদ এমন একটি মহতী উদ্যোগে বিনামূল্যে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে।

তিনি বলেন, কোডার্সট্রাস্ট বাংলাদেশে এরই মধ্যে তার আইটি প্রশিক্ষণে স্থান করে নিয়েছে। এর নিয়মিত প্রশিক্ষণগুলোর মেয়াদকাল বড় ও ব্যয়সাপেক্ষ। কিন্তু এই প্রশিক্ষণের জন্য তারা সংক্ষিপ্ত কোর্সের মডেল তৈরি করে তবেই এগিয়ে এসেছে এবং তা বিনামূল্যে।

আতাউল গনি ওসমানি জানান, এরই মধ্যে ১০ হাজার শিক্ষক এই প্রশিক্ষণের জন্য তাদের নিবন্ধন সম্পন্ন করেছেন। এদের সকলকেই এই প্রশিক্ষণের আওতায় আনা হবে।  জুম ও গুগল মিট’র মাধ্যমে যেভাবে প্রশিক্ষণ পরিচালিত হবে তার কারিগরি দিকগুলো ব্যাখ্যা করেন। তিনি বলেন, শিক্ষকরা জুম ও গুগল মিটের মাধ্যমে নিজের প্রশিক্ষণ নেবেন। এবং পরে এই পদ্ধতিতেই তারা নিজেরাও শিক্ষার্থীদের পড়াবেন। প্রতিদিন তিনটি করে ব্যাচের প্রশিক্ষণ সম্পন্ন করা হবে। প্রতিটি ব্যাচে ৫০ জন করে শিক্ষক প্রশিক্ষণ পাবেন।

উদ্বোধনের পর প্রথম দিনেই তিনটি ব্যাচে ১৫০ জন শিক্ষক প্রশিক্ষণ নেন।

   

বোট ক্লাব থেকে পদত্যাগ করলেন বেনজীর আহমেদ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সাভারের বোট ক্লাবের সভাপতির পদ থেকে পদত্যাগ করেছেন পুলিশের সাবেক মহাপরিদর্শক (আইজিপি) বেনজীর আহমেদ। গত ১৩ জুন ক্লাবের উপদেষ্টা রুবেল আজীজের কাছে চিঠি পাঠিয়ে তিনি এ পদ ছাড়েন।

বোট ক্লাবের নির্বাহী কমিটির সদস্য ব্যবসায়ী নাসির ইউ মাহমুদ বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।

নাসির বলেন, বোট ক্লাবের সভাপতির দায়িত্বে থাকা বেনজীর আহমেদ ক্লাবের উপদেষ্টা রুবেল আজীজের কাছে চিঠি দিয়ে জানিয়েছেন, জরুরি কাজে পরিবারের সঙ্গে তিনি দেশের বাইরে আছেন। যে কারণে তিনি ক্লাবের সভাপতির দায়িত্ব পালন করতে পারছেন না।

নাসির জানান, বেনজীর আহমেদের পদত্যাগের পর রুবেল আজীজকে ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) সাবেক আইজিপি বেনজীর আহমেদের ও তার পরিবারের সম্পদ অনুসন্ধান করছিল। তার মধ্যেই গত ৪ মে তিনি সপরিবার দেশ ছাড়েন। তিনি ২০২০ সালের এপ্রিল থেকে ২০২২ সালের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত আইজিপি এবং ২০১৫ সালের জানুয়ারি থেকে ২০২০ সালের এপ্রিল পর্যন্ত র‍্যাবের মহাপরিচালক ছিলেন বেনজীর। তিনি ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার হিসেবেও দীর্ঘ সময় দায়িত্ব পালন করেন।

;

ফেনীতে বজ্রপাতে অন্তঃসত্ত্বা নারীর মৃত্যু, ঝড়ে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ফেনী
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

ফেনীতে দশ মিনিটের কালবৈশাখী ঝড়ে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এ সময় বজ্রপাতে রোকসানা আক্তার নামের অন্তঃসত্ত্বা এক গৃহবধূর মৃত্যু হয়েছে। এছাড়াও আহত হয়েছেন আরও তিনজন। ঝড়ের কবলে পড়ে মারা গেছে চারটি গবাদিপশু। বিভিন্ন স্থানে গাছপালা উপড়ে পড়ে বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়ে বেশ কয়েকটি এলাকা। নিহত রোকসানা ছাগলনাইয়া উপজেলার শুভপুর ইউনিয়নের উত্তর মন্দিয়া গ্রামের বাসিন্দা।

শনিবার (১৫ জুন) জেলার ছাগলনাইয়া ও ফুলগাজী উপজেলায় এসব ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ঝড়ের মধ্যে মাঠে গরু আনতে গিয়ে বজ্রপাতে রোকসানা আক্তারের মৃত্যু হয়। একইসময় বজ্রপাতে ফুলগাজী উপজেলার মুন্সীরহাট ইউনিয়নের সীমান্তবর্তী উত্তর জামমুড়া এলাকায় মা-মেয়েসহ তিনজন আহত হয়েছেন। তারা হলেন- ওই এলাকার মো. আনোয়ার হোসেনের স্ত্রী সামছুন্নাহার (৪২), মেয়ে এইচএসসি পরীক্ষার্থী ফারহানা আক্তার (২১) এবং ভগ্নিপতি মোহাম্মদ মোস্তফা (৫২)।

আহতদের স্বজন মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, বজ্রপাতে আহত হয়ে আমার মেয়ে ও স্ত্রী ফেনী জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। আহত ভগ্নিপতি জামমুড়া গ্রামের বাড়িতে রয়েছে।

এ ছাড়া বজ্রপাত-ঝড়ে ফুলগাজী ও ছাগলনাইয়ায় চারটি গবাদিপশুর মৃত্যু হয়েছে। তারমধ্যে দুপুরে গাছের নিচে চাপা পড়ে ফুলগাজীর বাশুড়া গ্রামে একটি গরু, কোরবানির হাটে নেওয়ার পথে ফুলগাজী বাজারে একটি, বজ্রপাতে মুন্সীরহাট ইউনিয়নের নোয়াপুর গ্রামে একটি গরু ও ছাগলনাইয়ায় একটি মহিষ মারা গেছে।

ফুলগাজীর মুন্সিরহাট এলাকার কৃষক মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, অনেক কষ্ট করে কোরবানির ঈদে বিক্রির জন্য গরুটি লালনপালন করেছিলাম। ফুলগাজী বাজারে বিক্রির জন্য বের হলে পথিমধ্যে বৃষ্টি আসলে রাস্তার পাশে গরুটি রেখে আমি পাশে দাঁড়িয়েছিলাম। এমন সময় হঠাৎ বাতাসে গাছ ভেঙে গরুর উপর পড়ে।

এদিকে ঝড়ো হাওয়ায় গাছপালা উপড়ে পড়ে জেলার ফুলগাজী, পরশুরাম ও ছাগলনাইয়া সড়কে যানচলাচল বন্ধ ছিল। এ সময় ফুলগাজী মহিলা কলেজ সংলগ্ন সড়কে গাছ উপড়ে পড়ে ৫-৭টি দোকান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ঝোড়ো হাওয়ায় বিদ্যুৎ লাইন ও ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

ছাগলনাইয়া ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের স্টেশন কর্মকর্তা মিরাজুল ইসলাম বলেন, ঝড়ে ছাগলনাইয়ার কালাপুল থেকে রেজুমিয়া পর্যন্ত অন্তত অর্ধশত গাছ উপড়ে ও ভেঙে পড়ে। এতে যানচলাচল বন্ধ হয়ে যায়। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস ঘটনাস্থলে গিয়ে কাজ শুরু করে যানচলাচল স্বাভাবিক করে।

ফুলগাজী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. খোরশেদ আলম বলেন, দুপুরে ৬ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। বৃষ্টির পরিমাণ কম হলেও ঝড়ে বাতাসের বেগ বেশি ছিল। কোথাও কোথাও ভারি বজ্রপাতও হয়েছে।

সায়েম চৌধুরী নামে একজন বলেন, বৃষ্টি হচ্ছিল সাথে বজ্রপাত হয়েছে। ঝড়ো বাতাস ছিলনা। হঠাৎ করে ঝড়ো বাতাস শুরু হয় যা সর্বোচ্চ ১০ মিনিট স্থায়ী ছিল। এরমধ্যে এলাকার বেশ কয়েকটি স্থানে গাছ উপড়ে পড়েছে। বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন অবস্থায় রয়েছি।

ফুলগাজী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হারুন মজুমদার বলেন, উপজেলার বিভিন্ন স্থানে বেশকিছু ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তারমধ্যে বসন্তপুর, বাশুড়া এলাকায় ১৫টির মতো ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এ ছাড়া লাইনে গাছ পড়ে বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। সড়কে যান চলাচল স্বাভাবিক করতে ফায়ার সার্ভিস ও বন বিভাগের লোকজন কাজ করেছে। ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করবো।

ফেনী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজার হাওলাদার মো. ফজলুর রহমান বলেন, ঝড়ে ছাগলনাইয়া, পরশুরাম ও ফুলগাজীতে বিদ্যুৎ লাইনে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। অনেক এলাকা এখনো বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। সংযোগ স্বাভাবিক করতে কাজ চলছে।

;

প্রস্তুত সাভারের চামড়া শিল্প নগরী, লক্ষ্যমাত্রা ১ কোটি ১০ লাখ পিস



মো. কামরুজ্জামান স্টাফ করেসপন্ডেন্ট বার্তা২৪.কম, সাভার (ঢাকা)
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

ঈদ-উল-আযহাকে কেন্দ্র করে ঢাকার সাভারের চামড়া শিল্পনগরীতে চলছে শেষ সময়ের প্রস্তুতি। কারখানাগুলোতে চলছে ধোয়া মুছার কাজ। প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে বিসিক ও কেন্দ্রীয় বর্জ্য শোধনাগার (সিইটিপি) কর্তৃপক্ষ। বাংলাদেশ ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশন জানিয়েছে, এ বছর ১ কোটি ১০ লাখ পিস চামড়া সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা নেওয়া হয়েছে।

শনিবার (১৫ জুন) সাভারের তেঁতুলঝোড়া ইউনিয়নের হরিণধরা এলাকায় বিসিক চামড়া শিল্প নগরীতে ঘুরে দেখা যায়, কারখানাগুলোতে জোর প্রস্তুতি চলছে। কোনো কারখানায় আনা হচ্ছে লবণ। কোথাও আনা হচ্ছে কেমিক্যাল। আবার কোথাও মেশিনারিজগুলো পরীক্ষা করে নেওয়া হচ্ছে। কারখানা ও সড়কের পাশে বর্জ্য যেমন সরিয়ে ফেলা হচ্ছে। তেমনই পানি নিষ্কাশনের নালাও পরিষ্কার করা হচ্ছে।

অন্যদিকে কর্তৃপক্ষ সিইটিপির মেশিনারিজ রক্ষণাবেক্ষণের কাজ করেছে বলে জানায়। বিসিক কর্তৃপক্ষ এরইমধ্যে চামড়া সংগ্রহের জন্য ৫০ জনের স্বেচ্ছাসেবক দল ঠিক করেছে।

বাংলাদেশ ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিটিএ) সাধারণ সম্পাদক শাখাওয়াত উল্ল্যাহ বলেন, গরু, ছাগল, মহিষ, ভেড়া মিলিয়ে আমরা এ বছর ১ কোটি থেকে ১ কোটি ১০ লাখ পিস চামড়া সংগ্রহের লক্ষ্য নিয়েছি। এ বছর লবণের দামও অনেকটা আয়ত্ত্বে রয়েছে। এ বছর আশংকার বিষয় হচ্ছে, গরম। যেহেতু কোরবানির মৌসুম গরমে পড়েছে আর এবছর গরমও বেশি তাই যারা সারাদেশে চামড়া সংগ্রহ করবেন তারা যথাযথ নিয়ম মেনে চামড়া সংরক্ষণ করবেন, তাহলে চামড়ার ন্যায্য মূল্য পাবেন। এছাড়া সিইটিপির অবস্থা পূর্বের যেকোন সময়ের চাইতে ভালো।

চামড়া শিল্পনগরীর প্রস্তুতির বিষয়ে সাভারের বিসিক চামড়া শিল্প নগরীর নির্বাহী প্রকৌশলী মো. মাহফুজুর রহমান রিজোয়ান বলেন, এবারের কোরবানির ঈদে আমরা শিল্প নগরীতে মোট ৬ লাখ চামড়া সংগ্রহ করার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এছাড়া আমাদের চামড়া শিল্পনগরের পার্শ্ববর্তী যে আড়ৎ রয়েছে, সেখানেও ৬ লাখ পিস সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা নেওয়া হয়েছে বলে আমরা জানতে পেরেছি। চামড়া শিল্প নগরীতে চামড়া প্রবেশ যাতে সুষ্ঠুভাবে হয়, সেজন্য আমরা ৫০ জনের অধিক স্বেচ্ছাসেবকের একটি দল গঠন করেছি। ঈদের দিন বিকাল তিনটা থেকে কাজ করা শুরু করবে। আশা করছি এ সময় আমাদের চামড়া সংগ্রহ করা আমাদের চামড়া সংগ্রহ করা ও চামড়া প্রসেস করা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হবে।

ঢাকা ট্যানারি ইন্ডাস্ট্রিয়াল এস্টেট ওয়েটেজ ট্রিটমেন্ট প্লান্ট কোম্পানি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. গোলাম শাহনেওয়াজ বলেন, আমরা কোরবানির জন্য ব্যাপকভাবে প্রস্তুতি নিয়েছি। পাশাপাশি বছরই আমাদের প্রস্তুতি থাকে। আমাদের কমন ক্রোম রিকভারি ইউনিট (সিসিআরইউ) গত এক বছর বন্ধ ছিল। তবে গত ফেব্রুয়ারিতে এটির ক্রোম সেপারেশন সেকশনের ৫০% আমরা চালু করেছি। আগামী এক মাসের মধ্যে বাকি ৫০% চালু হয়ে যাবে।

তিনি বলেন, প্রতিবছর আমাদের যে ওভারহোলিং করা হয়, কোরবানির সময় এটি এ বছর আরও ব্যাপকভাবে করা হচ্ছে। আমাদের ইপিএস ১, ২ ও ৩ থেকে শুরু করে ইকুলেশন, ইফ্লুয়েন্ট পাম্পিং স্টেশন, থিকিনিং ট্যাংক সবই আমরা প্রস্তুত রেখেছি যাতে আমাদের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি পায়।

ঢাকা জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আনিসুর রহমান বলেন, এ বছর চামড়া সংরক্ষণে ঢাকা জেলা প্রশাসন ব্যতিক্রম উদ্দ্যোগ নিয়েছে। এটির মূল কার্যক্রম মানুষকে সচেতন করা। ঢাকার দুই সিটির ২০ গরুর হাঁটে বিসিকের সঙ্গে সমন্বয় করে জেলা প্রশাসন স্টল দিয়ে জেলা প্রশাসন লিফলেট বিতরণ করছে। রোভার স্কাউট, আমাদের কর্মচারীসহ সবাই চামড়া কিভাবে ছাড়াতে হবে, কিভাবে লবন দিতে হবে সে বিষয়ে প্রচার করছেন।

তিনি বলেন, চামড়া পরিবহনের জন্যও ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। ঘণ্টায় ঘণ্টায় চামড়ায় মান কমতে থাকে। ফলে চামড়া পরিবহনকারী যানগুলোকে সড়কে যাতে যানজটের কবলে না পড়তে না হয়, ও চামড়া যাতে দ্রুত সংরক্ষণাগারে পৌঁছানো যায়, সেজন্য পোস্তায় বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। আর সাভার চামড়া শিল্পনগরীতেও ওসি ও ইউএনওর সমন্বয়ে সেখানে যাতে কোনো যানজট না হয় সেজন্য ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।

;

চট্টগ্রামের অর্ধশতাধিক গ্রামে ঈদুল আজহা পালিত হবে রোববার



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, চট্টগ্রাম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

চট্টগ্রামের প্রায় ৬০ গ্রামে সৌদি আরবের সাথে মিল রেখে রোববার (১৬ জুন) পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপিত হবে। সাতকানিয়ার মির্জাখীল দরবার শরীফ ও চন্দনাইশের জাঁহাগিরিয়া শাহছুফি মমতাজিয়া দরবার শরীফের অনুসারীরা এ ঈদুল আজহা উদযাপন করবেন। ইতোমধ্যে ঈদের জামাত আদায়ে প্রস্তুতি শুরু করেছে দরবার শরীফ কর্তৃপক্ষ।

জানা যায়, সুফি সাধক মাওলানা মোখলেসুর রহমান (র.) ২০০ বছর আগে সৌদি আরবের সাথে মিল রেখে রোজা, ঈদুল ফিতর, ঈদুল আজহার নামাজ পালন করার নিয়ম প্রবর্তন করেন। তার সেই দেখানো পথে এখন পর্যন্ত এ নিয়ম মেনে আসছেন তার ভক্ত- অনুসারীরা।

দরবারের সূত্র জানায়, মির্জাখীল দরবার শরীফের খানকাহ মাঠে সকাল সাড়ে ৯টায় ঈদুল আযহার প্রধান জামায়াত অনুষ্ঠিত হবে। হজরত শাহ জাহাঁগীর শেখুল আরেফীন (কঃ), হজরত শাহ জাহাঁগীর ফখরুল আরেফীন (কঃ), হজরত শাহ জাহাঁগীর শমসুল আরেফীন (কঃ) এর পদাঙ্ক অনুসরণ করে বর্তমান সাজ্জাদানশীন হজরত শাহ জাহাঁগীর তাজুল আরেফীন (কঃ) এর তত্ত্বাবধানে উনারই জানশীন হজরত ইমামুল আরেফীন ড. মৌলানা মুহাম্মদ মকছুদুর রহমান নামাজে ইমামতি করবেন।

মির্জাখীল দরবার শরীফ সূত্রমতে, সাতকানিয়ার মির্জাখীল, এওচিয়ার গাটিয়াডাঙ্গা, আলীনগর, মাদার্শা, খাগরিয়া, মৈশামুড়া, পুরানগড়, বাজালিয়া, মনেয়াবাদ, চরতি, সুঁইপুরা, হালুয়াঘোনা, চন্দনাইশের কাঞ্চননগর, হারালা, বাইনজুরি, চরবরমা, কেশুয়া, কানাই মাদারি, সাতবাড়িয়া, বরকল, দোহাজারী, জামিরজুরি, বাঁশখালীর কালিপুর, চাম্বল, ডোংরা, শেখেরখীল, ছনুয়া, পুইছড়ি, আনোয়ারার বরুমছড়া, তৈলারদ্বীপ, বারখাইন, খাসখামা, কাঠাখালী, রায়পুর, গুজরা, লোহাগাড়ার পুঁটিবিলা, কলাউজান, চুনতী এবং সীতাকুন্ডের মাহমুদাবাদ, বারিয়াঢালা, বাঁশবাড়িয়া, সলিমপুর, মহালংকা, ফেনী, রাঙামাটি, কুমিল্লা, ঢাকা, মুহাম্মদপুর, মুন্সীগঞ্জ, কিশোরগঞ্জ, নরসিংদী, মনোহরদী, মঠখোলা, বেলাব, আব্দুল্লাহনগর, কাপাসিয়া, চাঁদপুর জেলার মতলব, সিলেট, হবিগঞ্জ, ফেঞ্চুগঞ্জ, সুনামগঞ্জ, নোয়াখালী, বরিশাল, পটুয়াখালী, ভোলা, মিরশরাই, পটিয়া, বোয়ালখালী, হাটহাজারী, হাতিয়া, সন্দ্বীপ, রাউজান ও ফটিকছড়ির কয়েকটি গ্রামসহ চট্টগ্রামসহ পার্শ্ববর্তী জেলাসমুহের শতাধিক গ্রামের বহুসংখ্যক অনুসারী আজ ঈদুল আজহা উদযাপন করবে।

সাতকানিয়ার মির্জাখীল দরবার শরিফের সৈয়্যদ মাওলানা আবদুর রহমান শাহ জাঁহাগিরী ও চন্দনাইশ কাঞ্চনাবাদ ইউনিয়নের জাঁহাগিরিয়া শাহসুফি মমতাজিয়া দরবারের শাহজাদা মাওলানা মো. মতি মিয়া মনসুর বলেন, আমরা হানাফী মাযহাবের অনুসারী হিসেবে বিগত দ্বিশতাধিক বছর ধরে ইয়াউমুল আরাফাহ বা পবিত্র হজ্জ্ব দিবসের পরের দিনই পবিত্র ঈদুল আজহা পালন করে আসছি। বৈজ্ঞানিক দৃষ্টিকোণ হতে চাঁদের অবস্থান এবং আজ হজ্জ্ব পালনের খবর সচিত্র অবগত হয়ে তথা এই বছর শায়খ মাহের আল মুয়াক্কিল কতৃর্ক প্রদত্ত হজ্জের খুতবা সরাসরি পবিত্র আরাফাতের মসজিদে নামিরা হতে দেখে-শুনেই দেশ-বিদেশে সিলসিলায়ে আলীয়া জাঁহাগীরিয়া, মির্জাখীল দরবার শরীফের অনুসারীগণ আগামীকাল রবিবার ঈদুল আজহা উদযাপন করবে।

;