ফার্স্ট সেল দিয়ে বাজারে যাত্রা শুরু করলো অপো এফ১৭ ও এনকো ডব্লিউ৫১



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবিঃ সংগৃহীত

ছবিঃ সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

তরুণদের লাইফস্টাইলকে সমুন্নত করতে ১৪ অক্টোবর থেকে ফার্স্ট সেলের মধ্যে দিয়ে অপো তাদের নতুন স্মার্টফোন– অপো এফ১৭ এবং ট্রু ওয়্যারলেস হেডফোন (টিডব্লিউএস)– এনকো ডব্লিউ৫১-এর যাত্রা শুরু করেছে বাংলাদেশের বাজারে।

নতুন প্রজন্মের তরুণদের প্রযুক্তিগত চাহিদা পূরণের জন্য বিশেষভাবে ডিজাইন করা গ্যাজেটগুলোর প্রি-অর্ডার শুরু হয় ১২ তারিখে যা গত ৮ অক্টোবর অবমুক্ত করা হয়। অপো এফ১৭-এর বাজার মূল্য ২২,৯৯০ টাকা এবং এনকো ডব্লিউ৫১ এর দাম ৭,৯৯০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

ছাত্র এবং তরুণ পেশাদারদের সারাদিন কাটে স্মার্টফোনের সাথে। কখনও কাজ করে, কখনও ছবি-ভিডিও দেখে অথবা গান শুনে। আর এফ১৭-এর ২৪০০*১০৮০ এফএইচডি+ ডিসপ্লেতে এসব কাজের অভিজ্ঞতা আরো চমৎকার হবে। গরিলা গ্লাস ৩ দ্বারা সুরক্ষিত ডিসপ্লের স্ক্রিন-টু-বডি রেশিও ৯০.৭ শতাংশ। জীবনের প্রতিটি সুন্দর মুহূর্তের অনন্য ছবি তোলার জন্য এফ১৭ ডিভাইসটিতে ১৬ মেগাপিক্সেলের মূল ক্যামেরার সাথে আছে ৮ মেগাপিক্সেলের আল্ট্রা-ওয়াইড-অ্যাঙ্গেল লেন্স এবং দুর্দান্ত পোর্টেট তোলার জন্য ২ মেগাপিক্সেলের দুটি মনো ক্যামেরা।

এছাড়া, উজ্জ্বল নান্দনিক সেলফির জন্যে আছে অসাধারণ ফ্রন্ট ক্যামেরা। সারাদিনের বিরতিহীন স্মার্টফোন ব্যবহারের জন্যে ৪,০১৫ মিলিঅ্যাম্পিয়ারের ব্যাটারির সাথে আছে ৩০ ওয়াটের ভোক ফ্ল্যাশ চার্জ ৪.০।

চমৎকার কর্মদক্ষতার জন্যে ফোনটিতে আছে ৮ গিগাবাইট এলপিডিডিআর৪এক্স র‍্যাম, স্ন্যাপড্রাগন ৬৬২ চিপসেট, ১২৮ গিগাবাইট ইউএফএস ২.১ রমসহ আরো নানান ফিচার।

এআইওটি জগতে আরেক ধাপ এগিয়ে যেতে এফ১৭-এর সাথে এনকো ডব্লিউ৫১ নিয়ে এসেছে অপো। ব্র্যান্ডটির সর্বশেষ টিডব্লিউএসে ট্রিপল মাইক্রোফোন নয়েস ক্যান্সেলেশন ও হাইব্রিড অ্যাক্টিভ ক্যান্সেলেশনে যেকোন ধরনের মিউজিক হবে আরো উপভোগ্য এবং কথা বলায় মিলবে চমৎকার অভিজ্ঞতা। অডিও-ভিডিওতে অনন্য সিনক্রোনাইজেশন ও দ্রুত ট্রান্সমিশনের জন্যে আছে বাইনরাল লো-ল্যাটেন্সি। আইপি৫৪ রেটিং থাকায় ভাবতে হবে না ধুলোবালি নিয়েও। আর এক চার্জে মিউজিক প্লেব্যাক করা যাবে ২৪ ঘণ্টা পর্যন্ত।

ফার্স্ট সেল প্রসঙ্গে অপো বাংলাদেশের পিআর অ্যান্ড কমিউনিকেশনের ম্যানেজার জোশিতা সানজানা রিজভান বলেন, “গ্রাহকদের হাতে সেরা পণ্যটা তুলে দেয়াটাই আমদের মূল লক্ষ্য। আজকের তরুণদের জন্য যারা একটি মজার এবং ফ্যাশনেবল জীবন-যাপন পছন্দ করেন, তাদের জন্যেই এফ১৭। এর সাথে এনকো ডব্লিউ৫১-এর ব্যবহারে যেকোন কিছুই শোনার অভিজ্ঞতা হবে আরো উপভোগ্য। উদ্ভাবন ও সামর্থ্যকে প্রাধান্য দিয়েই ডিভাইস দুটি ডিজাইন করা হয়েছে।”

বিস্ময়কর ডিভাইস দুটি এখন অপোর অফিসিয়াল স্টোরসহ সকল স্মার্টফোন স্টোর এবং অনলাইন ক্রয়ের জন্যে পাওয়া যাচ্ছে।

বিআইজেএফ নির্বাচন সভাপতি পদ অমীমাংসিত



আইসিটি ডেস্ক
বিআইজেএফ নির্বাচন সভাপতি পদ অমীমাংসিত

বিআইজেএফ নির্বাচন সভাপতি পদ অমীমাংসিত

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংদেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের সাংবাদিকদের সংগঠন বাংলাদেশ আইসিটি জার্নালিস্ট ফোরামের (বিআইজেএফ) ২০২২-২৪ মেয়াদের নির্বাচনে সভাপতি পদে নাজনীন নাহার বেগম (টেকওয়ার্ল্ড) এবং মো. জাকির হাসান (সমকাল) সমানসংখ্যক ২৫টি করে ভোট পেয়েছেন। সমান সংখ্যক ভোট পাওয়ায় সভাপতি পদ ছাড়াই বিজয়ী প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করেছে বিআইজেএফ নির্বাচন কমিশন। নির্বাচনে ভোট পড়েছে ৫০টি। নির্বাচনে মোট ভোটার ছিল ৫৪ জন।

সভাপতি পদে অমীমাংসিত বিষয়ে বিআইজেএফ নির্বাচন কমিশনের চেয়ারম্যান এশিয়ান-ওশেনিয়ান কম্পিউটিং ইন্ডাস্ট্রি অর্গানাইজেশনের (অ্যাসোসিও) সাবেক সভাপতি আবদুল্লাহ এইচ কাফি বার্তা২৪ ডটকমকে জানান, দুজন প্রার্থীই সমান সংখ্যক ভোট পাওয়ায় আলোচনার ভিত্তিতে এক বছর মেয়াদে সভাপতি পদে দায়িত্ব পালনের ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন। সমাজসেবা অধিদপ্তরে এই সংক্রান্ত নীতিমালা দেখে আমরা এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানাব।

বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সাধারণ সম্পাদক পদে নির্বাচিত হয়েছেন বার্তা২৪ ডটকম’র কনসালটেন্ট এডিটর (আইসিটি) সাব্বিন হাসান।

নির্বাহী কমিটির পাঁচটি পদে (সহসভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, সাংগঠনিক সম্পাদক ও দুটি নির্বাহী সদস্য) একাধিক প্রার্থী না থাকায় চারটি পদে ভোট গ্রহণ করা হয়। চারটি পদে লড়েছেন ১০ জন প্রার্থী। নির্বাচিত অন্যরা হলেন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাজেদুর রহমান (নতুন সময়), কোষাধ্যক্ষ সাইফুল ইসলাম (বিজটেক ২৪ ডটকম) এবং প্রকাশনা ও গবেষণা সম্পাদক আসাদুজ্জামান (ঢাকামেইল ডটকম)।

বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আরও বিজয়ী হয়েছেন সহসভাপতি ভূঁইয়া মোহাম্মদ ইনাম (কম্পিউটার বিচিত্রা), সাংগঠনিক সম্পাদক মো. আরিফুল ইসলাম (ঢাকাপোস্ট) এবং নির্বাহী সদস্য এস এম ইমদাদুল হক (ডিজিবাংলা) ও মো. এনামুল করিম (ডিজিটাল সময়)।

শুক্রবার রাজধানীর কারওয়ান বাজারে সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কের সম্মেলনকক্ষে সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৪টা অবধি ভোট গ্রহণ করা হয়।

বিআইজেএফের নির্বাচন কমিশনের সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক এ আর এম মাহমুদ হোসেন ও পল্লব মোহাইমেন। আপিল বোর্ডে আছেন সুমন ইসলাম ও আরিফুল হাসান।

;

আইফোনের ডিজাইন ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে কাজ করছেন বাংলাদেশের মাহিন



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
আইফোনের ডিজাইন ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে কাজ করছে বাংলাদেশের মাহিন

আইফোনের ডিজাইন ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে কাজ করছে বাংলাদেশের মাহিন

  • Font increase
  • Font Decrease

ক’দিন আগে উন্মোচন করা হয়েছে মার্কিন টেকনোজায়ান্ট এপলের যুগান্তকারি সৃষ্টি আইফোন ১৪ সিরিজ। সারা বিশ্বে প্রায় ২০০ কোটি পিস সেলফোন বিক্রি করা এই প্রতিষ্ঠানটির ধারের কাছেও নেই বিশ্বের কোন মোবাইল ফোন তৈরি করা প্রতিষ্ঠান।

আইফোনের চমকপ্রদ নকশা, প্রযুক্তিগত উৎকর্ষতা এটিকে দিয়েছে সেলফোনের জগতে সম্রাটের স্থান। বিশ্বখ্যাত এই আইফোনের ডিজাইন ইঞ্জিনিয়ারিং টিমের সাথে কাজ করছেন বাংলাদেশের সন্তান মাহিন মাশরুর। যতটুকু জানা যায় মাহিনই একমাত্র বাংলাদেশি যে প্রোডাক্ট ডিজাইনার হিসেবে কাজ করছেন।

মাহিনের জন্ম ঢাকার উত্তরায়, ১৯৯৯ সালে। উত্তরার ‘ইন্টারন্যাশনাল এডুকেশন সেন্টারের চতুর্থ শ্রেণিতে পড়ার সময় বাবা মা’র সাথে চলে যায় কানাডায়। ২০১৮ সালে ভর্তি হন কানাডার মর্যাদাপূর্ণ প্রতিষ্ঠান ওয়াটারলু ইউনিভার্সিটির মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং ডিপার্টমেন্টে।


ছোটবেলা থেকেই প্রযুক্তির প্রতি অসম্ভব আকর্ষণ মাহিনের। ওয়াটারলু ইউনিভার্সিটির নতুন নতুন প্রযুক্তির সাথে সম্পৃক্ত থেকে তিনি তার যোগ্যতার প্রমাণ দিয়েছেন। চলতি বছরের প্রথম দিকে যখন সে তার ফাইনাল পরীক্ষা নিয়ে ব্যস্ত তখন আবেদন করেছিলেন চাকরি। ইলনমাস্কের টেসলা, স্পেসএক্স, এ্যাপল এবং অনেক কানাডিয়ান নামকরা প্রতিষ্ঠান থেকে তিনি ইন্টারভিউ এর ডাক পান। মাহিন তার শেষবর্ষের পরীক্ষা শেষ করার আগেই ইন্টারভিউ এর চারটি ধাপ অতিক্রম করে এ্যাপলের আইফোন ডিজাইন ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে যোগ দেয়ার সুযোগ পান।

গত ১৫ জুলাই সে যোগ দিয়েছে ক্যালিফোর্নিয়ার কুপার্টিনোর স্টিভ জবস এর সেই বিখ্যাত ভবন অ্যাপল পার্কে। আইফোনের পরবর্তি সংস্করণের নকশায় বাংলাদেশের এই তরুণ মেধাবীর সম্পৃক্ততা থাকবে।

মেধাবী মাহিনের বাবা মা দুজনেই কৃষিবিদ। তাদের পৈত্রিক নিবাস উত্তরের জেলা গাইবান্ধা সদরের পলাশপাড়ায়। দেশে তার বাবা মোমিনুল আজম চাকরি করতেন বিসিএস (ডাক) ক্যাডারে আর মা মাহমুদা আনোয়ার ছিলেন বিসিএস (কৃষি) ক্যাডার। সন্তানদের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে ২০১০ সালে পাড়ি জমান কানাডায়। মাহিনের বড় ভাই মুহিবও কানাডায় মেধার স্বাক্ষর রেখেছেন।

;

ডিজিটাল প্রবৃদ্ধি, অর্থনীতি ও ইকোসিস্টেমকে ত্বরান্বিত করবে হুয়াওয়ে কানেক্ট



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ডিজিটাল প্রবৃদ্ধি, অর্থনীতি ও ইকোসিস্টেমকে ত্বরাণ্বিত করবে হুয়াওয়ে কানেক্ট

ডিজিটাল প্রবৃদ্ধি, অর্থনীতি ও ইকোসিস্টেমকে ত্বরাণ্বিত করবে হুয়াওয়ে কানেক্ট

  • Font increase
  • Font Decrease

থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাংককে শুরু হয়েছে বৈশ্বিক আইসিটি খাতের জন্য হুয়াওয়ের সপ্তম বার্ষিক ফ্ল্যাগশিপ প্রোগ্রাম হুয়াওয়ে কানেক্ট ২০২২। ‘আনলিশ ডিজিটাল’ প্রতিপাদ্যের এই আয়োজনে সারা বিশ্বের আইসিটি খাতের দশ হাজারেরও বেশি শীর্ষস্থানীয় নেতৃবৃন্দ, বিশেষজ্ঞ এবং সহযোগীরা অংশগ্রহণ করেন। কীভাবে আরও কার্যকরভাবে ডিজিটাল প্রবৃদ্ধি বাড়ানো যায়, ডিজিটাল অর্থনীতিকে উৎসাহিত করা যায় এবং শক্তিশালী ডিজিটাল ইকোসিস্টেম তৈরি করা যায় তার ওপর অনুষ্ঠানে গুরুত্বারোপ করেন অংশগ্রহণকারী সকলে।

সব ধরনের সহযোগিতা ও সাফল্য ভাগ করে নেয়ার প্রতিশ্রুতি পুনর্ব্যক্ত করার পাশাপাশি করে স্থানীয় ডিজিটাল ইকোসিস্টেম গড়ে তোলার জন্য সরকার ও এন্টারপ্রাইজগুলোকে আরো ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করার জন্য এই আয়োজনে আহ্বান জানায় হুয়াওয়ে। কারণ হুয়াওয়ের মতে, এই অংশীদারিত্বই উদ্ভাবনী অংশীদারদের একত্রিত করবে, মেধাবীদের বিকাশ ঘটাবে ও স্টার্টআপগুলোর প্রবৃদ্ধিতে সহায়তা প্রদান করবে।

অনুষ্ঠানের মূল বক্তব্যে হুয়াওয়ের এশিয়া-প্যাসিফিক অঞ্চলের প্রেসিডেন্ট সায়মন লিন বলেন, “হুয়াওয়ে এই অঞ্চলে ডিজিটাল অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। আমরা ধারাবাহিকভাবে এর ডিজিটালাইজেশন ও টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিত করতে এবং ইন্ডাস্ট্রি ইকোসিস্টেম তৈরিতে প্রয়োজনীয় সহায়তা প্রদানে সচেষ্ট থাকবো।”

এশিয়া-প্যাসিফিক অঞ্চলের সরকারি প্রতিনিধিরাগণও তাঁদের নিজ-নিজ দেশে ডিজিটাল অর্থনীতির উন্নয়নের অগ্রগতি নিয়ে বক্তব্য প্রদান করেন। এদের মধ্যে রয়েছেন: বাংলাদেশের পরিকল্পনামন্ত্রী এম.এ. মান্নান; থাইল্যান্ডের উপ-প্রধানমন্ত্রী ও জ্বালানি মন্ত্রী সুপ্তানাপং পুনমিচাও, এবং ইন্দোনেশিয়া ও ফিলিপাইন সরকারের অন্যান্য প্রতিনিধিগণ।

বিশাল এই আয়োজনের উদ্বোধনী দিনে বাংলাদেশের পরিকল্পনামন্ত্রী এম.এ. মান্নান তাঁর মূল বক্তব্যে বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধির বিষয়টি তুলে ধরেন। তিনি সকলের সামনে বাংলাদেশের আইসিটি খাত, অবকাঠামো এবং বিদ্যুৎ উৎপাদন খাতে এই দেশের অগ্রগতিগুলো তুলে ধরেন। গত কয়েক বছরে টেলিযোগাযোগ খাতের ওপর এই দেশের গুরুত্বারোপ ও উন্নয়নমূলক কাজের কথা উল্লেখ করতে গিয়ে তিনি দেশের টুজি থেকে ফোরজি’র অগ্রগতির প্রশংসা করেন এবং বর্তমানে বাংলাদেশের সবাই যে ফোরজি কাভারেজ সুবিধা পাচ্ছেন সেই বিষয়টিও তুলে ধরেন। ফাইভি প্রযুক্তি চালুর মাধ্যমে বিশ্বের অন্যান্য দেশগুলোর মতো বাংলাদেশও যে সামনের সারিতে দাঁড়িয়েছে সে বিষয়েও আলোকপাত করেন তিনি।

তিনি তাঁর মূল বক্তব্যে হুয়াওয়েকে বিগত ২৩ বছর ধরে বাংলাদেশে আইসিটি ও ডিজিটাল পাওয়ার খাতে সহায়তা করার মাধ্যমে ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্ন পূরণের অংশীদার হিসেবে আখ্যা দিয়েছেন। বাংলাদেশে ডিজিটাল প্রবৃদ্ধি বাড়ানোর জন্য উন্নত টেলিকম যোগাযোগ, ক্লাউড কম্পিউটিং, ডিজিটাল এনার্জি, স্মার্ট ফটোভোলটাইক্স প্রযুক্তি আনতে হুয়াওয়ের সদিচ্ছার কথাও তিনি উল্লেখ করেন। স্থানীয় মেধাবীদের বিকাশ ও প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে সৃষ্ট জরুরি পরিস্থিতিতে হুয়াওয়ে যে ভূমিকা পালন করছে সেই বিষয়টিও উঠে আসে তাঁর বক্তব্যে।

প্রাসঙ্গিকভাবেই এই অনুষ্ঠানে সাইমন লিন ডিজিটাল ফার্স্ট ইকোনমি শ্বেতপত্র প্রকাশ করেছেন, যেখানে এশিয়া-প্যাসিফিক অঞ্চলে ডিজিটাল অবকাঠামো নির্মাণ এবং ডিজিটাল অর্থনীতির উন্নয়নের লক্ষ্যে নীতিগত পরামর্শের বিষয়টি উল্লেখ করা আছে।

২০২২ সালে হুয়াওয়ে কানেক্ট এর গ্লোবাল ট্যুরের প্রথম ধাপ হলো ব্যাংককের তিন দিনের এ সম্মেলনটি। দু’টি মূল অধিবেশন, ছয়টি শীর্ষ সম্মেলনের পাশাপাশি একাধিক ব্রেক-আউট সেশন ও ডেমোসহ চলতি বছরের এ অনুষ্ঠানটিতে সরকার ও এন্টারপ্রাইজগুলো ডিজিটাল রূপান্তরের পথচলায় যে সব প্রতিকূলতার মুখোমুখি হচ্ছে, ডিজিটাল অবকাঠামোতে হুয়াওয়ের অগ্রগতি, প্রতিষ্ঠানটির সর্বাধুনিক ক্লাউড সার্ভিস ও ইকোসিস্টেম পার্টনার সল্যুশন এর বিভিন্ন বিষয়গুলো তুলে ধরা হয়।

;

সাশ্রয়ী মূল্যে ইউনিক ইন্টারন্যাশনাল কলেজকে কর্পোরেট সেবা দিবে টেলিটক



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
সাশ্রয়ী মূল্যে ইউনিক ইন্টারন্যাশনাল কলেজকে কর্পোরেট সেবা দিবে টেলিটক

সাশ্রয়ী মূল্যে ইউনিক ইন্টারন্যাশনাল কলেজকে কর্পোরেট সেবা দিবে টেলিটক

  • Font increase
  • Font Decrease

সাশ্রয়ী মূল্যে ইউনিক ইন্টারন্যাশনাল স্কুল অ্যান্ড কলেজ কে কর্পোরেট সেবা দিবে রাষ্টায়ত্ব মোবাইল সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান টেলিটক বাংলাদেশ লিমিটেড।

রাষ্টায়ত্ব মোবাইল সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান টেলিটক বাংলাদেশ লিমিটেড -এর কর্পোরেট সেবা ব্যবহারের লক্ষ্যে ইউনিক ইন্টারন্যাশনাল স্কুল অ্যান্ড কলেজ এবং টেলিটক বাংলাদেশ লিমিটেড এর মধ্যে ১১ সেপ্টেম্বর একটি সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠিত হয়। চুক্তির পরিপ্রেক্ষিতে টেলিটক বাংলাদেশ লিমিটেড সাশ্রয়ী মূল্যে ইউনিক ইন্টারন্যাশনাল স্কুল অ্যান্ড কলেজ- কে ভয়েস, ইন্টারনেট সেবা সহ বিভিন্ন কর্পোরেট সেবা প্রদান করবে।

চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে টেলিটক বাংলাদেশ লিমিটেড– এর মহাব্যবস্থাপক (বিক্রয়, বিতরণ ও গ্রাহক সম্পর্ক ব্যবস্থাপনা) সালেহ্‌ মোঃ ফজলে রাব্বী এবং মহাব্যবস্থাপক (পরিকল্পনা ও বাস্তবায়ন) এ. এম. আখতারুল ইসলাম– এর উপস্থিতিতে, টেলিটক বাংলাদেশ লিমিটেড– এর পক্ষে মোঃ সাইফুর রহমান খান, অতিরিক্ত মহাব্যবস্থাপক (কর্পোরেট সেলস্‌ এন্ড আইবি) এবং ইউনিক ইন্টারন্যাশনাল স্কুল অ্যান্ড কলেজ - এর পক্ষে প্রধান শিক্ষক মোঃ কাওসার চুক্তি স্বাক্ষর করেন।

এছাড়াও উক্ত চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে টেলিটক বাংলাদেশ লিমিটেড এর পক্ষে মোস্তফা কামাল, জ্যেষ্ঠ ব্যবস্থাপক (কর্পোরেট সেলস্‌), মোঃ বেলাল উদ্দিন সজীব, ব্যবস্থাপক (কর্পোরেট সেলস), নিলুফার ইয়াসমিন, উপ-ব্যবস্থাপক (কর্পোরেট সেলস) সহ উভয় প্রতিষ্ঠানের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগন উপস্থিত ছিলেন।

;