ঝেড়ে ফেলুন পুরনো জঞ্জাল

ফাওজিয়া ফারহাত অনীকা, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইফস্টাইল
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

শখ করে কিংবা অনেকদিন খুঁজেপেতে কোন একটা জিনিস কেনা হলে সেটার উপরে স্বাভাবিকভাবেই মায়া জন্মে যায়। এমনকি অনেকদিনের ব্যবহৃত জিনিস অকেজো হয়ে গেলেও ফেলে দিতে ইচ্ছা করে না। এভাবেই ঘরে অপ্রয়োজনীয় ও পুরনো জিনিস জমে যায়। যা একেবারেই বাড়তি বোঝা ছাড়া আর কিছুই নয়।

এছাড়াও পরে কাজে আসবে ভেবে রেখে দেওয়া পুরনো জিনিসগুলো আদতে কখনোই কাজে আসে না। উপরন্তু এই সকল জিনিসের জন্য প্রয়োজনীয় নতুন জিনিসগুলো কেনা হয়ে ওঠে না। আজকের ফিচার থেকে লিস্ট তৈরি করে এমনই কিছু পুরনো জিনিস ফেলে দিন, যা কিনা পরিণত হয়েছে ঘরের জঞ্জালে।

পুরনো ছুরি

ছুরির ধার কম গেলে ও অনেকদিনের পুরনো হয়ে গেলে ছুরি পুনরায় ধার করিয়ে ব্যবহার করা হয়। এতে করে ছুরির ধাতব পাত খুব পাতলা ও সূক্ষ্ম হয়ে যায়। যা ব্যবহার ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে যায়। যে কারণে ছুরির ধার একেবারে কমে গেলে নতুন ছুরি কিনে ফেলুন।

পুরনো ওষুধ

পরে প্রয়োজন হতে পারে ভেবে বিভিন্ন ধরণের ওষুধ কিংবা সিরাপ ঘরে রেখে দেওয়া হয়। মেয়াদ উত্তির্ন না হলেও এই সকল ওষুধ সেবন না করাই উত্তম। কারণ ওষুধ সঠিক তাপমাত্রায় সংরক্ষণ করা না হলে, ওষুধের কার্যকারিতা নষ্ট হয়ে যায় অনেকটাই।

বিভিন্ন ধরণের মশলা

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Oct/14/1539497756977.jpg

হাবিজাবি বিভিন্ন ধরণের রান্না করা হবে ভেবে নানান ধরণের মশলা কেনা হলেও বেশিরভাগ মশলাই রয়ে গেছে অব্যবহৃত। মশলা যদি দীর্ঘদিন একই অবস্থায় থাকে, তবে এই সকল মশলা ফেলে দিয়ে নতুন মশলা কিনে ফেলুন। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে মশলা তার ফ্লেভার হারায়।

ব্যবহৃত তোয়ালে/গামছা

নিজের ব্যবহৃত তোয়ালে কিংবা গামছাটির দিকে তাকিয়ে দেখুন তো। নিশ্চয় সেটার রঙ উঠে ফ্যাকাশে হয়ে গেছে, কাপড় পাতলা হয়ে গেছে এবং সুতা উঠে গেছে কিংবা ছিঁড়ে গেছে এখানে সেখানে। এমনটা হলে এক্ষুনি ফেলে দিন ব্যবহৃত তোয়ালে বা গামছাটি।

পুরনো মেকআপ পণ্য

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Oct/14/1539497732718.jpg

যতই নামী ব্র্যান্ডের হোক কিংবা যতই দামী হোক না কেন, একটা নির্দিষ্ট সময় পর কোন মেকআপ পণ্যই ব্যবহার করা উচিৎ নয়। মুখের ত্বক ও চোখ, ঠোঁট খুবই নাজুক ও স্পর্শকাতর অংশ। এই সকল অঙ্গে যেকোন পণ্য ব্যবহারের বিষয়ে সতর্ক হওয়া প্রয়োজন।

লোফাহ

প্রতিদিন গোসল করা হচ্ছে যে জিনিসের সাহায্যে তার বিষয়ে খুব কমই খেয়াল রাখা হয়। প্রতি তিন মাস অন্তর লোফাহ বদলানো প্রয়োজন। নইলে এতে ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া জন্মায়। ফলে বহু ব্যবহৃত লোফাহর সাহায্যে গোসল করা হলে উপকারের বদলে অপকারিতাই দেখা দিবে।

অব্যবহৃত ডায়েরি

ডায়েরি জমানোর শখ থাকে অনেকের। দেখা যায় বুক শেলফের তাক ভর্তি অব্যবহৃত ডায়েরি। যা ঘরের জায়গা নষ্ট করছে এবং ঘরে ধুলাবালির আনাগোনা বাড়াচ্ছে। অব্যবহৃত এই সকল ডায়েরি প্রয়োজন হবে এমন কাউকে দিয়ে দিতে হবে।

আপনার মতামত লিখুন :