২০১৯ সালে প্রকাশিত সেরা নন-ফিকশন বইগুলো



আহমেদ দীন রুমি, কন্ট্রিবিউটিং করেসপন্ডেন্ট
বছর জুড়ে ছিল নন-ফিকশনের কদর

বছর জুড়ে ছিল নন-ফিকশনের কদর

  • Font increase
  • Font Decrease

চলে যাচ্ছে ২০১৯ খ্রিস্টাব্দ। সেই সাথে চলে যাচ্ছে একবিংশ শতকের দ্বিতীয় দশক। বছরশেষে প্রাপ্তি ও অপ্রাপ্তির হিসাবে নিয়ে বসছে সবাই। প্রযুক্তি, চিকিৎসা বিজ্ঞান, রাজনীতি কিংবা অর্থনীতি—নতুন অনেক কিছুরই সংযোজন ঘটেছে ইতিহাসকে বদলে দেবার জন্য। ফাঁকা নেই সাহিত্যের আসনও। ২০১৯ নন-ফিকশনের জন্য ছিল বেশ জমজমাট। ২০১৯ সালে প্রকাশিত সেরা দশটি নন-ফিকশনের সাথে পরিচয় করিয়ে দেবার জন্যই আজকের আয়োজন।

This Land Is Our Land: An Immigrant’s Manifesto - Suketu Mehta
২০১৯ সাল জুড়ে বিশেষভাবে আলোচিত ছিল অভিবাসন সমস্যা। ভারত থেকে যুক্তরাষ্ট্রে গিয়ে অভিবাসী হিসাবে বেড়ে ওঠা সুকেতু মেহতা বইটিতে তুলে এনেছেন তার অতীত। স্বচ্ছ আর স্পষ্ট বিন্যাসের জন্য ইতোমধ্যেই কিরিয়ামা পুরস্কার থেকে গার্ডিয়ান ফার্স্ট বুক এওয়ার্ড ঝুলিতে ভরেছেন। পৌঁছে গিয়েছিলেন পুলিৎজারের শেষ পর্বে। এই বইতে অধ্যাপক মেহতা অভিবাসনের শিকড় এবং সমাধান নিয়ে ভাবতে পাঠককে বাধ্য করেছেন।

অভিবাসন সমস্যা নিয়ে কথা বলেছে বইটি

বছরের পর বছর জুড়ে চলা উপনিবেশবাদকে পর্যবেক্ষণ করে তার দাবি, যখন কেউ এক জায়গা থেকে উচ্ছেদের শিকার হয়; তখন প্রকৃতিগতভাবেই তারা অন্য একটা জায়গায় বসতি স্থাপন করতে পারে। এদিক থেকে অভিবাসনকে তিনি কেবল স্বাগতই জানাননি; প্রমাণ করতে চেয়েছেন সমাজের জন্য শুভ দিক হিসাবে। 

Midnight in Chernobyl: The Untold Story of the World’s Greatest Nuclear Disaster, Adam Higginbotham
পেশাগত দিক থেকে এডাম হিগিনবোথাম একজন সাংবাদিক। ১৯৮৬ সালের এপ্রিলে ইউক্রেনের চেরনোবিল নিউক্লিয়ার পাওয়ার প্লান্ট- দুর্ঘটনা নিয়ে তার দীর্ঘ সময়ের গবেষণা এবং প্রতিবেদন আছে। মানবসৃষ্ট সবচেয়ে বড় ধ্বংসাত্মক গল্পকে এত তথ্যনির্ভর এবং সামগ্রিকতা নিয়ে বিবৃত করার নজির বিরল। উঠে এসেছে তৎকালীন সেই আশির দশকে সোভিয়েত ইউনিয়নের নির্মম অসাম্যসহ পরবর্তীকালে সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের কারণগুলো।

ব্যাখ্যা করেছে চেরনোবিলের সাথে সোভিয়েতের পতনকেও

The Heartbeat of Wounded Knee: Native America from 1890 to Present, David Treuer
নেটিভ আমেরিকানদের ইতিহাস ও সংস্কৃতির অন্যতম দলিল ‘Bury My Heart at Wounded Knee’। কিন্তু মিনেসোটাতে বেড়ে ওঠা ডেভিড ট্রিওয়ার দাবি করেছেন; বইটির ভাষ্য তার নিজের অভিজ্ঞতার সাথে মেলে না। ১৮৯০ সালে Wounded Knee গণহত্যার পর থেকে ইতিহাস বর্ণনা করেছেন ডেভিড। স্থানীয় অধিবাসীদের পিছিয়ে পড়ার যে প্রচলিত বয়ান; তিনি তা খণ্ডন করার প্রচেষ্টা চালিয়েছেন। নানা ঘটনা আর বহু পরিসংখ্যানের অবতারণা করে অবশেষে যুক্তি হিসাবে টেনেছেন বর্তমান সময়ে আমেরিকায় নেটিভ আমেরিকার সগর্ব উপস্থিতিকে। বইটি একটা নতুন দৃষ্টিভঙ্গি গড়ে তুলতে পাঠককে অনুপ্রাণিত করেছে।

Furious Hours: Murder, Fraud, and the Last Trial of Harper Lee, Casey Cep
হারপার লি’র প্রথম উপন্যাস ‘টু কিল এ মকিংবার্ড’ প্রকাশিত হবার পর থেকেই পাঠক সমাজ আগ্রহ নিয়ে পরের বইয়ের অপেক্ষায় ছিল। কিন্তু মোটাদাগে বলতে গেলে আগেরটির সাথে সম্পর্কিত কোনো লেখা আর পাঠকরা পায়নি। এক্ষেত্রে চমকপ্রদ তথ্য নিয়ে এগিয়ে এলেন সাংবাদিক ক্যাসি কেপ। ১৯৭০-এর দশকে ঘটে যাওয়া সত্যিকার এক অপরাধ ঘটনাকে তুলে এনেছেন ক্যাসি; যেটি নিয়ে লেখক হারপার লি একসময় আগ্রহী ছিলেন ভালোভাবেই।

হারপার লি-র উপন্যাসের পাঠকেরা বইটি নিতে পারে নিশ্চিন্তে

লি কি তবে সত্যিকার গল্পটাই বলতে চেয়েছেন? সমস্ত সত্য ঘটনা এবং তাতে লি-র আগ্রহকে পুনরুজ্জীবিত করে ক্যাসি যেন আমাদের সময়ের এক সাংস্কৃতিক দলিলকে আরেক দফায় সামনে আনলেন।

The Lost Art of Scripture, Karen Armstrong
ক্যারেন আর্মস্ট্রং ইতোমধ্যে তুলনামূলক ধর্মতত্ত্বে তার মুন্সিয়ানা দেখিয়েছেন। তার ‘এ হিস্ট্রি অব গড’ বিশ্বব্যাপী আলোড়ন তোলার পর থেকেই আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। একের পর এক লিখে গেছেন বুদ্ধ, মুহম্মদ (সা.), বাইবেল, মিথ এবং ধর্মের অনুসন্ধান নিয়ে। এই সময়ে ধর্মকে আশ্রয় করে সৃষ্ট অস্থিতিশীলতা এবং বিশৃঙ্খলার দিকে আঙুল তুলেছেন ক্যারেন।

ক্যারেন আর্মস্ট্রং ইতোমধ্যে প্রতিষ্ঠিত ও নির্ভরযোগ্য 

তার দ্য লস্ট আর্ট অব স্ক্রিপচার বইতে বিশ্বের প্রধান প্রধান ধর্মের ওপর নতুন করে আলো ফেলেছেন; যা ধর্মগুলোর মধ্যে বিশ্বাসের সাঁকো তৈরিতে পাঠককে সহযোগিতা করবে। আবিষ্কার করবে ধর্মীয় গ্রন্থের সৃষ্টিশীল আধ্যাত্মিক দিক।

How to Be an Antiracist, Ibrahim X. Kendi
২০১৬ সালে আমেরিকার জাতীয় পুরস্কার লাভ করেন ইব্রাহিম কেন্দি। তার বই ‘স্ট্যাম্পড্ ফ্রম দ্য বিগিনিং: দ্য ডেফিনিটিভ হিস্ট্রি অব রেসিস্ট আইডিয়াজ ইন আমেরিকা’ ব্যাপকভাবে আলোড়ন তৈরি করে। জ্যামাইকাতে জন্মগ্রহণ করে নিউইউর্কে থিতু হওয়া ইব্রাহিম পড়াশোনা করেছেন সাংবাদিকতা নিয়ে। পরিপক্ব ঐতিহাসিক হিসাবে খ্যাতি অর্জন করেছেন অনেক আগেই।

সমকালীন পাশ্চাত্য বর্ণবাদের প্রতিক্রিয়া বইটি 

খুব সম্ভবত সাম্প্রতিক সময়ের সবচেয়ে আলোচিত বিষয়ের ওপরই ইব্রাহিম তার পরবর্তী তীরটি ছুড়লেন। পশ্চিমা সংস্কৃতিতে বর্ণবাদের যে ব্যাধি বারবার মাথা চাড়া দিয়ে উঠছে; তা থেকে বের হয়ে আসার মসলা পাবেন পাঠক।

Underland: A Deep Time Journey, Robert Macfarlane
প্রকৃতিকে জড়িয়ে লেখায় রবার্ট ম্যাকফারলেনের একটা বিশেষত্ব আছে। তার প্রমাণ ২০১২ সালে প্রকাশিত ‘দ্য ওল্ড ওয়েজ’ এবং ২০১৬ সালে প্রকাশিত ‘ল্যান্ডমার্কস’। তার লেখায় পাঠক ভ্রমণ করবে ভূতাত্ত্বিক সময়ের পিঠে চড়ে পৃথিবীর শুরু অব্দি। ভূতলের নিচের রহস্যময় স্থানগুলোকে সামনে তুলে এনেছেন তিনি তার এই বইতে।

আন্ডারল্যান্ড দেবে এক বিস্ময়কর ভ্রমণের স্বাদ 

কখনো বিজ্ঞান, কখনো দর্শন আবার কখনো মিথোলজিকে সাথে নিয়ে এ এক অন্যরকম ভ্রমণ। ক্যামব্রিজ এবং অক্সফোর্ড উভয় থেকে পড়া ব্রিটিশ লেখক রবার্ট ইতোমধ্যে ই.এম. ফরস্টার এওয়ার্ড, সমারসেট মম এওয়ার্ড, গার্ডিয়ান ফার্স্ট বুক এওয়ার্ডের মতো পুরস্কারগুলো পুরেছেন নিজের প্রাপ্তির ঝুলিতে।

The Yellow House: A Memoir, Sarah M. Broom
১৯৬০-এর দশকে সারাহ ব্রুমের মা ভবিষ্যতের স্বপ্নে বিভোর হয়ে নিউ অর্লিন্সে একটা বাসা কেনেন। ছেলেমেয়েদের সঠিকভাবে পড়াশোনা এবং জীবনমান উন্নতির আশায়। সেখানেই সারাহ এবং তার ১১ ভাইবোনদের স্মৃতিময় শৈশব কেটেছে। বাবার মৃত্যুর পর মায়ের অসহায়ত্ব এবং সেই সাথে শৈশবের নানা ঘটনাবলি উঠে আসে ইতিহাসের মতো। তারপর আবার প্রলঙ্করী ঘূর্ণিঝড় ক্যাটরিনার কবলে পড়ে ভেসে যায়। স্মৃতিকথার আদলে লেখা প্রথম বইটি জিতে নেয় জাতীয় পুরস্কার। সারাহ তার নিজের পরিবারকে কেন্দ্রে রেখে আলোচনা চালিয়ে গেলেও বেখবর থাকেননি সমসাময়িক ঘটনা নিয়ে। ব্যক্তিগত প্রচেষ্টা, বর্ণ ও শ্রেণির জটিল পরিবর্তন, কাছের মানুষগুলোর বিশ্বাস এবং আমেরিকান শহর সম্পর্কে ভুল ধারণাগুলো বইটিকে অসামান্য করে তুলেছে।

Know My Name: A Memoir, Chanel Miller
স্ট্যানফোর্ড ক্যাম্পাসে ২০১৫ সালের জানুয়ারিতে যৌন নির্যাতনের শিকার হন এক নারী। রিপোর্ট, মামলা-মোকাদ্দমা, লেখালেখি প্রভৃতিতে বিশ্বব্যাপী তার সমর্থক তৈরি হয়। তখন তাকে পরিচয় করিয়ে দেওয়া হতো এমিলি ডো নামে। ২০১৯ সালের আদালতের নথিপত্রের এই নামে তিনি পরিচিত হতেন। হঠাৎ বইটি প্রকাশের মধ্য দিয়ে তার সত্যিকার পরিচয় চ্যানেল মিলার উন্মোচিত হয়।

নারীকে কিভাবে রুখে দাঁড়াতে হয় তার দৃষ্টান্ত ‘নো মাই নেম’ 

গোটা বইতে মিলার বর্ণনা করেছেন ক্যাম্পাসে যৌন নির্যাতনের পর থেকে আদালত অব্দি সামগ্রিক বিষয়াদি। বইটির জন্য দারুণভাবে প্রশংসিত হন তিনি। পার্লামেন্ট থেকে খোদ ক্যাম্পাস তাকে গ্রহণ করে নারী নির্যাতন থেকে বের হয়ে আসার অন্যতম সফল মডেল হিসাবে।

Say Nothing: A True Story of Murder and Memory in Northern Ireland, Patrick Radden Keefe
৪৬০ পৃষ্ঠাজুড়ে বিস্তৃত অপরাধের দিনলিপি এবং ইতিহাস। প্যাট্রিক ২০১৩ সাল থেকে গবেষণা আর তদন্ত শুরু করেন। মাঝপথে বারবার অবাক হয়েছেন নিজেই। উত্তর আয়ারল্যান্ডের এক দশ সন্তানের জননীকে হত্যা করা হয় ১৯৭২ সালের রাতে। তার নিখোঁজ হবার ঘটনা ধীরে পরিণত হয় ভয়ানক পরিস্থিতিতে। এক দশকব্যাপী চলে দলীয় সহিংসতা এবং রাজনৈতিক সংঘাত।

শুধু একটা খুন না; একটা সহিংসতার পোস্টমর্টেম ‘সে নাথিং’

প্যাট্রিক তার দীর্ঘ সময়ের গবেষণায় কেবল একটা খুনের রহস্যই উন্মোচন করেননি; তুলে এনেছেন ওই অঞ্চলের সহিংসতার আখ্যান। নিউইয়র্ক টাইমস্ এ সম্পর্কে বলেছে; “প্যাট্রিকের বলার ধরন অনেকটা স্থাপত্যের মতো। জটিল আর প্রবাহমান সরঞ্জামাদি ভারসম্যের অনুপাতে সাজিয়ে তিনি গঠন করেছেন বইটি।” 

পলাশি ট্রাজেডি ও সিরাজের মৃত্যু



হাসিবুর রহমান
পলাশি ট্রাজেডি ও সিরাজের মৃত্যু

পলাশি ট্রাজেডি ও সিরাজের মৃত্যু

  • Font increase
  • Font Decrease

 

কোন জাতির উত্থান-পতন, আবেগ, ভবিষ্যৎ নির্মাণে মিশে থাকে ইতিহাসের  সূক্ষ্ম সূক্ষ্ম উপাদান । কেউ ইচ্ছে করলেই তাকে যেমন বদলে দিতে পারে না, ঠিক তেমনি আদর্শগত দিক থেকে কোন জাতিকে বিপথে চালিতে করতে পারে ভুল ইতিহাস। ভারত উপমহাদেশের ইতিহাসে অষ্টাদশ শতকের বাংলা নানা কারণেই তাৎপর্যপূর্ণ। বিশেষ করে, বাংলার আর্থিক সমৃদ্ধির সুনাম সমগ্র বিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছিল সেই সময়। শান্তি সমৃদ্ধির চূড়ান্ত এক পর্যায়ে ১৭৫৭ পলাশির অন্ধকার নেমে আসে এবং ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে নবাব সিরাজউদ্দৌলার পতন ঘটনো হয়।

দ্বিসার্ধশত বছরের পলাশি যুদ্ধের বহুমাত্রিক আলোচনা হয়েছে ঠিকই কিন্তু নবাব সিরাজউদ্দৌলার রাজনৈতিক দায়বদ্ধতা ও ব্যক্তিগত চরিত্র নিয়ে জনসমাজে বিভ্রান্তিকর, কাল্পনিক গল্পও ছড়ানো হয়েছে । দেশী-বিদেশী ঐতিহাসিকরা তাঁকে লম্পট, দুশ্চরিত্র, কটুভাষী, হৃদয়হীন রূঢ়  চতুষ্পদ পশুর চেয়েও নিকৃষ্ট স্বভাবজাত বলে মিথ্যা ও কলঙ্কের অপবাদে মুড়ে দিয়েছেন। সমকালীন যুগের ফারসি ভাষার মুসলমান,  ইংরেজ লেখক কেউই তাঁর প্রতি সুবিচার করে কলম ধরেননি।

তবে, অক্ষয় কুমার মৈত্রেয়, নিখিল নাথ রায় আধুনিক কালে সুশীল চৌধুরীর মতো ব্যতিক্রমী ঐতিহাসিকরা  সিরাজউদ্দৌলার মত দেশপ্রেমিক নবাবকে নিরপেক্ষ দৃষ্টিভঙ্গিতে যেভাবে মূল্যায়ন করে বিপথগামী ইতিহাস চর্চার ধারাকে থমকে দিয়েছেন- এটাও ইতিহাসবেত্তাদের সততা, স্বচ্ছতা ও সামাজিক দায়বদ্ধতার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্বরূপ। 

বর্তমানে অধিকাংশ ঐতিহাসিক পলাশির যুদ্ধের ফলাফল নিয়ে বিস্তর লেখালেখিতে আগ্রহী। কিন্তু তাঁরা দেখেন না, দেখতে চান না যে পলাশি হলো একটি  পরিণতি । ষড়যন্ত্র আর সামরিক আগ্রাসনের একটি সুদূরপ্রসারী ফলাফল। তাঁরা পলাশি পরবর্তী সময়ে ইংরেজ কর্তৃক ঔপনিবেশিক সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠার বৈধতা দিতে সিরাজের বিরুদ্ধে সীমাহীন মিথ্যা যুক্তির জাল বুনেছিল, আসলে এছাড়া ভারতে ব্রিটিশ সাম্রাজ্যকে স্বীকৃতি দেওয়ার অন্য কোন বৈধ উপায় তাঁদের হাতে অবশিষ্ট ছিল না।

মাত্র চৌদ্দ মাসের শাসনকালে অবাধ্য ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির ঔদ্ধত্যকে  দমন করতে সিরাজের দৃঢ়তা, সাহসিকতা, কঠোরতা দেখিয়েছিলেন তা নিঃসন্দেহে প্রশংসাযোগ্য। বাংলার মাটিতে বিনা অনুমতিতে ইংরেজদের দুর্গ নির্মাণ, কিংবা কর্মচারীদের  অবাধ "ব্যক্তিগত বাণিজ্য" বন্ধ করা তাঁর কাছে চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছিল। একজন স্বাধীন নবাবের চোখে সার্বভৌমিকতার প্রশ্ন এখানে জড়িয়ে ছিল। কিন্তু সিরাজের দুর্ভাগ্য তাঁর দরবারের পদস্থ বিশ্বাসী অমাত্য গোষ্ঠী, অনেকেই ব্যক্তিগত রাজনৈতিক ক্ষমতা লাভের আশায় কোম্পানির ষড়যন্ত্রের কাছে আত্মসমর্পণ করেছিল। জগৎ শেঠদের মতো দেশীয় বণিকরাও এই ষড়যন্ত্রে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন।

ঘরে বাইরে শত্রু পরিবেশিত সিরাজ দৃঢ়তার সঙ্গে এই অশুভ শক্তির মোকাবেলায় সফল হননি বটে , কিন্তু তাঁর স্বদেশভূমি রক্ষার লড়াইকে হীন চোখে দেখা অনৈতিহাসিক। পলাশি নামক বিয়োগান্ত ঘটনার পর  তাঁকে  চরম অপমান আর অমর্যতার সম্মুখীন হতে হয়। যে নিষ্ঠুরতা তাঁর সঙ্গে পলাশির পর দেখানো হয়েছিল ইতিহাসে তা বিরল। প্রখ্যাত ঐতিহাসিক সিরাজুল ইসলাম লিখেছেন, প্রকৃতপক্ষে সমকালীন শাসকশ্রেণীর মানদণ্ডে সিরাজউদ্দৌলার চারিত্রিক দৃঢ়তা, অত্যন্ত সাহসিকতা ও অসাধারণ রাষ্ট্রীয় দায়িত্ববোধ বিস্ময়কর বটে। কিন্তু দুর্ভাগ্যের বিষয় সাম্প্রতিক কালেও ইংরেজদের ভারতবর্ষ দখলের বৈধতা দান করতে গিয়ে একশ্রেণীর ইতিহাসবিদ সিরাজকে নিয়ে নতুন নতুন কাহিনী, উপাখ্যান ম্যানুফ্যাকচার করে ইতিহাস হিসাবে প্রচার করে চলেছেন। তাঁরা বলেন-- সিরাজের মৃত্যু কোন শহীদের মৃত্যু নয় । কারণ তিনি মধ্যযুগীয় রাষ্ট্রব্যবস্থাকে রক্ষা করতে লড়াই করেছিলেন মাত্র, যেখানে জনসমাজের সঙ্গে তাঁর কোন সম্বন্ধ ছিল না। অথবা একথা বলা হয় যে বাংলার নবাব হিসেবে কেন্দ্রীয় মুঘল শাসকদের দ্বারা কোন লিখিত বৈধ অনুমোদন তাঁর ছিল না ইত্যাদি।

সিরাজের মৃত্যু কোন শহিদের মৃত্যু কিনা সে বিষয়ে বিতর্ক থাকা অকল্পনীয়। তাঁর দেশপ্রেম নিয়ে প্রশ্ন তোলা ইতিহাস-বিরুদ্ধ। এছাড়া শাসনের বৈধতার দিক থেকে বাংলার নবাবরা নিয়মিত দিল্লি সম্রাটদের রাজস্ব প্রদান করতেন, সিরাজ ও তার ব্যতিক্রম ছিলেন না। দেশের অভিন্ন মুদ্রা ব্যবস্থা বাংলাতেও চালু ছিল। কাজেই  অভিযোগকারীরা কি ধরনের 'দেশপ্রেম' ও 'জাতীয়তাবোধ' সিরাজের কাছে প্রত্যাশা করছেন তার কোন ইতিহাস সম্মত ব্যাখ্যা হয় না। দেশকে রক্ষা করার দায়িত্ব তিনি অস্বীকার করেননি এখানেই তাঁর রাজনৈতিক গুরুত্ব ও ঐতিহাসিক অবদান।

সিরাজউদ্দৌলার নিরন্তর লড়াই এর সঙ্গে যুক্ত ছিল আপামর বাংলার মানুষের জীবন ভবিষ্যৎ। পলাশিতে যদি নবাবকে না হারতে হত তাহলে বাংলার ইতিহাস অন্যভাবে লেখা হত নিশ্চয়। দীর্ঘ দু'শো বছরের ঔপনিবেশিক শাসন, শোষণের জর্জরিত দেশবাসীর মনে হীনমন্যতাপদের জন্ম নিত না। স্বাধীনতার শত্রুদের সেদিন যথার্থভাবে চিহ্নিত করা সম্ভব হয়নি। দেশপ্রেমিক নবাবের মৃত্যুকে কেবল ক্ষমতার হাত বদল বলেই ভেবেছিল একশ্রেণীর মানুষ। ক্ষমতাসীন নবাবের লাশকে সেদিন জনগণের ঘৃণা ও অপমানের বস্তু করে তুলেছিল। নবাবের অনুগ্রহে যাদের একসময় জীবন জীবিকা নির্ভর করত তারাই দেশপ্রেমিক সিরাজকে নির্মমভাবে হত্যা করল, মৃতদেহটি পশুর মত ডাস্টবিনে ছুঁড়ে দিয়েছিল। সমকালীন যুগের এই ঘৃণ্য প্রতিশোধ যেকোনো জাতির কাছেই বড় লজ্জার।

 

অথচ যে নবাব চরম বিপদের মুহূর্তে দেশের সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করেননি, কারোর প্রতি  শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করেননি, তাঁর সেই মহানুভবতা ও উদারতাকে কেউ মূল্যায়ন করতে চায় না। ম্যালেশন যথার্থই মন্তব্য করে করেছেন  যে, পলাশির আগে-পরে একমাত্র সিরাজের বিশ্বাসঘাতকতা ও ষড়যন্ত্রের সঙ্গে কোন সম্পর্ক ছিল না।

একথা সত্যি যে, বাংলার নবাবদের মধ্যে সিরাজই বোধহয় দেশকে একটু বেশি ভালোবেসে ফেলেছিলেন। তিনি মুর্শিদকুলি খান, সুজাউদ্দিন, সরফরাজ বা আলিবর্দী খানের মতো গা ভাসিয়ে চলতে পারতেন তাহলে তাঁকে অন্তত অকালে প্রাণ দিতে হতো না। হতভাগ্য রাজ্যহারা নবাব জীবনের অন্তিম সময়ের প্রাণ ভিক্ষার জন্য প্রত্যেকের পদতলে লুটিয়ে পড়েছিলেন কিন্তু সেদিন তাঁর করুণ আর্তি শুনতে পাইনি কেউ। ফলে বাংলার ইতিহাসে চিরকাল কালো অধ্যায় হিসেবে ১৭৫৭ সালের ৩রা জুলাই চিহ্নিত হয়ে থাকবে। তাঁকে জীবন ভিক্ষার পরিবর্তে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছিল। নিষ্ঠুর, ঘৃণিত সেই হত্যাযজ্ঞ আজও মানুষের হৃদয়ে কম্পিত হয়। দেশ রক্ষার লড়াইয়ে পরাজিত হয়েও মানুষের মনে তিনি চিরদিন স্বাধীনতার স্পৃহায় অমর হয়েই থাকবেন, এটাই অকালপ্রয়াত নবাবের জন্য  শ্রেষ্ঠ স্বীকৃতি।

(প্রাবন্ধিক আঞ্চলিক ইতিহাস গবেষক।)

 সহায়ক তথ্যসূত্র :

১) যদুনাথ সরকার ,  বেঙ্গল নবাবস, এশিয়াটিক সোসাইটি, কলকাতা ,১৯৫২

 ২) ডঃ সুশীল চৌধুরী, পলাশির অজানা কাহিনী, আনন্দ পাবলিশার্স, কলকাতা।

৩) ড: মোহম্মদ মোহর আলি,  হিস্টরি অব দ্য মুসলিমস অফ বেঙ্গল, ২খন্ড ,রিয়াধ ১৯৮৮।

৪) অক্ষয় কুমার মৈত্রেয়, সিরাজদ্দৌলা, কল্লোল, কলকাতা।

৫) ড : সিরাজুল ইসলাম , বাংলাদেশের ইতিহাস , খন্ড ১ম ( ১৭৫৭-১৯৭১) সম্পাদনা , এশিয়াটিক সোসাইটি অব বাংলাদেশ ২০১৭ ।

৬) আ:কা: মো: যাকারিয়া, সিরাজউদ্দৌলা , প্রথমা , ঢাকা ।

;

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী সম্মাননা পেলেন কবি ফখরুল হাসান



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী সম্মাননা পেলেন কবি ফখরুল হাসান

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী সম্মাননা পেলেন কবি ফখরুল হাসান

  • Font increase
  • Font Decrease

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী সম্মাননা পেলেন কবি ও শিশুসাহিত্যিক ফখরুল হাসান। ২৩ জুন বিকেলে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির সংগীত ও নৃত্যকলা মিলনায়তনে তার হাতে সম্মাননা তুলে দেওয়া হয়।

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে ৬ লেখককে সম্মাননা, ‘শেখ হাসিনার জয় বিশ্বের বিস্ময়’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন, আবৃত্তি, ছড়া পাঠ ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এ সময় সৈয়দ মাসুম, আর মজিব, এনাম আনন্দ, ফাহমিদা ইয়াসমিন, লুৎফর রহমান চৌধুরীকেও সম্মাননা দেওয়া হয়।

বঙ্গবন্ধু জন্মশতবর্ষ আন্তর্জাতিক পর্ষদ, বঙ্গবন্ধু লেখক পরিষদের আয়োজনে বীর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মো. শাহজাহান মৃধা বেনুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠান উদ্বোধন করেন অধ্যাপক ড. আবদুল মান্নান চৌধুরী ও জাতিসত্তার কবি মুহম্মদ নূরুল হুদা।

প্রধান অতিথি ছিলেন নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী। বিশেষ অতিথি ছিলেন কবি অসীম সাহা, মারুফুল ইসলাম, তারিক সুজাত ও অ্যাডভোকেট আফজাল হোসেন।

কবিতা আবৃত্তি করেন জালাল উদ্দিন নলুয়া, ড. তপন বাগচী, শফিকুর রাহী, রিফাত নিগার শাপলা, আনতানুর হক, হানিফ খান, ইউসুফ রেজা, রোকশানা সাথী, জমশেদ ওয়াজেদ, মাসুদ আলম বাবুল, মাদবর রফিক, লুৎফর চৌধুরী, হাসনাইন সাজ্জাদী, গিয়াসউদ্দিন চাষা, হেনা খান, কৌমুদী নার্গিস, বোরহান মাসুদ, সৈয়দ একতেদার আলী, আলী নিয়ামত, মিহির কান্তি ভৌমিক, লুৎফা জালাল, তানিয়া মাহমুদ, শ্রাবণ রেজা, ইমরান পরশ, সৈয়দ তপু, মেরীনা সাঈদ, শাফিন প্রমুখ

;

সংশপ্তক শেখ হাসিনা



আবদুল হামিদ মাহবুব
আবদুল হামিদ মাহবুব

আবদুল হামিদ মাহবুব

  • Font increase
  • Font Decrease

 

সংশপ্তক শেখ হাসিনা

কাণ্ড অনেক করে

পদ্মা বুকে ‘পদ্মা সেতু’

ঠিক দিয়েছেন গড়ে।

 

কাণ্ড ওসব নয় সাধারণ,

ভুলতে কি আর পারি?

জয় বাংলা জোরসে হেঁকে

ঠিক তো দিলেন পাড়ি।

 

অপেক্ষাতে সবাই আছি

মনটা উচাটন

ওই দিনটা জানান দিয়ে

আসলো শুভক্ষণ!

 

বাংলাদেশের এমন জয়ে

বিশ্ব জানুক, কি সুখ?

সব বাঙালি বুকের পাতায়

সুখের গাথা লিখুক।

;

স্বপ্নের পদ্মা সেতু



রিঝুম ইতি
স্বপ্নের পদ্মা সেতু

স্বপ্নের পদ্মা সেতু

  • Font increase
  • Font Decrease

আমি জন্মেছি বাংলায়-

গর্বিত আমি,
শেখ হাসিনার মহিমায়।
পেয়েছি আমি,
স্বপ্নের পদ্মা সেতু।
একদিন যেটা,
স্বপ্নই ছিলো শুধু।
আজ, পদ্মাসেতুর প্রয়োজন -
বুঝবে সেই,
ভুক্তভুগী যেজন।
মাঝরাতে-
বেড়েছিলো মায়ের অসুখ।
ফেরিঘাটে-
গুণেছি শুধু প্রহর।
অবশেষে -
পারিনি মাকে বাঁচাতে,
পেরেছো কি দায় এড়াতে?
অভাবের সংসার-
একটা চাকরি,খুব দরকার।
একদিন-
ডাক পড়লো আমার,
ইন্টারভিউ দেবার।
পড়লাম এসে-
ফেরিঘাটের জ্যামে,
স্বপ্ন নষ্ট-
কিছু সময়ের দামে।
বাংলাদেশে-
হয়নি কোন চাকরি,
ভেবেছি তাই-
বিদেশ দেবো পাড়ি।
ভিটেমাটি সব বেঁচে,
সব টাকা যোগাড় করে।
রওনা দিলাম ভোরে,
চারপাশের-
কুয়াশা ঘিরে ধরে।
ফেরি চলাচল বন্ধ,
হারালো,জীবনের ছন্দ।
সারা বছর-
হাড়ভাংগা পরিশ্রমে,
জন্মাই ফসল-বাংলার মাটির বুকে।
পাইনা ভালো দাম,
এই কি তবে-
আমার ঘামের দাম।
শহরে আমি-
সবজি বেঁঁচবো দামে,
কিন্তু-
ঘাটে সবজি যাবে পঁচে।
শুধু-
পাইনি সুবিধা আমি,
পেয়েছে আরো-
তিন কোটি বাঙালি।
হাজারো-
ব্যর্থতার গল্প,
এভাবেই-
রচনা হতো।
হয়েছে স্বপ্ন পূরণ,
পদ্ম সেতুর দরুণ।

লেখক-রিঝুম ইতি, অনার্স- ১ম বর্ষ, প্রাণীবিদ্যা, কুষ্টিয়া সরকারি কলেজ

;