যে কারণে শরীরের বিভিন্ন অঙ্গে দুর্গন্ধ দেখা দেয়

ফাওজিয়া ফারহাত অনীকা, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইফস্টাইল
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রতিটা মানুষের শরীরের নিজস্ব একটা গন্ধ থাকে।

তবে গন্ধ যখন দুর্গন্ধে রূপ নেয়, তখনই সমস্যা দেখা দেয়। বিব্রতকর এই সমস্যার জন্য শুধু যে লজ্জাষ্কর পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হয় তাই নয়, সঙ্গে থাকে স্বাস্থ্য ঝুঁকির দুশ্চিন্তাও।

শরীরের কয়েকটি অঙ্গে দেখা দেওয়া দুর্গন্ধের কারণ আজকের ফিচারে তুলে ধরা হলো।

আন্ডারআর্মের জেদি দুর্গন্ধ

ভালোমতো গোসল করার পরেও যদি আন্ডারআর্ম বা বগলের দুর্গন্ধ দূর না হয় তবে বুঝতে হবে, শরীরে ম্যাগনেসিয়ামের অভাব দেখা দিয়েছে। উপকারী এই মিনারেল শরীরকে ‘ডিওডোরাইজিং’ তথা দুর্গন্ধমুক্ত হতে সাহায্য করে, এমনটাই জানান কার্ডিওলজিস্ট রবার্ট সিগ্যাল। অতিরিক্ত ক্যাফেইন, চিনি ও ফাস্ট ফুড খাওয়ার ফলে শরীরে ম্যাগনেসিয়ামের অভাব দেখা দেয়। যা থেকেই এমন বাজে ও জেদি গন্ধের উৎপত্তি হয়।

মুখের গন্ধ পচা ডিমের মতো

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Nov/04/1541315471816.JPG

নিয়মিত দাঁত মাজা, ফ্লস করা এমনকি মাউথওয়াশ ব্যবহারের পরেও যদি মুখ থেকে বাজে দুর্গন্ধ, বিশেষত পচা ডিমের মতো গন্ধ বের হয় তবে বুঝে নিতে হবে- ব্যাকটেরিয়াল ইনফেকশনের সমস্যা রয়েছে শরীরে। H.pylori নামক কমন একটি ব্যাকটেরিয়া পরিপাকতন্ত্রে ইনফেকশনাল সমস্যা তৈরি করে। যার ফলে মুখ থেকে অনবরত দুর্গন্ধ বের হয়। এই ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণ সহজে বোঝা যায় না। ফলে অনেক সময় এই ব্যাকটেরিয়াল ইনফেকশন থেকে আলসার ও গ্যাস্ট্রিক ক্যানসারের মতো গুরুত্বর সমস্যাও দেখা দিতে পারে।

মুখ থেকে পচা আপেলের মতো, পচা মাছের মতো, আঁশটে গন্ধ দেখা দিতে পারে। সেক্ষেত্রে দাঁতের সমস্যা, হরমোনজনিত সমস্যা ও জেনেটিক্যাল সমস্যাও থাকতে পারে।

কানে তীব্র ও কটু গন্ধ

খেয়াল করলে দেখা যাবে প্রায়শ কানের পেছনের এবং কানের ভেতরের অংশ থেকে কটু গন্ধ পাওয়া যাচ্ছে। এই সমস্যাটি হয় ইয়ার ওয়াক্সের ফলে। এছাড়া কানের ইনগ্রোন হেয়ার ও সিবাসকাসের নিঃসরণের ফলে কানে ইনফেকশন দেখা দেয়। যা থেকেও এমন বাজে গন্ধ তৈরি হয়।

স্বাভাবিকের চাইতে বাজে গন্ধযুক্ত মল

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Nov/04/1541315498131.JPG

স্বাভাবিক নিয়মে মল দুর্গন্ধযুক্ত হবেই। তবে স্বাভাবিকের চাইতেও তীব্র, ঝাঁঝালো গন্ধ ও পাতলা পায়খানার সমস্যা দেখা দেয় অনেকের। কমল্বিয়া ইউনিভার্সিটির মেডিসিন এন্ড এপিডেমিলজির অ্যাসিসটেন্ট প্রফেসর ড্যানিয়েল ফ্রিডবার্গ জানান, এমন সমস্যা থাকলে বুঝতে হবে ল্যাকটোজ ইনটলারেন্স অথবা তন্ত্রের ইনফেকশনজনিত সমস্যা রয়েছে।

দুর্গন্ধযুক্ত পা

পায়ে এমন বাজে দুর্গন্ধ দেখা দিলে সকলেই জুতা ও মোজাকেই দোষারোপ করেন। আসলে সমস্যা পা, পায়ের ত্বক ও পায়ের ঘামে। যে সময়ই হোক না কেন, গ্রীষ্ম কিংবা শীতকাল- সকল সময়েই পা যদি ঘামে তবে বুঝতে হবে হাইপারহাইড্রোসিসের সমস্যা রয়েছে। এর ফলে পায়ের ত্বক প্রয়োজনের তুলনায় বেশি ঘামে, যা থেকে ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণ হয় এবং দুর্গন্ধ দেখা দেয়। এমন সমস্যা থাকলে এড়িয়ে না গিয়ে পেডিয়াট্রিস্টের পরামর্শ নিতে হবে।

আপনার মতামত লিখুন :