ঈদে ঘর গোছাতে ফেলে দিন অপ্রয়োজনীয় জিনিস

ফাওজিয়া ফারহাত অনীকা, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইফস্টাইল
পুরনো পুতুল ও খেলনা সরিয়ে ফেলতে হবে, ছবি: সংগৃহীত

পুরনো পুতুল ও খেলনা সরিয়ে ফেলতে হবে, ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ঈদের সময় যত ঘনিয়ে আসবে, ঘরদোর পরিষ্কার ও গোছগাছের সময় ততই এগিয়ে আসবে।

ঈদের দিন পুরো বাড়ি যেন তকতকে থাকে সেই প্রচেষ্টা থাকে সবার মাঝে। আত্মীয় ও মেহমানেরা যেন বাসায় ঢুকেই প্রশান্তি অনুভব করেন, এমনটাই চাওয়া থাকে সকলের।

কিন্তু বাসাবাড়ি পরিষ্কার করা ও গোছানো খুব একটা সহজ কাজ নয়। এমনকি অল্প সময়ের মাঝেও শেষ করা সম্ভব নয়। হাতে সময় নিয়ে পরিকল্পনা করে তবেই পুরো বাসাবাড়ি গুছিয়ে তোলা সম্ভব হয়।

আজকের ফিচারে তাই তুলে ধরা হলো এমন কিছু অপ্রয়োজনীয় জিনিসের নাম, যা আপনার বাড়িতে প্রয়োজনে পরে রয়েছে এবং ঘরের সৌন্দর্য নষ্ট করছে। এই সকল জিনিসগুলো আলাদাভাবে গুছিয়ে ফেলে দিলেও, ঘরে অনেকটা খালি জায়গা তৈরি হবে।

খালি বোতল

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/29/1559117258042.jpg

অবশ্যই প্রথমেই এই জিনিসটি ঘরের আনাচেকানাচে থেকে খুঁজে বের করুন। একদম ছোট-বড় সকল সাইজের কোমল পানীয় ও জ্যুসের খালি বোতল পাওয়া যাবে বাসাতে। এই বোতলগুলো বেশিরভাগ সময়েই রিইউজেবল থাকে না এবং প্লাস্টিকের বোতল হওয়ার দরুন এগুলো ব্যবহার করাও উচিৎ হবে না। তাই এগুলো আগে ফেলে দিন।

পুরনো খেলনা-পুতুল

ঘরের সৌন্দর্য বর্ধনের জন্য অনেকেই স্টাফড টয় তথা বিভিন্ন ধরনের পুতুল কিনে থাকেন। একটা নির্দিষ্ট সময় পরে এই পুতুলগুলো পুরনো ও নষ্ট হয়ে যায়। বহু দিনের পুরনো পুতুলগুলো ঘরের সৌন্দর্য বৃদ্ধির পরিবর্তে ঘরের স্বাভাবিক সৌন্দর্য অনেকটাই কেড়ে নেয়। তাই এগুলোও ফেলে দিতে হবে।

মেয়াদোত্তীর্ণ পণ্য

কোনভাবেই মেয়াদোত্তীর্ণ পণ্য ব্যবহার করা উচিৎ হবে না। এই জিনিসগুলো সংগ্রহে রাখলে অহেতুক জায়গা দখল করে থাকে এবং এই সকল জিনিস ব্যবহারে ভয়ানক ক্ষতি হওয়ার আশংকা থাকে। ঈদের গোছগাছে মেয়াদোত্তীর্ণ যেকোন ধরনের পণ্য ফেলে দিন। সেটা হতে পারে খাদ্যদ্রব্য, মেকআপ পণ্য, ওষুধ কিংবা ক্লিনিং পণ্য।

রেফ্রিজারেটরের জিনিসপত্র

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/29/1559117387277.jpg

বাসার ফ্রিজটি খুলে দেখুন একবার। কতদিন আগের সস, মেয়নেজ কিংবা চিজ পরে রয়েছে। খুঁজলে মাস দুয়েক আগের জ্যুসের কার্টুনও হয়তো পাওয়া যাবে। শুধু ফ্রিজ নয়, রান্নাঘরে কিংবা খাওয়ার টেবিলেও এমন অসংখ্য মশলার কৌটা পরে রয়েছে, যার মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে অথবা বহুদিন হয়ে গেছে বিধায় নষ্ট হয়ে গেছে। এগুলো সরিয়ে ফেলুন।

পুরনো পেপার ও ম্যাগাজিন

বসার ঘরেই হয়তো স্তুপ আকারে জমে আছে পুরনো খবরের কাগজ ও ম্যাগাজিন। যেগুলা কোন কাজে তো আসেই না, বরং ঘরে বাড়তি স্থান দখল করে রয়েছে। এমন ধরনের জিনিসগুলো ঘরে জঞ্জাল তৈরি করে। এই খবরের কাগজ, ম্যাগাজিন, খাতা বা বই পুরো বাসা খুঁজে একত্রে করে বিক্রি করে দিন এর মাঝেই।

ভাঙা ও পুরনো শো-পিস

খুব প্রিয় কোন শো-পিস হালকা ভেঙে গেলেও আমরা সেটা রেখে দেই। ফেলে দিতে মায়া লাগে যে! কিন্তু এই ভাঙাচোরা জিনিসগুলো খুব সন্তর্পণে ঘরের সৌন্দর্যকে কমিয়ে দেয়। তবে এমন ধরনের জিনিসগুলোকে বিদায় জানানোই শ্রেয়।

আরও পড়ুন: চিনির বিকল্পে চার উপাদান

আরও পড়ুন: হিমশিম খাচ্ছেন গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত গ্রহণে?

আপনার মতামত লিখুন :