মন্ত্রী-এমপির স্বজনদের নির্বাচনে মানা ক্ষমতাসীনদের, অনড় প্রার্থীরা



রুহুল আমিন, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মন্ত্রী ও সংসদ সদস্যদের সন্তান ও নিকটাত্মীয়দের প্রার্থী না হওয়ার নির্দেশনা দিয়েছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ। তবে সে নির্দেশনা উপেক্ষা করে এখনো নির্বাচনি কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন মন্ত্রী, সংসদ সদস্যদের অনেক স্বজনেরা।

মন্ত্রী-সংসদ সদস্য ও প্রার্থীদের এ বিষয়ে তাগাদা দিতে দলীয় প্রধান শেখ হাসিনা সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকে নির্দেশনা দেন। সে নির্দেশনা অনুযায়ী গত বৃহস্পতিবার (১৮ এপ্রিল) ধানমন্ডির সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে দায়িত্বশীল যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও সাংগঠনিক সম্পাদকরা বৈঠক করেন। বৈঠকে আত্মীয়দের তালিকা করারও নির্দেশনা দিয়ে এই বার্তা সবার কাছে পৌঁছে দেওয়ার কথা বলা হয়।

তবে এমন কঠোর বার্তাও নির্বাচন থেকে সরাতে পারছে না প্রার্থীদের। প্রার্থীরা বলছেন, আমরা মন্ত্রী-এমপিদের রাজনীতি করি না। তাহলে আমাকে কেন এমপি সাহেবদের জন্য সরে দাঁড়াতে হবে? আমরা আমাদের যোগ্যতায় নিজেদের রাজনীতির মাঠ তৈরি করেছি কিন্তু আমার স্বজন কেউ এমপি বা মন্ত্রী হলেন বলেই আমি সব কিছু ছেড়ে দেব, এটা সম্ভব না।

মন্ত্রী-সংসদ সদস্যদের নিকটাত্মীয়দের বিষয়ে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছেন প্রায় দুই ডজনেরও অধিক স্বজন। তাদের মধ্যে আছেন, মাদারীপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য শাহজাহান খানের ছেলে আসিবুর রহমান খান, বগুড়া-১ আসনের সংসদ সদস্য সাহাদারা মান্নানের ছেলে মোহাম্মদ সাখাওয়াত হোসেন ও ছোট ভাই মিনহাদুজ্জামান ওরফে লিটন (তারা ভিন্ন ভিন্ন উপজেলায় চেয়ারম্যান প্রার্থী হয়েছেন), টাঙ্গাইল-১ আসনের সংসদ সদস্য ও সাবেক কৃষিমন্ত্রী মো. আব্দুর রাজ্জাকের খালাত ভাই, পিরোজপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য শ ম রেজাউল করিমের ছোট ভাই নূর-ই আলম, বরিশাল-১ আসনের সংসদ সদস্য আবুল হাসানাত আবদুল্লাহর ছোট ছেলে আশিক আব্দুল্লাহ, শরীয়তপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য ইকবাল হোসেন অপুর চাচাত ভাই বিল্লাল হোসেন নিপু।

এছাড়াও নরসিংদী-২ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ার আশরাফ খানের শ্যালক মো. শরিফুল হক, প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলকের শ্যালক লুৎফুল হাবীব রুবেল, মাগুরা-২ আসনের সংসদ সদস্য বীরেন শিকদারের ছোট ভাই বিমল শিকদার, সুনামগঞ্জ-৩ আসনে সংসদ সদস্য এম এ মান্নানের ছেলে শাহাদাত মান্নান, সুনামগঞ্জের সংরক্ষিত আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ও জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শামসুন্নাহার বেগমের ছেলে ফজলে রাব্বি, মানিকগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য জাহিদ মালেকের ফুপাত ভাই ইসরাফিল হোসেন, কুষ্টিয়া-৩ আসনের সংসদ সদস্য আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. মাহাবুব-উল আলম হানিফের চাচাত ভাই আতাউর রহমান, নোয়াখালী-৬ আসনের সংসদ সদস্য মোহাম্মদ আলীর ছেলে আতিক আলী অমি, এমপি মোহাম্মদ আলীর স্ত্রী ও সাবেক এমপি আয়েশা আলীও উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছেন।

আবার নোয়াখালী-৪ আসনের সংসদ সদস্য মোহাম্মদ একরামুল করিম চৌধুরী এক জনসভায় গিয়ে তার ছেলের পক্ষে দেওয়া বক্তব্য হয়েছে ভাইরাল। সেখানে তিনি বলেছেন, নোয়াখালীর সুবর্ণচরে তার ছেলেকে ভোট না দিলে উন্নয়নকাজ করবেন না তিনি। তার ছেলে আতাহার ইশরাক শাবাব চৌধুরী সুবর্ণচর সদর উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছেন।

স্বজনদের প্রার্থিতার বিষয়ে কঠোর হওয়ার বার্তা দিয়ে শনিবার (২০ এপ্রিল) এক সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, 'একটা দলে আমি এমপি, আমি মন্ত্রী, আবার আমার ভাই, ছেলে এরাও পদ নিয়ে যাবে সব, তাহলে তৃণমূলের কর্মীরা কী করবে? তাদের পদে যাওয়ার কোনো অধিকার নেই? সে সুযোগটা করে দেওয়ার জন্যই এই সিদ্ধান্ত।

তবে মন্ত্রী-এমপিদের স্বজনরা বলছেন ভিন্ন কথা। তাদের ভাষ্যমতে, শুধু স্বজন হওয়ার কারণেই প্রার্থী না হওয়ার বিষয়টি তারা মানতে নারাজ। তাদের কথা, আমরা তো মন্ত্রী-এমপিদের ভরসায় নির্বাচন করছি না। আমরা আমাদের পরিচয়ে নির্বাচন করছি। তাহলে স্বজন হওয়া কি অপরাধ? তারাও তাই অনড় নির্বাচনি মাঠে; দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে হলেও নির্বাচনি মাঠে থেকে দেখতে চান শেষটা।

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নির্দেশনা অনুযায়ী সংসদ সদস্যদের নিকটাত্মীয়রা উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থী হতে পারবেন না, সে ক্ষেত্রে যেহেতু আপনার বোনের স্বামী নরসিংদী-২ আসনের সংসদ সদস্য (আনোয়ার আশরাফ খান), আপনি কি মনোনয়ন প্রত্যাহার করবেন এমন প্রশ্নের জবাবে পলাশ উপজেলার চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. শরিফুল হক বার্তা২৪.কমকে বলেন, আমি উইথড্র করব কারণ কী? আমি তো এমপি সাহেবের রাজনীতি করি না।

শরিফুল হক বলেন, ঘোড়াশাল-পলাশে আমরা রাজনৈতিক পরিবার। আমার রাজনৈতিক পরিচয় তো শালা-সম্বন্ধী না। আমার রাজনৈতিক পরিচয় হচ্ছে পলাশের আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি হাসানুল হক হাসান সাহেবের ভাতিজা। ছাত্র সংসদের নির্বাচনের মাধ্যমে আমার রাজনৈতিক জীবনের শুরু। আমার ভগ্নীপতি তখন কোনো রাজনৈতিক নেতাও ছিলেন না, তিনি ছিলেন একজন ডাক্তার। আমি কি আমার বোনের স্বামীর জন্য আমার তিলে তিলে গড়া রাজনীতি ধ্বংস করে দেব? অবশ্যই আমি আমার নির্বাচন চালিয়ে যাব।

পিরোজপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য শ ম রেজাউল করিমের ছোট ভাই নূর-ই আলম নাজিরপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী। তার সংসদ সদস্য ভাইয়ের সাথে সরাসরি কোন সম্পৃক্ততা নেই দাবি করে বার্তা২৪.কমকে বলেন, আমি ৩০ বছর থেকে আলাদা সংসার মেনটেইন করি। আমার মতাদর্শ আলাদা। আমি বঙ্গবন্ধুকে ভালবাসি, শেখ হাসিনাকে ভালোবাসি। আমার ভাই যে সংসদ সদস্য তিনি চিকিৎসার জন্য থাইল্যান্ডে আছেন গত ১৫ দিন। আমি দীর্ঘদিন ধরে সামাজিক নানা কর্মকাণ্ডের সাথে জড়িত। করোনার সময়ে সামাজিক কাজ করেছি, বিভিন্ন সময়ে আর্থিক সাহায্য করেছি। সে কাজের ক্ষেত্রে আমাকে নিয়ে একটা বলয় তৈরি হয়েছে। তারা আমাকে নির্বাচনের জন্য উদ্বুদ্ধ করেছে, সেজন্য আমি নির্বাচন করি।

নূর-ই আলম বলেন, আমি রাজনৈতিক মতাদর্শে আওয়ামী লীগের একজন সমর্থক, কিন্তু অফিসিয়ালি দলের সাথে সংশ্লিষ্ট না। কোনো ইউনিটের সঙ্গে আমি সম্পৃক্ত না। এমনকি আমি এমপি সাহেবের রাজনীতির সাথেও সরাসরি সম্পৃক্ত না। আমি দূর থেকে যতটা পারি সহযোগিতা করি। তার সাথে আসলে আমার রাজনৈতিকভাবে তেমন কোন সম্পৃক্ততা নেই।

তবে দলের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা বলছেন, দলের বার্তা সব জায়গায় পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। তারপরও যদি দলের সিদ্ধান্ত অমান্য করে স্বজনরা নির্বাচনে থাকেন তাহলে তাদের বিরুদ্ধে নেওয়া হবে সাংগঠনিক ব্যবস্থা। এমনকি তাদের পক্ষে সমর্থনও করতে পারবেন না দলীয় কোনো ব্যক্তি। এ বিষয়ে কঠোর নজরদারি করা হচ্ছে এবং সে অনুযায়ী তালিকাও প্রস্তুত করা হচ্ছে।

মন্ত্রী ও সংসদ সদস্যদের নিকটাত্মীয়দের উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থী না হওয়ার বিষয়ে আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাছিম বার্তা২৪.কমকে বলেন, ছেলে, স্ত্রী, কন্যা, ভাগিনা, শ্যালক সরাসরি ঘনিষ্ঠ আত্মীয়দেরকে প্রার্থী করা যাবে না। আমরা অংশগ্রহণমূলক একটি সুন্দর নির্বাচন চাই। এই নির্বাচন যেন কোনোভাবে প্রশ্নবিদ্ধ না হয় সেজন্যই আমরা আওয়ামী লীগ থেকে দলীয় কোন প্রতীক দিইনি। এটা সবাই মানবে, মানার জন্যই বলা হয়েছে। দলের সিদ্ধান্ত কেউ মানবে না বলে আমরা মনে করি না।

নাছিম বলেন, আমাদের দলের গুরুত্বপূর্ণ নেতাদের দু'চারজন প্রার্থী আছে বিভিন্ন বিভাগে, তারা দায়িত্বশীল মানুষ, দায়িত্বশীল নেতা, তারা দলের অভিমতকে, সিদ্ধান্তকে অবশ্যই মানবেন, সম্মান দেবেন, প্রতিপালন করবেন।

   

দেশটা এখন মগের মুল্লুক : মির্জা ফখরুল



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট বার্তা২৪.কম ঢাকা
ছবি : সংগৃহীত

ছবি : সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর দলটির আন্তর্জাতিক সম্পর্কবিষয়ক কমিটির সদস্য ইশরাক হোসেনকে নিঃশর্ত মুক্তি দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন। তিনি অভিযোগ করে বলেন, ‘দেশটা এখন মগের মুল্লুকে পরিণত হয়েছে।’

রবিবার (১৯ মে) বিএনপির পক্ষ থেকে পাঠানো এক বিবৃতিতে মির্জা ফখরুল এসব কথা বলেন।

পল্টন থানায় করা মামলায় ইশরাক হোসেনকে রবিবার কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন আদালত। ইশরাককে কারাগারে পাঠানোর ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেন মির্জা ফখরুল।

তিনি অভিযোগ করেন, ডামি নির্বাচনের মাধ্যমে রাষ্ট্রক্ষমতা দখলকারী আওয়ামী লীগ ক্ষমতা ধরে রাখতে প্রতিদিনই বিএনপিসহ বিরোধী দলের নেতা–কর্মীদের ওপর নানা কায়দায় নির্যাতন–নিপীড়ন শুরু করেছে। মিথ্যা মামলায় বিএনপি নেতা–কর্মীদের জামিন না দিয়ে কারাগারে পাঠানো যেন আওয়ামী সরকারের প্রধান কর্মসূচি হয়ে দাঁড়িয়েছে। ইশরাক হোসেনও সে কর্মসূচির অংশ।

বিবৃতিতে ইশরাক হোসেনের বিরুদ্ধে করা মামলা প্রত্যাহারসহ তার নিঃশর্ত মুক্তির আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপির মহাসচিব।

;

অক্টোবরে চট্টগ্রাম মহানগর আ.লীগের সম্মেলন: হানিফ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, চট্টগ্রাম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

আগামী অক্টোবর মাসে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ।

রোববার (১৯ মে) নগরীর কাজীর দেউড়ি একটি কনভেনশন সেন্টারে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের কার্যকরী কমিটির সভায় তিনি এ কথা জানান।

মাহবুবুল আলম হানিফ বলেন, চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগ ও তার আওতাধীন থানা, ওয়ার্ড ও ইউনিট আওয়ামী লীগের সম্মেলন ও কমিটি আগামী জুলাই মাসের মধ্যেই এগুলোর সম্মেলন ও কমিটি গঠন অবশ্যই করে ফেলতে হবে। আগস্ট মাস যেহেতু শোকের মাস, এসময় আওয়ামী লীগের কোনো স্তরের সম্মেলন ও কমিটি গঠনের অবকাশ নেই। সেপ্টেম্বর মাসকে মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠানের প্রস্তুতি পর্ব হিসেবে ধরে নিয়ে দলীয় সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী আগামী অক্টোবর মাসে নির্ধারিত তারিখ ও সময়ে আড়ম্বরপূর্ণভাবে মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের ক্ষমতার উৎস যেমন জনগণ। আওয়ামী লীগের ভিত্তি ও অস্তিত্ব নির্ভরশীল শক্তিশালী সাংগঠনিক ভিত্তির উপরই। নবীন-প্রবীণের সমন্বয়ে সম্মেলনের মধ্যদিয়ে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক কাঠামোর ভিত্তিকে সুদৃঢ় ও বিস্তৃত করার প্রস্তুতি এখন থেকেই শুরু করে দিতে হবে। নেতৃত্ব নির্বাচনের ক্ষেত্রে ব্যক্তির সাংগঠনিক অভিজ্ঞতা, যোগ্যতা ও দক্ষতাকে প্রাধান্য দিতে হবে। তাই ব্যক্তির পছন্দ ও অপছন্দের বিষয়টি কখনো মুখ্য হতে পারে না। নেতৃত্ব নির্বাচনে প্রতিযোগিতা ও প্রতিদ্বন্দ্বিতা থাকতেই পারে। এই প্রতিদ্বন্দ্বিতা সাংগঠনিক শৃঙ্খলার মধ্যেই হওয়া উচিত। সবচেয়ে বড় কথা- সংগঠনের বিভিন্ন ধাপ ও স্তরগুলোতে নেতৃত্ব যদি সমঝোতা ও সমন্বয়ের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠিত হয়, তাহলে দলীয় ঐক্য, শৃঙ্খলা ও শক্তির পরিমাপ ও ঘনত্ব ভারি হয়। নেতৃত্ব নির্বাচনে ভোটের বিষয়টি থাকলে কেনা-বেচা হওয়ার সুযোগ থাকে এবং পারস্পরিক বিভক্তি সৃষ্টিরও আশঙ্কা দেখা দেয়।

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন বলেন, আওয়ামী লীগ টানা চারবার ক্ষমতায় আছে- এ নিয়ে আত্মতুষ্টির কোনো কারণ নেই। ২০০৮ সালের ডিসেম্বর মাসে অনুষ্ঠিত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের ধস নামানোর বিজয় অর্জিত হয়েছিল প্রবল প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে। এই প্রতিপক্ষ ছিল নেতৃত্বহীন বিএনপি নামক একটি প্লাটফর্ম এবং স্বাধীনতা ও দেশ বিরোধী রেজিমেন্টাল জামায়াতে ইসলামী ও প্রতিক্রিয়াশীল ডান ও অতিবাম শক্তির মোর্চা। কিন্তু পরবর্তী সাধারণ নির্বাচনগুলোতে আমাদের কোনো প্রবল প্রতিপক্ষ না থাকলেও দলীয় সাংগঠনিক ভিত্তি খুব একটা শক্তিশালী হয়নি। বরং নিজেদের মধ্যে কলহ, বিবাদ ও বিভক্তি বেড়েছে। আরও বেড়েছে দলের মধ্যে হাইব্রীডের প্রবল স্রোত। প্রধানমন্ত্রী বার বার বলেছেন, নিজস্ব গ্রুপ ও প্রভাব বলয় বৃদ্ধির জন্য বাইরে থেকে ভিন্ন মতের মানুষ দলে ঢুকানোর কোনো প্রয়োজন নেই।

চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ.জ.ম নাছির উদ্দীন বলেন, চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের কমিটির আওতাধীন ২৭টি ইউনিট ও ২৯টি ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সম্মেলন এখন পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হয়নি এবং ১৫টি থানার মধ্যে একটি থানা আওয়ামী লীগ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এখনো পর্যন্ত ইউনিট, ওয়ার্ড ও থানা আওয়ামী লীগের যে সকল কমিটির সম্মেলন হয়নি, সেগুলো মূলত পরিস্থিতিগত কারণে নয়, স্থানীয় নেতৃত্বের অনীহা ও আন্তরিকতার অভাবের কারণে। আমরা মহানগর আওয়ামী লীগ কমিটি থেকে এ সকল ইউনিট, ওয়ার্ড ও থানা আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠানের জন্য যাদের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল, সম্মেলন কেন হয়নি এ ব্যাপারে তারা অবগত আছেন। তবে এটাও ঠিক সম্মেলন অনুষ্ঠানের ব্যাপারে স্থানীয় নেতৃত্ব যদি ঐকমত্যে না পৌঁছে সেখানে কিছুতেই জোর করে সম্মেলন করতে হবে এমন মনোভাব চাপিয়ে দেয়া যায় না।

চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সভামঞ্চে উপস্থিত ছিলেন- মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি নঈম উদ্দিন চৌধুরী, অ্যাডভোকেট সুনীল কুমার সরকার, অ্যাডভোকেট মো. ইব্রাহিম হোসেন চৌধুরী বাবুল, খোরশেদ আলম সুজন, এম. জহিরুল আলম দোভাষ, আলতাফ হোসেন চৌধুরী বাচ্চু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বদিউল আলম, উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য একেএম বেলায়েত হোসেন, শফর আলী, শেখ মাহমুদ ইছহাক, কোষাধ্যক্ষ আবদুচ ছালাম এমপি, সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য সাবেক এমপি নোমান আল মাহমুদ, শফিক আদনান ও মো. মহিউদ্দিন বাচ্চু এমপি প্রমুখ।

;

‘গরিব বাংলাদেশ’কে দেখতে ৫ বছর পর মিউজিয়ামে যেতে হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

গরিব বাংলাদেশের অবস্থা কী ছিল সেটা দেখতে হলে নতুন প্রজন্মকে আগামী পাঁচ বছর পর মিউজিয়ামে যেতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

রোববার (১৯ মে) সন্ধ্যায় তেজগাঁওয়ে ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগ ভবনে আয়োজিত ১৭ মে বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৪৪তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন।

২০৩০ সালের মধ্যে বাংলাদেশে কোনো হতদরিদ্র থাকবে না উল্লেখ করে কামাল বলেন, হতদরিদ্র বাংলাদেশ যেখানে গরিব মানুষ তালি দেওয়া ছেঁড়া কাপড় পরতো, খালি পায়ে হাঁটতো-সে জায়গা থেকে আজকে বাংলাদেশের এই অবস্থান। আগামী বছর খানেক পরে হতদরিদ্র সেই বাংলাদেশকে দেখতে হলে আগামী বছর পাঁচেক পরে নতুন প্রজন্মকে মিউজিয়ামে যেতে হবে। আজ ডিজিটাল বাংলাদেশ এবং অচিরেই বাংলাদেশ স্মার্ট বাংলাদেশে রূপান্তরিত হবে।

মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশে ফিরে এসেছিলেন বলেই আজ বাংলাদেশের এই অবস্থান আমরা দেখতে পাচ্ছি। অথচ প্রধানমন্ত্রী যেদিন ফিরে এসেছিলেন সেদিন তাকে ৩২ নম্বরে ঢুকতে পর্যন্ত দেওয়া হয়নি। তিনি সেদিন কেঁদেছিলেন, কেঁদেছিল দেশের মানুষ। আমি সেদিন মানুষকে স্পষ্ট বলতে শুনেছি, সবাই বলছিল- শেখের বেটি ফিরে এসেছে, আমাদের আর কেউ দাবায় রাখতে পারবে না। বাংলাদেশ আজ বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলায় পরিণত হয়েছে। এই কৃতিত্ব বঙ্গবন্ধু কন্যা, প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার। তার নেতৃত্বেই সারা বিশ্বের বুকে বাংলাদেশ আজ বিস্ময়ে পরিণত হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রীর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের স্মৃতিচারণ করে দেশকে আরও এগিয়ে নিয়ে যেতে সকলকে একত্রিত হয়ে কাজ করার আহ্বান জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

এছাড়াও ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সংসদ সদস্য বেনজীর আহমদের সভাপতিত্বে এবং ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পনিরুজ্জামান তরুণের সঞ্চালনায় সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য এ্যাড. কামরুল ইসলাম, আ. লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও সংসদ সদস্য আহমদ হোসেন, মির্জা আজম, তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ আলী আরাফাত, জাতীয় কমিটির সদস্য আব্দুল বাতেন মিয়া, ঢাকা-১৯ এর সংসদ সদস্য মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম প্রমুখ।

;

বাংলাদেশ ও শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র চলছে: সালমান এফ রহমান



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশ ও শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র চলছে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান ফজলুর রহমান।

রোববার (১৯ মে) সন্ধ্যায় তেজগাঁওয়ে ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগ ভবনে আয়োজিত ১৭ মে বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৪৪তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন।

২০০১ এর নির্বাচনেও ষড়যন্ত্র করে আওয়ামী লীগকে হারানো হয়েছে উল্লেখ করে সাল্মান এফ রহমান বলেন, গত নির্বাচনেও ষড়যন্ত্র করা হয়েছিল। কিন্তু শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ সকল ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করেছে। আগামীতেও আমাদের সকলকে ঐক্যবদ্ধভাবে সকল ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করতে হবে।

সালমান এফ রহমান বলেন, যেভাবে নৃশংসভাবে ১৯৭৫ এ বঙ্গবন্ধুসহ তার পরিবারকে হত্যা করা হয়েছে, তারপরও প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশের ফিরে এসেছেন। ১৯৮৬ সাল থেকে বাংলাদেশকে এই পর্যায়ে নিয়ে আসতে বলিষ্ঠ হাতে নেতৃত্ব দিয়ে যাচ্ছেন। যে দেশের মানুষ তার সব কেড়ে নিয়েছে সে দেশের মানুষের জন্যই তিনি এখনও করে যাচ্ছেন। প্রধানমন্ত্রীর জায়গায় আমি থাকলে এই দেশে কখনও ফিরে আসতাম না। আমাদের ভাগ্য প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শেখ হাসিনাকে আমরা পেয়েছি। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলার স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করতেই তিনি এদেশে ফিরে এসেছিলেন। শেখ হাসিনার ম্যাজিকের জন্যই আজ বাংলাদেশ এই অবস্থানে এসেছে।

বাংলাদেশে দুইটি চ্যালেঞ্জ আছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধ এবং আমেরিকা আর চীনের জৈব যুদ্ধ- এই দুইটার একটার সাথেও বাংলাদেশের কোনো সম্পর্ক না থাকলেও আমরা ভুক্তভোগী। অন্যদিকে প্রযুক্তি নিয়েও একটা চ্যালেঞ্জ রয়েছে। সামনে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স (এআই) আসতে যাচ্ছে। এটার সঠিক ব্যবহার করাও একটা চ্যালেঞ্জ। এই প্রযুক্তি ব্যবহারে সকলকে অ্যাডভান্স নিতে হবে।

আলোচনা সভায় উপস্থিত নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে তিনি আরও বলেন, দেশের সবাই আওয়ামী লীগ করে না। কেউ বিএনপি করে, আবার কেউ অন্যান্য দল করে। আরেকটা পক্ষ আছে যারা কোনো দলই করে না। দেশের উন্নয়নে আওয়ামী লীগ সরকারের ভূমিকা তুলে ধরে নিরপেক্ষদের মন জয় করতে হবে।

মনে হচ্ছে সামনের নির্বাচন অনেক দূরে, কিন্তু না চোখের পলকে সময় শেষ হয়ে যাবে। সময়ের মধ্যে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে আগামী নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে হবে বলেও নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান সালমান এফ রহমান।

এছাড়াও ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সংসদ সদস্য বেনজীর আহমদের সভাপতিত্বে এবং ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পনিরুজ্জামান তরুণের সঞ্চালনায় সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে আরও বক্তব্য রাখেন, আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য এ্যাড. কামরুল ইসলাম, আ. লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও সংসদ সদস্য আহমদ হোসেন, মির্জা আজম, তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ আলী আরাফাত, জাতীয় কমিটির সদস্য আব্দুল বাতেন মিয়া, ঢাকা-১৯ এর সংসদ সদস্য মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম প্রমুখ।

;