সংসদ নির্বাচনে ১৯৬৯ প্রার্থী মধ্যে ১৪৫৪ জনের জামানত বাজেয়াপ্ত



জাহিদ রাকিব, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

চলতি বছরের ৭ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নির্বাচন কমিশন (ইসির) নিবন্ধিত দল হিসেবে ৪৪টি রাজনৈতিক দলের ২৮টি দল অংশগ্রহণ করে। এ নির্বাচনে ২৮ দলের সঙ্গে স্বতন্ত্র প্রার্থী মিলে এক হাজার ৯শ ৬৯ জন অংশগ্রহণ করেন। এর মধ্যে এক হাজার চারশ ৫৪ জন প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে বলে জানিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

এদিকে, ২৮টি রাজনৈতিক দলের মধ্যে ২৩ দলের কোনো প্রার্থী নির্বাচনে বিজয়ী হতে পারেননি।

প্রায় ৭৩ শতাংশ প্রার্থী তাদের জামানত রক্ষার জন্য ন্যূনতম ভোটও পাননি। রেকর্ড সংখ্যক প্রার্থীর সঙ্গে এবার নির্বাচনে অংশ নেওয়া রেকর্ড সংখ্যক দলও জামানত হারিয়েছে। ইসি সূত্রে জানা যায়, এবারের নির্বাচনে অংশ নেওয়া ২৮ দলের মধ্যে ২০ দলের প্রার্থীরা সবাই জামানত হারিয়েছেন।

৭ জানুয়ারির সংসদ নির্বাচনে বিএনপি ও যুগপৎ আন্দোলনে থাকা দল, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দল নির্বাচন বর্জন করে। বর্জন করা রাজনৈতিক দলের সংখ্যা ১৬টি।

ইসি সূত্রে জানা যায়, ৩০০ আসনের সংসদ নির্বাচনে অংশ নেওয়া বেশির ভাগ প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে। এই তালিকায় রয়েছে সরকারি দল আওয়ামী লীগ, সংসদে বিরোধীদল জাতীয় পার্টিসহ স্বতন্ত্র প্রার্থীরা প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে জামানত হারিয়েছেন।

বাজেয়াপ্ত তালিকা বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, সবচেয়ে বেশি প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে ঢাকা জেলা প্রার্থীদের। এখানে ১৩১ জন প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে। এসময় সরকারি কোষাগারে জমা হয়েছে দুই কোটি ৯০ লাখ ৮০ হাজার টাকা।

  • নির্বাচনে প্রার্থী- এক হাজার ৯শ ৬৯ জন
  • জামানত বাজেয়াপ্ত- এক হাজার চারশ ৫৪ জনের
  • সরকারি কোষাগারে টাকা জমা- দুই কোটি ৯০ লাখ ৮০ হাজার টাকা
  • নির্বাচনে নেওয়া ২৮ দলের ২৩ দলের কেনো প্রার্থী জিততে পারেননি

গত ২০১৮ সালের একাদশ সংসদ নির্বাচনেও রেকর্ডসংখ্যক প্রার্থী জামানত হারিয়েছেন। সেখানে ২৯৮ আসনে বিভিন্ন দল ও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে এক হাজার ৮৫৬ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। এর মধ্যে এক হাজার ৪২২ জন অর্থাৎ প্রায় ৭৭ শতাংশ (৭৬.৬১) প্রার্থীই জামানত হারান। তার মধ্যে ধানের শীষ প্রতীকে ২৫৬ আসনে বিএনপি প্রার্থীরা প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে জামানত হারান ১৫২ জন।

একাদশ সংসদের ৫৭ সদস্য পরাজিত
এবারের নির্বাচনে অংশ নেওয়া একাদশ সংসদের ৫৭ জন সংসদ সদস্য পরাজিত হয়েছেন। তাদের মধ্যে নয়জনের জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে। এর মধ্যে তিনজন এবার আওয়ামী লীগের মনোনয়ন না পেয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করেছেন। বাকি ছয়জনের তিনজন জাতীয় পার্টির, একজন বিকল্পধারা বাংলাদেশের, একজন গণফোরামের ও আরেকজন তরীকত ফেডারেশনের।

জামানত হারানো প্রার্থীরা হলেন, তৃণমূল বিএনপির চেয়ারম্যান সিলেট-৬ আসনের শমশের মবিন চৌধুরী। চট্টগ্রাম-২ আসনে তরীকত ফেডারেশনের চেয়ারম্যান সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভাণ্ডারী, মুন্সীগঞ্জ-২ থেকে বিকল্পধারা দলের প্রার্থী মাহি বি চৌধুরী। সিলেট-২ আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য ও গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি মোকাব্বির খান, নেত্রকোনা-৫ আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী অধ্যাপক আনোয়ার হোসেন, বিএনপি থেকে বহিষ্কৃত কিশোরগঞ্জ-২ আসনে মেজর (অব.) আখতারুজ্জামান।

এছাড়া এই তালিকায় আরো রয়েছেন, চাঁদপুর-৪ আসনে বিএনএমের মহাসচিব ড. মোহাম্মদ শাহজাহান, ঢাকা-১৮ আসনে জাতীয় পার্টির শেরিফা কাদের, পাবনা-২ আসনে বিএনএম–এর প্রার্থী সংগীতশিল্পী ডলি সায়ন্তনী, রাজশাহী-১ আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহি। রাজশাহী-৬ আসনে জাতীয় পার্টির শামসুদ্দিন রিন্টু। নাটোর-৩ আসনে জাতীয় পার্টির আনিসুর রহমান। কুমিল্লা-২ আসনে বাংলাদেশ সুপ্রিম পার্টির আবদুছ ছালাম। কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের আব্দুল্লাহ আল মামুন।

এছাড়া, চট্টগ্রাম-১০ আসনে ১০ প্রার্থী অংশ নিয়ে আটজন প্রার্থী জামানত হারিয়েছেন। মুন্সীগঞ্জ-৩ আসনে ১০ প্রার্থীর মধ্যে জামানত হারান আটজন। ঢাকা-৮ থেকে ১১ জন প্রার্থী হয়ে ১০ জনই জামানত হারান। ঢাকা-১৪ আসনে ১৪ প্রার্থী অংশ নিয়ে ১২ জনই জামানত হারান।

জামানত বাজেয়াপ্তের বিষয়ে ইসি কর্মকর্তা জানান, নির্বাচনি আইন অনুযায়ী, প্রদত্ত ভোটের আট ভাগের এক ভাগ না পেলে ওই প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত হয়।

গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ (আরপিও) অনুসারে, মনোনয়নপত্র কেনার সময় একজন প্রার্থীকে জামানত হিসাবে ২০ হাজার টাকা নির্বাচন কমিশনে জমা রাখতে হয়। প্রদত্ত ভোটের আট ভাগের এক ভাগ বা তার বেশি ভোট পেলে জামানত হিসাবে রাখা ২০ হাজার টাকা ফেরত দেওয়া হয়। নির্বাচনে সংশ্লিষ্ট আসনে প্রদত্ত ভোটের আট ভাগের এক ভাগ ভোট কোনো প্রার্থী যদি না পান, তা হলে তার জামানত বাজেয়াপ্ত হয়ে যায়।

বিগত নির্বাচনগুলোতে যত প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত
নির্বাচন কমিশনের ১৯৯১ সাল থেকে ২০১৮ সাল থেকে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পরিসংখ্যান প্রতিবেদন অনুযায়ী- ২০১৪ সালের নির্বাচনে ১৫৩ আসনের প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজয়ী হন। সেই নির্বাচনে ১৪৭ আসনে ৩৯০ জন প্রার্থী মধ্যে ১৬৩ জন জামানত হারান।

২০০৮ সালের নির্বাচনে মোট এক হাজার ৫৫৭ প্রার্থীর মধ্যে ৯৪১ জন জামানত হারান। তার আগে ২০০১ সালের নির্বাচনে এক হাজার ৯৩৯ জন প্রার্থীর মধ্যে এক হাজার ২৫৯ জন, ১৯৯৬ সালের ১২ জুনে নির্বাচনে দুই হাজার ৫৭৪ জন প্রার্থীর মধ্যে এক হাজার ৭৬০ জন, ১৯৯১ সালের নির্বাচনে দুই হাজার ৭৮৭ প্রার্থীর মধ্যে এক হাজার ৯৩৪ জন জামানত হারান।

২০১৮ সালের নির্বাচন এক হাজার ৮৫৬ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। তার মধ্য থেকে এক হাজার ৪২২ প্রার্থী জামানত হারান। এছাড়া ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারির নির্বাচনে বিএনপি ছাড়া মাত্র একটি দল নির্বাচনে অংশ নেয়। ১২ দিনের সংসদের মেয়াদের এই নির্বাচনের বিস্তারিত কোনো প্রতিবেদন প্রকাশ করেনি ইসি।

   

ক্ষমতা দখলের পর আ.লীগ ইতিহাসও দখল করেছে: আমীর খসরু



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করে আওয়ামী লীগ এখন ইতিহাসকেও দখল করছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী।

তিনি বলেন, ক্ষমতাসীনরা তাদের মনগড়া ইতিহাসকে বাস্তবায়নের জন্য রাষ্ট্রযন্ত্রকে ব্যবহার করছে। বিচার বিভাগকে হাত করে তাদের মনগড়া ইতিহাস ব্যাখ্যা করছে। রাজনীতিবিদরা ইতিহাসবিদ হলে তা আর ইতিহাস হয় না, হয় প্রপাগান্ডা।

বুধবার (১৭ এপ্রিল) দুপুরে ১০ এপ্রিলকে প্রজাতন্ত্র দিবস ঘোষণার দাবিতে জাতীয় প্রেস ক্লাবে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জেএসডি) আয়োজিত এক আলোচনা সভায় এ মন্তব্য করেন আমীর খসরু।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির এই সদস্য বলেন, উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীক বাদ দিলেও আওয়ামী লীগ সরকার ভোট চুরির প্রকল্প থেকে সরে আসেনি। ভোট চুরি প্রকল্প তাদের ক্ষমতার উৎস। নৌকা নিয়ে জনগণের সামনে যাওয়ার সাহস সরকারের আর নেই। ৭ জানুয়ারির নির্বাচনে ৯৫ শতাংশ মানুষ ভোট কেন্দ্রে যায়নি। ভোট বলে আর কিছু নেই।

তিনি আরও বলেন, নির্বাচনের আগে বিএনপিকে ভাঙার সবরকম চেষ্টা করা হয়েছে, কিন্তু বিএনপির ঐক্য অটুট আছে। বিএনপি নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা, হামলা, জেল সব কিছু করে অপদস্থ করা হয়েছে, তবুও ঐক্য ভাঙতে পারেনি।

;

রামগঞ্জ উপজেলা নির্বাচন

সমঝোতা বৈঠকে সাদা কাগজে ৯ প্রার্থীর সই নিলেন এমপি: সমালোচনার ঝড়



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, লক্ষ্মীপুর
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সমঝোতা বৈঠক ডেকে তিন কোটি টাকার বিনিময় করিয়ে ৯ প্রার্থী থেকে একক প্রার্থী করানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে রামগঞ্জ স্থানীয় সংসদ সদস্যের বিরুদ্ধে।

লক্ষ্মীপুর-১ (রামগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ার হোসেন খানের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ উত্থাপিত হয়েছে। এ ঘটনার পর ব্যাপক সমালোচনার কবলে পড়েছেন তিনি।

রামগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে ৫ জন চেয়ারম্যান ও ৪ জন ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীদের নিয়ে এমন একটি সমঝোতা বৈঠকে মধ্যস্থতা করে ব্যাপক সমালোচনার কবলে পড়েছেন ওই সংসদ সদস্য। অভিযোগ পাওয়া গেছে, সাদা কাগজে প্রার্থীদের সই নিয়ে একক প্রার্থী ঘোষণা করা হয়েছে। এ নিয়ে স্থানীয়ভাবে ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয়েছে।

এ বিষয়ে খোদ সংসদ সদস্য আনোয়ার হোসেন খানের বড় ভাই চেয়ারম্যান প্রার্থী আখতার হোসেন খান নির্বাচনে হস্তক্ষেপের বিরুদ্ধে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছেন। এ ঘটনা জানাজানি হলে একাধিক প্রার্থী ও তৃণমূলের নেতাকর্মীরা ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করছেন।

এর আগে রামগঞ্জ শহরে জেলা পরিষদের ডাকবাংলোতে রোববার (১৪ এপ্রিল) রাতে টানা ৭ ঘণ্টা এ বিষয়ে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

যদিও এমপি-মন্ত্রীরা যেন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে হস্তক্ষেপ, প্রভাব বিস্তার না করেন, সে জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের একাধিকবার নির্দেশ ও বিবৃতি দিয়েছেন।

সমঝোতা বৈঠকে অংশ নেওয়া ১০ জন নেতা বার্তা২৪.কমের কাছে অভিযোগ করেছেন, একক প্রার্থীর করার স্বার্থে সংসদ সদস্য আনোয়ার হোসেন খান সেখানে উপস্থিত ৯ প্রার্থীর কাছ থেকে সাদা কাগজে সই নেন। এসময় পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বেলাল আহমেদসহ ৬ নেতাকে দায়িত্ব দেওয়া হয়। এরপর সেখানে চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীদের বক্তব্য শোনা হয়।

তখন নির্বাচনে ৩ কোটি টাকা খরচ করবেন বলে জানালে দেলোয়ার হোসেন দেওয়ান বাচ্চুকে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

প্রত্যক্ষদর্শী ও দলীয় সূত্র জানায়, আনোয়ার হোসেন খান রোববার (১৪ এপ্রিল) সন্ধ্যায় রামগঞ্জ শহরে জেলা পরিষদের ডাকবাংলোতে দলের সিনিয়র নেতা ও উপজেলা নির্বাচনের প্রার্থীদের বৈঠক ডাকেন। এতে বিভিন্ন এলাকা থেকে নেতাকর্মীরা জড়ো হতে থাকেন। রাত ৮ টার দিকে এমপি সেখানে আসেন।

একক প্রার্থীর করার স্বার্থে সংসদ সদস্য আনোয়ার হোসেন খান সেখানে উপস্থিত ৯ প্রার্থীর কাছ থেকে আগে সাদা কাগজে সই নেন। একপর্যায়ে যারা প্রার্থী নন এমন ৬ জন নেতাকে তিনি প্রার্থী নির্বাচনের দায়িত্ব দেন। এরা হলেন, আওয়ামী লীগ নেতা আবদুস সাত্তার, বেলাল আহমেদ, এম এ মমিন পাটওয়ারী, সফি উল্যা, শামছুদ্দিন, সফিক মিয়া।

পরে সংসদ সদস্য আনোয়ার হোসেন ও দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা একে একে প্রার্থীদের অর্থনৈতিক সক্ষমতা নিয়ে কথা বলেন। কে কত টাকা ব্যয় করতে পারবেন, তা নিয়ে চলে খোলামেলা আলোচনা। সে সময় চেয়ারম্যান প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন দেওয়ান বাচ্চু উপজেলা নির্বাচনে ৩ কোটি টাকা ব্যয় করবেন জানালে তাকে একক প্রার্থী ঘোষণা করা হয়।

সেখানে চেয়ারম্যান প্রার্থী আ ক ম রুহুল আমিন, শহিদ উল্যা, নুরুল ইসলাম, তাহসান আহমেদ রাসেলও উপস্থিত ছিলেন। ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী রাকিবুল হাসান মাসুদ, মোস্তাফিজুর রহমান সুমন ভূঁইয়া, সুরাইয়া আক্তার শিউলীও সভায় ছিলেন। রাত ৮টা থেকে ২টা পর্যন্ত টানা এ সভা চলে।

প্রসঙ্গত, ওই সভায় চেয়ারম্যান প্রার্থী জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ইমতিয়াজ আরাফাতকে ডাকা হয়নি।

কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি তাহসান আহমেদ রাসেল বার্তা২৪.কমের কাছে অভিযোগ করে বলেন, সংসদ সদস্য সাদা কাগজে আমাদের ৫ চেয়ারম্যান প্রার্থীর সই নিয়েছেন। এটি দলীয় নির্বাচনি নির্দেশনার সঙ্গে সাংঘর্ষিক। নির্বাচন করলে কত টাকা খরচ করতে পারবো তারা জানতে চাইলে আমি দেড় কোটি টাকার কথা বলেছি।

সংসদ সদস্য আনোয়ার হোসেন খানের বড় ভাই মো. আখতার হোসেন খান বলেন, আনোয়ার হোসেন নির্বাচনের প্রার্থিতা বিষয়ে হস্তক্ষেপ করেছে। আমিও তাকে সতর্ক করে দিয়েছি। কিন্তু তার লোকজনের হুমকির মুখে আমি এলাকায় যেতে পারছি না।

উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল হাসান মাসুদ বলেন, বৈঠকে ৩ ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীর সই নেওয়া হয়েছে। সেখানে নির্বাচন থেকে বিরত থাকার জন্য বুঝিয়ে আমাকে ১০ লাখ টাকা দেওয়ার জন্য বলেছেন। আমি প্রত্যাখ্যান করেছি। পরীক্ষিত সাবেক ৩ ছাত্র নেতার প্রার্থী থাকার পরও সংসদ সদস্য আনোয়ার হোসেন খান পদ, পদবিহীন টাকাওয়ালা একজনকে কথিত সমর্থন দিয়েছেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে পৌর ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র ৩ নেতা জানান, নির্বাচন করার জন্য দল সবার জন্য উম্মুক্ত করে দিয়েছে। সংসদ সদস্য নির্বাচনে নিজের প্রভাব বিস্তারের জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছেন। দলের সিদ্ধান্ত অমান্য করে তিনি টাকার বিনিময়ে একক প্রার্থী ঘোষণা করছেন। এতে সাংগঠনিক শৃঙ্খলা ভঙ্গ হয়েছে।

সংসদ সদস্যের বক্তব্য জানতে আনোয়ার হোসেন খানের মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল করা হলেও তার ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

তবে সংসদ সদস্যের স্থানীয় সমন্বয়কারী পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বেলাল আহমেদ বলেন, নির্বাচনে কার কী অবস্থান, কার কী আর্থিক অবস্থা, প্রার্থীদের সক্ষমতাকে নিয়ে নিজেদের মধ্যে প্রাথমিক অলোচনা হয়েছে। এটি দলের আনুষ্ঠানিক কোনো সভা ছিল না। নিজেদের মধ্যে ঘরোয়া আলোচনা হয়েছে। কাউকে চাপিয়ে দেওয়া বা বাধ্য করা হয়নি।

এ ব্যাপারে লক্ষ্মীপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম ফারুক পিংকু এমপি বলেন, চেয়ারম্যান পদের দাম ৩ কোটি টাকা উঠেছে, রামগঞ্জের কয়েকজন আমাকে এ কথা জানিয়েছেন। এবার একক প্রার্থী ঘোষণা, সমর্থক দেওয়ার কোনো সুযোগ নেই। আনোয়ার খান দলের নির্দেশনা ভঙ্গ করেছেন। কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে বিষয়টি জানাবো আমি।

রামগঞ্জে দ্বিতীয় ধাপে ২১ মে উপজেলা নির্বাচনে ভোটগ্রহণ হওয়ার কথা রয়েছে।

;

সরকারই ইলিয়াস আলীকে গুম করেছে: রিজভী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, এই সরকারই ইলিয়াস আলীকে গুম করেছে এটা জনগণের সামনে স্পষ্ট। কর্তৃত্ববাদী শেখ হাসিনা সরকারের বিরুদ্ধে আপোষহীন সংগ্রাম আর টিপাইমুখ বাঁধ ও সীমান্ত আগ্রাসনের প্রতিবাদে সিলেট অঞ্চলে গড়ে উঠা গণ আন্দোলনে নেতৃত্বের কারণে ইলিয়াস আলী রাষ্ট্রযন্ত্র ও দেশি-বিদেশি অপশক্তির গাত্রদাহের প্রধান কারণ ছিল।

তিনি বলেন, বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক, সিলেট জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি, সাবেক সংসদ সদস্য এম ইলিয়াস আলীকে ফিরে পাওয়ার অধীর অপেক্ষায় আজও প্রহর গুনছেন তার স্ত্রী, সন্তান, পরিবারসহ দেশের অগণিত নেতাকর্মী।

বুধবার (১৭ এপ্রিল) রাজধানীর নয়াপল্টনে আয়োজিত এক ব্রিফ্রিংয়ে এসব কথা বলেন তিনি।

রুহুল কবির রিজভী বলেন, ইলিয়াস আলীর গুমের আজ ১২ বছর পূর্ণ হলো। শেখ হাসিনা সরকারের নির্দেশে ২০১২ সালের ১৭ এপ্রিল মধ্যরাতে রাজধানী বনানীর ২ নম্বর সড়কের সাউথ পয়েন্ট স্কুল অ্যান্ড কলেজের সামনে থেকে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা গাড়িচালক আনসার আলীসহ তুলে নিয়ে যায় ইলিয়াস আলীকে। এরপর গাড়িটি পাওয়া গেলেও হদিস মেলেনি তাদের।

তিনি বলেন, ইলিয়াস আলী আধিপত্যবাদের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে ছিলেন। ইলিয়াস আলীর জনপ্রিয়তা ও সাংগঠনিক দক্ষতায় ঈর্ষান্বিত সরকার রাজনৈতিকভাবে মোকাবিলায় ব্যর্থ হয়ে তাকে গুম করে রেখেছে। ইলিয়াস আলীকে গুম করার পর সরকার বহুবিধ নাটক সাজিয়েছে। ওই সময় তার বিরুদ্ধে অশোভন কথা লিখে দেয়ালে পোস্টার সাঁটিয়েছিল সরকারের এজেন্টরা। গুমের ঘটনার পর তার স্ত্রীকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে খুদে বার্তা পাঠিয়ে শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাতের আয়োজন এবং ইলিয়াস আলীকে খুঁজে বের করার আশ্বাস ছিল লোক দেখানো। কারণ ওই সময় বিএনপির পাঁচ দিন হরতাল ছিল। আর বিএনপির সে হরতাল ও আন্দোলনকে বন্ধ করার জন্যই ছিল ওই মিথ্যা আশ্বাস। গুম হওয়ার পরে থানায় জিডি করা হয়, কোর্টে মামলা করা হয়। এরপরও তাকে ফিরিয়ে দেননি শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, ইলিয়াস আলীর সন্ধানে দেশের বিভিন্ন স্থানে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীকে অভিযান চালানোর হাস্যকর নাটক করতে দেখা যায়। উচ্চ আদালতে করা ইলিয়াস আলীর স্ত্রী তাহসীনা রুশদীর লুনার রিট আবেদনের শুনানিও আটকে দেয় সরকার। অর্থাৎ অদৃশ্য হওয়া নাগরিককে ফেরত দেয়ার উচ্চ আদালতের নির্দেশনাকে বাধাগ্রস্ত করে সরকার। সুতরাং ইলিয়াস আলীসহ সকল গুম রাষ্ট্রের পৃষ্ঠপোষকতায় হয়েছে। বেআইনি গুম—খুনের উৎসব পালন করে যাচ্ছেন শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, মিথ্যা মামলায় অন্যায়ভাবে সাজাপ্রাপ্ত বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির সহ-স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল কাদির ভুইয়া জুয়েল। তিনি আজ আদালতে জামিন আবেদন করলে তার জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে প্রেরণের ঘটনায় আমি গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করছি। তার মিথ্যা মামলা ও সাজা প্রত্যাহারসহ অবিলম্বে নিঃশর্ত মুক্তির আহ্বান জানাচ্ছি।

;

লক্ষ্মীপুরে ছাত্রলীগের চার নেতাকে গুলি: স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতাসহ কারাগারে ৩



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, লক্ষ্মীপুর
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

লক্ষ্মীপুরের চন্দ্রগঞ্জে ছাত্রলীগের চার নেতাকে গুলির ঘটনায় স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতাসহ ৩ জনকে আটকের পর কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) দুপুরে তাদেরকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করা হয়।

তারা হলেন- থানা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সদস্য সচিব তাজুল ইসলাম ভূঁইয়া, পাঁচপাড়া গ্রামের মৃত নুরুল ইসলামের ছেলে ফারুক হোসেন (২৭) ও একই গ্রামের আবুল কাশেমের ছেলে রেজাউল করিম প্রকাশ বাবু।

এর আগে ঘটনার ৩ দিন পর সোমবার (১৫ এপ্রিল) রাতে ভিকটিম এম. সজীবের মা পাঁচপাড়া গ্রামের মৃত সিরাজ মিয়ার স্ত্রী বুলি বেগম বাদী হয়ে থানা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক কাজী মামুনুর রশিদ বাবলু ও সদস্য সচিব তাজুল ইসলাম ভূঁইয়াসহ ১১ জনের নাম উল্লেখ করে ও অজ্ঞাত আরো ১৮/২০ জনসহ মোট ৩১ জনের বিরুদ্ধে চন্দ্রগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেন।

পুলিশ ও এজাহার সূত্রে জানা যায়, গত ১২ এপ্রিল (শুক্রবার) রাত দেড়টার দিকে চন্দ্রগঞ্জ থানাধীন পাঁচপাড়া গ্রামের ছাত্রলীগ নেতা এম. সজীব, সাইফুল পাটোয়ারী, সাইফুল ইসলাম জয়, মো. রাফি, তারেক হোসেন ও রাসেদসহ ৬জন মোটরসাইকেলযোগে স্থানীয় একটি ওয়াজ মাহফিল থেকে চন্দ্রগঞ্জ থানা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এম. মাসুদকে চন্দ্রগঞ্জ বাজারে পৌঁছে দিয়ে বাড়ি ফিরছিল। এসময় এম. সজীবসহ অন্যান্যরা পাঁচপাড়া গ্রামের যৌদের পুকুর পাড় এলাকায় পৌঁছলে পূর্ব থেকে ওঁৎপেতে থাকা সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা তাদের মোটরসাইকেলের গতিরোধ করে হামলা চালায়। এসময় সন্ত্রাসীরা কফিল উদ্দীন কলেজ ছাত্রলীগ নেতা এম. সজীবসহ ৪জনকে গুলি করে ও দুইজনকে কুপিয়ে আহত করে। আহতদের স্বজনরা ও এলাকাবাসী তাদের উদ্ধার করে লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। সেখানে এম. সজীব, সাইফুল পাটোয়ারী ও রাফির অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় রাতেই তাদেরকে ঢাকা মেডিকেলে প্রেরণ করা হয়।

মামলার বাদী বুলি বেগম জানান, মারাত্মক আহত এম. সজীবের অবস্থা এখনও আশঙ্কাজনক। তাকে আইসিইউতে রাখা হয়েছে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উপ-পুলিশ পরিদর্শক (এসআই) শাহিদ হোসাইন জানিয়েছেন, রাতের অন্ধকারে ছাত্রলীগের চার জনকে গুলি করে ও দুই জনকে কুপিয়ে আহত করার ঘটনায় ১১জন এজাহারনামীয়সহ মোট ৩১জনকে আসামি করে মামলা দায়ের হয়েছে। এর মধ্যে পুলিশ ২নং আসামি তাজুল ইসলাম ভূঁইয়াসহ ৩জনকে গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরণ করে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা এই হামলার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে।

এ ব্যাপারে চন্দ্রগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. এমদাদুল হক জানিয়েছেন, পূর্বপরিকল্পিতভাবে হত্যার উদ্দেশ্যে এম. সজীবসহ ছাত্রলীগ নেতাকর্মীর উপর হামলা চালানো হয়েছিল। গ্রেফতারকৃতদের জবানবন্দি এবং পুলিশের প্রাথমিক তদন্তে এর প্রমাণ পাওয়া গেছে।

পুলিশের এই কর্মকর্তা আরও বলেন- চাঞ্চল্যকর এই ঘটনার সাথে জড়িত সবাইকে গ্রেফতার করে দ্রুত আইনের আওতায় আনা হবে।

;