দরপতনের প্রতিবাদে রাস্তায় বিনিয়োগকারীরা

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
দরপতনের প্রতিবাদে রাস্তায় বিনিয়োগকারীরা

দরপতনের প্রতিবাদে রাস্তায় বিনিয়োগকারীরা

  • Font increase
  • Font Decrease

পুঁজিবাজারে অব্যাহত দরপতনের প্রতিবাদে আবারও মতিঝিলের রাস্তায় নেমেছে বিনিয়োগকারীরা।

মামলা-হামলার ভয় কাটিয়ে মঙ্গলবার (১৪ জানুয়ারি) ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) মতিঝিলের কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন করেন বিনিয়োগকারীরা।

মঙ্গলবারও দরপতনের মধ্যদিয়ে দিনের লেনদেন শুরু হয়। দুপুর ২টার দিনে ডিএসইর প্রধান সূচক কমে ১১০ পয়েন্ট। যা অতীতের সব রেকর্ড ফেল করে।ঠিক তখনি বিনিয়োগকারীদের সংগঠন ‘বাংলাদেশ পুঁজিবাজার বিনিয়োগকারী ঐক্য পরিষদ’র ব্যানারে এ বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচি থেকে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) চেয়ারম্যানের পদত্যাগসহ কমিশন পুনর্গঠনের দাবি জানানো হয়।

বাংলাদেশ পুঁজিবাজার বিনিয়োগকারী ঐক্য পরিষদের সভাপতি মিজান উর রশিদ চৌধুরী বলেন, বিএসইসির এই চেয়ারম্যানকে দায়িত্বে রেখে পুঁজিবাজার ভালো করা যাবে না। আমরা বিএসইসির চেয়ারম্যানের পদত্যাগ চাই। সেই সঙ্গে পুরো কমিশন পুনর্গঠন করতে হবে।

এর আগে সর্বশেষ সেপ্টেম্বর মাসে বিক্ষোভ করেছিলো বিনিয়োগকারীরা। তাদের বিক্ষোভ ও মানববন্ধন কর্মসূচি বন্ধ করতে গত বছরের ২৭ আগস্ট ডিএসইর পক্ষ থেকে মতিঝিল থানায় সাধারণ ডায়েরি করা হয়।

ডিএসইর পক্ষ থেকে এই সাধারণ ডায়েরি করা হলে বন্ধ হয়ে যায় বিনিয়োগকারী ঐক্য পরিষদের বিক্ষোভ। তবে পুঁজিবাজারে চলতে থাকে দরপতন।দরপতনের ধারা সম্প্রতি আরও ভয়াবহ আকার ধারণ করে।

বাজার পরিস্থিতি

সোমবারের মত মঙ্গলবারও (১৪ জানুয়ারি) দেশের পুঁজিবাজারে বড় দরপতন হয়েছে। এদিন দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সূচক কমেছে ৮৭ পয়েন্ট। অপর বাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) প্রধান সূচক কমেছে ২৩৮ পয়েন্ট।

সূচকের পাশাপাশি কমেছে প্রায় সব কোম্পানির শেয়ারের দাম ও লেনদেন। আর তাতে ডিএসইর বিনিয়োগাকরীদের পুঁজি নেই অর্থাৎ মূলধন কমেছে ৫ হাজার ৬৭৮ কোটি ৬৩ লাখ ৪ হাজার টাকা। এর আগের দিনও কমেছিলো ৬ হাজার ১৮৪ কোটি ১৬ লাখ ৩৪ হাজার টাকা।

সব মিলে চলতি সপ্তাহের শেষ দুদিনে মূলধন কমলো সাড়ে ১১ হাজার কোটি টাকার বেশি। এর আগে টানা পাঁচদিন দরপতনের পর সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবসে সূচক ও শেয়ারের দাম কিছুটা বেড়েছিলো। ধীরে ধীরে ২০১০ সালের চেয়ে ভয়াবহ ধসে পরিণত হয়েছে বাজার।

বাজার সংশ্লিষ্টরা বলছেন, একটি চক্র পরিকল্পিতভাবে পুঁজিবাজারে দরপতন ঘটাচ্ছে। বিনিয়োগকারীদের সর্বশান্ত করেছে। আর বিনিয়োগকারীরাও আতঙ্কে দিন পার করছে।

ডিএসইর তথ্য মতে, আগের দিনের মতোই মঙ্গলবারও সূচকের নিম্নমুখী প্রবণতায় দিনের লেনদেন শুরু হয়। সূচকের এই নিম্নমুখী প্রবণতা অব্যাহত দুপুর ২টা পর্যন্ত। এরপর শেষ পনের মিনিট সূচকে ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতায় লেনদেন হয়। এদিনও গ্রামীণফোন, ইসলামী ব্যাংক, রেনেটা এবং স্কয়ারসহ বড় কোম্পানির দাম কমায় বড় দরপতন হয়েছে।

ফলে দিন শেষে ডিএসইর প্রধান সূচক আগের দিনের ৮৭ দশমিক ২৪ পয়েন্ট কমে ৪ হাজার ৩৬ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে।

অন্য দুই সূচকের মধ্যে ডিএস-৩০ সূচক আগের দিনের চেয়ে ২৬ পয়েন্ট কমে ১ হাজার ৩৬১ পয়েন্টে এবং ডিএসইএস সূচক ২২ পয়েন্ট কমে ৯০৭ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে।

লেনদেন হওয়া কোম্পানির মধ্যে দাম বেড়েছে ৩২টির, কমেছে ২৯৩টির আর অপরিবর্তিত রয়েছে ৩০টির। এদিন ডিএসইতে মোট ২৮৬ কোটি ৭৭ লাখ ৬ হাজার টাকার লেনদেন হয়েছে। এর আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ২৮৬ কোটি ৭৭ লাখ ৬ হাজার টাকার লেনদেন হয়েছে।

অপর পুঁজিবাজার সিএসইর প্রধান সূচক আগের দিনের চেয়ে ২৭০ পয়েন্ট কমে ১২ হাজার ৩০০ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। লেনদেন হয়েছে ৯ কোটি ৬৯ লাখ ৯৭ হাজার টাকা। এর আগের দিন লেনদেন হয়েছিলো ১৩ কোটি ৫৭ লাখ ৩ হাজার টাকা।

লেনদেন হওয়া কোম্পানির মধ্যে দাম বেড়েছে ২৭টির, কমেছে ১৯৬টির আর অপরিবর্তিত রয়েছে ২১টি কোম্পানির শেয়ার। আর তাতে বিনিয়োগকারীদের মূলধন কমেছে ৫ হাজার ৮৫০ কোটি ৩৫ লাখ ২ হাজার টাকা।

আপনার মতামত লিখুন :