আমি ইন্টার মিয়ামিতে যাচ্ছি: মেসি



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

অবশেষে নতুন গন্তব্য নিয়ে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দিয়েছেন লিওনেল মেসি। বাংলাদেশ সময় বুধবার রাতে নিশ্চিত করেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের মেজর লিগ সকার ক্লাব ইন্টার মিয়ামিতে যাচ্ছেন তিনি। প্যারিসে নিজের বাড়িতে স্প্যানিশ আউটলেট স্পোর্ট ও মুন্ডো দেপোর্তিভোকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বিশ্বকাপ জয়ী এই আর্জেন্টাইন বলেছেন, ‘আমি ইন্টার মিয়ামিতে যাচ্ছি। এটা এখন শতভাগ নিশ্চিত।’

পিএসজি ছেড়ে দেওয়ার ঘোষণার পর মেসির সম্ভাব্য দল নিয়ে নানামুখী জল্পনা ছিল। শোনা যাচ্ছিল বার্সেলোনায় প্রত্যাবর্তন ঘটতে যাচ্ছে বিশ্বকাপ জয়ী তারকার। আবার সৌদি ক্লাব আল হিলালের কথাও শোনা যাচ্ছিল। কিন্তু সৌদি ক্লাবটির লোভনীয় প্রস্তাবেও তিনি সাড়া দেননি। তার কারণ কী? মেসি সাক্ষাৎকারে এর ব্যাখ্যা দিয়েছেন, ‘যদি টাকার জন্যই হতো তাহলে আমি সৌদি আরব কিংবা অন্য কোথাও যেতে পারতাম। এটা অনেক অর্থ আমার কাছে। কিন্তু বিষয়টা টাকার জন্য নয়। এই মুহূর্তে ফোকাসের বাইরে থাকতে চাই, পরিবার নিয়েই বেশি ভাবতে চাই আমি। গত দুই বছর পরিবারের জন্য সময়টা ভালো যায়নি।’

বার্সায় প্রত্যাবর্তন নিয়েও মেসি কথা বলেছেন। কিন্তু দুই বছর আগে মেসিকে ইচ্ছার বিরুদ্ধে ক্লাবটি ছাড়তে হয়েছিল। সেই তিক্ত অভিজ্ঞতার কথা ভুলে যাননি তিনি, ‘আমি বার্সায় ফিরতে চেয়েছি। সেখানে ফেরার জন্য মুখিয়েও ছিলাম। কিন্তু সর্বশেষবার যে অভিজ্ঞতা হয়েছিল, একই পরিস্থিতিতে আবার পড়তে চাইনি। নিজের ভবিষ্যৎ অন্য কারো হাতে দিতে চাইনি। শুনেছি তাদের সেজন্য খেলোয়াড় বিক্রি করতে হতো বা তাদের সেলারি কমাতে হতো। সত্যি কথা হলো আমি এসবের মধ্যে যেতে চাইনি। এসবের জন্য দায়ী হতে চাইনি। আমি এসবে ক্লান্ত।’

তবে নিজের আক্ষেপের কথাও জানিয়ে রেখেছেন ৩৫ বছর বয়সী, ‘বার্সায় ফেরার স্বপ্নটা আমার ছিল। আমি ইনিয়েস্তা, বুসকেৎজ, জর্ডি আলবা, জাভির মতো বিদায় পেলে খুশি হতাম। বার্সা ভক্তদের কাছে নিজের নাম শোনার অনুভূতিটা অন্যরকম। কিন্তু আমি সেখানে নেই..।’

মেসি আরও জোর দিয়ে বলেছেন টাকা কখনোই তার কাছে বড় বিষয় ছিল না। বার্সার সঙ্গে ক্লাবটিতে ফেরা নিয়ে কথা হলেও চুক্তি নিয়ে কখনও আলোচনা হয়নি তার, ‘টাকা আমার কাছে কোনও বিষয় ছিল না। বার্সেলোনার সঙ্গে আমার চুক্তি নিয়ে কথা হয়নি। তারা প্রস্তাব দিয়েছিল। কিন্তু সেটা কখনও অফিশিয়াল, লিখিত বা সই করা প্রস্তাব ছিল না। বেতন নিয়েও আমরা কথা বলিনি। টাকার বিষয় হলে আমি সৌদি আরব যেতাম।’

মেসি তাই প্রশ্ন তুলেছেন যে বার্সা আসলেই তাকে চেয়েছিল কিনা, ‘আমি জানি না বার্সা আসলেই আমাকে ফেরানোর সব চেষ্টা করেছিল কিনা। শুধু জানি জাভি কী বলেছিল। আমি নিশ্চিত ক্লাবটাতে কিছু লোক রয়েছে যারা চায় না যে আমি বার্সায় ফিরি।’

বিশ্বকাপ ও সাতটি ব্যালন ডি’অর জয়ী মেসি এবারই প্রথম ইউরোপের বাইরে খেলতে যাচ্ছেন। যে লিগটি আবার বুড়োদের লিগ বলেও পরিচিত। মেসির নতুন গন্তব্য ইন্টার মিয়ামির অন্যতম মালিক আবার সাবেক রিয়াল মাদ্রিদ, পিএসজি তারকা ডেভিড বেকহ্যাম। মেসি অবশ্য জানিয়েছেন, তিনি ইউরোপেই থাকতে চেয়েছিলেন, ‘ইউরোপের অন্য ক্লাব থেকেও প্রস্তাব পেয়েছিলাম। কিন্তু সেগুলো বিবেচনায় নেইনি। কারণ আমার লক্ষ্য ছিল বার্সায় ফেরা। যেহেতু এই চুক্তি আর বাস্তবায়িত হয়নি। এখন মিয়ামিতে ভিন্ন কিছু করার চেষ্টা করছি।’

দুই বছর পিএসজিতে কাটানো অধ্যায় নিয়েও মেসি কথা বলেছেন। জানিয়েছেন, সেখানে মোটেও ভালো ছিলেন না তিনি, ‘পিএসজির দুই বছর আমার ভালো যায়নি। উপভোগও করিনি। যা আমার পারিবারিক জীবনের ওপর প্রভাব ফেলেছিল।’

ইউরো ব্যর্থতার এই দিনেই বিশ্বজয় করেছিল ইংলিশরা



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

টানা দ্বিতীয়বারের মতো ইউরোর ফাইনালে খেলেও স্পেনের কাছে ২-১ ব্যবধানে হারল ইংল্যান্ড। ফুটবলে ৫৮ বছরের শিরোপা খরা ঘুচাতে পারল না ইংলিশরা ফুটবলাররা। তবে আজকের এই দিনেই ২০১৯ সালে প্রথম বারের মতো ক্রিকেটের মঞ্চে বিশ্বকাপ জিতেছিল ইংলিশরা।

হতভাগা ইংলিশ দল, আধুনিক ফুটবলের জনক হয়েও সেই ১৯৬৬-এর ফুটবল বিশ্বকাপ জয়ের পর ৫৪ বছর আর কোনো আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টের শিরোপার দেখা পারেনি। গেল বার ঘরের মাঠে ইউরোর ফাইনালে শত চেষ্টার পরেও হারতে হয়েছিল তাদের। ৫৪ বছর পরে শিরোপার এতো কাছে এসেও সফল হতে পারল না তারা। এই নিয়ে ইংলিশ সংবাদ মাধ্যমের বেশ ভালো রোশানলে পরতে হয়েছিল ইংলিশদের। তবে ২০২০ এর পরে সবাই ভেবেছিল এবার হয়ত শেষ হবে শিরোপার আক্ষেপ। অপেক্ষের প্রহর আরো একবার বাড়ালো ইংলিশ ফুটবলাররা।

তবে ঠিক ৫ বছর আগে আজকের দিনেই, ১৪ই জুলাই ২০১৯ সালে বিশ্ব জয় করেছিল ইংল্যান্ড দল। আইসিসি ওয়ানডে ক্রিকেট বিশ্বকাপ জিতে নিজেদের সেরা বলে প্রমাণ করেছিল ইংল্যান্ড ক্রিকেট দল। ২০১৯-এর ফাইনালে ইংলিশরা ঘরের মাঠে নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে প্রথমবারের মতো শিরোপার স্বাদ পেয়েছিল। নির্ধারিত ৫০ ওভারের খেলায় ম্যাচ ড্র করেছিল ইংলিশরা। ম্যাচের ভাগ্য গড়ায় সুপার ওভারে। আর সেখানেই বাজিমাত ইংলিশদের, কিউইদের থেকে বেশি বাউন্ডারি মারার সুবাদে চ্যাম্পিয়ন হয় ইংল্যান্ড।

তবে সেই সুখকর মুহূর্ত মনে করতে পারছেন না ইংলিশরা। আজ জার্মানিতে বার্লিনে ইউরোর ফাইনাল থেকে খালি হাতে বাড়ি ফিরছে ইংলিশ দল। তবে পরবর্তী ফুটবল বিশ্বকাপ এবং ইউরোতে ভালো কিছু নিয়ে আসবনে দলের জন্য বলে আশায় বুক বাঁধছে গ্যারেথ সাউথগেটের দল।

;

ফিনালিসিমা নিয়ে চিন্তিত স্কালোনি



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ইউরোর চ্যাম্পিয়ন আর কোপা আমেরিকার চ্যাম্পিয়ন, এই দুই চ্যাম্পিয়নের লড়াই, যার নাম ফিনালিসিমা। ২০২২ সালে এই লড়াইয়ে ইতালিকে হারিয়েছিল আর্জেন্টিনা। ২০২৪ সালে এসে এই লড়াইয়ের আলোচনা উঠেছে আবার। কোপা আমেরিকা জিতে আর্জেন্টিনা কোচ লিওনেল স্কালোনি জানালেন, ফিনালিসিমা মাঠে গড়ালে ভালোরকমের বিপদেই পড়তে চলেছেন তিনি।

২০২৫ সালের সম্ভাব্য ফিনালিসিমার আলোচনাটা প্রথম করেছিলেন লামিন ইয়ামাল। কয়েক দিন আগে তিনি বলেছিলেন, ‘আমি আশা করব মেসি যেন কোপা আমেরিকা জেতে। আর আমি ইউরো জিতি। তাহলে ফিনালিসিমায় আমি তার বিপক্ষে খেলতে পারব।’

এরপর গেল রাতে স্পেন কোচ লুইস দে লা ফুয়েন্তেও এই বিষয়ে কথা বলেছেন। শুভকামনা জানিয়েছিলেন আর্জেন্টিনাকে ফিনালিসিমায় আসার জন্য, শুভেচ্ছা জানিয়েছিলেন স্কালোনিকেও।

এরপর আর্জেন্টিনার কোপা আমেরিকা জেতার পর আবারও এই প্রসঙ্গ এল। কোচ লিওনেল স্কালোনিকে জিজ্ঞেস করা হলো ওই ম্যাচ নিয়ে। জবাবে তিনি বললেন, ‘এটা খেলা হবে তো? হলে ভালোই হবে। আমার পরিবারের একাংশ স্পেনের, ওই দেশের সঙ্গে আমার বেশ ভালো একটা সম্পর্ক আছে, ওখানে আমি থাকি, তাদের কোচকেও আমি বেশ করে চিনি। আমি তাদের জয়ের জন্যও বেশ আনন্দিত।’

বিপদের কথাটা স্কালোনি টানলেন এরপরই। তিনি বললেন, ‘ফিনালিসিমা মাঠে গড়ালে আমার একটা বিপদই হয়ে যাবে। আমার পরিবারই বিভক্ত হয়ে যাবে সেদিন। আমার পরিবারের একাংশ যে ওখানের!’

তবে এই ফিনালিসিমা আবারও মাঠে গড়াক, তা চান স্কালোনি। তার ভাষ্য, ‘এটা ভালো কিছুই হবে। দুই দল যারা এই মুহূর্তে বেশ ভালো সময় কাটাচ্ছে, তাদের মুখোমুখি হওয়াটা দারুণ হবে। দুই দল একে অন্যের চেয়ে কত আলাদা, তা দেখা যাবে।’

;

আন্তর্জাতিক ফুটবলকে বিদায় বললেন টমাস মুলার



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ২-১ গোলের জয় তুলে নিয়ে গতরাতে এবারের ইউরোর শিরোপা তুলে ধরেছে স্পেন। স্বাগতিক হিসেবে জার্মানি ছিল এবারের অন্যতম ফেভারিট। দলীয় শক্তি সামর্থ্য বিবেচনায়ও তারা এগিয়েই ছিল বেশ। তবে কোয়ার্টার ফাইনালে স্পেনের বিপক্ষে হেরে টুর্নামেন্ট থেকে ছিটকে গিয়েছিল জার্মানরা। তখনই ইঙ্গিত দিয়ে রেখেছিলেন তিনি। আজ ইউরোর পর্দা আনুষ্ঠানিকভাবে নামার পরপরই জাতীয় দল থেকে নিজের অবসরের ঘোষণা দিয়েই ফেললেন টমাস মুলার।

কোয়ার্টার ফাইনালের ম্যাচটি আরেক জার্মান তারকা মিডফিল্ডার টনি ক্রুসের জাতীয় দলের জার্সিতে শেষ ম্যাচ ছিল। তার বিদায়বেলায় মুলার সেদিন জার্মান স্কাই স্পোর্টসকে বলেছিলেন, ‘খুব সম্ভবত এটি আমার শেষ আন্তর্জাতিক ম্যাচ।’

আজ তার ইঙ্গিতটি সত্যি হলো। একটি ভিডিও বার্তায় নিজের আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারের ইতি টানার ঘোষণা দিয়ে মুলার বলেছেন, ‘১৪ বছর আগে জার্মানির হয়ে প্রথম আন্তর্জাতিক ম্যাচটি খেলার সময় এসব কোনো কিছুর স্বপ্ন দেখিনি। দেশের হয়ে খেলতে সবসময়ই গর্ব বোধ করেছি। আমরা একসঙ্গে উপভোগ করেছি, দুঃখও ভাগ করেছি। জাতীয় দলের হয়ে ১৩১ ম্যাচে ৪৫ গোল করার পর আমি বিদায় জানাচ্ছি।’

২০১০ সালে জার্মানির হয়ে জাতীয় দলে অভিষেক হয়েছিল সময়ের অন্যতম সেরা এই মিডফিল্ডারের। জার্মানির হয়ে ইতিহাসের তৃতীয় সর্বোচ্চ (১৩১) ম্যাচ খেলেছেন। যেখানে তার গোল সংখ্যা ৪৫টি।

সদ্য সমাপ্ত ইউরো আসরে যদিও সেভাবে একাদশে খেলার সুযোগ হয়নি মুলার। বেঞ্চ থেকে বদলি হিসেবে নেমে খেলেছেন মাত্র দুটি ম্যাচ। আন্তর্জাতিক ফুটবলকে বিদায় জানালেও ক্লাব ফুটবলে অন্তত ২০২৫ সাল পর্যন্ত জার্মান জায়ান্ট বায়ার্ন মিউনিখে দেখা যাবে তাকে।

;

১৫ বছরের চুক্তি করতেও রাজি স্কালোনি



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

আর্জেন্টিনার কোচ হিসেবে লিওনেল স্কালোনি এসেছিলেন ২০১৮ সালে। এরপর থেকে তিনি দলটাকে জিতিয়েছেন একে একে ৪টা শিরোপা। এরপর তিনি জানালেন, বোর্ডের পক্ষ থেকে যদি ১৫ বছরের চুক্তিও হয়, তাও মেনে নিতে রাজি আছেন তিনি।

কোচ লিওনেল স্কালোনির অধীনে ২০১৯ কোপা আমেরিকায় প্রথম টুর্নামেন্টটা খেলেছিল আর্জেন্টিনা। সেবার সেমিফাইনালে খেলেছিলেন লিওনেল মেসিরা। এরপরের আসর থেকেই শুরু আর্জেন্টিনার জয়যাত্রার। ২০২১ কোপা আমেরিকা জিতে ২৮ বছরের খরা কাটিয়েছে এরপর।

২০২২ সালে ফিনালিসিমায় হারিয়েছে ইউরো চ্যাম্পিয়ন ইতালিকে। এরপর সে বছর ডিসেম্বরে ঘরে তুলেছে বিশ্বকাপের সোনার হরিণও। এরপর এবার কোপা আমেরিকার শিরোপা আবার জিতেছে স্কালোনির দল। শেষ অনেক বছরে আর্জেন্টিনার কোচিং করিয়ে এমন সফল হতে পারেননি অনেকেই। সেটা স্কালোনি হয়ে গেছেন দায়িত্ব পাওয়ার ছয় বছরের ভেতর।

তবে তিনি দায়িত্বে থাকতে চাননি। গেল বছর ব্রাজিলকে তাদেরই মাঠে হারানোর পর স্কালোনি জানিয়েছিলেন সরে যাওয়ার অভিপ্রায়। তখন কী চলছিল স্কালোনির মনে? আর্জেন্টিনা কোচ আজ জানালেন, ‘গেল বছরটা আমার বেশ বাজে কেটেছে। আমি খুব ভালো অবস্থায় ছিলাম না। কারণ কিছু বিষয়ে একটা জায়গায় আটকে ছিলাম কয়েক মাসের মতো। সেদিন আমার সমস্যাটা ছিল, এটা আমার বলতেই হবে।’

সে সমস্যা কি এখনও আছে? স্কালোনির জবাব, ‘আজ আমি ভালো আছি। সে সমস্যাটা থেকে সেরে উঠেছি। আমরা আশা করছি এই পথে আরও অনেক দূর চলব আমরা।‘

ঠিক কত দূর চলতে চান আর্জেন্টিনার সঙ্গী হয়ে? স্কালোনি জানালেন, ‘জাতীয় দলের কোচের কাজটা অনেক প্রাণশক্তি দাবি করে। আমি মনে করি এখানে সৎ থাকাটা জরুরি। এখন আমার দুই বছরের চুক্তি বাকি আছে। আমাকে এখন যদি সভাপতি এসে বলেন যে ১৫ বছরের চুক্তিতে সই করো, আমি তাও নির্দ্বিধায় করে ফেলব।’

শেষ কথাটা অতি অবশ্যই রসিকতা। কিন্তু সেটা বাস্তব হয়ে গেলেও বোধ করি আর্জেন্টাইনরা মোটেও অসন্তুষ্ট হবেন না!

;