‘বিদ্রোহী’ কবিতার শতবর্ষ ও ইউরোপে নজরুল চর্চা    



সাঈদ চৌধুরী
কাজী নজরুল

কাজী নজরুল

  • Font increase
  • Font Decrease

 

কাজী নজরুল দ্রোহের কবি। শোষিত ও নিপীড়িত মানুষের কণ্ঠস্বর। আর ‘বিদ্রোহী’ একটি প্রভাবক কবিতা। আমাদের জাগরণের স্মারক। বিংশ শতাব্দীর এক বিস্ময়। যেখানে নজরুল বলছেন, বিশ্ব ছাড়ায়ে উঠিয়াছি একা চির-উন্নত শির। 

বাংলা ভাষা যে এতটা আণবিক শক্তি সম্পন্ন, বিদ্রোহী প্রকাশের আগে কারও জানা ছিল না। বিদ্রোহী কবিতা বিপ্লবীদের কণ্ঠে দিয়েছে সংগ্রামের ভাষা। ‘যবে উৎপীড়িতের ক্রন্দনরোল আকাশে-বাতাসে ধ্বনিবে না’ কথাটি আপামর জনতাকে করেছে অনুপ্রাণিত। অপূর্ব সাহস ও শৌর্যে জনচিত্ত আহলাদিত হয়েছে।

জালিম শাহী এ কবিতায় অব্যক্ত ক্ষোভের প্রতিধ্বনি শুনতে পেয়েছে। স্বৈর শাসকের গর্দানে ছিল মহা দুরমুশ। বিস্ময় আর অস্বস্তি তৈরি করেছে বৃটিশ প্রশাসনে। নিগৃহীত মানুষের মনে জাগিয়েছে পরিবর্তনের চেতনা ও প্রেরণা।

নজরুল সর্বাংশে স্বদেশি আবার বিশেষভাবে আন্তর্জাতিক। তিনি বাংলাদেশের জাতীয় কবি। সমানভাবে সমাদৃত তার জন্মভূমি পশ্চিমবঙ্গে। ভারত ও বাংলাদেশে রয়েছে নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়। ইউরোপেও নজরুল চর্চা আগের চেয়ে বেড়েছে। বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে তাকে নিয়ে গবেষণা হচ্ছে।

নজরুল কোনো নির্দিষ্ট কালে বা অঞ্চলে সীমিত নন। বিশ্বময় বিদ্রোহী কণ্ঠ হিসেবে আলোচিত ও সমাদৃত। মানবতা ও সাম্যের কবি হিসেবে অনন্তকাল ধরে থাকবেন মানুষের হৃদয়ে।

১৯২১ সালে ডিসেম্বর মাসের শেষ সপ্তাহে বিদ্রোহী লেখা হয়েছে। ১৯২২ সালের ৬ জানুয়ারি সাপ্তাহিক বিজলী পত্রিকায় কবিতাটি ছাপা হয়। কয়েক দিনের মধ্যে প্রবাসী, সাধনা, ধূমকেতু ও বসুমতী সহ বেশ কিছু পত্রপত্রিকায় এটি মুদ্রিত হয়। সৃষ্টি হয় সর্বত্র মহা তোলপাড়। 

সাহিত্য সমালোচকেরা মনে করেন বিশ্বসাহিত্যের ইতিহাসে নজরুলের মত এমন সৌভাগ্য আর কারো হয়নি। মাত্র ২২বছর বয়সে তিনি বিস্ময়কর সাড়া জাগিয়েছেন।

বিদ্রোহী একটি কালজয়ী সৃষ্টি। ৮টি স্তবক, ১৪৯টি পঙ্‌ক্তির একটি দীর্ঘ কবিতা। অবশ্য বাংলা একাডেমির ‘নজরুল রচনাবলী’ ১৯৯৬ মোতাবেক একশ ঊনচল্লিশ পঙ্‌ক্তি উল্লেখ করা হয়েছে। আর একশ বেয়াল্লিশ-তেতাল্লিশ গুণেন কেউ কেউ।

বিদ্রোহী মাত্রাবৃত্ত ছন্দে রচিত। মুক্তক ছন্দে কবিতাটি মহাকাব্যিক ব্যঞ্জনা সৃষ্টি করেছে। বাংলা ভাষায় নজরুলই এই ছন্দের প্রবর্তক। বিদ্রোহীর তাল ও ছন্দ সাগরের ঢেউয়ের মত তরঙ্গ সৃষ্টি করেছে। জাগিয়ে তুলেছে পাঠকহৃদয়। হাবিলদার নজরুল বিদ্রোহী কবি আখ্যায় ভূষিত হয়েছেন।

কবিতাটি শোনানোর পর বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ নজরুলকে বুকে জড়িয়ে ধরেছিলেন। রবীন্দ্রনাথ বলেছেন, আমি যদি আজ তরুণ হতাম, তাহলে আমার কলমেও ওই সুর বাজত।

বিদ্রোহী কবিতা বাংলাদেশের স্বাধীনতার সাথে দারুণ ভাবে জড়িয়ে আছে। ১৯২১ সালের ডিসেম্বর মাসে বিদ্রোহী লেখা হয়েছে। ১৯৭১ সালে ছিল বিদ্রোহী প্রকাশের GOLDEN JUBILEE বা সুবর্ণজয়ন্তি। আর এখন ২০২১ সালে বিদ্রোহী কবিতার শতাব্দী (CENTURY) ও বাংলাদেশের সুবর্ণজয়ন্তি।

১৯২১ সালের ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহে মধ্য কলকাতার নিউমার্কেট সংলগ্ন ৩/৪সি তালতলা লেনের একটি বাড়িতে বসে কাঠ পেন্সিলে কবিতাটি লিখেন কাজী নজরুল ইসলাম।

প্রথম প্রকাশ প্রসঙ্গে তৎকালীন কবি খান মুহম্মদ মঈনুদ্দিন লিখেছেন, মনে আছে, সেদিন আমাদের তরুণ মনে কী আবেগ, উন্মাদনা জেগেছিল! সারা বাংলা যেন আনন্দে, উত্তেজনায় চঞ্চল হয়ে উঠেছিল। পথে, ঘাটে, রেস্তোরাঁয়, চায়ের বৈঠকে শুধু এ কবিতারই আলোচনা চলছিল।

তরুণ সমাজ তো বিদ্রোহীর ভাষায় বাক্যালাপ শুরু করে দিল। যুবসমাজের আড্ডায় বা রাস্তায় একে অপরের সঙ্গে দেখা হলে কবিতার কোনো একটি লাইন আউড়ে সম্বোধন করছে। আমি চেঙ্গিস, আমি আপনারে ছাড়া করি না কাহারে কুর্নিশ। আরেকজন বলছে, আমি চির-বিদ্রোহী—বীর, বিশ্ব ছাড়ায়ে উঠিয়াছি একা চির-উন্নত শির।

এই মহান পুরুষের জন্ম ১৮৯৯ সালের ২৫ মে, ভারতের পশ্চিমবঙ্গে বর্ধমান জেলার চুরুলিয়া গ্রামে। স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বিশেষ প্রচেষ্টায় ১৯৭২ সালের ২৪ মে কবিকে পশ্চিমবঙ্গ থেকে ঢাকায় নিয়ে আসা হয়। সপরিবারে থাকার জন্য ধানমন্ডি আবাসিক এলাকার পুরনো ২৮নং রোডের ৩৩০/বি বাড়িটি বরাদ্দ করা হয়। বাড়ির নামকরণ হয় ‘কবিভবন’।

১৯৭৬ সালের জানুয়ারি মাসে সরকারি ভাবে কাজি নজরুল ইসলামকে বাংলাদেশের নাগরিকত্ব প্রদান করা হয়। পরের মাসেই তিনি দেশের শ্রেষ্ঠ স্বর্ণপদক ‘একুশে পদক’ সম্মানে ভূষিত হন।

৭৭ বছর বয়সে ১৯৭৬ সালের ২৯ আগস্ট রোববার সকাল ১০টা ১০ মিনিটে ঢাকার পিজি হাসপাতালে কবি নজরুল শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন। বাংলাদেশের তৎকালীন রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের উপস্থিতিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মসজিদ সংলগ্ন কবরে তাকে সমাহিত করা হয়। ইন্তেকালের পরের বছর ১৯৭৭ সালে তাকে বাংলাদেশের জাতীয় কবির সম্মান প্রদান করা হয়। 

বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে ‍বিদ্রোহী কবি নজরুল সম্পর্কে যে গবেষণা (RESEARCH) চলছে তার অনেক কিছু জমা হচ্ছে বৃটিশ মিউজিয়ামে (BRITISH MUSEUM) । শিল্পকর্ম, প্রত্নসামগ্রী ও কারুপণ্যের সংগ্রহ ও প্রদর্শনীর বিচারে বিশ্বের প্রধানতম সংগ্রহশালা হচ্ছে বৃটিশ মিউজিয়াম। কবি নজরুলকে বাঙালি সাহিত্যিক এবং বাংলাদেশের জাতীয় কবি হিসেবে সবচেয়ে বেশি স্মরণীয় বলে উল্লেখ করা হয়েছে মিউজিয়ামের নিজস্ব ওয়েবসাইটে।

বিলেতে কবি নজরুল সেন্টার বেশ সমৃদ্ধ শিল্প ও সাংস্কৃতিক কেন্দ্র। (KOBI NAZRUL CENTRE, 30 HANBURY STREET, LONDON E1 6QR) । এটি ইস্ট লন্ডনে প্রবাসী বাংলাদেশিদের মিলনস্থল ব্রিকলেন স্পিটালফিল্ডে অবস্থিত। ১৯৮২ সাল থেকে এখানে নজরুল চর্চার পাশাপাশি নিয়মিত বাংলা শিল্পকলার প্রচার, পারফর্মিং ও প্রদর্শনী হয়। 

আমাদের জাতীয় কবিকে স্মরণীয় করে রাখার জন্য লন্ডনে স্কুল প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। নজরুল স্কুল (KOBI NAZRUL PRIMARY SCHOOL, SETTLES STREET, LONDON E1 1JP) জনমনে বিশেষ করে শিশুদের মাঝে কবি নজরুল সম্পর্কে আগ্রহ জন্মায়। 

২০০২ সাল থেকে সংলাপ সাহিত্য-সংস্কৃতি ফ্রন্ট কবি নজরুলকে নিয়ে লন্ডনে নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। এতে দেশি-বিদেশী সাহিত্যিক-সাংবাদিক সহ সাংস্কৃতিক অঙ্গনের অনেকে অংশ গ্রহন করেন। অনুভবে নজরুল শিরোনামে অনুষ্ঠানে বক্তারা কবির লেখা থেকে নিজেদের অনুভূতি প্রকাশ করেন। কবিকে ব্যাপক ভাবে বিশ্বময় পৌঁছে দেয়ার ব্রত নিয়ে কাজ করছে সংলাপ ফ্রন্ট।  https://www.facebook.com/sanglap.front গত ১৪ নভেম্বর ২০২১, রবিবার পূর্ব লন্ডনের রিচ মিক্স সেন্টারে টিএস এলিয়টের ওয়েস্ট ল্যান্ড এবং কাজী নজরুল ইসলামের বিদ্রোহী মঞ্চস্থ হয়। https://laninfaeco.com/en/2021/11/18/saudhas-theatrical-production-the-rebel-and-the-waste-land-won-the-audience-of-east-london/ . বিশ শতকের দুটি কালজয়ী সাহিত্যকর্মের উপর ভিত্তি করে দ্য রেবেল এন্ড দ্য ওয়েস্ট ল্যান্ড নামক অনন্য নাট্য প্রযোজনা হাউসফুল দর্শকদের প্রশংসা কুড়িয়েছে। টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিল কর্তৃক FREEDOM AND INDEPENDENCE থিয়েটার উৎসবের অংশ হিসেবে যুক্তরাজ্যের একটি শীর্ষস্থানীয় বৈশ্বিক সাহিত্য ও সঙ্গীত প্ল্যাটফর্ম ’সওধা সোসাইটি অফ পোয়েট্রি অ্যান্ড ইন্ডিয়ান মিউজিক’  কর্তৃক আয়োজিত ও মঞ্চস্থ হয়। এশিয়া ও ইউরোপের শ্রোতাদের মিশ্রণে একাডেমিক এবং সাধারণ শিল্প-প্রেমীরা অংশ গ্রহন করেন। উপস্থিত দর্শকদের মতে, এটা অবশ্যই স্মরণীয় এবং সমানভাবে শিক্ষামূলক অভিজ্ঞতা। কেম্যান আইল্যান্ডের প্রাক্তন গভর্নর শীর্ষ বৃটিশ কূটনীতিক আনোয়ার চৌধুরী বলেন, এই প্রযোজনা দুটি ভিন্ন অভিব্যক্তির মাধ্যমে শান্তির দুটি বিস্ময়কর ব্যাখ্যা, যা আমার উপলব্ধিতে প্রশান্তি এনে দিয়েছে। প্রযোজনা পরিচালক ও সওধার প্রতিষ্ঠাতা কবি আহমদ কায়সার বলেন, আমরা যেভাবে দুটি প্রধান কাজকে কাঠামোগত এবং দার্শনিকভাবে মিশ্রিত করেছি, তা দর্শকরা পছন্দ করেছেন। এটি এখন বাংলাদেশ, ভারত এবং ইউরোপের আরও কয়েকটি শহরে নিয়ে যাওয়ার প্রস্তুতি চলছে।

লন্ডনে সাহিত্য-সাংস্কৃতিক সংগঠন দ্য টেগোরিয়ান্স (THE TAGOREANS)  কবি নজরুলকে নিয়ে চমৎকার তথ্যচিত্র করেছে ২০১৭ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর।  তারও আগে ১৯৯৯ সালে অত্যন্ত নান্দনিকতার সাথে  নজরুলের জন্মশতবার্ষিকী পালন করেছে। তারা মূলত কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জীবন দর্শনে বিশ্বাসী এবং সাহিত্য, সঙ্গীত ও শিল্পের বিভিন্ন ক্ষেত্রে তার সৃজনশীলতা থেকে অনুপ্রেরণা নিয়ে কাজ করে। ১৯৬৫  সালে প্রয়াত তপন গুপ্ত এই সংস্থা প্রতিষ্ঠা করেছেন। http://www.tagoreans.org/gallery.aspx

খ্যাতিমান লেখক শ্রীময়ী ভট্টাচার্য  (SREEMOYEE BHATTACHARYA) কবি নজরুলকে নিয়ে দুই ঘণ্টার একটি ডকুমেন্টারি ফিল্ম বানিয়েছেন ২০১৪ সালে। ২০১৭ সালে এটির প্রথম প্রিমিয়ার শো অনুষ্ঠিত হয় লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয়ে। একই বছর তা কলকাতা ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে প্রদর্শিত হয়ে ব্যাপক প্রশংসা কুড়িয়েছে।  শ্রীময়ী ভট্টাচার্য  বলেন, নজরুলের প্রতিটি দিককে স্পর্শ করবে এমন কোনও তথ্যচিত্র ছিল না। ১৯৬৮ সালে পশ্চিমবঙ্গ সরকার সেলুলয়েড 'নজরুল' নিয়ে একটি চলচ্চিত্র তৈরি করেছিল, যা আর পাওয়া যায় না। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর নিয়ে কাজ করার পর নজরুলের মতো বৈচিত্র্যময় ব্যক্তিত্বকে আরও ভালোভাবে জানার গুরুত্ব আমি উপলব্ধি করেছি। কবিতা, সঙ্গীত ও সাংবাদিকতার মাধ্যমে ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনে নজরুলের অবদান অকল্পনীয়। কাজী নজরুল ইসলামকে আমরা ‘বিদ্রোহী কবি’ বলে থাকি। আমার ডকুমেন্টারির মাধ্যমে আমি সঙ্গীতের দৃশ্যপটে তার অবদানকেও স্পর্শ করেছি। তিনি গান লিখতেন। থিয়েটার, চলচ্চিত্র এমনকি প্রশিক্ষিত শিল্পীদের জন্য সুর তৈরি করতেন। অল ইন্ডিয়া রেডিওতে ‘হারমনি’ অনুষ্ঠানের জন্য তিনি পুরনো রাগগুলিকে পুনরুজ্জীবিত করেছিলেন। https://www.getbengal.com/details/is-kazi-nazrul-islam-more-celebrated-in-bangladesh-than-kolkata  লন্ডনের  সোয়াস বিশ্ববিদ্যালয়ে  বেশ গুরুত্বের সাথে নজরুল চর্চা হয়। বাংলার বিদ্রোহী কবি : নজরুল ইসলাম (THE REBEL POET OF BENGAL: NAZRUL ISLAM) শীরোনামে অনেক তথ্যবহুল লেখা তাদের ওয়েবসাইটে রয়েছে। স্কুল অফ ওরিয়েন্টাল অ্যান্ড আফ্রিকান স্টাডিজ (SOAS) এশিয়া, আফ্রিকা এবং মধ্যপ্রাচ্যের মানুষের অধ্যয়নের জন্য বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় বিশ্ববিদ্যালয়। এখানে MULOSIGE - Multilingual Locals and Significant Geographies নামে ইউরোপীয় রিসার্চ কাউন্সিলের অর্থায়নকৃত গবেষণা প্রকল্পের নেতৃত্বে রয়েছেন অধ্যাপক ফ্রান্সেসকা ওরসিনি। MULOSIGE প্রকল্পে বিশ্ব সাহিত্যে নতুন দৃষ্টিভঙ্গির জন্য অসংখ্য লেখা অন্বেষণ করে বহুভাষিক সমাজের সামনে উপস্থাপন করা হয়। কবি নজরুলের লেখা এতে বিশেষ ভাবে স্থান পেয়েছে। এই প্রকল্পের অংশ হিসেবে বিশ্বসাহিত্যেরে উপাদান বিবেচনায় সুলেখক মরিয়ম ইরাজ নজরুল সম্পর্কে উর্দু সাহিত্যের অনেক মূল্যবান লেখা ইংরেজিতে অনুবাদ করেছেন। http://mulosige.soas.ac.uk/the-rebel-poet-of-bengal-nazrul-islam/

বিশ্বের বিভিন্ন কবির কবিতা নিয়ে কাজ করে পয়েম হান্টার (POEM HUNTER)। কবি নজরুলের অনেক কবিতা তারা ইংরেজিতে অনুবাদ করে পাঠকের হাতে তুলে দিয়েছে। POEMS FROM DIFFERENT POETS ALL AROUND THE WORLD. THOUSANDS OF POEMS, QUOTES AND POETS.  https://www.poemhunter.com/kazi-nazrul-islam/biography/#google_vignette

সুইডেনে কবি নজরুলকে নিয়ে অনুষ্ঠান ও লেখালেখি চোখে পড়ার মত। বাংলাদেশের জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের স্মৃতিচারণ (REMINISCENCES: BANGLADESH NATIONAL POET KAZI NAZRUL ISLAM) তারমধ্যে উল্লেখযোগ্য। এশিয়ান ট্রিবিউন থেকে নিয়ে এইচটি ডিজিটাল কন্টেন্ট সার্ভিসেস এটা প্রকাশ করেছে। https://www.thefreelibrary.com/Reminiscences%3A+Bangladesh+National+Poet+Kazi+Nazrul+Islam-a0501878986

ইংরেজি সাহিত্যের কবি জর্জ গর্ডন লর্ড বায়রন ও আমাদের জাতীয় কবি নজরুল ইসলাম সম্পর্কে  BYRON AND NAZRUL AS POET শীরোনামে  ১৭ জুন ২০২১ তারিখে দৈনিক সান পত্রিকায় লেখাটি বেশ পাঠক প্রিয়তা লাভ করেছে। https://www.daily-sun.com/printversion/details/559092/Byron-and-Nazrul-as-Poet এই লেখা ইউরোপের কয়েকটি অনলাইন মিডিয়ায় প্রকাশিত হয়েছে।  বৃটানিয়া ইউনিভার্সিটির সাবেক ভিসি অধ্যাপক এম মতিউর রহমান লেখাটি সম্পর্কে বলেন, আমি যে  শিরোনামে লিখেছি, তা দুই কবির মধ্যে তুলনামূলক বিশ্লেষণের একটি অংশ। সাধারণভাবে বলতে গেলে আমরা জানি, কাজী নজরুল ইসলাম বাংলা সাহিত্যের কবি এবং জর্জ গর্ডন লর্ড বায়রন ইংরেজি সাহিত্যের কবি। নিখুঁত বিশ্লেষণের জন্য কবি হিসেবে তাদের মধ্যে মিল এবং অমিলগুলি তুলে ধরতে চেষ্টা করেছি।

ইউরোপীয়ান আমেরিকান জার্ণালে (EUROPEAN - AMERICAN JOURNALS) কাজী নজরুল ইসলাম এবং তার বিদ্রোহী কবিতার উপর একটি গবেষণা রয়েছে। THE COMPULSIVE VOICE OF DECOLONIZATION: A STUDY ON KAZI NAZRUL ISLAM AND HIS REBELLIOUS POEMS শীরোনামে লেখাটি পাঠক মহলে বেশ সাড়া জাগিয়েছে। https://www.eajournals.org/journals/international-journal-of-english-language-and-linguistics-research-ijellr/vol-8-issue-2-march-2020/the-compulsive-voice-of-decolonization-a-study-on-kazi-nazrul-islam-and-his-rebellious-poems/ লেখক তানজিন সুলতানার মতে, অন্য দেশ দ্বারা দখল ও নিয়ন্ত্রিত একটি দেশের স্বাধীনতা পুনরুদ্ধার করা ও নিজস্ব সংস্কৃতি গড়ে তোলা সহজ নয়। আফ্রিকা এবং এশিয়ার ইউরোপীয় উপনিবেশগুলিকে মুক্ত করার সংকল্প বিংশ শতাব্দীতে একটি উল্লেখযোগ্য ঐতিহাসিক প্রক্রিয়া। বৃটিশ উপনিবেশের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করার জন্য ভারতীয় উপমহাদেশে বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলামের নাম বেশ প্রাসঙ্গিক। তার কবিতা ও সাংবাদিকতার সবচেয়ে অসামান্য দিক হল অগ্নিস্ফুলিঙ্গ। তিনি জানেন ঔপনিবেশিকদের শোষণ বন্ধ করতে হলে সাম্রাজ্যবাদের শক্তিকে উৎখাত করতে হবে। নিপীড়িত জনগণকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। বিদ্রোহী কবিতার মাধ্যমে তিনি পশ্চিমা উপনিবেশ থেকে নিজের ভূখণ্ড, সংস্কৃতি এবং মানুষের মন-স্বাধীন করতে চেয়েছেন। 

যুক্তরাজ্যের DISABILITY ARTS ONLINE নজরুল সম্পর্কে লেখা সমূহ গুরুত্বের সাথে প্রচার করে।  https://disabilityartsonline.org.uk/kazi-nazrul-islam-debjani-chatterjee এই লিংকে সংযুক্ত লেখায় দেবযানী চ্যাটার্জি একজন কবি হিসেবে তার জীবন এবং কর্মজীবনে নজরুলের কবিতার প্রভাবের বিবরণ দিয়েছেন, যা দুটি মহাদেশের মধ্যে সেতুবন্ধন তৈরি করে। তার মতে, কাজী নজরুল ইসলাম ছিলেন একজন বাঙালি বহুভাষী  লেখক, সঙ্গীতজ্ঞ এবং বিপ্লবী। ‘নজরুল’ নামে জনপ্রিয়, তার কবিতা ও সঙ্গীত ফ্যাসিবাদ ও নিপীড়নের বিরুদ্ধে ইন্দো-ইসলামিক নবজাগরণ এবং তীব্র আধ্যাত্মিকতায় পূর্ণ। নজরুল হলেন একজন মহান সাহিত্যিক, কবি, নাট্যকার, প্রাবন্ধিক, ঔপন্যাসিক, সাংবাদিক, গায়ক, অভিনেতা, সৈনিক এবং বিপ্লবী। তিনি ছিলেন বিশ্বের সবচেয়ে প্রসিদ্ধ গীতিকার-সুরকার। তার সবচেয়ে ফলপ্রসূ কিছু বছর অল ইন্ডিয়া রেডিওতে কাজ করেছেন। তিনি নারী, যুবক, প্রতিবন্ধী, দরিদ্র এবং নির্যাতিত সকলের জন্য হিন্দু-মুসলিম সংহতি এবং সমতাকে চ্যাম্পিয়ন করেছেন।

বৃটেনের জাতীয় কবি ডব্লিউ ওয়ার্ডসওয়ার্থ, পার্সি বি শেলি এবং কাজী নজরুল ইসলামের রোমান্টিক কবিতায় নৈতিকতা নিয়ে অধ্যাপক মোস্তফা মুনীর (PROFESSOR MUSTOFA MUNIR) চমৎকার একটি প্রবন্ধ লিখেছেন। ETHICALITY IN ROMANTIC POETRY- W. WORDSWORTH, PERCY B SHELLEY AND KAZI NAZRUL ISLAM শীরোনামের লেখাটি ২৯ মে ২০২১ তারিখে প্রকাশিত হয়েছে।

 https://www.observerbd.com/news.php?id=314585 . ইউরোপেও পাঠক নন্দিত এই লেখায় মোস্তফা মুনীর বলছেন, ওয়ার্ডসওয়ার্থ, শেলি এবং বিংশ শতাব্দীর কবি নজরুল তাদের স্বতন্ত্র প্রতিভা, দক্ষতা এবং রোমান্টিক কবিতা লেখার শৈলীর জন্য অত্যন্ত সম্মানিত। সাহিত্যে তাদের কাব্যিক অবদানের প্রভাব বিশাল ও গভীর। ক্লাসিক রোমান্টিক কবিতাগুলি তৈরি করার সময়  নৈতিক মূল্যবোধ, আধ্যাত্মিকতা এবং ভালবাসার সাথে প্রকৃতির মার্জিত পরিবেশের সাহায্যে তাদের কল্পনাশক্তি ব্যবহার করেছেন।

কেমব্রিজে প্রকাশিত (CAMBRIDGE UNIVERSITY PRESS) প্রথম বিশ্বযুদ্ধ নিয়ে কবিতায় নজরুলের লেখা অত্যন্ত গুরুত্বের সাথে স্থান পেয়েছে। THE CAMBRIDGE COMPANION TO THE POETRY OF THE FIRST WORLD WAR শীরোনামে বিশ্বখ্যাত লেখকদের কবিতা সংকলিত হয়েছে।  https://books.google.co.uk/books?id=aekfAgAAQBAJ&pg=PA273&lpg=PA273&dq=Poet+Nazrul+in+L qtvsiUQ&hl=bn&sa=X&ved=2ahUKEwie_8b4vqX0AhVIVsAKHc5JDfI4WhDoAXoECB8QAw#v=onepage&q=Poet%20Nazrul%20in%20London&f=false

বিশ্বের সেরা নিউজরিল সংরক্ষণাগার ‘বৃটিশ পাথে’ কবি নজরুলকে দারুণ ভাবে মূল্যায়ন করেছে।  কবির অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ায় বাংলাদেশের সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান সহ হাজার হাজার মানুষের অংশ গ্রহনের ডকুমেন্ট প্রকাশ করেছে। BANGLADESH: HUNDREDS OF THOUSANDS ATTEND HERO'S FUNERAL FOR BENGALI "REBEL" POET, NAZRUL ISLAM সংবাদ ও ভিডিও চিত্রে দেখা যায়, শেষ বিদায়ে কবি লাখো জনতার দোয়া ও ভালোবাসায় সিক্ত। https://www.britishpathe.com/video/VLVA2SPQECSEMAX803JPA5BYDA5Z8-BANGLADESH-HUNDREDS-OF-THOUSANDS-ATTEND-HEROS-FUNERAL-FOR/query/Poet . প্রায় ৮৫ হাজার চলচ্চিত্রের ভান্ডারে সমৃদ্ধ বৃটিশ পাথ। বিনামূল্যে অনলাইনে দেখার জন্য কোম্পানির Facebook, Twitter, Instagram, Pinterest, Tumblr, WordPress এবং LinkedIn-এ তা রয়েছে। ১৮৯৬ থেকে বিশ্বজুড়ে প্রধান ইভেন্ট, বিখ্যাত ব্যক্তি ও সংস্কৃতির ফুটেজ অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। এটি ঐতিহাসিক ও সাংস্কৃতিক তাত্পর্যের ক্ষেত্রে অতুলনীয়। 

ইউরোপ সহ বিশ্বময় অত্যন্ত জনপ্রিয় বিশ্বকোষ নিউ ওয়ার্ল্ড এনসাইক্লোপিডিয়া (NEW WORLD ENCYCLOPEDIA) কবি নজরুল সম্পর্কে বিষদ বর্ণনা দিয়েছে। https://www.newworldencyclopedia.org/entry/Kazi_Nazrul_Islam . বিশ্বদর্শন হিসেবে খ্যাত নিউ ওয়ার্ল্ড এনসাইক্লোপিডিয়া (NWE) মানুষের জ্ঞানকে সংগঠিত করার জন্য ডিজাইন করা হয়েছে, যাতে সমগ্র বিশ্বের কাছে সহজে তথ্য পৌছতে পারে। এটি ১৭৬৮ সাল থেকে বিশ্বের প্রত্যেক মানুষের জন্য একটি দরকারী টুল এবং শিক্ষা ও গবেষণার জন্য আদর্শ সম্পদ।

সিডনি বিশ্ববিদ্যালয়ে (THE UNIVERSITY OF SYDNEY) নজরুল চর্চার প্রয়াস প্রশংসার দাবি রাখে। সেখানে প্রকাশিত ভারত, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র এবং অস্ট্রেলিয়া ভিত্তিক গবেষণা KAZI NAZRUL ISLAM AND W.B. YEATS: THE VOICES OF SPIRITUAL FREEDOM, NATIONALISM AND INTERNATIONALISM একটি তুলনামূলক বিশ্লেষণ। (Authors: Jebun Geeti, International Entrepreneurship and Management Journal 4(1):93-107/, January 2016)। এতে কাজী নজরুল ইসলাম এবং ড. ইয়েটসকে ভারতীয় উপমহাদেশ ও আয়ারল্যান্ডের মানুষের আধ্যাত্মিক স্বাধীনতা, জাতীয়তাবাদ এবং আন্তর্জাতিকতাবাদের কণ্ঠস্বর হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়েছে।

জাজ মিউজিক গ্রুপের গ্র্যান্ড ইউনিয়ন অর্কেস্ট্রারে নেতৃস্থানীয় গায়িকা হিসেবে খ্যাত লুসি রহমান কাজী নজরুল ইসলামের বিদ্রোহী চেতনার অন্বেষণের প্রয়াসে দীর্ঘদিন ধরে কাজ করছেন। তিনি যুক্তরাজ্যের অসংখ্য মঞ্চ, টেলিভিশন এবং রেডিও তে অনুষ্ঠান করেন। বিবিসি এবং চ্যানেল ৪ টেলিভিশনে  একক অনুষ্ঠান করেছেন।  অনেক প্লেব্যাক গানের গায়িকা হিসেবেও গান গেয়েছেন। তিনি খ্যাতিমান শিল্পী আমিনা খৈয়ামের সাথে ২০১৫ সালের ২৪ এবং ২৫ মার্চ লন্ডনে একটি পারফরম্যান্স উপস্থাপন করেন। লুসি রহমান বলেন, তাদের প্রচেষ্টা হচ্ছে নজরুলের কাজকে সামনে নিয়ে আসা, যাতে আজকের বিশ্ব সমাজ তার প্রাসঙ্গিকতা অন্বেষণ করে।

ওয়ার্ডস উইদাউট বর্ডারস (WORDS WITHOUT BORDERS) কবি নজরুলকে নিয়ে দীর্ঘ প্রবন্ধ প্রকাশ করেছে। CELEBRATING KAZI NAZRUL ISLAM, REBEL POET OF BENGAL BY LIESL SCHWABE https://www.wordswithoutborders.org/dispatches/article/celebrating-kazi-nazrul-islam-rebel-poet-of-bengal-liesl-schwabe . এতে বলা হয়েছে নজরুলের তাৎপর্য একাডেমিক ক্ষেত্রের বাইরেও বিস্তৃত। তিনি নিজেকে বিপ্লবী প্রমাণ করে বাংলা সাহিত্য এবং রাজনীতি উভয়ই প্রজ্বলিত করেছেন। ওয়ার্ডস উইদাউট বর্ডারস আন্তর্জাতিক সাহিত্যের অনুবাদ, প্রকাশনা এবং প্রচারের মাধ্যমে সাংস্কৃতিক বোঝাপড়া প্রসারিত করে। তাদের প্রকাশনা এবং প্রোগ্রামগুলি সারা বিশ্বের ইংরেজি পাঠকদের জন্য বহুমুখী দৃষ্টিভঙ্গি, অভিজ্ঞতার সমৃদ্ধি এবং বিভিন্ন ভাষার লেখকদের দ্বারা প্রদত্ত ঘটনাগুলিতে সাহিত্যিক দৃষ্টিভঙ্গির দরজা খুলে দেয়।

স্কটল্যান্ডের গ্লাসগো বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০০৯ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে THE NAZRUL-BURNS CENTRE, The Centre for East-West Arts and Cultural Excellence, Scotland. এর মূল উদ্দেশ্য হলো বহুমাত্রিক বৈশ্বিক সংস্কৃতি চর্চা এগিয়ে নেয়া এবং বিশ্ব্যবাপী তার প্রচার। এজন্য তারা স্কটিশ কবি রবার্ট বার্নস ও বাংলাদেশের জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের নামে প্রতিষ্ঠান গড়ে তাদের লেখনী নিয়ে গবেষণা করছেন। গ্লাসগো বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভিন্ন সৃজনশীল এবং উদ্ভাবনী শিল্প, সাংস্কৃতিক কার্যক্রমের মাধ্যমে বহু-সংস্কৃতির বিকাশ সাধনের জন্য এটি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।

’নজরুল ফাউন্ডেশন কানাডা’ কয়েক বছর ধরে দেশে-বিদেশে নজরুল চর্চা অব্যাহত রেখেছে। বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলামের জীবন ও কর্ম নিয়ে সরব রয়েছেন ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান গবেষক কবি নুরুল ইসলাম।

ক্যালিফোর্নিয়া স্টেট বিশ্ববিদ্যালয়ের ধর্মবিজ্ঞান বিষয়ের সহযোগী অধ্যাপক ড. ফিলিস কে হারমান নজরুল বিষয়ক গবেষকদের অন্যতম। নজরুলের কবিতার চিত্রিত চারুকল্পে বহুরৈখিক সংস্কৃতি র্চচা, মানবতাবাদ, প্রেম, শত বছরের কবিতার বাঁকবদল, দ্রোহ, শোষকের বিরুদ্ধে সংগ্রাম, উত্তরাধুনিকতা, বৈশ্বিক পরিবেশ চিন্তা, কৃষকের ভাতের অধিকার, নারীর অধিকার, তৃণমূল মানুষের মৌলিক অধিকার সর্বোপরি ‘সবার উপরে মানুষ সত্য’র অমোঘ দর্শনের যে উপাদান বিদেশী পণ্ডিতেরা পেয়েছেন তাতে  তারা মোহিত এবং আকৃষ্ট হয়েছেন।

বোস্টনের ম্যাসাচুসেটস বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী উপাচার্য এবং রাষ্ট্রবিজ্ঞান ও আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক উইনস্টন ই ল্যাংলি ইংরেজি ভাষাভাষি মানুষের কাছে নজরুলকে পরিচয় করিয়ে দেওয়া জন্য KAZI NAZRUL ISLAM: THE VOICE OF POETRY AND THE STRUGGLE FOR HUMAN WHOLENESS শিরোনামে একটি বিশাল গন্থ সম্পাদনা করেছেন। ২০০৭ সালে এটি বই হিসেবে  প্রকাশিত হয়। দুই বছর পর বেরোয় দ্বিতীয় সংস্করণ। অনেকের মতো ল্যাংলিও বিশ্বাস করেন, ইংরেজ কবি শেলীর দৃষ্টিভঙ্গি নজরুলের লেখনীতে প্রকাশ পেয়েছে। ২০০২ সালে লসএঞ্জেলসে অনুষ্ঠিত  নজরুল কনফারেন্সে প্রফেসর ল্যাংলি নজরুলকে নিয়ে প্রবন্ধ পাঠ করেন। তিনি তার লেখায় নজরুলকে সমসাময়িক বিশ্বের শ্রেষ্ঠ কবি হিসেবে উল্লেখ করেছেন।

ফরাসী ভাসায় কাজী নজরুল ইসলাম: পোয়েমস চয়েসিস KAZI NAZRUL ISLAM: POEMS CHOISIS (French), কাজী নজরুল ইসলাম: চ্যান্সন্স KAZI NAZRUL ISLAM: CHANSONS (French) এবং স্প্যানিশ ভাষায় কাজী নজরুল ইসলাম: পেওমাস এলিগিডোস KAZI NAZRUL ISLAM: PEOMAS ELEGIDOS (Spanish) গ্রন্থ সমূহ সাম্প্রতিক কালে বেশ আলোচিত।

জাপানের ড. কুয়েকার নিউয়া (DR. KUEKER NEUA) নজরুলকে নিয়ে অনেক গবেষণা করেছেন। একই ভাবে কবি নজরুলকে নিয়ে কাজ করা বিদেশীদের মধ্যে নেদারল্যান্ডের লেখক-সাংবাদিক ড. পিটার কাস্টার্স, চিনের ইয়াং উইং মিং প্রমুখের নাম উল্লেখ করতে হয়। তারা নজরুলের সাহসী ও অনুসন্ধানী সাংবাদিকতাকে বিশেষ ভাবে মূল্যায়ন করেছেন।

কাজী নজরুল ইসলামকে মনে করা হয় আদর্শিক ধ্রুব তারার মতো। তার ‘গাহি সাম্যের গান, মানুষের চেয়ে বড় কিছু নেই, নহে কিছু মহীয়ান...’ এই বক্তব্যের মধ্য দিয়ে মানুষ নজরুল বড় হয়ে উঠেছেন। নজরুল মানুষের মহত্ত্বকে বেশি প্রাধান্য দিয়েছেন। মাত্র ২৩ বছরে তিনি সাড়ে চার হাজার গান রচনা করে গেছেন। নজরুল ইনস্টিটিউট কবির ১৮০০ গানের স্বরলিপি তৈরি করেছে। তিন হাজার ১৬টি গানের একটি সংকলন প্রকাশ করেছে। http://nazrulinstitute.gov.bd/ ইউরোপে নজরুল চর্চায় নতুন আলোচনার বিষয় হচ্ছে সাংবাদিকতায় নজরুল। গবেষণা মতে, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম এক বাঁধভাঙা প্রতিভা। বিদ্রোহী কবি হিসেবে ভুবনখ্যাত। সাংবাদিক হিসেবে উপমহাদেশে স্বাধীনতার প্রকৃত ঘোষক। ১৯২০ সালের ১২ মে মাসিক মোসলেম পত্রিকায় সাংবাদিকতা শুরু করেছিলেন। ১৯৪১ সাল পর্যন্ত ২১ বছরে বিভিন্ন পত্রিকায় কাজ করেছেন। আকাশচুম্বী কবি খ্যাতির নিচে কিছুটা হলেও চাপা পড়ে গেছে তার সাহসী সাংবাদিকতার ইতিহাস।

নজরুল ছিলেন বিশ্বযুদ্ধের আপসহীন লড়াকু নৈসিক। এক সময় অস্ত্রের বদলে কলম হাতে তুলে নিয়েছিলেন। ‘নবযুগ` ও ‘ধূমকেতু`র মতো কাগজে কবিতার পাশাপাশি সাংবাদিকতায় ঝড় তুলেছেন। সমকালীন রাজনৈতিক ও সামাজিক যন্ত্রণা লাঘবে সাংবাদিকতায় নব যুগান্তরের জন্ম দিয়েছেন। ঘুমন্ত ভারতবাসিকে জাগ্রত করে সাম্য-মৈত্রী ও স্বাধীনতার বীজ বপন করেছেন। ১৯৪৭ সালের স্বাধীনতা সেই বীজের ফসল।  

জাতীয় জাগরণের বংশীবাদক কাজী নজরুল আধুনিক বাংলা গানের জগতে ’বুলবুল’ নামে খ্যাতি লাভ করেছিলেন। বিশ্বযুদ্ধোত্তর ভারতবর্ষের মানুষ কেন পিছিয়ে পড়েছে, সে কথা তিনিই প্রথম দক্ষতা ও সাহসিকতার সাথে তুলে ধরেছেন। শাসক-শোষক শ্রেণীর বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তুলতে অদম্য মেধা ও সাহসের পরিচয় দেন। সংবাদ মাধ্যমে জনগণের মনে কথা তিনি যথার্থ ভাবে তুলে ধরতে সক্ষম হয়েছেন। তার বিদ্রোহ  ছিল উপনিবেশের বিরুদ্ধে, জাত-পাত ও বিভাজনের বিরুদ্ধে, অসত্য-অসুন্দরের বিরুদ্ধে।

বিদ্রোহী নজরুলের সংবাদ তৈরি এবং প্রকাশের দক্ষতা ছিল অত্যন্ত আকর্ষণীয় এবং শিক্ষামূলক। বৈশ্বিকভাবে সংবাদমাধ্যম ও সাংবাদিকতার বর্তমান অবস্থা তখন ছিলনা। দেশের সংবাদপত্র কী ধরনের চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে তা তিনি জানতেন। সাংবাদিকতার ব্যাপারে তার প্রতিভা দেখে সমকালিন সম্পাদকেরা তাজ্জব বনে গেছেন।

নজরুল ইসলামের লেখায় অবিচার ও শোষণ বিরোধী গণজাগরণ সৃষ্টি হয়েছে। নির্যাতিত ও বঞ্চিতদের ঐক্যবদ্ধ হয়ে শোষকদের বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তুলতে প্রেরণা যুগিয়েছে। তার ‘জার্নালিজম অব আউটরেজ’ সবাইকে ভাবিয়ে তুলেছিল। প্রতিটি লেখার প্রতিক্রিয়া দেখে সমকালীন খ্যাতিমান রিপোর্টারগণ বিস্মিত হয়েছেন। 

নজরুল জানতেন তথ্য কোথায় খুঁজতে হবে এবং কীভাবে এগুলোকে একটির সঙ্গে আরেকটিকে সংযুক্ত করতে হবে। প্রমাণ বিশ্লেষণ, যাচাই ও পটভূমি ব্যাখ্যার মাধ্যমে তিনি অর্থবহ প্রতিবেদন  তৈরি করেছেন। সাংবাদিকতার নৈতিক মান বজায় রাখতে গিয়ে আইনভঙ্গের দায়ে অভিযুক্ত হওয়ার ঝুঁকি এড়ানোর চেষ্টা করেননি। অনুসন্ধানী সাংবাদিকতায় গোয়েন্দা পুলিশের মতো সূক্ষ্মাতিসূক্ষ্ম বিশ্লেষণ তুলে ধরতেন। বিজ্ঞানীর মতো প্রমাণ আবিষ্কার করতেন।

'নবযুগ' পত্রিকার মাধ্যমে কাজী নজরুল সাংবাদিকতার জগতে নিজস্ব স্বকীয়তা প্রকাশে সক্ষম হন। অবিভক্ত বাংলার মুখ্যমন্ত্রী শেরে বাংলা আবুল কাশেম ফজলুল হকের অর্থায়নে ১৯২০ সালের ১২ জুলাই দৈনিক ’নবযুগ` নামে এই দৈনিক প্রকাশিত হয়। সম্পাদক হিসেবে ফজলুল হকের নাম মুদ্রিত হলেও মূলত নজরুল ছিলেন কার্যনির্বাহী সম্পাদক। ‌'নবযুগ' পত্রিকায় কবি লিখেন ‍‘কোথা থেকে এলো লেখার জোয়ার, তরবারী ধরা হাতে/ কারার দুয়ার ভাঙ্গিতে চাহিনু, নিদারুণ সংঘাতে ’।

নবযুগ পত্রিকায় নজরুল ইসলাম স্বাধীনতার ঝড় তুলতে শুরু করলেন। নজরুলই প্রথম কবিতা দিয়ে পত্রিকার সম্পাদকীয় লেখার সুচনা করেন। ‍ ’মেকাপ করিয়া অভিনেতা হয়/ নেতা নাহি হওয়া যায়/ নিরহংকার নির্লোভ নেতা/ কোন কিছু নাহি চায়।/ অভিনন্দন মালা চাহে নাকো/ চাহে না জ্বয়ধ্বনি/ চাকরের মত দেশ সেবা করে/ তাহাকেই নেতা জানি।‍’

নবযুগে ‘ধর্মঘট’ বা ‘উপেক্ষিত শক্তির উদ্বোধন’ প্রবন্ধে উপেক্ষিত কৃষক-মজুর সমাজের প্রতি নজরুলের অসাধারণ মমত্ববোধ প্রকাশ পায়। নবযুগে নজরুলের বড় বড় অক্ষরের কাব্যিক শীরোনাম আর জ্বালাময়ী সম্পাদকীয় লেখা ছিল পান্ডিত্য ও বৈদগ্ধ্যে সমৃদ্ধ। মৃত্যুভয়কে পেছনে ঠেলে তার অসাধারণ খবর প্রকাশের অসীম সাহসিকতা সবাইকে তাক লাগিয়ে দেয়। শক্তিশালী ও শাণিত সম্পাদকীয় লিখে তিনি বিদেশী শোষক এবং অত্যাচারী শাসকদের ভিত কাঁপিয়ে তোলেন। ইংরেজ সরকার তার কয়েকটি গ্রন্থ ও পত্রিকা নিষিদ্ধ করে এবং তাঁকে কারাদন্ডে দন্ডিত করে।

আদালতে নজরুলের রাজবন্দীর জবানবন্দীতে ইতিহাস সৃষ্টি হয়েছে। ইংরেজ সরকারের জেল-জুলুমের প্রতিবাদ জানিয়ে প্রায় চল্লিশ দিন তিনি একটানা অনশন করে আলোড়ন সৃষ্টি করেন। নোবেল বিজয়ী কবি রবীন্দ্রনাথ তাঁকে গ্রন্থ উৎসর্গ করে ভালোবাসা জ্ঞাপন করেন। অপরদিকে তদানীন্তন বৃটিশ সরকারের শ্যেন দৃষ্টি পড়ে পত্রিকাটির উপর। সরকার একাধিকবার সতর্ক করেও দমাতে পারেনি। অবশেষে ‘মুহাজিরিন হত্যার জন্য দায়ী কে` শীর্ষক প্রবন্ধের জন্য ’নবযুগ` পত্রিকার জামানতের টাকা বাজেয়াপ্ত করে।

১৯২২ সালের ৬ ফেব্রুয়ারী মওলানা আকরম খাঁর সম্পাদনায় প্রকাশিত হয় দৈনিক মোহাম্মদী। পরবর্তীতে দৈনিক সেবক। উভয় পত্রিকায় নজরুল সম্পৃক্ত ছিলেন। কিন্তু নজরুলের প্রদাহজনক লেখা প্রকাশের হিম্মত তিনি বেশি দিন দেখাতে পারেননি। নজরুলের লেখা সেন্সর করায় রাগ করে এটি ছেড়ে দেন।

১৯২২ সালের ১১ আগস্ট নজরুলের সম্পাদনায় অর্ধ সাপ্তাহিক ‘ধূমকেতু` প্রকাশিত হয়। পত্রিকার অভিনন্দন জানিয়ে রবীন্দ্রনাথ আশীর্বাণীতে লিখেন- আয় চলে আয়, যে ধূমকেতু,/ আঁধারে বাঁধ অগ্নিসেতু,/ দুর্দিনের এই দুর্গ শিরে/ উড়িয়ে দে তোর বিজয় কেতন।/ অলক্ষণের তিলক রেখা/ রাতের ভালো হোক না লেখা/ জাগিয়ে দে রে চমক মেরে,/ আছে যারা অর্ধচেতন।

‘ধূমকেতু` প্রথম সংখ্যায় নজরুল লেখেন, দেশের যারা শত্রু, দেশের যা কিছু মিথ্যা, ভন্ডামি, মেকি তা সব দূর করতে ‘ধূমকেতু` হবে আগুনের সম্মার্জনী। … ধূমকেতু ভারতের পূর্ণ স্বাধীনতা চায়। … ভারত বর্ষের এক পরমাণু অংশ ও বিদেশীর অধীন থাকবে না। ভারতবর্ষের সম্পূর্ণ দায়িত্ব, সম্পূর্ণ স্বাধীনতা-রক্ষা, শাসন ভার, সমস্ত থাকবে ভারতীয়দের হাতে। তাতে কোন বিদেশীর মোড়লী করবার অধিকারটুকু পর্যন্ত থাকবে না।`

‘বাঘের ঘরে ঘোগের বাসা‘, ’ঘর শত্রু বিভিষণ‘, ‘দুঃশাসনের বস্ত্রহরণ’, ‘চালাও যুদ্ধ চালাও’ ইত্যাদি সংবাদ সরস অথচ তীক্ষ্ন শিরোনাম দারুণ জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। পত্রিকাটি ছাপা হবার সাথে সাথে বিক্রি হয়ে যেত। রাস্তার মোড়ে মোড়ে তরুণের দল কাগজটি কেনার জন্য দাঁড়িয়ে থাকতো। কাগজের বান্ডিল নিয়ে হকার আসার পর হুড়োহুড়ি কাড়াকাড়ি লেগে যেত। আগ্রহী পাঠকেরা হকারকে আগাম টাকা দিয়ে রাখতো। চায়ের দোকানে পাঠকদের ভিড়,  ছাত্রদের হোস্টেলে, বৈঠক ঘরে সর্বত্র আলোচনা চলতো।

ধূমকেতুর প্রকাশকে স্বাগত জানিয়ে ১৯২২ খ্রিস্টাব্দের ৩০ আগস্ট অমৃতবাজার পত্রিকায়  আশাবাদ ব্যক্ত করে লেখা হয় ‘সৈনিক কবির হাতে ‘ধূমকেতু’ শুধু ধ্বংসের প্রতীক না হয়ে সুন্দর স্থায়ী ও পবিত্র  কিছু সৃষ্টি করতে সমর্থ হবে।’ ‘ধূমকেতু` দ্বাদশ সংখ্যায় প্রকাশিত নজরুলের ‘আনন্দময়ীর আগমনে` শীর্ষক কবিতার জন্য তিনি কারারুদ্ধ হন।

পরবর্তীতে নবযুগ আবার প্রকাশিত হয়। সম্পাদক নিযুক্ত হন কাজী নজরুল ইসলাম। ১৯২২ সালে মাওলানা আকরাম খাঁ কারারুদ্ধ হলে কাজী নজরুল ইসলাম তার সম্পাদিত ‘দৈনিক সেবক’-এর ভারপ্রাপ্ত সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। ১৯২৫ সালের ২৫ ডিসেম্বর লেবার স্বরাজ পার্টির একটি মুখপত্র ‘লাঙল’ প্রকাশিত হয়। কাজী নজরুল ইসলাম সেটির পরিচালক নিযুক্ত  হন এবং সম্পাদক  হন  তার বন্ধু মণিভূষণ মুখোপাধ্যায়। মণিভূষণ ছিলেন নাম মাত্র সম্পাদক। সব কিছুই করতেন নজরুল। ১৯২৬ সালের ১২ আগস্ট ‘গণবাণী’ প্রকাশিত হয়। গণবাণীতেই তিনি লেখেছেন অনেক দিন।

১৯২২ সালের নভেম্বরে কবি গ্রেফতার হন। ১৯২২ সালের ১৬ ডিসেম্বর তাাঁকে জেলখানায় পাঠানো হয়। করাগারে থেকেও বিদ্রোহের আগুন নিভেনি কবি নজরুলের।

ব্যাপক বাধা বিপত্তি আর চড়াই উৎড়াই পেরিয়ে ১৯২৫ সালের ১৬ ডিসেম্বর প্রকাশ করলেন লাঙ্গল পত্রিকা। এই পত্রিকার সব কাজকর্ম তিনি একাই করতেন। লাঙ্গলে এবার তিনি আরো বেশি জ্বালাময়ী লেখা লিখতে থাকলেন। কবি লিখলেন- ‍ ’ দিনে দিনে বহু বাড়িয়াছে দেনা/ শুধিতে হইবে ঋণ।‍ ’

ইউরোপে এখন সাংবাদিকতায় যে মানদন্ডের কথা কথা বলা হচ্ছে, বহুকাল আগে কবি নজরুল তা বাস্তবে প্রমান করে গেছেন।  তাই কবিতার পাশাপাশি সংবাদিকতায় নজরুল এখন বেশ আলোচিত বিষয়। বছরের হিসেবে ক্যালেন্ডারের পাতায় একশ বছর অতিক্রম করেছে।  সে সাংবাদিকতার হালখাতা মিলাতে গেলে অবাক হতে হয়। নজরুল সংবাদপত্রের সব ধারণা পাল্টে দিয়েছিলেন। তিনি ছিলেন অনুসন্ধানী ও সৃজনশীল সাংবাদিকতার কিংবদন্তি। নজরুলকে আধুনিক বাংলা সাংবাদিকতার জনক বা ফাদার অব দ্য জার্নালিস্ট বলা যায়। যে জন্যে আগামীর ইতিহাসে তিনি চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবেন।

লেখক: লন্ডন প্রবাসী সাংবাদিক, কবি কথাসাহিত্যিক

দুবাইতে কাব্যছবির দৃশ্য ও পাঠ উন্মোচন...



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
দুবাইতে কাব্যছবির দৃশ্য ও পাঠ উন্মোচন...

দুবাইতে কাব্যছবির দৃশ্য ও পাঠ উন্মোচন...

  • Font increase
  • Font Decrease

শারজাহের বঙ্গবন্ধু হলে আরবান রিডার্স ও বায়ান্ন টেলিভিশনের উদ্যোগে গত ২১ মে শনিবার সন্ধ্যায় প্রকাশিত হল " বৃত্ত"। ছবি - কবিতা কিম্বা কবিতা ছবির এক যুগপৎ কাব্যগ্রন্থ। শিল্পী ও কবির একত্র ভাবনার এক অন্তরিত প্রদর্শনী যেন এই বইটি।বইটির ১১টি কবিতার লেখক ভারতীয় কবি তানিয়া চক্রবর্তী এবং ছবির শিল্পী কনসাল জেনারেল বিশিষ্ট বি এম জামাল হোসেন।


বইটির কবিতা বাংলা ভাষা সহ আরো চারটি ভিন্ন ভাষা তথা হিন্দি, উর্দু, আরবী,ইংরেজি ভাষায় অনুবাদ করা হয়েছে যাতে বিশ্বস্তরে মানুষ কবিতার মর্মকে অন্তরে ধারণ করতে পারে।

বইটির মোড়ক উন্মোচন করেছেন আরবি রাজসভার বিখ্যাত কবি সুলতান আল কেতাবী।


এই অনুষ্ঠানে বক্তব্য রেখে ও উপস্থিত থেকে অনুষ্ঠানকে মহিমান্বিত করেছেন তাঁরা হলেন আল হারামাইন গ্রুপ ও বায়ান্ন টিভির চেয়ারম্যান সিআইপি মাহতাবুর রহমান নাসির, বাংলাদেশ সমিতি আবুধাবীর সভাপতি প্রকৌশলী মোয়াজ্জেম হোসেন,  শারজাহের সভাপতি আলহাজ এম এ বাশার, সম্মিলিত সাহিত্য সাংস্কৃতিক পরিষদ লন্ডনের কোষাধ্যক্ষ সাংবাদিক আনোয়ার শাহজাহান ও ড্যানিয়ুব প্রপার্টিজের কর্মকর্তা আরিফ ভালদার।


দুবাই বাংলাদেশ কনস্যুলেটের কনসাল জেনারেলর আঁকা ছবির রহস্য উন্মোচন করতে গিয়ে এই কাব্যগ্রন্থটি রচনা করেন কবি তানিয়া চক্রবর্তী।

মোড়ক উম্মোচন অনুষ্ঠানে কবি তানিয়া চক্রবর্তী বলেন, ‘সাম্প্রদায়িকতা হারিয়ে দেয়ার মোক্ষম হাতিয়ার কবিতা। যে পরিমাণ সাম্প্রদায়িকতা বিভিন্ন জায়গায় লুকিয়ে লুকিয়ে তৈরি হচ্ছে একমাত্র কবিতা সেই শেকড়টা উপড়ে দিতে পারবে।


তরুণ এই কবি পাঠকদের বইটি পড়ার আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘এই প্রয়াসকে ভালোবাসুন। বৃত্তের মধ্যে আপনারাও আসুন, বৃত্তকে গ্রহণ করুন।’

বৃত্ত’র মোড়ক উন্মোচনের অনুষ্ঠানটি মিলনমেলায় পরিণত হয়। কবিতা আবৃত্তি, স্মৃতিচারণ, নানা অভিজ্ঞতা শেয়ারের মধ্য দিয়ে উৎসবে মেতেছিলেন প্রবাসী সাহিত্য-সংস্কৃতি প্রেমীরা।

অনুষ্ঠানে সাহিত্য-সংস্কৃতি প্রেমীরা বৃত্ত’র কবিতার প্রশংসা করেছেন। বইয়ের পাতায় পাতায় ছবি, পাতায় পাতায় কবিতা। ছবি আর কবিতার এই মেলবন্ধন অনন্য মাত্রা যোগ করেছে বলে তারা মনে করেন। কাব্যগ্রন্থটির কবিতাগুলো বাংলা ছাড়াও ইংরেজি, উর্দু, আররি ও হিন্দি ভাষায় অনুবাদ করা হয়েছে।


কবিতা আমার কাছে ঘুমন্ত শিশুর মতো জানিয়ে কবি তানিয়া চক্রবর্তী বলেন, ‘কবিতা বা শিল্পের কোনো নির্দিষ্ট কারণ থাকে না। যার কাছে আসে, তার কাছে অতিপ্রাকৃতিকভাবে আসে। কবিতা আমার কাছে ঘুমন্ত শিশুর মতো। ঘুমের শিশু যেভাবে বাড়ে, আমার কবিতাও নিভৃতে বাড়ে।’

কবি ও শিল্পী বিএম জামাল হোসেনও কবি তানিয়া চক্রবর্তীকে কৃতিত্ব দিতে ভুল করেননি। কবি এখানে ছবি থেকে খুঁড়ে কবিতা বের করেছেন জানিয়ে বলেন, ‘একটি সাদা কাগজে কলমের একফোঁটা কালি পড়ে গেলে শিল্পী সেখান থেকেই শুরু করেন, একসময় শেষ হয়। শিল্পীর অবচেতন মনে আঁকা সেসব ছবির অর্থ শিল্পী জানেন না। এমন কিছু ছবি তানিয়াকে পাঠিয়েছিলাম। সে ছবিগুলোর হৃদয় খুঁড়ে কবিতা বের করে নিয়ে আসে। এটি তার অন্যতম একটি বৈশিষ্ট্য। সে প্রত্যেকটি ছবি থেকে এমন ভাব, রহস্য আর অস্তিত্ব খুঁজে পেয়েছে, তার কবিতাগুলো পড়ার পরে আমি জেনে অভিভূত হয়েছি। সে যদি এগুলো টেনে বের না করত, কোনোদিনও আমি এটি আবিষ্কার করতে পারতাম না।’


তিনি আরও বলেন, বইমেলার মাধ্যমে সাহিত্য-সংস্কৃতির একটি গোড়াপত্তন করতে চাই। সাংস্কৃতিক বন্ধ্যাত্বের যে কথা ওঠে এসেছে, সেই বন্ধ্যাত্বের অবসানে আজ প্রথম শিশুর জন্ম হলো।

আরবান রিডার্স এর অন্যতম সংগঠক প্রকৌশলী নওশের আলী আরবান বলেন, বই ঠিকই আছে কিন্তু পড়ার মানুষ নাই।

অনুষ্ঠানের আয়োজকদের পক্ষে বক্তব্য রাখেন আরবান রীডার্স এর অন্যতম সংগঠক নওশের আলী। অনুষ্ঠানের শুরুতে সদ্যপ্রয়াত আমিরাতের রাষ্ট্রপতি শেখ খলিফা ও বরেণ্য সাংবাদিক আবদুল গাফফার চৌধুরী স্মরণে নিরবতা পালন করা হয়।


শিল্পী বলেন মাইকেল মধূসূদন দত্তের প্রবাসকালেত জীবনের কথা, কবিতার কথা ও তাঁর আদ্যন্ত কষ্টের কথা, সেইসঙ্গে তিনি তানিয়া চক্রবর্তীর কবিতার ও এই ছবি সম্পর্কিত কবিতার ব্যবহারে প্রশংসা করেন। অপরদিকে কবিও শিল্পীর শিল্পকর্মকে নান্দনিক বলে অভিহিত করেছেন। তিনি বাংলাদেশ, পাকিস্তান, ইজিপ্টের বিশিষ্ট কবি যাঁরা এই দীর্ঘ অনুবাদ কর্মশালায় নিজেদের নিয়োজিত করেছেন  তাদের প্রতি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা জানান,এবং সবশেষে বলেন জীবনের এই বৃত্তে সকলে যেন সামিল হতে পারে....

বায়ান্ন টিভির বার্তা সম্পাদক তিশার পরিচালনায় বইয়ের উপর মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বায়ান্ন টিভির সম্পাদক ছড়াকার লুৎফুর রহমান। অনুষ্ঠানের আয়োজকদের পক্ষে বক্তব্য রাখেন আরবান রীডার্স এর অন্যতম সংগঠক নওশের আলী।


স্বরচিত কবিতা পাঠ করেন বাংলাদেশ, ভারত ও পাকিস্তানের কবি ফাহাদুর রহমান, সৈয়দ আলী হামিদ জাইদি ও সৈয়দ আমান হায়দার জাইদি।

কনসাল জেনারেল বি এম জামাল হোসেন যে সৃজনশীল উদ্যোগ গ্রহণ করছেন তারই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ সমিতি শারজাহে একটি লাইব্রেরি স্থাপনের ঘোষণা দেন সমিতির সভাপতি আলহাজ এম এ বাশার।

প্রবাসী ভিন্ন ভাষার মানুষ ও আরবী কবিরাও আন্তরিক ভাবে এই সাহিত্যকর্মের প্রতি আগামীতে আরো আগ্রহী হয়ে এইসকলদিকে তাকিয়ে থাকবেন বলে জানিয়েছেন।

;

আহসাবউদ্দীন আহমদ ও মানবসমাজের মুক্তিভাবনা



ড. মাহফুজ পারভেজ, অ্যাসোসিয়েট এডিটর, বার্তা২৪.কম
গ্রন্থের প্রচ্ছদ ও লেখক

গ্রন্থের প্রচ্ছদ ও লেখক

  • Font increase
  • Font Decrease

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজনীতি বিজ্ঞান বিভাগে আমার স্নেহভাজন সহকর্মী ও প্রিয় ছাত্র প্রফেসর মোহাম্মদ আলম চৌধুরী রচিত 'আহসাবউদ্দীন আহমদ ও মানবসমাজের মুক্তিভাবনা' গ্রন্থটি যখন হাতে এলো, তখন রাজা রামমোহন রায়ের সার্ধ-দ্বিশত জন্মবার্ষিকী পালিত হচ্ছে। কিছুদিন আগেই পালিত হয়েছে ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের দ্বিশততম জন্মবার্ষিকী। দুইবছর বাদেই অধ্যাপক আহসাবউদ্দীন আহমদেরও ১১০তম জন্মবার্ষিকী উদযাপিত হবে।

সত্য কবুল করে বলতে দ্বিধা নেই যে, আধুনিক ইতিহাসের ধারায় হিন্দু ও মুসলিমের মিলিত বৃহত্তর বাঙালি সমাজে শতবর্ষব্যাপী আলোচিত ও স্মরণীয় মনীষার সংখ্যা খুব বেশি নয়। অত্যল্প ব্যক্তিত্বই নিজের জীবন ও সমকালের পরিসরকে গৌরবের সঙ্গে অতিক্রম করে শতাব্দীর পরিসীমায় নিজের জাগরস্বপ্নকে প্রলম্বিত করতে সফল হয়েছেন। আর্থ, সামাজিক, সাহিত্যিক, সাংস্কৃতিক অঙ্গনে অপরিসীম ও অমোচনীয় প্রভাবের কারণে তাদের জীবন ও কর্ম কাল-কালান্তরে ও প্রজন্মব্যাপী সতত আলোচিত হয়েছে।

সমাজ ও মানুষের কাছে চিরায়ত গুরুত্ব ও প্রাসঙ্গিকতা লাভকারী অগ্রণী ও বিশিষ্ট বাঙালি আইকনিক চরিত্রের মধ্যে অধ্যাপক আহসাবউদ্দীন আহমদ নানা কারণে অতুলনীয় ও উজ্জ্বল ব্যতিক্রম স্বরূপ। কারণ, তিনি তৎকালীন রাজধানী কলকাতা বা ঢাকায় অবস্থান করেননি এবং কোনরূপ সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা ও বদান্যতার পরোয়া করেননি। স্বকীয় মেধা ও মননের শক্তিতে সম্পূর্ণ স্বনির্মিত মানুষ ছিলেন তিনি। ছিলেন প্রথা ও গতানুগতিকতার বিরুদ্ধে নীতি, নৈতিকতা ও শুদ্ধাচারের বিদ্রোহী প্রতিমূর্তি। তিনি জীবনভর সক্রিয় ও ভূষিত ছিলেন মাটি, মানুষ ও সমাজ-সংশ্লিষ্টতার শাশ্বত চৈতন্যের আলোকমালার বর্ণালীতে।

এমনই এক বহুমাত্রিক, ঘটনাবহুল জীবনের অধিকারী মানুষের জীবনচরিতের সামগ্রিক বিশ্লেষণ শুধু সাহিত্যিক দিক থেকেই নয়, ও সামাজিক গবেষণার নিরিখেও অতীব গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। শুধু গুরুত্বপূর্ণই নয়, কাজটি ব্যাপক, বিশাল অধ্যাবসায়ের ও শ্রমসাপেক্ষ। প্রফেসর মোহাম্মদ আলম চৌধুরী রচিত 'আহসাবউদ্দীন আহমদ ও মানবসমাজের মুক্তিভাবনা' গ্রন্থটি বহুবছরের প্রচেষ্টায় সম্পন্ন তেমনই এক নান্দনিক প্রয়াস, যা গতানুগতিক জীবনী সাহিত্য বলতে যা বোঝায়, তার চেয়ে অগ্রসর ও নিবিড় গবেষণামূলক প্রচেষ্টা।

সাধারণত কোন ব্যক্তির জীবন কেন্দ্রিক প্রত্যাগত মাধ্যমে রচিত সাহিত্যকে জীবনী সাহিত্য বলে। সংস্কৃতে এমন অনেক জীবনী সাহিত্যর পরিচয় মেলে, যেখানে জীবনী সাহিত্যকে 'কারিকা' বা 'বৃত্তি' বলা হত। মধ্যযুগের চৈতন্য দেবের আবির্ভাবের পর তাকে কেন্দ্র করে এবং তার পার্ষদদের কেন্দ্র করে এই জীবনী সাহিত্য রচনার সূত্রপাত হয়। পরবর্তীতে বাংলা সাহিত্যে অবিস্মরণীয় অনেক জীবনী রচিত হয়েছে। যার মধ্যে গোলাম মুরশিদের 'আশার ছলনে ভুলি' (মাইকেল মধুসূদন জীবনী) ও সুমন চট্টোপাধ্যায়ের 'প্রথম নাগরিক' (ভারতের প্রথম বাঙালি রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জি জীবনী) বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। 'আহসাবউদ্দীন আহমদ ও মানবসমাজের মুক্তিভাবনা' ভাষায়, বর্ণনায়, বিশ্লেষণে, তথ্যের সমাবেশে, কাঠামো ও পরিসরের বিস্তৃতিতে উচ্চাঙ্গের জীবনী গ্রন্থের তালিকায় স্থান পাওয়ার যোগ্য।

আহসাবউদ্দীন আহমদ বাংলাদেশি লেখক, সম্পাদক, রাজনীতিবিদ ও দক্ষ সংগঠক ছিলেন। তিনি যুক্তফ্রন্টের প্রাদেশিক পরিষদ সদস্য এবং একজন কমিউনিস্ট ছিলেন। চট্টগ্রাম সিটি কলেজ, সাধনপুর পল্লী উন্নয়ন উচ্চ বিদ্যালয়, বাঁশখালী ডিগ্রি কলেজসহ বেশ কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতাও তিনি। তিনি বাংলা ও ইংরেজি ভাষায় মোট ২৭টি গ্রন্থ রচনা করেন। সাহিত্যে অবদানের জন্য তিনি ২০০৫ সালে মরণোত্তর বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক প্রদত্ত সর্বোচ্চ সম্মান একুশে পদক-এ ভূষিত হন।

শিক্ষকতা দিয়ে আসহাব উদ্দীন আহমদ কর্মজীবন শুরু করেন। তিনি প্রথমে চট্টগ্রাম কলেজ, পরে একে একে তৎকালীন ইসলামিয়া কলেজ (বর্তমান হাজী মুহম্মদ মুহসীন কলেজ), লাকসাম নবাব ফয়েজুন্নেসা কলেজ, ফেনী সরকারী কলেজ-এ ইংরেজি ভাষা ও সাহিত্য বিষয়ে অধ্যাপনা করেন। ১৯৫০ সালের মাঝামাঝি থেকে ১৯৫৩ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ-এ ইংরেজি ভাষা ও সাহিত্য বিষয়ে অধ্যাপনা করেন। তিনি ছিলেন তৎকালীন বেসরকারি কলেজ শিক্ষক সমিতির মুখপত্র 'দি টিচার'-এর সম্পাদক।

আসহাব উদ্দীন ১৯১৪ সালে তৎকালীন ব্রিটিশ ভারতের (বর্তমান বাংলাদেশ) চট্টগ্রাম জেলার বাঁশখালী উপজেলার সাধনপুর গ্রামের সচ্ছল এক কৃষক পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা মুনশী সফর আলী চৌধুরী ও মা নাসিমা খাতুন। তিনি ১৯৩২ সালে বাণীগ্রাম-সাধনপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ম্যাট্রিক পাস করেন। পরে চট্টগ্রাম কলেজ থেকে ১৯৩৪ সালে ইন্টারমিডিয়েট পাস করেন। ১৯৩৬ সালে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে চট্টগ্রাম কলেজ থেকে বিএ পাস করার পর ১৯৩৯ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি ভাষা ও সাহিত্যে এমএ পাস করেন।

১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনের পর থেকে তিনি রাজনীতিতে সক্রিয় উঠেন এবং কলেজের অধ্যাপনা ছেড়ে দেন। মার্ক্সবাদে উদ্বুদ্ধ হয়ে যোগ দেন কৃষক-শ্রমিকদের পাশে। ১৯৫৪ সালে যুক্তফ্রন্টের প্রার্থী হিসেবে প্রাদেশিক পরিষদ সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৫৭ সালে ন্যাশনাল আওয়ামী লীগের (ন্যাপ) সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। বিপ্লবী রাজনীতির অনুসারী হওয়ায় তাকে পাকিস্তান আমলে এক বছর জেল খাটতে হয়। আইয়ুব খান ক্ষমতায় আসার পর তার রাজনীতি নিষিদ্ধ হয় এবং তার নামে হুলিয়া জারি হয়। ১৯৫৮ সাল থেকে ১৯৬৬ সাল পর্যন্ত আন্ডারগ্রাউন্ডে হুলিয়া মাথায় নিয়ে জীবন কাটাতে হয়। পাকিস্তান সরকার তাকে ধরে দেওয়ার জন্য পাঁচ হাজার টাকা পুরস্কার ঘোষণা করে।

১৯৬৬ সালে কমিউনিস্ট পার্টি দুই ভাগে ভাগ হয়ে গেলে তিনি পিকিংপন্থিদের সাথে ছিলেন এবং ১৯৬৭ সালে চট্টগ্রাম জেলার সভাপতি নির্বাচিত হন। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পরও তিনি আত্মগোপনে ছিলেন। সেই সময়ে তিনি বিভিন্ন গ্রামে কৃষকদের বাড়িতে তাদের আশ্রয়ে আত্মগোপন করে কাটান। ১৯৮০ চীনা কমিউনিস্ট পার্টির আমন্ত্রণে গণচীন সফর করেন ও সে বছরের শেষের দিকে সক্রিয় রাজনীতি হতে অবসর নেন।

আসহাব উদ্দীনের লেখালেখির মূল উপাদান ছিল শোষণমুক্তি ও সমাজ পরিবর্তন। ১৯৪৯ সালে তার রচিত প্রথম 'বই বাদলের ধারা ঝরে ঝরঝর' প্রকাশিত হয়। তিনি তার আমার সাহিত্য জীবন বইতে বলেছেন, আমার লেখায় হাসি-ঠাট্টার ভেতর দিয়ে সামাজিক, অর্থনৈতিক বৈষম্য ও অবিচারকে তুলে ধরা হয়েছে এবং জনগণতান্ত্রিক সমাজতান্ত্রিক রাজনীতিকে প্রচার করা হয়েছে, জনপ্রিয় করা হয়েছে, প্রোপাগান্ডার আকারে নয়, সাহিত্য রূপে।

অধ্যাপক আসহাব উদ্দীন আহমদ হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে ১৯৯৪ সালের ২৮ মে ঢাকার সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন। তাকে বাঁশখালী ডিগ্রি কলেজ প্রাঙ্গণে দাফন করা হয়।

প্রফেসর মোহাম্মদ আলম চৌধুরী রচিত 'আহসাবউদ্দীন আহমদ ও মানবসমাজের মুক্তিভাবনা' গ্রন্থটিতে একটি সুগভীর বিশ্লেষণাত্মক ভূমিকার পাশাপাশি তিনটি অধ্যায় ও ১২টি পরিশিষ্ট রয়েছে। একটি বিশুদ্ধ উচ্চতর গবেষণা কাঠামোয় সুনিয়ন্ত্রিত পদ্ধতিতে গ্রন্থটি রচিত হয়েছে। আহসাবউদ্দীন সংক্রান্ত যাবতীয় আকর তথ্য এবং প্রাথমিক ও প্রকাশিত সূত্রের ব্যবহারে গ্রন্থটি আহসানউদ্দিনের সামগ্রিক জীবন ও কর্মের পর্যালোচনাতেই সীমাবদ্ধ নয়, ভাবীকালের গবেষকদের জন্যেও অনুপ্রেরণার উৎস।

একজন ব্যক্তিমানুষের মানস গঠন ও ব্যক্তিত্ব নির্মাণের দীর্ঘতম পর্যায়গুলো খুঁড়ে বের করেছেন লেখক। দক্ষিণ চট্টগ্রামের এক প্রত্যন্ত জনপদ থেকে একজন মানুষের পক্ষে জাতীয় সামাজিক-সাংস্কৃতিক-রাজনৈতিক কণ্ঠস্বরে পরিণত হওয়ার রোমাঞ্চকর বৃত্তান্ত এই গ্রন্থ। এই গ্রন্থ এক প্রতিবাদী, প্রতিষ্ঠানবিরোধী, দ্রোহী ও অসঙ্গতির বিরুদ্ধে বিদ্রূপমাখা কণ্ঠ আর অক্ষরের অধিকারী এক লেখকসত্ত্বাও ইতিবৃত্ত।

লেখকের ভাষা অনন্য, বিশ্লেষণ অতলস্পর্শী, পর্যালোচনা সুদূরপ্রসারী, বিন্যাস বহুমাত্রিক নান্দনিকতায় দীপ্তিময়। অতীতে আহমদ ছফা ও উইল ডুরান্ডকে নিয়ে কাজের অভিজ্ঞতায় বক্ষ্যমান গ্রন্থে লেখকের কুশলী কৃতিত্ব ও সুনিপুণ পারঙ্গমতা সুস্পষ্ট। 'প্রকৃতি' থেকে প্রকাশিত গ্রন্থটি মুদ্রণ সৌকর্যে উন্নততর ও প্রতিনিধিত্বমূলক।

ঘটনাচক্রে গ্রন্থের লেখকের মতো প্রচ্ছদ শিল্পী জাওয়াদ উলআলম চৌধুরী আমার স্নেহভাজন ছাত্র, যিনি অধুনা শিল্পকলার ইতিহাস ও সমকালীন প্রপঞ্চ নিয়ে উচ্চতর গবেষণা সম্পন্ন করে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেছেন। সামাজিক বিজ্ঞানের ব্যাপক পরিধিকে শিল্প-নন্দনের মেলবন্ধনে উদ্ভাসিত করার পারঙ্গমতায় তিনি দক্ষতার সঙ্গে বহু প্রশংসনীয় কাজ করছেন। একইভাবে সাহিত্যিক ঘরানার জীবনীচর্চাকে সামাজিক-রাজনৈতিক বিজ্ঞানের ব্যাপকতর পরিপ্রেক্ষিতে জারিত করে নবতর বীক্ষণে উপস্থাপনায় ও বহুবর্ণা দৃষ্টিকোণ উন্মোচনায় লেখক প্রফেসর মোহাম্মদ আলম চৌধুরীর সাবলীল কৃতিত্বপূর্ণ দক্ষতা সমকালীন মননচর্চা ও গবেষণায় দৃষ্টান্তমূলক ও সাধুবাদের যোগ্য। 'আহসাবউদ্দীন আহমদ ও মানবসমাজের মুক্তিভাবনা' বিশেষভাবে আহসাবচর্চায় ও সাধারণভাবে বাংলা জীবনী সাহিত্যে মূল্যবান সংযোজন রূপে বিবেচিত হবে বলে আশা করা যায়।

ড. মাহফুজ পারভেজ, প্রফেসর, রাজনীতি বিজ্ঞান বিভাগ, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় এবং অ্যাসোসিয়েট এডিটর, বার্তা২৪.কম

;

গল্প 'ব্রহ্মপুত্রের ঘাট': মাহফুজ পারভেজ



মাহফুজ পারভেজ
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

খুব দূরেও নয়, আবার কাছেও বলা যাবে না। যাত্রাপথ সাকুল্যে পয়তাল্লিশ মিনিটের। কোনও বিভ্রাট হলে প্লাস-মাইনাস পাঁচ থেকে দশ মিনিট। যাত্রার সময়ের মতো পথের রেখাও ঝকঝকে, স্পষ্ট। কিশোরগঞ্জ থেকে নান্দাইল, ঈশ্বরগঞ্জ হয়ে ডানে গৌরীপুর, নেত্রকোনা, ফুলপুর, হালুয়াঘাট রেখে শম্ভুগঞ্জে ব্রহ্মপুত্রের ঘাট। ট্রেনে এলেও মোটামুটি একই সময় লাগে আর অভিন্ন জনপদগুলো পেরিয়ে আসতে হয়। পূর্ব ময়মনসিংহের এই চিরায়ত ভূগোলে সড়ক আর রেলপথ বলতে গেছে সমান্তরালে চলেছে। 

শম্ভুগঞ্জে ব্রহ্মপুরের ঘাটের চিত্রটিও আদি আর অকৃত্রিম গুদারা ঘাটের বর্ধিত সংস্করণ মাত্র। পারস্যের বহু ফারসি শব্দের মতো গুদারা শব্দটিও দিব্যি টিকে আছে বাংলা অভিধানে। ঘাটে গিজগিজ করছে পূর্ব ও উত্তর ময়মনসিংহের বাসগুলো। গুদারা নৌকায় অপর পাড়ে ময়মনসিংহ শহর। সেখানেও অনেকগুলো ঘাট: থানা ঘাট, এসকে হাসপাতাল ঘাট, পাটগুদাম ঘাট। যার যেদিকে কাজ, সেদিকের গুদারা নৌকায় যাচ্ছে। নদীর অবিরাম স্রোতের মতো নৌকা ও মানুষের ছুটে চলা যেন চলছেই অনাদিকাল থেকে। মূক ব্রহ্মপুত্র যার সাক্ষী।   

কনক বাস থেকে নেমে নদী ও ওপারের ল্যান্ডস্কেপে আবছা শহরের দিকে তাকিয়ে বুক ভরে শ্বাস নেয়। প্রলম্বিত গ্রীষ্মের তেজি ভাব নেই নদী তীরের জলমগ্ন পরিবেশে। বাতাসে হাল্কা সুখের পরশ ভাদুরে গুমোট গরমকে  কিছুটা পরাজিত করেছে। নদী যে কতটা স্বস্তি ও আরামের, তীরে এলে টের পাওয়া যায়।

কনকের ভাগ্যে প্রাকৃতিক মোলায়েম পরশ দীর্ঘস্থায়ী হলো না। আসা-যাওয়ার বাসগুলোর মধ্যে ঢুকছে আরও নানা রকমের যানবাহন, যাত্রী ও পথচারী। থেমে থেমে শুরু হয়েছে যন্ত্রদানবের পৈশাচিক হর্নের মর্মন্তুদ উল্লাস। কালো ধূম্রকুণ্ডলী পাগলা মোঘের মতো খোলা আকাশ ও মুক্ত বাতাসকে হনন করছে। ঘাটের কুখ্যাত যানজট, শব্দ ও বায়ু দূষণ, বিশৃঙ্খলার উৎপাত থেকে কিছুটা দূরে সরে কনক একটা অস্থায়ী গোছের চায়ের দোকানের বেঞ্চিতে গিয়ে বসে।

একমুখ হাসিতে মাঝবয়েসী দোকানি আমন্ত্রণের গলায় বলল, ‘চা আর একটু হাওয়া খেয়ে নৌকায় উঠে পড়ুন। এখনও রোদ কড়া হয় নি, আরামে ময়মনসিংহ শহরে পৌঁছে যেতে পারবেন।’

দোকানির কথায় কনক সৌজন্যে মাথা ঝাঁকিয়ে একই সঙ্গে সম্মতি ও চায়ের অর্ডার দেয়।

ঘাটের এদিকে বিশেষ ভিড় নেই। জন কোলাহল, যানবাহনের শব্দ, হর্ন ও ভিড়ের প্রকোপ অপেক্ষাকৃত কম। অদূরে ধনুকের মতো উত্তর থেকে বয়ে আসা ব্রহ্মপুত্রকে দেখা যাচ্ছে দক্ষিণে কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের দিকে চলে যেতে। চোখে পড়লো, নদীতে ব্রিজের কাজ চলছে। পিলার বসছে মাঝ বরাবর।

কনক ব্রিজের চলমান কাজকর্মের দিকে অনেকক্ষণ স্থির চোখ আকিয়ে আছে দেখে চায়ের কাপ এগিয়ে দিতে দিতে দোকানি কথা বলে, ‘ব্রিজ হলে তো ঘাট থাকবে না। গুদারা, মাঝি, আমাদের মতো দোকানদারদের বিপদ হবে।’

কথাগুলো ঠিক কনককে উদ্দেশ্য করে বলা হয় নি। স্বগতোক্তির মতো উচ্চারিত। কনক চুপ করে শোনে। কোনও উত্তর দেয় না। চা শেষ করে ঘড়ি দেখে কনক। প্রায়-আধ ঘণ্টা হয়ে গেছে এখনও জ্যোতি আসে নি। অথচ আজকে জ্যোতির আসাটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

ইচ্ছে করলেই সে নৌকা ধরে ময়মনসিংহ শহরে চলে যেতে পারে। কিন্তু তাতে সমস্যা মিটবে না। তাদের মধ্যে ঠিক করা আছে, এক সপ্তাহে কনক ব্রহ্মপুত্র পেরিয়ে শহরে আসবে। পরের সপ্তাহে জ্যোতি আসবে নদী পেরিয়ে শম্ভুগঞ্জে। মফস্বল শহরের ছোট্ট পরিসরে সবাই মুখচেনা লোক। নিয়মিত এক জায়গায় দেখা-সাক্ষাত হলে লোকমুখে সেটি ছড়িয়ে পড়তে সময় লাগবে না।

একবার শহরের জনবহুল গাঙিনার পাড়ে কনক ও জ্যোতিকে একসঙ্গে দেখে পাড়ার এক বড় ভাই কটমটে চোখে তাকিয়ে ছিল। ভাগ্য ভালো থাকায় জেরা-জিজ্ঞাসাবাদের আগেই তারা ভিড়ের মধ্যে মিশে হারিয়ে যায়। আরেক বার রেল স্টেশেনের কাছে তাজমহল রেস্টুরেন্টে চা খেতে গিয়ে প্রায় হাতেনাতে ধরাই পড়ে গিয়েছিল কলেজের মহেশ স্যারের কাছে। সেবারও ভাগ্যের জোরে সটকে পড়েছিল দুজনে। তারপর থেকে পরিকল্পনা বদলে ফেলে তারা। এক সপ্তাহে কনক শহরে গিয়ে দেখা করে। দেখার জায়গাও তারা বদল করে নিয়মিত। কখনও ছায়াবাণী, পূবরী বা অলকা সিনেমা হলের সামনে। কখনও সার্কিট হাউসের আশোপাশে। কখনও নদীর তীর-ঘেঁষা পার্ক ও রাস্তায় সন্তর্পণে কিছুটা সময় কাটায় তারা।

জ্যোতি শহরের বাইরে এলে শম্ভুগঞ্জের আশেপাশে নদীর তীর ধরে নির্বিঘ্নে অনেকটা সময় কাটিয়ে দেয় দুজনে।

এই সপ্তাহে হিসাব মতো জ্যোতি আসবে শম্ভুগঞ্জে। সে রকমই কথা হয়ে আছে। জ্যোতি জরুরি কিছু কথা বলার বিষয়েও আগাম জানিয়ে রেখেছে  । কনকেরও বলার মতো অনেক গুরুত্বপূর্ণ কথা জমে আছে। শুধু কথা নয়, দুজনের ভাগ্যও পাশের ব্রহ্মপুত্রের মতো বাঁক বদল করতে চলেছে। কনক পড়তে চলে যাবে পাহাড় ও সমুদ্র ঘেরা চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে। জ্যোতি চান্স পেয়েছে উত্তরের মতিহার ক্যাম্পাসের রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে। ময়মনসিংহে ব্রহ্মপুত্রকে সাক্ষী রেখে তাদের আসা-যাওয়া আর মেলামেশাও ইতি ঘটতে চলেছে। তাদের হৃদয়ে মিলনের আকুতি সুতীব্র হলেও দুজনের জীবনগতির সামনেই অনাগত ভবিষ্যতের অনিশ্চিত টান। এই সপ্তাহে দুজনের দেখা হওয়া তাই খুবই জরুরি। এ কথা কনক যেমন জানে, জ্যোতিও জানে।

কনক যথারীতি উপস্থিত হয়েছে। কিন্তু জ্যোতিকে না দেখে সে চিন্তিত এবং কিছুটা বিস্মিত ও শঙ্কিত। জ্যোতি তো কথার হেরফের করার মেয়ে নয়। তাহলে কেন এই বিলম্ব? মাথায় এই আস্ত প্রশ্নবোধক চিহ্ন নিয়ে কনক চা দোকানের বেঞ্চিতে অপেক্ষায় থাকে।

কোন ফাঁকে অপেক্ষার মাঝ দিয়ে কয়েক কাপ চা খাওয়া হয়ে গেছে, কনক টের পায় না। টের পেলো যখন প্রতীক্ষার টেনশনে ও কয়েক কাপ চায়ের দ্রব্য গুণে পেটে অম্বলের চাপ তৈরি হলো, তখন। প্রায় দুই ঘণ্টা হয়ে গেছে তবু জ্যোতি আসে নি। আর বসে থাকতে ভালো লাগছে না। কনক আলতো পায়ে মন খারাপ করে নদীর দিকে পা বাড়ায়। ওপার থেকে আসা নৌকাগুলোর দিকে চোখ রেখে রেখে সে তীরে পায়চারি করতে থাকে।

কনক দেখে কত রঙ-বেরঙের মানুষ নৌকায় ব্রহ্মপুত্রের এপার-ওপার করছে। বিচিত্র তাদের বয়স, পেশা, ব্যক্তিত্ব। ছাত্র, ব্যবসায়ী, অসুস্থ, বৃদ্ধ, কুলি, কামলা, হকার রোগি, নারী, পুরুষের অভাবনীয় এক জগৎ তৈরি হয়েছে ব্রহ্মপুত্রের ঘাট ঘিরে। এখানেই একদিন জ্যোতির সঙ্গে কনকেরও দেখা হয়ে গিয়েছিল। এক অসুস্থ আত্মীয়কে নিয়ে কনক নেমেছিল শম্ভুগঞ্জের ঘাটে। গুদারা নৌকায় চেপে দ্রুত ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পৌঁছাতে অস্থির ও ব্যাকুল কনককে দেখছিল সহযাত্রীরা। কনক আগে ময়মনসিংহ শহরে আসে নি। সে ব্রহ্মপুত্র পাড়ি দিচ্ছে জীবনে প্রথম বারের মতো। তা-ও একা এবং একজন সঙ্কটাপন্ন মানুষকে নিয়ে। স্বাভাবিকভাবেই মানসিকভাবে সে কিছুটা দুশ্চিন্তাগ্রস্থ। পাশের কয়েকজনকে হাসপাতালে চিকিৎসার বিষয়ে জানতে চেয়ে বিশেষ লাভ হয় নি তার।

অকস্ম্যাৎ উদ্বিগ্ন কনক অবাক হয় একটি তরুণীর কণ্ঠস্বরে, ‘চিন্তা করবেন না, আমি আপনাকে হাসপাতালে পৌঁছে দেবো।’

‘আপনাকে কষ্ট করতে হবে না। আমাকে পথঘাট বলে দিলেই আমি পারবো।’

`আমার কষ্ট হবে না। আমি ওদিকেই থাকি।’

মাঝ নদীতে কনক যে মেয়েটির কথায় আশার দ্বীপ খুঁজে পায়, তার নাম জ্যোতি। জ্যোতির কারণে নতুন শহরে আগন্তুকের মতো একেলা ও অসহায় কনক স্বচ্ছন্দ্যে সব কাজ করতে পারে। রোগি ভর্তি থেকে চিকিৎসার যাবতীয় কাজে না বললেও জ্যোতি পাশে থাকে। রুটিন করে দিনে দুইবার হাসপাতালে চলে আসে জ্যোতি। বারণ করলে   বলে, ‘ঐ যে আমাদের বাসা দেখা যায়। দুই মিনিটের পথ। বার বার এলেও আমার কোনও অসুবিধা হবে না।’

হাসপাতাল থেকে রিলিজ নেওয়ার দিন জ্যোতি সারাক্ষণ পাশে থাকে। শহরের প্রান্তস্পর্শী ব্রহ্মপুত্রের ঘাট পর্যন্ত সঙ্গে আসে। নৌকায় বসে কনক দেখে পাড়ে তখনও দাঁড়িয়ে জ্যোতি। হঠাৎ নিজের ভেতরে অকস্ম্যাৎ পরিচিতি মেয়েটির জন্য অজানা-অচেনা কেমন একটা টান অনুভব করে কনক। মনে হয় ব্রহ্মপুত্রের  সঙ্গে ভেসে যাচ্ছে সে একটি স্বল্প পরিচিত তরুণী সঙ্গে যৌথ সাঁতারে। নৌকা ছাড়ার আগে কনক হঠাৎ চিৎকার করে বলে, ‘শুক্রবার আমি আবার আসবো তোমার কাছে।’ হাল্কা মাথা নাড়িয়ে সলাজ মুখ লুকায় তীরে দাঁড়ানো জ্যোতি।

সেই শুরু। তারপর দেখতে দেখতে দুই বছর হয়ে গেছে। বিশেষ কারণ ছাড়া কোনও সপ্তাহেই তাদের দেখা-সাক্ষাৎ বাদ যায় নি। আজকে জ্যোতির দেখা না পেয়ে পুরনো কথাগুলো মনে হয় তার। জ্যোতির দেখা না-পেয়ে কনকের মনে হলো, উত্তরের গারো পাহাড় কাছে চলে এসে বেদনার প্রচণ্ড ভারে তাকে চেপে ধরেছে।

কনক ঠিক বুঝতে পারে না, কেন জ্যোতি আসে নি? এমন তো কখনও হয় নি। বিশেষ করে, এবারের দেখাটা অনেক জরুরি। বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ কথা তাদের মধ্যে হওয়া দরকার।

কনক দেখে দুপুরের সূর্য মাথার উপর গনগন করছে। ব্রহ্মপুত্রের জলজ বুকে রুদ্রদিনের দাবদাহে বাষ্পের আবছা ছায়া দৃষ্টিতে বিভ্রম ছড়াচ্ছে। সে নিজেও কম বিভ্রান্ত নয়। তার বুকেও চলছে আগুনের হল্কা। কনক স্থির করতে পারে না, তার কি চলে যাওয়া উচিত? নাকি ব্রহ্মপুত্র পেরিয়ে যাওয়া দরকার জ্যোতির কাছে?

সাত-পাঁচ ভাবতে ভাবতে নৌকা ধরে শহরে চলে আসে কনক। বেশ খিদেও পেয়েছে তার। তাড়াতাড়ি কিছু খেয়ে সে চলে আসে সেহরা, আকুয়া পেরিয়ে জ্যোতির বাসার কাছাকাছি। জ্যোতির বাসা চিনলেও কোনও দিন সেখানে তার যাওয়া হয় নি। একবার শুধু বড় রাস্তা থেকে জ্যোতি দেখিয়েছিল তাদের হলুদ বাড়িটি। আন্দাজে খানিকক্ষণ এদিক-সেদিক সময় কাটিয়ে বিকেলের মুখে কনক জ্যোতিদের বাড়ির ঠিক সামনে পৌঁছে যায়। পুরো আবাসিক এলাকায় সারিবদ্ধ বাড়িগুলো দেখতে পায় সে। কোন দোকান-পাট নেই যে দাঁড়িয়ে দেখবে বা কিছু খোঁজ-খবর করবে। জ্যোতির বাসার পাশে তার চোখে পড়ে গেটের ভেতরে কয়েকটি গাড়ি দাঁড়ানো। লোকজনও চলাচল করছে। অন্য বাড়িগুলোর মতো নিশ্চুপ ঝিমুচ্ছে না জ্যোতিদের বাসা। বাসার আরেক পাশে একটি ল্যাম্পপোস্টের তলায় তিনটি ছেলে জটলা করছে। কনক ধীর পায়ে তাদের পাশ দিয়ে হেঁটে যায়। সে স্পষ্ট শুনতে পায় তাদের কথোকথন, ‘খুব ভালো বিয়ে হয়েছে জ্যোতির। যদিও কাজটা হয়েছে ওর অসম্মতিতে জোর-জবরদস্তি করে।’

চট করে এক পলকের জন্য থমকে দাঁড়ায় কনক। পেছন ফিরে ছেলেগুলোর মাথার উপর দিয়ে তীর্যক দেখতে পায় জ্যোতিদের বাড়িটি যেন নিমেষে কারাগার হয়ে গেছে। সামনের দিকে ফিরে পা বাড়ানোর আগে কনক শুনতে পায় ছেলেগুলোর মধ্যে কেউ একজনের গলা, ‘জ্যোতিকে আর দেখতে পাবো না। কালই বরের সঙ্গে অস্ট্রেলিয়া চলে যাবে সে।’

যন্ত্রের মতো কখন যে কনক প্রাচীন ময়মনসিংহ শহরের অলি-গলি পেরিয়ে পুরনো ব্রহ্মপুত্রের ঘাটে চলে আসে, বুঝতেও পারে না। বোধশক্তিহীন মানুষ এখন সে। অভ্যাসের বশে সে চিনতে পারে ঘাট, গুদারা, নৌকা, ব্রহ্মপুত্র, জ্যোতির মুখের স্মৃতি। চিনলেও সে যেন কাউকেই খুঁজে পাচ্ছে না। নিজেকে তার মনে হয় খুবই একা ও অচেনা এবং পৃথিবীর নিঃসঙ্গতম মানুষের মতো সঙ্গীহীন। নদীর তীর থেকে কেউ একজন তাকে ধরে নৌকায় বসিয়ে

দেয়। চরাচর জুড়ে প্রদোষের আবির রঙা বেদনায় কনক ব্রহ্মপুত্রে জলে তাকিয়ে চমকে উঠে। কনক দেখে, ব্রহ্মপুত্র নিজের চেহারা লুকিয়ে জলের কল্লোলে তার নিজের চেহারাই বিম্বিত করেছে। নদীর দিকে তাকিয়ে কনক বুঝতে পারে, তার আর জ্যোতির জীবন প্রবাহ যেন আলাদা হয়ে যাচ্ছে।

পুরনো নদীর বুকে জন্ম নেওয়া একেকটি বালুচর পেরিয়ে কনকের নৌকা শম্ভুগঞ্জের ঘাটে ফিরে আসার সময় তার খুব জানতে ইচ্ছে করে, এইসব বালুচরের ওপর শুয়ে স্বপ্ন দেখা তরুণ-তরুণীর কথা ব্রহ্মপুত্র মনে রাখবে? তাদের সকাল, দুপুর, সন্ধ্যাগুলো মনে রাখবে শম্ভুগঞ্জের ঘাট?

কোনও এক অনিন্দ্য ভোরে হঠাৎ শম্ভুগঞ্জের ঘাটে ব্রহ্মপুত্রের কাছে এসে একদিন কনক জেনে নেবে এইসব প্রশ্নের উত্তর।

পাদটীকা: ব্রহ্মপুত্র নদ প্রেমে পড়েছে। সে প্রেমে পড়েছে সুন্দরী নদী গঙ্গার। গঙ্গার রূপের গল্প শুনে সে অস্থির হয়ে পড়েছে। যে করেই হোক, গঙ্গাকে তার চাই। ব্রহ্মপুত্র সিদ্ধান্ত নিলো সে গঙ্গাকে বিয়ে করবে। যে-ই ভাবা সে-ই কাজ। গঙ্গাকে বিয়ে করার উদ্দেশ্যে প্রবাহিত হতে থাকলো সে। ওদিকে গঙ্গাও ব্রহ্মপুত্রকে পছন্দ করেছে। কিন্তু পছন্দ করলেই তো হবে না। ব্রহ্মপুত্র কি সত্যি সত্যিই তাকে ভালোবাসে, সেটা যাচাই করে দেখাও দরকার। তাই গঙ্গা এক অভিনব বুদ্ধি বের করলো। সে তার রূপবতী অবয়বে বৃদ্ধার সাঁজ নিলো। বৃদ্ধা গঙ্গা অর্থাৎ বুড়িগঙ্গা একার এগিয়ে গেলো ব্রহ্মপুত্রের দিকে। ওদিকে ব্রহ্মপুত্র তার দীর্ঘ যাত্রা শেষে গঙ্গার কাছে চলে এসেছে। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত সে বৃদ্ধা গঙ্গাকে চিনতেই পারলো না। চিনবেই বা কেমন করে, গঙ্গা তো তখন ছদ্মবেশী বুড়িগঙ্গা। কৌত‚হলী ব্রহ্মপুত্র বুড়িগঙ্গাকে শুধালো, ‘মা, গঙ্গা কোথায়?’ বুড়িগঙ্গা এই প্রশ্নে ক্রোধান্বিত হয়ে গেলেন। গঙ্গাকে চিনতে না পারার মাশুল দিতে হলো ব্রহ্মপুত্রকে। গঙ্গা তাকে ফিরিয়ে দিলো। ব্রহ্মপুত্র তারপর দক্ষিণে প্রবাহিত হয়ে বঙ্গোপসাগরে মিশে গেলো। নাম আড়াল করে গঙ্গাও মেঘনার সাথে মিলিত হয়ে সাগরে হারিয়ে গেলো। একই সাগরে মিলেমিশেও কেউ আর কাউকেই চিনতে পারলো না।

'ভারত বিচিত্রা'র সৌজন্যে।

;

ভ্রমণগদ্য হোক সৃজনশীল চর্চার গন্তব্য



জাকারিয়া মন্ডল
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ভ্রমণ বিষয়ক লেখা সাহিত্য কি না তা নিয়ে বিতর্ক আছে। গ্রিক পর্যটক মেগাস্থিনিস, চৈনিক ফা হিয়েন ও হিউয়েন সাং, আরব পর্যটক সুলেমান ও আল মাসুদি, পারস্যের পর্যটক আল বিরুনি, ইতালির মার্কো পোলো, মরক্কোর ইবনে বতুতা প্রমুখ বিশ্বখ্যাতরা সাহিত্য করেননি। তারা করেছিলেন ডকুমেন্টেশন। যা দেখেছিলেন তাই লিখেছিলেন। ঘটনার বিবরণ দিয়েছিলেন। মুঘল, নবাবী, এমনকি ব্রিটিশ আমলের পর্যটকদের বিবরণেও ওই ধারাটাই বজায় ছিলো। এখনও অনেক পর্যটক এ ধারার চর্চা করে চলেছেন।

তবে পৃথিবী আধুনিকতার পথে ধাবিত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ভিন্নধারার চর্চার চলও শুরু হয়ে যায়। যেমন, সৈয়দ মুজতবা আলীকে আমরা ডকুমেন্টেশনের চেয়ে রম্যরসে অধিক মনোযোগ দিতে দেখি। পরবর্তীতে আরও অনেকে এমন চর্চার অনুসারি হয়ে ওঠেন। ফলে ভ্রমণের বিবরণ সাহিত্যঘেঁষা হয়ে উঠতে শুরু করে। ভ্রমণের বেসিক বিবরণ ও সাহিত্যের মধ্যে ব্যবধান কমতে শুরু করে। এখন অনেকেই ভ্রমণ লেখাকে সাহিত্যে আত্তীকরণ করতে আগ্রহী। সাংবাদিক ও কবি মাহমুদ হাফিজ ভ্রমণগদ্য নামে যে ত্রৈমাসিক পত্রিকাটি বের করে চলেছেন, তাতে পত্রিকার নামের সঙ্গে লেখা রয়েছে ‘ভ্রমণ সাহিত্যের কাগজ’।

‘ভ্রামণিক’ নামে ভ্রমণ লেখকদের নতুন একটা পরিচয় প্রতিষ্ঠিত করারও অন্যতম পুরোধা বলা যায় মাহমুদ হাফিজকে। সদালাপী ও বিনয়ী মানুষটির সঙ্গে আমার প্রথম পরিচয় বছর কয়েক আগে, এয়ার এশিয়ার কুয়ালালামপুরগামী এক ফ্লাইটে। অল ইউরোপিয়ান অ্যাসোসিয়েশন (আয়েবা) নামে একটি সংগঠন তখন মালয়েশিয়ার রাজধানী কুয়ালালামপুরে সম্মেলন আয়োজন করেছিলো। সেখানে আমন্ত্রণ ছিলো ঢাকা শহরের বাঘা বাঘা সম্পাদক ও সাংবাদিকদের। বাংলাদেশে অনলাইন সাংবাদিকতার জনক আলমগীর হোসেন তখন তারই জন্ম দেওয়া বাংলানিউজ২৪.কমের এডিটর ইন চিফ। তারও আমন্ত্রণ ছিলো আয়েবা সম্মেলনে। কিন্তু, তিনি নিজে না গিয়ে তার প্রতিনিধি হিসেবে আমাকে পাঠানোর ব্যবস্থা করেছিলেন। ঢাকার সাংবাদিক অতিথিদের একই ফ্লাইটে কুয়ালালামপুর নেওয়া হচ্ছিলো।

প্লেন আকাশে ওঠার পর মাহমুদ হাফিজ ভাই আমাকে খুঁজে বের করলেন। ওটাই যে প্রথম পরিচয়, কথা শুরুর পর সেটা ভুলেই গেলাম। এরপর গত কয়েক বছরে বহুবার হাফিজ ভাই এর সঙ্গে দেখা হয়েছে, কথা হয়েছে। কখনোই ভ্রমণ ছাড়া আর কোনো বিষয়ে তাকে কথা বলতে শুনিনি।

ঢাকাসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের ভ্রমণ লেখকদের সঙ্গে তিনি নিয়মিত যোগাযোগ রাখেন। ভ্রমণ নিয়ে কথা বলেন। নিজে লেখেন। অপরকে লেখতে উৎসাহিত করেন। তার উৎসাহে অনেক ভ্রামণিক লেখক হয়ে উঠেছেন। ভ্রমণ লেখকদের নিয়ে নিয়মিত ‘প্রাতরাশ আড্ডা’ আয়োজনেরও প্রধান উদ্যোক্তা তিনি। ভ্রমণ লেখকদের যেমন সংগঠিত করেছেন, তেমনি লেখা প্রকাশের প্ল্যাটফর্ম গড়ে তুলেছেন ‘ভ্রমণগদ্য’ পত্রিকায়। যে পত্রিকায় বাংলাদেশের পাশাপাশি পশ্চিমবঙ্গ এবং প্রবাসী লেখকদের লেখা নিয়মিত প্রকাশ করে চলেছেন তিনি।

এরই মধ্যে পঞ্চম বছরে এগিয়ে চলেছে ভ্রমণগদ্য। প্রকাশিত হয়েছে ৯টি সংখ্যা। সর্বশেষ সংখ্যাটি প্রকাশ পেয়েছে এ বছরের বইমেলায়। এ সংখ্যায় ভ্রমণগদ্যের পাশাপাশি কবিতাও দেখা গেছে।

যেহেতু যোগাযোগ ও যাতায়াত সহজ হওয়ার জন্য দিন দিন ভ্রমণপিপাসু মানুষের সংখ্যা বাড়ছে, সেহেতু ভ্রমণ লেখকের সংখ্যাও বাড়ছে। ঘুরে এসে অনেকেই কিছু না কিছু লিখতে চান। তাই মাহমুদ হাফিজের ভ্রমণগদ্য প্রতিষ্ঠিত ভ্রমণ লেখকদের পাশাপাশি নতুনদের জন্যও নিঃসন্দেহে আশা জাগানিয়া প্ল্যাটফর্ম। এমন উদ্যোগের সমালোচনা চলে না। তবু দুএকটি বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা আবশ্যক বৈকি।

ফেসবুকীয় যুগের লেখকদের সাহস পুরনো ও প্রতিষ্ঠিত লেখকদের চেয়ে অনেক বেশি। ভ্রমণগদ্যের কোনো কোনো লেখাতেও আমরা এমন সাহসী হঠকারিতার ছাপ পাচ্ছি। কেউ কেউ যা ইচ্ছা তাই লিখে দিচ্ছেন। ভ্রমণস্থলের চেয়ে ঢের বেশি আমিময় হয়ে উঠছেন। কোনো কোনো ক্ষেত্রে ভ্রমণের গল্প পড়ছি, নাকি লেখকের ভাবনা, ইচ্ছা, অনিচ্ছা, পছন্দের সঙ্গে পরিচিত হচ্ছি তা বুঝে ওঠা মুশকিল হয়ে যাচ্ছে। ছবিতে বিষয়বস্তু, স্থান বা স্থাপনার চেয়ে নিজেই অধিক প্রকট হচ্ছেন লেখক। লেখার টেবিলে সময় কম দেওয়ার কারণে কাউকে কোট করার ক্ষেত্রে বই এর নাম, এমনকি লেখকের নামেও ভুল রয়ে যাচ্ছে। এমন উদাহরণ যতো এড়ানো যায় মতোই মঙ্গল।

মনে রাখতে হবে, ভ্রমণ লেখা হলো সরেজমিন প্রতিবেদনের মতো, যা অকাট্য দলিল হয়ে ওঠার ক্ষমতা রাখে। প্রকাশনার এই সঙ্কটকালে লেখালেখি চর্চার যে প্লাটফর্ম ভ্রমণগদ্য তৈরি করে দিয়েছে, সেটা যেনো নষ্ট না হয়। আমরা আশা করবো, মাহমুদ হাফিজ সম্পাদিত ভ্রমণগদ্য ভ্রামণিকদের সৃজনশীল চর্চার প্রধান গন্তব্য হয়ে উঠবে।

জাকারিয়া মন্ডল: প্রধান বার্তা সম্পাদক, দৈনিক আমাদের বার্তা

;