Barta24

রোববার, ১৮ আগস্ট ২০১৯, ৩ ভাদ্র ১৪২৬

English

কোরবানি পরবর্তী পরিচ্ছন্নতায় সাত নিয়ম

কোরবানি পরবর্তী পরিচ্ছন্নতায় সাত নিয়ম
কোরবানির পর ঘর ও ঘর সংলগ্ন স্থান স্যাভলন মিশ্রিত পানিতে মুছে নিতে হবে
ফাওজিয়া ফারহাত অনীকা
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
লাইফস্টাইল


  • Font increase
  • Font Decrease

হাতে গুণে মাত্র দু’দিন পরেই কোরবানির ঈদ।

প্রতি বছরের মতো এ বছরেও ঈদ নিয়ে চলছে আয়োজনের তোড়জোড়। তবে এবারে আনন্দ আয়োজনের তোড়জোড়ের সাথে যুক্ত হয়েছে সচেতনতাও।

চলতি সময়ে পুরো দেশ জুড়েই ডেঙ্গুর ভয়াবহতা বিরাজ করছে। কোরবানি পরবর্তী সময়ে এর প্রকোপ আরও বাড়তে পারে বলে আতঙ্কিত বিশেষজ্ঞ মহল থেকে শুরু করে সাধারণ জনগণও। কোরবানির পরবর্তী সময়ে নিজ বাড়িসহ বাড়ির চারপাশ বেশ নোংরা হয়ে থাকে। এছাড়া স্থানে স্থানে পানি জমে থাকে। যা ডেঙ্গু মশার লার্ভার জন্ম ও বিস্তারের জন্যে দারুণ উপযোগী।

সেক্ষেত্রে কোরবানি পরবর্তী সময়ে কিছু নিয়ম মেনে পরিচ্ছন্নতার কাজ করলে, একইসাথে বাড়ির চারপাশ পরিষ্কার রাখা এবং ডেঙ্গুর ভয়াবহতা এড়ানো সম্ভব হবে। হাতে ঈদের একদিন বাকি থাকতেই জেনে নিন কোরবানি পরবর্তী সময়ের জন্য ভীষণ প্রয়োজনীয় কিছু বিষয়।

১. কোরবানি শেষে চেষ্টা করুন যথাসম্ভব চারপাশের অংশ নিজ থেকে পরিষ্কার করে ফেলতে। চামড়া, রক্ত, নাড়িভুঁড়ি, ময়লা ও পানি যতখানি সরিয়ে ফেলা সম্ভব হবে ততই ভালো। বিশেষত রক্ত ও পানি যেন কোথাও জমাটবদ্ধ হয়ে থাকতে না পারে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।

২. রক্ত ও পানি সরানোর জন্য শলার ঝাড়ু ব্যবহার করতে হবে। পশু কোরবানি দেওয়ার আশেপাশের স্থানে রক্ত ও পানি জমবেই। সেগুলো ঝাড়ুর সাহায্যে নিকটস্থ ড্রেনে ফেলে দিতে হবে।

৩. আশেপাশের স্থান পরিষ্কার করার পর অবশ্যই ব্লিচিং পাউডার ছিটিয়ে দিতে হবে। ব্লিচিং পাউডারের ব্যবহার মশা ও অন্যান্য পোকামাকড়ের জন্মে বাধাদান করবে।

৪. ঘরে কোরবানির মাংস নেওয়ার পর দীর্ঘসময় বাইরে না রেখে দ্রুত ভাগ বাটোয়ারা করে ফেলতে হবে। বাইরে রাখা হলে মাংস নিঃসৃত রক্ত ও অন্যান্য আবর্জনা পোকামাকড়কে আকৃষ্ট করবে।

৫. মাংস, হাড়, ভুঁড়ি, চর্বি ও কোরবানির পশুর অন্যান্য অংশ পরিষ্কার করে রেফ্রিজারেটরে রাখার পর মাংস কাটার যন্ত্রাংশের দিকে খেয়াল করতে হবে। এগুলো কোন অবস্থাতেই নোংরা অবস্থায় রাখা যাবে না। যথাসম্ভব পরিষ্কার করে গুছিয়ে তুলে রাখতে হবে।

৬. চেষ্টা করতে হবে বিকালের আগেই কোরবানির মাংস গুছিয়ে ফেলতে। এরপর পুরো বাড়ি, বারান্দা ও সংযুক্ত সিঁড়ি স্যাভলন মিশ্রিত পানি দিয়ে মুছে নিতে হবে। খেয়াল করতে হবে, ঘর ও বারান্দার কোথাও রক্ত বা পানি জমে আছে কিনা।

৭. সকল গোছগাছ শেষে জমাকৃত ময়লা-আবর্জনা একটি নির্দিষ্ট বড় ব্যাগে জমা করতে হবে। যত্রতত্র ও উন্মুক্ত স্থানে ময়লা একদম রাখা যাবে না। ময়লা জমা করার পর ব্যাগের মুখ ভালোভাবে বন্ধ করে ময়লা ফেলার স্থানে ফেলতে হবে।

এমন সহজ কিছু নিয়ম খেয়াল রাখতে পারলে কোরবানি পরবর্তী সময়ে খুব দ্রুততম সময়ের মাঝে নিজ বাড়িসহ চারপাশ পরিষ্কার করে নেওয়া যাবে এবং দুশ্চিন্তামুক্ত থাকা যাবে।

আরও পড়ুন: ঈদ অবসর ভ্রমণে কী রাখবেন সাথে?

আরও পড়ুন: ঝেড়ে ফেলুন পুরনো জঞ্জাল

আপনার মতামত লিখুন :

তিন উপাদানে ডিটক্সিফাইং পানীয়

তিন উপাদানে ডিটক্সিফাইং পানীয়
ডিটক্সিফাইং পানীয়

অন্যান্য সময়ের চাইতে ঈদের সময়টাতে তেল, চর্বি ও উচ্চমাত্রার ক্যালোরিযুক্ত খাবার বেশি খাওয়া হয়।

এতে করে সহজেই শরীরের উপর ক্ষতিকর প্রভাব পরে। এই ক্ষতিকর প্রভাব কাটানোর জন্য প্রয়োজন হয় ডিটক্সিফাইং পানীয়। যা শরীর থেকে ক্ষতিকর প্রভাবকে দূর করে সুস্থ রাখতে সাহায্য করবে।

এমন পানীয় তৈরিতে সাধারণত খুব বেশি উপাদান প্রয়োজন হয় না। আজকের বিশেষ ডিটক্সিফাইং পানীয়টি তৈরিতেও মাত্র তিনটি সহজলভ্য উপাদান প্রয়োজন হবে। প্রতিদিন সকালে খালি পেটে এই পানীয়টি পান করলে সবচেয়ে বেশি উপকার পাওয়া যাবে।

ডিটক্সিফাইং পানীয় তৈরিতে যা লাগবে

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/17/1566047849609.jpg

১. একটি বড় লেবুর রস।

২. ১-২ ইঞ্চি পরিমাণ আদা কুঁচি।

৩. এক চা চামচ হলুদ গুঁড়া।

৪. দুই কাপ পরিমাণ পানি।

৫. এক চিমটি কালো গোলমরিচ গুঁড়া (ঐচ্ছিক)

ডিটক্সিফাইং পানীয় যেভাবে তৈরি করতে হবে

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/17/1566047866015.jpg

পানি ফুটিয়ে নামিয়ে এতে লেবুর রস, আদা কুঁচি, হলুদ গুঁড়া ও গোলমরিচ গুঁড়া মিশিয়ে পুনরায় চুলায় বসিয়ে ফুটিয়ে নিতে হবে। তৈরি হয়ে গেলে নামিয়ে কুসুম গরম থাককাকালী সময়ে পান করতে হবে।

আরও পড়ুন: ডেঙ্গুতে উপকারী পাঁচ পদের জুস

আরও পড়ুন: আহ, মশলা চা!

কতখানি নিকোটিন থাকে একটি সিগারেটে?

কতখানি নিকোটিন থাকে একটি সিগারেটে?
ছবি: সংগৃহীত

প্রশ্নাতীতভাবে ধূমপান সবচেয়ে বাজে ও ক্ষতিকর একটি অভ্যাস।

এ বদভ্যাসের দরুন নিজের স্বাস্থ্য তো বটেই, পাশাপাশি অন্যের স্বাস্থ্যও ঝুঁকির মাঝে পড়ে যায়। ধূমপানের ক্ষতিকর প্রভাব সম্পর্কে অবগত হওয়ার পরেও বেশিরভাগ ধূমপায়ী এই অভ্যাসটি বাদ দিতে চান না। তবে এর বিপরীত চিত্রও রয়েছে। অনেকেই চেষ্টা করেন স্বাস্থ্যের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ এই অভ্যাসটিকে পাশ কাটিয়ে উঠতে। তবে ধূমপায়ী, অধূমপায়ী ও ধূমপান ত্যাগ করার চেষ্টা করছেন যারা, প্রত্যেকেই একটি বিষয় সম্পর্কে জানার আগ্রহ প্রকাশ করেন- একটি সিগারেটে কতখানি নিকোটিন থাকে! চলুন এই বিষয়টি জানানো যাক।

প্রতিটি সিগারেটে থাকে ৭০০০ ভিন্ন ভিন্ন ধরনের কেমিক্যাল। যার মাঝে সবচেয়ে ক্ষতিকর হলো নিকোটিন (Nicotine). হাজারো ধরনের কেমিক্যালের ভেতর এই নিকোটিন তৈরি হয় তামাক পাতা থেকে। তামাক পাতা থেকে তৈরি হওয়া এই উদ্ভিজ কেমিক্যাল নিকোটিনেই ধূমপায়ীদের আসক্তি তৈরি হয়।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/17/1566042274926.jpg

মেডিকেশন অ্যাডভোকেট জেসন রিড জানান, প্রতিটি সিগারেটে গড়ে এক মিলিগ্রাম পরিমাণ নিকোটিন থাকে। এছাড়া এক গবেষণা থেকে দেখা গেছে সিগারেটের ধরনের উপর নির্ভর করে এক একটি সিগারেটে ১.২-১.৪ মিলিগ্রাম পরিমাণ নিকোটিন থাকে। স্বল্প নিকোটিনযুক্ত ‘সিগারেট লাইট’ এ ০.৬-১ মিলিগ্রাম পরিমাণ নিকোটিন থাকে। তবে সাধারণ সিগারেটের মতো সিগারেট লাইটেও একই ধরনের সিগারেট বুস্ট তথা সিগারেটের প্রভাব থাকে।

এছাড়া নিকোটিন গ্রহণের মাত্রা ধূমপায়ীর উপর নির্ভর করে। সিগারেটে কত জোরে টান দিচ্ছে এবং সিগারেট পাফের কতটা নিকটবর্তী স্থান পর্যন্ত সিগারেট পান করছে- এই দুইটি বিষয়ের উপর নির্ভর করেও নিকোটিন গ্রহণের মাত্রায় তারতম্য দেখা দেয়।

আরও পড়ুন: ধূমপানে অন্ধত্ব!

আরও পড়ুন: প্যাসিভ স্মোকিংয়ে ক্যানসার ঝুঁকিতে আমরা সবাই!

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র