বসফোরাসের সোনালি কোমর জড়িয়ে সুফির চক্রনৃত্য



সরওয়ার মোরশেদ
অলঙ্করণ: আনিসুজ্জামান সোহেল

অলঙ্করণ: আনিসুজ্জামান সোহেল

  • Font increase
  • Font Decrease

ভ্রমণ হচ্ছে, লিসা সেন্ট অবিন যুতসই বলেছেন, জীবনের সাথে ছিনালী করা (To flirt with life)। আবার আমাদের অনেকের অত্যন্ত প্রিয় লেখিকা নবনীতা দেবসেন মনে করেন, পর্যটন অনেকটা কৃষ্ণপ্রেম বা মাদকের মতো যার আকর্ষণ উপেক্ষা করা ভক্ত বা আসক্তের পক্ষে অনেকটাই দুঃসাধ্য। পর্যটন বিষয়ে আরেকটা উক্তি মনে পড়ছে—একজন ব্যক্তি যখন বুঝতে পারেন যে, তার জীবন মূল্যহীন, তখন তিনি হয় আত্মহত্যা করেন অথবা দেশভ্রমণ করেন। জীবনের সাথে শেষ ভৌগোলিক ফ্লার্ট করেছিলাম বছরখানেক আগে সিঙ্গাপুর আর ইন্দোনেশিয়া ঘুরে। বছরও ঘোরেনি অথচ এর মধ্যেই গালিভার সিন্ড্রোম মনের ওপর চেপে বসেছে আরব্য রজনীর দৈত্যের মতো—মন-মাঝি আঁকুপাঁকু করছে আবার বৈঠা ধরার। সিদ্ধান্ত নিলাম আত্মহত্যা করব, ঘাবড়াবেন না। অর্থনৈতিক হারাকিরি বা Lucrecide (Financial suicide) করে জগৎ সংসার দেখতে বেরিয়ে পড়ার ইচ্ছার কথা বলছি।

খেয়াল করলাম, ভ্রমণ পৌনঃপুনিকতায় আমার ট্রাভেল প্রোফাইলে গত কয়েক বছরে প্রাচ্য বেশ এগিয়ে গেছে—যদিও ভূ-পর্যটন শুরু করেছিলাম পশ্চিমের মেঘে সোনার সিংহ দর্শন দিয়ে। প্রাচ্যতম দেশ অর্থাৎ জাপানও যখন দেখা হয়ে গেছে, এবার তাই নতুন প্যারামিটার এক্সপ্লোর করতে পছন্দের দেশ প্রতীচ্যের পড়শি তুরস্ক। তুরস্কের বাৎসরিক সেমিনার সিম্পোজিয়ামের লিস্ট দেখে গবেষণা প্রবন্ধের প্রতিপাদ্যসার পাঠালাম সেলজুক (তুর্কিরা উচ্চারণ করে ‘সেলচুক’) ইউনিভার্সিটিতে। সেলচুক বেছে নেওয়ার কারণ হলো এটা আল্লামা রুমীর শহর কোনিয়াতে অবস্থিত। আর বাড়তি পাওনা হলো গুরু-শিষ্যের (রুমী আর শেমসে তেবরিজ) শহর ইস্তাম্বুল থেকে প্রায় সাতশত কিলোমিটার দূরে। ফলে, চৌদ্দশত কিলোমিটার পথ আসা যাওয়াতেই তুরস্কের একটা বিশাল অংশ দেখা হয়ে যাবে। এই আসা যাওয়ার জন্য, প্রসঙ্গত বলা অসঙ্গত হবে না, বাষ্পীয় রথ বা হাওয়াই রথ নয়, আমার পক্ষপাত সরাসরি স্থল শকট অর্থাৎ বাসের দিকে। যুগপৎ রথদর্শন আর রম্ভা ফেরির চেষ্টা আর কি!

সেলচুক ইউনিভার্সিটি

অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহে সেলচুক বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আমন্ত্রণপত্র আসলো। আমার কর্মস্থল চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে জিও, এনওসি ইত্যাদি নিয়ে এজেন্সির মাধ্যমে তুর্কি ভিসার জন্য আবেদন করলাম। হাতে সময় একদম কম। এর মধ্যে ইউরোপের বিভিন্ন দেশে বাংলাদেশি অবৈধ অভিবাসী আটক হওয়ায়, যারা তুরস্ককে তাদের রুট হিসেবে ব্যবহার করেছে, ঢাকাস্থ তুর্কি দূতাবাস আগের মতো আর বৈধ কাগজপত্র থাকলেই ভিসা ইস্যু করছেনা। তারা রয়ে-সয়ে ভিসা ইস্যু করাতে যাত্রার নির্ধারিত দিনের মাত্র দিন চারেক আগে ভিসা পেলাম। এই ফাঁকে তুর্কি দূতাবাসের ওয়েবসাইটে ঢু মেরে দেখলাম বাংলাদেশি অফিসিয়াল পাসপোর্টধারীরা বিনা ভিসায় (অর্থাৎ ভিসা অন এরাইভাল) দেশটি সফর করতে পারেন। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকগণ দীর্ঘদিন ধরে অফিসিয়াল পাসপোর্ট দাবি করে আসছেন। এ সুবিধাটা থাকলে আমাদের শিক্ষক-গবেষকগণ কত হয়রানি আর অহেতুক বাড়তি খরচ থেকে বেঁচে যেতেন! যেমন, একেবারে শেষ সময়ে পাসপোর্ট হাতে পাওয়াতে শুধু বিমান ভাড়া বাবদ আমার বাড়তি খরচ হয়েছে ত্রিশ হাজার টাকা। ভিসা ফিস, এজেন্সি খরচ, হোটেল রিজার্ভেশন ইত্যাদিসহ অহেতুক পকেট থেকে বেরিয়ে গেছে প্রায় অর্ধ লক্ষাধিক টাকা! অথচ আমার সরকারি পাসপোর্ট থাকলে এই টাকাটা দেশেই থেকে যেত। অবশ্য, সুইস ব্যাংকে যে গরিব দেশের অবৈধ ধনীরা মিলিয়ন-বিলিয়ন পাচার করে, সে দেশের জন্য এ আর এমন কী অর্থ!

যাক, শেষ মুহূর্তে সব প্রস্তুতি তড়িঘড়ি সম্পন্ন করে একুশে অক্টোবর ভোর ছয়টায় টার্কিশ এয়ার লাইন্সে করে ইস্তাম্বুলের উদ্দেশ্য ঢাকা ত্যাগ করি। অনেক বেশি ভাড়া সত্ত্বেও তুর্কি ন্যাশনাল ক্যারিয়ার পছন্দ করার মূল কারণ হলো এতে সরাসরি ঢাকা থেকে সাত ঘণ্টায় ইস্তাম্বুল পৌঁছা যায়। অন্য এয়ার লাইন্স যেমন সৌদি বা কুয়েত এয়ারে অনেক কম খরচে যাওয়া যায় কিন্তু তাতে জেদ্দা বা কুয়েতে ট্রানজিট নিয়ে কানেক্টিং ফ্লাইট ধরতে হবে যা বেশ ঝামেলাপূর্ণ আর সময় সাপেক্ষ। তুরস্কে আমার অবস্থানের মেয়াদ ছিল দশদিন। এই সময়ে অফিসিয়াল প্রোগ্রামে উপস্থিতিসহ তুরস্কের মতো একটা বিশাল দেশ দেখা প্রায় অসম্ভব। ইউরোপীয় মানদণ্ডে আন্তঃমহাদেশীয় এই প্রজাতন্ত্র কত প্রকাণ্ড তা ধারণা করতে একটি হিসাব দিয়ে রাখি—তুরস্কের আয়তন ইউরোপের পাওয়ার হাউজ যুক্তরাজ্য, জার্মানি, নেদারল্যান্ডস, বেলজিয়াম এবং সুইজারল্যান্ডের সমন্বিত আয়তনের চাইতেও বেশি! বিশালায়তন তুরস্ক, আহমেদ দাভোটুগ্লু যথার্থ বলেছেন, একটি ইউরোপীয় দেশ, এশীয় দেশ, মধ্যপ্রাচ্যের দেশ—এটি আবার বলকান আর ককেশীয় অঞ্চলের দেশ, কৃষ্ণ আর কাস্পিয়ান সাগরেরও দেশ। এই বহুমাত্রিক বৈচিত্র্যপূর্ণভূমিতে দশদিনে যতটুকু বতুতাগিরি করে দর্শনানন্দ লাভ করেছি তা সরলরৈখিকভাবে বয়ান না করে ঘটনাক্রম হিসেবে পাঠকদের সাথে ভাগ করে নেওয়ার প্রয়াস রাখছি।

ইস্তাম্বুল গ্র্যান্ড এয়ারপোর্টে
টার্কিশ এয়ারে বেশ আয়েশেই যথাসময়ে ইস্তাম্বুলের ঝাঁ চকচকে নুতন এয়ারপোর্টে অবতরণ করি। দিনটি ছিল রৌদ্রস্নাত। টার্মিনাল থেকে ইমিগ্রেশন, পথ দেখি শেষই হয় না। অবশ্য, বিরক্ত লাগেনি মোটেই। পরে জেনেছি, বারো বিলিয়ন ডলারের এই IGA (Istanbul Grand Airport) যার আয়তন প্রায় ঊনিশ হাজার একর (পনেরোটা চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসের সমান!) বর্তমানে বিশ্বের সবচেয়ে বড় বিমান বন্দর। এর আগে বিশ্বের সবচেয়ে বড় বিমান বন্দর ছিল যুক্তরাষ্ট্রের আটলান্টা হার্টসফিল্ড-জ্যাকসন বিমান বন্দর যার বাৎসরিক যাত্রী হ্যান্ডলিং ক্যাপাসিটি ১১০ মিলিয়ন। ২০২৫ সালে IGA এর সবগুলো টার্মিনাল চালু হলে এর ক্যাপাসিটি হবে ২০০ মিলিয়ন! অবশ্য, তুরস্কের আগের প্রিমিয়ার বিমান বন্দরটিও, যার নাম আতাতুর্ক বিমান বন্দর, ৭০ মিলিয়ন যাত্রী পরিবহন করে বিশ্বের ব্যস্ততম বন্দরের একটি ছিল।

এরিয়াল ভিউ : ইস্তাম্বুল গ্র্যান্ড এয়ারপোর্ট

যাক, ওসমানীয় সাম্রাজ্যের মুকুট ইস্তাম্বুলের অর্জনের নূতন পালকটির সুলতানি মাত্রার শানশওকত দেখতে দেখতে ইমিগ্রেশন শেষ করে বাইরে চলে আসি। বলে রাখি, এখানেও ‘দরিদ্রভার্যা সার্বজনীন ভ্রাতৃবধু’ নীতির প্রায়োগিক দিকটি পুনঃঅবলোকন করি। ইমিগ্রেশন কাউন্টারের তুর্কি দূহিতা বাংলাদেশি পাসপোর্ট দেখে বেশ সতর্কতার সাথে কাগজপত্র নিরীক্ষণ করে, তার সিনিয়রের সাথে কথা বলে পাসপোর্টে সিল মারে। ইতর আদম-হাওয়া ব্যাপারীরা বাংলাদেশের ভালে চিরস্থায়ী কলঙ্ক-তিলক পড়িয়ে দিয়েছে।

বাংলার নবাবজাদে, ঠিকানা ফিন্দিকজাদে
আল্লাহর অশেষ রহমতে বিশ্বের যেসব দেশে গিয়েছি, প্রায় সবখানেই কিছু উন্নত-হৃদয় মানুষ পেয়ে গেছি যাদের আন্তরিকতায় আমার বিভূঁইয়ে অবস্থান স্বস্তিদায়ক আর স্মরণীয় হয়েছে। যেমন, জাপানে পেয়েছিলাম ড. সুমনকে। সুমন কানাজাওয়াকে আমার জন্য চট্টগ্রাম বানিয়ে ফেলেছিলেন। থাইল্যান্ডে দিদার ভাইয়ের সঙ্গ সফরটাকে একেবারে রমণীয় করে তুলেছিল। কুয়ালালামপুরে অবস্থানকালীন ড. শামীম হামিদী আর তার পত্নীর আতিথ্য-উষ্ণতায় মনেই হয়নি বৈদেশে আছি। আর সিঙ্গাপুরে তো একেবারে ঘরের ছেলে জয়নালের সার্বিক তদারকিতে ছিলাম। শ্বেতদ্বীপের লন্ডনে তো রীতিমতো তারকাপুন্জের (Galacticos) আলোয় উদ্ভাসিত ছিলাম। নেপাল-ভারতে গিয়েছিলাম প্রিয় শিক্ষক, সহকর্মী আর শিক্ষার্থীদের আমুদে দলের সাথে। একমাত্র ইন্দোনেশিয়াতে ঘুরেছি যাকে বলে, Alone, all alone।

তো, তুরস্কেও আসার আগে বেশ কজন দেশি তরুণ তুর্কির সাথে যোগাযোগ করে এসেছি। তাদেরই একজন চটপটে, করিৎকর্মা যুবক হেলালী। IGA থেকেই বেশ চড়া দামে Vodafone-এর দশদিনের একটি ট্যুরিস্টপ্যাকেজ কিনি ফলে যোগাযোগের কোনো সমস্যা হচ্ছিল না। Havaist Bus-এ চেপে মাত্র পনেরো লিরা দিয়ে চলে আসি আক্সারাই মেট্রো স্টেশন। এত উন্নত বাস আর ততোধিক উন্নত সার্ভিস মাত্র ২৩০ টাকায় বাংলাদেশে কষ্ট-কল্পনার বিষয়। স্টেশনের নাম মনে রাখার জন্য আমার নিমোনিক কোড ছিল ‘মোগলসরাই- আকশারাই’। বেশ খোশ মেজাজে আক্সারাই এসে পেয়ে গেলাম তালেবে এলেম হেলালীকে। সেখান থেকে দৃষ্টিনন্দন একটা পার্ক পেরিয়ে ফিন্দিকজাদে—আমার ডেরা হোটেল ইলচুক আর হেলালিদের তুর্কি-মঞ্জিল।

ইস্তাম্বুলে লেখকের ডেরা হোটেল ইলচুক

হোটেলে ওঠার আগে সামনে বার্গার কিংয়ের আউটলেটে দুজনে উদরপূর্তি করলাম। সত্যিকারের মোগল হয়ে হেলালী আমাকে কার্ডে হাত দিতে দিল না। উপরন্তু, রাতের খাবারও তার বাসায় খেতে হলো। ডিনার শেষে রীতিমতো দলবলের এসকর্ট নিয়ে ইলচুক হোটেলে উঠি। নিজেকে মনে হচ্ছিল হাসান আল বলকিয়ার ক্ষুদ্র ভ্রাত! রাত এগারোটার পর নিশাচর হেলালী হোটেল লবি থেকে কল দিল—স্যার আসেন, আপনাকে রাতের ইস্তাম্বুল দেখাব। আমি যেন এই আহ্বানের ইন্তেজারই করছিলাম। ফলে উৎসাহের উত্তাপে অক্টোবরের শীত চাপা পড়ে গেল। বেশ কিছুক্ষণ ঘুরে, তুর্কি চোষ্য-চর্ব্য আস্বাদন আর বিখ্যাত ‘চায়ে’ পান করে হোটেলে ফিরে রাজসিক ঘুম। এক সুখনিদ্রায় রজনী পার! [চলবে]

হাসান হাফিজের একগুচ্ছ কবিতা



হাসান হাফিজ
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

ম্যানিলা ও নস্টালজিয়া

ও ম্যানিলা
তুমি আছো স্মৃতিপটে,
ওগো প্রিয় ম্যানিলাসুন্দরী
তৃষিতের ওষ্ঠ তুমি ভিজিয়েছো
স্যান মিগ্যুয়েল নামে বীয়ারে মাদকে
‘পিনোটুবুু’ অগ্নিগিরি
খুব কিন্তু দূরে নয়
দ্বীপ দেশ ফিলিপিন্স
ঔপনিবেশক স্মৃতি কী দুঃসহ
একটানা চারশো বছর
দীর্ঘ দীর্ঘকাল পরে
মুক্তিস্বাদ পেয়েছো যে তুমি
সেই কটু অম্লস্বাদ
স্মৃতি হয়ে বুকে বেঁধে
‘মুক্তি’ দ্যায় উপশম
সুতন্বী উচ্ছল হও মনোরমা
দ্বীপকন্যা সুছন্দা ম্যানিলা।

অসহ দংশন

না-বৃষ্টি না-রোদ
এমন ধূসর দিনে
কেন ছুঁতে চেয়েছে সে
তোমার পেলব হাত
শৈল্পিক আঙুল
চুম্বনের অধিকার
ওরা কিন্তু দ্যায় নি যুবাকে
সন্ধ্যার আঁধারবেলা
সেই স্মৃতি অনশ্বর
জ্বলজ্বলে নক্ষত্রস্পর্ধায়
অমলিন চিরক্ষণ জলরঙ ছবি হয়ে
জেগে থাকে ঠোকরায়
না-পাওয়ার অসীম তৃষ্ণায়...

একগুঁয়ে মাঝি

মন পোড়ে?
বৃষ্টি ওড়ে?
মনের তো ডানা নাই,
কীভাবে বৈদেশ যাবে
বন্ধুয়া-হদিস পাবে
প্রশ্ন এইটাই।

বৃষ্টি পড়ছে
আছড়ে পড়ছে
মৃত্তিকার আলিঙ্গনে
এবং সম্ভোগে
সার্থকতা জলের প্রেমের।
দেখেছ প্রেমের মড়া?
কোনোদিন ডুবেছে সে জলে?

মন পোড়ে?
আহা বাহা পুড়ুক জ্বলুক
পোড়াই নিয়তি
বাহক দুর্গতি
ছিল যে কপালে লেখা
কীভাবে খ-াবে?
মনের বৈরাগী মাঝি
ফিরে আসতে নয় রাজি
চড়েছে সে একগুঁয়ে
ভাঙাচোরা ডিঙি নৌকায়।

নিরালায় সন্ধ্যাকালে

যাও পাখি যাও
পরানবন্ধুরে গিয়া
স্মরণ করাও
দুঃখিনীরে একলা রাইখা
কী মজা সে পায়?
এবার নাগালে পেলে
রশি দিয়া বাইন্দা রাখব
সতত পঞ্চল বন্ধে
এইবার দেইখা নিব কীভাবে পলায়!
শরমের খেতা পুড়ি
ওরে পাইলে এই ঘুরি
উইড়া চলি পাতায় পাতায়
যাও পাখি বলো তারে
এবার সে আসতে পারে
দুই বন্ধু বসব গিয়া
পুরানা দীঘির পাড়ে
নিরালা সন্ধ্যায় কালে
প্রাচীন ঘাটলায়
ও বন্দু সারলী হাঁস
খুঁচিয়ে কী মজা পাস?
সবকিছু ছাইড়া ছুইড়া
নিজ গৃহে সোজা চইলা আয়!


গত্যন্তর নাই

বিশ্বাস ভেঙেছো তবু
তোমাকে বিশ্বাস করি
পুনরায় প্রতারিত হতে চাই
ক্ষতি আর কতটুকু হবে?
সর্বনাশ পোড়া ছাই
লানতের অন্ত নাই
তোমাদ্বারা সকলই সম্ভব
যদি অসম্ভব হয়
আমি তবে বেপথু নাচার
পথ খোলা নাই যে বাঁচার
আমার কী গতি হবে তবে?


আশাভঙ্গ

এতোটা পথ
পাড়ি দিলাম একা
ভেবেছিলাম
হয়তো পাবো দেখা।
জানতাম না অদর্শনই
এই কপালের লেখা।
ভেবেছিলাম সরল তুমি
এখন দেখি জটিল বক্ররেখা!


নৈকট্য তো ছিল না কপালে

ক.
খুঁজতে খুঁজতে একদিন
হয়তো পেয়ে যাবো
ভয় কিন্তু জাগরুক
পেলে পর নিশ্চিত হারাবো!

খ.
কাঁটা ও সংশয়
সমস্ত জীবনব্যাপী
ভিলেনের মতো জেগে রয়।

গ.
জারিজুরি সবই হলো ফাঁস।
জানতে না আমার হৃদয়মধ্যে
বাস করে অপরূপ আন্ধা সর্বনাশ?
আমি কিন্তু জানতাম
সে কারণে কাছে ঘেঁষতে
চাইতাম না মোটের উপর
নৈকট্য নিয়তি নয় জানা ছিল
কিন্তু করতে পারি নাই
তোমাকে ত্যাগের মতো ছিন্ন উপবাস।

 

;

পলাশি ট্রাজেডি ও সিরাজের মৃত্যু



হাসিবুর রহমান
পলাশি ট্রাজেডি ও সিরাজের মৃত্যু

পলাশি ট্রাজেডি ও সিরাজের মৃত্যু

  • Font increase
  • Font Decrease

 

কোন জাতির উত্থান-পতন, আবেগ, ভবিষ্যৎ নির্মাণে মিশে থাকে ইতিহাসের  সূক্ষ্ম সূক্ষ্ম উপাদান । কেউ ইচ্ছে করলেই তাকে যেমন বদলে দিতে পারে না, ঠিক তেমনি আদর্শগত দিক থেকে কোন জাতিকে বিপথে চালিতে করতে পারে ভুল ইতিহাস। ভারত উপমহাদেশের ইতিহাসে অষ্টাদশ শতকের বাংলা নানা কারণেই তাৎপর্যপূর্ণ। বিশেষ করে, বাংলার আর্থিক সমৃদ্ধির সুনাম সমগ্র বিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছিল সেই সময়। শান্তি সমৃদ্ধির চূড়ান্ত এক পর্যায়ে ১৭৫৭ পলাশির অন্ধকার নেমে আসে এবং ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে নবাব সিরাজউদ্দৌলার পতন ঘটনো হয়।

দ্বিসার্ধশত বছরের পলাশি যুদ্ধের বহুমাত্রিক আলোচনা হয়েছে ঠিকই কিন্তু নবাব সিরাজউদ্দৌলার রাজনৈতিক দায়বদ্ধতা ও ব্যক্তিগত চরিত্র নিয়ে জনসমাজে বিভ্রান্তিকর, কাল্পনিক গল্পও ছড়ানো হয়েছে । দেশী-বিদেশী ঐতিহাসিকরা তাঁকে লম্পট, দুশ্চরিত্র, কটুভাষী, হৃদয়হীন রূঢ়  চতুষ্পদ পশুর চেয়েও নিকৃষ্ট স্বভাবজাত বলে মিথ্যা ও কলঙ্কের অপবাদে মুড়ে দিয়েছেন। সমকালীন যুগের ফারসি ভাষার মুসলমান,  ইংরেজ লেখক কেউই তাঁর প্রতি সুবিচার করে কলম ধরেননি।

তবে, অক্ষয় কুমার মৈত্রেয়, নিখিল নাথ রায় আধুনিক কালে সুশীল চৌধুরীর মতো ব্যতিক্রমী ঐতিহাসিকরা  সিরাজউদ্দৌলার মত দেশপ্রেমিক নবাবকে নিরপেক্ষ দৃষ্টিভঙ্গিতে যেভাবে মূল্যায়ন করে বিপথগামী ইতিহাস চর্চার ধারাকে থমকে দিয়েছেন- এটাও ইতিহাসবেত্তাদের সততা, স্বচ্ছতা ও সামাজিক দায়বদ্ধতার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্বরূপ। 

বর্তমানে অধিকাংশ ঐতিহাসিক পলাশির যুদ্ধের ফলাফল নিয়ে বিস্তর লেখালেখিতে আগ্রহী। কিন্তু তাঁরা দেখেন না, দেখতে চান না যে পলাশি হলো একটি  পরিণতি । ষড়যন্ত্র আর সামরিক আগ্রাসনের একটি সুদূরপ্রসারী ফলাফল। তাঁরা পলাশি পরবর্তী সময়ে ইংরেজ কর্তৃক ঔপনিবেশিক সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠার বৈধতা দিতে সিরাজের বিরুদ্ধে সীমাহীন মিথ্যা যুক্তির জাল বুনেছিল, আসলে এছাড়া ভারতে ব্রিটিশ সাম্রাজ্যকে স্বীকৃতি দেওয়ার অন্য কোন বৈধ উপায় তাঁদের হাতে অবশিষ্ট ছিল না।

মাত্র চৌদ্দ মাসের শাসনকালে অবাধ্য ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির ঔদ্ধত্যকে  দমন করতে সিরাজের দৃঢ়তা, সাহসিকতা, কঠোরতা দেখিয়েছিলেন তা নিঃসন্দেহে প্রশংসাযোগ্য। বাংলার মাটিতে বিনা অনুমতিতে ইংরেজদের দুর্গ নির্মাণ, কিংবা কর্মচারীদের  অবাধ "ব্যক্তিগত বাণিজ্য" বন্ধ করা তাঁর কাছে চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছিল। একজন স্বাধীন নবাবের চোখে সার্বভৌমিকতার প্রশ্ন এখানে জড়িয়ে ছিল। কিন্তু সিরাজের দুর্ভাগ্য তাঁর দরবারের পদস্থ বিশ্বাসী অমাত্য গোষ্ঠী, অনেকেই ব্যক্তিগত রাজনৈতিক ক্ষমতা লাভের আশায় কোম্পানির ষড়যন্ত্রের কাছে আত্মসমর্পণ করেছিল। জগৎ শেঠদের মতো দেশীয় বণিকরাও এই ষড়যন্ত্রে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন।

ঘরে বাইরে শত্রু পরিবেশিত সিরাজ দৃঢ়তার সঙ্গে এই অশুভ শক্তির মোকাবেলায় সফল হননি বটে , কিন্তু তাঁর স্বদেশভূমি রক্ষার লড়াইকে হীন চোখে দেখা অনৈতিহাসিক। পলাশি নামক বিয়োগান্ত ঘটনার পর  তাঁকে  চরম অপমান আর অমর্যতার সম্মুখীন হতে হয়। যে নিষ্ঠুরতা তাঁর সঙ্গে পলাশির পর দেখানো হয়েছিল ইতিহাসে তা বিরল। প্রখ্যাত ঐতিহাসিক সিরাজুল ইসলাম লিখেছেন, প্রকৃতপক্ষে সমকালীন শাসকশ্রেণীর মানদণ্ডে সিরাজউদ্দৌলার চারিত্রিক দৃঢ়তা, অত্যন্ত সাহসিকতা ও অসাধারণ রাষ্ট্রীয় দায়িত্ববোধ বিস্ময়কর বটে। কিন্তু দুর্ভাগ্যের বিষয় সাম্প্রতিক কালেও ইংরেজদের ভারতবর্ষ দখলের বৈধতা দান করতে গিয়ে একশ্রেণীর ইতিহাসবিদ সিরাজকে নিয়ে নতুন নতুন কাহিনী, উপাখ্যান ম্যানুফ্যাকচার করে ইতিহাস হিসাবে প্রচার করে চলেছেন। তাঁরা বলেন-- সিরাজের মৃত্যু কোন শহীদের মৃত্যু নয় । কারণ তিনি মধ্যযুগীয় রাষ্ট্রব্যবস্থাকে রক্ষা করতে লড়াই করেছিলেন মাত্র, যেখানে জনসমাজের সঙ্গে তাঁর কোন সম্বন্ধ ছিল না। অথবা একথা বলা হয় যে বাংলার নবাব হিসেবে কেন্দ্রীয় মুঘল শাসকদের দ্বারা কোন লিখিত বৈধ অনুমোদন তাঁর ছিল না ইত্যাদি।

সিরাজের মৃত্যু কোন শহিদের মৃত্যু কিনা সে বিষয়ে বিতর্ক থাকা অকল্পনীয়। তাঁর দেশপ্রেম নিয়ে প্রশ্ন তোলা ইতিহাস-বিরুদ্ধ। এছাড়া শাসনের বৈধতার দিক থেকে বাংলার নবাবরা নিয়মিত দিল্লি সম্রাটদের রাজস্ব প্রদান করতেন, সিরাজ ও তার ব্যতিক্রম ছিলেন না। দেশের অভিন্ন মুদ্রা ব্যবস্থা বাংলাতেও চালু ছিল। কাজেই  অভিযোগকারীরা কি ধরনের 'দেশপ্রেম' ও 'জাতীয়তাবোধ' সিরাজের কাছে প্রত্যাশা করছেন তার কোন ইতিহাস সম্মত ব্যাখ্যা হয় না। দেশকে রক্ষা করার দায়িত্ব তিনি অস্বীকার করেননি এখানেই তাঁর রাজনৈতিক গুরুত্ব ও ঐতিহাসিক অবদান।

সিরাজউদ্দৌলার নিরন্তর লড়াই এর সঙ্গে যুক্ত ছিল আপামর বাংলার মানুষের জীবন ভবিষ্যৎ। পলাশিতে যদি নবাবকে না হারতে হত তাহলে বাংলার ইতিহাস অন্যভাবে লেখা হত নিশ্চয়। দীর্ঘ দু'শো বছরের ঔপনিবেশিক শাসন, শোষণের জর্জরিত দেশবাসীর মনে হীনমন্যতাপদের জন্ম নিত না। স্বাধীনতার শত্রুদের সেদিন যথার্থভাবে চিহ্নিত করা সম্ভব হয়নি। দেশপ্রেমিক নবাবের মৃত্যুকে কেবল ক্ষমতার হাত বদল বলেই ভেবেছিল একশ্রেণীর মানুষ। ক্ষমতাসীন নবাবের লাশকে সেদিন জনগণের ঘৃণা ও অপমানের বস্তু করে তুলেছিল। নবাবের অনুগ্রহে যাদের একসময় জীবন জীবিকা নির্ভর করত তারাই দেশপ্রেমিক সিরাজকে নির্মমভাবে হত্যা করল, মৃতদেহটি পশুর মত ডাস্টবিনে ছুঁড়ে দিয়েছিল। সমকালীন যুগের এই ঘৃণ্য প্রতিশোধ যেকোনো জাতির কাছেই বড় লজ্জার।

 

অথচ যে নবাব চরম বিপদের মুহূর্তে দেশের সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করেননি, কারোর প্রতি  শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করেননি, তাঁর সেই মহানুভবতা ও উদারতাকে কেউ মূল্যায়ন করতে চায় না। ম্যালেশন যথার্থই মন্তব্য করে করেছেন  যে, পলাশির আগে-পরে একমাত্র সিরাজের বিশ্বাসঘাতকতা ও ষড়যন্ত্রের সঙ্গে কোন সম্পর্ক ছিল না।

একথা সত্যি যে, বাংলার নবাবদের মধ্যে সিরাজই বোধহয় দেশকে একটু বেশি ভালোবেসে ফেলেছিলেন। তিনি মুর্শিদকুলি খান, সুজাউদ্দিন, সরফরাজ বা আলিবর্দী খানের মতো গা ভাসিয়ে চলতে পারতেন তাহলে তাঁকে অন্তত অকালে প্রাণ দিতে হতো না। হতভাগ্য রাজ্যহারা নবাব জীবনের অন্তিম সময়ের প্রাণ ভিক্ষার জন্য প্রত্যেকের পদতলে লুটিয়ে পড়েছিলেন কিন্তু সেদিন তাঁর করুণ আর্তি শুনতে পাইনি কেউ। ফলে বাংলার ইতিহাসে চিরকাল কালো অধ্যায় হিসেবে ১৭৫৭ সালের ৩রা জুলাই চিহ্নিত হয়ে থাকবে। তাঁকে জীবন ভিক্ষার পরিবর্তে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছিল। নিষ্ঠুর, ঘৃণিত সেই হত্যাযজ্ঞ আজও মানুষের হৃদয়ে কম্পিত হয়। দেশ রক্ষার লড়াইয়ে পরাজিত হয়েও মানুষের মনে তিনি চিরদিন স্বাধীনতার স্পৃহায় অমর হয়েই থাকবেন, এটাই অকালপ্রয়াত নবাবের জন্য  শ্রেষ্ঠ স্বীকৃতি।

(প্রাবন্ধিক আঞ্চলিক ইতিহাস গবেষক।)

 সহায়ক তথ্যসূত্র :

১) যদুনাথ সরকার ,  বেঙ্গল নবাবস, এশিয়াটিক সোসাইটি, কলকাতা ,১৯৫২

 ২) ডঃ সুশীল চৌধুরী, পলাশির অজানা কাহিনী, আনন্দ পাবলিশার্স, কলকাতা।

৩) ড: মোহম্মদ মোহর আলি,  হিস্টরি অব দ্য মুসলিমস অফ বেঙ্গল, ২খন্ড ,রিয়াধ ১৯৮৮।

৪) অক্ষয় কুমার মৈত্রেয়, সিরাজদ্দৌলা, কল্লোল, কলকাতা।

৫) ড : সিরাজুল ইসলাম , বাংলাদেশের ইতিহাস , খন্ড ১ম ( ১৭৫৭-১৯৭১) সম্পাদনা , এশিয়াটিক সোসাইটি অব বাংলাদেশ ২০১৭ ।

৬) আ:কা: মো: যাকারিয়া, সিরাজউদ্দৌলা , প্রথমা , ঢাকা ।

;

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী সম্মাননা পেলেন কবি ফখরুল হাসান



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী সম্মাননা পেলেন কবি ফখরুল হাসান

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী সম্মাননা পেলেন কবি ফখরুল হাসান

  • Font increase
  • Font Decrease

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী সম্মাননা পেলেন কবি ও শিশুসাহিত্যিক ফখরুল হাসান। ২৩ জুন বিকেলে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির সংগীত ও নৃত্যকলা মিলনায়তনে তার হাতে সম্মাননা তুলে দেওয়া হয়।

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে ৬ লেখককে সম্মাননা, ‘শেখ হাসিনার জয় বিশ্বের বিস্ময়’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন, আবৃত্তি, ছড়া পাঠ ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এ সময় সৈয়দ মাসুম, আর মজিব, এনাম আনন্দ, ফাহমিদা ইয়াসমিন, লুৎফর রহমান চৌধুরীকেও সম্মাননা দেওয়া হয়।

বঙ্গবন্ধু জন্মশতবর্ষ আন্তর্জাতিক পর্ষদ, বঙ্গবন্ধু লেখক পরিষদের আয়োজনে বীর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মো. শাহজাহান মৃধা বেনুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠান উদ্বোধন করেন অধ্যাপক ড. আবদুল মান্নান চৌধুরী ও জাতিসত্তার কবি মুহম্মদ নূরুল হুদা।

প্রধান অতিথি ছিলেন নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী। বিশেষ অতিথি ছিলেন কবি অসীম সাহা, মারুফুল ইসলাম, তারিক সুজাত ও অ্যাডভোকেট আফজাল হোসেন।

কবিতা আবৃত্তি করেন জালাল উদ্দিন নলুয়া, ড. তপন বাগচী, শফিকুর রাহী, রিফাত নিগার শাপলা, আনতানুর হক, হানিফ খান, ইউসুফ রেজা, রোকশানা সাথী, জমশেদ ওয়াজেদ, মাসুদ আলম বাবুল, মাদবর রফিক, লুৎফর চৌধুরী, হাসনাইন সাজ্জাদী, গিয়াসউদ্দিন চাষা, হেনা খান, কৌমুদী নার্গিস, বোরহান মাসুদ, সৈয়দ একতেদার আলী, আলী নিয়ামত, মিহির কান্তি ভৌমিক, লুৎফা জালাল, তানিয়া মাহমুদ, শ্রাবণ রেজা, ইমরান পরশ, সৈয়দ তপু, মেরীনা সাঈদ, শাফিন প্রমুখ

;

সংশপ্তক শেখ হাসিনা



আবদুল হামিদ মাহবুব
আবদুল হামিদ মাহবুব

আবদুল হামিদ মাহবুব

  • Font increase
  • Font Decrease

 

সংশপ্তক শেখ হাসিনা

কাণ্ড অনেক করে

পদ্মা বুকে ‘পদ্মা সেতু’

ঠিক দিয়েছেন গড়ে।

 

কাণ্ড ওসব নয় সাধারণ,

ভুলতে কি আর পারি?

জয় বাংলা জোরসে হেঁকে

ঠিক তো দিলেন পাড়ি।

 

অপেক্ষাতে সবাই আছি

মনটা উচাটন

ওই দিনটা জানান দিয়ে

আসলো শুভক্ষণ!

 

বাংলাদেশের এমন জয়ে

বিশ্ব জানুক, কি সুখ?

সব বাঙালি বুকের পাতায়

সুখের গাথা লিখুক।

;