যশোরে চালের মোকামে অস্থিরতা, ৩ ব্যবসায়ীকে কারাদণ্ড

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, যশোর
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

যশোরের সবচেয়ে বড় চালের মোকাম খাজুরা বাজারে অস্থিরতা বিরাজ করছে। করোনাভাইরাসের প্রভাবে চালসহ নিত্যপণ্যের সংকট হতে পারে এমন আতঙ্কে ক্রেতারা কেনাকাটা করতে হুমড়ি খেয়ে পড়েছে। এ সুযোগে একশ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ী প্রশাসনের নির্দেশ অমান্য করে কৃত্রিম সংকট দেখিয়ে চালের দাম বাড়িয়ে দিয়েছে। আর এর প্রভাব পড়েছে খুচরা বাজারেও।

রোববার (২২ মার্চ) বিকেলে বাঘারপাড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তানিয়া আফরোজ ওই বাজারে অভিযান পরিচালনা করেন। ভ্রাম্যমাণ অভিযানে ৩ পাইকারি চাল ব্যবসায়ীকে ১০ দিনের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

ভ্রাম্যমাণ আদালতের পেশকার সিদুল বিশ্বাস জানান, কৃত্রিম সংকট দেখিয়ে ১ দিনের ব্যবধানে কেজিতে ৩ থেকে ৫ টাকা বেশি রাখায় ৩ পাইকারি চাল ব্যবসায়ীকে ১০ দিনের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

তারা হলেন- বাঘারপাড়া সদরের লেবুতলা ইউনিয়নের গহেরপুর গ্রামের শান্তিরাম চন্দ্রের ছেলে গোপাল চন্দ্র, বাঘারপাড়া উপজেলার মথুরাপুর গ্রামের সন্তোষ মণ্ডলের ছেলে অধীর ও একই উপজেলার তেলীধান্যপুড়া গ্রামের আব্দুস সালাম মোল্যার ছেলে আবুল হোসেন।

এছাড়া পাইকারি চাল ব্যবসায়ী দেলোয়ার অ্যান্ড ব্রাদার্স, সম্রাট ট্রেডার্স, ভাই ভাই ট্রেডার্স, মণ্ডল ট্রেডার্সসহ খুচরা বাজারে গিয়ে পাইকারি ও খুচরা ব্যবসায়ীদের সতর্ক করা হয়।

বাঘারপাড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তানিয়া আফরোজ জানান, করোনা আতঙ্ককে পুঁজি করে কেউ যেন বাজারে কৃত্রিম সংকট তৈরি না করতে পারে এবং মজুত থাকার পরেও নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের দাম না বাড়াতে পারে সেজন্য উপজেলা প্রশাসন মাঠে থাকবে। নিয়মিত বাজার মনিটরিংয়ের পাশাপাশি ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান চলবে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন- বাঘারপাড়া খাদ্য কর্মকর্তা নুরে আলম সিদ্দিকী, বন্দবিলা ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম, খাজুরা পুলিশ ক্যাম্পের সহকারী ইনচার্জ হযরত আলী।

আপনার মতামত লিখুন :