বৃষ্টিমহল-৩ নিয়ে ওয়াসিকা নুযহাত



লুৎফে আলি মহব্বত, কন্ট্রিবিউটিং করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
বৃষ্টিমহল-৩ নিয়ে ওয়াসিকা নুযহাত

বৃষ্টিমহল-৩ নিয়ে ওয়াসিকা নুযহাত

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রবাসী তরুণ-কথাশিল্পী ওয়াসিকা নুযহাত ঢাকায় জন্ম গ্রহণ করলেও পৈতৃক নিবাস চট্টগ্রামে। আইন বিষয়ে স্নাতকোত্তর লেখিকার সাহিত্যের প্রতি প্রবল ঝোঁক স্কুল জীবন থেকেই। প্রথম লেখা প্রকাশ হয় প্রথম আলোর 'ছুটির দিনে' সাপ্তাহিক ম্যাগাজিনে। নিয়মিত লেখিকা ছিলেন 'কিশোর তারকালোক' সহ সমকালীন বেশ কিছু কিশোর পত্রিকায়। এছাড়া প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ভাবে যুক্ত রয়েছেন বিভিন্ন সাহিত্য পত্রিকার সাথে।

অমর একুশে গ্রন্থমেলা ২০১৬ তে প্রকাশ পায় তার প্রথম উপন্যাস 'খাঁচার ভিতর অচিন পাখি', যা পাঠক হৃদয় জয় করেছে সফলতার সাথে।

এ পর্যন্ত তার মোট চারটি উপন্যাস প্রকাশ পেয়েছে।

২০২১ সালে 'বর্ষাদুপুর' প্রকাশনী থেকে প্রকাশ পেয়েছে তার উপন্যাস 'বৃষ্টিমহল-৩'। স্বপ্ন আর কল্পনার সমান্তরালে জীবনের উন্মোচন ঘটেছে উপন্যাসে। নায়িকা অমৃতার আখ্যান বলা যায় উপন্যাসটিকে, যে স্বপ্ন দেখে, কল্পনা করে, 'একটা কাচ দেয়ালের মহল বানাব। মহলের চারধার থাকবে আয়না দিয়ে ঘেরা। মহলের উপরের আচ্ছাদনে আকাশ সর্বক্ষণ তার মুখখানি দেখতে পাবে। তারপর বর্ষাকালে যখন ঝমঝমিয়ে বৃষ্টি নামবে, কাচঘেরা মহলের গায়ে গায়ে বৃষ্টি তার ইচ্ছেমতন আলপনা আঁকবে আর মহলের বাসিন্দাদের মনে হবে ছাদটা আসলে ইট পাথরের নয়, কাচের নয়, আয়নার নয়, ছাদটা আসলে বৃষ্টির!'

উপন্যাসের কাহিনী তরঙ্গের এক পর্যায়ে, অমৃতা, মাঘ মাসের এক গভীর রাতে বন্ধুদের সাথে সাগর সৈকতে বসে। বন্ধু আকাশ  সঙ্গে সঙ্গে সেই স্বপ্নে ভাগ বসিয়ে ফেলে। বাকি বন্ধুরাও বৃষ্টিমহল-এ নিজেদের নামে লিখিয়ে নেবার তোরজোড় শুরু করে দেয় নিমেষে। রুদ্র তড়িৎ গতিতে লিখে ফেলেছিল একটা গান:

তুই বন্ধু হয়ে আমার হাতটা ছুঁলে

আমি এ বিশ্ব সংসার যাবো ভুলে

ভুলবো সব ভুল অংকের ভুল উত্তর

শত দুঃখ বেদনা আর কষ্টের প্রহর

তুই বন্ধু হয়ে থাকলে আমার পাশে

আমি কষ্ট গিলে খাই এক নিঃশ্বাসে

তুই কাছে আয়, দূরে চলে যাই চল

তোর জন্য গড়েছি স্বপ্নের বৃষ্টিমহল!

কী ভীষণ ছেলেমানুষ ছিল ওরা! এসব ছেলেমানুষি জীবনের একটা পর্যায়ে কেটে যায়। তবে কিছু কিছু বন্ধুপাগল মানুষের ছেলেমানুষি  মনোভাব কেটে গেলেও বন্ধুমানুষি  মনোভাবটা বুঝি কখনওই আর  কাটে না। তাই তো বাস্তবতায় প্রতিনিয়ত  পিষ্ট হবার পরেও এই ধূলোবালি মাখা জীর্ণ, ধূসর পৃথিবীর ছাদে ওরা ছয়জন আজো বুকের ভেতর  কাচ দেয়ালের  এক বৃষ্টিমহল নিয়ে ঘুরে বেড়ায়।

ছয়জন তরুণ-তরুণীর অন্তর্গত স্বপ্ন ও জীবনে বৃষ্টিমহল বেঁচে থাকে। কাহিনী আবর্তিত হয় ওদের হৃদয়ে হৃদয়ে। বৃষ্টিমহল বেঁচে থাকে পৃথিবীর সব বন্ধুপাগল মানুষের সত্ত্বায় ও অস্তিত্বের চারপাশে।

বৃষ্টিমহল-৩ উপন্যাসে ওয়াসিকা নুযহাত উন্মোচন করেছেন মানবজীবন ও অনুভূতির এক অনাবিল উপাখ্যান। ভালোবাসার নেশায় আত্মিক মুক্তি এবং বেঁচে থাকার তীব্র স্বাদ শ্বাশত বৃষ্টির মতো ঝরে পড়ে বৃষ্টিমহল-৩ উপন্যাসের পাতায় পাতায়, অক্ষরে অক্ষরে।

রকমারি এবং প্রকাশক বর্ষাদুপুর অনলাইনেও বইটি বিপণন করছে।

https://www.facebook.com/profile.php?id=100008626393470