নিরাপত্তাশঙ্কায় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা বুয়েট শিক্ষার্থীদের একাংশের



ঢাবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) চলমান ইস্যুতে একদল শিক্ষার্থী উগ্রবাদী ও নিষিদ্ধ সংঠনের বিরুদ্ধে কথা বলায় নিরাপত্তা শঙ্কায় রয়েছেন বলে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন শঙ্কিত ওই শিক্ষার্থীরা।

বৃহস্পতিবার (৪ এপ্রিল) বিকেলে বুয়েট শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে এক সংবাদ সম্মেলনে তারা এ শঙ্কার কথা জানান।

প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ করে এক খোলা চিঠিতে তারা দাবি করেন, বুয়েট ক্যাম্পাসে ছাত্র রাজনীতিকে এক ধরনের নিষিদ্ধ কাজ হিসেবে দেখা হচ্ছে। প্রগতিশীল রাজনৈতিক চিন্তাধারণায় বিশ্বাসী এবং স্মার্ট বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় আমরা অংশ নিতে চাই দেখে আমাদের ক্যাম্পাসে দীর্ঘ একটি সময় ধরে মানসিক নিপীড়ন চলে আসছে, যা বর্তমানে আমাদের জীবনের হুমকিস্বরূপ।

আমরা বাংলাদেশের স্বাধীনতার চেতনায় বিশ্বাসী, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনাকে আমরা বলতে চাই, শুধুমাত্র স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য যে পরিমাণ বুলিং করা হয়েছে, আমাদের ওপর তা অকথ্য। এই নিপীড়নের কারণ শুনতে হলে আমাদের ২০১৯ পরবর্তী বেশ কিছু ঘটনা জানতে হবে। বুয়েটের শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ (ইইই ১৭) ভাইয়ের নির্মম হত্যাকাণ্ডের পর বুয়েটে ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধ হয়। কিন্তু এরপরে র‍্যাগিং বা এর সঙ্গে জড়িত কোনো বিশ্ববিদ্যালয় আইন ভঙ্গের অভিযোগ না থাকলেও সংখ্যালঘু ছাত্রদের ওপর শুরু হয় 'পাবলিক হিউমিলিয়েশন' এবং 'ডিফেমেশন', যা হয় শুধুমাত্র স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী হওয়ার কারণে।

পরবর্তীতে আমরা বুয়েটে ভর্তি হলে আমরাও আমাদের জাতির জনকের আদর্শকে পালন করতে চাইলেই আমাদের সঙ্গে বুলিং ও নানাভাবে আমাদের হ্যারাস (হয়রানি) করা হয়।

ঘটনা প্রসঙ্গে তারা উল্লেখ করেন, ২০২৩ সালের ৩১ জুলাই সুনামগঞ্জের তাহেরপুর টাঙ্গুয়ার হাওর সংলগ্ন এলাকায় বুয়েটের ২৪ শিক্ষার্থীসহ মোট ৩৪ জনকে রাষ্ট্রবিরোধী কর্মকাণ্ড পরিকল্পনার অভিযোগে শিবির সন্দেহে আটক করে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। এই ধরনের ভয়ঙ্কর ঘটনায় আমরা মৌলবাদী শক্তির বিরুদ্ধে মানববন্ধনে দাঁড়াই এই শিরোনামে- 'Rise Above Extremists, Protest Fundamentalism'। এই মানববন্ধনে আমাদের দাবি ছিল দোষীদের শাস্তি প্রদান এবং নির্দোষদের নিঃশর্ত মুক্তি। কিন্তু এমন একটা সচেতনতামূলক কাজ করার পরেও আমাদের মানববন্ধনে দাঁড়ানো সব সাধারণ শিক্ষার্থী বন্ধু ও সহপাঠীদের সঙ্গে শুরু হয় জবাবদিহিতার পর্ব। সেখানে মানববন্ধনে দাঁড়ানো সাধারণ শিক্ষার্থীদেরও সামাজিকভাবে বয়কটের ভয় দেখিয়ে মানববন্ধনের প্রথম ছাত্র হওয়ার কারণে আমাদের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য হিসেবে রাখা হয়।

তারা উল্লেখ করেন, বিশ্ববিদ্যালয় মনন চর্চার মুক্তমঞ্চ। বিশ্ববিদ্যালয়ে মৌলবাদবিরোধী অবস্থান রাখাকে কীভাবে অভিযোগ হিসেবে তুলে ধরা হয়, তা আজও জবাবদিহিতা চাওয়া প্রত্যেক ছাত্রের প্রশ্ন। মানববন্ধনের প্রথম ব্যক্তিবর্গ হিসেবে আমাদের নিয়ে শুরু হয়, সোশ্যাল মিডিয়ায় বুলিং এবং জবাবদিহিতার ঘটনা। সে ঘটনাকে কেন্দ্র করে আমাদের দুইজন সহপাঠীকে আহসান উল্লাহ হলে রাত ১১টা থেকে ভোর ৪টা পর্যন্ত জবাবদিহিতার নামে যে প্রহসনমূলক র‍্যাগিং বা বুলিং এবং কমনরুম ও মাঠে একটানা অপমান করা হয়। এই ঘটনা আমাদের মানসিক স্থিতির ওপর বিরাট প্রভাব ফেলে। আমাদের নিচু দেখিয়ে কথা বলাও শুরু হয় এবং হল থেকে বের করে দেওয়ার হুমকি দেওয়া হয়। এরপর থেকেই আমাদের চিহ্নিত করে বারবার বুলিং এবং আমাদের ব্যক্তি স্বাধীনতা হরণ করা হয়। আমরা কখন কোথায় যাচ্ছি তাও সরাসরি অনুসরণ করে চিহ্নিত করা হয়।

অভিযোগ করে তারা জানান, আমরা শুধুমাত্র মত প্রকাশ করেছিলাম। স্বাধীন এই বাংলায় এই অধিকার কি আমাদের নেই? পরবর্তীকালে আমরা বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বিশ্বাসী ছাত্ররা একরাতে একসঙ্গে বসে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস নিয়ে আলোচনা ও খাওয়া-দাওয়া করলে আবারও ছুটে আসে সোশ্যাল ডিফেমেশনের  কালোছায়া। এতে প্রমাণবিহীনভাবে রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের উপস্থিত থাকার বানোয়াট ও মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে আমাদের সবাইকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সোশ্যাল গ্রুপ থেকে বের করে দেওয়া হয়। বিশ্ববিদ্যালয় ক্লাবের প্রতি নিবেদিতপ্রাণ সদস্যদের ক্লাব থেকে বের করে দেওয়া হয়। এমনকী ক্লাস শিডিউল ও পরীক্ষার রুটিন সঠিক সময়ে দায়িত্বপ্রাপ্ত ছাত্রদের না জানানোর আদেশ দেওয়া হয়। পরিষ্কারভাবে আমাদের লালিত বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বিশ্বাসী অন্য শিক্ষার্থীদের সামাজিক বয়কটের পক্ষে ঘটা করে জানান দেওয়া হয়। দেশমাতার বুকে মাকে ভালোবাসার জন্য এ যেন এক ঘটা করে ডেকে অপমান করা। আমরা এই মর্মে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে আবেদন করলেও কোনো মীমাংসা আজও পাইনি।

সমসময়িক ইস্যুতে তারা জানান, চলতি বছরের ২৭ মার্চ দিনগত রাতে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সভাপতি হুসাইন সাদ্দাম বুয়েট প্রাঙ্গণে রাতে উপস্থিত হলে তার সঙ্গে বুয়েটে অধ্যয়নরত বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদের সদস্য ইমতিয়াজ রাহিম রাব্বি সৌজন্য বিনিময়ের কারণকে অভিযোগ হিসেবে তুলে ধরে একটি প্রদর্শনীর ছাত্র আন্দোলন সৃষ্টি হয়। পরে তারা ইমতিয়াজ রাহিম রাব্বির হল বহিষ্কার দাবি করে এবং উপাচার্য মহোদয় কর্তৃক কোনোরকম তদন্ত ছাড়া তাই গৃহীত হয়। পরবর্তীতে তাকে স্থায়ীভাবে বুয়েট থেকে বহিষ্কারের দাবিও জানানো হয়, যা আসলে একজন শিক্ষার্থীর জন্য তার একাডেমিক ক্যারিয়ার ধ্বংসের শামিল। এই আন্দোলন ক্যাম্পাসে শান্তির পরিবেশ নষ্ট করে যা পরীক্ষা বয়কটের মতো বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে। এরই সঙ্গে অনলাইনে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সোশ্যাল হ্যারাসমেন্ট এবং ব্যক্তিগত তথ্য ছড়িয়ে দিয়ে আমাদের জীবন হুমকির মুখে ফেলে দেওয়া হচ্ছে।

তারা আরো জানান, আমাদের উক্তিতে উঠে আসা ঘটনাগুলোতে সবসময়ই হোতা কিছু নির্দিষ্ট মানুষ যাদের সঙ্গে শিবির সন্দেহে আটককৃতদের সম্পৃক্ততা এবং মৌলবাদী চিন্তা পালনের দৃষ্টান্ত মেলে। অনেক ক্ষেত্রে সাম্প্রদায়িক মতামত প্রতিষ্ঠার জোরও চালানো হয় তাদের দ্বারা। কিন্তু এই অন্ধকার রাজনীতি আড়ালে নেয় আবরার ফাহাদ ভাইকে হারানোর বেদনায় সাধারণ শিক্ষার্থীদের আবেগকে ব্যবহার করে। সম্প্রতি, ক্যাম্পাসে ইসিই ভবনের লিস্টেও হিজবুত তাহরীর পোস্টারে কিউআর কোডের মাধ্যমে "পাশ্চাত্য সংস্কৃতি থেকে বের হয়ে এসে খিলাফত প্রতিষ্ঠা" করার আহ্বান করা হয়, যা শিক্ষার্থীদের ব্যক্তিগত এডুকেশনাল মেইলেও পাঠানো হয়। হে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, আপনি আমাদের রক্ষক, আপনি সহযোগিতা করুন, আমাদের আবেদন শুনুন।

তারা আরো অভিযোগ করেন, ক্যাম্পাসে ১৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে স্টাফদের মধ্যে ইফতার বিতরণের জন্য তাদের সহযোগী জুনিয়র ও ব্যাচমেটদের প্রশ্নবিদ্ধ করা হয় এবং জবাবদিহিতা চাওয়া হয়। এমনকী সবাইকে সামাজিক বয়কটের হুমকি দেওয়া হয়।

প্রধানমন্ত্রীকে তারা জানান, হলের রুমে বঙ্গবন্ধু ও আপনার ছবি রাখতে চাইলেও আমাদের প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ে "বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ চেতনা" বিষয়ক ক্লাব প্রতিষ্ঠা করতে চাইলেও তার বিরোধিতা করে সমালোচনা করা হয়, যার কারণে এই ক্লাব প্রতিষ্ঠায় আমাদের পিছপা হতে হয়।

প্রধানমন্ত্রীর সাহায্য চেয়ে তারা জানান, বর্তমানে এই সবধরনের নিপীড়নের বিরুদ্ধে অভিযোগ করায় আমাদের জীবন হুমকিসহ নানা জটিলতার মধ্য দিয়ে আমাদের যেতে হচ্ছে। শিবির দ্বারা পরিচালিত বাঁশেরকেল্লার পক্ষ থেকে আমাদের ব্যক্তিগত তথ্য চাওয়া হচ্ছে। আমাদের শিক্ষার্থীদের নাম, মোবাইল ফোন নম্বর, শিক্ষার্থী নম্বর থেকে শুরু করে ব্যক্তিগত তথ্য ছড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে ম্যাসেজিং অ্যাপসগুলো ব্যবহার করে। এর প্রমাণ, এরই মধ্যে আমরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে জমা দিয়েছি। আমরা ২১ জন এই ধরনের সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছি।

হে দেশরত্ন, বঙ্গবন্ধু তনয়া, আমাদের সাহায্য করুন। আমরা বিশ্বাস করি, ভিন্ন-অভিন্ন সব মতের সাধারণ বুয়েট শিক্ষার্থীরা সবাই মিলে স্বাভাবিক ও নিরাপদ ক্যাম্পাস চাই। আমরা মত প্রকাশের স্বাধীনতা চাই। আমরা চাই না, আমাদের ক্যাম্পাস জঙ্গি তৈরির কারখানা হোক। আমরা চাই না, দেশে দ্বীপভাই, সনিআপু ও আবরার ফাহাদ ভাইয়ের মতো নির্মম ঘটনা ঘটুক। আমরা দ্বিতীয় কোনো হলি আর্টিজান ঘটনাও চাই না। আমরা চাই না তন্ময়ভাইয়ের মতো কেউ শিবিরের নৃশংস হামলার ক্ষতচিহ্ন নিয়ে জীবনযাপন করুক। আমরা সবাই-ই জানি, বিশ্ববিদ্যালয় উন্নত মুক্তবুদ্ধি চর্চার মুক্ত মাঠের মতো। আমাদেরও সাধারণ শিক্ষার্থী হিসেবে আপনার কাছে এই আকুল আবেদন।

তারা জানান, হিজবুত তাহারীর বা শিবিরের সন্ত্রাসী আক্রমণ থেকে কতটা নিরাপদ বুয়েটের মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তি! রাষ্ট্রযন্ত্র মেধাবীদের এই ক্যাম্পাসকে কতটা নজরদারিতে রেখেছে বা এর প্রতিরক্ষা নিশ্চিত করছে, আমরা জানি না। যেকোনো বড় ধরনের নাশকতার ঘটনার সম্ভাবনা উড়িয়ে দিলে হলি আর্টিজানের মতো কোনো ঘটনার পুনরাবৃত্তি হতে পারে বলে আশঙ্কা করছি, আমরা ক্যাম্পাসের প্রগতিশীল ছাত্র সমাজ। এ বিষয়ে বুয়েট ক্যাম্পাসে কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট ও রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তা বাহিনীর তৎপরতা কতটুকু, তাও আমরা জানি না। অতিসত্বর বুয়েট নিয়ে তাদের কার্যক্রম জোরদার করার দাবি জানাচ্ছি।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি সম্মান প্রদর্শন করে তারা বলেন, আপনার সিদ্ধান্তের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করে আমরা আমাদের আকুল আর্জি রাখলাম যে, নিরাপদ ও স্বাধীন মতামত প্রকাশের ক্যাম্পাস উপহার দিন। দেশ ও দশের প্রতি ভালোবাসা রেখে সবার কল্যাণকে মাথায় রেখে আমরা ক্যাম্পাসে স্বাভাবিক পরিস্থিতি চাই এবং জীবনের নিরাপত্তা চাই। আমরা বুয়েট ক্যাম্পাসে নিরাপদে এবং সৎ সাহসের সঙ্গে প্রগতিশীল রাজনীতির চর্চা করতে চাই।

   

চলমান পরীক্ষা স্থগিত করল বুয়েট প্রশাসন



ঢাবি করেসপন্ডেন্ট বার্তা২৪.কম
ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) ক্যাম্পাসে ছাত্ররাজনীতি ফেরানো ঠেকাতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের দাবিতে চলমান পরীক্ষা স্থগিত করেছে বুয়েট প্রশাসন।

শনিবার (২০ এপ্রিল) বিকেলে বুয়েট উপাচার্য অধ্যাপক ড. সত্যপ্রসাদ মজুমদারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত একাডেমিক কাউন্সিলে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

একাডেমিক কাউন্সিলের একাধিক সদস্য পরীক্ষা স্থগিতের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক সদস্য জানান, ‘বুয়েট ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগ সভাপতি সাদ্দাম হোসেনের প্রবেশকে কেন্দ্র করে শিক্ষার্থীরা ছয় দফা দাবিতে আন্দোলন করে। এরই মধ্যে তাদের বেশ কয়েকটি দাবি পূরণ হয়েছে, তদন্ত কমিটিও হয়েছে, কাজ চলছে। আন্দোলন শুরু হওয়ার আগে থেকে ঘোষিত বিভিন্ন ব্যাচের পরীক্ষা ছিল, পরীক্ষার তারিখ অনুযায়ী অনুষ্ঠিত হলেও শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহণ করেনি। তাই একাডেমিক কাউন্সিলের আলোচনার ভিত্তিতে সেগুলো স্থগিত করা হয়।’

বুয়েটে ছাত্ররাজনীতি ফেরানোর দাবিতে লাগাতার সংবাদ সম্মেলনে করে আসছেন বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী। তাদের মধ্যে একজন আশিক আলম। তিনি জানান, ‘শিক্ষার্থীরা এখন সচেতন হয়েছে, একটি পক্ষ শিক্ষার্থীদের ক্লাস-পরীক্ষা থেকে দূরে রাখতে চাচ্ছে। শিক্ষার্থীদের ক্ষতিগ্রস্ত করছে। আমাদের হুমকি দেওয়া হচ্ছে, আমরা আমাদের দাবি নিয়ে অটল রয়েছি। আশা করছি, আগামী ২৭ তারিখ থেকে শিক্ষার্থীরা ক্লাসে ফিরবে।’

প্রসঙ্গত, ২৮ মার্চ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি সাদ্দাম হোসেনসহ একদল নেতাকর্মী বুয়েটে বুয়েটে প্রবেশ করেন। এ ঘটনায় ছাত্রলীগের প্রবেশে সহায়তাকারীদের একাডেমিক ও হল বহিস্কার, ৩০ ও ৩১ মার্চ টার্ম ফাইনলাসহ সকল একাডেমিক কার্যক্রম বর্জন; ছাত্রকল্যাণ পরিদপ্তরের পদত্যাগসহ বেশ কিছু দাবিতে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে বুয়েটের শিক্ষার্থীরা। ঘটনাক্রমে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের জেরে ইতমধ্যে ছাত্রকল্যাণ পরিদপ্তর বদল করা হয়েছে।

;

আলপনা ও দেয়ালচিত্রকে টিকিয়ে রাখতে রাবি অধ্যাপকের গবেষণা



রাবি করেসপন্ডেন্ট বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য আলপনা ও দেয়ালচিত্র শিল্পকে টিকিয়ে রাখতে গবেষণা চালিয়েছেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) এক অধ্যাপক ও তার গবেষক দল। বিগত দুই বছর যাবৎ রাজশাহী বিভাগের ৮টি জেলায় ‘রাজশাহী বিভাগের ক্ষুদ্র-নৃগোষ্ঠীদের আলপনা ও দেয়ালচিত্র : বিষয় ও আঙ্গিক’ শীর্ষক এই গবেষণা কর্ম পরিচালনা করেন তারা।

সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের আর্থিক অনুদানে পরিচালিত এই গবেষণা প্রকল্পের প্রধান গবেষক ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের চিত্রকলা, প্রাচ্যকলা ও ছাপচিত্র বিভাগের অধ্যাপক ড. আবদুস সোবাহান। এছাড়া প্রকল্পে সহযোগী গবেষক ছিলেন আসাদুল্লা সরকার ও সহকারী গবেষক ছিলেন চিত্রকলা, প্রাচ্যকলা ও ছাপচিত্র বিভাগের শিক্ষার্থী লাবু হক।

এই গবেষক দলের গবেষণার তথ্য অনুযায়ী, বর্তমানে আলপনা ও দেয়ালচিত্র অংকনের শিল্পটি গুটি কয়েক নৃগোষ্ঠী পরিবার ধরে রাখলেও অংকনশৈলীতে এসেছে নানা পরিবর্তন। প্রাকৃতিক রং থেকে দূরে সরে তারা ব্যবহার করছেন বাজারের কেনা রং। অনেকে আধুনিকতার ছোঁয়ায় চিত্রপটে আর ফুটিয়ে তুলছেন না নিজেদের সংস্কৃতিকে। দ্রুত নগরায়নের ফলে দেশের এই সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ইতোমধ্যে বিলুপ্তির পথে।

জানা গেছে, রাজশাহী বিভাগের রাজশাহী জেলার গোদাগারী ও তানোরে, চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোলে, নওগাঁর নিয়ামতপুর ও সাপাহারে, সিরাজগঞ্জের তাড়াশ ও রায়গঞ্জে, জয়পুরহাটের পাঁচবিবিতে, বগুড়ার নন্দীগ্রাম ও শেরপুরে, পাবনার আতাইকুলায় এবং নাটোর সদর ও সিংড়া উপজেলাসহ আরও বেশকিছু উপজেলার ক্ষুদ্র-নৃগোষ্ঠী অধ্যুষিত এলাকায় এই গবেষক দল গবেষণা চালিয়েছেন। এসব এলাকায় বসবাসরত সাঁওতাল, ওঁরাও, শিং, রাজভোর, বেদীয়া, মুণ্ডা, তুরী, রবিদাস, মাহালী, মাহাতোসহ বিভিন্ন সম্প্রদায়ভুক্ত জনগোষ্ঠীদের প্রাচীনকাল হতে বিভিন্ন উৎসব, বিয়ে কিংবা পূজা পার্বণ উপলক্ষে আঁকা আলপনা ও দেয়ালচিত্র ছিলো গবেষণার বিষয়বস্তু।

গবেষণায় ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীদের পূর্বের আলপনা ও দেয়ালচিত্রের বিষয়বস্তু ও অংকনশৈলীর সঙ্গে বর্তমানের আলপনা ও দেয়ালচিত্রের বিষয়বস্তুতে বেশকিছু ভিন্নতা লক্ষ্য করার পাশাপাশি রঙেরও ভিন্নতা লক্ষ্য করেছেন গবেষক দল। কিছু এলাকায় এখনও খুব জোরালোভাবে বিভিন্ন উৎসবে আলপনা ও দেয়ালচিত্র অংকনের প্রচলন থাকলেও কোনো এলাকার ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীরা ভুলতে বসেছেন নিজেদের এই সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যকে। এর কারণ হিসেবে গবেষণায় উঠে এসেছে, বর্তমানে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীদের কর্মব্যস্ততা, জীবিকার তাগিদ, মাটির ঘর ভেঙ্গে ইটের ঘর নির্মাণ এবং আধুনিকতার ছোঁয়া।

জানতে চাইলে এই গবেষণা প্রকল্পের প্রধান গবেষক অধ্যাপক ড. আবদুস সোবাহান বলেন, ‘ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীদের আলপনা ও দেয়ালচিত্র নিয়ে দুই বছরের গবেষণায় আমি নৃগোষ্ঠীদের কয়েকটি প্রত্যন্ত অঞ্চলে ভ্রমণ করে তাদের আলপনা ও দেয়ালচিত্রগুলো দেখেছি এবং সেগুলো সম্পর্কে জেনেছি। এলাকাভেদে এগুলোর কর্ম পরিধি এবং কর্মকৌশলে অনেকটাই বৈচিত্র্য আছে। রাজশাহী অঞ্চলের নৃগোষ্ঠীরা মাটির দেয়ালে আতপ চালের গুঁড়োতে পানি মিশিয়ে আলপনা করে। সেখানে ফুল, লতা-পাতা এবং এক রঙের বৈচিত্র্যটা বেশি ছিলো, তবে দুয়েক জায়গায় অন্যান্য রং ছিলো। নওগাঁ ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ অঞ্চলেও ফুল, লতা-পাতা বেশি ছিলো। এছাড়া এসব এলাকার নৃগোষ্ঠিরা মাটি কেটে উঁচু অংশ রঙ করে আলপনার ফুলের কলিতে কাঁচের টুকরো বসিয়ে দেয়, যেটাতে আলাদা এক নান্দনিকতা প্রকাশ পায়।

তিনি বলেন, দেয়ালচিত্রের মধ্যে আমরা দেখেছি নৃগোষ্ঠিদের জীবনযাত্রা এবং সংস্কৃতির ঐতিহ্যের ধারাগুলোই তারা চিত্রের মাধ্যমে প্রকাশ করেছেন। বিশেষ করে তাদের বিভিন্ন উৎসব যেমন কারাম, সোহরাই, পৌষ সংক্রান্তি, নবান্ন, ভাই ফোঁটা দেয়ার দৃশ্য এবং এসব উৎসবে মাদল, বাঁশিসহ বিভিন্ন বাদ্যযন্ত্র সহকারের নৃত্য পরিবেশনের দৃশ্য আমরা তাদের চিত্রকর্মে দেখতে পেয়েছি। এছাড়া আমরা এসব স্বশিক্ষিত নৃগোষ্ঠী শিল্পীদের মাঝে নিজস্ব শৈলিতে শিশুসুলভ ড্রইংয়ের প্রয়োগ লক্ষ্য করেছি। তারা প্রাতিষ্ঠানিকভাবে শিক্ষিত নয় তবুও তাদের হাতের আলাদা এক মাধুর্য্যতা এসব চিত্রে ফুটে উঠে। যেটা আমাদের বাংলাদেশের নৃগোষ্ঠিদের সংস্কৃতির আলাদা এক ঐতিহ্য।

তবে জীবন-জীবিকার তাগিদে এই ঐতিহ্য অনেকটাই বিলুপ্তির পথে জানিয়ে এই গবেষক বলেন, আমরা মূলত নৃগোষ্ঠী শিল্পীদের উৎসাহ প্রদানেই এই গবেষণার বিষয়টি বেছে নিয়েছিলাম। এবং এই গবেষণার ফলে তারা অনেকটাই উৎসাহিত হয়েছেন। আশা করি, তারা নিজেদের অংকিত আলপনা ও দেয়ালচিত্রের মাধ্যমে তাদের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যকে সারাবিশ্বে ছড়িয়ে দিবে, যেটা প্রাতিষ্ঠানিকভাবে শিক্ষিত শিল্পীদের মাঝেও উদ্দীপনার সৃষ্টি করবে। বর্তমানে অনেক নৃগোষ্ঠী নানা প্রতিকূলতার মধ্যে জীবন-জীবিকার সন্ধানে কর্মব্যস্থ থাকায় তাদের এই ঐতিহ্য অনেকটাই বিলুপ্তির পথে। আমরা আশা করবো, দেশ ও জাতির মাঝে তাদের সংস্কৃতির এই ঐতিহ্যকে টিকিয়ে রাখতে সরকারি, বেসরকারি বিভিন্ন সংস্থা আর্থিক সাহায্য ও সহযোগিতার জন্য এগিয়ে আসবে।

;

তীব্র তাপদাহে ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধের দাবি জবি শিক্ষার্থীদের



জবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

তীব্র তাপদাহে হাঁসফাঁস অবস্থা সর্বসাধারণের। রাতে তীব্র তাপদাহ ও আপেক্ষিক আর্দ্রতা বৃদ্ধির কারণে ঘুম হয় না ঠিকমতো, এর প্রভাব পড়ে পুরো দিনের কর্মব্যস্ততার উপরে। ঝিমুনি ও প্রচন্ড মাথা ব্যাথায় দৈনন্দিন কাজে মনোযোগ দিতে পারছেন না কেউই। এমন অবস্থা দেশের সকল শ্রেণি-পেশার মানুষের।

দেশে চলমান তাপদাহের কারণে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও আবহাওয়া অধিদপ্তরের সাথে পরামর্শক্রমে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীন সকল স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আগামী ২৫ এপ্রিল ২০২৪ পর্যন্ত বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে ।

পুরান ঢাকার অত্যন্ত ঘনবসতি পূর্ণ এলাকায় অবস্থিত জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়। হল সুবিধা না থাকায় শিক্ষার্থীরা মেস ভাড়া করে থাকেন। আর্থিক দিক বিবেচনায় এক রুমে গাদাগাদি করে থাকেন অনেক শিক্ষার্থী। বদ্ধ পরিবেশে তীব্র গরমে পড়াশোনায় মনোযোগ দিতে পারছেন না শিক্ষার্থীরা। শিক্ষকরা সিলেবাস শেষ করে দিলেও নিজেদের পড়া গুছিয়ে নিতে পারছেন না তারা।

অন্যদিকে যে সকল শিক্ষার্থী অনেক দূর থেকে আসেন তারা গুমোট পরিস্থিতির কারণে রাতে ঠিকমতো ঘুমাতে পারেন না। আবার ভোর ৫টা বা ৬টায় উঠে বিশ্ববিদ্যালয়ে আসার জন্য বাস ধরতে হয়। এতে পর্যাপ্ত ঘুম না হওয়ায় শিক্ষার্থীরা তীব্র মাথা ব্যাথা ও ঠান্ডা-জ্বরে আক্রান্ত হচ্ছেন। তীব্র গরম ও বাতাসে জলীয়বাষ্পের পরিমাণ বৃদ্ধির কারণে হিটস্ট্রোক ও ডিহাইড্রেশনের ঝুঁকি বাড়ছে।

যদিও বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঠদান কক্ষে শীতাতপনিয়ন্ত্রিত ব্যবস্থা রয়েছে; তবে এর সুফল পাচ্ছেন না শিক্ষার্থীরা। রাতে ঘুম না হওয়া ও তীব্র মাথাব্যথার কারণে শ্রেণিকক্ষের শীতল পরিবেশে অধিকাংশ শিক্ষার্থীরা ঝিমোতে থাকেন, কেউ বা ঘুমিয়ে যাচ্ছেন। ফলে শিক্ষকদের গুরুত্বপূর্ণ লেকচার তারা শুনতে ও বুঝতে পারছেন না।

রসায়ন বিভাগের শিক্ষার্থী মারুফা হাকিম বলেন, আমাদের ক্লাস রুমে এসি থাকলেও ল্যাবগুলোতে ৪-৫ ঘন্টা দাড়িয়ে থাকতে হয়, যেখানে এসির ব্যবস্থা করা সম্ভব নয়। কিছু কাজ ফ্যান অফ করে করতে হয়। জায়গা সংকটে এক রুমেই প্রায় ৪০-৪৫ জন একসাথে ল্যাবে কাজ করতে হয়। প্রচন্ড গরমে সবাই অস্বস্তি বোধ করে। এত গরমের মধ্যে পড়াশোনা ঠিকমতো হয়ে উঠে না। ক্লাস-ল্যাব করে দূরে যাতায়াত করতে করতেই অনেকে অসুস্থ হয়ে যায়। কিন্তু শিক্ষকরা এই তীব্র তাপদাহে শিক্ষার্থীদের সার্বিক অবস্থা বিবেচনায় না নিয়ে দিব্যি ক্লাস, ল্যাব ও পরীক্ষা নিয়ে সিলেবাস শেষ করছে। শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা রাখার দায়িত্ব বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের। কিন্তু শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য ও পারিপার্শ্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় না নিয়ে একাডেমিক প্ল্যান করা হয় যা একটি অসুস্থ মানসিকতার পরিচয় দেয়।

শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থী সানজিদা মাহমুদ মিষ্টি বলেন, গ্রীষ্মের তীব্র তাপদাহে সাধারণ জনজীবন স্থবির হয়ে পড়েছে। শিক্ষার্থী থেকে শুরু করে সকল মহলের জীবনযাপনে নাজেহাল রকমের অসুস্থতা ও দুর্বলতা পরিলক্ষিত। এমতাবস্থায় ক্যাম্পাস অন্তত কয়েকটা দিন বন্ধ দেওয়া যায় তাহলে সময়োপযোগী ও শিক্ষার্থীবান্ধব সিদ্ধান্ত হবে বলে মনে করি।

ফার্মেসী বিভাগের অপর এক শিক্ষার্থী ইসনাইন জান্নাত ইশা বলেন, বর্তমানে তীব্র তাপদাহে অল্প পরিশ্রমেই দুর্বল হয়ে পড়ছি, পড়াশোনাতে মনোযোগ দিতে পারছি না। কিন্তু তাই বলে তো কোনো কাজ থেমে নেই। এই অসহনীয় গরমের মধ্যেও আমাদের প্রতিনিয়ত ক্লাসের জন্য ক্যাম্পাস আসতে হচ্ছে। এখানে সুপেয় পানিরও তেমন সুব্যবস্থা না থাকায় আমাদের অনেক বন্ধুবান্ধব, সিনিয়র জুনিয়র অসুস্থ হয়ে পড়ছেন। তাই এই অসহনীয় গরম না কমা পর্যন্ত কিছুদিন ক্লাস-পরিক্ষা বন্ধ থাকলে সকলের জন্য ভালো হয়।

এ বিষয়ে ছাত্রকল্যাণ পরিচালক ড. জি. এম. আল-আমীন বলেন, তীব্র তাপদাহে আমরা সকলেই অস্বস্তির মধ্যে আছি। তীব্র গরমে ক্লাস করা, বাসে যাতায়াত করা সকলের জন্যেই কষ্টকর। শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিতের জন্য সরকার স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের চলমান ছুটি বৃদ্ধি করেছে। যদি বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে আলাদাভাবে ছুটির কোনো ঘোষণা না দেয় তবে আমরা উপাচার্যের সাথে আলোচনা সাপেক্ষে আমাদের শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিতের জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া হবে।

তীব্র গরমে ফ্যান ছাড়া দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে ল্যাবে কাজ করার বিষয়ে তিনি বলেন, আমি বিজ্ঞানের শিক্ষক। আমি জানি শিক্ষার্থীদের দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকতে হয় ল্যাবে। অনেক সময় ফ্যান বন্ধ রাখতে হয়। উপাচার্যকে সকল বিষয়েই অবগত করা হবে যেন শিক্ষার্থীরা সুস্থভাবে ক্লাস-পরিক্ষায় বসতে পারে।

;

বর্ণাঢ্য আয়োজনে নতুন বছরকে বরণ করল জবি



জবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে (জবি) দিনব্যাপী বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে বাংলা নববর্ষকে বরণ করা হয়েছে।

১৪ এপ্রিল বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকায় বৃহস্পতিবার (১৮ এপ্রিল) আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলা নববর্ষ (১৪৩১) উপলক্ষে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে নানা আয়োজন করা হয়।

বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৯টায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের আয়োজনে মঙ্গল শোভাযাত্রার মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. সাদেকা হালিমের নেতৃত্বে মঙ্গল শোভাযাত্রাটি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস থেকে রায় সাহেব বাজার ও ভিক্টোরিয়া পার্ক প্রদক্ষিণ করে বিশ্ববিদ্যালয়ে এসে শেষ হয়।

এবারের নববর্ষে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে মঙ্গল শোভাযাত্রায় ইউনেস্কোর অপরিমেয় সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য হিসেবে স্বীকৃতি পাওয়া রিকশাচিত্রকে মূল প্রতিপাদ্য করে এবং ‘বৈশাখে নূতন করিনু সৃজন, মঙ্গলময় যত তনু-মন’ স্লোগানকে সামনে রেখে বাংলা নববর্ষ উদযাপন করা হয়েছে।

শোভাযাত্রায় রিকশাচিত্রের পাশাপাশি সংকটাপন্ন প্রাণী প্রজাতির মধ্যে কুমিরের মোটিফ তুলে ধরা হয়। এছাড়াও লক্ষ্মীপেঁচা, ফুল, মৌমাছি, পাতা, বাঘ এর মুখোশ এবং গ্রামবাংলার লোক কারুকলার নিদর্শনসমূহ স্থান পায়।

মঙ্গল শোভাযাত্রা শেষে একাত্তরের গণহত্যা ও মুক্তিযুদ্ধের প্রস্তুতি ভাস্কর্য চত্বরে আলোচনা সভা হয় ৷ সংগীত বিভাগ ও নাট্যকলা বিভাগের আয়োজনে সংগীতানুষ্ঠান ও যাত্রাপালার আয়োজন করা হয় ৷

ভাষা শহীদ রফিক ভবনের নিচতলায় জনসংযোগ, তথ্য ও প্রকাশনা দপ্তরের আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয় দিনব্যাপী প্রকাশনা প্রদর্শনী।

এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল বিভাগ ও ইন্সটিটিউটের শিক্ষক, শিক্ষার্থী, বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিক সমিতি, প্রেসক্লাব, রিপোটার্স ইউনিটিসহ সকল সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলো স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশগ্রহণ করে।

;