ব্যতিক্রমী আয়োজনে আয়ারল্যান্ডে হিজাব দিবস পালন

ব্যতিক্রমী আয়োজনে আয়ারল্যান্ডে হিজাব দিবস পালন, ছবি: সংগৃহীত

ইসলাম ডেস্ক, বার্তা২৪.কম

আয়ারল্যান্ডের মুসলিম নারীরা ব্যতিক্রমী আয়োজনে শুক্রবার সপ্তম বিশ্ব হিজাব দিবস পালন করছেন। এবার দিবসের প্রতিপাদ্য ছিলো- ‘প্রথাগত ধ্যানধারণার সীমান্ত ভেঙে দাও।’

ডাবলিন শহরের পোর্টবেলো অঞ্চলের একটি হোটেলে হিজাব দিবস উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠান আগত নারীদের ভিড়ে কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে উঠে। তাদের বেশিরভাগই রঙবেরঙের জিলবাব এবং বৈচিত্র্যপূর্ণ হিজাব পরিধান করে অনুষ্ঠানে অংশ নেন। তবে তাদের কেউই নেকাব বা এমন পর্দা যা পুরো মুখমণ্ডল ঢেকে রাখে এমন হিজাব পরিধান করেননি আর এ ধরনের হিজাব আয়ারল্যান্ডে প্রচলিতও নয়।

আয়ারল্যান্ড রিপাবলিকের তৃতীয় বৃহত্তম ধর্ম বিশ্বাস ইসলাম। ২০১৬ সালের এক আদম শুমারি অনুযায়ী দেশটিতে প্রায় ৬৫ হাজার মুসলিমের বসবাস।

বিশ্ব হিজাব দিবস উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে মোট সাতজন বক্তা আলোচনা করেন। তাদের সবাই ছিলেন হিজাব পরিধানকারী।

অনুষ্ঠানে পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত নারী চিকিৎসক ডাক্তার সাবিনা সাইয়্যেদ ‘পর্দার’ কারণে মুসলিম নারীদের জীবনের ইতিবাচক ও নেতিবাচক নানা দিক তুলে ধরেন।

অন্য বক্তা মানাল এলরুফাই বলেন, আমি ২০ বছর ধরে আয়ারল্যান্ডে বসবাস করছি। আমি শুরু থেকেই হিজাব পরিধান করি। তিনি গর্ব করে এক ক্যাথলিক বিদ্যালয় সম্পর্কে বলেন, যেখানে তার কন্যা পড়াশোনা করেন সেখানে তার মেয়ের হিজাব পরিধানকে স্বাভাবিকভাবেই গ্রহণ করা হয়েছে।

অন্য এক ছাত্রী তার বক্তব্যে বলেন, শ্রেণিকক্ষে হিজাব আমাকে উদ্দীপ্ত করে। আমি ভিন্ন ধর্মাবলম্বীদের দ্বারা উৎসাহ পাই।

ট্রিনিটি কলেজের ইতিহাস এবং রাজনীতির ছাত্রী সারা বাবিকার বলেন, তার কলেজের বিতর্ক দল কর্তৃক মধ্যপ্রাচ্যের নারীদের সম্পর্কে ভুল ধারণা দূর করার বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়েছেন। তন্মধ্যে অন্যতম হলো, হিজাব সম্পর্কে সচেতনতা। এসব কাজের জন্য সবার থেকে ব্যাপক সমর্থন পেয়েছেন তিনি।

বিশ্ব হিজাব দিবসের অনুষ্ঠানে আগত ভিন্ন ধর্মাবলম্বীদের গোলাপি হিজাব ও ফুল দিয়ে স্বাগত জানানো হয়।

ইসলাম এর আরও খবর