মনুষ্যত্বের দাফন-কাফন ও অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার নৃতত্ত্ব



সরওয়ার মোরশেদ
অলঙ্করণ: আনিসুজ্জামান সোহেল

অলঙ্করণ: আনিসুজ্জামান সোহেল

  • Font increase
  • Font Decrease

আচার্য প্রফুল্লচন্দ্র ভারতে রেল যোগাযোগ প্রবর্তনের প্রথম দিকে সুন্দর একটা প্রবন্ধ লিখেছিলেন। ট্রেনের আকৃতি আর সর্পিল চলন দেখে বিহ্বল স্বদেশিদের তন্ময়তা আর কিংকর্তব্যবিমূঢ়ভাব কাটাতে তিনি লিখেছিলেন ‘বাষ্পীয়রথে কিভাবে আরোহণ করিতে হইবে’ শীর্ষক রচনাটি।

গত দিন কয়েক ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেখতে পাচ্ছি করোনায় মৃতদের লাশ নিয়ে সারাদেশে এক ধরনের বিশ্রী অবস্থা বিরাজ করছে। মুর্দার দাফন কাফন নিয়ে একশ্রেণীর মনুষ্যত্বের দ্বিপদীর বর্বর অবস্থান। এই করোনা উপদ্রুত করুণ উপকূলে আচার্যজী থাকলে হয়তো লিখে ফেলতেন ‘করোনায় লোকান্তরিতগণের কিভাবে সৎকার করিতে হইবে’ শিরোনামীয় প্রবন্ধ। আচার্য দেহ রেখেছেন সেই কবে! রসায়নশাস্ত্রীর অনুপস্থিতিজনিত শোককে শক্তিতে পরিণত করে নাহয় অধমই চেষ্টিত হই কষ্টিত জাতিকে পথ দেখানোর!

২.
কদমরূপী করোনা ‘পদ্মবনে মত্তহস্তী’র মতো তামাম জাহান পদপিষ্ট করছে। এই Microbial Marco Polo এখন আণুবীক্ষণিক চেঙ্গিস খাঁনে পরিণত হয়েছে। আর আমরা বাংলার বীর পুঙ্গবরা রূপ নিয়েছি পলাশীর সিরাজের বাহিনীতে—বিনা জঙ্গে সূচাগ্র মেদিনী না, পুরো বুখারা-সমরকন্দ-ইস্পাহান-সিরাজ ইস্তক লন্ডন-প্যারিসও দিয়ে দিতে রাজি আমরা। তাইতো পারিবারিক বন্ধনদর্পী রঙ্গস্নাত বঙ্গসন্তানগণ লাশ ফেলে পালাচ্ছে, মৃতের অমর্যাদা করছে আর অনেক জায়গায় দাফন কাফনে বাধা দিচ্ছে। এমন ঘোর অমানিশার কালেও চাল নিয়ে চালবাজি করা কুম্ভীলককূলকে প্রতিহত না করে আমরা অলোকদৃষ্ট সাহস দেখিয়ে রুখে দিচ্ছি নিরীহ মুর্দার দাফন কাফন!

কাজেই এখন Grave question হলো, মৃতদের সৎকার কে, কিভাবে করবে? সহজ সমাধান হবে একটা Dying industry দাঁড় করিয়ে ফেলা। একখানা Mortician squad গঠন করা। ‘Ashes to ashes’-এ বিশ্বাসী থেকে শুরু করে Green good bye দিতে ইচ্ছুকসহ সবার জন্য এরা গ্যাঞ্জামবিহীন, Tailor-made চিরবিদায়ের আঞ্জাম দেবে। মৃতের পরিবারকে শুধু সেবাটা কড়ি দিয়ে কিনতে হবে, এই যা। লাশ নিয়ে ভাবনা, আর না, আর না!

৩.
চলুন, আমাদের হঠাৎ ব্যক্তি হতে নৈর্ব্যক্তিক লাশে অবনমিত দেহত্যাগকারীদের শব নিয়ে কী করা যায়, সে বিষয়ে জগৎ সংসার তন্ন তন্ন করে না খুঁজে একটু সাধারণ পর্যটন করে আসি।

হাওয়াই দাফন (Sky burial)


নামেই এই পদ্ধতি স্বব্যাখ্যাত। পৃথিবীর ছাদে অর্থাৎ তিব্বতে আকাশী সৎকার অনুসৃত হয়। লামার অনুসারীরা তাদের শবগুলোকে অনেক উঁচু পাহাড়ের উপর রেখে আসে যাতে ঈগল, বাজ প্রভৃতি পাখি নরমাংস ভক্ষণ করে জটরানন্দ লাভ করে। তাদের বিশ্বাস, শব দিয়ে উদরপূর্তি করে এসব বিহঙ্গ সম্পূর্ণ নিজ দায়িত্বে মৃতের আত্মাকে স্বর্গে পৌঁছে দেবে!

জলজ সমাধি (Burial at sea)

অনেক ধীবর বা সমুদ্রতীরবর্তী জনগোষ্ঠী তাদের মৃতদের সমুদ্রেই সমাধিস্থ করে। এ পদ্ধতি আবার মার্কিনীদের হাতে আধুনিকায়িত হয়েছে। ওসামা বিন লাদেনসহ অনেককে স্যামচাচার পালোয়ান পোলাপানরা মাছের পেটে চালান করে দিয়েছে। তাই এটা খাঁটি পেন্টাগন অনুমোদিত পদ্ধতি!

মহাশূন্যে সমাধিস্থকরণ (Space burial)

এটা সবচে আধুনিক, পরিবেশ-বান্ধব আর কিউট একটা পদ্ধতি। এখানে রকেটের মাধ্যমে মৃতদেহকে কক্ষপথে উৎক্ষেপণ করা হয়। এতে মরহুম একবারে যাকে বলে Body and soul একসাথে নিয়ে পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করে। ‘পাখি উড়ে যায়, রেখে যায় পালক’ জাতীয় দীর্ঘশ্বাসের উর্ধ্বে এই মহাত্মাগণ। শুনলে ভশ্চার্য হবেন, এ পর্যন্ত সার্ধশত মহাজন Space burial লাভে ধন্য হয়েছেন।

জাপানি উচ্চ প্রযুক্তির সমাধিস্থকরণ

এটা জাপানের Dying industry’র নবতম সংযোজন। জাপানের শব ব্যবস্থাপনা শিল্প ইতোমধ্যে উচ্চ প্রাযুক্তিক সুবিধাসম্পন্ন Alternative Graveyard দাঁড় করিয়ে ফেলেছে। এই ডিজিটাল গোরস্থানে ব্যাংকের লকারে যেভাবে সোনাদানা রাখা হয় সেভাবেই LED বুদ্ধমূর্তির ভিতরে মৃতের ছাই রাখা হয়। অনেক বাহারি ডিজাইনের, বাহারি রঙের মূর্তি বাছাই করার সুযোগ আছে গ্রাহকদের। মনে করেন, আপনার প্রিয় মানুষটির জন্য আপনি গোলাপী রঙের LED মূর্তি পছন্দ করলেন। তাহলে আপনি যখনই আপনার আপনজনের ডিজিটাল গোরস্থানে যাবেন, আপনার ক্লায়েন্ট কার্ডটি পাঞ্চ করে ভিতরে ঢুকলে হাজারো মূর্তির ভেতর থেকে আপনার মৃত প্রিয়জনের বুদ্ধ মূর্তিটি গোলাপী রঙের আভা ছড়িয়ে আপনাকে অভিবাদন জানাবে। এই গোরস্থান এতই হাইটেক যে, এখানে তারা আপনার সুবিধার জন্য হাওয়াই বন্দরের অনেক সুবিধা যেমন Conveyor belt ইত্যাদির ব্যবস্থাও রেখেছেন। তাই, Death is a high-tech trip in Japan's futuristic cemeteries!

দক্ষিণ কোরীয় পদ্ধতি

If Japan comes, can South Korea be far behind? মোটেই না। দক্ষিণ কোরিয়ার Burial Company-গুলো জাপানিদের সাথে রীতিমত টেক্কা দিচ্ছে। তাদের Death Bead Company-র এক CEO ঘোষণা দিয়েছেন মাত্র ৯০০ ডলারে আপনাকে তসবির দানার মতো গোল্লায় পরিণত করে কাঁচের আধারে পুরে বাড়িতে প্রিয়জনদের কাছে পাঠিয়ে দেবে। আপনজনদের কাছে ‘আবার আসিবেন’ ফিরে হয়তোবা ইনসান নয়—লাল, নীল হরেক কিসিমের পুঁতির দানার বেশে। আপনার ওয়ারিশগণ কাচবন্দী আপনাকে সকাল, বিকাল দেখবে, অনুভব করবে, অভ্যাগতদের দেখাবে ‘দানাদার’ আপনাকে। আপনি আবার কাচের ঘর থেকে ঢিল ছুঁড়বেন না যেন!

বায়োডিগ্রেডেবল পদ্ধতি

এটা হাড়ে হাড়ে Pro-Green লোকজনের সৎকারের আদর্শ পন্থা। Biodegradable Method-এ পরিবেশ-বান্ধব উপাদান যেমন শক্ত কাগজ, বোর্ড ইত্যাদির তৈরি একটা ভস্মাধারে, যাকে Bios Urn বলা হয়, চাইদের (Big fries) ছাই রাখা হয়। টবের ভিতরে পুষ্টি উপাদান-পুষ্ট মাটির মাঝখানে আগে থেকে গত ব্যক্তির পছন্দের গাছ বা ফুলের বীজ পুঁতে রাখা হয়। পরে সে বীজের উপরে রাখা হয় শরীর-ভস্ম। মৃতের দেহাবশেষ থেকে পুষ্টি নিয়ে অচিরেই জগৎ সংসারে উঁকি মারবে দেহত্যাগীর প্রিয় উদ্ভিদ। মনে করেন, কোনো Big man-এর বেটির মাথায় লাল গেন্ধা ফুল বাইন্ধা দেয়ার মহতেচ্ছা আপনার ছিল, সে আকাঙ্ক্ষা-পাদপে আপনার হয়ে যে কেউ আপনার ভবসাগর পাড়ি দেওয়ার পরও ফুল ফোটাতে পারবে। ইহধাম ত্যাগ করার পরও আপনি মানুষ নয়, হয়তোবা গেন্ধা-গোলাপ হয়ে কোনো কামিনীর কেশপাশ শোভিত করছেন! কী বিপুল, বিশাল সুখ!

ক্রিপোপ্রিজারভেশন

আপনি যদি নেক্টার পান না করেও অমরত্ব লাভের আশা জিইয়ে রাখতে চান, যদি আপনি একজন উচ্চাকাঙ্ক্ষা-জারিত আদমী হয়ে থাকেন, তাহলে দেরি হওয়ার আগেই Alcor Life Extension Foundation-এর সাথে যোগাযোগ করুন। আপনার ট্যাকে পর্যাপ্ত টাকা থাকলে তারা নাই-হওয়া আপনাকে তরল নাইট্রোজেনে ডুবিয়ে রাখবে। ফলে, আপনার দেহে পচন ধরবে না। আপনি হয়ে যাবেন লেনিন-মাওয়ের Comrade in corpse! Cryonics practitioner-রা একিন রাখেন যে, ভবিষ্যতে উচ্চ প্রযুক্তির মাধ্যমে এই মহাত্মাদের পুনর্জীবিত করা যাবে। Doomsday পর্যন্ত ইন্তেজারের খামোখা কী প্রয়োজন!

৪.
এ লেখার শুরুতে কলোনিয়াল ভারতবাসীর লৌহ ঘোটক (Iron horse) অর্থাৎ রেলগাড়ি দেখে হতবিহবল অবস্থার প্রেক্ষিতে আচার্য প্রফুল্লচন্দ্র রায়ের ‘বাষ্পীয় রথে কিভাবে আরোহণ করিতে হইবে’ শীর্ষক লেখাটার উল্লেখ করেছিলাম। আসলে, নুতন যে কোনো কিছুর প্রতি মানুষের ভয়-সান্দ্র সন্দেহ চিরন্তন। যেমন, একই প্রসঙ্গে রেল যোগাযোগ ব্যবস্থা প্রবর্তনের সময় ব্রিটেনের কিছু কিছু জায়গার অধিবাসীদের প্রতিক্রিয়া স্মর্তব্য। প্রথম ট্রেন চলার পর বেশ কিছু জায়গার ইংরেজগণ এ বলে প্রবল আপত্তি উত্থাপন করেন যে, রেলের হুইসেলের বিকট শব্দে তাদের ঘোড়া-গরু-ছাগল ভয় পাচ্ছে। এমনকি Stockton-Darlington Train Service (1825) উদ্ধোধনের দিন মজমা-মচ্ছব দেখতে আসা বেশকিছু লোকজন ট্রেনের কুউউ-ঝিকঝিক ভীমনাদে ভয়ে রীতিমতো মুর্চ্ছিত হয়ে পড়েছিলেন!

করোনার নিষ্করুণ আঘাতে আমাদের অবস্থাও অনেকটা তথৈবচ। কিন্তু ট্রেন যেমন এখন মানুষের যাপিত জীবনের অচ্ছেদ্য অংশ হয়ে দাঁড়িয়েছে, করোনা-চাপিত (Covid-induced) নতুন শব ব্যবস্থাপনাও নিশ্চয়ই এক সময় আমাদের গা এবং গাঁ সওয়া হয়ে যাবে। এই জাগতিক রঙ্গমঞ্চে, শ্রীযুক্ত হেরাক্লিটাস ঠিকই বয়ান করেছেন, পরিবর্তনই একমাত্র স্থায়ী কুশীলব। একই নদীর জলে আপনি কি দুইবার পদসিক্ত করতে পারেন?

হাসান হাফিজের একগুচ্ছ কবিতা



হাসান হাফিজ
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

ম্যানিলা ও নস্টালজিয়া

ও ম্যানিলা
তুমি আছো স্মৃতিপটে,
ওগো প্রিয় ম্যানিলাসুন্দরী
তৃষিতের ওষ্ঠ তুমি ভিজিয়েছো
স্যান মিগ্যুয়েল নামে বীয়ারে মাদকে
‘পিনোটুবুু’ অগ্নিগিরি
খুব কিন্তু দূরে নয়
দ্বীপ দেশ ফিলিপিন্স
ঔপনিবেশক স্মৃতি কী দুঃসহ
একটানা চারশো বছর
দীর্ঘ দীর্ঘকাল পরে
মুক্তিস্বাদ পেয়েছো যে তুমি
সেই কটু অম্লস্বাদ
স্মৃতি হয়ে বুকে বেঁধে
‘মুক্তি’ দ্যায় উপশম
সুতন্বী উচ্ছল হও মনোরমা
দ্বীপকন্যা সুছন্দা ম্যানিলা।

অসহ দংশন

না-বৃষ্টি না-রোদ
এমন ধূসর দিনে
কেন ছুঁতে চেয়েছে সে
তোমার পেলব হাত
শৈল্পিক আঙুল
চুম্বনের অধিকার
ওরা কিন্তু দ্যায় নি যুবাকে
সন্ধ্যার আঁধারবেলা
সেই স্মৃতি অনশ্বর
জ্বলজ্বলে নক্ষত্রস্পর্ধায়
অমলিন চিরক্ষণ জলরঙ ছবি হয়ে
জেগে থাকে ঠোকরায়
না-পাওয়ার অসীম তৃষ্ণায়...

একগুঁয়ে মাঝি

মন পোড়ে?
বৃষ্টি ওড়ে?
মনের তো ডানা নাই,
কীভাবে বৈদেশ যাবে
বন্ধুয়া-হদিস পাবে
প্রশ্ন এইটাই।

বৃষ্টি পড়ছে
আছড়ে পড়ছে
মৃত্তিকার আলিঙ্গনে
এবং সম্ভোগে
সার্থকতা জলের প্রেমের।
দেখেছ প্রেমের মড়া?
কোনোদিন ডুবেছে সে জলে?

মন পোড়ে?
আহা বাহা পুড়ুক জ্বলুক
পোড়াই নিয়তি
বাহক দুর্গতি
ছিল যে কপালে লেখা
কীভাবে খ-াবে?
মনের বৈরাগী মাঝি
ফিরে আসতে নয় রাজি
চড়েছে সে একগুঁয়ে
ভাঙাচোরা ডিঙি নৌকায়।

নিরালায় সন্ধ্যাকালে

যাও পাখি যাও
পরানবন্ধুরে গিয়া
স্মরণ করাও
দুঃখিনীরে একলা রাইখা
কী মজা সে পায়?
এবার নাগালে পেলে
রশি দিয়া বাইন্দা রাখব
সতত পঞ্চল বন্ধে
এইবার দেইখা নিব কীভাবে পলায়!
শরমের খেতা পুড়ি
ওরে পাইলে এই ঘুরি
উইড়া চলি পাতায় পাতায়
যাও পাখি বলো তারে
এবার সে আসতে পারে
দুই বন্ধু বসব গিয়া
পুরানা দীঘির পাড়ে
নিরালা সন্ধ্যায় কালে
প্রাচীন ঘাটলায়
ও বন্দু সারলী হাঁস
খুঁচিয়ে কী মজা পাস?
সবকিছু ছাইড়া ছুইড়া
নিজ গৃহে সোজা চইলা আয়!


গত্যন্তর নাই

বিশ্বাস ভেঙেছো তবু
তোমাকে বিশ্বাস করি
পুনরায় প্রতারিত হতে চাই
ক্ষতি আর কতটুকু হবে?
সর্বনাশ পোড়া ছাই
লানতের অন্ত নাই
তোমাদ্বারা সকলই সম্ভব
যদি অসম্ভব হয়
আমি তবে বেপথু নাচার
পথ খোলা নাই যে বাঁচার
আমার কী গতি হবে তবে?


আশাভঙ্গ

এতোটা পথ
পাড়ি দিলাম একা
ভেবেছিলাম
হয়তো পাবো দেখা।
জানতাম না অদর্শনই
এই কপালের লেখা।
ভেবেছিলাম সরল তুমি
এখন দেখি জটিল বক্ররেখা!


নৈকট্য তো ছিল না কপালে

ক.
খুঁজতে খুঁজতে একদিন
হয়তো পেয়ে যাবো
ভয় কিন্তু জাগরুক
পেলে পর নিশ্চিত হারাবো!

খ.
কাঁটা ও সংশয়
সমস্ত জীবনব্যাপী
ভিলেনের মতো জেগে রয়।

গ.
জারিজুরি সবই হলো ফাঁস।
জানতে না আমার হৃদয়মধ্যে
বাস করে অপরূপ আন্ধা সর্বনাশ?
আমি কিন্তু জানতাম
সে কারণে কাছে ঘেঁষতে
চাইতাম না মোটের উপর
নৈকট্য নিয়তি নয় জানা ছিল
কিন্তু করতে পারি নাই
তোমাকে ত্যাগের মতো ছিন্ন উপবাস।

 

;

পলাশি ট্রাজেডি ও সিরাজের মৃত্যু



হাসিবুর রহমান
পলাশি ট্রাজেডি ও সিরাজের মৃত্যু

পলাশি ট্রাজেডি ও সিরাজের মৃত্যু

  • Font increase
  • Font Decrease

 

কোন জাতির উত্থান-পতন, আবেগ, ভবিষ্যৎ নির্মাণে মিশে থাকে ইতিহাসের  সূক্ষ্ম সূক্ষ্ম উপাদান । কেউ ইচ্ছে করলেই তাকে যেমন বদলে দিতে পারে না, ঠিক তেমনি আদর্শগত দিক থেকে কোন জাতিকে বিপথে চালিতে করতে পারে ভুল ইতিহাস। ভারত উপমহাদেশের ইতিহাসে অষ্টাদশ শতকের বাংলা নানা কারণেই তাৎপর্যপূর্ণ। বিশেষ করে, বাংলার আর্থিক সমৃদ্ধির সুনাম সমগ্র বিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছিল সেই সময়। শান্তি সমৃদ্ধির চূড়ান্ত এক পর্যায়ে ১৭৫৭ পলাশির অন্ধকার নেমে আসে এবং ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে নবাব সিরাজউদ্দৌলার পতন ঘটনো হয়।

দ্বিসার্ধশত বছরের পলাশি যুদ্ধের বহুমাত্রিক আলোচনা হয়েছে ঠিকই কিন্তু নবাব সিরাজউদ্দৌলার রাজনৈতিক দায়বদ্ধতা ও ব্যক্তিগত চরিত্র নিয়ে জনসমাজে বিভ্রান্তিকর, কাল্পনিক গল্পও ছড়ানো হয়েছে । দেশী-বিদেশী ঐতিহাসিকরা তাঁকে লম্পট, দুশ্চরিত্র, কটুভাষী, হৃদয়হীন রূঢ়  চতুষ্পদ পশুর চেয়েও নিকৃষ্ট স্বভাবজাত বলে মিথ্যা ও কলঙ্কের অপবাদে মুড়ে দিয়েছেন। সমকালীন যুগের ফারসি ভাষার মুসলমান,  ইংরেজ লেখক কেউই তাঁর প্রতি সুবিচার করে কলম ধরেননি।

তবে, অক্ষয় কুমার মৈত্রেয়, নিখিল নাথ রায় আধুনিক কালে সুশীল চৌধুরীর মতো ব্যতিক্রমী ঐতিহাসিকরা  সিরাজউদ্দৌলার মত দেশপ্রেমিক নবাবকে নিরপেক্ষ দৃষ্টিভঙ্গিতে যেভাবে মূল্যায়ন করে বিপথগামী ইতিহাস চর্চার ধারাকে থমকে দিয়েছেন- এটাও ইতিহাসবেত্তাদের সততা, স্বচ্ছতা ও সামাজিক দায়বদ্ধতার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্বরূপ। 

বর্তমানে অধিকাংশ ঐতিহাসিক পলাশির যুদ্ধের ফলাফল নিয়ে বিস্তর লেখালেখিতে আগ্রহী। কিন্তু তাঁরা দেখেন না, দেখতে চান না যে পলাশি হলো একটি  পরিণতি । ষড়যন্ত্র আর সামরিক আগ্রাসনের একটি সুদূরপ্রসারী ফলাফল। তাঁরা পলাশি পরবর্তী সময়ে ইংরেজ কর্তৃক ঔপনিবেশিক সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠার বৈধতা দিতে সিরাজের বিরুদ্ধে সীমাহীন মিথ্যা যুক্তির জাল বুনেছিল, আসলে এছাড়া ভারতে ব্রিটিশ সাম্রাজ্যকে স্বীকৃতি দেওয়ার অন্য কোন বৈধ উপায় তাঁদের হাতে অবশিষ্ট ছিল না।

মাত্র চৌদ্দ মাসের শাসনকালে অবাধ্য ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির ঔদ্ধত্যকে  দমন করতে সিরাজের দৃঢ়তা, সাহসিকতা, কঠোরতা দেখিয়েছিলেন তা নিঃসন্দেহে প্রশংসাযোগ্য। বাংলার মাটিতে বিনা অনুমতিতে ইংরেজদের দুর্গ নির্মাণ, কিংবা কর্মচারীদের  অবাধ "ব্যক্তিগত বাণিজ্য" বন্ধ করা তাঁর কাছে চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছিল। একজন স্বাধীন নবাবের চোখে সার্বভৌমিকতার প্রশ্ন এখানে জড়িয়ে ছিল। কিন্তু সিরাজের দুর্ভাগ্য তাঁর দরবারের পদস্থ বিশ্বাসী অমাত্য গোষ্ঠী, অনেকেই ব্যক্তিগত রাজনৈতিক ক্ষমতা লাভের আশায় কোম্পানির ষড়যন্ত্রের কাছে আত্মসমর্পণ করেছিল। জগৎ শেঠদের মতো দেশীয় বণিকরাও এই ষড়যন্ত্রে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন।

ঘরে বাইরে শত্রু পরিবেশিত সিরাজ দৃঢ়তার সঙ্গে এই অশুভ শক্তির মোকাবেলায় সফল হননি বটে , কিন্তু তাঁর স্বদেশভূমি রক্ষার লড়াইকে হীন চোখে দেখা অনৈতিহাসিক। পলাশি নামক বিয়োগান্ত ঘটনার পর  তাঁকে  চরম অপমান আর অমর্যতার সম্মুখীন হতে হয়। যে নিষ্ঠুরতা তাঁর সঙ্গে পলাশির পর দেখানো হয়েছিল ইতিহাসে তা বিরল। প্রখ্যাত ঐতিহাসিক সিরাজুল ইসলাম লিখেছেন, প্রকৃতপক্ষে সমকালীন শাসকশ্রেণীর মানদণ্ডে সিরাজউদ্দৌলার চারিত্রিক দৃঢ়তা, অত্যন্ত সাহসিকতা ও অসাধারণ রাষ্ট্রীয় দায়িত্ববোধ বিস্ময়কর বটে। কিন্তু দুর্ভাগ্যের বিষয় সাম্প্রতিক কালেও ইংরেজদের ভারতবর্ষ দখলের বৈধতা দান করতে গিয়ে একশ্রেণীর ইতিহাসবিদ সিরাজকে নিয়ে নতুন নতুন কাহিনী, উপাখ্যান ম্যানুফ্যাকচার করে ইতিহাস হিসাবে প্রচার করে চলেছেন। তাঁরা বলেন-- সিরাজের মৃত্যু কোন শহীদের মৃত্যু নয় । কারণ তিনি মধ্যযুগীয় রাষ্ট্রব্যবস্থাকে রক্ষা করতে লড়াই করেছিলেন মাত্র, যেখানে জনসমাজের সঙ্গে তাঁর কোন সম্বন্ধ ছিল না। অথবা একথা বলা হয় যে বাংলার নবাব হিসেবে কেন্দ্রীয় মুঘল শাসকদের দ্বারা কোন লিখিত বৈধ অনুমোদন তাঁর ছিল না ইত্যাদি।

সিরাজের মৃত্যু কোন শহিদের মৃত্যু কিনা সে বিষয়ে বিতর্ক থাকা অকল্পনীয়। তাঁর দেশপ্রেম নিয়ে প্রশ্ন তোলা ইতিহাস-বিরুদ্ধ। এছাড়া শাসনের বৈধতার দিক থেকে বাংলার নবাবরা নিয়মিত দিল্লি সম্রাটদের রাজস্ব প্রদান করতেন, সিরাজ ও তার ব্যতিক্রম ছিলেন না। দেশের অভিন্ন মুদ্রা ব্যবস্থা বাংলাতেও চালু ছিল। কাজেই  অভিযোগকারীরা কি ধরনের 'দেশপ্রেম' ও 'জাতীয়তাবোধ' সিরাজের কাছে প্রত্যাশা করছেন তার কোন ইতিহাস সম্মত ব্যাখ্যা হয় না। দেশকে রক্ষা করার দায়িত্ব তিনি অস্বীকার করেননি এখানেই তাঁর রাজনৈতিক গুরুত্ব ও ঐতিহাসিক অবদান।

সিরাজউদ্দৌলার নিরন্তর লড়াই এর সঙ্গে যুক্ত ছিল আপামর বাংলার মানুষের জীবন ভবিষ্যৎ। পলাশিতে যদি নবাবকে না হারতে হত তাহলে বাংলার ইতিহাস অন্যভাবে লেখা হত নিশ্চয়। দীর্ঘ দু'শো বছরের ঔপনিবেশিক শাসন, শোষণের জর্জরিত দেশবাসীর মনে হীনমন্যতাপদের জন্ম নিত না। স্বাধীনতার শত্রুদের সেদিন যথার্থভাবে চিহ্নিত করা সম্ভব হয়নি। দেশপ্রেমিক নবাবের মৃত্যুকে কেবল ক্ষমতার হাত বদল বলেই ভেবেছিল একশ্রেণীর মানুষ। ক্ষমতাসীন নবাবের লাশকে সেদিন জনগণের ঘৃণা ও অপমানের বস্তু করে তুলেছিল। নবাবের অনুগ্রহে যাদের একসময় জীবন জীবিকা নির্ভর করত তারাই দেশপ্রেমিক সিরাজকে নির্মমভাবে হত্যা করল, মৃতদেহটি পশুর মত ডাস্টবিনে ছুঁড়ে দিয়েছিল। সমকালীন যুগের এই ঘৃণ্য প্রতিশোধ যেকোনো জাতির কাছেই বড় লজ্জার।

 

অথচ যে নবাব চরম বিপদের মুহূর্তে দেশের সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করেননি, কারোর প্রতি  শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করেননি, তাঁর সেই মহানুভবতা ও উদারতাকে কেউ মূল্যায়ন করতে চায় না। ম্যালেশন যথার্থই মন্তব্য করে করেছেন  যে, পলাশির আগে-পরে একমাত্র সিরাজের বিশ্বাসঘাতকতা ও ষড়যন্ত্রের সঙ্গে কোন সম্পর্ক ছিল না।

একথা সত্যি যে, বাংলার নবাবদের মধ্যে সিরাজই বোধহয় দেশকে একটু বেশি ভালোবেসে ফেলেছিলেন। তিনি মুর্শিদকুলি খান, সুজাউদ্দিন, সরফরাজ বা আলিবর্দী খানের মতো গা ভাসিয়ে চলতে পারতেন তাহলে তাঁকে অন্তত অকালে প্রাণ দিতে হতো না। হতভাগ্য রাজ্যহারা নবাব জীবনের অন্তিম সময়ের প্রাণ ভিক্ষার জন্য প্রত্যেকের পদতলে লুটিয়ে পড়েছিলেন কিন্তু সেদিন তাঁর করুণ আর্তি শুনতে পাইনি কেউ। ফলে বাংলার ইতিহাসে চিরকাল কালো অধ্যায় হিসেবে ১৭৫৭ সালের ৩রা জুলাই চিহ্নিত হয়ে থাকবে। তাঁকে জীবন ভিক্ষার পরিবর্তে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছিল। নিষ্ঠুর, ঘৃণিত সেই হত্যাযজ্ঞ আজও মানুষের হৃদয়ে কম্পিত হয়। দেশ রক্ষার লড়াইয়ে পরাজিত হয়েও মানুষের মনে তিনি চিরদিন স্বাধীনতার স্পৃহায় অমর হয়েই থাকবেন, এটাই অকালপ্রয়াত নবাবের জন্য  শ্রেষ্ঠ স্বীকৃতি।

(প্রাবন্ধিক আঞ্চলিক ইতিহাস গবেষক।)

 সহায়ক তথ্যসূত্র :

১) যদুনাথ সরকার ,  বেঙ্গল নবাবস, এশিয়াটিক সোসাইটি, কলকাতা ,১৯৫২

 ২) ডঃ সুশীল চৌধুরী, পলাশির অজানা কাহিনী, আনন্দ পাবলিশার্স, কলকাতা।

৩) ড: মোহম্মদ মোহর আলি,  হিস্টরি অব দ্য মুসলিমস অফ বেঙ্গল, ২খন্ড ,রিয়াধ ১৯৮৮।

৪) অক্ষয় কুমার মৈত্রেয়, সিরাজদ্দৌলা, কল্লোল, কলকাতা।

৫) ড : সিরাজুল ইসলাম , বাংলাদেশের ইতিহাস , খন্ড ১ম ( ১৭৫৭-১৯৭১) সম্পাদনা , এশিয়াটিক সোসাইটি অব বাংলাদেশ ২০১৭ ।

৬) আ:কা: মো: যাকারিয়া, সিরাজউদ্দৌলা , প্রথমা , ঢাকা ।

;

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী সম্মাননা পেলেন কবি ফখরুল হাসান



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী সম্মাননা পেলেন কবি ফখরুল হাসান

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী সম্মাননা পেলেন কবি ফখরুল হাসান

  • Font increase
  • Font Decrease

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী সম্মাননা পেলেন কবি ও শিশুসাহিত্যিক ফখরুল হাসান। ২৩ জুন বিকেলে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির সংগীত ও নৃত্যকলা মিলনায়তনে তার হাতে সম্মাননা তুলে দেওয়া হয়।

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে ৬ লেখককে সম্মাননা, ‘শেখ হাসিনার জয় বিশ্বের বিস্ময়’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন, আবৃত্তি, ছড়া পাঠ ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এ সময় সৈয়দ মাসুম, আর মজিব, এনাম আনন্দ, ফাহমিদা ইয়াসমিন, লুৎফর রহমান চৌধুরীকেও সম্মাননা দেওয়া হয়।

বঙ্গবন্ধু জন্মশতবর্ষ আন্তর্জাতিক পর্ষদ, বঙ্গবন্ধু লেখক পরিষদের আয়োজনে বীর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মো. শাহজাহান মৃধা বেনুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠান উদ্বোধন করেন অধ্যাপক ড. আবদুল মান্নান চৌধুরী ও জাতিসত্তার কবি মুহম্মদ নূরুল হুদা।

প্রধান অতিথি ছিলেন নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী। বিশেষ অতিথি ছিলেন কবি অসীম সাহা, মারুফুল ইসলাম, তারিক সুজাত ও অ্যাডভোকেট আফজাল হোসেন।

কবিতা আবৃত্তি করেন জালাল উদ্দিন নলুয়া, ড. তপন বাগচী, শফিকুর রাহী, রিফাত নিগার শাপলা, আনতানুর হক, হানিফ খান, ইউসুফ রেজা, রোকশানা সাথী, জমশেদ ওয়াজেদ, মাসুদ আলম বাবুল, মাদবর রফিক, লুৎফর চৌধুরী, হাসনাইন সাজ্জাদী, গিয়াসউদ্দিন চাষা, হেনা খান, কৌমুদী নার্গিস, বোরহান মাসুদ, সৈয়দ একতেদার আলী, আলী নিয়ামত, মিহির কান্তি ভৌমিক, লুৎফা জালাল, তানিয়া মাহমুদ, শ্রাবণ রেজা, ইমরান পরশ, সৈয়দ তপু, মেরীনা সাঈদ, শাফিন প্রমুখ

;

সংশপ্তক শেখ হাসিনা



আবদুল হামিদ মাহবুব
আবদুল হামিদ মাহবুব

আবদুল হামিদ মাহবুব

  • Font increase
  • Font Decrease

 

সংশপ্তক শেখ হাসিনা

কাণ্ড অনেক করে

পদ্মা বুকে ‘পদ্মা সেতু’

ঠিক দিয়েছেন গড়ে।

 

কাণ্ড ওসব নয় সাধারণ,

ভুলতে কি আর পারি?

জয় বাংলা জোরসে হেঁকে

ঠিক তো দিলেন পাড়ি।

 

অপেক্ষাতে সবাই আছি

মনটা উচাটন

ওই দিনটা জানান দিয়ে

আসলো শুভক্ষণ!

 

বাংলাদেশের এমন জয়ে

বিশ্ব জানুক, কি সুখ?

সব বাঙালি বুকের পাতায়

সুখের গাথা লিখুক।

;