দূষণরোধ করে পরিবেশকে স্থিতিশীল করে ‘বায়োচার’



শেকৃবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশে জনসংখ্যা বৃদ্ধির সঙ্গে বাড়ছে বর্জ্যের পরিমাণ। দৃশ্যমান হচ্ছে বর্জ্যের অব্যবস্থাপনা। বাংলাদেশসহ বিশ্বের এই বর্জ্য ব্যবস্থাপনাকে আধুনিকভাবে ঢেলে সাজানো গেলে পরিবেশ দূষণ ও বৈশ্বিক তাপমাত্রা বৃদ্ধিজনিত সংকট অনেকটা দূর হবে বলে মনে করেন গবেষকরা। সেক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে ‘বায়োচার’। ‘বায়োচার’ হলো বিশেষ ধরনের কয়লা যার মধ্যে ৩৫ থেকে ৫৫ শতাংশ কার্বন থাকে।

বর্জ্য অব্যবস্থাপনার সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত পরিবেশ দূষণ ও বৈশ্বিক তাপমাত্রা বৃদ্ধি। সম্প্রতি হাইইনডেক্স জার্নালে বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় ‘বায়োচার এবং টেকসই কৃষি ক্ষেত্রের ব্যবহার’ বিষয়ক রিভিউ আর্টিকেল প্রকাশ করেছেন শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শেকৃবি) স্নাতকোত্তর অধ্যয়নরত মেহেদী আমীন। তার গবেষক দলে যুক্ত ছিলেন সুইডেন, অস্ট্রেলিয়া, ডেনমার্ক, সিঙ্গাপুর ও চীনের গবেষকরা।

মেহেদী আমীন বায়োচার সম্পর্কে বলেন, জৈব বর্জ্য বা সবুজ জাতীয় বর্জ্যকে স্বল্প অক্সিজেনযুক্ত নিয়ন্ত্রিত পরিবেশে নির্দিষ্ট উচ্চ তাপমাত্রা প্রদান করলে চারকোল অনুরূপ উচ্চ সরল কার্বন বিশিষ্ট বস্তু পাওয়া যায় যা ‘বায়োচার’ নামে পরিচিত। জৈব বর্জ্য পদার্থ অর্থাৎ আমাদের চারপাশে যত্রতত্র পড়ে থাকা সবজির খোসা অথবা শস্য জাতীয় গাছের অবশিষ্টাংশ থেকে গ্রিন হাউস গ্যাস নিঃসৃত হয়। যার ফলে প্রতিনিয়ত ওজোন স্তর ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে এবং বৈশ্বিক তাপমাত্রা বৃদ্ধি পাচ্ছে। যদি এই আবর্জনাগুলোকে আমরা বায়োচারে রূপান্তর করতে পারি তাহলে বর্জ্য থেকে একটি সম্পদে পরিণত হবে এবং আমাদের পরিবেশও দূষণের হাত থেকে রক্ষা পাবে।

তিনি আরও বলেন, বিভিন্ন কারণে মাটি থেকে নাইট্রোজেন ক্ষতিগ্রস্ত হয় যা আমাদের দেশে কৃষি সেক্টরের অন্যতম বড় সমস্যা। নাইট্রোজেন লসের ফলে মাটি নাইট্রোজেন ধরে রাখতে পারে না। যার কারণে ফসলের উৎপাদন ধরে রাখতে প্রচুর পরিমাণ ইউরিয়া সার প্রয়োগ করতে হয়। অন্যদিকে, অতিরিক্ত ইউরিয়া ব্যবহারে মাটি ও পানির পরিবেশ দূষিত হচ্ছে। আমরা যদি মাটিতে ‘বায়োচার’ যুক্ত করি তাহলে নাইট্রোজেনের উদ্বায়ীকরণ প্রক্রিয়া কমে যায় এবং অনেকাংশে লস রোধ করা যায়। মাটিতে যে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র মাইক্রো পোর (ছিদ্র) আছে এগুলো দিয়ে পানি, নাইট্রোজেনসহ অন্যান্য খনিজ পদার্থ নিঃসরিত হয়। বায়োচারের ছিদ্র মাটির ছিদ্রের চেয়ে ছোট হওয়ায় এগুলোর নিঃসরণ কমিয়ে দেয়। ফলে বায়োচার ব্যবহারে মাটি বিভিন্ন ধরনের খনিজ পদার্থ ও পানি গাছের ব্যবহার উপযোগী রূপে আটকে রাখতে পারে।

একইভাবে বায়োচার নাইট্রোজেনসহ অন্যান্য প্রকার সারের নিঃসরণ কমিয়ে গাছের সার গ্রহণের দক্ষতা বৃদ্ধি করে। বায়োচার মাটিতে থাকা হেভি মেটাল ও অন্যান্য দূষিত পদার্থকে বিভিন্ন ধরনের রাসায়নিক বন্ধনের মাধ্যমে আটকে রাখে। যার ফলে এই পদার্থগুলো উদ্ভিদের অভ্যন্তরে প্রবেশে বাধাপ্রাপ্ত হয়। এছাড়াও লবণাক্ততা ও খরায় গাছের ফলন বৃদ্ধিতে বায়োচার উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করে। বায়োচার উদ্ভিদের জন্য অত্যাবশ্যকীয় খনিজ পদার্থ ও পানি ধরে রাখতে পারে যা টেকসই ফসল উৎপাদন করে কৃষিতে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করে। সর্বোপরি বায়োচারের মাধ্যমে বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় গ্রিন হাউস গ্যাস কমায়, বৈষ্ণিক উষ্ণায়ন কমায় এবং চক্রীয় জৈব চাষাবাদ ও অর্থনীতিকে প্রণোদিত করে।

আর্টিকেলটির সম্পর্কে মেহেদী বলেন, আমরা আর্টিকেলটিতে দেখানোর চেষ্টা করেছি কীভাবে জৈব বর্জ্য থেকে বায়োচার প্রস্তুত করা হয়, এসব বায়োচারের কি কি ধরনের বৈশিষ্ট্য ও উপাদান রয়েছে। এছাড়াও পাইরোলাইসিস তাপমাত্রার পরিবর্তনে বায়োচারের গুণাগুণের কি কি পরিবর্তন হয় এবং টেকসই সার হিসেবে গাছের বৃদ্ধি ও উৎপাদনে কি ধরনের প্রভাব ফেলে তার বৈজ্ঞানিক সত্যতা তুলে ধরেছি।

শেকৃবিতে ‘বায়োচার’ নিয়ে বেশ কয়েকটি গবেষণা আন্তর্জাতিক জার্নালগুলোতে প্রকাশিত হয়েছে। মেহেদী ও তার গবেষকদল মনে করে আবহাওয়া ও জলবায়ু পরিবর্তনের কথা মাথায় রেখে বাংলাদেশে ‘বায়োচার’ নিয়ে বিভিন্ন আঙ্গিকে গবেষণা হওয়া দরকার।

   

ইবির শারীরিক শিক্ষার পরীক্ষা মঙ্গলবার, আসনপ্রতি লড়বে ২৩



ইবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

গুচ্ছভুক্ত ২৪টি বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২৩-২৪ শিক্ষাবর্ষে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীদের জন্য ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) শারীরিক শিক্ষা ও ক্রীড়া বিজ্ঞান বিভাগের ব্যবহারিক পরীক্ষা আগামী ২৫ ও ২৬ জুন অনুষ্ঠিত হবে। এতে ৩০টি আসনের বিপরীতে আবেদন করেছে ৬৮৫ জন ভর্তিচ্ছু, ফলে আসনপ্রতি লড়াই করবেন ২৩ জন শিক্ষার্থী। বিভাগটির সভাপতি অধ্যাপক ড. দেবাশীষ শর্মা এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

ড. দেবাশীষ শর্মা স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, আগামী ২৫ জুন এবং ২৬ জুন সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদভূক্ত এই বিভাগটির পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। উভয় দিনই সকাল ৯টা থেকে পরীক্ষা শুরু হবে। এই পরীক্ষায় তিনটি ইভেন্ট থাকবে। সেগুলো হলো- ৬০ মিটার স্প্রিন্ট, ২০০ মিটার স্প্রিন্ট এবং ফ্লেক্সিবিলিটি টেস্ট।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়েছে, ব্যবহারিক পরীক্ষায় পরীক্ষার্থীদের স্পোর্টস ড্রেস পরিধান করে অংশগ্রহণ করতে হবে। সকল পরীক্ষার্থীকে গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষার প্রবেশপত্র সঙ্গে আনতে হবে। সকল পরীক্ষার্থীকে মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার মার্কশীটের সত্যায়িত অনুলিপি সঙ্গে আনতে হবে।

এবিষয়ে রেজিস্ট্রার দপ্তরের বিজ্ঞপ্তি সূত্রে জানা গেছে, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের শারীরিক শিক্ষা ও ক্রীড়া বিজ্ঞান বিভাগে ব্যবহারিকে অংশ নিতে উচ্চ মাধ্যমিক বা সমমান পরীক্ষায় ইংরেজি বিষয়ে ন্যূনতম গ্রেডপয়েন্ট ৩.০০ পেতে হবে।

এছাড়াও বিকেএসপি শিক্ষার্থী তথা খেলোয়াড়দের জন্য বিভাগের আসন সংখ্যা ২০% অতিরিক্ত হিসেবে সংরক্ষিত থাকবে। এই বিভাগে মোট ৩০টি আসনের মধ্যে বিজ্ঞান বিভাগের ‘এ’ ইউনিটের জন্য ৯টি, মানবিকের ‘বি’ ইউনিটের জন্য ১৫টি এবং বাণিজ্য বিভাগ ‘সি’ ইউনিটের জন্য ৬টি আসন বরাদ্দ রয়েছে বলে জানা যায়।

;

লাঞ্চের দাওয়াত দিয়ে আয়োজন করেনি জবি প্রশাসন



জবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে (জবি) অধ্যয়নরত যে সকল শিক্ষার্থী ঈদে ঢাকায় অবস্থান করবে, তাদেরকে পাঁচটি খাসি দিয়ে পোলাও, কোর্মার আপ্যায়ন করার ঘোষণা দিয়েও কোনো আয়োজন করেনি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। এমনকি প্রশাসন যে আপ্যায়নের আয়োজন করছেন না সেটাও জানানো হয়নি। যার কারণে ঈদের দিন অনেক শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয়ে এসেও আপ্যায়ন না পেয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। পরে প্রশাসনের দাওয়াতে আশা অধিকাংশ শিক্ষার্থীই বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ আয়োজিত আপ্যায়নে অংশ নেন।

শিক্ষার্থীরা বলেছেন, প্রশাসনের দাওয়াতে আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ের এসেছি। তারা আমাদের জন্য ৫টি খাসি কুরবানি দিয়ে আপ্যায়ন করবে বলে ডেকে এনে কিছুই আয়োজন করেনি। এখন প্রশাসনের দাওয়াতে আমরা যারা এসেছি তাদের অধিকাংশ ই এখানে কিছু না পেয়ে ছাত্রলীগের আয়োজনে গিয়েছি। দুই দাওয়াতের মানুষ একই জায়গায় তাদের উপরেও চাপ পড়েছে।

তবে ঈদের দিন প্রশাসন আপ্যায়নের আয়োজন না করলেও বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে ছয়টি খাসি কুরবানি দেন। এ উপলক্ষে বিগত তিনদিন তারা সকল প্রকার কেনাকাটা সম্পন্ন করেন। খাসির পাশাপাশি ডিম, পোলাও, কোর্মাসহ কোমল পানীয় পরিবেশন করেন তারা। এ সময় শিক্ষার্থীরা ছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়ে অবস্থান করা সকলকেই ছাত্রলীগের আয়োজনে যোগ দিতে দেখা গিয়েছে।

এর আগে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ গত বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) জানিয়েছেন, সব মিলিয়ে ঈদের দিন দুপুরে ৩০০-৩৫০ জনের জন্য খাবারের আয়োজন করবেন। তবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আলাদা আপ্যায়নের আয়োজন না করায় এসব শিক্ষার্থীরা ছাত্রলীগের আপ্যায়নে যোগ দেন। তাদের এত শিক্ষার্থীদের মাঝে খাবার বণ্টন করতে হিমশিম খেতে হয়েছে বলে জানা গেছে।

নারিন্দার মেসে অবস্থান করা ৩য় বর্ষের শিক্ষার্থী সামিউল ইসলাম বলেন, ঈদের পর পরীক্ষা থাকার কারণে এবার বাড়ি যাইনি। ঈদের দিন রান্না করাও কষ্টদায়ক। শুনলাম প্রশাসনের পক্ষ থেকে শিক্ষার্থীদের জন্য খাবারের আয়োজন করা হয়েছে। সেজন্য ক্যাম্পাসে আসা। ক্যাম্পাসে আসার পর দেখি প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোনো আয়োজন নেই। পরে কলা ভবনের দিকে গিয়ে দেখি ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে খাবার বিতরণ করা হচ্ছে। সেখানে যাওয়ার পর সভাপতি আমাকে আপ্যায়ন করালো। তাদের আয়োজন ভালো লেগেছে। ছাত্রলীগের এমন উদ্যোগ শিক্ষার্থীদের জন্য সত্যি প্রশংসনীয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪র্থ বর্ষের শিক্ষার্থী রাকিব মোল্লা বলেন, বিশেষ কারণে এবার ঢাকায় ঈদ করা হচ্ছিল। ঈদে মেসের খালা বাসায় চলে গিয়েছে। রান্না করারও কেউ নেই। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের ঘোষণা শুনে খাসি খেতে এসে দেখি খাসি তো দূরের কথা সাদা-ভাতেরও আয়োজন করা হয়নি। ঈদের দিন তাই আশেপাশে দোকানও খোলা নেই যে কিছু খাবো। দাওয়াত খেতে এসে আমার জীবনেও এইভাবে অপমানিত হইনি।

এ বিষয়ে ছাত্রলীগের সভাপতি ইব্রাহিম ফরাজি বলেন, আমরা প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে ৬টি খাসি দিয়ে আপ্যায়নের আয়োজন করি। যারাই এসেছে আমরা সবাইকে আপ্যায়ন করিয়েছি। কে কোন দাওয়াতে এসেছে এটা মূখ্য বিষয় না। যেই এসেছে আমরা আমাদের পক্ষে সর্বোচ্চ সেবা দিয়ে আপ্যায়ন করেছি।

সাধারণ সম্পাদক এস এম আকতার হোসেন বলেন, শিক্ষার্থীরা যারাই আমাদের আয়োজনে এসেছে সবাই অনেক খুশি হয়েছে। অনেকেরই বাসায় রান্না করার কেউ নেই। সেই শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আনন্দ ভাগ করতে পেরে আমরাও খুশি। আগামীতেও এইরকম আয়োজন অব্যাহত থাকবে বলে আশা করি।

এদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরের কাছে জানতে চাইলে তিনি ছাত্রলীগের ব্যানারে আয়োজিত আপ্যায়ন কর্মসূচিকে নিজেদের বলে দাবি করেন।

;

রিকুইজিশনের নিয়ম মেনেই শিক্ষার্থীদের গাড়ি দেওয়া হয়েছে: বশেফমুবিপ্রবি প্রশাসন



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট বার্তা২৪.কম, জামালপুর
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

জামালপুরে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেফমুবিপ্রবি) মাইক্রোবাস নিয়ে ছাত্রলীগের নেতারা ঢাকায় ঘুরতে যাওয়ার ছবি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে (ফেসবুক) সমালোচনার ঝড় বইছে। তবে ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য কামরুল আলম খান বার্তা২৪.কম-কে বলেছেন, গাড়িটি যথাযথ নিয়ম মেনেই শিক্ষার্থীদের দেওয়া হয়েছিলো।

জানা গেছে, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেফমুবিপ্রবি) কয়েকজন শিক্ষার্থী বিদ্যালয়ের মাইক্রোবাসটি (ঢাকা মেট্রো চ- ৫৬-৩৮৭৩) রিকুইজিশনে নিয়ে গত কয়েকদিন আগে ঢাকায় কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের একটা প্রোগ্রামে যান।

কিন্তু গত বুধবার ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের গাড়ি নিয়ে ঢাকায় ৬ ছাত্রলীগ নেতা’ শিরোনামে একাধিক গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ হয়। এতে বলা হয়, কর্মচারীদের জন্য ব্যবহৃত মাইক্রোবাস নিয়ে ঢাকায় কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে দেখা করতে গেলেন বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের ছয় নেতা। তারা হলেন, বিশ্ববিদ্যালয় শাখার আহ্বায়ক কাউসার আহাম্মেদ স্বাধীন, যুগ্ম আহ্বায়ক তাইফুল ইসলাম পলাশ, মোকাররম হোসাইন, নাজমুল ইসলাম, এন সাকলাইন ও সদস্য ইখতিয়ার উদ্দিন ইমন।

তবে বিষয়ে ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য কামরুল আলম খান শুক্রবার (১৪ জুন) বিকালে বার্তা২৪.কম-কে বলেন, গত বুধবার বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের আবেদনের প্রেক্ষিতে রিকুইজিশনের শর্তমতে গাড়িটি তাদের দেওয়া হয়। শর্তানুযায়ী তারা গাড়ির যাবতীয় খরচ পরিশোধ করেছেন। বিষয়টা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন নীতিমালায় উল্লেখ করা আছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের যে কোনো শিক্ষার্থী চাইলে জরুরি প্রয়োজনে গাড়ি নিতে পারবে।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক কাউসার আহাম্মেদ স্বাধীন বার্তা২৪.কম-কে বলেন, আমাদের একটা প্রোগ্রাম ছিলো। ঈদের এই সময়ে ঢাকা গিয়ে ফিরে আসতে গাড়ি পাওয়া যায় না, অনেক ঝামেলা পোহাতে হয়। তাই আমরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বরাবার রিকুইজিশনে গাড়ি চেয়ে আবেদর করেছিলাম। সেই আবেদনের প্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন অনুমতি দেয়। সাধারণ শিক্ষার্থী ‍হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়ের যে কেউ এ আবেদন করতে পারে। অথচ বিষয়টিকে ভুলভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে।

শাখা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক তাইফুল ইসলাম পলাশ বলেন, উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে আমাদের বিরুদ্ধে বিভ্রান্তি ছড়ানো হচ্ছে। যে সাংবাদিকরা নিউজ করেছেন তারা কেউই আমাদের কোনো বক্তব্যই নেয় নাই। যা হয়েছে নিয়ম মেনেই হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় পরিবহন নীতিমালার কোনো ব্যত্যয় আমরা ঘটাইনি। সাধারণ শিক্ষার্থী হিসেবে যে কেউ চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুমতি স্বাপেক্ষে এ সুবিধা নিতে পারবে। এতে ভাড়াসহ যাবতীয় খরচ শিক্ষার্থীকে বহন করতে হয়।

;

শামুক নিয়ে গবেষণায় রাবি গবেষক দলের সাফল্য



রাবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

শামুক নিয়ে গবেষণায় যুগান্তকারী সাফল্য পেয়েছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) প্রাণরসায়ন ও অনুপ্রাণ বিজ্ঞান বিভাগের মলাস্কান রিসার্চ ল্যাবরেটরীর একদল গবেষক। এই গবেষণায় প্রথমবারের মতো দেশে গেছো শামুকের এমফিড্রোমাস প্রজাতির উপর কাজ করে পাঁচটি প্রজাতি শনাক্ত করেছে গবেষক দলটি। যার মধ্যে দুটি নতুন এবং অপ্রকাশিত প্রজাতি। গবেষক দলটির অভিমত, দেশের জীববৈচিত্র্য রক্ষায় এই গবেষণাটি ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ রাখবে।

রাবির প্রাণরসায়ন ও অনুপ্রাণ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. শাহরিয়ার শোভনের নেতৃত্বে পরিচালিত এ গবেষণার ফলাফল সম্প্রতি আন্তর্জাতিক জার্নাল সিস্টেমেটিক্স অ্যান্ড বায়োডাইভারসিটিতে প্রকাশিত হয়েছে।

যৌথ এই গবেষণা প্রকল্পে ড. শাহরিয়ার শোভনের সহযোগী ছিলেন- চেক রিপাবলিকের মাসারিক বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক ড. তাকুমি সাইতো, জাপানের রিউকাস বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও গবেষক তাকাহিরো হিরানো, খাগড়াছড়ির মহালছড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের রূপময় তঞ্চঙ্গা, রাবির প্রাণরসায়ন ও অনুপ্রাণ বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী মো. রহিম বাদশা এবং জাপানের তহুকো বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও গবেষক ইয়াসুতো ইশি।

গবেষক দলের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ২০১৮ সাল থেকে চলমান এ গবেষণায় বাংলাদেশের ১৩টি স্থান থেকে ৪৫টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। এতে প্রথমবারের মতো বাংলাদেশে গেছো শামুকের প্রজাতি এমফিড্রোমাস-এর উপর কাজ করা হয়েছে, যার মধ্যে পাঁচটি প্রজাতি শনাক্ত করা হয়েছে। এদের মধ্যে দুটি নতুন এবং অপ্রকাশিত প্রজাতি। সংগৃহীত নমুনাগুলো মাইটোকন্ড্রিয়াল ১৬এস রাইবোসোমাল আরএনএ, সাইটোক্রোম সি অক্সিডেজ সাবইউনিট ওয়ান এবং নিউক্লিয়ার ইন্টারনাল ট্রান্সক্রাইবড স্পেসার ১-এর মলিকুলার ফাইলোজেনেটিক বিশ্লেষণ এবং হ্যাপ্লোটাইপ নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে তথ্য বিশ্লেষণ করা হয়। এছাড়া, এলিপটিক্যাল ফুরিয়ার এনালাইসিসের মাধ্যমে শামুকের খোলসের আকার ও ব্যান্ড প্যাটার্ন মূল্যায়ন করা হয়।

গবেষক দল জানিয়েছে, আবিষ্কৃত প্রজাতিগুলোর মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো এমফিড্রোমাস গ্লোবোনেভিলি, যা বাংলাদেশের মধ্য ও পূর্বাঞ্চলের বিস্তৃত এলাকায় পাওয়া গেছে, এটি মাইটোকন্ড্রিয়াল ডিএনএ বৈচিত্র্য প্রদর্শন করে। এছাড়া, এসবে এমফিড্রোমাস সাইনেনসিস ভিকারিয়া এবং এমফিড্রোমাস সিলহেটিকাস-এর উপস্থিতি নিশ্চিত হওয়া গেছে। এর মধ্যে এমফিড্রোমাস সিলহেটিকাস বাংলাদেশে নতুনভাবে আবিষ্কৃত হয়েছে, যা দেশের পূর্বাঞ্চলে পাওয়া যায়।

জানতে চাইলে এই গবেষণায় প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে যৌথভাবে ড. শাহরিয়ার শোভন এবং ড. তাকুমি সাইতো বলেন, এই গবেষণাটি বাংলাদেশের জীববৈচিত্র্য রক্ষা ও মূল্যায়নের জরুরি প্রয়োজনীয়তাকে তুলে ধরবে। এই গবেষণার ফলাফল ভবিষ্যতের গবেষণা ও পরিবেশের বিলুপ্তপ্রায় প্রজাতি সংরক্ষণ কৌশলের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ ভিত্তি প্রদান করবে। এই সাফল্যের ফলে দেশে গেছো শামুকের প্রজাতি নিয়ে গবেষণায় নতুন দিগন্তের সূচনার পাশাপাশি ভবিষ্যতে এই গবেষণাটি আরও গুরুত্বপূর্ণ আবিষ্কারের আশা জাগাচ্ছে বলে জানান এই দুই গবেষক।

;