শ্রীলঙ্কা খেলতে চায় সামনের মাসেই, কিন্তু প্রতিপক্ষ কই?



স্পোর্টস এডিটর, বার্তা২৪.কম
জুলাইতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরতে চায় শ্রীলঙ্কা

জুলাইতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরতে চায় শ্রীলঙ্কা

  • Font increase
  • Font Decrease

ইংল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজ তো মাঠে নেমেই পড়েছে। শ্রীলঙ্কাও প্রস্তুতি নিয়ে ফেলেছে। অনুশীলনও শুরু করেছে তারা। শ্রীলঙ্কান কোচ মিকি আর্থার সেই প্রশিক্ষণ শেষে বলেছেন- ‘শ্রীলঙ্কা সামনের মাসেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের জন্য প্রস্তুত।’

চলতি মাসের শুরুতে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেটে ফেরার প্রস্তুতি নেয়। তারই অংশ হিসেবে ১৩ জন খেলোয়াড়কে নিয়ে আবাসিক প্রশিক্ষণ ক্যাম্পের আয়োজন করে।

করোনাভাইরাস পরিস্থিতি শ্রীলঙ্কায় এখন প্রায় নিয়ন্ত্রণে চলে এসেছে।

আবাসিক প্রশিক্ষণের সেশন শেষ করে শ্রীলঙ্কান ক্রিকেট কোচ আর্থার জানান- ‘এই অনুশীলন ক্যাম্পে আমরা ফিটনেস ঠিক করার চেষ্টা চালিয়েছি। প্রতিদিনই একটু একটু করে বোলাররা প্রশিক্ষণে তাদের সময় ও দক্ষতা বাড়িয়েছে। যেভাবে আমরা সামনে বাড়ছি তাতে সামনের মাসে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফেরার জন্য আমার দল তৈরি।’

প্রশ্ন হচ্ছে শ্রীলঙ্কা মাঠের ক্রিকেটে ফেরার জন্য নিজেদের প্রস্তুতিপর্ব সেরে নিচ্ছে বেশ ভালোভাবেই। কিন্তু তাদের প্রতিপক্ষ কে?

উত্তর হচ্ছে- আপাতত তাদের প্রতিপক্ষ নেই!

জুলাইয়ে বাংলাদেশ দলের শ্রীলঙ্কায় টেস্ট ক্রিকেট সূচি ছিল। করোনাভাইরাস সঙ্কটে থাকা বাংলাদেশ দল যেহেতু এখন ক্রিকেট খেলার জন্য প্রস্তুত নয়, তাই এই সিরিজটা আপাতত স্থগিত। জুলাই পরবর্তী ভারতীয় ক্রিকেট দলেরও শ্রীলঙ্কা সফরে যাওয়ার সূচি ছিল। কিন্তু ভারত সেই সূচি স্থগিত করে দিয়েছে।

তাহলে পরিস্থিতি কি দাঁড়াল?

এই সময়ে মাঠে খেলার জন্য কোনো প্রতিপক্ষই পাচ্ছে না শ্রীলঙ্কা। মার্চে করোনাভাইরাসের কারণে ইংল্যান্ড ক্রিকেট দল সফর অসমাপ্ত রেখে শ্রীলঙ্কা ছেড়ে নিজ দেশে ফিরে যায়। তারপর বাংলাদেশ এবং ভারতের সঙ্গেও ঘরের মাটিতে সিরিজ স্থগিত। পাঁচ মাসের মধ্যে তিনটি সিরিজ স্থগিত। আর্থিকভাবেও বড় ধাক্কা খেয়েছে শ্রীলঙ্কান ক্রিকেট বোর্ড।

সেই ক্ষতি পুষিয়ে নিতে মাঠে ফেরার জন্য মরিয়া শ্রীলঙ্কা। কিন্তু এখানেও যে তাদের প্রতিপক্ষ আগেরটাই- করোনাভাইরাস!

   

বাংলাদেশ সফরের জিম্বাবুয়ে দলে অ্যালিস্টার ক্যাম্পবেলের ছেলে  



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

জিম্বাবুয়ে ক্রিকেটকে বিশ্ব দরবারে পরিচয় করা অ্যান্ডি ফ্লাওয়ার, গ্রান্ট ফ্লাওয়াদের নাম সবচেয়ে বেশি এলেও সেই তালিকায় আরও এক নাম অ্যালিস্টার ক্যাম্পবেল। ৯০-এর দশকে জিমাম্বুয়ে ক্রিকেট মাতিয়েচেন তারাই। সেই দলের ক্যাম্পবেলের ছেলেও আসতে চলেছেন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে। আসন্ন বাংলাদেশ সফরে প্রথমবারের মতো জিম্বাবুয়ের দলে ডাক পেলেন জোনাথন ক্যাম্পবেল। 

পাঁচ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজটিকে সামনে রেখে আজ (বুধবার) ১৫ সদস্যের দল ঘোষণা করলো জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট। সেই দলের একমাত্র আনক্যাপড ক্রিকেটার জোনাথনই। নেতৃত্বে থাকছেন দলটির সময়ের অন্যতম তারকা ক্রিকেটার সিকান্দার রাজা এবং এই সিরিজে কোচের ভূমিকায় থাকবেন স্টুয়ার্ট মাতসিকেনিয়েরি।

সবশেষ শ্রীলঙ্কা সফরের দল থেকে ১২ জনের মিলেছে এই দলে জায়গা। এছাড়া দলে ফিরেছেন তাদিওয়ানাশে মারুমনি এবং ফারাজ আকরাম। সিকান্দার রাজা, শন উইলিয়ামস, ক্রেইগ আরভিন, ব্লেসিং মুজারাবানিদের মিলিয়ে বেশ অভিজ্ঞ দল নিয়েই শান্ত-হৃদয়দের বিপক্ষে খেলতে আসছে জিম্বাবুয়ে। 

এদিকে জোনাথন ছিলেন সবশেষ আফ্রিকান গেমসে সোনাজয়ী জিম্বাবুয়ে ইমার্জিং দলে। সেখান থেকেই বিবেচিত হলেন জাতীয় দলে। টপ-অর্ডার ব্যাটার ছাড়াও নিয়মিত লেগ স্পিনার হিসেবেও কার্যকরী এই ২৬ বছর বয়সী ক্রিকেটার। 

আগামী ৩ মে শুরু হবে সিরিজের প্রথম ম্যাচটি। সেই ম্যাচ সহ সিরিজের পরের দুই ম্যাচ যথাক্রমে ৫ ও ৭ মে অনুষ্ঠিত হবে চট্টগ্রামে। সিরিজের সেই দুই ম্যাচ মিরপুরের হোম অব ক্রিকেটে, ১০ ও ১২ মে। 

বাংলাদেশ সফরের জিম্বাবুয়ে দল: সিকান্দার রাজা (অধিনায়ক), ফারাজ আকরাম, বেনেট ব্রায়ান, রায়ান বার্ল, জোনাথন ক্যাম্পবেল, ক্রেইগ আরভিন, জয়লর্ড গাম্বি, লুক জংওয়ে, ক্লাইভ মাদান্দে, তাদিওয়ানাশে মারুমানি, ওয়েলিংটন মাসাকাদজা, ব্লেসিং মুজারাবানি, আইনস্লে এন্ডলোভু, রিচার্ড এনগারাভা, শন উইলিয়ামস। 

;

হাল ছেড়ে দেয়ার আক্ষেপ পচেত্তিনোর



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা ২৪
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রিমিয়ার লিগের তথাকথিত ‘বিগ সিক্স’-এর দুই দলের খেলা। যদিও ফর্ম আর ক্লাবের বর্তমান পারিপার্শ্বিকতার দিক দিয়ে আর্সেনাল-চেলসি এখন দুই মেরুতে। আর্সেনাল যেখানে লিগ শিরোপার দৌড়ে ম্যানচেস্টার সিটি আর লিভারপুলকে টক্কর করে দিচ্ছে, সেখানে চেলসি কোনো মতে লিগ টেবিলের প্রথমভাগে থাকার চেষ্টা করছে। গত রাতে লিগে এই দুই দলের খেলায় চেলসিকে ৫-০ গোল ধসিয়ে দিয়েছে আর্সেনাল।

খেলোয়াড়রা দ্বিতীয়ার্ধে হাল ছেড়ে দিয়েছেন বলে ম্যাচশেষে আক্ষেপ করেছেন চেলসি কোচ মরিসিও পচেত্তিনো, ‘আমরা মাঝবিরতিতে কথা বলেছিলাম যে, এমন ম্যাচ আমরা এভাবে শুরু করতে পারি না। দ্বিতীয়ার্ধে আমরা আবার বাজেভাবে শুরু করি। দুই গোল হজম করার পর দলের সবাই হাল ছেড়ে দেয়। এরপর তো আমরা ম্যাচেই ছিলাম না।’

আর্সেনালের সামনে এমন অসহায় আত্মসমর্পণে খেলোয়াড়দের চারিত্রিক দৃঢ়তা নিয়ে তার মনে প্রশ্ন জেগেছে কিনা এমন কথা নাকচ করে দিয়ে পচেত্তিনো বলেন, ‘না, এটা আসলে চারিত্রিক দৃঢ়তার বিষয় না। আমি ফুটবল খেলেছি, অনেক বড় বড় খেলোয়াড়দের সঙ্গে খেলার সময় এমন পরিস্থিতির সম্মুখীন হয়েছি। আমি ম্যারাডোনা, বাতিস্তুতা, রোনালদিনহোদের সঙ্গে খেলেছি। মৌসুমের কোনো এক সময় যখন এমন কিছু হয়, তখন এই বড় মাপের খেলোয়াড়রাও হাল ছেড়ে দেয়।’

তবে মৌসুমের এই পর্যায়ে এসে চেলসির জন্য এমন হাল ছেড়ে দেয়ার মানে সমূহ বিপর্যয়। আর্সেনালের কাছে বড় হারের পর চেলসির পয়েন্ট এখন ৩২ ম্যাচে ৪৭, পয়েন্ট টেবিলে অবস্থান নবম। আগামী মৌসুমে অন্তত ইউরোপা কনফারেন্স লিগে খেলতে হলেও তাদের পেছনে ফেলতে হবে সাতে থাকা ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড এবং আটে থাকা ওয়েস্ট হ্যাম ইউনাইটেডকে। ৩৪ ম্যাচ খেলা ওয়েস্ট হ্যামের পয়েন্ট এখন ৪৮ আর চেলসির সমান ৩২ ম্যাচ খেলে ম্যান ইউনাইটেডের প্রাপ্তি ৫০ পয়েন্ট।

;

শুভ জন্মদিন ‘লিটল মাস্টার ব্লাস্টার’



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

শচীন রমেশ টেন্ডুলকার, যিনি শুধুমাত্র একজন ক্রিকেটারই নন, বরং প্রজন্মের পর প্রজন্মের জন্য একজন অনুপ্রেরণা। বিশ্বজুড়ে কত খেলোয়াড় যে শচীনের খেলা দেখে এবং শচীনের খেলার ধরণকে অনুসরণ করেই ক্রিকেটকে ভালোবেসেছেন তার হিসেব বের করা দুষ্কর।

ক্রিকেট খেলাটাকে যারা পছন্দ করেন তারা শচীনকেও পছন্দ করেন বা ভালোবাসেন। বিশ্বের বেশিরভাগ খেলোয়াড়েরই ভক্ত ও শুভাকাঙ্ক্ষীর পাশাপাশি ‘হেটার’ থাকলেও শচীনকে অপছন্দ করে এমন কাউকে আপনি খুঁজে পাবেন না।

ভারতীয়দের কাছে শচীন টেন্ডুলকার একজন দেবতা সমতুল্য। ভারতীয়রা ক্রিকেট খেলাটাকে যেভাবে মনেপ্রাণের সঙ্গে মিশিয়ে রেখেছেন, ঠিক তার পাশাপাশি শচীনের জন্যও তাদের হৃদয়ে একটি বিশেষ জায়গা আছে। তাই তো ভারতীয় ক্রিকেট দলের কথা শুনলে বা ভাবলেই তাদের মাথায় সর্বপ্রথমেই ভেসে ওঠে শচীনের ছবি।

বর্ণিল ক্রিকেট ক্যারিয়ারে ব্যাট হাতে কতশত রেকর্ড যে শচীন নিজের নামে করেছেন তার সঠিক হিসেব হয়ত তিনি নিজেও জানেন না। ২০১১ সালে নিজ দেশ ভারতের মাটিতে বিশ্বকাপের শিরোপাটি হাতে তুলে নিয়ে ক্যারিয়ারকে দিয়েছেন পূর্ণতা, নিজেকে নিয়ে গেছেন অনন্য এক উচ্চতায়।

আজ ২৪শে এপ্রিল শচীনের জন্মদিন। হাফ সেঞ্চুরি পেরিয়ে ৫১তে পা রাখলেন সাবেক ভারতীয় এই তারকা ক্রিকেটার। সর্বকালের সেরা ক্রিকেটারের মধ্যে একজনের জন্মদিন আজ, খুব স্বাভাবিকভাবেই সোশ্যাল মিডিয়া যেন ভেসে যাচ্ছে শচীনময় পোস্টে। জন্মদিনের উইশ করে তাকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন দেশি-বিদেশি একাধিক ক্রিকেটার এবং ক্রীড়া জগতের মানুষেরা।

চলমান আইপিএলের প্রায় সব ফ্র্যাঞ্চাইজির অফিশিয়াল পেজ ও প্রোফাইল থেকেই তাকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানিয়ে দেওয়া হয়েছে পোস্ট। এছাড়াও ভারত জাতীয় দলের পেজ ছাড়াও অন্যান্য দেশের বিভিন্ন পেজেও তার ছবি শেয়ার জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানানো হয়েছে তাকে।

শুভেচ্ছা জানানোর এই তালিকা থেকে বাদ পড়েননি শচীনের সতীর্থরাও। তার সঙ্গে একই স্কোয়াডে বিশ্বকাপ খেলা যুবরাজ সিং লিখেছেন, ‘শুভ জন্মদিন ক্রিকেট ঈশ্বর! মাঠে বোলারদের নাস্তানাবুদ করা থেকে শুরু করে জীবনের প্রতিটি ধাপের সকল অর্জন, আপনার থেকেই শিখেছি জীবনের লক্ষ্য কিভাবে আরও উচ্চতায় নিতে হয়। অনেক অনেক ভালোবাসা!’

আরেক সাবেক ভারতীয় ব্যাটার সুরেশ রাইনা বলেছেন, ‘আপনার বর্ণিল ক্যারিয়ার লক্ষ লক্ষ মানুষকে অনুপ্রাণিত করেছে, মাঠে এবং মাঠের বাইরে উভয় ক্ষেত্রেই আপনি আদর্শ। আপনার স্বাস্থ্য, জীবন যেন সুন্দর-সুখের হয় এবং আপনার কভার ড্রাইভের মতোই যেন দুর্দান্ত একটি বছর আপনার কাটুক এই কামনা করছি!’

তার সঙ্গে খেলার সুযোগ না হলেও তাকে আদর্শ মানেন বর্তমান প্রজন্মের ভারতীয় ক্রিকেটাররাও। যার যার সোশ্যাল মিডিয়ায় শচীনকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানিয়ে পোস্ট দিয়েছেন শুবমান গিল, বিরাট কোহলি সহ আরও অনেক ভারতীয় ক্রিকেটার। এছাড়াও তাকে ভিডিও বার্তার মাধ্যমে উইশ করেছেন বিভিন্ন দেশের ক্রিকেটাররা।

;

আর্সেনালের গোলবন্যায় ভাসলো চেলসি



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

‘লন্ডন ডার্বি’-তে গতরাতে নিজেদের মাঠে যেন সেরা ফর্মেই ছিল আর্সেনাল। চেলসির সঙ্গে রীতিমত ছেলেখেলা করেছে তারা। ব্লুজদের জাল বরাবর মোট ২৭টি শট চালিয়েছে গানাররা। বিপরীতে চেলসি নিয়েছে মাত্র একটি শট। এই পরিসংখ্যানেই বোঝা যায় যে ঘরের মাঠে গতরাতের ম্যাচে কেমন দাপুটে ছিল আর্সেনাল।

এমিরেটসে দলীয় নৈপুণ্যে মরিসিও পচেত্তিনোর দলকে ৫-০ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে স্বাগতিকরা। আর এই জয়ের মাধ্যমে প্রিমিয়ার লিগের শিরোপার দৌড়ে নিজেদের আরও এক ধাপ এগিয়ে নিল আর্সেনাল।

এদিন ম্যাচে শুরু থেকেই চেলসিকে চেপে ধরে আর্সেনাল। ইংলিশ মিডফিল্ডার ডেকলান রাইসের বাড়িয়ে দেওয়া বল থেকে জালের ঠিকানা খুঁজে নেন লিয়ান্দ্রো ট্রোসার্ড। পরপর আরও কিছু আক্রমণ করে স্বাগতিকরা ব্যস্ত রাখে নীল জার্সিধারী ডিফেন্ডারদের। তবে প্রথমার্ধে আর কোনো গোলের দেখা পায়নি তারা।

আক্রমণ কিংবা রক্ষণ, কোনো ক্ষেত্রেই একটুও নিয়ন্ত্রণ ছিল না চেলসির। বিরতির পর চেলসির ডিফেন্স লাইন যেন তাদের ঘরের মতো পুরোটাই ভেঙে পড়ে। কারণ মাত্র ১৮ মিনিটের ব্যবধানে চেলসি হজম করে পুরো এক হালি গোল। ৫২তম মিনিটে হোয়াইট, ৫৭ ও ৬৫তম মিনিটে হাভার্টজ এবং ৭০তম মিনিটে আবারও হোয়াইটের গোলে যেন পুরোপুরি উড়ে যায় চেলসি।

৩৪ ম্যাচ শেষে শীর্ষে থাকা আর্সেনালের পয়েন্ট ৭৭। এক ম্যাচ কম খেলা লিভারপুলের পয়েন্ট ৭৪ এবং দুই ম্যাচ কম খেলা ম্যানচেস্টার সিটির পয়েন্ট ৭৩। সিটি নিজেদের পরের দুই ম্যাচের কোনটিতে হোঁচট খেলে শিরোপার দিকে আরও এক ধাপ এগিয়ে যাবে আর্সেনাল। তাই আপাতত টাইটেল রেসে আর্সেনাল এগিয়ে আছে তা বলাই যায়।

;